Bartaman Patrika
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 

রবির মানিক 

শ্রীকান্ত আচার্য: অতীতে কলকাতায় বরাবরই ঠাকুর পরিবার এবং রায়চৌধুরী পরিবার, সব দিক থেকে অত্যন্ত সমৃদ্ধ ছিল। তা সে জ্ঞানের পরিধি বলুন বা সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডল—সব ক্ষেত্রেই এই দুই পরিবার উন্নত করেছে বাংলাকে। উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরীর জন্ম ১৮৬৩ সালে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের চেয়ে দু’বছরের ছোট। ব্রাহ্মসমাজ এই দুই ব্যক্তিত্বের যোগাযোগের ক্ষেত্রে বড় মাধ্যম হয়ে উঠেছিল। উপেন্দ্রকিশোর নিজে ব্রাহ্মধর্ম গ্রহণ করেছিলেন। ব্রহ্মসঙ্গীতের সঙ্গে তাঁর বেহালা বাজানোর কথা অনেকেই শুনে থাকবেন।
একইভাবে বয়সে ছোট সুকুমার রায়কে অসম্ভব স্নেহ করতেন রবীন্দ্রনাথ। সুকুমারও দারুণ শ্রদ্ধা করতেন রবি ঠাকুরকে। কবিগুরু যখন গীতাঞ্জলির ইংরেজি অনুবাদ নিয়ে ইংল্যান্ডে, তখন প্রিন্টিং টেকনোলজি পড়ার জন্য সুকুমারও সেখানেই। দু’জনে দু’জনের সান্নিধ্যে তো অবশ্যই ছিলেন। রবি যখন রোডেনস্টাইন এবং পিয়ার্সনের মতো ব্যক্তিদের সাহচর্যে, তখন তাঁর ‘যুবক বন্ধু’ (সুকুমারের প্রয়াণের পরে শান্তিনিকেতনে ‘আমার যুবক বন্ধু’ নামে বক্তৃতা দিয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ স্বয়ং) সুকুমারও ছায়াসঙ্গীর মতো কবির সঙ্গে ছিলেন।
বয়সে ছোট প্রতিভাবান সুকুমার যখন মৃত্যুশয্যায়, ছুটে যান কবিগুরু। রবীন্দ্রসঙ্গীতের চিরকালের অনুরাগী সুকুমার তখন তাঁর কাছে শুনতে চেয়েছিলেন, ‘দুঃখ এ নয়, সুখ এ যে গো...’ গানটি। এত আগে লেখা গানটির সুর নিজেরই আর মনে ছিল না রবীন্দ্রনাথের। তিনি প্রথমে বলেছিলেন, ‘তুমি তো আমায় বিপদে ফেললে।’ তারপর আর কিছু না বলে মিনিট পাঁচেকের জন্য বাইরে চলে যান প্রবীণ কবি। ওইটুকু সময়ে গানটির নতুন সুর বেঁধে ফিরে এসে সুকুমারকে শোনান তিনি, একবার নয়... পরপর দু’বার। এহেন স্নেহের পাত্রকে রবীন্দ্রনাথ সব সময়ের জন্য মনের মণিকোঠায় রেখে দিয়েছিলেন।
এই সূত্রে বলি, রবীন্দ্রনাথের প্ল্যানচেট করার নেশার কথা অনেকেই হয়তো শুনে থাকবেন। সুকুমার রায়কে এতটাই ভালবাসতেন যে, তাঁকে প্ল্যানচেটে কাছে ডাকার কথা ভেবেছিলেন তিনি। সে ঘটনা যখন সত্যিই ঘটে, কবি জানান, সুকুমার তাঁকে এসে অনুরোধ করেছেন, “আপনি আমার ছেলেকে আপনার আশ্রমে নিতে পারেন?” পরবর্তীকালে তেমনটা ঘটতে দেরিও হয়নি। সুকুমার-জায়া সুপ্রভা সত্যজিৎকে নিয়ে এসেছিলেন কবিগুরুর কাছে।
