Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

হিট স্ট্রোক এড়াবেন কীভাবে?

 পরিবেশের উষ্ণতা এবং মানব শরীর
 সুস্থ অবস্থায় যে কোনও মানবদেহের স্বাভাবিক তাপমাত্রা থাকে ৩৭ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের আশপাশে। অবশ্য ১ ডিগ্রি এদিক-ওদিক হতে পারে। এছাড়া শারীরিক অসুস্থতা, এক্সারসাইজ করার পরে তাপমাত্রার খানিক হেরফের হয়। এইসমস্ত শর্ত ছাড়াও রয়ে যায় পরিবেশের উত্তাপ। পরিবেশ উষ্ণ হতে শুরু করলে, আমাদের শরীরেও তার প্রভাব পড়ে। দেহের উত্তাপ স্বাভাবিকের তুলনায় বাড়তে থাকে। তবে আমাদের শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক রাখার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে। এই ব্যবস্থার নাম ‘থার্মোস্ট্যাট’। পরিবেশের তাপমাত্রার সঙ্গে দেহের তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করলে এই থার্মোস্ট্যাট পদ্ধতি নিজস্ব ব্যবস্থায় ত্বকে আরও বেশি করে রক্ত সরবরাহ বাড়িয়ে দেয়। ফলে রক্ত থেকে তাপ বাইরের পরিবেশে বেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকে। একইসঙ্গে শরীর বাড়ায় ঘামের ক্ষরণ। কারণ ঘাম বেরলেই শরীর থেকে লীন তাপ বেরিয়ে যাবে এবং শরীর ঠান্ডা হবে। এই প্রক্রিয়াকে বলে হিট লস। মুশকিল হল, থার্মোস্ট্যাট পদ্ধতিরও তো একটা সীমাবদ্ধতা আছে। পরিবেশ মারাত্মক রকমের উষ্ণ হয়ে পড়লে হিট লস বা তাপ ছাড়ার থেকে তাপ গ্রহণের মাত্রা বেশি হয়ে যায়। এর ফলেই দেখা দেয় বিভিন্ন ধরনের শারীরিক অসুস্থতা।
শরীরের নিয়ন্ত্রণ
স্বাভাবিক পরিবেশে শরীরের তাপমাত্রার প্রধান উৎস কিন্তু আসলে দেহের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা। চিকিৎসা পরিভাষায় যাকে বলা হয় মেটাবলিক হিট। শরীরে বিভিন্ন জৈবরাসায়নিক ক্রিয়াকলাপ এবং সারাদিন কাজকর্মের ফলশ্রুতিতে উৎপন্ন হওয়া তাপ হল শরীরের অভ্যন্তরীণ উষ্ণতার উৎস। বিকিরণ, পরিচলন এবং ঘাম দ্বারা বাষ্পীভবনের মাধ্যমে অতিরিক্ত উষ্ণতা শরীর থেকে বেরিয়ে যায়।
আশপাশে উত্তপ্ত ধাতু বা অন্য কোনও বস্তু থাকলে, সরাসরি স্পর্শ ছাড়াই তার মাধ্যমে শরীর উত্তপ্ত হতে পারে। আবার শীতল কোনও বস্তু থাকলে তাপ নির্গতও হতে পারে বিকিরণ পদ্ধতির মাধ্যমে। তবে কোনও বস্তুর উষ্ণতা ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকলে কোনওরকম বিকিরণ হয় না।
অন্যদিকে শরীরের সংস্পর্শে থাকা বাতাসের মাধ্যমে পরিচলন পদ্ধতিতে উষ্ণতার দেওয়া-নেওয়া হয়ে থাকে। পরিচলন পদ্ধতিতে তাপের আদানপ্রদান নির্ভর করে বাতাসের উষ্ণতার সঙ্গে ত্বকের উষ্ণতার পার্থক্য এবং বাতাসের গতির উপর।
