Bartaman Patrika
গল্পের পাতা
 

পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
দেবী সপ্তশৃঙ্গী, পর্ব-২৬
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়  

সহ্যাদ্রি পর্বতে দেবী সপ্তশৃঙ্গীর বাস। তাই এবারে আসা যাক সহ্যাদ্রি পর্বতমালার বুকে নাসিকের সপ্তশৃঙ্গীতে। এর উচ্চতা ৫ হাজার ২৫০ ফুট। কাজেই স্থানটি শীতল ও রমণীয়।
এই তীর্থদর্শনে এলে প্রথমেই আসতে হবে নাসিকে। সত্যযুগে ভগবান ব্রহ্মা এই নাসিকে পদ্মাসনে বসে সৃষ্টি চিন্তা করেছিলেন, তাই এর নাম ‘পদ্মনগর’। ত্রেতাযুগে ঘন অরণ্য পরিবেষ্টিত এই নাসিকে খর, দূষণ এবং ত্রিশির নামক রাক্ষসের বিচরণ ভূমি ছিল, তাই এর নাম হয়েছিল ‘ত্রিকণ্টক’। জনকরাজা এখানে অনেক যজ্ঞ করেছিলেন বলে দ্বাপরে এর নাম হয়েছিল ‘জনস্থান’। কিন্তু কলিযুগের মানুষের কাছে লক্ষ্মণ কর্তৃক শূর্পণখার নাসিকা ছেদন কারণে এই স্থান নাসিক নামেই পরিচিত।
নাসিকে এসে আমি পঞ্চবটীতে সিন্ধানিয়া ধর্মশালায় উঠেছিলাম। নাসিক এবং পঞ্চবটী একই শহর হলেও গোদাবরী নদী এই শহরটিকে দু’ভাগে ভাগ করেছে। গোদাবরীতে স্নান ও সপ্তশৃঙ্গী দর্শনের অভিলাষে এই শহরে আমি দু’বার এসেছিলাম।
ধর্মশালার খুব কাছেই বাস স্ট্যান্ড। সেখান থেকে সপ্তশৃঙ্গী যাওয়ার বাস পাওয়া যায়। সেই বাস অবশ্য সপ্তশৃঙ্গী যায় না। এই বাসে নান্দুরি পর্যন্ত গিয়ে বাস বদল করতে হয়। ভাগ্য ভালো যে স্ট্যান্ডে যাওয়ামাত্রই সিবিএসের একটি বাস পাওয়া গেল।
মিনিট পাঁচেকের মধ্যেই ছাড়ল বাস। পথের দূরত্ব ৪৮ কিমি। পথে দিন্দুরি ও ওনি নামে দু’জায়গায় বাস থামল। তারপর ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই পৌঁছে গেলাম চানবরগাঁও তালুকের সপ্তশৃঙ্গীর পাদদেশে নান্দুরিতে। সেখান থেকে অন্য বাসে সপ্তশৃঙ্গী।
প্রথমেই এখানকার একটি ধর্মশালায় আশ্রয় নিলাম। ঘন পর্বতমালায় শোভিত এই পুণ্যক্ষেত্রে এসে আনন্দে নন্দিত হয়ে উঠলাম। এবার যাত্রীসাধারণের জ্ঞানার্থে বলি, আমি কিন্তু নান্দুরি থেকে সরাসরি বাসে আসিনি। এসেছিলাম এক দুর্গম পন্থায় রোদনতুণ্ড হয়ে। পরবর্তীকালে বাসে এসেছিলাম। আমারই লেখা দশমাতৃকা তীর্থে এই ব্যাপারে বিশদ আছে।