সেই কলাভবন থেকে শুরু হয় মানিকের চিত্রকলা, সঙ্গীত ও আরও অন্যান্য বিষয়ের অদম্য আগ্রহ। নন্দলাল বসু, বিনোদবিহারী মুখোপাধ্যায়ের পাশাপাশি ঠাকুরবাড়ির শ্রেষ্ঠ মনীষীর সঙ্গেও সত্যজিতের নৈকট্য তৈরি হয়ে যায়। যা থেকে বিশ্ববরেণ্য চলচ্চিত্রকারের নান্দনিকতার ধারণার মূলটিই একেবারে অন্য ধারায় চালিত হতে শুরু করেছিল। এই যোগাযোগের সামগ্রিক প্রভাবটা ভালো রকমের অনুভূত হয়েছিল সুকুমার-পুত্রের উপরে। তার সঙ্গে সত্যজিতের শান্তিনিকেতনে পড়াশোনা যে সেই যোগাযোগকে আরও দৃঢ় করেছিল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।
আসা যাক রবীন্দ্রনাথের গল্প নিয়ে তৈরি সত্যজিতের ছবির কথায়। আমার মতে, এই ক্ষেত্রে পরিচালকের সেরা ছবি ‘নষ্টনীড়’ অবলম্বনে তৈরি ‘চারুলতা।’ সত্যজিৎ নিজেও বেশ কিছু সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “যদি চারুলতা ফের বানাতে হয়, একইভাবে বানাব।” ছবিটা তাঁকে এতটাই তৃপ্ত করেছিল। এবার দেখা যাক, এই ছবিতে রবীন্দ্রসঙ্গীতের ব্যবহার কীভাবে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছে ছবিটিকে।
‘চারুলতা’ শুরু হচ্ছে যখন, স্ক্রিনজুড়ে আমরা দেখতে পাই সেলাইয়ের নকশা তোলা হচ্ছে সূচে। ভূপতির নামের আদ্যক্ষর ইংরেজিতে বি—দু’টি সালঙ্কারা হাত সুতোয় বুনছে। ব্যাকগ্রাউন্ডে বাজছে ‘মম চিত্তে নিতি নৃত্যের’ সুর। ভাবুন, যে গানের কথায় আছে, ‘দিবারাত্রি নাচে মুক্তি নাচে বন্ধ...’ সেই গান দিয়ে শুরু হচ্ছে ‘চারুলতা।’ যা এক কথায় চারুর জীবনকেই তুলে ধরে। যে গৃহবধূর নিস্তরঙ্গ জীবনে তাকে সময় দিয়ে উঠতে পারে না তার ব্যস্ত স্বামী ভূপতি, সেই শূন্যতায় ঢুকে পড়ে অমল। সম্পর্কের এই টানাপোড়েনের গল্পে শেষটায় ভূপতি বোঝে, চারুর প্রতি তাঁর অবহেলার কথা। কেন চারু অমলে অনুরক্ত, স্পষ্ট হয়ে যায় তার কাছে। সে ফিরে আসতে চায়, কিন্তু রয়ে যায় একরাশ দ্বিধা। সেই সংসার কি ছন্দে ফিরল? নষ্ট নীড় কি অটুট রইল? এই প্রশ্ন রেখেই শেষ হয় ছবি।
চারু অসম্ভব সেনসিটিভ মহিলা। সে ভাষায় সব প্রকাশ করে না। কম কথা বলে। মনের ভাব সুপ্ত রাখে। শরীরী ভাষা অনেক কিছু বলে দেয়। ছবি শেষ হওয়ার পরে টাইটল মিউজিকের সঙ্গে সংযোগটা আরও স্পষ্ট হয়। চারু সেভাবে ভালবাসা ব্যক্ত করার সুযোগ পায়নি, অমল আসার পরে তার সেই পরিবর্তন ঘটে। তাই ‘নাচে মুক্তি নাচে বন্ধ...।’ মনের এই দ্বন্দ্ব বোঝাতে আর কিছু কি আইডিয়াল হতে পারত?
