Bartaman Patrika
হ য ব র ল
 

 ভগিনী নিবেদিতা

 আমাদের এই দেশকে গড়ে তোলার জন্য অনেকে অনেকভাবে স্বার্থত্যাগ করে এগিয়ে এসেছিলেন। এই কলমে জানতে পারবে সেরকমই মহান মানুষদের ছেলেবেলার কথা। এবার ভগিনী নিবেদিতা। লিখেছেন চকিতা চট্টোপাধ্যায়।

‘ভবিষ্যৎ ভারত-সন্তানদের কাছে তুমি একাধারে জননী, সেবিকা ও বন্ধু হয়ে ওঠো।’ স্বামী বিবেকানন্দ যাঁর সম্বন্ধে এই কথাগুলো বলেছিলেন তিনি হলেন একজন বিদেশিনী— মার্গারেট এলিজাবেথ নোবল যাঁর নাম, যাঁকে আমরা চিনি ‘ভগিনী নিবেদিতা’ বলে। তাঁর জন্ম যদিও হয়েছিল বিদেশের মাটিতে, তবু সেই মহীয়সী নারীর মন, প্রাণ, স্বপ্ন সব কিছুতে ছেয়েছিল শুধুই ভারতবর্ষ! সেই মার্গারেট নোবল ঩কী করে ‘সিস্টার নিবেদিতা’ হয়ে উঠেছিলেন আজ তোমাদের শোনাব সেই কথা।
মার্গারেটের বাবার নাম স্যামুয়েল চিরমন্ড নোবল এবং মায়ের নাম মেরি ইসাবেল। বাবা ছিলেন ধর্মযাজক। দাদামশাই হ্যামিলটন ছিলেন তখনকারের আয়ারল্যান্ডের স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন বিশিষ্ট নেতা। মার্গারেটের জন্মের আগেই তাঁর ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন স্বয়ং ঈশ্বরই, হয়তো এটাকেই বলে বিধিলিপি। ১৮৬৭ সালের ২৮ অক্টোবর। উত্তর আয়ারল্যান্ডের টাইরন প্রদেশের ডানগ্যানন নামে একটি ছোট শহর। মেরি ইসাবেল জন্ম দিতে চলেছেন তাঁর প্রথম সন্তানের। কিন্তু বুক তাঁর কাঁপছে ভয়ে! তিনি ঈশ্বরের কাছে মনে মনে শপথ করলেন, যদি তাঁর প্রথম সন্তান সুস্থভাবে পৃথিবীর আলো দেখে, তাহলে তিনি সেই সন্তানকে ঈশ্বরের চরণেই সমর্পণ করবেন। ঠিক এর পর মুহূর্তেই জন্ম নিলেন মার্গারেট নোবল। সুতরাং তাঁর জন্মই হয়েছিল ঈশ্বরের নির্ধারিত কাজ করবার জন্যই।
মাত্র দশ বছর বয়সে তিনি হারালেন তাঁর বাবাকে। অল্প বয়স থেকেই তাঁর ওপর সংসারের অনেক দায়দায়িত্ব এসে পড়ল। মার্গারেটের বয়স তখন সবে তেরো। সংসারের খরচ বাঁচাতে তিন বছরের ছোট ছেলেকে নিজের বাবার বাড়িতে রেখে মানুষ করবার কথা ভাবলেন মেরি ইসাবেল। কিন্তু তাকে সেখানে পৌঁছে দেবে কে? মার্গারেট দায়িত্ব নিয়ে ছোট ভাইকে ভুলিয়ে ভালিয়ে দীর্ঘপথ এমনকী সমুদ্র পেরিয়ে দাদামশায়ের বাড়ি ঠিক পৌঁছে দিয়ে এলেন। এমনি আত্মবিশ্বাসী আর সাহসী ছিলেন তিনি সেই ছোট্টবেলা থেকেই।
