Bartaman Patrika
হ য ব র ল
 

হাবুদা হারিয়ে গিয়েছে 
গুঞ্জন ঘোষ

হাবুদার সঙ্গে থাকা মানে পৃথিবীর অর্ধেক শক্তি আমাদের মধ্যে খেলে বেড়ায়। হাবুদা আমাদের রবিনহুড। কতকিছু যে জানে! হাবুদা মানেই একগাদা অ্যাডভেঞ্চার। মাঝেমাঝে যখন ছেলেমানুষ হয়ে যায় সে এক দেখার মতো কাণ্ড। আবার যখন রেগে যায় সেও এক ভীষণ ব্যাপার। তখন বলে পায়ের আঙুলে থানইট ফেলে দেব। কিংবা ব্রহ্মতালুতে সুপুরি রেখে তাতে খড়মের এক ঘা মারব। হাবুদা ভয় দেখায় বটে ভয়ার্ত করে না। এই রাগ, তো পরক্ষণেই জল।
বড়মা বলেন, ‘হাবুটা আগের জন্মে মস্ত বড় এক সন্ন্যাসী ছিল। মায়ার টানে এই জন্মে আমাদের পঞ্চাননতলার হাবু হয়ে জন্মেছে। খবরদার ওকে কখনও অশ্রদ্ধা করিসনি।’
গতকালই হাবুদা আমাদের ছ’টা ঋতুর একটা লাজুক হেমন্তকে চিনিয়েছিল। হাবুদা যেমন বলেছিল, শোন, হেমন্তের রাতটা ঝিমঝিমে। সন্ধের পর ছাতিম ফুলের পাগল করা গন্ধে প্রকৃতি ঈশ্বরের পুজো করে। রাত ন’টার পর থেকে বাতাস উপাসনায় বসে। আকাশ তখন তারাদের টিপ ছাপ চাদর গায়ে ধ্যানে তন্ময় হয়ে যায়।
হাবুদা এইসব কথা যখন বলে চোখ মুখ অন্যরকম হয়ে যায়। অতশত বুঝি না তো, আমরা নিজেদের মধ্যে ফিসফিস করে বলি—এইরে, আগের জন্মের সেই সন্ন্যাসীটা হাবুদার মনটাকে ধরে টান মেরেছে!’
আমরা আর প্রশ্ন করি না।
হাবুদা গুম মেরে বসে থাকে। দু’চোখের কোণ থেকে দু’ফোঁটা অশ্রু গড়িয়ে পড়ে, আমরা সামান্য ভয় পেয়ে যে যার বাড়ি চলে যাই।
সেই হাবুদা ভাইফোঁটার আগেরদিন পাকড়াও করে বলল, ‘অ্যাই গজু, আমার সঙ্গে চল।’
‘কোথায়?’
‘এখন বলব না, গিয়ে দেখবি।’
‘আমি একা! সুগত, বিধান, মাধব—ওদের নেবে না?’
‘তোকে বলছি, তুই চল।’
অজুহাত খাড়া করে বলি, ‘হাবুদা মাকে বলা হয়নি—মা তো চিন্তা করবে।’
হাবুদা বলল, ‘সে আমি বুঝব—এখন তুই চল তো।’
আমার হাতটা খামচে ধরে টানতে টানতে বড় রাস্তায় উঠে হাবুদা বলল, ‘একটা রিকশ দরকার। টোটো হলেও চলবে। চারপাশে চোখ রাখ।’
সিদ্ধেশ্বরীতলায় একটা রিকশ দাঁড়িয়ে। হাবুদা চেঁচিয়ে উঠল, ‘অ্যাই রিকশ, যাবেন?’
চালক বলল, ‘কোথায়?’
হাবুদা বলল, ‘ছেলেবেলায়।’
লোকটা খানিক থতমত খেল। কী বলবে বুঝতে পারছে না। হতাশ কণ্ঠে বলে উঠল, ‘নিন, উঠুন!’
আমি অবাক! ছেলেবেলা কী গন্তব্য হতে পারে! হাবুদা চাইছেটা কী! এরকম আচরণ কখনও দেখিনি বাবা!
