Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

হিট স্ট্রোক এড়াবেন কীভাবে?

 পরিবেশের উষ্ণতা এবং মানব শরীর
 সুস্থ অবস্থায় যে কোনও মানবদেহের স্বাভাবিক তাপমাত্রা থাকে ৩৭ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের আশপাশে। অবশ্য ১ ডিগ্রি এদিক-ওদিক হতে পারে। এছাড়া শারীরিক অসুস্থতা, এক্সারসাইজ করার পরে তাপমাত্রার খানিক হেরফের হয়। এইসমস্ত শর্ত ছাড়াও রয়ে যায় পরিবেশের উত্তাপ। পরিবেশ উষ্ণ হতে শুরু করলে, আমাদের শরীরেও তার প্রভাব পড়ে। দেহের উত্তাপ স্বাভাবিকের তুলনায় বাড়তে থাকে। তবে আমাদের শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক রাখার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে। এই ব্যবস্থার নাম ‘থার্মোস্ট্যাট’। পরিবেশের তাপমাত্রার সঙ্গে দেহের তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করলে এই থার্মোস্ট্যাট পদ্ধতি নিজস্ব ব্যবস্থায় ত্বকে আরও বেশি করে রক্ত সরবরাহ বাড়িয়ে দেয়। ফলে রক্ত থেকে তাপ বাইরের পরিবেশে বেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকে। একইসঙ্গে শরীর বাড়ায় ঘামের ক্ষরণ। কারণ ঘাম বেরলেই শরীর থেকে লীন তাপ বেরিয়ে যাবে এবং শরীর ঠান্ডা হবে। এই প্রক্রিয়াকে বলে হিট লস। মুশকিল হল, থার্মোস্ট্যাট পদ্ধতিরও তো একটা সীমাবদ্ধতা আছে। পরিবেশ মারাত্মক রকমের উষ্ণ হয়ে পড়লে হিট লস বা তাপ ছাড়ার থেকে তাপ গ্রহণের মাত্রা বেশি হয়ে যায়। এর ফলেই দেখা দেয় বিভিন্ন ধরনের শারীরিক অসুস্থতা।
শরীরের নিয়ন্ত্রণ
স্বাভাবিক পরিবেশে শরীরের তাপমাত্রার প্রধান উৎস কিন্তু আসলে দেহের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা। চিকিৎসা পরিভাষায় যাকে বলা হয় মেটাবলিক হিট। শরীরে বিভিন্ন জৈবরাসায়নিক ক্রিয়াকলাপ এবং সারাদিন কাজকর্মের ফলশ্রুতিতে উৎপন্ন হওয়া তাপ হল শরীরের অভ্যন্তরীণ উষ্ণতার উৎস। বিকিরণ, পরিচলন এবং ঘাম দ্বারা বাষ্পীভবনের মাধ্যমে অতিরিক্ত উষ্ণতা শরীর থেকে বেরিয়ে যায়।
আশপাশে উত্তপ্ত ধাতু বা অন্য কোনও বস্তু থাকলে, সরাসরি স্পর্শ ছাড়াই তার মাধ্যমে শরীর উত্তপ্ত হতে পারে। আবার শীতল কোনও বস্তু থাকলে তাপ নির্গতও হতে পারে বিকিরণ পদ্ধতির মাধ্যমে। তবে কোনও বস্তুর উষ্ণতা ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকলে কোনওরকম বিকিরণ হয় না।
অন্যদিকে শরীরের সংস্পর্শে থাকা বাতাসের মাধ্যমে পরিচলন পদ্ধতিতে উষ্ণতার দেওয়া-নেওয়া হয়ে থাকে। পরিচলন পদ্ধতিতে তাপের আদানপ্রদান নির্ভর করে বাতাসের উষ্ণতার সঙ্গে ত্বকের উষ্ণতার পার্থক্য এবং বাতাসের গতির উপর।
অন্যদিকে ঘামের বাষ্পীভবনের দ্বারাও শরীর তাপ ছাড়ে ও শরীর ঠান্ডা হয়। মুশকিল হল উষ্ণ এবং জলীয়বাষ্প বেশি আছে এমন পরিবেশে ঘাম বেরলেও শরীর ঠান্ডা হয় না, কারণ বাতাস আগে থেকেই আর্দ্র হয়ে থাকে। পরিবেশে নতুন করে জলীয়বাষ্প যোগ হওয়ার সুযোগ থাকে না। অথচ উষ্ণ পরিবেশ ও শুকনো আবহাওয়ায় শরীর ঘাম নির্গত করে শরীর ঠান্ডা করতে পারে।