লন্ডনের এক বোর্ডিং স্কুলে মার্গারেট পড়াশুনো করে সাফল্যের সঙ্গেই স্কুল জীবন শেষ করলেন। তারপর উইম্বলডনে একটি স্কুল খুলে সেখানে পড়াতে শুরু করলেন। সেই সঙ্গে নানান পত্র-পত্রিকায় প্রবন্ধ লিখেও সুনাম অর্জন করলেন। মার্গারেটের মনে কিন্তু অস্থিরতা— প্রকৃত ধর্মজীবন কী তা জানবার জন্য তিনি যখন ব্যাকুল, চিন্তাগ্রস্ত, ঠিক তখনই ১৮৯৫ সালের নভেম্বর মাসের এক সন্ধেবেলা লন্ডনের এক অভিজাত পরিবারের বাড়িতে তাঁর প্রথম সাক্ষাৎ হল স্বামী বিবেকানন্দের সঙ্গে। স্বামীজির মুখে ভারতীয় ধর্মের কথা শুনে তিনি বিস্মিত ও মুগ্ধ হয়ে গেলেন! স্বামীজিকে নানান প্রশ্ন করে তিনি বুঝতে পারলেন এতদিন যে প্রকৃত ধর্মজীবনের পথ তিনি খুঁজছিলেন, এই ভারতীয় সন্ন্যাসীই সেই পথ তাঁকে দেখাতে পারবেন। মার্গারেট তাঁকে মনে মনে ‘গুরু’ হিসেবে মেনে নিলেন। স্বামীজিও বুঝলেন এই বিদেশিনী মেয়েটিই পারবে ভারতবর্ষের মেয়েদের শিক্ষিত করে তুলতে। তাই তিনি এই কাজের জন্য আহ্বান জানালেন মার্গারেটকে।
মার্গারেট ১৮৯৮ সালের ২৮ জানুয়ারি নিজের স্বদেশ ছেড়ে ভারতবর্ষের মাটিতে পা দিলেন। স্বামীজির পবিত্র সংস্পর্শে এসে মার্গারেটও পেলেন তাঁর ‘মাস্টার’কে!
ভারতবর্ষে আসবার পর সংঘ-জননী শ্রীশ্রীমা সারদার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিলেন স্বামীজি মার্গারেটের। সারদা মা তাঁকে পরম আদরে কাছে টেনে নিলেন। নিজে হাতে করে তাঁকে শ্রীশ্রীঠাকুর রামকৃষ্ণদেবের প্রসাদ খাওয়ালেন এবং নিজেও সেই বিদেশিনীর সঙ্গে একসঙ্গে বসে সেই মহাপ্রসাদ গ্রহণ করলেন। বললেন, ‘আজ থেকে তুমি আমার খুকি।’ মার্গারেট তাঁর ডায়েরিতে এই দিনটি ‘জীবনের সেরা দিন’ বলে লিখে রেখে গেছেন।
স্টার থিয়েটারে সকলের সঙ্গে এরপর একদিন মার্গারেটের পরিচয় করিয়ে দিলেন স্বামীজি। তিনি সবাইকে বললেন, ‘মার্গারেট হলেন ইংল্যান্ডের দেওয়া ভারতবর্ষকে একটি উপহার! ... মার্গারেট তাঁর প্রাণ ভারতবর্ষের সেবায় দিতে এসেছেন।’
২৫ মার্চ স্বামীজি মার্গারেটকে দীক্ষা দিলেন। এবং তাঁর নাম রাখলেন ‘নিবেদিতা’। নিবেদিতা তাঁর ডায়েরিতে লিখলেন, এটি তাঁর জীবনের সবচেয়ে ‘আনন্দময় সকাল।’
এরপরই শুরু হল ভগিনী নিবেদিতার কর্মকাণ্ড। ১৬নং বোসপাড়া লেনে নিবেদিতা খুললেন মেয়েদের জন্য স্কুল। সে স্কুলের প্রতিষ্ঠা করলেন স্বয়ং শ্রীশ্রীমা শ্রীরামকৃষ্ণের পুজো করে। সেই স্কুলে যাতে শহরের গণ্যমান্য ব্যক্তিরা তাঁদের মেয়েদের পাঠান সে জন্য স্বামীজিও অনেক চেষ্টা করতেন। নিবেদিতা নিজে বাড়ি বাড়ি গিয়ে অভিভাবকদের পায়ের কাছে হাঁটু গেড়ে বসে তাঁদের কাছে মেয়েদের পড়াশুনো শেখানোর জন্য ভিক্ষা চাইতেন। এইভাবে তিনি এদেশে মেয়েদের শিক্ষার জন্য অক্লান্তভাবে চেষ্টা করে গেছেন। কারণ, সেই সময় আমাদের দেশে মেয়েদের পড়াশুনো শেখানোর তেমন চল ছিল না। তাদের তিনি পড়াশুনোর সঙ্গে সঙ্গে সেলাই, ছবি আঁকা, হাতের কাজও শেখাতেন। বয়স্কা বিবাহিতা এবং বিধবা মহিলারাও যাতে লেখাপড়া, সেলাই ইত্যাদি শিখতে পারেন সে ব্যবস্থাও তিনি করেছিলেন। শ্রীশ্রীমা সারদাও তাঁর গৃহী ভক্তদের বলতেন তাঁদের মেয়েদের নিবেদিতার স্কুলে পাঠানোর জন্য।