রিকশ চলছে গড়গড়িয়ে। বাতাসে হিমের আলতো ছোঁয়া। চারপাশ ভীষণই চেনা অথচ সবকিছু অচেনা মনে হচ্ছে। দাঁয়েদের রাসবাড়ি। লালবাবার আশ্রম। কল্যাণেশ্বর শিবমন্দির। গঙ্গার ধারের সেই বিশাল মাঠ। কতগুলো ছেলে একটা মোটা লাঠি আরেকটা পটলের মতো দেখতে একটুকরো কাঠ নিয়ে খেলছে। হাবুদা সেই দেখে হাততালি দিয়ে উঠল। আমাকে কনুই দিয়ে ঠেলে বলল, ‘দেখ গজু, দেখ—ওরা ডাংগুলি খেলছে। ওফ্‌, ছেলেবেলায় কত খেলতাম রে!’
দুম করে বলে ফেললাম, ‘ইস, ডাংগুলি! এটা আবার একটা খেলা!’
হাবুদা বিভোর হয়ে আছে। কোনওদিকে হুঁশ নেই। রিকশ পঞ্চাননতলার বাঁকটা ঘুরতেই সাউদের মাঠ। সেখানে তিন-চারজন মেয়ে মাটিতে চারচৌকো ঘর কেটে একপায়ে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়াচ্ছে। দেখে আমার খুব কষ্ট হল। হাবুদাকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘ওরা কি হ্যান্ডিক্যাপড?’
হাবুদা হা হা করে হেসে উঠে বলল, ‘হ্যান্ডিক্যাপড তুই। ওরা চু-কিতকিত খেলছে। আহা, উমাদি, টুকু, রত্না—ওদের সঙ্গে কত খেলতাম। সে এক দিন ছিল রে গজু!’
লোকটাকে আমি চিনি। নামটা ঠিক মনে করতে পারছি না। চন্দনের চায়ের দোকানে চুপ করে বসেছিল। আমাদের দেখেই উঠে এল। হাবুদাকে বলল, ‘হাবু না! কীরকম হয়ে গেছিস রে! বঁড়শি নিবি? নতুন চাইনিজ হুইল এসেছে, লাগলে বলিস!’
হাবুদা একটা লাফ দিয়ে লোকটাকে জড়িয়ে ধরল। বলল, ‘বিশুদা এখনও মাছ ধরার সরঞ্জাম বিক্রি কর!’
লোকটা বলল, ‘নেশায় পড়ে গেছি রে। আজকালকার ছেলেরা মাছ ধরে না রে! পুরনো অভ্যেস ছাড়তে পারিনি।’
লোকটা এবার কোনও গোপন জিনিস দেওয়ার মতো কী একটা হাবুদার হাতে দিয়ে বলল, ‘তোর ভাগনেকে দিস।’
হাবুদা মুঠো খুলে জিনিসটা দেখেই লাফিয়ে উঠল। লম্বাটে শঙ্কুর মতো একটা কাঠের বল। নীচে আধখানা পেরেক। হাবুদা উল্লাস করে উঠল, ‘লাট্টু...উ...উ!’
এসব জিনিসের প্রতি আমার আগ্রহ নেই। জানিই না এটা দিয়ে কী হয়! লোকটা এবার একটা মোড়ক থেকে কাচের মতো কী একটা বের করে হাবুদাকে দিল। হাবুদা ছেলেমানুষের মতো সেটা মুখে পুরে চিবতে চিবতে বলে উঠল, ‘ওফ, মাছ লজেন্স—বিশুদা কী ঐশ্বর্য দিলে গো!’
হাবুদার চিবনো দেখে খিদে পেয়ে গেল। সামনেই মিষ্টির দোকান।
বললাম, ‘বড্ড খিদে পেয়েছে। কিছু খাবে?’
হাবুদা ঘাড় নেড়ে বলল, ‘খাবি, খা না।’
আমি খাব কি! দেখি হাবুদা একটা মিষ্টির দিকে লোলুপ দৃষ্টিতে তাকিয়ে। দোকানি হেসে বলল, ‘একটা করে দেব নাকি?’
একরকম ঘোরের মধ্যে থেকে হাবুদা বলে উঠল, ‘ল-ব-ঙ্গ লতিকা! দিন দাদা, দিন।’
