Bartaman Patrika
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 

সংবিধানের ৭০
সমৃদ্ধ দত্ত

ভারত এবং বিশেষ করে আগামীদিনের শাসক কংগ্রেসের সঙ্গে এভাবে চরম তিক্ততার সম্পর্ক করে রেখে পৃথক পাকিস্তান পাওয়ার পর, সেই নতুন দেশের নিরাপত্তা কতটা সুনিশ্চিত? কীভাবে সম্ভাব্য পাকিস্তানের নিরাপত্তা সুরক্ষিত করা যাবে? কী কী সমস্যা আসতে পারে? এই প্রশ্নগুলো নিয়ে গোপনে একদিন ১৯৪৬ সালের মার্চ মাসে মহম্মদ আলি জিন্না দেখা করলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল স্যার আর্থার স্মিথের সঙ্গে। স্মিথ হলেন, ইন্ডিয়ান আর্মির ডেপুটি কমান্ডার ইন চিফ। জিন্নার এই উদ্বেগ অত্যন্ত স্বাভাবিক। কারণ, তার ঠিক আগের মাসেই উইনস্টন চার্চিল ইউরোপকে সতর্ক করেছিলেন যে, নিজেদের মধ্যে শক্ত একটা বন্ধন তৈরি করে সুরক্ষার পাঁচিল দিয়ে রাখো রাশিয়ার দিকে। আজ নয় কাল রাশিয়া সব দখলে করে নিতে পারে। আশঙ্কার কারণ হল, সোভিয়েত রেড আর্মি ধীরে ধীরে এগচ্ছে তেহরানের দিকে।
সুতরাং তেহরান দখল হয়ে গেলে সম্ভাব্য পাকিস্তান আর কতই বা দূর! অতএব জিন্নার তখন থেকেই আতঙ্ক শুরু হয়েছিল। কারণ, পাকিস্তান পাওয়ার পর সেটা যদি রক্ষাই করতে না পারা যায়, তা হলে গোটা দুনিয়ার কাছে আর নিজের মুসলিম দেশবাসীর কাছে তাঁর চরম অপমান হবে। জিন্না তাই গোপন পরামর্শ চাইছেন স্মিথের কাছে। স্মিথ স্পষ্ট কথার লোক। মালয় থেকে মায়ানমার, জার্মান যুদ্ধ থেকে সাউথ আফ্রিকা, তাঁর এযাবৎকালের অভিজ্ঞতা প্রচুর। অতএব তিনি একটা ডায়েরি বের করে রীতিমতো ম্যাপ এঁকে জিন্নাকে বুঝিয়ে দিলেন, গোটা পাঞ্জাব আর সম্পূর্ণ বেঙ্গল, যদি পাকিস্তানের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করতে না পারেন জিন্না, তা হলে কিন্তু তাঁর নতুন দেশের ডিফেন্স মারাত্মক নড়বড়ে হয়ে যাবে। ‘গোটা বেঙ্গলের দরকার কেন?’ জিন্না জানতে চাইছিলেন। মৃদু হেসে স্মিথ বেঙ্গলের একটা পৃথক ম্যাপিং করে বললেন, ‘মিস্টার জিন্না! বেঙ্গলের ইস্ট আর ওয়েস্ট সবটা যদি আপনি না পান, তা হলে আজ নয় কাল, আপনার ডিফেন্স ব্যবস্থা দুর্বল হয়ে যাবে এবং তার থেকেও বেশি হবে আপনার ইকনমি। কারণ একটাই, ক্যালকাটা। ভারতের ইঞ্জিনিয়ারিং ক্যাপাসিটির ৮৫ শতাংশই ক্যালকাটায়। আর সমুদ্রপথের বাণিজ্য অর্থাৎ সি ট্রেড, অর্ধেক কলকাতার।’ স্মিথ থামলেন না। বললেন, ‘আপনার জুট প্রোডাকশন যতই ইস্টার্ন বেঙ্গলে হোক, জুটমিলের সিংহভাগ কিন্তু ওয়েস্ট বেঙ্গলে। বিশেষ করে ক্যালকাটার কাছে। তার মানে জুট ট্রেড মার খাবে যদি আপনি মিলই হাতে না পান। ওয়েস্ট বেঙ্গলে আইসিএস, গভর্নমেন্ট, অফিসারস, ডক্টরস, ব্যারিস্টারস বেশি। সেটা না পেলে শুধু ইস্ট বেঙ্গলে দেখবেন আপনার অ্যাডমিনিস্ট্রেশন চালানোর মতো যোগ্য লোক পাচ্ছেন না। তাই পাঞ্জাব আর বেঙ্গল পুরোটা না পেলে আপনার পক্ষে সম্ভব নয় সোভিয়েত হানা থেকে পাকিস্তানকে বাঁচানো।’ জিন্না এই ভয়ঙ্কর সতর্কবাতা শুনে রীতিমতো স্তব্ধ হয়ে বসে রইলেন। ‘তা হলে আমার কী করা উচিত মিস্টার স্মিথ?’ স্মিথ হেসে বললেন, ‘ট্রাই টু গেট বোথ, অর এলস দেয়ার মাস্ট বি সাম আদার অলটারনেটিভ উইথ আওয়ার গভর্নমেন্ট ইন ব্রিটেন!’
