Bartaman Patrika
গল্পের পাতা
 

আজও তারা জ্বলে
তুলসী চক্রবর্তী

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ তুলসী চক্রবর্তী— প্রথম কিস্তি।

সেই অর্থে কখনওই তাঁকে সুপুরুষ বলা যাবে না। সম্বল বলতে ছিল একটা নোয়াপাতি ভুঁড়ি, সাদামাঠা পিঠ ও অপূর্ব উজ্জ্বল একজোড়া চোখ। যে চোখ জুড়ে ‘পরশপাথর’ ছবির পোস্টার করেছিলেন সত্যজিৎ রায়। এইটুকু নিয়েই তুলসী চক্রবর্তী দাপিয়ে বেড়িয়েছেন অভিনয়ের আঙিনায়। উদোম গায়েই মাতিয়ে দিয়েছেন নানা রঙের চরিত্রে। নায়ক-নায়িকা থাকলেও শুধু অভিনয়ের জোরেই ছবিতে আলাদা করে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠতেন তিনি।
মাটিতে পা দিয়ে চলেছেন চিরকাল। ট্রামের সেকেন্ড ক্লাসে চড়ে যাতায়াত করতেন। স্টারডমের ছটা কোনওদিন গায়ে লাগতে দেননি। তুলসী চক্রবর্তীর অভিনয় সম্বন্ধে বলতে গিয়ে অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় এক জায়গায় বলেছেন, ‘কেউ যদি দেখাতে পারেন কোনও ছবিতে খারাপ অভিনয় করেছেন তুলসী চক্রবর্তী, তাহলে আমি লাখ টাকা বাজি হেরে যাব। নাটক এবং চলচ্চিত্র দু’ক্ষেত্রেই কী সাবলীল, স্বাভাবিক অভিনয়! কখন কেমন অভিনয় করতে হবে, সে মাপটাও যে কখন বদলে ফেলতেন, কেউ ধরতেই পারত না। কোনও প্রথাগত শিক্ষা ছাড়াই খুব উঁচু দরের সহজাত অভিনয় ক্ষমতার মালিক ছিলেন তিনি।’
নিজের মধ্যে যে কী পরিমাণ অভিনয়ের ক্ষমতা ছিল, তা কিছুতেই বুঝতে চাইতেন না তুলসী। তাঁর অভিনয়টাকে কখনওই অভিনয় বলে মনে হতো না। এতটাই ‘প্রপারলি বিহেভ’ করতেন তিনি। জিজ্ঞাসা করতে বলতেন, ‘ওরে, আমি হলাম গিয়ে হেঁশেলবাড়ির হলুদ। ঝালে-ঝোলে-অম্বলে সবেতেই আছি। হাসতে বললে হাসব, কাঁদতে বললে কাঁদব, নাচতে বললে নাচব, দু’কলি গান গেয়ে দিতে বললে তাও পারব। হলুদ যেমন সব ব্যঞ্জনেই লাগে তেমনই আর কী! কিন্তু হলুদের কি নিজস্ব কোনও স্বাদ আছে? তাই আমার এই অভিনয়কে আমি অভিনয় বলি না গো! হ্যাঁ, অভিনেতা ছিলেন বটে আমার গুরু অপরেশ মুখুজ্যে। উনি আমাদের মতো সব গাধাকে পিটিয়ে ঘোড়া বানিয়েছেন। অভিনেতা বললে উনি-ই। অমন আর হবে না!’
বহু রঙ্গমঞ্চের অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনেতা-পরিচালক তথা নাট্যকার অপরেশচন্দ্র মুখোপাধ্যায় যে তুলসী চক্রবর্তীকে অভিনেতা তৈরির পিছনে অবদান রেখেছিনে, এ কথা সত্য। কিন্তু অভিনেতা হওয়ার কথা প্রথম জীবনে ভাবার অবকাশ ছিল না তুলসীর। ছোটবেলাটা খুব এলোমেলোভাবে কেটেছে তাঁর। বাবা আশুতোষ চক্রবর্তী চাকরি করতেন রেলে। কৃষ্ণনগরের গোয়ারি নামে এক ছোট্ট গ্রামে ১৮৯৯ সালের ৩ মার্চ তুলসী চক্রবর্তীর জন্ম হয়। মা নিস্তারিণী দেবী ছিলেন সাধারণ গৃহবধূ। তাই ছোটবেলায় এ গ্রাম-সে গ্রাম ছুটে বেড়িয়েছেন তুলসী। চাকরির প্রয়োজনে তাঁর বাবাকে নানা জায়গায় ঘুরতে হতো। ফলে বালক তুলসীকে জোড়াসাঁকোয় জ্যাঠামশাই প্রসাদ চক্রবর্তীর কাছেই থাকতে হতো অনেক সময়। অল্প বয়সে পিতৃবিয়োগ হওয়ায় পড়াশোনাটাও বেশি দূর চালাতে পারেননি তুলসী। সামান্য যা কিছু শিখেছিলেন, তাও মাঝ পথে বন্ধ করে দিতে হয়। শুরু হয় যাযাবর জীবন।