যাই হোক, ধর্মশালাকে ঘিরে সমস্ত মন্দির প্রাঙ্গণ পূজাসামগ্রী ও অন্যান্য দোকানপত্তরে ঘেরা। এই জায়গা থেকে আরও উচ্চস্থানে দেবীর গুহামন্দির। মন্দিরে ওঠার সিঁড়ির মুখে তোরণ। একটি বিশাল শৃঙ্গ এখানে দেওয়ালের মতো খাড়া। তারই এক চতুর্থাংশ উচ্চতায় দেবীর মন্দির। সেই পর্বতগাত্রে অসংখ্য গুহা। সেই গুহায় পেচক ও অন্যান্য নিশাচর পক্ষীদের বাস। এখানে মায়ের মন্দির পর্যন্ত লোহার রেলিং দিয়ে ঘেরা সিঁড়ির ব্যবস্থা আছে। পেশোয়ার সর্দার খাণ্ডেরাও দাবাড়ের স্ত্রী উমাবাঈ দাবাড়ে ৪৭২টি ধাপযুক্ত এই সিঁড়ি ১৭১০ সালে তৈরি করে দিয়েছিলেন।
আমি দর্শনের জন্য শুদ্ধবস্ত্রে পূজার ডালি নিয়ে সিঁড়িভাঙা শুরু করলাম। খানিক ওঠার পর ‘রাম কা টপ্পা’ পড়ল। কথিত আছে, রামচন্দ্র বনবাস কালে লক্ষ্মণ ও সীতা সহ সপ্তশৃঙ্গী দর্শনে এসে এখানে বিশ্রাম করেছিলেন। ‘রাম কা টপ্পা’ পেরিয়ে যখন মূল মন্দিরে গেলাম তখনই দর্শন মিলল সপ্তশৃঙ্গী দেবীর। একটি ১৮ ফুট গুহাকে কেন্দ্র করে এই মন্দির। মন্দিরের ভেতর ৮ ফুট উঁচু দেবীর মূর্তি। রণসজ্জায় সজ্জিতা দেবী বামদিকে ঘাড় কাত করে আছেন। শান্ত সিঁদুর রঞ্জিত মূর্তি তাঁর। রক্তবর্ণ চোখ। আঠারোভুজা দেবী। তাঁর দক্ষিণ হস্তে মণিমালা, পদ্ম, বাণ, তরবারি, বজ্র, চক্র, ত্রিশূল ও কুড়ুল। বাম হস্তে শঙ্খ, ঘণ্টা, পাশা, গদা, দণ্ড, ঢাল, ধনুক, পানপাত্র ও কমণ্ডলু।
ভাগ্যক্রমে আমি গিয়ে পড়েছিলাম দেবীর অভিষেক মুহূর্তে। এখানকার পাণ্ডারা খুব ভালো। বিশেষ করে বাঙালি যাত্রী দেখে খুব খুশি। নাটমন্দিরে তখন অনক যাত্রী বসে আছেন। পাণ্ডারা আমাকে সকলের সামনের সারিতে বসিয়ে দিলেন।
অভিষেক পর্ব আরম্ভ হল। দীর্ঘ এক ঘণ্টা ধরে চলল সেই অভিষেক পর্ব। প্রথমে জল দিয়ে দেবীর মুখ প্রক্ষালন। তারপর দুধে স্নান। এবার দেবীর সর্বাঙ্গে দধি মর্দন করে রাশি রাশি ঘি, মধু, এবং চিনি লেপন করা হল। তারপর ঘড়া ঘড়া জলে দেবীর স্নান। এরও পরে দুটি বালতিতে মেটেসিঁদুর গুলে দেবীর সর্বাঙ্গে মাখাতে লাগলেন পাণ্ডারা। পরে কাজল দিয়ে চোখ এঁকে চক্ষুদান করানো হল। সব শেষে বস্ত্র পরিধান।