১৮৯৯ সালে কলকাতায় প্লেগরোগ মহামারির আকার ধারণ করল। স্বামীজির নির্দেশে নিবেদিতা রামকৃষ্ণ মিশনের সন্ন্যাসীদের সঙ্গে নিয়ে সেবা কাজে নেমে পড়লেন। সেই সঙ্গে শহরের রাস্তাঘাট, পাড়াকে আবর্জনামুক্ত করতে নিজে হাতে ঝাড়ু-বালতি নিয়ে নেমে পড়তেও এতটুকু কুণ্ঠা বোধ করলেন না তিনি। এক মেমসাহেবকে এমনভাবে কাজ করতে দেখে পাড়ার ছেলেরা লজ্জিত হয়ে তখন নিজেরাই এগিয়ে এসে তাঁর সঙ্গে হাত লাগাল। আজীবন ভগিনী নিবেদিতা ভারতবাসীর সেবা করে গেছেন। ১৯০৬ সালে পূর্ববঙ্গে দুর্ভিক্ষ ও বন্যা কবলিত মানুষের সেবা করতে গিয়ে তিনি ব্রেন-ফিভারে আক্রান্ত হন, তবু জল-কাদা ভেঙে মানুষের বাড়ি বাড়ি ঘুরে সেবা করেছিলেন সেই অসুস্থ শরীরেও!
ভারতবর্ষের শিল্পের উন্নতির জন্যও তিনি অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর, নন্দলাল বসুর মতো শিল্পীদের অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। উদীয়মান বিজ্ঞানী জগদীশচন্দ্র বসুকে সাহায্য করেছেন আর্থিকভাবে যাতে তিনি তাঁর বৈজ্ঞানিক গবেষণাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন। পাশাপাশি ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের অত্যন্ত ভরসাস্থল ও প্রেরণাদাত্রী ছিলেন তিনি।
নিবেদিতার লেখা বইগুলোর মধ্যে অন্যতম হল— ‘The Master as I saw Him’, ‘The web of Indian Life’, ‘Hints on National Education in India’, ‘Glimpses of Famine and Flood in East Bengal in 1906’, ‘Notes, of some wanderings with Swami Vivekananda’. ইত্যাদি।
তিনি নিজেকে বলতেন— ‘রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দের নিবেদিতা’। ‘ভারতবর্ষ’ শব্দটি তিনি জপ করতেন ভাবে বিভোর হয়ে। ভারতবর্ষের সমস্ত কিছুর প্রতি তাঁর ছিল পূজার দৃষ্টি। তাইতো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর সম্বন্ধে বলেছিলেন, ‘তিনি যখন বলিতেন “Our People” তখন তাহার মধ্যে যে একান্ত আত্মীয়তার সুরটি লাগিত আমাদের কাহারো কণ্ঠে তেমনটি ত লাগে না।’
ছবি : সংশ্লিষ্ট সংস্থার সৌজন্যে
27th  October, 2019
নতুন পৃথিবী গড়বো আমরা 

