Bartaman Patrika
হ য ব র ল
 

 লাইব্রেরি অব কংগ্রেসে কয়েক ঘণ্টা...

 আমেরিকা থেকে ফিরে তোমাদের জন্য লিখেছেন মৃণালকান্তি দাস।

প্রথমে মনে হয়েছিল কোনও রাজপ্রাসাদ। ইতালীয় ঘরানায় তৈরি এই বাড়ি প্রাসাদই তো বটে!
এই বাড়ির ইতিহাস প্রায় ২১৯ বছরের পুরানো। সেই ১৮০০ সালে আমেরিকান রাষ্ট্রপতি জন অ্যাডামস আমেরিকার কেন্দ্রীয় সরকারের দপ্তর ফিলাডেলফিয়া থেকে ওয়াশিংটন ডিসিতে সরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে কংগ্রেস থেকে অনুমোদন নিয়েছিলেন। ওয়াংশিংটন ডিসি হয়ে উঠেছিল আমেরিকার নয়া রাজধানী। এই সময় ওয়াশিংটন ডিসিতে কংগ্রেস সদস্যদের নানা ধরনের তথ্য সংগ্রহ ও বইপত্র ব্যবহারের জন্য কোনও উপযুক্ত গ্রন্থাগার ছিল না। রাষ্ট্রপতি অ্যাডামস শুধুমাত্র কংগ্রেস সদস্যদের ব্যবহারের জন্য মাত্র ৫ হাজার ডলার ব্যয়ে একটি ছোট লাইব্রেরি তৈরির জন্য মার্কিন কংগ্রেস থেকে অনুমোদন নেন। তার পরবর্তী প্রেসিডেন্ট টমাস জেফারসন হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভ থেকে দু’জন সদস্যকে এই লাইব্রেরি পরিচালনার জন্য নিয়োগের বিধান অনুমোদন করান। এরপর অনুমোদিত অর্থে ইংল্যান্ড থেকে ১১ ট্রাঙ্ক ভর্তি বই আর ১ ট্রাঙ্ক ম্যাপ এনে ক্যাপিটল হিলের যেটুকু অংশ তখন তৈরি হয়েছিল তারই একপাশে ছোট আকারের লাইব্রেরিটি স্থাপিত হয়। নাম রাখা হয়েছিল  ‘দ্য লাইব্রেরি অব কংগ্রেস’।
১৮১৪ সালে ইংরেজ সেনারা তাদের মার্কিন উপনিবেশ রক্ষার চেষ্টায় ওয়াশিংটনে এসে ক্যাপিটল হিলে কেন্দ্রীয় সরকারের মূল দপ্তরটি দখল করে নিয়েছিল। লাইব্রেরি অব কংগ্রেস সম্পূর্ণ পুড়িয়ে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছিল। ব্রিটিশ সেনারা লাইব্রেরি অব কংগ্রেস পুড়িয়ে দেওয়ার পর গ্রন্থাগারটি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়। গ্রন্থাগারে সংরক্ষিত কোনও বই সেই সময় রক্ষা করা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে যুদ্ধ শেষ হলে লাইব্রেরিটি নতুন করে গড়ে তোলার জন্য কংগ্রেস থেকে পুনরায় ব্যবস্থা নেওয়া হয়। প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জেফারসন যখন ফ্রান্সে মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে ছিলেন, তখন সেখানকার দোকানে ঘুরে ঘুরে আমেরিকা সম্পর্কে বহু দুষ্প্রাপ্য গ্রন্থ সংগ্রহ করে এনে নিজের লাইব্রেরিতে রেখেছিলেন। ১৮১৪ সালের পর যখন লাইব্রেরি অব কংগ্রেস নতুন করে গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়,  তখন তিনি মার্কিন কংগ্রেসকে জানান,  