Bartaman Patrika
হ য ব র ল
 

চাঁদের হাসি বাঁধ ভাঙার অপেক্ষা 

মঙ্গলযান-২ চাঁদে পা রাখবে ৪৮তম দিনে। মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে কোন পথে কীসের খোঁজে সে এগিয়ে চলেছে চাঁদের উদ্দেশ্যে, সে বিষয়ে তোমাদের জানানোর জন্য কলম ধরেছেন ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউট, কলকাতার রাশিবিজ্ঞানের অধ্যাপক অতনু বিশ্বাস।

সেই কবে নীল আর্মস্ট্রং প্রথম পা রেখেছিলেন চাঁদের দেশে। পঞ্চাশ বছর পেরিয়ে গেল। চাঁদে বাসস্থান কিংবা কলোনি বানানো তো দূরের কথা, মানুষ নিয়ে কোনও মহাকাশযান আর পৌঁছাতে পারল না চরকা-কাটা চাঁদের বুড়ির রাজ্যে।
চাঁদে যাওয়া নিয়ে কল্পবিজ্ঞানের গল্প কিংবা ম্যুভির কোনও শেষ নেই। জুল ভার্ণ থেকে হার্জ— চাঁদে অভিযান নিয়ে মত্ত সকলেই। হার্জ তো দু-দুটো কমিকসের বই লিখে ফেললেন টিনটিন আর তার সাঙ্গোপাঙ্গদের চাঁদে যাওয়া নিয়ে। ‘ডেস্টিনেশন মুন’ (বাংলায় ‘চন্দ্রলোকে অভিযান’) বর্ণনা করেছে চাঁদে যাবার আয়োজন। সে গল্পের বিস্তৃতি চাঁদের উদ্দেশ্যে রকেটের যাত্রা হওয়া পর্যন্ত। আর তার পরের অংশটা হল ‘এক্সপ্লোরার্স অন দ্য মুন’, যার বাংলা হয়েছে ‘চাঁদে টিনটিন’ নামে।
২২ জুলাই উৎক্ষেপণ হয়েছে ভারতের চন্দ্রযান-২-এর। মানুষ নিয়ে অবশ্য নয়। তবু, দস্তুরমতো তার চাঁদের দেশে পৌঁছানোর কথা সেপ্টেম্বরের ৭ তারিখ। ভারতের সবচেয়ে শক্তিশালী রকেট ‘জিএসএলভি-মার্ক-৩’ চন্দ্রযান-২ কে পৌঁছে দেয় ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৭০ কিলোমিটার উপরে, যেখানে চন্দ্রযান-২ পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করতে শুরু করে একটি উপবৃত্তাকার কক্ষপথে। ১৭ দিন ধরে চলবে তার এই পৃথিবী প্রদক্ষিণ। এই আবর্তনপথে প্রতিবার সে একটু একটু করে দূরে সরে যায় এবং ক্রমশ বড় হয়ে যায় তার আবর্তনের কক্ষপথ। যেন একটু একটু করে ধরিত্রী মায়ের আকর্ষণ ছিন্ন করার প্রয়াসে। পঞ্চম কক্ষপথে পৃথিবী থেকে সব চাইতে দূরে থাকাকালীন অবস্থায় পৃথিবী থেকে চন্দ্রযান-২-এর দূরত্ব হবে প্রায় ১ লক্ষ ৪৪ হাজার কিলোমিটার। সেটা ৬ আগস্ট নাগাদ। এমনি করে ১৪ আগস্ট পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চন্দ্রযান-২ ঢুকে পড়বে লুনার ট্রান্সফার অরবিট-এ। এটাই হল চাঁদে যাওয়ার রাস্তা। চন্দ্রযানের এই ধরনের ঘুরপাক খাওয়ার বর্ণনা রয়েছে ‘চাঁদে টিনটিন’ কমিকসেও।