একইভাবে ধরা যাক এ ছবিতে ব্যবহৃত ‘চিনি গো চিনি তোমারে, ও গো বিদেশিনী...’ গানটির কথা। কিশোর কুমারের গলায় গানটি তো অনবদ্যই। তার সঙ্গে যে যন্ত্রানুষঙ্গ ব্যবহার করেছেন সত্যজিৎ, তারও কোনও তুলনা হয় না। একদিকে বেহালা, একদিকে পিয়ানো। ছবিতে অমল গাইতে গাইতে যেন চারুকে দোলাচলে রাখছে। চারুও অমলের প্রতি ভালবাসা ব্যক্ত করবে কি না, এমনটা ভাবতে ভাবতে যেন সামলে নিচ্ছে নিজেকে। ‘...ভুবন ভ্রমিয়া শেষে, আমি এসেছি নূতন দেশে, আমি অতিথি তোমারই দ্বারে, ও গো বিদেশিনী...।’ যা শুনে দু’হাত দিয়ে লজ্জায় মুখ ঢাকছে চারু। আবার আঙুল সরিয়ে তাকাচ্ছে অমলের দিকে। চারুর মনের এই হিল্লোল যন্ত্রানুষঙ্গে সুন্দর ধরা পড়েছে। এখানেই সত্যজিতের মাস্টারস্ট্রোক! এটা উনি ছাড়া কেউ ভাবতেই পারবেন না। আমার এই অদ্ভুত ব্যবহার ভালো লাগে। এই যে, চারু-অমলের সম্পর্ক চেহারা পাচ্ছে, আবার পাচ্ছে না। ছবির সেরা দৃশ্য যেন লুকিয়ে রয়েছে ‘ও গো বিদেশিনী...’ গানের চিত্রায়ণেই।
আরও একটি গানের কথা মনে পড়ছে। ‘তিনকন্যা’র ‘মণিহারা’য় রুমা গুহঠাকুরতার গলায় ‘বাজে করুণ সুরে...।’ যা ব্যক্তিগতভাবেও আমার খুব ভালো লাগে। গানটির যে রেন্ডিশন্ শোনা গিয়েছে... আমার মতে, তা অসামান্য। ছবিটিতে ‘হরর’-এর সঙ্গে ‘প্যাথোস’-এর দারুণ মিশ্রণ আমাদের মুগ্ধ করে। ‘মণিহারা’য় স্বামী কালী বন্দ্যোপাধ্যায় অদ্ভুত বেদনায় দীর্ণ, কারণ স্ত্রীকে ভালবেসেও মন পাননি তিনি। স্ত্রীর আসক্তি শুধু অলঙ্কারেই। ‘বাজে করুণ সুরে...’র মধ্যে সেই অদ্ভুত মুহূর্ত তৈরি হয়েছে। দক্ষিণী রাগ ‘সিংহেন্দ্রমধ্যম’-এ আধারিত একটি গানের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে রবীন্দ্রনাথ এই গান বেঁধেছিলেন। গানটি অদ্ভুত থ্রিল তৈরি করে। যেন অপার্থিব একটা মুহূর্ত। জানলার পাশে খাটে বসে তানপুরা নিয়ে স্ত্রী গাইছেন, তাকে রক্তমাংসের মানুষ বলে আর মনে হচ্ছে না! আলো-ছায়ায় গায়ে কাঁটা দেওয়ার মতো একটা দৃশ্য। তার মধ্যে ‘বাজে করুণ সুরে...’ , এ সত্যজিতের অপার দক্ষতা ছাড়া আর কী!
রবীন্দ্রনাথের লেখা নয়, এমন ছবিতেও সত্যজিতের রবীন্দ্রসঙ্গীত ব্যবহারের আরও একটি মুন্সিয়ানা আমার মনে ভাসছে। ‘কাঞ্চনজঙ্ঘা’-য় অমিয়া ঠাকুরের গলায় ‘এ পরবাসে রবে কে?...।’ করুণা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লিপে অপূর্বভাবে ব্যবহার করেছেন অস্কারজয়ী চলচ্চিত্রকার। ছবির সব ক’টি চরিত্রের যে টানাপোড়েন, তার মধ্যে দারুণভাবে গানটা আসছে। গানের পরে করুণার দাদার চরিত্রে পাহাড়ি সান্যাল তাঁকে এসে বলছেন, “কত দিন পরে গান গাইলি বল তো।” গানের মধ্যে এমন একাকীত্ব, যার পরেই করুণা বলে ওঠেন, “দাদা, ওরা সব কোথায়?” একা থাকার যন্ত্রণা বোঝাতে এর চেয়ে নিদারুণ দৃশ্যায়ন আর হয় না। ‘কাঞ্চনজঙ্ঘা’ ছবির সম্পদ এই গানটি।
 অনুলিখন: অন্বেষা দত্ত 
10th  May, 2020
 লক্ষ্য লাদাখ

  ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি...। দশকের পর দশক ধরে চলতে থাকা সীমান্ত টেনশন মাথাচাড়া দিয়েছে। ফের আগ্রাসী চীন। পিছু হটবে না ভারতও...। বিশদ

31st  May, 2020
লকডাউনের দিনগুলি
ডাঃ শ্যামল চক্রবর্তী

মুখ্যমন্ত্রী দাঁড়িয়ে আছেন গাইনি বাড়ির উল্টোদিকে কার্ডিওলজি বিল্ডিংয়ের সামনে। পাশে পুলিস কমিশনার। খবর পেয়ে দ্রুত ওখানে চলে এলেন হাসপাতালের মেডিক্যাল সুপারিন্টেন্ডেন্ট ও ডেপুটি সুপার। মিটার দেড়েক দূরত্ব, করজোড়ে মুখ্যমন্ত্রী... ‘খুব ভালো কাজ করছেন আপনারা।
বিশদ

24th  May, 2020
করোনা কক্ষের ডায়েরি
ডাঃ চন্দ্রাশিস চক্রবর্তী

 গত ১০০ বছরে পৃথিবী এরকম মহামারী দেখেনি। শহরের প্রায় সমস্ত বড় হাসপাতালে এখন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি। ফলে আউটডোর চলছে গুটিকয়েক রোগী নিয়ে, হাসপাতালের ক্যান্টিন বন্ধ, ভিতরের রাস্তাগুলো ফাঁকা, বাইরে গাড়ির লাইন নেই…।
বিশদ

24th  May, 2020
এয়ারলিফট 
সমৃদ্ধ দত্ত

একটা স্তব্ধতা তৈরি হল ঘরে। সন্ধ্যা হয়েছে অনেকক্ষণ। এখন আর বেশি কর্মী নেই। অনেকেই বাড়ি চলে গিয়েছেন। তবু কিছু লাস্ট মিনিট আপডেট করার থাকে। তাই কয়েকজন এখনও রয়েছেন অফিসে। তাঁদেরও ফিরতে হবে।  
বিশদ

17th  May, 2020
অনুরাগের রবি ঠাকুর 

সন্দীপ রায়: বাবার কলাভবনে ভর্তি হওয়া থেকেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে সংযোগটা একরকম তৈরি হয়ে গিয়েছিল। যদিও আপনারা জানবেন, শৈশবে ওঁর মোটেই শান্তিনিকেতন যাওয়ার ইচ্ছে ছিল না। তবে হ্যাঁ, সেখানে গিয়ে কিন্তু তাঁর অবশ্যই মন পরিবর্তন হয়েছিল। 
বিশদ

10th  May, 2020
‘ছবিটা ভাই ভালো হয়েছে। তবে
চলবে কি না, বলতে পারছি না!’ 

প্রশ্ন: ‘চারুলতা’-র জন্য নিজেকে কীভাবে তৈরি করেছিলেন?
মাধবী: ছ’বছর বয়স থেকে কাজ করা শুরু করেছিলাম। তারপর নানা পথ পেরিয়ে প্রেমেন্দ্র মিত্রের সঙ্গে কাজ। ‘সাহসিকা’ বলে একটি ছবিতে হিরোইনের ছেলেবেলার চরিত্রে অভিনয় করেছিলাম। 
বিশদ

10th  May, 2020
বন্ধু আমার...
দীপ্তি নাভাল

আমি হতবাক: আমি বাকরুদ্ধ। চিন্টুর চলে যাওয়া কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না। তবে অসুস্থতার খবর আগেই পেয়েছিলাম। চিন্টুর মৃত্যুর আগের দিন ইরফানের খবরটা পাই। তখনই মানসিকভাবে বেশ দুর্বল হয়ে পড়েছিলাম। এর পরপরই খবর আসে যে চিন্টু অসুস্থ। বিশদ

03rd  May, 2020
তোমার স্মৃতিতে...
অমিতাভ বচ্চন

দেওনার কটেজে প্রথম দেখেছিলাম চিন্টুকে। প্রচণ্ড হাসিখুশি, প্রাণবন্ত এক তরুণ। দু’চোখ ভরা দুষ্টুমি। দিনটা আমার কাছে সত্যি বিরল। কারণ, রাজ জি’র বাড়িতে আমন্ত্রণ পাওয়ার মতো সৌভাগ্য আমার তখন খুব একটা হতো না। তারপর থেকে আরও বেশি করে দেখতাম ওকে... আর কে স্টুডিওয়। 
বিশদ

03rd  May, 2020
বিদায়
তিগমাংশু ধুলিয়া

দীর্ঘ ৩৪ বছরের বন্ধুত্ব তাঁদের। ইরফান খানের সঙ্গে জাতীয় পুরস্কারজয়ী পরিচালক-অভিনেতা তিগমাংশু ধুলিয়ার পথ চলা শুরু ‘ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা’ র আঙিনা থেকে। এরপর তিগমাংশুর পরিচালনায় হাসিল, চরস, পান সিং তোমার, সাহেব বিবি অউর গ্যাংস্টার রিটার্নস ছাড়া একাধিক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে কাজ করেছেন ইরফান।
বিশদ