ছোট্ট বন্ধুরা কেমন আছো? দীর্ঘ লকডাউনে বাড়িতে স্কুলের অনলাইন ক্লাসের চাপে ক্লান্ত হয়ে পড়ছো? অবসর সময় ভালো মতো কাটছে না? তবে শোনো, আজ তোমাদের একটা ভালো খবর দিই।   বিশদ

31st  May, 2020
ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ জয় 

লাতিন শব্দ ‘ভাইরাস’-এর অর্থ হল ‘বিষ’। এই বিষ যুগে যুগে মানুষের জীবনকে বিষিয়ে তুলেছে। তেমনই যুগে যুগে মানুষ পরাস্ত করেছে এমন ভয়াবহ শত্রুকেও। আজ গোটা দুনিয়া অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে, কবে নভেল করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক টিকা হাতের মুঠোয় আসবে। বিজ্ঞানীরা বসে নেই, দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন এই মহা মূল্যবান ধন্বন্তরি হাতের মুঠোয় আনার জন্য। সেইরকম ভয়ঙ্কর সব ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানুষের যুদ্ধের বহু ইতিহাস রয়েছে বিশ্বজুড়ে। 
বিশদ

31st  May, 2020
মার্কশিট
এই সময়টাকে কাজে লাগিয়ে
খুঁটিয়ে পড়ো প্রতিটি অধ্যায়

আজ আমরা সৈয়দ মুজতবা আলী রচিত 'চতুরঙ্গ' প্রবন্ধসংগ্রহের অন্তর্গত 'মামদোর পুনর্জন্ম' প্রবন্ধের অংশবিশেষ 'নব নব সৃষ্টি' পাঠ্যাংশটি থেকে প্রাবন্ধিকের কয়েকটি বিশেষ মত সম্পর্কে জানব এবং সে বিষয়টি নবমশ্রেণীরই অন্যান্য পাঠের সঙ্গে মিলিয়ে দেখব।
বিশদ

31st  May, 2020
বাঘ পড়েছিল শান্তিনিকেতনে 

পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়: রবীন্দ্রনাথ গান বেঁধেছিলেন, ‘আমাদের শান্তিনিকেতন/ সে যে সব হতে আপন/ তার আকাশ ভরা কোলে / মোদের দোলে হৃদয় দোলে, / মোরা বারে বারে দেখি তারে নিত্যই নূতন।’ সত্যিই ছিল সার্থকনামা, যথার্থ অর্থেই ‘শান্তিনিকেতন’।  বিশদ

31st  May, 2020
চিরবিদ্রোহী রণক্লান্ত 

আমাদের এই দেশকে গড়ে তুলতে অনেকে অনেক স্বার্থত্যাগ করে এগিয়ে এসেছিলেন। এই কলমে জানতে পারবে সেরকমই মহান মানুষদের ছেলেবেলার কথা। এবার বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। আগামী ২৫ মে তাঁর জন্মদিন। লিখেছেন চকিতা চট্টোপাধ্যায়।
বিশদ

24th  May, 2020
চোখের যত্ন নাও 

রোজ অনলাইন ক্লাসের জেরে তোমাদের চোখে নানান সমস্যা দেখা দিতে পারে। একটু সতর্ক হলেই কিন্তু এসব সমস্যা এড়ানো যায়। সেরকম ১০টি জরুরি পরামর্শ দিয়েছেন দিশা আই হাসপাতালের সিনিয়র কনসালট্যান্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডাঃ ভাস্কর ভট্টাচার্য। লিখেছেন স্নেহাশিস সাউ।
বিশদ

24th  May, 2020
স্কুলে অনলাইন পড়াশোনাই
এখন একমাত্র উপায় 

লকডাউনের মধ্যেও পড়াশোনা এগিয়ে নিয়ে যেতে স্কুলে চলছে অনলাইন ক্লাস। এর ভালো মন্দ নিয়ে আলোচনা করলেন বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও ছাত্রছাত্রীরা। তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন কমলিনী চক্রবর্তী। 
বিশদ

24th  May, 2020
ছোটদের রান্নাঘর 

করোনার দাপটে স্কুল বন্ধ। সুতরাং বাড়ি থেকে বেরিয়ে এটা ওটা খাওয়ারও জো নেই। তাই বলে কি লকডাউনে কোনও ভালো খাবারই চেখে দেখার সুযোগ হবে না? চিন্তা নেই, ছোটদের রান্নাঘর - এ শুধু তোমাদের জন্যই চারটি লোভনীয় রেসিপি দিয়েছেন ৬ বালিগঞ্জ প্লেসের কর্ণধার ও শেফ সুশান্ত সেনগুপ্ত এবং হলিডে ইন হোটেলের কর্পোরেট শেফ জয়ন্ত বন্দ্যোপাধ্যায়। 
বিশদ