তার বইগুলো তিনি এই লাইব্রেরিতে দিতে ইচ্ছুক। তারা যে দাম দিতে পারবেন তাতেই তিনি সেই অমূল্য বইগুলো লাইব্রেরিকে দিয়ে দেবেন। কংগ্রেস মাত্র ২৩,৯৫০ ডলারে ৬,৪৮৭টি বাছাই করা বই জেফারসনের কাছ থেকে লাইব্রেরির জন্য কিনে নেয়। এভাবেই শুরু লাইব্রেরির জন্য বই সংগ্রহের কাজ। ১৮৯৭ সালে জেফারসন বিল্ডিংয়ের নির্মাণ কাজ শেষ হয়। ৫০ জন সুনির্বাচিত স্থপতি, ভাস্কর ও চিত্রকর লাইব্রেরি বাড়িটি নিখুঁত ও শিল্পমণ্ডিত করে গড়ে তোলেন। অন্য বাড়ি পরে তৈরি হয়। তিনটি বাড়ির মধ্যে জেফারসন বিল্ডিং বয়সে সবচেয়ে পুরনো। তারপরও বাড়িটি অতি সুন্দরভাবে সাজানো। ইতালীয় স্থাপত্যরীতিতে তৈরি এই জেফারসন বিল্ডিংয়ের সবচেয়ে বড় পড়ার ঘরটি তিন তলায়।
কালক্রমে এর আকৃতি ও সংগ্রহের বিশালত্বের সঙ্গে সঙ্গে লাইব্রেরির দরজা খুলে দেওয়া হয়েছে সর্বসাধারণের জন্য। এই গ্রন্থাগারে এখন প্রায় ৪৭০ ভাষার ১৬৪ মিলিয়নের বেশি বই,  জার্নাল ও সংবাদপত্রসহ নানা নথিপত্র সংরক্ষিত রয়েছে, বিশ্বের মধ্যে যা বৃহত্তম এবং অনন্য। বিভিন্ন বিষয়ের বই থরে থরে সাজানো। যার যে বই দরকার, কম্পিউটারের সাহায্যে মুহূর্তে এনে হাজির করে দেওয়ার ব্যবস্থা আছে এখানে। এই গ্রন্থাগারের সংগ্রহশালার তাকগুলো পাশাপাশি সাজালে তা প্রায় ৫৩২ মাইল দীর্ঘ হবে,  এমনই বিশাল এই গ্রন্থাগার। এর আর্কিটেকচারাল ডিজাইনও এককথায় অসাধারণ। প্লেটো,  নিউটন,  শেক্সপিয়রের মতো প্রতিভাধরদের লেখা বই-ই শুধু নয়, তাদের পূর্ণ অবয়বের মূর্তিতে এই গ্রন্থাগারের বিভিন্ন তলা সাজিয়ে তোলা হয়েছে।  ‘ক্যাপিটল হিল’  মার্কিন সরকারের প্রধান কর্মকেন্দ্র। তারই লাগোয়া একটি পাড়া জুড়ে তিন-তিনটি বিশালাকার বাড়িতে চলছে এই গ্রন্থাগারের বিস্ময়কর কর্মযজ্ঞ।
অভিজাত, ব্যস্ত ইনডিপেন্ডেন্স অ্যাভিনিউ ও তার পিছনের সেকেন্ড স্ট্রিট পর্যন্ত জায়গা জুড়ে বিশাল টমাস জেফারসন বিল্ডিং। পাশাপাশি ইনডিপেন্ডেন্স অ্যাভিনিউয়ের অন্য ফুটপাতে ম্যাডিসন মেমোরিয়াল বিল্ডিং। আর জেফারসন বিল্ডিংয়ের পিছনে,  সেকেন্ড স্ট্রিটের অন্যদিকের ফুটপাতে জন অ্যাডামস বিল্ডিং। পাশাপাশি তিনটি বাড়িতে রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়া যায়। কিন্তু অবিরাম চলতে থাকা বাস ও গাড়ির স্রোত এবং নিরন্তর পথচলতি মানুষের ভিড় এড়ানোর জন্য এই তিনটি বাড়িতে যাওয়ার সুবিধার্থে রাস্তার তলা দিয়েও আন্ডারগ্রাউন্ড রোড নির্মাণ করা হয়েছে। সেই আন্ডারগ্রাউন্ড রোডে দিন-রাত সবসময় আলো জ্বলে। পড়ুয়ারা এ-বাড়ি থেকে ও-বাড়িতে যান। শুধু তা-ই নয়,  বই ভর্তি ছোট আকারের মোটর ট্রাকও এ-বাড়ি থেকে ও-বাড়িতে যাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। সবেতেই আধুনিকতার ছোঁয়া।