দোকানদার দিতে না দিতে হাবুদা মুখে পুরে চিবচ্ছে আর বলছে, ‘আমার দিদু যা বানাত ময়রা হার মেনে যেত। ওরে গজু, দিদুকে স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি রে!’
হাবুদাকে যেন নেশায় পেয়েছে!
লবঙ্গলতিকা শেষ করেই গোল সাদা মতো মিষ্টি একটা চেয়ে নিল। খাচ্ছে আর বলছে ‘গজু, এর নাম মণ্ডা। আহা, এর স্বাদই আলাদা।’
বললাম, ‘ভূতের রাজা গুপিবাঘাকে যে মিষ্টি খাইয়েছিল এটা কি সেটা?’
হাবুদার চোখ তৃপ্তিতে বুজে আছে। ঘাড়টা শুধু নাড়ল।
হঠাৎ কী যেন দেখতে পেয়ে চঞ্চল হয়ে উঠল হাবুদা।
‘অমন করে কী দেখছ হাবুদা?’
হাবুদার মুখে কথা নেই। চকচকে দৃষ্টি। মাথার চুল হাওয়ায় উড়ছে। কী যেন দেখতে পেয়েছে। আচমকা দৌড় দিল। বড় রাস্তাটা কোনাকুনি পেরিয়ে গেল দিগ্‌বিদিক জ্ঞান হারিয়ে। আর একটু হলেই বাইকে ধাক্কা মারত। চারপাশের লোকজন হইহই করে উঠল। রাস্তার ওপারে আদু মুদির দোকান। হাবুদা চিৎকার করছে—‘বুড়ির মাথায় পাকা চুল...বুড়ির মাথায় পাকা চুল। গজু শিগগিরি আয়—টেস্ট করে দেখ একবার।’
কাছে গিয়ে দেখি একটা কাঠির মাথায় তুলোর মতো কী একটা গোলাপি বস্তু। সেটা নিয়ে হাবুদা নাড়াচাড়া করছে আর মাঝেমাঝে জিভ ঠেকাচ্ছে। দোকানিকে বলছে, ‘জানেন আদুদা, এর একটা নাম আছে—হাওয়াই মেঠাই। আমরা একে বুড়ির মাথার পাকা চুল বলি।’
হাবুদা আমার মুখে সেই জিনিসটা পুরে দিল। মিষ্টি স্বাদ। মুখে দিতে না দিতেই মিলিয়ে গেল। আগে কখনও খাইনি। বেশ মজার খাবার এটা।
কানের কাছে আচমকা ভ্যাঁ ভ্যাঁ করে বিকট আওয়াজ।
চমকে ফিরে দেখি একটা চোঙার মতো জিনিস মুখে পুরে একজন লোক বিশ্রী শব্দ করতে করতে যাচ্ছে।
হাবুদার খাওয়া হয়ে গিয়েছিল। দৌড়ে গিয়ে লোকটাকে প্রায় জাপটে ধরে বলে উঠল, ‘ঝাঁকা নামাও। আমি একটা নেব।’
লোকটা ঝাঁকা নামিয়ে বলল, ‘সাতপাড়া ঘুরে আপনাকে পেলাম। বউনির জিনিস বেশি নেব না। পাঁচ টাকা দিন।’
হাবুদা বলল, ‘গজু এর নাম তালপাতার ভেঁপু। রথের মেলায় কত কিনেছি। তুই নিবি! দেখ এইভাবে ফুঁ-দিতে হয়।’
হাবুদা বাচ্চা ছেলে হয়ে গেছে। মুখে পুরে তারস্বরে বাজাচ্ছে আর বলছে, ‘শোন রে শোন, আমার ছেলেবেলার সুর।’
আমার অবাক হওয়ার আর কী বাকি আছে! এই হাবুদাকে আগে কখনও দেখিনি। বললাম, ‘চলো, আর ভালো লাগছে না। বাড়ি যাব।’
কথাটা হাবুদার কানে ঢুকল না। কী এক অজানা নেশায় বুঁদ হয়ে আছে। হঠাৎ আমার গলা জড়িয়ে টানতে টানতে নিয়ে চলল। সামনেই বৈরাগীদের ভিটা। সে এক আশ্চর্য জগৎ। হাবুদা দেখেই বলল, ‘অ্যায় তো সেই মায়াপুরী। চল চল।’