এটা সহজবোধ্য যে, পৃথিবী আর চাঁদ দুয়েরই রয়েছে টান, যাকে বলে অভিকর্ষ। চাঁদে যেতে হলে চন্দ্রযানকে পৃথিবীর অভিকর্ষ থেকে মুক্তি পেতে হবে। আবার সেই সঙ্গে চাঁদের অভিকর্ষের আওতায় তাকে ঢুকতে হবে ধীরে-সুস্থে, যাতে কোনও ভাবেই সে হুমড়ি খেয়ে না পড়ে চাঁদের গায়ে। যে কোনও দুই বস্তুর অভিকর্ষের টানাপোড়েনের মাঝে কোনও একটা বিন্দু থাকবেই যেখানে তাদের টান সমান। দড়ি টানাটানির খেলায় সেখানে জিতবে না কেউ, আবার কেউ হারবেও না। চাঁদ আর পৃথিবীর মাঝের সেই বিন্দুটিকে বলা হয় ‘ল্যাগরাঞ্জ-ওয়ান পয়েন্ট’ বা সংক্ষেপে ‘এল-ওয়ান পয়েন্ট’। এটা সহজবোধ্য যে, এল-ওয়ান পয়েন্টে চন্দ্রযান-২ পৌঁছানোর সময় চাঁদ আর পৃথিবীর দূরত্ব সব চাইতে বেশি হওয়াটাই এক্ষেত্রে আদর্শ পরিস্থিতি। নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ রেখে পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চাঁদের আকর্ষণের সাম্রাজ্যে ঢোকার জন্য। সবকিছুকে এই একসাথে মেলানোটা কিন্তু ইসরোর বিজ্ঞানীদের এক বড় চ্যালেঞ্জ।
চাঁদে যাবার রাস্তা ধরে তখন ৫ দিন ছুটবে চন্দ্রযান-২। তারপর সে একেবারেই চাঁদের আওতায়। চাঁদের চারপাশে উপবৃত্তাকার কক্ষপথে সে ঘুরতে থাকবে। সেখানে তার যন্ত্র বিগড়ে গেলে, অনন্তকাল ধরে চাঁদের চারপাশে ঘুরে বেড়ানোই বোধকরি তার ভবিতব্য।
চন্দ্রযান-২ কিন্তু নামতে চাইবে চাঁদের মাটিতে। তাই তার কক্ষপথগুলির পরিধি বদলাতে থাকবে। পৃথিবীর ক্ষেত্রে যা হয়েছিল তার সাথে তফাৎ এটাই যে, এবার কক্ষপথের পরিধি ক্রমশ ছোট হয়ে আসবে। অবশেষে ৭ সেপ্টেম্বর ল্যান্ডার (বিক্রম) আর রোভার (প্রজ্ঞান) নামবে চাঁদের বুড়ির দেশে। পৃথিবীর মানদণ্ডে ১৪ দিন ধরে চালাবে তাদের অভীষ্ট সন্ধান। তার পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিষয়বস্তুর মধ্যে রয়েছে চন্দ্রপৃষ্ঠের ভূসম্পত্তি, ভূমিকম্প, খনিজ এবং তার বিস্তৃতির শনাক্তকরণ এবং চাঁদের পৃষ্ঠদেশের রাসায়নিক সংমিশ্রণ পর্যালোচনার চেষ্টা করা। সৌরশক্তি-চালিত ছ’চাকার রোভার প্রজ্ঞান চন্দ্রপৃষ্ঠে ঘুরে বেড়াতে পারবে ৫০০ মিটার পর্যন্ত। তারপর ল্যান্ডারের মাধ্যমে তথ্য পৌঁছবে বিজ্ঞানীদের কাছে। অরবিটারে থাকবে অনেক ক্যামেরা, স্পেক্টোমিটার।