এছাড়া শ্বসনকার্যের মাধ্যমেও শরীরের তাপমাত্রার সামান্য আদানপ্রদান হয় বইকি।
তাপমাত্রা বাড়লে কী হয়—
পরিবেশের তাপমাত্রা, স্বাভাবিক তাপমাত্রার তুলনায় বাড়তে শুরু করলে শরীরে বিভিন্ন ধরনের উপসর্গ দেখা দেওয়ার আশঙ্কা থাকে—
 অস্বাস্তি বাড়ে  কোনও কাজে মনোযোগ দিতে সমস্যা হয়  কায়িক শ্রমের প্রয়োজন হয় এমন কাজ করতে বেশ কষ্ট হয়।
তাপমাত্রা যত বাড়ে ততই অন্যান্য গুরুতর সমস্যা হতে শুরু করে। দেখা যাক সেগুলি কী কী—
হিট ইডিমা: আবহাওয়ার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়াটা শরীরের ধর্ম। কিন্তু যাঁদের শরীর আবহাওয়ার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে বসে তাঁদেরই বেশি সমস্যা হয়। হিট ইডিমা হল, গোড়ালিতে একধরনের ফোলাভাব। অবশ্য শীতল আবহাওয়ায় দু’তিনদিন থাকলেই আপনাআপনিই এই ফোলাভাব কমে যায়।
হিট র‌্যাশ: খুব গরম আবহাওয়ায় থাকতে শুরু করলে ত্বকে লাল লালা দানা দানা আকারের র‌্যাশ বেরতে শুরু করে। র‌্যাশ বেরনোর সঙ্গে ত্বকে জ্বালাভাবও থাকতে পারে। মুশকিল হয় যখন ঘর্মগ্রন্থির মুখগুলি ময়লা জমে বন্ধ হয়ে যায়। ত্বকের মৃত কোষ এবং স্টেফ এপিডারমাইটিস নামের জীবাণু ত্বকের লোমকূপের মুখ বন্ধ করে দেয়। উষ্ণ আবহাওয়ায় প্রতিনিয়ত শরীরে ঘাম তৈরি হতে থাকে। কিন্তু ঘর্মগ্রন্থির মুখ বন্ধ থাকায় সেই ঘাম বের হতে পারে না। ফলে ঘর্মগ্রন্থির মুখটি লাল ফুসকুড়ি বা দানার আকারে ফুলে ওঠে, যাকে আমরা ঘামাচি বলি। সাধারণত পিঠে ও ঘাড়ে ঘামাচি দেখা দেয়।
হিট ক্র্যাম্পস: এককথায় শরীরের বিভিন্ন পেশিতে ব্যথা ও টান ধরার সমস্যা। সাধারণত ঘামের সঙ্গে শরীর থেকে নুন বেরিয়ে যাওয়ার কারণে মাসলে টান ধরে। এই কারণেই, গ্রীষ্মকালে দীর্ঘক্ষণ বাইরে রোদে ঘোরাঘুরি করলে পেশিতে টান ধরে।
হিট এগজশ্চন: মারাত্মক রকমের ঘাম হলে শরীর থেকে প্রয়োজনীয় জল এবং নুন বেরিয়ে যায়। ফলে শরীরে দেখা দেয় অপরিসীম ক্লান্তি, দুর্বলতা। সঙ্গে থাকতে পারে ঘোলাটে দৃষ্টি, মাথা ঘোরা, দুর্দমনীয় তৃষ্ণা, বমি বা বমিভাব, মাথা যন্ত্রণা, ডায়ারিয়া, মাসল ক্র্যাম্প, শ্বাসের টান, প্রবল শারীরিক অস্বস্তি, হাতে ও পায়ে অসাড়ভাব। এই সমস্যার একমাত্র চিকিৎসা হল ঠান্ডা জায়গায় রোগীকে স্থানান্তরিত করা। একইসঙ্গে রোগীকে দিতে হবে ঠান্ডা শরবত, ফলের রস, ওআরএস ইত্যাদি।