17th  May, 2020
খেলাচ্ছলে যোগাভ্যাস 

বাইরে বেরনো বন্ধ! তাতে কী, এই সুযোগে বাড়িতে বড়দের সঙ্গী হয়ে খেলতে খেলতে কয়েকটি যোগাসন ও প্রাণায়াম শিখে নিতে পারো। এতে শরীর ও মন থাকবে চনমনে, বাড়বে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা। পরামর্শ দিয়েছেন যোগাচার্য প্রেমসুন্দর দাস। লিখেছেন স্নেহাশিস সাউ। 
বিশদ

17th  May, 2020
পুনুর বন্ধু ডাকু 

কার্তিক ঘোষ: পুনু তখন সবে একটু মুখধরা হয়ে উঠেছে বাবা-মা’র।
বাবা তখন বাড়ি ফিরে এসেছেন কলকাতা থেকে।
দোকানের চাকরিটা গেছে!
বিশদ

17th  May, 2020
বইয়ের নেশায় বুঁদ 

লক ডাউনের সুযোগে ভালো বই পড়ার নেশায় মেতে ওঠো তোমরা। কোন বয়সে কেমন বই পড়বে তার একটা ধারণা দিলেন কমলিনী চক্রবর্তী।  
বিশদ

10th  May, 2020
ইন্দ্রজা, ফুড হ্যাবিটটা
এবার পালটে ফেলো 

ডাঃ অমিতাভ ভট্টাচার্য: ইন্দ্রজার কথা দিয়েই শুরু করি। এই এক মাসে কেমন যেন পাল্টে গিয়েছে মেয়েটা। ভাবসাব দেখে তো রমা আর ইন্দ্রজিতের চোখ কপালে ওঠার জোগাড়। তাদের একমাত্র মেয়ে যে এমন লক্ষ্মীমন্ত হয়ে উঠবে, এ যে তারা স্বপ্নেও ভাবেনি।  
বিশদ

10th  May, 2020
সত্যজিতের ছেলেবেলা, ছেলেবেলার

সত্যজিৎ রায়ের শততম জন্মবর্ষে ছোট্ট সত্যজিতের মধ্য দিয়ে ভবিষ্যতের সত্যজিৎকে দেখার চেষ্টা করলেন অতনু বিশ্বাস। 
বিশদ

10th  May, 2020
বন্দি জীবনে সঙ্গী সিনেমা

 লকডাউনে বাড়িতে বসে পড়াশুনো আর গল্পের বই পড়ার পাশাপাশি দেখে নাও দশটি দুর্দান্ত সিনেমা। তোমাদের জন্য বেছে দিলেন স্বস্তিনাথ শাস্ত্রী। বিশদ

03rd  May, 2020
একনজরে
  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী ১ আগস্ট ভারতে খুলছে ফিফার ট্রান্সফার উইন্ডো। আন্তঃরাজ্য ছাড়পত্রও শুরু হবে একই দিনে। বৃহস্পতিবার অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনের সচিব কুশল দাস এই কথা জানিয়ে বলেছেন, ‘৯ জুন ভারতে ফিফার আন্তর্জাতিক উইন্ডো খোলার কথা ছিল। ...

অলকাভ নিয়োগী, বর্ধমান: করোনা সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে আচমকা লকডাউন শুরু হওয়ায় বিভিন্ন রা঩জ্যে হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিক এবং সাধারণ মানুষ আটকে পড়েছিলেন। এখন প্রতিদিন সেই ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মাসখানেক হল চালু হয়েছে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ কোভিড হাসপাতাল। চালু হয়েছে করোনা রোগীদের সুপার স্পেশালিটি ব্লক বা এসএসবি বাড়ি। কিন্তু, এরই মধ্যে কোভিডে মৃত ব্যক্তির মোবাইল উধাও হয়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ জমা পড়েছে মেডিক্যালের সিকিউরিটি অফিসারের ...