অন্যদিকে ঘামের বাষ্পীভবনের দ্বারাও শরীর তাপ ছাড়ে ও শরীর ঠান্ডা হয়। মুশকিল হল উষ্ণ এবং জলীয়বাষ্প বেশি আছে এমন পরিবেশে ঘাম বেরলেও শরীর ঠান্ডা হয় না, কারণ বাতাস আগে থেকেই আর্দ্র হয়ে থাকে। পরিবেশে নতুন করে জলীয়বাষ্প যোগ হওয়ার সুযোগ থাকে না। অথচ উষ্ণ পরিবেশ ও শুকনো আবহাওয়ায় শরীর ঘাম নির্গত করে শরীর ঠান্ডা করতে পারে।
এছাড়া শ্বসনকার্যের মাধ্যমেও শরীরের তাপমাত্রার সামান্য আদানপ্রদান হয় বইকি।
তাপমাত্রা বাড়লে কী হয়—
পরিবেশের তাপমাত্রা, স্বাভাবিক তাপমাত্রার তুলনায় বাড়তে শুরু করলে শরীরে বিভিন্ন ধরনের উপসর্গ দেখা দেওয়ার আশঙ্কা থাকে—
 অস্বাস্তি বাড়ে  কোনও কাজে মনোযোগ দিতে সমস্যা হয়  কায়িক শ্রমের প্রয়োজন হয় এমন কাজ করতে বেশ কষ্ট হয়।
তাপমাত্রা যত বাড়ে ততই অন্যান্য গুরুতর সমস্যা হতে শুরু করে। দেখা যাক সেগুলি কী কী—
হিট ইডিমা: আবহাওয়ার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়াটা শরীরের ধর্ম। কিন্তু যাঁদের শরীর আবহাওয়ার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে বসে তাঁদেরই বেশি সমস্যা হয়। হিট ইডিমা হল, গোড়ালিতে একধরনের ফোলাভাব। অবশ্য শীতল আবহাওয়ায় দু’তিনদিন থাকলেই আপনাআপনিই এই ফোলাভাব কমে যায়।
হিট র‌্যাশ: খুব গরম আবহাওয়ায় থাকতে শুরু করলে ত্বকে লাল লালা দানা দানা আকারের র‌্যাশ বেরতে শুরু করে। র‌্যাশ বেরনোর সঙ্গে ত্বকে জ্বালাভাবও থাকতে পারে। মুশকিল হয় যখন ঘর্মগ্রন্থির মুখগুলি ময়লা জমে বন্ধ হয়ে যায়। ত্বকের মৃত কোষ এবং স্টেফ এপিডারমাইটিস নামের জীবাণু ত্বকের লোমকূপের মুখ বন্ধ করে দেয়। উষ্ণ আবহাওয়ায় প্রতিনিয়ত শরীরে ঘাম তৈরি হতে থাকে। কিন্তু ঘর্মগ্রন্থির মুখ বন্ধ থাকায় সেই ঘাম বের হতে পারে না। ফলে ঘর্মগ্রন্থির মুখটি লাল ফুসকুড়ি বা দানার আকারে ফুলে ওঠে, যাকে আমরা ঘামাচি বলি। সাধারণত পিঠে ও ঘাড়ে ঘামাচি দেখা দেয়।
হিট ক্র্যাম্পস: এককথায় শরীরের বিভিন্ন পেশিতে ব্যথা ও টান ধরার সমস্যা। সাধারণত ঘামের সঙ্গে শরীর থেকে নুন বেরিয়ে যাওয়ার কারণে মাসলে টান ধরে। এই কারণেই, গ্রীষ্মকালে দীর্ঘক্ষণ বাইরে রোদে ঘোরাঘুরি করলে পেশিতে টান ধরে।
হিট এগজশ্চন: মারাত্মক রকমের ঘাম হলে শরীর থেকে প্রয়োজনীয় জল এবং নুন বেরিয়ে যায়। ফলে শরীরে দেখা দেয় অপরিসীম ক্লান্তি, দুর্বলতা। সঙ্গে থাকতে পারে ঘোলাটে দৃষ্টি, মাথা ঘোরা, দুর্দমনীয় তৃষ্ণা, বমি বা বমিভাব, মাথা যন্ত্রণা, ডায়ারিয়া, মাসল ক্র্যাম্প, শ্বাসের টান, প্রবল শারীরিক অস্বস্তি, হাতে ও পায়ে অসাড়ভাব। এই সমস্যার একমাত্র চিকিৎসা হল ঠান্ডা জায়গায় রোগীকে স্থানান্তরিত করা। একইসঙ্গে রোগীকে দিতে হবে ঠান্ডা শরবত, ফলের রস, ওআরএস ইত্যাদি।