হাবুদা প্রায় ঠেলে ঢোকাল। বৈরাগীদের ভিটা এখন পোড়ো বাড়ি। সাপখোপের আড্ডা। এতই নির্জন, পায়ের শব্দ একটু জোরে হলেই চমকে উঠতে হয়। সামনে ঝোপের আড়ালে কে যেন সরে গেল। কে ওখানে? হিংস্র কোনও জন্তু নয় তো! ঠিক তখনই কেউ যেন হিসহিসে গলায় বলে উঠল, ‘বেস্পতি পাইলে আয়!’
আমার সারা গায়ে হিমস্রোত বয়ে গেল। ভূত নয় তো!
‘হাবুদা তুমি কোথায়?’
পিছন ফিরতেই দেখি কিছুটা দূরে হাবুদা মুগ্ধ হয়ে প্রজাপতির ওড়াউড়ি দেখছে।
আমার প্রচণ্ড রাগ হল। ছুটে গিয়ে তার হাত দুটোকে শক্ত করে ধরে বললাম, ‘তুমি কী গো—এই জঙ্গলপুরীতে এনে আমায় ভূতের মুখে ফেলেছ! স্পষ্ট দেখলাম ওদিকে বেস্পতি ভূতের আড্ডা।’
‘বেস্পতি ভূত!’
হাবুদা গলা ফাটিয়ে হো হো করে হেসে উঠল।
বলল, ‘বেস্পতি ভূত হতে যাবে কেন! ও তো বামাচরণের মেয়ে।’
‘বামাচরণ আবার কে!’
‘কেয়ারটেকার।’
‘আমার কিছু ভালো লাগছে না। আমি বাড়ি যাব।’
হাবুদার মুখে দুষ্টু হাসিটা চওড়া হয়েই মিলিয়ে গেল। বলল, ‘মাছ ধরবি? এই দেখ ছিপ। কত বড় পুকুর দেখেছিস! আমার লোভ হচ্ছে।’
প্রচুর গাছপালা। সামনে টলটলে জলের পুকুর। মাছের দল চাক বেঁধে ঘুরছে। হাবুদা বাচ্চা ছেলের মতো চেঁচিয়ে উঠল, ‘আমি চান করব। সাঁতার কাটব।’
বুকটা ছ্যাঁত করে উঠল! যতদূর জানি হাবুদা তো সাঁতার জানে না!
‘না, হাবুদা তুমি জলে নেমো না।’
কথা শুনলে তো! চিরকালের একগুঁয়ে।
হাবুদা দ্রুত পোশাক ছেড়ে আমার হাতে মোবাইল মানিব্যাগ দিয়ে দু’হাত ছড়িয়ে চিৎকার করে উঠল, ‘আমি সেই ক্লাস সেভেনের হাবু—হাবুল ভটচায। এখন আমি ডুব সাঁতার কাটব। পুকুর এপার ওপার করব। গায়ে মাটি মাখব। যা খুশি তাই করব। হা...হা...হা...!’
হেমন্তের অলস দুপুর। পাখিরা কলকাকলিতে এতই উন্মত্ত তাদের জগতে দু’জন মানুষ ঢুকে কীসব কাণ্ড করছে সে খেয়াল নেই।
নিস্তব্ধ পরিবেশে ছোট্ট একটা শব্দ ভেসে এল—ঝপাং।
হাবুদার মোবাইল ফোনটা আচমকা বেজে উঠল।
‘হ্যালো হাবু, তোরা কোথায়! গজু কী করছে? কথা বলছিস না কেন!’
এ তো আমার মায়ের গলা। বললাম, ‘আমি গো মা, গজু।’
‘তুই! এত বেলা হয়ে গেল কী করছিস তোরা। হাবু কোথায়?’
‘মাগো, হাবুদা হারিয়ে গেছে।’
‘সেকি রে, কোথায়?’
‘ছেলেবেলায়!’
আর পারলাম না। এবার আমি শব্দ করে কেঁদে ফেললাম।
অলংকরণ : সুব্রত মাজী 
28th  April, 2019
ছোটদের রান্নাঘর 