চাঁদের ৪০ ডিগ্রি দক্ষিণের পরের অংশ সম্পর্কে কোনও নির্দিষ্ট প্রামাণ্য তথ্য নেই মানুষের কাছে। সেই অংশটা এখনও একেবারেই অপরিজ্ঞাত। চাঁদের অন্ধকারাচ্ছন্ন দক্ষিণ মেরুর কাছাকাছি অংশে আজ পর্যন্ত অভিযান চালায়নি কোনও দেশ। ভারতের চন্দ্রযান-২ পৌঁছাতে চাইছে চাঁদের দক্ষিণ মেরু অঞ্চলে। ৭০.৯০২৬৭ ডিগ্রি দক্ষিণ ২২.৭৮১১০ ডিগ্রি পূর্ব থেকে ৬৭.৮৭৪০৬ ডিগ্রি দক্ষিণ ১৮.৪৬৯৪৭ ডিগ্রি পশ্চিমের মধ্যে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় উঠে আসতে পারে উপগ্রহটি সম্পর্কে অনেক অজানা তথ্য। এবং, কে বলতে পারে, মানবসভ্যতার গতিপথকে হয়তো বেশ খানিকটা প্রভাবিতও করতে পারে তা।
এমনিতে কেন এত গুরুত্বপূর্ণ চাঁদে অভিযান? আজকের সময়ে দাঁড়িয়ে একটা কারণ অবশ্যই হিলিয়াম-৩। বিজ্ঞানীরা মনে করেন, যথেষ্ট পরিমাণে হিলিয়াম-৩ রয়েছে চাঁদে, যদিও সঠিক পরিমাণটা জানেন না কেউই। ফিউশনের মাধ্যমে পারমাণবিক শক্তি উৎপাদনের ক্ষেত্রে পারমাণবিক রিঅ্যাক্টর ঠান্ডা করতে এই হিলিয়াম-৩-এর ব্যবহার। চাঁদে সঞ্চিত হিলিয়াম-৩ সম্পর্কিত তথ্যাদি এবং ভবিষ্যতে তার সম্ভাব্য ব্যবহার তাই যুগান্তর আনতে পারে পৃথিবীর বিদ্যুৎশক্তি উৎপাদনের ক্ষেত্রে। চাঁদের সমৃদ্ধ দক্ষিণাঞ্চলে অভিযান করতে কিন্তু উৎসুক অন্য দেশও। আমেরিকা ২০২৪-এ চাঁদে মানুষ পাঠাবার পরিকল্পনাও করেছে।
হাজার কোটি টাকা খরচ করে ভারতের এবারের এই চাঁদে অভিযান। তাই সামান্য এদিক ওদিক হলে যে ভারতের চন্দ্র-অভিযান বা মহাকাশ-অভিযান আবার বেশ কিছুটা পিছিয়ে যাবে, তাইই নয়, সেই সঙ্গে এই হাজার কোটি টাকাও জলে।
আসলে এ ধরনের অভিযানের ক্ষেত্রে একটুখানি ভুলই উল্টেপাল্টে দিতে পারে সব কিছু। সেই কবে একটুখানি দিক ভুল করে কলম্বাস ভারত যেতে গিয়ে পৌঁছালেন উল্টোদিকে আমেরিকা মহাদেশে। আবার ভাবা যাক ১৯৫০ সালের কল্পবিজ্ঞানের ম্যুভি ‘রকেটশিপ এক্স-এম’-এর কথা। শুরুতে সেটা চাঁদে যাওয়ার গল্পই ছিল। একদল মহাকাশচারী চলেছে চন্দ্রাভিযানে। মহাকাশযানে গণ্ডগোল এবং জ্বালানীর হিসেবের ভুলে তারা পথ বদলে গিয়ে পৌঁছায় মঙ্গল গ্রহে। সেখানে তারা মঙ্গলে অতীতের সমৃদ্ধ সভ্যতার চিহ্ন খুঁজে পায়, যা খুব সম্ভবত ধ্বংস হয়ে গিয়েছে পারমাণবিক সংঘাতে, এবং যারা বেঁচে গিয়েছে তারাও পরিণত হয়েছে প্রাচীন গুহাবাসীতে। মঙ্গল গ্রহে পৌঁছানো এবং মঙ্গলের জীবন এবং সভ্যতা সম্পর্কে গল্পের এই কষ্টকল্পনার অংশটুকু বাদ দিলেও এটা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে যে, একটুখানি হিসেবের ভুলে মহাকাশযানের পক্ষে অসীম মহাকাশে দিক ভুল করে অন্য পথে ছুটে যাওয়া, চিরতরে হারিয়ে যাওয়া, প্রবলভাবেই সম্ভব। রুপোলি পর্দার নাটকীয় স্টাইলে মহাকাশযান চাঁদ ছেড়ে মঙ্গলে পৌঁছাবে, সে সম্ভাবনা কিন্তু নেই।