হিট সিনকোপি: খর বেলায় ভোটের লাইনে, খোলা মাথায় দীর্ঘক্ষণ রোদে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে কারও মাথা ঘুরছে? আর হঠাৎ চেতনা লোপ পেয়েছে? এমন হলে বুঝতে হবে রোগী হিট সিনকোপি-এর সমস্যায় আক্রান্ত হয়েছেন। সাধারণত, উষ্ণ পরিবেশে, ব্রেনে প্রয়োজনের তুলনায় রক্ত কম সরবরাহ হলে এমন সমস্যা দেখা দেয়। আসলে উষ্ণ পরিবেশে ঘাম হবেই। আর ঘামের সঙ্গে শরীর থেকে প্রয়োজনীয় তরল বেরিয়ে যায়। ফলে রক্তচাপ কমতে শুরু করে। তার উপর, দীর্ঘক্ষণ ঠাঁয় দাঁড়িয়ে থাকার ফলে রক্ত পায়ের দিকে চলে যায়। দরকার মতো রক্ত ব্রেনে পৌঁছতে পারে না। এই সমস্যা সমাধানে সাধারণত রোগীকে শীতল পরিবেশে কিছুক্ষণ রাখলেই তিনি সুস্থ বোধ করেন।
এবার আসা যাক সবচাইতে মারাত্মক এবং প্রাণঘাতী সমস্যায়, যার নাম হিট স্ট্রোক।
হিট স্ট্রোক: কোনও ব্যক্তির শরীরের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের তুলনায় বেশি হলেই বিপদ। ওই ব্যক্তির হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।
হিট স্ট্রোক দু’ধরনের হয়। ক্লাসিকাল এবং এক্সারশিওনাল।
ক্লাসিকাল হিট স্ট্রোক-এর ক্ষেত্রে দেখা যায়, দীর্ঘক্ষণ প্রবল রোদে উষ্ণ পরিবেশে ঘোরাঘুরি করার পরে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায় এবং ওই ব্যক্তি হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। ক্লাসিকাল হিট স্ট্রোকের ক্ষেত্রে আক্রান্তের দেহে ঘাম হয় খুব সামান্য অথবা ঘাম হয় না বললেই চলে। সাধারণত বাচ্চা এবং দীর্ঘস্থায়ী কোনও অসুখে ভুগছেন এমন মানুষের ক্ষেত্রে এই ধরনের হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।
অন্যদিকে এক্সারশনাল হিট স্ট্রোকের ক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে প্রবল ঘাম দেখা যায়। সাধারণত উষ্ণ পরিবেশে দীর্ঘসময় ধরে কায়িক শ্রম করার ফলে এই ধরনের হিট স্ট্রোক হয়।
হিট স্ট্রোক খুব মারাত্মক ধরনের শারীরিক সমস্যা। বিশেষ করে ব্রেন, কিডনির ও হার্টের প্রবল ক্ষতি হয় হিট স্ট্রোকে।
হিট স্ট্রোকের লক্ষণ: দেহের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে থাকে  ত্বকের রং লাল হয়ে যেতে পারে  যন্ত্রণার চোটে মাথা দপদপ করে  রোগীর আচরণে পরিবর্তন হয়। রোগীকে দিশেহারা লাগে। প্রচণ্ড উৎকণ্ঠা দেখা দেয় রোগীর মধ্যে। কথা জড়িয়ে যায়। প্রলাপও বকতে পারেন  বমি হতে পারে  দেখা যেতে পারে খিঁচুনি, এমনকী রোগী কোমায় চলে যেতে পারেন।
কী করবেন:
খর দুপুরে কোনও ব্যক্তি হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হলে প্রথমেই তাঁকে বাঁচানোর জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে হবে। কারণ হিট স্ট্রোক হল আপৎকালীন পরিস্থিতি। ব্যবস্থা নিতে সামান্য দেরি হলে রোগীর প্রাণহানি ঘটা আশ্চর্য নয়। তাই—
 রোগীকে রোদ থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে শীতল স্থান বা ছায়ায় শোওয়ান  যথাসম্ভব অতিরিক্ত জামাকাপড় খুলে দিন  রোগীর দেহ শীতল করার জন্য গায়ে ঠান্ডা জল ঢালতে পারেন। খুব ভালো হয় কোনও বড় টবে ঠান্ডা জলে শুইয়ে দিতে পারলে। সঙ্গে ফ্যান চালিয়ে দিন। রোগীর মাথায়, ঘাড়ে, কানের নীচে, ভিজে তোয়ালে জড়িয়ে রাখুন। সারা গায়ে আইস প্যাক ঘষতে পারেন। একটু সুস্থ হলে রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যান।