এবার মন্ত্রধ্বনি সহকারে শুরু হল আরতি। আরতির পর পুজোপাঠ ও প্রসাদ বিতরণ।
এবার সপ্তশৃঙ্গী দেবীর একটু পরিচয় দেওয়া যাক। ইনিও ৫২ পীঠের অন্তর্গত এক দেবী। তবে সতীদেহের কোন অংশটি এখানে পড়েছিল তা সঠিকভাবে কেউ বলতে পারলেন না। দেবী ভাগবতে আছে সপ্তশৃঙ্গী মহারাষ্ট্রের সাড়ে তিন পীঠের এক দেবী। সপ্তশৃঙ্গী সাড়ে তিন পীঠের অর্ধপীঠ। ইনিও ত্রিগুণাত্মিকা দেবী।
এই অঞ্চলে সহ্যাদ্রি শিখরে সাতটি শৃঙ্গ। এগুলি ভীষণাকৃতি ও অসম সদৃশ। তার কারণ হনুমান যখন গন্ধমাদনকে বয়ে নিয়ে যান তখন সেই পাহাড়ের বিশাল বিশাল অংশগুলির এক একটি অংশ সহ্যাদ্রি পর্বতের সাতটি স্থানে পড়ে। তাই এই পাহাড়ের সাতটি শৃঙ্গ। এই সাতটি শিখরে সাত দেবী আছেন। তাঁদের বলা হয় সপ্ত দুর্গা। যেমন— ইন্দ্রাণী, কার্তিকেয়ী, বারাহী, বৈষ্ণবী, শিবা, চামুণ্ডী ও ন্যায়সিংহী। এই সাত দেবীর অনুরোধে সপ্তশৃঙ্গী এই পর্বতের সর্বোচ্চ শিখরে বিরাজ করছেন।
মার্কণ্ডেয় মুনি এই পর্বতেই তপস্যা করতেন। তিনিই স্বপ্নাদেশে দেবীকে এখানে প্রতিষ্ঠা করেন। সপ্তশৃঙ্গী হলেন দেবী চণ্ডিকার অন্য রূপ। মহিষাসুর বধের সংবাদ পেয়ে ভীমাসুর পাতাল ফুঁড়ে বেরিয়ে এসে এখানে প্রচণ্ড উপদ্রব শুরু করলে দেবী আঠারোভুজা হয়ে এখানেই তাকে বধ করেন।
কালক্রমে মার্কণ্ডেয় মুনির স্থাপনা করা এই মূর্তিটি জঙ্গলের গভীরে ঢাকা পড়ে যায়। বহুকাল পরে একবার এক মেষপালক মেষ চরাতে এসে এই পাহাড়ের বিশাল গুহায় একটি মৌচাক দেখে লুব্ধ হয়। একদিন গোপনে একাকী সেটি ভাঙতে এসেই চক্ষুস্থির। দেখল মৌচাক থেকে মধুর বদলে গল গল করে গোলা সিঁদুর বেরিয়ে আসছে। তাই দেখে সে ভয়ে পালিয়ে এসে গ্রামে খবর দেয়। মেষপালকের কথা শুনে গ্রামবাসীরা এসে মৌমাছি সরিয়ে চাক ভাঙতেই বেরিয়ে পড়ল দেবীর মূর্তি। গ্রামবাসীরা সবাই জানতেন সপ্তশৃঙ্গীর কথা। কিন্তু দেবী ঠিক কোনখানে অবস্থান করছেন তা কেউ জানতেন না। এবার মূর্তি আবিষ্কারের পর থেকেই শুরু হল নিয়ম করে সপ্তশৃঙ্গী দেবীর পূজার্চনা। এখন আমরা দলে দলে সেই দেবীকে দর্শন করে ধন্য হচ্ছি।
(ক্রমশ)
অলংকরণ : সোমনাথ পাল 
01st  September, 2019
ব্লাড
শুদ্ধসত্ত্ব ঘোষ