হিট সিনকোপি: খর বেলায় ভোটের লাইনে, খোলা মাথায় দীর্ঘক্ষণ রোদে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে কারও মাথা ঘুরছে? আর হঠাৎ চেতনা লোপ পেয়েছে? এমন হলে বুঝতে হবে রোগী হিট সিনকোপি-এর সমস্যায় আক্রান্ত হয়েছেন। সাধারণত, উষ্ণ পরিবেশে, ব্রেনে প্রয়োজনের তুলনায় রক্ত কম সরবরাহ হলে এমন সমস্যা দেখা দেয়। আসলে উষ্ণ পরিবেশে ঘাম হবেই। আর ঘামের সঙ্গে শরীর থেকে প্রয়োজনীয় তরল বেরিয়ে যায়। ফলে রক্তচাপ কমতে শুরু করে। তার উপর, দীর্ঘক্ষণ ঠাঁয় দাঁড়িয়ে থাকার ফলে রক্ত পায়ের দিকে চলে যায়। দরকার মতো রক্ত ব্রেনে পৌঁছতে পারে না। এই সমস্যা সমাধানে সাধারণত রোগীকে শীতল পরিবেশে কিছুক্ষণ রাখলেই তিনি সুস্থ বোধ করেন।
এবার আসা যাক সবচাইতে মারাত্মক এবং প্রাণঘাতী সমস্যায়, যার নাম হিট স্ট্রোক।
হিট স্ট্রোক: কোনও ব্যক্তির শরীরের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের তুলনায় বেশি হলেই বিপদ। ওই ব্যক্তির হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।
হিট স্ট্রোক দু’ধরনের হয়। ক্লাসিকাল এবং এক্সারশিওনাল।
ক্লাসিকাল হিট স্ট্রোক-এর ক্ষেত্রে দেখা যায়, দীর্ঘক্ষণ প্রবল রোদে উষ্ণ পরিবেশে ঘোরাঘুরি করার পরে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায় এবং ওই ব্যক্তি হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। ক্লাসিকাল হিট স্ট্রোকের ক্ষেত্রে আক্রান্তের দেহে ঘাম হয় খুব সামান্য অথবা ঘাম হয় না বললেই চলে। সাধারণত বাচ্চা এবং দীর্ঘস্থায়ী কোনও অসুখে ভুগছেন এমন মানুষের ক্ষেত্রে এই ধরনের হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।
অন্যদিকে এক্সারশনাল হিট স্ট্রোকের ক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে প্রবল ঘাম দেখা যায়। সাধারণত উষ্ণ পরিবেশে দীর্ঘসময় ধরে কায়িক শ্রম করার ফলে এই ধরনের হিট স্ট্রোক হয়।
হিট স্ট্রোক খুব মারাত্মক ধরনের শারীরিক সমস্যা। বিশেষ করে ব্রেন, কিডনির ও হার্টের প্রবল ক্ষতি হয় হিট স্ট্রোকে।
হিট স্ট্রোকের লক্ষণ: দেহের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে থাকে  ত্বকের রং লাল হয়ে যেতে পারে  যন্ত্রণার চোটে মাথা দপদপ করে  রোগীর আচরণে পরিবর্তন হয়। রোগীকে দিশেহারা লাগে। প্রচণ্ড উৎকণ্ঠা দেখা দেয় রোগীর মধ্যে। কথা জড়িয়ে যায়। প্রলাপও বকতে পারেন  বমি হতে পারে  দেখা যেতে পারে খিঁচুনি, এমনকী রোগী কোমায় চলে যেতে পারেন।
কী করবেন:
খর দুপুরে কোনও ব্যক্তি হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হলে প্রথমেই তাঁকে বাঁচানোর জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে হবে। কারণ হিট স্ট্রোক হল আপৎকালীন পরিস্থিতি। ব্যবস্থা নিতে সামান্য দেরি হলে রোগীর প্রাণহানি ঘটা আশ্চর্য নয়। তাই—