করোনার দাপটে এখনও অনেকের স্কুল বন্ধ। সুতরাং বাড়ি থেকে বেরিয়ে এটা ওটা খাওয়ারও জো নেই। তাই বলে কী এই সময় কোনও ভালো খাবারই চেখে দেখার সুযোগ হবে না? চিন্তা নেই, ছোটদের রান্নাঘরে শুধু তোমাদের জন্যই দুটি লোভনীয় রেসিপি দিয়েছেন দ্য গ্রেট গ্যাসট্রো রেস্তরাঁ-এর কনসালট্যান্ট শেফ ইন্দ্রনীল ঘোষ। এগুলি আগুনের সাহায্য ছাড়াই তৈরি করা যাবে। তোমরাই করে চমকে দাও বড়দের। 
বিশদ

28th  February, 2021
ওয়্যারড ওয়ান্ডার্স অব দ্য ওয়ার্ল্ড 

পৃথিবী সত্যিই এক অদ্ভুত জায়গা। সেই সঙ্গে প্রকৃতিও বেশ বিস্ময়কর। এমন অনেক অদ্ভুত প্রাণীর অস্তিত্ব রয়েছে এই ব্রহ্মাণ্ডে যার সবটাই আমাদের পক্ষে জানা সম্ভব নয়। আবার কখনও কখনও এমন অনেক আশ্চর্যজনক প্রাকৃতিক ঘটনা ঘটে, যা আমাদের বেশ ভাবিয়ে তোলে। সোনি বিবিসি আর্থ-এর শো ওয়্যারড ওয়ান্ডার্স অব দ্য ওয়ার্ল্ড-এ এরকমই অনেক কিছু প্রাণী ও ঘটনা সম্পর্কে জানা যাবে। আশা করি ওয়্যারড ওয়ান্ডার্স অব দ্য ওয়ার্ল্ড শোটি দেখে তোমাদের বেশ ভালো লাগবে। 
বিশদ

28th  February, 2021
ম্যাজিকে লেখাপড়া 

ম্যাজিক মানে শুধুই খেলা? পড়ার লেশমাত্র নেই? মোটেও না, ম্যাজিকে এবার লেখাপড়ার বিষয়গুলোও ভরে দেওয়া হল। পড়াশোনার বিভিন্ন বিষয়ের ওপর দারুণ ম্যা঩জিক দেখাবেন থিম ম্যাজিশিয়ান সোমনাথ দে। এখন থেকে প্রতি মাসের একটা করে রবিবার তোমাদের জন্য থাকবে ম্যাজিকে লেখাপড়া। এবার ইংরেজি। ম্যাজিশিয়ানের সঙ্গে কথা বলেছেন কমলিনী চক্রবর্তী।  
বিশদ

28th  February, 2021
কালবোশেখির ঝড়
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় 

তারকেশ্বর স্টেশন ছাড়িয়ে এখন বেশ ক’বছর ধরেই ট্রেন যাচ্ছে আরামবাগে, আরামবাগ ছাড়িয়ে গোঘাট। গোঘাট পেরিয়ে শিগগিরি যাবে বিষ্ণুপুরে। লাইন পাতার কাজও শেষের দিকে। বাকি কাজ শেষ হলে, গ্রিন সিগন্যাল পেলেই রেলগাড়ি ঝমাঝম, না, পা পিছলে আলুর দম নয়, হাওড়া থেকে ছেড়ে স্টেশনের পর স্টেশন পেরিয়ে শেষে পৌঁছবে বিষ্ণুপুর। পুকুরপাড়ে বসে বসে সৈকত এসবই ভাবছিল।  
বিশদ

28th  February, 2021
মার্কশিট 

তোমাদের জন্য চলছে জনপ্রিয় বিভাগ মার্কশিট। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় জীবন বিজ্ঞান। 
বিশদ

21st  February, 2021
পৃথিবীর বিস্ময়কর
কয়েকটি প্রাণী 

পৃথিবীর বৈচিত্র্যময় প্রাণী হিসেবে ছোট ছোট কীট পতঙ্গও বেশ জনপ্রিয়। বিশ্বে যত প্রকারের প্রাণী আছে তার থেকে অনেক বেশি প্রজাতির কীট পতঙ্গ দেখতে পাওয়া যায়। আশ্চর্যের বিষয়, এরা এতটাই ছোট যে বেশিরভাগ সময় আমরা ওদের বৈচিত্র্যপূর্ণ জীবনযাপনকে চাক্ষুষ করার সুযোগ পাই না।  
বিশদ

21st  February, 2021
পৃথিবীর কাছে মহাকাশে ঝুলন্ত শহর! 