জেফারসন বিল্ডিংয়ের মেঝে থেকে পাথরের স্তম্ভগুলো ১৬০ ফুট উঁচু। শুধু এই একটি হলেই ৪৫,০০০ হাজারেরও বেশি রেফারেন্স বই আছে। ২১২ জন পাঠক একসঙ্গে বসে পড়তে পারেন এই একটি হলঘরে। এটি ছাড়া আরও পড়ার ঘর আছে। প্রতিটি ডেস্কে পৃথক আলো,  আরামদায়ক চেয়ারের ব্যবস্থা আছে। এত পাঠকের ভিড়,  কিন্তু গোটা হলঘর ‍নিস্তব্ধ,  নিরিবিলি পরিবেশ। কেউ কাউকে বিরক্ত করে না। যে যার মতো করে পড়াশোনা চালিয়ে যায়। পাশেই কম্পিউটার ক্যাটালগ সেন্টার। সেখানে দলে-দলে লোক কম্পিউটার টার্মিনালে তাঁর প্রয়োজনীয় বিষয়টি জেনে নিতে পারেন। জেফারসন বিল্ডিংয়ে লাইব্রেরির স্থান সংকুলান না হওয়ায় এই বাড়ির পিছনে,  রাস্তার অন্য পারে তৈরি হয় জন অ্যাডামস বিল্ডিং। ১৯৩৯ সালে। সেটি জেফারসন বিল্ডিংয়ের মতো অত জাঁকজমকপূর্ণ না হলেও বাড়ির সামনের দিক সুন্দর মার্বেল পাথরে মোড়া আর তার প্রধান প্রবেশপথে ব্রোঞ্জের বিরাট দরজা। তাতে শোভা পায় বারোটি মনুষ্য-মূর্তি। এই চমৎকার মূর্তিগুলো সেসব ঐতিহাসিক পুরুষদের,  যাঁরা পৃথিবীর নানা দেশে লেখার হরফ আবিষ্কার করেছিলেন। জন অ্যাডামস বিল্ডিংয়েও যখন লাইব্রেরির স্থান সংকুলান হল না,  তখন তৈরি করতে হয় আরও একটি বাড়ি। জেফারসন বিল্ডিংয়ের পাশাপাশি ইনডিপেন্ডেন্স অ্যাভিনিউয়ের অন্য দিকে সেই নতুন বাড়ি জেমস ম্যাডিসন মেমোরিয়াল বিল্ডিং। নির্মিত হয় ১৯৮০ সালে। ফলে গোটা লাইব্রেরি অব কংগ্রেসের স্থান-পরিধি দ্বিগুণ হয়ে যায়। এই তিনটি বৃহৎ বাড়ি ছাড়াও অন্যত্র এই লাইব্রেরির কর্মকেন্দ্র আছে। এই তিন বিল্ডিং মিলে সাধারণ পাঠকদের জন্য ২১টি পড়ার ঘর রয়েছে।
বড়দিন ও পয়লা জানুয়ারির ছুটি ছাড়া বছরের আর সব দিন লাইব্রেরি খোলা থাকে। পড়ার ঘর,  প্রদর্শনী,  ফিল্ম শো— এমনকী গোটা লাইব্রেরি ঘুরিয়ে দেখার ব্যবস্থা রয়েছে। লাইব্রেরিতে নিয়মিতভাবে নানা ডকুমেন্টরি ফিল্ম দেখানো হয়। গান শোনানোর ব্যবস্থা রয়েছে। যার যেদিকে আগ্রহ, সব পাওয়া যায় হাতের মুঠোয়। এ যেন এক অজানা ভুবন।
শুনে অবাক হচ্ছেন? না, অবাক হইনি আমি। কারণ, এই  ‘দ্য লাইব্রেরি অব কংগ্রেস’  যে দেশের সম্পত্তি, সেই দেশের নাম আমেরিকা। দুনিয়ার সর্বশক্তিমান দেশে যে এমন এক বিশাল লাইব্রেরি থাকবে, তা তো স্বাভাবিক। লাইব্রেরি তো দুনিয়ার ইতিহাস আগলে রাখে। ভবিষ্যতের দিশা দেখায়।
ছবি: সংশ্লিষ্ট সংস্থার সৌজন্যে
08th  September, 2019
ছায়াছবিতে বাংলার বীর বিপ্লবী