‘চাঁদে টিনটিন’ কমিকসে মহাকাশযানের আরও বিপদের সম্ভাবনা দেখানো হয়েছে। সেখানে মস্ত বড় উল্কাপিণ্ড ছুটে আসছিল মহাকাশযানের দিকে। যে উল্কার সঙ্গে ধাক্কা লাগলে চুরমার হয়ে যেতে পারে চন্দ্রযান। ক্যাপ্টেন হ্যাডক যখন ভাবেন যে, তাঁরাও চুরমার হয়ে যেতে পারতেন মহাকাশযানের সঙ্গে, প্রফেসর ক্যালকুলাস ভাবতে বসেন যে, ধাক্কা লাগলে তাঁর থিওরিটা ভুল প্রমাণিত হতো, আর তাঁকে নতুন করে অঙ্ক করতে হতো। প্রফেসর ক্যালকুলাসদের নিয়ে এই হল বিপদ!
তবে, এমনকী চাঁদের মাটিতে নামাতেও বিপদ রয়েছে। এই তো এ বছরের এপ্রিলে ইজরায়েলের রোবটিক বেরেশিট মহাকাশযান ভেঙে পড়ল চাঁদে নামার ঠিক আগে। মিশন কন্ট্রোলের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল চাঁদের পৃষ্ঠদেশের মাত্র ১৪৯ মিটার দূরে। তাই সত্যি সত্যিই মহাকাশযানের চাঁদে পৌঁছানো এক জটিল প্রক্রিয়া। তার শেষ পর্যন্ত রুদ্ধ নিশ্বাসে অপেক্ষা করা ছাড়া গত্যন্তর নেই। আর ইসরোর সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীরা তাঁদের দিনরাত এক করে কাজ করে যাবেন শেষ পর্যন্ত। ল্যান্ডার ‘বিক্রম’ কীভাবে চাঁদের মাটিতে নামবে, ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছে বেঙ্গালুরুর চাল্লাকেরে সায়েন্স সিটির লুনার টেরাইন টেস্ট ফেসিলিটিতে। ভারতের মহাকাশ গবেষণার জনক বিক্রম সারাভাইয়ের নামে এই ল্যান্ডারের নাম দেওয়া হয়েছে ‘বিক্রম’।
আপাতত চন্দ্রযান-২ ঠিকঠাক চলেছে তার যাত্রাপথে। চন্দ্রযান-২ এর সাফল্য ভারতের বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এক বিরাট সমৃদ্ধির স্বাক্ষর হতে পারে। আজ পর্যন্ত হাতে গোনা কয়েকটি দেশ তাদের চন্দ্রযান নামাতে পেরেছে চাঁদের মাটিতে— আমেরিকা, রাশিয়া, চিন। এই তালিকায় ভারতের নাম সংযোজিত হলে জাতীয় গৌরবকে তা বাড়িয়ে দিতে পারে অনেকটাই। আমরা তাই রুদ্ধনিশ্বাসে অপেক্ষা করে থাকি চন্দ্রযান-২ এর সাফল্যের প্রত্যাশায়। চাঁদমামা ‘টি’ দিয়ে যাক আমাদের চন্দ্রযানকে। আমরা চাঁদের হাসির বাঁধ ভাঙার অপেক্ষায়।
ছবি: ইসরো’র সৌজন্যে 
04th  August, 2019
মার্কশিট 