একদিনের ছুটিতে স্পেস ট্যাক্সিতে চেপে চট করে ঘুরে এলে পৃথিবীর কাছেই স্পেস সিলিন্ডারে তোমার মামাবাড়ি থেকে...। ভবিষ্যতে কিন্তু এরকম হতেই পারে। জানাচ্ছেন সুপ্রিয় নায়েক। 
বিশদ

21st  February, 2021
ভালোবাসার জোয়ার

১৯৯৭ সাল থেকে সমাজের বিভিন্ন স্তরে পিছিয়ে পড়া ও অনাথ শিশুদের নিয়ে অক্লান্তভাবে কাজ করে চলেছে ‘সম্পর্ক’ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। এবার ‘সম্পর্ক’র সঙ্গে যুক্ত হয়েছে আর একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘উজান’। বিশদ

14th  February, 2021
চারণকবি মুকুন্দ দাসের ছেলেবেলা

চারণকবি মুকুন্দদাস একদিন নিজের সৃষ্ট এই গান গেয়ে জাগিয়ে তুলেছিলেন পরাধীন ভারতবাসীকে। ১৯০৫ সালের বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনকে ঘিরে তখন তোলপাড় সারা দেশ। এই বিপর্যয় মোকাবিলা করতে তখন এগিয়ে এসেছেন স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়, অশ্বিনীকুমার দত্ত প্রমুখরা। বিশদ

14th  February, 2021
মায়ের চোখে জল
অভীক বসু

আই ডালিয়া কোথায় ছিলি
হঠাৎ এলি একা
আসার পথে তোরকি সাথে
গেঁদার হলো দেখা বিশদ

14th  February, 2021
সরস্বতী বিদ্যাবতী

কয়েকদিন বাদেই সরস্বতী পুজো। তবে অন্যবারের থেকে এবছরটা আলাদা রকম। তোমাদের বন্ধুরা জানাল তাদের এবারের সরস্বতী পুজোর পরিকল্পনা। বিশদ

14th  February, 2021
বিশ্বের কয়েকটি
ভয়ঙ্কর প্রাণী 

বন্য জগতে সবকিছুকে বাঁচিয়ে নিরাপদে পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে চলা বেশ কঠিন ব্যাপার। বনে-জঙ্গলে শক্তিশালী প্রাণীরাও কখনও কখনও দুর্বল হয়ে পড়ে। আবার একে অপরের সঙ্গে লড়াইয়েও মেতে ওঠে। সোনি বিবিসি আর্থ এদের নিয়ে একটি বিশেষ শো-এর আয়োজন করেছে। শো-এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডেডলি ৩৬০’।  
বিশদ

07th  February, 2021
ছোটদের রান্নাঘর 

করোনার দাপটে স্কুল বন্ধ। সুতরাং বাড়ি থেকে বেরিয়ে এটা ওটা খাওয়ারও জো নেই। তাই বলে কি লকডাউনে কোনও ভালো খাবারই চেখে দেখার সুযোগ হবে না? চিন্তা নেই, ছোটদের রান্নাঘরে শুধু তোমাদের জন্যই দুটি লোভনীয় রেসিপি দিয়েছেন গ্রেস রেস্তরাঁ-এর প্রধান শেফ ঋতব্রত বিশ্বাস। এগুলি আগুনের সাহায্য ছাড়াই তৈরি করা যাবে। তোমরাই করে চমকে দাও বড়দের। 
বিশদ

07th  February, 2021
মার্কশিট 

তোমাদের জন্য চলছে জনপ্রিয় বিভাগ মার্কশিট। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় বাংলা। 
বিশদ

07th  February, 2021
একনজরে
তামিলনাড়ুর ২৩৪টি বিধানসভা আসনে ভোটগ্রহণ আগামী ৬ এপ্রিল। তার আগে শুক্রবার দলের প্রথম প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করল ক্ষমতাসীন এআইএডিএমকে। এই তালিকায় নাম রয়েছে মুখ্যমন্ত্রী পালানিস্বামী ও উপমুখ্যমন্ত্রী পনিরসেলভাম সহ মোট ছ’জনের।   ...

শুক্রবার নদীয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার তরফে ৭২তম জেলা অ্যাথলেটিক চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয়েছে। এবছর জেলার ৬৬টি ক্লাবের ১০৩৩জন ১৩১ রকম প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন।  ...

২০১১, ২০১৬-র পর এবার ২০২১। জিতলে তৃণমূলের ‘হ্যাটট্রিক’। তাই একুশের ভোটযুদ্ধে নামার আগে ২৯১ জন সৈনিককে বেছে নিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২৯৪টি আসনের মধ্যে তিনটি পাহাড়ের আসন ছেড়ে দিয়েছেন গোর্খা জনমুক্তি মোর্চাকে।  ...