স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস পড়তে গিয়ে তোমরা নিশ্চয়ই আমাদের দেশের বিপ্লবীদের কথা জেনেছ। তাঁদের জীবন নিয়ে বেশ কিছু সিনেমা হয়েছে। স্বাধীনতা দিবসের আগে এই সব বরেণ্য বিপ্লবীদের সংগ্রাম নিয়ে তৈরি সিনেমার কথায় ড. শঙ্কর ঘোষ।
বিশদ

09th  August, 2020
ইন্টারনেট স্লো?
কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যাচ্ছে?

চিন্তা নেই, স্লো ইন্টারনেট এবং বারবার কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যার সমাধানে তোমাদের জন্য রইল কয়েকটি টিপস। বিশদ

09th  August, 2020
ভয় কখনও হয়? 
শমীন্দ্র ভৌমিক

—পিসেমশাই! এই দুপুর রোদে হন্তদন্ত হয়ে ছুটলে কোথায়? কেমন একটু ভয়ের ছাপ তোমার মুখে?
—কই না তো?
—বললে হবে? তুমি দিলদার হাসি নিয়ে তোওবা থাকো পিসে। আজ মনটা একটু বিচলতি যেন!
—হ্যাঁরে। তোকে ঠিক বোঝাতে পারব না।  
বিশদ

02nd  August, 2020
ও করোনা 
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

সাগরপারের সাহেবসুবো ...
চকচকে খুব, ধপধপে আর ফর্সা!
ও করোনা, তাদের মেরে
বিলেত ছেড়ে দেখতে এলি বর্ষা? 
বিশদ

02nd  August, 2020
মন ভালো তো সব ভালো 

প্রায় সাড়ে চার মাস হয়ে গেল তোমরা গৃহবন্দি। এই অবস্থায় মন ভালো থাকার কথাও নয়। কিন্তু মন ভালো না থাকলে কোনও কাজই তোমরা ঠিক মতো করতে পারবে না। কীভাবে মন ভালো রাখা সম্ভব তার একগুচ্ছ পরামর্শ দিয়েছেন বিশিষ্ট মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ দেবাঞ্জন পান।
বিশদ

02nd  August, 2020
মার্কশিট 

তোমাদের জন্য চলছে জনপ্রিয় বিভাগ মার্কশিট। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় অষ্টম শ্রেণীর ভূগোল। 
বিশদ

02nd  August, 2020
বহু দূরের বন্ধু নিওওয়াইজ 

সূর্য অস্ত গেলেই দেখা দিচ্ছে বিরল অতিথি নিওওয়াইজ নামে ধূমকেতু। আপাতত খালি চোখেই দেখা যাচ্ছে তাকে। কোথা থেকে এল এই ধূমকেতু? কোন বিস্ময়ই বা লুকিয়ে রেখেছে নিজের বুকে? এমপি বিড়লা তারামণ্ডলের অধিকর্তা ডঃ দেবীপ্রসাদ দুয়ারি জানালেন সায়ন নস্করকে। 
বিশদ

26th  July, 2020
শিল্পবিপ্লব, উপনিবেশবাদ ও সাম্রাজ্যবাদ অধ্যায়টি গুরুত্ব দিয়ে পড়ো 

তোমাদের জন্য চলছে জনপ্রিয় বিভাগ মার্কশিট। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় নবম শ্রেণীর ইতিহাস। পরামর্শে বিধাননগর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ইতিহাসের শিক্ষিকা রীনা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিশদ

26th  July, 2020
স্যালাড মারি অ্যান্টোনিট (৫ জনের জন্য) 

লাল বাঁধাকপির সরু লম্বা কুচি ১০০গ্রাম, ক্যাপসিকাম কুচি ৫০গ্রাম, স্প্রিং অনিয়ন (সবুজ অংশ) ১ ইঞ্চি করে কাটা, পার্সলে পাতাকুচি ১চা চামচ, কেপারস ১ চা চামচ, খোসা ছাড়ানো পেস্তা বাদাম ২ চা চামচ, বালসামিক ভিনিগার ১ টেবিল চামচ, অলিভ অয়েল বা স্যালাড অয়েল-১ টেবিল চামচ, সর্ষে গুঁড়ো ১\৪চামচ, সাদা গোলমরিচ গুঁড়ো ১\৪চামচ, লবণ ১\৪চামচ, মিক্সিং বোল-২টি, সার্ভিং ডিশ ৫টি, চামচ ১টি।  বিশদ

26th  July, 2020
স্ট্রবেরি সরবেট (৫ জনের জন্য) 