 হ্যাঁ, ব্লাড ব্যাঙ্কেরও রক্ত লাগে। আর হাজারে হাজারে লোক রক্ত দিয়ে ব্লাড ব্যাঙ্ক ভরিয়ে দেয়, তেমনটাও মোটে নয়। কিন্তু সে তো দেয়। তার পরিবার দেয়। অনেকদিন হল। সারা বছরে খেপে খেপে দেয়। গ্রীষ্মে যখন প্রবল সঙ্কট, তখন সরাসরি ব্যাঙ্কে গিয়েও দিয়ে এসেছে। তাহলে? বিশদ

09th  August, 2020
চলার পথে
তিলের নাড়ু

জীবনের প্রধান ও মুখ্য ঘটনাগুলিই কেবল মনে থাকার কথা। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যায় স্মৃতির অতলে অনেক তুচ্ছ ক্ষুদ্র ঘটনাও কেমন করে বেশ বড় হয়ে জাঁকিয়ে বসে রয়েছে। সাহিত্যিকদের ‘ভবঘুরে’ জীবনের তেমনই নানা ঘটনা উঠে এল কলমের আঁচড়ে। আজ লিখছেন রতনতনু ঘাটী।
বিশদ

09th  August, 2020
আজও তারা জ্বলে

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ মলিনা দেবী। দ্বিতীয় কিস্তি।
বিশদ

09th  August, 2020
আজও তারা জ্বলে 

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ মলিনা দেবী। প্রথম কিস্তি। 
বিশদ

02nd  August, 2020
স্মৃতিময় 

জীবনের প্রধান ও মুখ্য ঘটনাগুলিই কেবল মনে থাকার কথা। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যায় স্মৃতির অতলে অনেক তুচ্ছ ক্ষুদ্র ঘটনাও কেমন করে বেশ বড় হয়ে জাঁকিয়ে বসে রয়েছে। সাহিত্যিকদের ‘ভবঘুরে’ জীবনের তেমনই নানা ঘটনা উঠে এল কলমের আঁচড়ে। আজ লিখছেন ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়। 
বিশদ

02nd  August, 2020
বাঘের ডেরায়

জীবনের প্রধান ও মুখ্য ঘটনাগুলিই কেবল মনে থাকার কথা। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যায় স্মৃতির অতলে অনেক তুচ্ছ ক্ষুদ্র ঘটনাও কেমন করে বেশ বড় হয়ে জাঁকিয়ে বসে রয়েছে। সাহিত্যিকদের ‘ভবঘুরে’ জীবনের তেমনই নানা ঘটনা উঠে এল কলমের আঁচড়ে। আজ লিখছেন তপন বন্দ্যোপাধ্যায়। বিশদ

26th  July, 2020
আজও তারা জ্বলে
পর্ব- ৩৩ 

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ তুলসী চক্রবর্তী। শেষ কিস্তি।  বিশদ

26th  July, 2020
আজও তারা জ্বলে
পর্ব ৩২

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ তুলসী চক্রবর্তী। অষ্টম কিস্তি।
বিশদ

19th  July, 2020
একটি নয়, দু’টি দিন 

জীবনের প্রধান ও মুখ্য ঘটনাগুলিই কেবল মনে থাকার কথা। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যায় স্মৃতির অতলে অনেক তুচ্ছ ক্ষুদ্র ঘটনাও কেমন করে বেশ বড় হয়ে জাঁকিয়ে বসে রয়েছে। সাহিত্যিকদের ‘ভবঘুরে’ জীবনের তেমনই নানা ঘটনা উঠে এল কলমের আঁচড়ে। আজ লিখছেন মৃদুল দাশগুপ্ত। 
বিশদ

19th  July, 2020
কাছিম 
সৌরভ মিত্র

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। জীববিজ্ঞান ও জলবায়ু-বিজ্ঞান বিভাগের যৌথ উদ্যোগে আন্তর্জাতিক সম্মেলন। এর আগে তিতিরের বেশ কিছু গবেষণাপত্র এখানে-ওখানে প্রকাশ পেলেও এত বড় মঞ্চে এই প্রথম। এক সপ্তাহের সম্মেলন, আজ চতুর্থ দিন। 
বিশদ