ইন্দো-আমেরিকান অর্থাৎ ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিনিরাই এখন আমেরিকার মূল চালিকাশক্তি। কারণ, মার্কিন প্রশাসনের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন তাঁরাই। বৃহস্পতিবার এই মন্তব্য করেছেন স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর-স্বাস্থ্য মাঝে মধ্যে বিরূপ হলেও খুব একটা চিন্তার কারণ হবে না। ভ্রমণযোগ বিদ্যমান। মাঝে মধ্যে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৪৭৫: ইতালীয় শিল্পী মাইকেল এঞ্জেলোর জন্ম
১৫০৮: দ্বিতীয় মুঘল সম্রাট হুমায়ুনের জন্ম
১৮১২: কবি ঈশ্বর গুপ্তের জন্ম
১৯০০: ইংরেজ রসায়নবিদ জন ডালটনের মৃত্যু
১৯১৫: শান্তিনিকেতনে রবীন্দ্রনাথ ও মহাত্মা গান্ধীর প্রথম সাক্ষাৎ
১৯২৭: লেখক গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কোয়েজের জন্ম
১৯৩০ - লন্ডনে প্রথম হিমায়িত খাদ্য বিপণন শুরু হয়
১৯৭১: টেস্টে অভিষেক হল ক্রিকেটার সুনীল গাভাসকারের 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.০৯ টাকা ৭৩.৮০ টাকা
পাউন্ড ৯৯.৬৬ টাকা ১০৩.১৪ টাকা
ইউরো ৮৫.৬৮ টাকা ৮৮.৮৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৫, ১০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪২, ৮০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৩, ৪৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৫, ৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৫, ৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২২ ফাল্গুন ১৪২৭, শনিবার, ৬ মার্চ ২০২১। অষ্টমী ৩০/৩৩ সন্ধ্যা ৬/১১। জ্যেষ্ঠা নক্ষত্র ৩৯/১১ রাত্রি ৯/৩৮। সূর্যোদয় ৫/৫৭/৪১, সূর্যাস্ত ৫/৩৮/৪১। অমৃতযোগ দিবা ৯/৫০ গতে ১২/৫৮ মধ্যে, রাত্রি ৮/৬ গতে ১০/৩৪ মধ্যে পুনঃ ১২/১২ গতে ১/৫০ মধ্যে পুনঃ ২/৩৯ গতে ৪/১৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/২৬ মধ্যে পুনঃ ১/১৫ গতে ২/৪৩ মধ্যে পুনঃ ৪/১০ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/১০ মধ্যে পুনঃ ৪/২৫ গতে উদয়াবধি।  
২১ ফাল্গুন ১৪২৭, শনিবার, ৬ মার্চ ২০২১। অষ্টমী রাত্রি ৯/২৫। জ্যেষ্ঠা নক্ষত্র রাত্রি ১২/৪৭। সূর্যোদয় ৬/০, সূর্যাস্ত ৫/৩৮। অমৃতযোগ ৯/৪৭ গতে ১২/৫৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৭ গতে ১০/৩৩ মধ্যে ও ১২/১০ গতে ১/৪৭ মধ্যে ও ২/৩৬ গতে ৪/১৩ মধ্যে। কালবেলা ৭/২৭ মধ্যে ও ১/১৬ গতে ২/৪৩ মধ্যে ও ৪/১১ গতে ৫/৩৮ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/১১ মধ্যে ও ৪/২৭ গতে ৫/৫৯ মধ্যে।  
২১ রজব।  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইএসএল: ম্যাচ ড্র, নর্থইস্ট ১ - মোহন বাগান ১ 

09:33:39 PM

আইএসএল: নর্থইস্ট ০ - মোহন বাগান ১ (হাফটাইম) 

08:26:20 PM

আইএসএল: নর্থইস্ট ০ - মোহন বাগান ১ (৩৪ মিনিট) 

08:12:47 PM

পটাশপুরে বিজেপি প্রার্থী অম্বুজ মোহান্তি 

07:58:00 PM

রঘুনাথপুরে বিজেপি প্রার্থী বিবেকানন্দ বাউরি 

07:58:00 PM

পারায় বিজেপি প্রার্থী নদিয়ারচাঁদ বাউরি

07:58:00 PM