03rd  May, 2020
প রি বা র...
সুতপা, বাবিল, অয়ন
সুতপা শিকদার

 পরিবারের পক্ষ থেকে লিখতে বসে একটাই প্রশ্ন বারবার মনে আসছে... কী করে লিখব? এটা কি শুধু আমার পরিবারের ক্ষতি? গোটা দুনিয়াকে দেখছি... সবাই যেন পাথর হয়ে গিয়েছে ও চলে যাওয়ার পর। বিশদ

03rd  May, 2020
অক্ষয় হোক এই তৃতীয়া!
সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়

 ভারতবর্ষ সেই দেশ, যে দেশের মানুষ সৃষ্টির আদিতে শুনেছিল স্রষ্টার কণ্ঠস্বর—তোমরা সবাই অমৃতের পুত্র। গড়ে উঠেছিল অপূর্ব এক শান্ত সভ্যতা। পেয়েছিল একটি ধর্ম, যার মূল কথা ছিল জীবনের চারটি স্তম্ভ— ধর্ম, অর্থ, কাম, মোক্ষ।
বিশদ

26th  April, 2020
কেমন যাবে ১৪২৭
শ্রীশাণ্ডিল্য

  ১৪২৭ সালের সূচনাকালে রাশিচক্রে নবগ্রহের অবস্থান— রবি মেষে, শুক্র বৃষে, রাহু মিথুনে, চন্দ্র ও কেতু ধনুতে, মকরে বৃহস্পতি, শনি, মঙ্গল ও মীনে বুধ। তিথি— কৃষ্ণ সপ্তমী, শিবযোগ,ববকরণ পূর্বাষাঢ়া নক্ষত্র। মেষ থেকে লগ্ন আরম্ভ। বারোটি রাশির নতুন বছরের ভাগ্যবিচার। তাই ‘অন্নগতপ্রাণ’ মানুষের আর্থ-সামাজিক, পারিবারিক ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্বকেই প্রাধান্য দেওয়া হল।
বিশদ

19th  April, 2020
 টি ২০ নয়,
এটা টেস্ট ম্যাচ

পিজি হাসপাতালের লিভার সংক্রান্ত বিদ্যা হেপাটোলজি’র অধ্যাপক। পূর্ব ভারতের সরকারিভাবে লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশনের অন্যতম উদ্যোগী মানুষ। পাশাপাশি করোনা মোকাবিলায় তৈরি রাজ্যের একাধিক শীর্ষ কমিটির সদস্য, কো-অর্ডিনেটর। একইসঙ্গে অনেকগুলি দায়িত্ব পালন করছেন বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ অভিজিৎ চৌধুরী। সাক্ষাৎকারে বিশ্বজিৎ দাস।
বিশদ

12th  April, 2020
সামাজিক দূরত্বই ওষুধ
ডাঃ দেবী শেঠি
বিশিষ্ট হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ

 ১৯১৮ সালে আমেরিকায় আঘাত হানল ভয়ঙ্কর স্প্যানিশ ফ্লু। ফিলাডেলফিয়া প্রদেশে প্রাণহানি হল হাজার হাজার মানুষের। অথচ, ওই একই মহামারীর প্রকোপে সেন্ট লুইস শহরে প্রাণহানি ঘটল ফিলাডেলফিয়ার তুলনায় অর্ধেক! কারণ ভয়ঙ্কর মহামারীর ওই আতঙ্কের আবহেও, ফিলাডেলফিয়ায় প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সমর্থনে আয়োজিত হয়েছিল বিরাট জন সমাবেশের। বিশদ

12th  April, 2020
একনজরে
অলকাভ নিয়োগী, বর্ধমান: সুপার সাইক্লোন উম-পুনের জেরে সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ি মেরামতি তথা পুনর্গঠনের জন্য পূর্ব বর্ধমান জেলার দু’হাজারের বেশি পরিবার ২০ হাজার টাকা করে অনুদান পাবে। রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর পূর্ব বর্ধমান জেলার জন্য ৫ কোটি টাকা বরাদ্দও করেছে।  ...