অধিক উষ্ণতায় অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি কাদের বেশি—
 স্থূলকায় মানুষের শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সমস্যা হয়। ফলে গ্রীষ্মকালে মোটা মানুষের বেশি কষ্ট হয়।
 ৪৫ বছর এবং তাঁর ঊর্ধ্বের বয়সের মানুষের। কারণ এই বয়সের পর থেকে শরীরে বিভিন্ন ধরনের অসুখ বাসা বাঁধতে শুরু করে। বিশেষ করে, শরীর ফিট না থাকলে তাপমাত্রার হেরফেরে খুবই কষ্ট হয়।
 হার্টের রোগ, হাঁপানি এবং ফুসফুসের অসুখ, অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপে ভোগা রোগীর ঝুঁকি বেশি।
 কিছু কিছু গবেষণায় দেখা গিয়েছে, পুরুষদের তুলনায় মহিলারা তাপমাত্রার হেরফেরে বেশি কষ্ট পান।
গ্রীষ্মের সমস্যা থেকে বাঁচতে কী করবেন?
 গরমের দিনে বাইরে বেরিয়ে কাজ করার থাকলে সকাল সকাল কাজ সারার চেষ্টা করুন। দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৩টে পর্যন্ত কোনও কাজ করতে যাবেন না।
 খর প্রহরে রোদে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হলে, সঙ্গে রাখুন ছাতা, জলের বোতল। খুব ভালো হয় বোতলে নুন চিনির জল গুলে নিয়ে যেতে পারলে। আরও ভালো হয় জলে ওআরএস গুলে নিয়ে গেলে। একলিটার জলে ১ প্যাকেট ওআরএস গুলে নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন।
 হালকা রঙের সুতির জামকাপড় পড়ুন যাতে ঘাম হলে সহজেই তা বাষ্পীভূত হতে পারে। বেশি জামাকাপড় পরে থাকা মানেই ঘাম বাষ্পীভূত হতে পারবে না। শরীর ঠান্ডাও হবে না।
 এখন সকলেই সানবার্নের শিকার হচ্ছেন। সানবার্ন হলে তা কিন্তু ত্বকের তাপনিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা কমিয়ে আনে। তাই রোদে বেরতে হলে সানস্ক্রিন লোশন ব্যবহার করুন।
 এসি থেকে হুট করে উষ্ণ পরিবেশে বা উষ্ণ পরিবেশ থেকে হুট করে এসি-তে ঢুকবেন না। ছায়াঘেরা জায়গায় মিনিট দশেক দাঁড়িয়ে শরীরের উষ্ণতা পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিন।
 গ্রীষ্মের সময় খোলা পার্কিং লটে বদ্ধ গাড়িতে বেশিক্ষণ থাকবেন না। বিশেষ করে বাচ্চা এবং বয়স্কদের এই পরিস্থিতিতে রাখা উচিত নয়। বদ্ধ গাড়ি খুব দ্রুত উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। ফলে হিট স্ট্রোকের আশঙ্কা বেড়ে যায়।
 মদ্যপান করে কখনওই গ্রীষ্মের দিনে বাইরে বেরিয়ে কাজ করতে যাবেন না। কারণ অ্যালকোহল শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের প্রক্রিয়াকে বাধা দেয়।
লিখেছেন সুপ্রিয় নায়েক
25th  April, 2019
ছড়াতে পারে করোনা, দাঁতের
অস্ত্রোপচারে নিষেধাজ্ঞা জারি

 নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ২০ মে: দাঁতের ডাক্তারখানা থেকে ব্যাপক হারে ছড়াতে পারে করোনার ভাইরাস। তাই একান্ত জরুরি ছাড়া দাঁতের অস্ত্রোপচার করতে বারণ করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। রোগী দেখার ক্ষেত্রেও জারি হল বিধি নিষেধ। বিশদ

21st  May, 2020
গার্হস্থ্য হিংসায় বাচ্চাদের মানসিক স্বাস্থ্য
ভেঙে পড়ার আশঙ্কা শিশু কমিশনের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনে বেড়ে চলা গার্হস্থ্য হিংসার ঘটনা শিশুমনেও ব্যাপক প্রভাব ফেলতে পারে। ফলে তাদের মধ্যে নানা আচরণগত পরিবর্তন হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। এমনই আশঙ্কা রাজ্য শিশু কমিশনের।
বিশদ

21st  May, 2020
প্রসূতিদের মধ্যে উত্তরোত্তর বাড়ছে করোনা,
হাই-প্রোটিন ডায়েট এবং ব্যায়ামের পরামর্শ 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এনআরএস মেডিক্যাল কলেজে সাতজন, মেডিক্যাল কলেজে দু’জন, কেপিসি মেডিক্যাল কলেজে তিনজন, সঞ্জীবন হাসপাতালে একজন....। করোনা পর্ব যতই দীর্ঘায়িত হচ্ছে, প্রসূতিদের মধ্যে সংক্রমণও বাড়ছে। 
বিশদ

10th  May, 2020
করোনা ঠেকাতে কোন ধরণের
সাবান ব্যবহার করবেন

যে রোগে মৃত্যুর হার শতকরা মাত্র পাঁচ ভাগ, সেই রোগটাকে নিয়ে কী শুরু হয়েছে বলুন তো! গুজব আর আতঙ্কে তো কান পাতাই দায়। এলাকায় কারো করোনা ধরা পড়ার পর, যে ধরনের অসভ্যতা শুরু হয়ে যায়, মনে হয় কোনও আতঙ্কবাদী ধরা পড়েছে! সেদিন আবার শুনলাম, সাবান না স্যানিটাইজার, নাকি দুটোই- এই নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। সাবান হলে কোন সাবান? 
বিশদ

06th  May, 2020
খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে ভারতীয়দের সতর্ক
করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ডাক্তার

  লন্ডন, ৩ মে (পিটিআই): করোনায় মৃত্যু এড়াতে দৈনন্দিন খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে ভারতীয়দের সতর্ক করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ চিকিৎসক ডাঃ অসীম মালহোত্রা। ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস)-এর সঙ্গে যুক্ত স্বনামধন্য কার্ডিওলজিস্ট ডাঃ মালহোত্রা আবার ‘এভিডেন্স বেসড মেডিসিন’-এর অধ্যাপক। বিশদ

04th  May, 2020
লকডাউনে সুস্থ থাকবেন কী করে
প্রেমসুন্দর দাস, বিশিষ্ট যোগ বিশেষজ্ঞ

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য জরুরি তিনটি বিষয়—শারীরিক স্বাস্থ্য, মানসিক স্বাস্থ্য ও পুষ্টি। তিনের মেলবন্ধনেই প্রতিরোধ ক্ষমতার শ্রীবৃদ্ধি ঘটে। মন যত প্রশান্ত হবে, শারীরিক সমস্যাও তত কমবে। মন একাগ্র করার পন্থা আবার নিহিত শরীরচর্চার মধ্যে।
বিশদ

02nd  May, 2020
লকডাউন ওঠার পর কী কী
অভ্যাস বজায় রাখবেন?

 লকডাউন কবে উঠবে? তার চাইতেও অনেক বড় প্রশ্ন হল আমাদের আগামী দিনে জীবন কেমন হবে? সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্ক, স্যানিটাইজারের ব্যবহার করে যেতেই হবে লকডাউন শেষ হওয়া পর্যন্ত। বিশদ

02nd  May, 2020
কীভাবে হাত ধুলে করোনা
ভাইরাসকে মাত দেওয়া যায়?

 করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চিকিৎসাবিজ্ঞানের সমস্ত স্তর দিয়েই হাত ধোয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সেই পরামর্শ মেনে নিয়ে একটা বড় অংশের মানুষই নিয়মিত হাত ধুয়ে চলেছেন। তবে অনবরত হাত ধুয়ে চলা এই মানুষগুলির মধ্যে অনেকেই অবশ্য হাত ধোয়ার আদর্শ পদ্ধতি মানছেন না।
বিশদ

02nd  May, 2020
ওয়ার্ক ফ্রম হোমে
উৎসাহ হারাচ্ছেন?
জেনে নিন সমাধানের ঘরোয়া উপায়

 নোভেল করোনার দাপট রুখতে দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। মোটের উপর ঘরবন্দি দেশের অধিকাংশ মানুষ। অবশ্য এই ঘরবন্দি অবস্থাতেও বাড়িতে বসেই কাজ করে যাচ্ছেন অনেকে। বিশদ

02nd  May, 2020
রান্নায় এই ৭ টি মশলা বাড়াবে
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

 এই মুহূর্তে করোনা আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। মারণ এই ভাইরাসের তাণ্ডবে কার্যত বিপর্যস্ত মানবজীবন। কীভাবে এই মহামারীর হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করা যায় এই চিন্তাতেই দিন কাটছে মানুষের।
বিশদ

02nd  May, 2020
বাসন মাজলে করোনা
ভাইরাস মরে?

 জিম বন্ধ। বন্ধ সেলেবদের শরীরচর্চা। তা বলে থেমে নেই তারকারা। বেছে নিয়েছেন অন্য উপায়। হাত লাগিয়েছেন বাসন মাজায়! কে নেই এই তালিকায়— ক্যাটরিনা থেকে কার্তিক আরিয়ান সকলেই মাজছেন বাসন। গৃহস্থালির এত কাজ থাকতে হঠাত্ কেন বাসন মাজা-মাজি?
বিশদ

02nd  May, 2020
সাবান না স্যানিটাইজার
কোনটা বেশি ভালো?

 নোভেল করোনার করাল গ্রাস থেকে রক্ষা পেতে সাবান এবং স্যানিটাইজারের কদর প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। চাহিদা এতটাই বেশি যে বাজারে স্যানিটাইজার তো প্রায় পাওয়াই যাচ্ছে না। আর সাবান পাওয়া গেলেও তার বিক্রি বেড়েছে কয়েক গুণ। বিশদ

02nd  May, 2020
বারবার বাসন মেজে নখকুনি?
কাপড় কেচে, ঘর মুছে
হাতে হাজা? কী করবেন?

 বাসন মাজা, ঘর মোছা, কাপড় কাচা, সব্জি কাটার কারণে হাতে বেশ কিছু ত্বকের সমস্যা দেখা দেয়। তার উপর এখন লকডাউন চলছে। ঘরের কাজ একটু বেশিই করতে হচ্ছে। এদিকে কাজ থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার উপায় নেই। বিশদ

02nd  May, 2020
 ঘাড়, কোমর, কনুই, কবজিতে ব্যথা?
সমস্যাটা মোবাইলেই লুকিয়ে নেই তো?

 দীর্ঘ লকডাউনে বাড়িতে বন্দী ছোট থেকে বড় সকলেই। খেয়াল করে দেখেছেন কি, ইতিমধ্যেই বেশ কিছু শারীরিক সমস্যা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। বিশেষতঃ ঘাড়ে, কাঁধে, কনুই ও কবজিতে একটা ব্যথা এবং শক্তভাব টের পাচ্ছেন? আসুন জেনে নিই বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন এবং এই সমস্য দূরই বা করবেন কীভাবে। বিশদ

02nd  May, 2020
একনজরে
  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনার দাপটে বিভিন্ন দেশ থেকে ফেরা পেশাদার ব্যক্তিদের জীবিকার সংস্থান করে দিতে উদ্যোগ নিল কেন্দ্রীয় সরকার। এঁদের জন্য তথ্যভাণ্ডার তৈরি করে নিয়োগকারী সংস্থা, রাজ্য সরকার এবং বণিকসভাগুলিকে পাঠানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে। ...