 রোগীকে রোদ থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে শীতল স্থান বা ছায়ায় শোওয়ান  যথাসম্ভব অতিরিক্ত জামাকাপড় খুলে দিন  রোগীর দেহ শীতল করার জন্য গায়ে ঠান্ডা জল ঢালতে পারেন। খুব ভালো হয় কোনও বড় টবে ঠান্ডা জলে শুইয়ে দিতে পারলে। সঙ্গে ফ্যান চালিয়ে দিন। রোগীর মাথায়, ঘাড়ে, কানের নীচে, ভিজে তোয়ালে জড়িয়ে রাখুন। সারা গায়ে আইস প্যাক ঘষতে পারেন। একটু সুস্থ হলে রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যান।
অধিক উষ্ণতায় অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি কাদের বেশি—
 স্থূলকায় মানুষের শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সমস্যা হয়। ফলে গ্রীষ্মকালে মোটা মানুষের বেশি কষ্ট হয়।
 ৪৫ বছর এবং তাঁর ঊর্ধ্বের বয়সের মানুষের। কারণ এই বয়সের পর থেকে শরীরে বিভিন্ন ধরনের অসুখ বাসা বাঁধতে শুরু করে। বিশেষ করে, শরীর ফিট না থাকলে তাপমাত্রার হেরফেরে খুবই কষ্ট হয়।
 হার্টের রোগ, হাঁপানি এবং ফুসফুসের অসুখ, অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপে ভোগা রোগীর ঝুঁকি বেশি।
 কিছু কিছু গবেষণায় দেখা গিয়েছে, পুরুষদের তুলনায় মহিলারা তাপমাত্রার হেরফেরে বেশি কষ্ট পান।
গ্রীষ্মের সমস্যা থেকে বাঁচতে কী করবেন?
 গরমের দিনে বাইরে বেরিয়ে কাজ করার থাকলে সকাল সকাল কাজ সারার চেষ্টা করুন। দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৩টে পর্যন্ত কোনও কাজ করতে যাবেন না।
 খর প্রহরে রোদে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হলে, সঙ্গে রাখুন ছাতা, জলের বোতল। খুব ভালো হয় বোতলে নুন চিনির জল গুলে নিয়ে যেতে পারলে। আরও ভালো হয় জলে ওআরএস গুলে নিয়ে গেলে। একলিটার জলে ১ প্যাকেট ওআরএস গুলে নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন।
 হালকা রঙের সুতির জামকাপড় পড়ুন যাতে ঘাম হলে সহজেই তা বাষ্পীভূত হতে পারে। বেশি জামাকাপড় পরে থাকা মানেই ঘাম বাষ্পীভূত হতে পারবে না। শরীর ঠান্ডাও হবে না।
 এখন সকলেই সানবার্নের শিকার হচ্ছেন। সানবার্ন হলে তা কিন্তু ত্বকের তাপনিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা কমিয়ে আনে। তাই রোদে বেরতে হলে সানস্ক্রিন লোশন ব্যবহার করুন।
 এসি থেকে হুট করে উষ্ণ পরিবেশে বা উষ্ণ পরিবেশ থেকে হুট করে এসি-তে ঢুকবেন না। ছায়াঘেরা জায়গায় মিনিট দশেক দাঁড়িয়ে শরীরের উষ্ণতা পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিন।
 গ্রীষ্মের সময় খোলা পার্কিং লটে বদ্ধ গাড়িতে বেশিক্ষণ থাকবেন না। বিশেষ করে বাচ্চা এবং বয়স্কদের এই পরিস্থিতিতে রাখা উচিত নয়। বদ্ধ গাড়ি খুব দ্রুত উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। ফলে হিট স্ট্রোকের আশঙ্কা বেড়ে যায়।
 মদ্যপান করে কখনওই গ্রীষ্মের দিনে বাইরে বেরিয়ে কাজ করতে যাবেন না। কারণ অ্যালকোহল শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের প্রক্রিয়াকে বাধা দেয়।
লিখেছেন সুপ্রিয় নায়েক
25th  April, 2019
গরমে টক খাবেন কেন?