বেজিং, ৪ জুন (পিটিআই): চীনে একটি প্রাথমিক স্কুলে ছুরিকাহত হলেন পড়ুয়া ও শিক্ষক মিলিয়ে কমপক্ষে ৪০ জন। আহতদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টা নাগাদ গুয়াংজি প্রদেশের ওঝাউ শহরের একটি সরকারি স্কুলে ওই ঘটনা ঘটেছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সঠিক বন্ধু নির্বাচন আবশ্যক, কর্মরতদের ক্ষেত্রে শুভ। বদলির কোনও সম্ভাবনা এই মুহূর্তে নেই। শেয়ার বা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৩২: শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃতের রচনাকার মহেন্দ্রনাথ গুপ্তের (শ্রীম) মৃত্যু
১৯৩৬: অভিনেত্রী নূতনের জন্ম
১৯৫৯: শিল্পপতি অনিল আম্বানির জন্ম
১৯৭৪: অভিনেতা অহীন্দ্র চৌধুরির মৃত্যু
১৯৭৫ - মার্কিন অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলির জন্ম
১৯৮৫: জার্মান ফুটবলার লুকাস পোডোলোস্কির জন্ম

04th  June, 2020


ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৭৪ টাকা ৭৬.৪৫ টাকা
পাউন্ড ৯৩.১৩ টাকা ৯৬.৪৪ টাকা
ইউরো ৮৩.২২ টাকা ৮৬.৩১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

দৃকসিদ্ধ: ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার, পূর্ণিমা ৪৯/২৮ রাত্রি ১২/৪২। অনুরাধা নক্ষত্র ২৯/৩১ অপঃ ৪/৪৪। সূর্যোদয় ৪/৫৫/১২, সূর্যাস্ত ৬/১৪/৩২। অমৃতযোগ দিবা ১২/১ গতে ২/১৪ মধ্যে। রাত্রি ৮/২২ মধ্যে পুনক্ষ ১২/৩৮ গতে ২/৪৭ মধ্যে পুনঃ ৩/২৯ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/১৫ গতে ১১/৩৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫৫ গতে ১০/১৫ মধ্যে।
২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার, পূর্ণিমা ১/১। অনুরাধা নক্ষত্র অপরাহ্ন ৫/১২। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৬। অমৃতযোগ দিবা ১২/৬ গতে ২/৪৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/২৯ মধ্যে ও ১২/৪২ গতে ২/৪৮ মধ্যে ও ৩/৩০ গতে ৪/৫৬ মধ্যে। বারবেলা ৮/১৬ গতে ১১/৩৬ মধ্যে কালরাত্রি ৮/৫৬ গতে ১০/১৬ মধ্যে।
১২ শওয়াল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মহরাষ্ট্রে ফের ৪ জন পুলিস করোনা আক্রান্ত, মৃত ১ 
মহারাষ্ট্র ফের ৪ জন পুলিস কর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু ...বিশদ

11:54:04 AM

মালদহে শাশুড়িকে কুমন্তব্য করায় ভাড়াটিয়া ও জামাইয়ের সংঘর্ষ 
শাশুড়ির বিরুদ্ধে কু মন্তব্য করায় ভাড়াটিয়া ও মালিকের জামাইয়ের মধ্যে ...বিশদ

11:45:10 AM

দিল্লি মেট্রো রেলের ২০ জন কর্মী করোনা আক্রান্ত 
দিল্লি মেট্রোর ২০ জন কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সেখানকার মেট্রো ...বিশদ

11:27:17 AM

করোনা: কোন কোন দেশ বেশি আক্রান্ত? 
করোনায় আক্রান্তের বিচারে তালিকায় শীর্ষে রয়েছে আমেরিকা। এদেশে করোনায় আক্রান্ত ...বিশদ

11:13:14 AM

বিশ্ব পরিবেশ দিবসের শুভেচ্ছা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী 
আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবস। সেই উপলক্ষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ট্যুইটারে ...বিশদ

10:46:00 AM

কলেজ স্ট্রিটে ভেঙে পড়ল দোতলা বাড়ি 
কলেজ স্ট্রিটে ভেঙে পড়ল একটি দোতলা বাড়ি। ঘটনাটি ঘটেছে আজ ...বিশদ

10:37:19 AM