তোমাদের জন্য চলছে নতুন বিভাগ ‘মার্কশিট’। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় জীবনবিজ্ঞান।প্রস্তুতির এই পর্যায়ে পাঠ্যবিষয়ের ধারণাগুলিকে মনে মনে ভাবা অভ্যাস করো। পরামর্শ দিচ্ছেন বালিগঞ্জ গভর্নমেন্ট হাই স্কুলের জীবনবিজ্ঞানের শিক্ষক অরণ্যজিৎ সামন্ত।
বিশদ

19th  January, 2020
দেখতে দেখতে শেখো 

সায়েন্স সিটি হল এমনই এক জায়গা যেখানে বিজ্ঞানের নানা জানা-অজানা বিষয় যেমন শিখতে পারবে তেমনই রয়েছে অঢেল মজার মজার উপকরণ। দেখে এসে জানাচ্ছেন চকিতা চট্টোপাধ্যায়।  
বিশদ

19th  January, 2020
ওয়াটারমেলান পিৎজা ও অরিও অ্যান্ড কোকোনাট লাড্ডু  

তোমাদের জন্য চলছে একটি আকর্ষণীয় বিভাগ ছোটদের রান্নাঘর। এই বিভাগ পড়ে তোমরা নিজেরাই তৈরি করে ফেলতে পারবে লোভনীয় খাবারদাবার। বাবা-মাকেও চিন্তায় পড়তে হবে না।  
বিশদ

12th  January, 2020
মার্কশিট 

তোমাদের জন্য শুরু হয়েছে নতুন বিভাগ। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় বাংলা। মাধ্যমিক পরীক্ষায় বাংলায় বেশি নম্বরের জন্য পাঠ্যবই ও ব্যাকরণ খুঁটিয়ে পড়তে হবে। পরামর্শ দিচ্ছেন হিন্দু স্কুলের বাংলার শিক্ষক স্বাগত বিশ্বাস। 
বিশদ

12th  January, 2020
ব্ল্যাকবোর্ড 

অভিনব অঙ্কন প্রতিযোগিতা
জিএসবি রিসার্চ অ্যান্ড কনসালটিং-আলভা’র সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে ভার্চুয়াল কমিউনিকেশন ক্রিসমাস ও নিউ ইয়ার উদ্‌যাপনের জন্য একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল। অনুষ্ঠানে বিভিন্নভাবে পিছিয়ে পড়া মেয়েদের জন্য একটি অঙ্কন প্রতিযোগিতা করা হয়। মূলত অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে থেকে প্রতিভাময়ীদের তুলে ধরতেই এরকম একটি উদ্যোগ নেওয়া হয়।  
বিশদ

12th  January, 2020
শীতের ছুটিতে এখানে ওখানে 

শীত মানেই একরাশ মজা। এদিক ওদিক ঘোরাঘুরি। দলবেঁধে দূরে কোথাও বেড়াতে যাওয়া। এ সময় স্কুলেও থাকে লম্বা ছুটি। তাই ছোটদের পোয়াবারো। এবার শীতে ছুটিতে কে কোথায় ঘুরতে গিয়েছিল জানাল হযবরল-র খুদেরা।  
বিশদ

12th  January, 2020
হিলি গিলি হোকাস ফোকাস 

চলছে নতুন বিভাগ হিলি গিলি হোকাস ফোকাস। এই বিভাগে জনপ্রিয় জাদুকর শ্যামল কুমার তোমাদের কিছু চোখ ধাঁধানো আকর্ষণীয় ম্যাজিক সহজ সরলভাবে শেখাচ্ছেন। আজকের
বিষয় হ্যাপি নিউ ইয়ার ২০২০।   বিশদ

05th  January, 2020
মার্কশিট 

তোমাদের জন্য শুরু হয়েছে নতুন বিভাগ। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় অঙ্ক।মাধ্যমিকের জন্য কয়েকটি ফর্মুলা ভালো করে শিখে নিলে বীজগণিতে একশো শতাংশ নম্বর পাওয়া সম্ভব।পরামর্শ দিচ্ছেন রহড়া রামকৃষ্ণ মিশন বালকাশ্রম উচ্চ বিদ্যালয়ের (উচ্চ মাধ্যমিক) অঙ্কের শিক্ষক সমীর চক্রবর্তী। 
বিশদ