অপরেশ মুখুজ্যের আগে তুলসী চক্রবর্তীর মাথায় অভিনয়ের পোকাটা নাড়িয়েছিলেন তাঁর জ্যাঠামশাই প্রসাদবাবু। পুরোপুরি অভিনয়ে মনোনিবেশ করার আগে উপার্জনের জন্য নানা কাজ করতে হয়েছে এই অভিনেতাকে। লোকের জন্য মদের চাট তৈরি করা থেকে শুরু করে সার্কাসে জন্তু-জানোয়ার স্নান করানো কী না করেছেন! কিন্তু সে সব পরে।
বাবা মারা যাওয়ার পর জ্যাঠামশাইয়ের আশ্রয়েই পাকাপাকিভাবে থাকতে শুরু করেন তুলসী। প্রসাদবাবুর একটা অর্কেস্ট্রা গ্রুপ ছিল। আর ছিল তাঁর অ্যামেচার ক্লাবে গান-বাজনা-যাত্রা-থিয়েটার। প্রসাদবাবু দিনরাত ওসব নিয়েই পড়ে থাকতেন। কলকাতা শহরে বড়লোকদের বাড়ির পুজোআচ্চায় তাঁর দল গান গাইতে যেত। নাটক করতেন। কলকাতার বাইরেও দলের জন্য বায়না আসত। আর এখান থেকেই প্রাথমিক অভিনয়ের ইচ্ছাটা তাঁর মনে জাগল।
প্রসাদ চক্রবর্তীর অ্যামেচার ক্লাবে অভিনয়ের সুযোগ না পেলেও গান গাওয়ার সুযোগ পেতেন তুলসী। গানের গলাটা মন্দ ছিল না তাঁর। কীর্তন, কবিয়াল, শ্যামাসঙ্গীত— সব ধরনের গান গাইতে পারতেন। মাঝে মাঝে তরজার আসরেও মূল গায়কের সঙ্গী হয়ে নেমে পড়তেন। গান গাওয়ার পাশাপাশি নাচও রপ্ত করে ফেললেন। অভিনয়ের প্রাথমিক পাঠ হয়ে গেল সেখান থেকেই। গিরিশ পার্কের কাছে এক ব্যায়ামাগারে শরীরচর্চাও করতেন নিয়মিত।
কিন্তু সেসব বেশিদিন চলল না। প্রসাদবাবু দারুণ হারমোনিয়াম বাজাতেন। সেই সুবাদে তিনি স্টার থিয়েটারে অর্কেস্ট্রা গ্রুপে চাকরি নিলেন। ক্লাব গেল বন্ধ হয়ে। এদিকে লেখাপড়া বিশেষ জানেন না বলে তুলসী ভালো কোনও কাজ জোটাতে পারলেন না। আবার বসে বসে জ্যাঠামশাইয়ের অন্ন ধ্বংস করতেও মনে বাঁধত।
নিজের পায়ে দাঁড়ানোর অভিপ্রায়ে চিৎপুরে এক চাটের দোকানে চাকরি নিলেন তুলসী। সন্ধেবেলা দোকানে মাতালরা ভিড় করত। মদের সঙ্গে পাঁঠার ভুঁড়ির চচ্চড়ি, কষা মাংস চাট হিসাবে তারা খেত। মাতালদের এঁটো প্লেট ধুয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন পরবর্তীকালে বাংলা ছবির অন্যতম শ্রেষ্ঠ চরিত্রাভিনেতা হয়ে ওঠা তুলসী চক্রবর্তী।
সেই দোকানে হঠাৎই একদিন এসে হাজির হন প্রসাদবাবু। ভাইপোর কাজের ধরন দেখে তো তিনি রেগে এক্কেবারে অগ্নিশর্মা। একটাও কথা না বলে ভাইপোর চুল ধরে হিড় হিড় করে টানতে টানতে বাড়ি নিয়ে গেলেন। রাগে গজগজ করতে করতে বললেন, ‘ব্যাটা, সাবলম্বী হতে চাইছ? তা আর কোনও কাজ জুটল না! বামুনের ছেলে হয়ে মাতালদের এঁটো পরিষ্কার করতে লেগেছ!’ এই বলে তুলসীর মাথায় বসালেন এক রামগাঁট্টা।
এই রামগাঁট্টাই কিছুটা সম্বিত ফেরাল তুলসীর। বাকি খোঁচাটা দিল জাত্যভিমান। তুলসী নিজেই বলে গিয়েছেন, ‘ওই যে জ্যাঠা বললেন, বামুনের ছেলে। তাতেই অনেকটা কাজ হল। আমার আবার বামনাই ব্যাপারটা চিরদিনই একটু বেশি বেশি কিনা।’
(ক্রমশ)
অঙ্কন: সুব্রত মাজী
অলঙ্করণ: বিশ্বনাথ ঘোষ
24th  May, 2020
ভৈরবী মা
সঙ্গীতা দাশগুপ্ত রায়