স্ট্রবেরি টুকরো ৩০টি, মধু ৩ টেবিল চামচ, ফ্রেশ পুদিনা পাতা ২ চা চামচ, স্কুপার ১টি, ডেজার্ট সার্ভিং কাচের গ্লাস ৫টি, টিফিন বক্স ১টি, কাপড়ের ন্যাপকিন ১টি। প্রণালী: প্রথমে খুব ভালোভাবে জল দিয়ে স্ট্রবেরিগুলো ধুয়ে নিতে হবে। স্ট্রবেরির সবুজ পাতাগুলো ফেলে দিতে হবে। এরপর সাবধানে সব স্ট্রবেরিগুলোকে লম্বাভাবে অর্ধেক করে কেটে নিতে হবে।  বিশদ

26th  July, 2020
প ছ ন্দে র ব ই, প ছ ন্দে র ব ই
আঙ্কল পোজারের মজাদার কাণ্ডকারখানা

জেরোম ক্লাপকা জেরোম (১৮৫৯-১৯২৭) আজ পরিচিত মুখ্যত ‘থ্রি মেন ইন অ্যা বোট’-এর স্রষ্টা হিসেবে। ‘হাসি মজা পনেরো’ বইটি যদি ‘থ্রি মেন ইন অ্যা বোট’-এর ভাষান্তর হয়, তাহলে তার এই নামকরণের মানে কী? বইটি হাতে পাওয়ার পর এমনই একটা প্রশ্ন জেগেছিল আমার মনে। 
বিশদ

19th  July, 2020
বিষয়গুলিকে ভালোবাসতে হবে 

এবার মাধ্যমিকে তৃতীয় স্থান পেয়েছে রহড়া রামকৃষ্ণ মিশন বালকাশ্রম উচ্চ বিদ্যালয়ের (উচ্চ মাধ্যমিক) ছাত্র অরিত্র মাইতি। কীভাবে পড়াশোনা করলে তার মতো ভালো ফল করতে পারবে জেনে নাও তার কাছ থেকেই। 
বিশদ

19th  July, 2020
বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হলে ভালো হতো 

আমি বরোদায় থাকি। নীভ প্রেপ স্কুলে জুনিয়র কেজিতে পড়ি। করোনা ভাইরাসের কারণে আমাদের স্কুল অনেকদিন বন্ধ। এখন বাড়িতেই তাই কম্পিউটার স্কুলে পড়াশোনা করছি। সবাই বলছে অনলাইন ক্লাস। সেসব আমি জানি না। আমাদের এখন কম্পিউটার স্কুলেই পড়াশোনা হচ্ছে। 
বিশদ

19th  July, 2020
কফি আর কেক বানাতে শিখেছি 

লকডাউনের শুরুতে খুব মজায় ছিলাম। স্কুলে যাওয়ার তাড়া নেই। তাই তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠার বালাই নেই। তবে কিছুদিন পর এই মজা সাজা হয়ে গেল। চার দেওয়ালে বন্দি। বাড়ির বাইরে পা রাখার জো নেই। উইকএন্ডে বাবা, মা, ভাইয়ের সঙ্গে মলে যাওয়া নেই। বন্ধুদের সঙ্গে দেখাসাক্ষাৎ নেই।  
বিশদ

19th  July, 2020
একনজরে
ওড়িশার সেই লাল গাঁজা এখান থেকে ম্যাটাডর, ছোট গাড়িতে লোড হয়ে চলে যাচ্ছে বিহার, উত্তরপ্রদেশের মতো ভিন রাজ্যে। ...

 পুজোর আগে কাজের চাপে স্নান-খাওয়ার সময় থাকত না জাঙ্গিপাড়া, রাজবলহাট সহ বিস্তীর্ণ অঞ্চলের তাঁতশিল্পীদের। করোনার কোপে তাঁরা আজ কাজ হারিয়ে কেউ রাজমিস্ত্রির জোগাড়ে, কেউবা ফেরিওয়ালা। ...

 সরাসরি স্কুল-কলেজে গিয়ে ক্লাস করা সম্ভব না হলেও অনলাইনে ক্লাসের উপর জোর দিয়েছে প্রায় সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ...