05th  January, 2020
টাইমস স্কোয়্যারে ক্রিসমাস ও নিউ ইয়ার 

আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরে ক্রিসমাস ও নিউ ইয়ার কতটা আনন্দের সঙ্গে উদ্‌যাপন করা হয় তার সাক্ষী ছিলেন অভীক বসু। তোমাদের সেই ঝলমলে উৎসবের গল্প শোনালেন লেখক।  
বিশদ

05th  January, 2020
বখশিশ 

শমীন্দ্র ভৌমিক: মাস তিনেক হল গুসকরার কাছে একটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতার কাজ পেয়েছি। জায়গাটা চমৎকার। বর্ধমান জেলার মধ্যে পড়ে। ট্রেনে চেপে বর্ধমান থেকে গুসকরা আসতে আমার মিনিট পঞ্চাশেক লাগে।   বিশদ

29th  December, 2019
নববর্ষের শপথ 

আসছে নতুন বছর। নতুন বছরে কে কী করার প্রতিজ্ঞা করেছে তা জানাল ছোটরা।  
বিশদ

29th  December, 2019
এলিট ওয়ার্ল্ড রেকর্ড-এর প্রতিযোগিতা 

আমাদের সকলের মধ্যেই কিছু না কিছু গুণ আছে। এমন গুণ যার মারফত আমরা বিশ্বজয় করতে পারি। অন্তত এলিট ওয়ার্ল্ড রেকর্ড তেমনই বিশ্বাস করে। গোটা পৃথিবীতে এলিট ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের বিভিন্ন অফিস আছে। আমেরিকা, ইজিপ্ট, ইউরোপের বিভিন্ন শহর, লেবানন, শ্রীলঙ্কা সর্বত্রই এদের কর্মকাণ্ড ছড়িয়ে রয়েছে। 
বিশদ

22nd  December, 2019
ভবন’স বিদ্যামন্দিরের বার্ষিক অনুষ্ঠান 

সল্টলেকের ভবন’স গঙ্গাবক্স কানোরিয়া বিদ্যামন্দিরের (সেকেন্ডারি সেকশন) বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী উৎসব অনুষ্ঠিত হল গত ৬ ডিসেম্বর। ই জেড সি সি-র অডিটোরিয়ামে বিশিষ্ট গুণীজনদের উপস্থিতিতে ছাত্র-ছাত্রীদের বিভিন্ন বিষয়ে পুরস্কার দেওয়া হয়। প্রকাশিত হয় বিদ্যালয়ের পত্রিকা ‘রিপলস’।
বিশদ

22nd  December, 2019
আমাদের সান্টা ক্লজ 
চকিতা চট্টোপাধ্যায়

আর ক’দিন পরেই ২৫ ডিসেম্বর। ক্রিস্টমাস ডে। যিশুখ্রিস্টের জন্মদিন। আমাদের বড় আদরের, বড় আপন ‘বড়দিন’। বেথলেহেমের এক আস্তাবলে মা মেরি জন্ম দিয়েছিলেন ছোট্ট যিশুর। 
বিশদ

22nd  December, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, পুরাতন মালদহ: দক্ষিণবঙ্গ থেকে ভোজ্য তেল নিয়ে এসে কালিয়াচকের ডাঙা এলাকায় একটি গোডাইনে মজুত করেছিল পাচারকারীরা। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই সেই তেল পাচারকারী লরির চালক ও খালাসিকে গ্রেপ্তার করে পুলিস।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: উৎপাদন কম থাকায় দাম বাড়ছে হু হু করে। সেকারণেই কুমোরটুলিতে শোলার বদলে সরস্বতী প্রতিমার সাজে ব্যবহার বাড়ছে জরির অলঙ্কারের। মৃৎশিল্পীদের কথায়, প্রতিমা তৈরির সরঞ্জামের দাম লাফিয়ে বাড়ছে। এর মধ্যে যদি প্রতিমা শোলার অলঙ্কারে সাজাতে হয়, তাহলে ঢাকের ...