19th  July, 2020
 মার্কেনের ঘোড়া
পাপিয়া ভট্টাচার্য

‘এখন বাজে বারোটা চল্লিশ, আর তুমি বলছ যে তুমি এরপর লাইটহাউসে যাবে আর সব দেখে ফিরবে, তাও হেঁটে?’ ড্রিক একটা লাল বল লোফালুফি করতে করতে বলল। গাঢ় নীল শার্টের উপর একটা লাল জ্যাকেট আর কোমরের নীচে একটা নীল স্ট্রাইপ দেওয়া বড় গাউনের মত পোশাক পরা রূপবান ড্রিককে দেখে মনে হচ্ছে ইতিহাসের পাতা থেকে উঠে আসা কোনও রাজবংশীয় কিশোর।
বিশদ

12th  July, 2020
 আজও তারা জ্বলে
পর্ব- ৩১

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ তুলসী চক্রবর্তী। সপ্তম কিস্তি।
বিশদ

12th  July, 2020
চলার পথে
অপমানেও গৌরব

 জীবনের প্রধান ও মুখ্য ঘটনাগুলিই কেবল মনে থাকার কথা। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যায় স্মৃতির অতলে অনেক তুচ্ছ ক্ষুদ্র ঘটনাও কেমন করে বেশ বড় হয়ে জাঁকিয়ে বসে রয়েছে। সাহিত্যিকদের ‘ভবঘুরে’ জীবনের তেমনই নানা ঘটনা উঠে এল কলমের আঁচড়ে। আজ লিখছেন বাণীব্রত চক্রবর্তী ।
বিশদ

12th  July, 2020
আজও তারা জ্বলে 

বাংলা ছবির দিকপাল চরিত্রাভিনেতারা একেকটা শৈল্পিক আঁচড়ে বঙ্গজীবনে নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অভিনয় ছিল তাঁদের শরীরে, মননে, আত্মায়। তাঁদের জীবনেও ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক অমূল্য রতন। তাঁরই খোঁজে সন্দীপ রায়চৌধুরী। আজ তুলসী চক্রবর্তী। ষষ্ঠ কিস্তি।
বিশদ

05th  July, 2020
একনজরে
ওড়িশার সেই লাল গাঁজা এখান থেকে ম্যাটাডর, ছোট গাড়িতে লোড হয়ে চলে যাচ্ছে বিহার, উত্তরপ্রদেশের মতো ভিন রাজ্যে। ...

 পুজোর আগে কাজের চাপে স্নান-খাওয়ার সময় থাকত না জাঙ্গিপাড়া, রাজবলহাট সহ বিস্তীর্ণ অঞ্চলের তাঁতশিল্পীদের। করোনার কোপে তাঁরা আজ কাজ হারিয়ে কেউ রাজমিস্ত্রির জোগাড়ে, কেউবা ফেরিওয়ালা। ...

 কলকাতার নামীদামি, সরকারি-বেসরকারি অন্তত ১৭টি হাসপাতাল তাদের বর্জ্য পদার্থ (বায়ো-মেডিক্যাল ওয়েস্ট) নিয়ম মেনে সরাচ্ছে না। এমনকী তরল বর্জ্য পরিশোধনেও ব্যাপক গাফিলতি রয়েছে। ...