 ‘নিজে রান্নাবান্না পারেন?’ ‘নাহ, একদম আনাড়ি,’ অর্জুন হাসে। ‘তবে তো এ ব্যবস্থাই বেশ। ওনার ফেরার কোনও ঠিক থাকে না। আপনাকে ন’টায় খেতে দেব তো? আর হ্যাঁ, কোনও অসুবিধা হলে বউদি বলে ডাক দেবেন ভাই।’ একটু আন্তরিকতা ছুঁইয়ে দিয়ে যান মহিলা। বিশদ

24th  May, 2020
অথৈ সাগর
পর্ব ২৫

চলতি বছর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দ্বিশতজন্মবর্ষ। সেই উপলক্ষে মাইলফলক দেখে ইংরেজি সংখ্যা শেখাই হোক বা বিধবা বিবাহ প্রচলনের জন্য তীব্র লড়াই— বিদ্যাসাগরের জীবনের এমনই নানা জানা-অজানা কাহিনী দিয়ে সাজানো এ ধারাবাহিকের ডালি। বিশদ

24th  May, 2020
আজও তারা জ্বলে 

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ জহর রায়- শেষ কিস্তি। 
বিশদ

17th  May, 2020
অথৈ সাগর 
বারিদবরণ ঘোষ

চলতি বছর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দ্বিশতজন্মবর্ষ। সেই উপলক্ষে মাইলফলক দেখে ইংরেজি সংখ্যা শেখাই হোক বা বিধবা বিবাহ প্রচলনের জন্য তীব্র লড়াই— বিদ্যাসাগরের জীবনের এমনই নানা জানা-অজানা কাহিনী দিয়ে সাজানো এ ধারাবাহিকের ডালি। 
বিশদ

17th  May, 2020
ঠুলি 

শুচিস্মিতা দেব: বসন্তের সকাল। আলো-ছায়া মাখা গাছেদের কচি পাতায় সবুজাভা। দোতলার বারান্দা থেকে পাতার আড়ালে লুকিয়ে থাকা অবশিষ্ট দু’চার পিস করবীফুল, ডাল টেনে টেনে সফলভাবে পেড়ে ফেলে নিজের কৃতিত্বে বেশ ডগমগ হয়ে উঠলেন নীপা।  
বিশদ

17th  May, 2020
আজও তারা জ্বলে 
পর্ব-২৩

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ জহর রায়- দ্বাদশ কিস্তি। 
বিশদ

10th  May, 2020
অথৈ সাগর 

চলতি বছর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দ্বিশতজন্মবর্ষ। সেই উপলক্ষে মাইলফলক দেখে ইংরেজি সংখ্যা শেখাই হোক বা বিধবা বিবাহ প্রচলনের জন্য তীব্র লড়াই— বিদ্যাসাগরের জীবনের এমনই নানা জানা-অজানা কাহিনী দিয়ে সাজানো এ ধারাবাহিকের ডালি। 
বিশদ