দাভোস, ২৪ জানুয়ারি: ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রচেষ্টায় গণতন্ত্রকে ‘ধ্বংসের মুখে’ ঠেলে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার দাভোসের ওয়ার্ল্ড ইকনমিক ফোরাম-এর মঞ্চ থেকে ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বছরের শুরুতেই ফের বাস ভাড়া বৃদ্ধির দাবিতে সুর চড়াচ্ছেন মালিক সংগঠনের নেতারা। একাধিক সংগঠন এ নিয়ে ইতিমধ্যেই নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেছে। কয়েকটি সংগঠন আবার আরও এগিয়ে পরিবহণ দপ্তরে চিঠিও দিয়েছে ভাড়া বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসাসূত্রে উপার্জন বৃদ্ধি। বিদ্যায় মানসিক চঞ্চলতা বাধার কারণ হতে পারে। গুরুজনদের শরীর-স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন থাকা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

জাতীয় ভোটদাতা দিবস
১৮৫০: অভিনেতা অর্ধেন্দু শেখর মুস্তাফির জন্ম
১৮৫৬: সমাজসেবক ও লেখক অশ্বিনীকুমার দত্তের জন্ম
১৮৭৪: ইংরেজ লেখক সামারসেট মমের জন্ম  





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫১ টাকা ৭২.২১ টাকা
পাউন্ড ৯১.৯৮ টাকা ৯৫.৩২ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৮ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০,৭১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮,৬২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৯,২০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১০ মাঘ ১৪২৬, ২৫ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার, প্রতিপদ ৫৫/২৪ রাত্রি ৪/৩২। শ্রবণা ৫৫/৩৩ রাত্রি ৪/৩৬। সূ উ ৬/২২/৭, অ ৫/১৫/৩১, অমৃতযোগ দিবা ১০/০ গতে ১২/৫৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/৫২ গতে ১০/৩০ মধ্যে পুনঃ ১২/১৪ গতে ২/০ মধ্যে পুনঃ ২/৫২ গতে ৪/৩৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১/১০ গতে ২/৩২ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৪ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৬/৫৪ মধ্যে পুনঃ ৪/৪৪ গতে উদয়াবধি। 
১০ মাঘ ১৪২৬, ২৫ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার, প্রতিপদ ৫২/৪৫/৪২ রাত্রি ৩/৩১/৩১। শ্রবণা ৫৪/৮/১ শেষরাত্রি ৪/৪/২৬। সূ উ ৬/২৫/১৪, অ ৫/১৪/৮, অমৃতযোগ দিবা ৯/৫৮ গতে ১২/৫৭ মধ্যে ও রাত্রি ৭/৫৮ গতে ১০/৩৩ মধ্যে ও ১২/১৬ গতে ১/৫৮ মধ্যে ও ২/৫০ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। কালবেলা ৭/৪৬/২১ মধ্যে ও ৩/৫৪/২ গতে ৫/১৪/৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৫৪/১ মধ্যে ও ৪/৪৬/২০ গতে ৬/২৪/৫৫ মধ্যে। 
২৯ জমাদিয়ল আউয়ল  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
চীনা নববর্ষ পালিত হচ্ছে মধ্য কলকাতার টেরিটি বাজার এলাকায়

11:36:00 AM

বাগুইআটিতে জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫ 

11:36:00 AM

বেলেঘাটায় বাড়িতে ভাঙচুরের ঘটনায় গ্রেপ্তার ২  

11:35:00 AM

তুরষ্কে ভূমিকম্প, মাত্রা ৬.৮

 

প্রবল ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল পূর্ব তুরষ্ক। রিখটার স্কেলে কম্পনের মাত্রা ...বিশদ

10:43:00 AM

২৬ জানুয়ারি বন্ধ থাকবে দিল্লি মেট্রোর সমস্ত পার্কিং লট
 

২৬ জানুয়ারি, সাধারণতন্ত্র দিবসের দিন বন্ধ থাকবে দিল্লি মেট্রোর সমস্ত ...বিশদ

10:40:48 AM

জম্মু ও কাশ্মীরের অবন্তিপোরায় সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াই 

10:37:58 AM