  কাঠমাণ্ডু, ১ জুন (পিটিআই): নেপালে মর্মান্তিক বাস দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন ১১ জন যাত্রী। আহতের সংখ্যা ২২। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, ভারতে আটকে পড়া প্রায় ৩০ জন পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে একটি বাস নেপালের উদ্দেশে রওনা হয়। ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনের জন্য ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর সল্টলেক স্টেডিয়াম থেকে ফুলবাগান পর্যন্ত সম্প্রসারিত পথে কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটির ইন্সপেকশন থমকে গিয়েছিল। মেট্রো রেল সূত্রের খবর, জুন মাসের মধ্যে এই ইন্সপেকশন হবে। ...

সংবাদদাতা, দিনহাটা: দিনহাটা মহকুমার বিভিন্ন এলাকায় করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলতেই শহরে লকডাউনকে আঁটোসাঁটো করল দিনহাটা পুর প্রশাসন। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সোমবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য শহরে বন্ধ করে দেওয়া হল অটো, টোটো ও বাইক চলাচল।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীরা কোনও বৃত্তিমূলক পরীক্ষার ভালো ফল করবে। বিবাহার্থীদের এখন ভালো সময়। ভাই ও বোনদের কারও ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৭: লর্ড মাউন্টব্যাটেনের ভারতকে দ্বিখণ্ড করার পরিকল্পনা মেনে নিল কংগ্রেস ও মুসলিম লিগ
১৯৬৫ - অস্ট্রেলীয় প্রাক্তন ক্রিকেটার মার্ক ওয়ার জন্ম।
১৯৭৫ - বিশিষ্ট পদার্থ বিজ্ঞানী দেবেন্দ্র মোহন বসুর মৃত্যু
১৯৮৭: বলিউড অভিনেত্রী সোনাক্ষি সিনহার জন্ম
১৯৮৮: অভিনেতা ও নির্দেশক রাজ কাপুরের মৃত্যু
২০১১: গায়ক অমৃক সিং আরোরার মৃত্যু
২০১১: বিশিষ্ট সংবাদ পাঠক তথা আবৃত্তিকার তথা বাচিক শিল্পী দেবদুলাল বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৫২ টাকা ৭৬.২৩ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭৩ টাকা ৯৫.০২ টাকা
ইউরো ৮২.৩৮ টাকা ৮৫.৪৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, একাদশী ১৭/৫৪ দিবা ১২/৫। চিত্রা নক্ষত্র ৪৪/৫৮ রাত্রি ১০/৫৫। সূর্যোদয় ৪/৫৫/২৮, সূর্যাস্ত ৬/১৩/৪৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৪ মধ্যে পুনঃ ৯/২১ গতে ১২/০ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৩ গতে ৪/২৬ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ২/৪ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৫ মধ্যে পুনঃ ১/১৪ গতে ২/৫৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৩৪ গতে ৮/৫৪ মধ্যে।
 ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, একাদশী দিবা ৯/৪৬। চিত্রা নক্ষত্র রাত্রি ৯/২১। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৫। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৬ মধ্যে ও ৯/২৪ গতে ১২/৪ মধ্যে ও ৩/৩৮ গতে ৪/৩২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২ মধ্যে ও ১১/৫৮ গতে ২/৬ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৬ মধ্যে ও ১/১৫ গতে ২/৫৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৩৫ গতে ৮/৫৫ মধ্যে।
৯ শওয়াল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
জি-৭:মোদিকে আমন্ত্রণ জানালেন ট্রাম্প
 জি-৭:মোদিকে আমন্ত্রণ জানালেন ট্রাম্পআমেরিকায় অনুষ্ঠিত আসন্ন জি-৭ সামিটে যোগ দেওয়ার ...বিশদ

09:40:06 PM

গুজরাতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ৪১৫, মৃত ২৯ 
গুজরাতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ৪১৫ ...বিশদ

09:03:40 PM

মহারাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ২২৮৭, মৃত ১০৩ 
মহারাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ২২৮৭জন। ...বিশদ

08:57:33 PM

রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত আরও ৩৯৬
রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৯৬ জনের শরীরে মিলল করোনা ...বিশদ

07:49:50 PM

স্নান যাত্রায় এবার পুরীতে জারি কার্ফু
করোনা মোকাবিলায় যে কোনও জমায়েতেই নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। কিন্তু পুরীর ...বিশদ

07:01:42 PM

বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ২,৯১১ ও মৃত ৩৭ 
বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হল ২,৯১১ জন। মৃত ...বিশদ

06:35:51 PM