10th  May, 2020
সুখ চাই 
চিরঞ্জয় চক্রবর্তী 

সুমন আর ভারতীর বিয়ের আজ সাতান্ন বছর পূর্তি। যখন বিয়ে হয়েছিল সুমনের বয়স সাতাশ, ভারতী তেইশ। দেখতে দেখতে ভারতীর আশি, স্বামী-স্ত্রী দুজনেই দীর্ঘদিন সরকারি ভাষায় বরিষ্ঠ নাগরিক।  
বিশদ

10th  May, 2020
আজও তারা জ্বলে
পর্ব-২২ 

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ জহর রায়- একাদশ কিস্তি। 
বিশদ

03rd  May, 2020
জিরাফের গলা 

রজত ঘোষ: দু’দিন হল পঞ্চায়েত ভোটের রেজাল্ট বেরিয়েছে। আজ একটু পরে তাই বিজয় মিছিল বের করবে বিজয়ী দল। টেবিলের মাঝখানে দিস্তাখানেক লিফলেট। তার ওপর একটা পেপার ওয়েট। রাগে ফুঁসতে ফুঁসতে গণেশ এতক্ষণ আঙুলের কায়দায় পেপারওয়েটটাকে ঘোরাচ্ছিল।  
বিশদ

03rd  May, 2020
অথৈ সাগর 

চলতি বছর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দ্বিশতজন্মবর্ষ। সেই উপলক্ষে মাইলফলক দেখে ইংরেজি সংখ্যা শেখাই হোক বা বিধবা বিবাহ প্রচলনের জন্য তীব্র লড়াই— বিদ্যাসাগরের জীবনের এমনই নানা জানা-অজানা কাহিনী দিয়ে সাজানো এ ধারাবাহিকের ডালি। 
বিশদ

03rd  May, 2020
মাছভাজা
শ্যামলী আচার্য

হিতেন্দ্রনাথ সান্যালের কথা শেষ হল না। হয় না। ওঁর সাতচল্লিশ বছরের প্রাচীন জীবনসঙ্গিনী আজ অবধি কোনও বাক্যে সমাপিকা ক্রিয়া ব্যবহার করতে দেননি। একজন সিনিয়র সিটিজেনের বুকে ব্যথার সামান্য আভাসও তাঁকে বিচলিত করল বলে মনে হল না।
বিশদ

26th  April, 2020
 অথৈ সাগর
পর্ব ২১

 চলতি বছর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দ্বিশতজন্মবর্ষ। সেই উপলক্ষে মাইলফলক দেখে ইংরেজি সংখ্যা শেখাই হোক বা বিধবা বিবাহ প্রচলনের জন্য তীব্র লড়াই— বিদ্যাসাগরের জীবনের এমনই নানা জানা-অজানা কাহিনী দিয়ে সাজানো এ ধারাবাহিকের ডালি। বিশদ

26th  April, 2020
আজও তারা জ্বলে
পর্ব-২১

জহর রায়ের কৌতুক নকশার রেকর্ড করত মূলত মেগাফোন কোম্পানি। পরে পলিডোর কোম্পানি কিছু নকশা রেকর্ড করেছিল। ওদের কোম্পানি থেকে ১৯৭২ সালে বেরয় ‘ফাংশন থেকে শ্মশান’। পরের বছর কেতকী দত্তের সঙ্গে ‘সধবার একাদশী’।
বিশদ

26th  April, 2020
একনজরে
অলকাভ নিয়োগী, বর্ধমান: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে যখন গোটা রাজ্য আতঙ্কিত, তখন ‘মড়ার উপর খাড়ার ঘা’য়ের মতো ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করে দিয়ে গিয়েছে সুপার সাইক্লোন উম-পুন। ...

সংবাদদাতা, দিনহাটা: করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে এবার আইসোলেশন ওয়ার্ড চালুর উদ্যোগ নিল কোচবিহার জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর। জুন মাসের মধ্যেই ১৫-২০টি বেডের আইসোলেশন ওয়ার্ড করা হবে।   ...