গরমের দিনে টক খাবারের নাম মনে পড়লে জিভে জল আসে বৈকি! অন্য ঋতুগুলিতে টকের তেমন সমাদর নেই। আয়ুর্বেদ মতে রস ৬টি—মধুর, অম্ল, লবণ, তিক্ত, কটু, কষায়, আর এগুলির সমন্বয়ে শরীরে বায়ু-পিত্ত-কফের বৃদ্ধি-হ্রাস হয়ে শরীরকে সুস্থ ও অসুস্থ করে তুলতে পারে। তাই সব ঋতুতে কম-বেশি ৬টি রসের ব্যবহার শরীরের পক্ষে খুবই উপযোগী।
বিশদ

09th  May, 2019
হিমোফিলিয়া সচেতনতায়

সম্প্রতি চলে গেল ওয়ার্ল্ড হিমোফেলিয়া ডে। চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত মানুষেরা হিমোফিলিয়া অসুখটি নিয়ে খুবই চিন্তিত। কারণ এই অসুখের বিশেষ কোন চিকিৎসা এখনও বেরয়নি। অথচ এদেশের অসংখ্য মানুষ এই রোগে আক্রান্ত। বংশগত এই অসুখে আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে রক্ত সঠিকভাবে জমাট বাঁধতে পারে না। ফলস্বরূপ শরীরের বিভিন্ন পেশি ও অস্থিসন্ধিতে ক্রমাগত রক্তক্ষরণ হয়। রোগী ক্রমশ চলচ্ছক্তিহীন হয়ে পড়েন।
বিশদ

09th  May, 2019
১০০০ দিনের উদ্যোগ

লিওনার্দ থমসন নামের এক বাচ্চা ছেলে ডায়াবেটিসের কবলে পড়ে প্রায় মরণাপন্ন। চিকিৎসক বান্টিং এবং মেডিক্যালের ছাত্র বেস্ট মিলে বাচ্চাটিকে ইনসুলিন ইঞ্জেকশন দিলেন। ধরা দিল সাফল্য। ১৫ দিনের মধ্যে বাচ্চাটির রক্তে সুগারের মাত্রা উল্লেখযোগ্য হারে নেমে যায়। সেটা ছিল ১৯২২ সাল।
বিশদ

09th  May, 2019
ডায়াবেটিস আপডেট ২০১৯

 কলকাতা ডায়াবেটিস অ্যান্ড এন্ডোক্রিনোলজি ফোরাম-এর পক্ষ থেকে ‘ডায়াবেটিস আপডেট ২০১৯, কলকাতা’ নামক একটি আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়েছিল। সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়, ডায়াবেটিসের আধুনিকতম চিকিৎসা কলকাতার সমস্ত চিকিৎসকদের সামনে তুলে ধরতেই এই আলোচনাসভা আয়োজন করা হয়েছিল।
বিশদ

09th  May, 2019
 থ্যালাসেমিয়া সচেতনতায় গান

 ৮ মে ছিল বিশ্ব থ্যালাসেমিয়া দিবস। সেই উপলক্ষ্যে সিরাম থ্যালাসেমিয়া প্রিভেনশন ফেডারেশনের তরফে এক সপ্তাহ ব্যাপী একগুচ্ছ পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল। সংস্থার তরফে সাংবাদিক সম্মেলন করে জানানো হয়, গোটা বছরই মানুষকে এই রোগের বিষয়ে আমরা সচেতন করে থাকি।
বিশদ

09th  May, 2019
বিশেষ মানুষটি কি আপনাকে পছন্দ করে? বুঝে নিন দেহের ভঙ্গিমা দেখে 

সাইকিয়াট্রিস্টরা বলেন, পছন্দের মানুষটির সঙ্গে কথা বলার সময় আমাদের শরীরের ভাবভঙ্গিমা বদলে যায়। সেই বদলে যাওয়া ভঙ্গিমার দিকে খেয়াল রাখলেই ধরা যায় পছন্দের মানুষটি আদৌ আপনার প্রতি আগ্রহী কিনা।   বিশদ

02nd  May, 2019
গরমের সর্দি-কাশি
থেকে বাঁচবেন কীভাবে?

গ্রীষ্মে ফুটছে গোটা রাজ্য। সকাল সকাল চড়ছে তাপমাত্রার পারদ। বেলা বাড়তেই সূর্যের দাপটে অসহ্য পরিস্থিতি। বাড়ির বাইরে পা রখালেই মিনিট দুয়েকেই ঘেমে নেয়ে স্নান। আর মিনিট দশেকের মধ্যে মাথার চাঁদি ফাটার জোগার! সবমিলিয়ে গরমে ভাজা ভাজা অবস্থা।
বিশদ

02nd  May, 2019
ইয়ারফোন লাগিয়ে গান শোনেন?
জেনে নিন কী বিপদ অপেক্ষা করছে

আপনি কি কানে ইয়ারফোন গুঁজে, গান শুনতে শুনতে ঘুমের কোলে ঢলে পড়েন? তাহলে এখনই সাবধান হোন। এই অভ্যাস থুড়ি বদ অভ্যাস কিন্তু আপনার জীবন সংশয়ের কারণ হতে পারে। যেমনটি ঘটল সম্প্রতি মালয়েশিয়ার এক কিশোরের সঙ্গে।
বিশদ

02nd  May, 2019
গরম সামলান আয়ুর্বেদে

পরামর্শে বেঙ্গল ইনস্টিটিউট অব ফার্মাসিউটিক্যাল সায়েন্সেস-এর প্রিন্সিপাল-ইন-চার্জ ডাঃ লোপামুদ্রা ভট্টাচার্য বিশদ

25th  April, 2019
ভালো ঘুমের জন্য
কী করবেন?