আবাসনের নীচেই পাওয়া গেল বৃদ্ধের রক্তাক্ত মৃতদেহ। বুধবার ভোরে ঘটনাটি ঘটেছে ফুলবাগান থানা এলাকার নারকেলডাঙা মেন রোডের একটি আবাসনে। মৃতের নাম রামকিশোর কেজরিওয়াল (৭৩)। তিনি ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মরতদের উপার্জন বৃদ্ধি পাবে। শরীর-স্বাস্থ্য ভালোই যাবে। পেশাগত পরিবর্তন ঘটতে পারে। শিল্পী কলাকুশলীদের ক্ষেত্রে শুভ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব হাতি দিবস
১৮৪৮: সাহিত্যিক তথা ঐতিহাসিক রমেশচন্দ্র দত্তর জন্ম
১৮৮৮: টেলিভিশনের আবিস্কারক জন বেয়ার্ডের জন্ম
১৮৯৯: ইংরেজ পরিচালক স্যার আলফ্রেড হিচককের জন্ম
১৯১০: আধুনিক নার্সিং সেবার অগ্রদূত ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের মৃত্যু
১৯১১: সমাজসেবিকা ও রাজনীতিবিদ ড.ফুলরেণু গুহর জন্ম
১৯২৬: কিউবার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ফিদেল কাস্ত্রোর জন্ম
১৯৩২: পণ্ডিত, সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ কৃষ্ণকমল ভট্টাচার্যর মৃত্যু
১৯৩৩: অভিনেত্রী বৈজয়ন্তীমালার জন্ম
১৯৩৬: স্বাধীনতা সংগ্রামী ভারতের বিপ্লববাদের জননী হিসাবে পরিচিতা মাদাম কামার মৃত্যু ।
১৯৪৬: ইংরেজ সাহিত্যিক এইচ জি ওয়েলেসের মৃত্যু
১৯৬৩: অভিনেত্রী শ্রীদেবীর জন্ম
১৯৭৫: পাক ক্রিকেটার শোয়েব আখতারের জন্ম
১৯৮৭: অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
২০১৮: রাজনীতিবিদ তথা প্রাক্তন লোকসভার অধ্যক্ষ সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৯৪ টাকা ৭৫.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯৫.৭৫ টাকা ৯৯.১৪ টাকা
ইউরো ৮৬.১০ টাকা ৮৯.২৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৩,৩১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫০,৫৮০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫১,৩৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, নবমী ১৯/১৬ দিবা ১২/৫৯। রোহিণীনক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৫/১৬/২৬, সূর্যাস্ত ৬/৬/২৩। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৯ গতে ৩/৩ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ১০/২৪ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। বারবেলা ২/৫৪ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪২ গতে ১/৫ মধ্যে।
২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, নবমী দিবা ৯/৪৫। রোহিণীনক্ষত্র রাত্রি ৩/২৫। সূর্যোদয় ৫/১৫, সূর্যাস্ত ৬/৯। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৩ গতে ৩/৩ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৭/১ মধ্যে ও ১০/২২ গতে ১২/৫২ মধ্যে। কালবেলা ২/৫৬ গতে ৬/৫৯ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৪২ গতে ১/৬ মধ্যে।
 ২২ জেলহজ্জ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ২,৯৩৬
গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২,৯৩৬ জনের শরীরে মিলল করোনা ভাইরাসের ...বিশদ

12-08-2020 - 08:58:00 PM

উত্তরপ্রদেশে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৪,৫৮৩ 
উত্তরপ্রদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪,৫৮৩ জন । ...বিশদ

12-08-2020 - 07:55:50 PM

৪৫ হাজারে দু মাসের সন্তানকেই বিক্রি করে দিল মা
৪৫ হাজারে নিজের দু’মাসের ছেলেকেই বিক্রি করে দিল মা। ঘটনাটি ...বিশদ

12-08-2020 - 07:32:03 PM

কর্ণাটকে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৭,৮৮৩ 
কর্ণাটকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭,৮৮৩ জন । ...বিশদ

12-08-2020 - 07:31:00 PM

অন্ধ্রপ্রদেশে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৯,৫৯৭ 
অন্ধ্রপ্রদেশে খুব দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। গত ...বিশদ

12-08-2020 - 07:02:02 PM

ফের মা হচ্ছেন করিনা কাপুর
ফের মা হচ্ছেন করিনা কাপুর খান। অর্থাৎ সইফ-করিনার পরিবারে আসতে ...বিশদ

12-08-2020 - 06:43:00 PM