  নয়াদিল্লি, ২৮ মে: কর্মীরা করোনায় আক্রান্ত হয়ে পড়ায় তামিলনাড়ুতে উৎপাদন কেন্দ্র বন্ধ করল মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা নোকিয়া। তামিলনাড়ুর শ্রীপেরুম্বুদুরের ওই প্ল্যান্টে গত সপ্তাহ থেকেই কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: সরকারি হিসেবে সুন্দরবনের ৩ হাজার ৯৯১ কিলোমিটার জঙ্গল কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তার মধ্যে প্রায় ৪৫ শতাংশ বাদাবন ধ্বংস করে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যায় সাফল্যও হতাশা দুই বর্তমান। নতুন প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠবে। কর্মপ্রার্থীদের শুভ যোগ আছে। কর্মক্ষেত্রের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৬৫—প্রবাসী, মডার্ন রিভিউয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম।
১৯৫৩—প্রথম এভারেস্ট শৃঙ্গ জয় করলেন তেনজিং নোরগে এবং এডমন্ড হিলারি
১৯৫৪—অভিনেতা পঙ্কজ কাপুরের জন্ম।
১৯৭২—অভিনেতা পৃথ্বীরাজ কাপুরের মৃত্যু।
১৯৭৭—ভাষাবিদ সুনীতি চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু।
১৯৮৭—ভারতের পঞ্চম প্রধানমন্ত্রী চৌধুরি চরণ সিংয়ের মৃত্যু।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৫.০১ টাকা ৭৬.৭৩ টাকা
পাউন্ড ৯১.৩২ টাকা ৯৪.৫৭ টাকা
ইউরো ৮১.৯৯ টাকা ৮৫.০৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৯ মে ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী ৪২/২৯ রাত্রি ৯/৫৬। অশ্লেষানক্ষত্র ৫/৫ দিবা ৬/৫৮। সূর্যোদয় ৪/৫৬/৬, সূর্যাস্ত ৬/১১/৫৫। অমৃতযোগ দিবা ১২/০ গতে ২/৩৯ মধ্যে। রাত্রি ৮/২১ মধ্যে পুনঃ ১২/৩৮ গতে ২/৪৭ মধ্যে পুনঃ ৩/৩০ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/১৫ গতে ১১/৩৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫২ গতে ১০/১৩ মধ্যে।
১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৯ মে ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী রাত্রি ৭/৩। মঘানক্ষত্র রাত্রি ৩/৩৬। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৪। অমৃতযোগ দিবা ১২/৪ গতে ২/৪৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/২৭ মধ্যে ও ১২/৪০ গতে ২/৪৮ মধ্যে ও ৩/৩০ গতে ৪/৫৬ মধ্যে। বারবেলা ৮/১৫ গতে ১১/৩৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫৪ গতে ১০/১৪ মধ্যে।
৫ শওয়াল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
 ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে পড়ুয়াদের আনা হবে: পার্থ
একদিনে সব পড়ুয়া নয়। ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে তাদের স্কুলে আনা হবে। স্কুল ...বিশদ

10:13:36 AM

কেরলে আরও এক করোনা রোগীর মৃত্যু
কেরলে মৃত্যু হল আরও এক বৃদ্ধ করোনা রোগীর। বয়স ...বিশদ

10:11:20 AM

প্রয়াত বিশ্বের প্রবীণতম ব্যক্তি
প্রয়াত বিশ্বের প্রবীণতম ব্যক্তি বব ওয়েটন। বয়স হয়েছিল ১১২ বছর। ...বিশদ

10:07:43 AM

 এবার বাড়তে পারে চায়ের দাম
 দেশের বাজারে চায়ের দাম কেজি প্রতি ৬০ থেকে ৭০ টাকা ...বিশদ

09:39:29 AM

দক্ষিণ দমদমে মিউটেশন ফি বৃদ্ধি করার সম্ভাবনা 
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনের জেরে আয় কমায় এবার বিল্ডিং প্ল্যান ...বিশদ

09:30:00 AM

বুদ্ধগয়া বিস্ফোরণ কাণ্ডের আরও এক অভিযুক্ত গ্রেপ্তার
বুদ্ধগয়া বিস্ফোরণ কাণ্ডের আরও এক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হল। আব্দুল ...বিশদ

09:29:00 AM