 পেটে দানাপানি নেই। সঙ্গে দোসর টানা হাঁটার নিদারুণ ক্লান্তি। প্রবল গরমে ফলস্বরূপ রাস্তায় ঘটেছে একাধিক মৃত্যুর ঘটনা। কিন্তু ঠিক কত পরিযায়ী শ্রমিক এভাবে শয়ে শয়ে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মরতদের উপার্জন বৃদ্ধি পাবে। শরীর-স্বাস্থ্য ভালোই যাবে। পেশাগত পরিবর্তন ঘটতে পারে। শিল্পী কলাকুশলীদের ক্ষেত্রে শুভ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব হাতি দিবস
১৮৪৮: সাহিত্যিক তথা ঐতিহাসিক রমেশচন্দ্র দত্তর জন্ম
১৮৮৮: টেলিভিশনের আবিস্কারক জন বেয়ার্ডের জন্ম
১৮৯৯: ইংরেজ পরিচালক স্যার আলফ্রেড হিচককের জন্ম
১৯১০: আধুনিক নার্সিং সেবার অগ্রদূত ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের মৃত্যু
১৯১১: সমাজসেবিকা ও রাজনীতিবিদ ড.ফুলরেণু গুহর জন্ম
১৯২৬: কিউবার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ফিদেল কাস্ত্রোর জন্ম
১৯৩২: পণ্ডিত, সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ কৃষ্ণকমল ভট্টাচার্যর মৃত্যু
১৯৩৩: অভিনেত্রী বৈজয়ন্তীমালার জন্ম
১৯৩৬: স্বাধীনতা সংগ্রামী ভারতের বিপ্লববাদের জননী হিসাবে পরিচিতা মাদাম কামার মৃত্যু ।
১৯৪৬: ইংরেজ সাহিত্যিক এইচ জি ওয়েলেসের মৃত্যু
১৯৬৩: অভিনেত্রী শ্রীদেবীর জন্ম
১৯৭৫: পাক ক্রিকেটার শোয়েব আখতারের জন্ম
১৯৮৭: অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
২০১৮: রাজনীতিবিদ তথা প্রাক্তন লোকসভার অধ্যক্ষ সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৯৪ টাকা ৭৫.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯৫.৭৫ টাকা ৯৯.১৪ টাকা
ইউরো ৮৬.১০ টাকা ৮৯.২৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৩,৩১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫০,৫৮০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫১,৩৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, নবমী ১৯/১৬ দিবা ১২/৫৯। রোহিণীনক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৫/১৬/২৬, সূর্যাস্ত ৬/৬/২৩। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৯ গতে ৩/৩ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ১০/২৪ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। বারবেলা ২/৫৪ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪২ গতে ১/৫ মধ্যে।
২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, নবমী দিবা ৯/৪৫। রোহিণীনক্ষত্র রাত্রি ৩/২৫। সূর্যোদয় ৫/১৫, সূর্যাস্ত ৬/৯। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৩ গতে ৩/৩ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৭/১ মধ্যে ও ১০/২২ গতে ১২/৫২ মধ্যে। কালবেলা ২/৫৬ গতে ৬/৫৯ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৪২ গতে ১/৬ মধ্যে।
 ২২ জেলহজ্জ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
২৪ ঘণ্টায় বাংলায় করোনা আক্রান্ত ২,৯৯৭
গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২,৯৯৭ জনের শরীরে মিলল করোনা ভাইরাসের ...বিশদ

09:45:41 PM

মুম্বইয়ে বাড়ির একাংশ ভেঙে মৃত ১, জখম ৪
মুম্বইয়ে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল একটি বাড়ির একাংশ। ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ...বিশদ

07:38:59 PM

প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নয়া রেকর্ড মোদির
অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দিন মসনদে থাকার রেকর্ড গড়লেন ...বিশদ

07:34:00 PM

তামিলনাড়ুতে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৫,৮৩৫ 
তামিলনাড়ুতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫,৮৩৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু ...বিশদ

06:51:17 PM

মেডিক্যাল কলেজে ট্রলি থেকে করোনা রোগীর মৃতদেহ আছড়ে পড়ল রাস্তায়
হাসপাতালে ট্রলি করে নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তায় আছড়ে পড়ল ...বিশদ

05:57:00 PM

করোনা: কোন কোন দেশ বেশি আক্রান্ত? 
করোনায় আক্রান্তের বিচারে তালিকায় শীর্ষে রয়েছে আমেরিকা। এদেশে করোনায় আক্রান্ত ...বিশদ

03:45:28 PM