অলকাভ নিয়োগী, বর্ধমান: করোনা সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে আচমকা লকডাউন শুরু হওয়ায় বিভিন্ন রা঩জ্যে হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিক এবং সাধারণ মানুষ আটকে পড়েছিলেন। এখন প্রতিদিন সেই ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী ১ আগস্ট ভারতে খুলছে ফিফার ট্রান্সফার উইন্ডো। আন্তঃরাজ্য ছাড়পত্রও শুরু হবে একই দিনে। বৃহস্পতিবার অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনের সচিব কুশল দাস এই কথা জানিয়ে বলেছেন, ‘৯ জুন ভারতে ফিফার আন্তর্জাতিক উইন্ডো খোলার কথা ছিল। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনে দেশের সর্বত্র গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলি আটকে রয়েছে। ব্যতিক্রম নয় প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রও। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের কর্তাদের চিন্তা বাড়িয়েছে দেশীয় প্রযুক্তিতে প্রথম তৈরি হতে চলা ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সঠিক বন্ধু নির্বাচন আবশ্যক, কর্মরতদের ক্ষেত্রে শুভ। বদলির কোনও সম্ভাবনা এই মুহূর্তে নেই। শেয়ার বা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৩২: শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃতের রচনাকার মহেন্দ্রনাথ গুপ্তের (শ্রীম) মৃত্যু
১৯৩৬: অভিনেত্রী নূতনের জন্ম
১৯৫৯: শিল্পপতি অনিল আম্বানির জন্ম
১৯৭৪: অভিনেতা অহীন্দ্র চৌধুরির মৃত্যু
১৯৭৫ - মার্কিন অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলির জন্ম
১৯৮৫: জার্মান ফুটবলার লুকাস পোডোলোস্কির জন্ম

04th  June, 2020


ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৭৪ টাকা ৭৬.৪৫ টাকা
পাউন্ড ৯৩.১৩ টাকা ৯৬.৪৪ টাকা
ইউরো ৮৩.২২ টাকা ৮৬.৩১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

দৃকসিদ্ধ: ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার, পূর্ণিমা ৪৯/২৮ রাত্রি ১২/৪২। অনুরাধা নক্ষত্র ২৯/৩১ অপঃ ৪/৪৪। সূর্যোদয় ৪/৫৫/১২, সূর্যাস্ত ৬/১৪/৩২। অমৃতযোগ দিবা ১২/১ গতে ২/১৪ মধ্যে। রাত্রি ৮/২২ মধ্যে পুনক্ষ ১২/৩৮ গতে ২/৪৭ মধ্যে পুনঃ ৩/২৯ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/১৫ গতে ১১/৩৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫৫ গতে ১০/১৫ মধ্যে।
২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার, পূর্ণিমা ১/১। অনুরাধা নক্ষত্র অপরাহ্ন ৫/১২। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৬। অমৃতযোগ দিবা ১২/৬ গতে ২/৪৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/২৯ মধ্যে ও ১২/৪২ গতে ২/৪৮ মধ্যে ও ৩/৩০ গতে ৪/৫৬ মধ্যে। বারবেলা ৮/১৬ গতে ১১/৩৬ মধ্যে কালরাত্রি ৮/৫৬ গতে ১০/১৬ মধ্যে।
১২ শওয়াল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল  
মেষ: শেয়ার বা ফাটকাতে লাভ হবে। বৃষ: ব্যবসায় শুভ। মিথুন: কর্মে ...বিশদ

07:51:23 AM

ভক্তকূলকে ব্রাত্য রেখেই এবার পুরীতে শুরু জগন্নাথদেবের স্নানযাত্রা
করোনা সংক্রমন ঠেকাতে এই প্রথম ভক্তকুলকে ব্রাত্য রেখে ১৪৪ ধারা ...বিশদ

07:35:00 AM

রাজ্যে করোনায় মৃত্যু ২৮৩
রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৬৮ জনের শরীরে মিলল করোনা ...বিশদ

04-06-2020 - 07:02:37 PM

তামিলনাড়ুতে একদিনে করোনা আক্রান্ত ১,৩৭৩, মৃত ১২ 
তামিলনাড়ুতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১,৩৭৩ জন। মৃত্যু ...বিশদ

04-06-2020 - 07:01:52 PM

কর্ণাটকে একদিনে করোনা আক্রান্ত ২৫৭, মৃত ৪ 
কর্ণাটকে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু ...বিশদ

04-06-2020 - 06:51:26 PM

বাংলাদেশে একদিনে করোনা আক্রান্ত ২,৪২৩, মৃত ৩৫
গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ২,৪২৩ জন। ফলে ...বিশদ

04-06-2020 - 06:04:57 PM