বালিশে মাথা রেখে চোখ বুজলেই কি আর সকলের ঘুম আসে? নিদ্রাহীন রাতের মতো যন্ত্রণাদায়ক অভিজ্ঞতা বোধহয় আর কিছু হতে পারে না! একটানা গভীর ঘুম এখন প্রায় সব মানুষের কাছেই স্বপ্ন। অথচ চিকিৎসকরা বলছেন, সম্ভব, নিরবচ্ছিন্ন ঘুম সম্ভব! কীভাবে? জানাচ্ছেন কলকাতার ইনস্টিটিউট অব স্লিপ সায়েন্সের ঘুম গবেষক ডাঃ অরূপকুমার হালদার এবং স্লিপ অ্যাপনিয়া সার্জেন ডাঃ দীপঙ্কর দত্ত।
বিশদ

18th  April, 2019
 হেল্‌থ টেক ২০১৯

মেডিকা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল এবং দ্য বেঙ্গল চেম্বার-এর যৌথ উদ্যোগে সম্প্রতি আয়োজিত হল ‘হেল্‌থ টেক ২০১৯’। শহরে১২ এবং ১৩ এপ্রিল এই দু’‌দিনব্যাপী আলোচনাচক্রটি আয়োজিত হয়। মূলত চিকিৎসাক্ষেত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার কেমন হওয়া উচিত, তা নিয়েই চলে কথোপকথন।
বিশদ

18th  April, 2019
অসুখ ও খাদ্য

রিভার্স ফ্যাক্টর নামে সংস্থাটির দাবি, প্রাকৃতিক খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে বহু রোগ সারিয়ে তোলা যায়। দীর্ঘদিন ধরেই তারা ভারতে জীবনযাত্রা এবং সঠিক খাবার নির্বাচনে সাহায্য করার মাধ্যমে বহু রোগীর অসুখ সারিয়ে তুলতে সাহায্য করছে।
বিশদ

18th  April, 2019
অ্যামওয়ের বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস পালন

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে দুঃস্থ শিশুদের স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রদানের উদ্দেশ্যে অ্যামওয়ে ইন্ডিয়া কলকাতায় মুক্তি রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারের শিশুদের জন্য একটি স্বাস্থ্য পরীক্ষা শিবিরের আয়োজন করেছিল। সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সাধারণ বিভাগ, ইএনটি ও ত্বক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা সেই শিবিরে উপস্থিত ছিলেন।
বিশদ

18th  April, 2019
 বেশি ঘাম হলে কী করবেন?

বাংলায় এখন ভরা গ্রীষ্ম। সূর্যের কৃপায় ঘরের বাইরে পা রাখলেই একবারে ঘেমে-নেয়ে একশা। এটাই স্বাভাবিক। তবে অনেকে আবার কারণে-অকারণেই ঘামতে শুরু করেন। ঘামের পরিমাণ থাকে আশপাশের অন্যান্য মানুষের তুলনায় বেশি। কেন হয় এমন সমস্যা? বেশি ঘাম হওয়া কমাতে কী করবেন? জানাচ্ছেন বিশিষ্ট মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাঃ আশিস মিত্র।
বিশদ

11th  April, 2019
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: ভোট শেষ হয়ে গিয়েছে গত ৬ এপ্রিল। কিন্তু, এখনও হাওড়া জেলায় ভোটের চুলচেরা বিশ্লেষণ নিয়ে ব্যস্ত জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। কোন বিধানসভা এলাকা থেকে কত লিড আসবে বা কোন বিধানসভা কেন্দ্রে ফল খারাপ হতে পারে, তা নিয়ে ব্লক ...

 নয়াদিল্লি, ১৪ মে (পিটিআই): জঙ্গি সংগঠন এলটিটিই-র উপর আরও পাঁচ বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখল কেন্দ্রীয় সরকার। ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে এক বিবৃতিতে এই নির্দেশের কথা জানানো হয়েছে। বেআইনি কার্যকলাপ (প্রতিরোধ) আইন (১৯৬৭)-এর ভিত্তিতে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ...

ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

কলম্বো ও রাষ্ট্রসঙ্ঘ, ১৪ মে (পিটিআই): ন্যাশনাল থাওহিত জামাত (এনটিজে) সহ আরও দু’টি মুসলিম চরমপন্থী মৌলবাদী সংস্থাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করল শ্রীলঙ্কার সরকার। প্রেসিডেন্ট মৈত্রীপাল সিরিসেনা সোমবারই এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। এনটিজে ছাড়া বাকি দু’টি সংগঠন হল জামাতে মিলাতে ইব্রাহিম  এবং ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের ক্ষেত্রে ভাবনা-চিন্তা করে বিষয় নির্বাচন করলে ভালো হবে। প্রেম-প্রণয়ে বাধাবিঘ্ন থাকবে। কারও সঙ্গে মতবিরোধ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮১৭: ধর্মীয় সংস্কারক ও দার্শনিক দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্ম
১৮৫৯: নোবেলজয়ী ফরাসি পদার্থ বিজ্ঞানী পিয়ের কুরির জন্ম
১৯০৫: কবি ও লেখক অন্নদাশঙ্কর রায়ের জন্ম
১৯৬৭: অভিনেত্রী মাধুরী দীক্ষিতের জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৬৫ টাকা ৭১.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৮৯.৭৪ টাকা ৯২.৯৯ টাকা
ইউরো ৭৭.৭৩ টাকা ৮০.৭২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,৮১৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,১৩৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১,৬০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩১ বৈশাখ ১৪২৬, ১৫ মে ২০১৯, বুধবার, একাদশী ১৩/৫৮ দিবা ১০/৩৬। উত্তরফাল্গুনী ৫/৩৯ দিবা ৭/১৬। সূ উ ৫/০/৩৬, অ ৬/৫/১৮, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৫ মধ্যে পুনঃ ৯/১১ গতে ১১/৭ মধ্যে পুনঃ ৩/২৮ গতে ৫/১৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/৪৯ গতে ৯/০ মধ্যে পুনঃ ১/২২ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/১৬ গতে ৯/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৩ গতে ১/১১ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৬ গতে ৩/৩৮ মধ্যে।
৩১ বৈশাখ ১৪২৬, ১৫ মে ২০১৯, বুধবার, একাদশী ১০/৫১/২১ দিবা ৯/২১/২২। উত্তরফাল্গুনীনক্ষত্র ৩/২৩/৩৫ দিবা ৬/২২/১৬ পরে হস্তানক্ষত্র ৫৯/৫৮/৫১, সূ উ ৫/০/৫০, অ ৬/৬/৪২, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৫ গতে ১১/৮ মধ্যে ও ১/৪৭ গতে ৫/২০ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৪৭ মধ্যে ও ১১/৫৬ গতে ১/২২ মধ্যে, বারবেলা ১১/৩৩/৪৬ গতে ১/১২/১ মধ্যে, কালবেলা ৮/১৭/১৮ গতে ৯/৫৫/৩২ মধ্যে, কালরাত্রি ২/২৭/১৮ গতে ৩/৩৯/৪ মধ্যে। 
৯ রমজান
এই মুহূর্তে
বন্ধ হলদিয়া বন্দর 
শ্রমিক বিক্ষোভে স্তব্ধ হয়ে হলদিয়া বন্দর। বন্দর বন্ধ হওয়াতে অচলাবস্থা ...বিশদ

10:17:37 PM

এমন নির্বাচন কমিশন জম্মে দেখিনি: মমতা
বিজেপি যা বলছে নির্বাচন কমিশন তাই করছে। এমন নির্বাচন কমিশন ...বিশদ

09:22:00 PM

 অমিত শাহর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত: মমতা

09:17:27 PM

জরুরী সাংবাদিক সম্মেলনে মুখ্যমন্ত্রী 

09:16:21 PM

গুয়াহাটির শপিং মলের বাইরে বিস্ফোরণ
গুয়াহাটির জু রোডের একটি শপিং মলের বাইরে বিস্ফোরণ ঘটে। ঘটনায় ...বিশদ

08:45:31 PM

রাজ্যে ভোট প্রচারের সময় কমল
শেষ দফার নির্বাচনী প্রচারে সময় কমিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন। এর ...বিশদ

08:07:49 PM