জিন্না জানতে চান কী বিকল্প আছে এর? তিনি ভাইসরয় লর্ড ওয়াভেলের কাছেও জানতে চাইছেন। ওয়াভেল কিছু বললেন না। তবে মেসেজটা তিনি পাঠিয়ে দিলেন লন্ডনে। প্রধানমন্ত্রী ক্লেমেন্ট অ্যাটলির সরকার কংগ্রেস এবং মুসলিম লিগকে একটি বিকল্প প্রস্তাব দিয়েছিল। সেটা হল, ভারত বিভাজনের দরকার নেই। ভারত ঐক্যবদ্ধ থাকুক। তবে দুর্বল কেন্দ্রীয় সরকার নিয়ে। অর্থাৎ কেন্দ্রের হাতে থাকবে প্রতিরক্ষা, বৈদেশিক সম্পর্ক এবং যোগাযোগ অর্থাৎ রেল, টেলিগ্রাফ ইত্যাদি। আর রাজ্যগুলো পাক বাকি ক্ষমতা। ঠিক একইসঙ্গে সিন্ধ, পাঞ্জাব, বালুচিস্তান, উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ, বেঙ্গল আর অসম নিজেরাই ভোটাভুটিতে স্থির করুক যে তারা একজোট হয়ে একটি পৃথক স্বশাসিত রাজ্যে পরিণত হবে কি না। বস্তুত সেটাই হবে জিন্নার দাবি মতো একটা শ্যাডো ভারত। অখণ্ড থাকবে ইন্ডিয়ান আর্মিও। একইভাবে অখণ্ড থাকবে পাঞ্জাব আর বাংলাও। ঠিক এই সময়টায় জিন্নাকে গ্রাস করেছিল টেনশন। তিনি নার্ভাস হয়ে যান। কারণ ৫ জুন দিল্লিতে মুসলিম লিগের একটি রুদ্ধদ্বার সেশনে মুসলিম লিগের একের পর এক নেতা জিন্নার দিকে আঙুল তুলে বললেন, ‘আপনি কি এরকম পাকিস্তানের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন আমাদের? এটা কোনও সলিউশন হল? এটা মেনে নেওয়া যায় না!’ কিন্তু অন্যদিকে জিন্না জানেন যে গোটা বেঙ্গল, গোটা পাঞ্জাব কিছুতেই কংগ্রেস অথবা ব্রিটিশ তাঁকে দেবে না।
ঠিক এরকম অবস্থায় নিজের ইমেজ বাঁচাতে জিন্না ২৬ জুলাই বম্বের মালাবার হিলসে নিজের বাংলোয় রিপোর্টারদের ডাকলেন। প্রেস কনফারেন্স করবেন। এটা হল জওহরলাল নেহরুর বক্তব্যের পাল্টা প্রেস কনফারেন্স। কারণ, নেহরু ৭ জুলাই দিল্লিতে এআইসিসি অধিবেশনে ব্রিটিশ সরকার ও মুসলিম লিগ উভয়কেই হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘ভারত স্বাধীন হওয়ার পর নিজের ইচ্ছায় চলবে। একটিও শর্ত আরোপ করা যাবে না ভারতের উপর। ভারত ঠিক করবে তারা কীভাবে প্রশাসন চালাবে।’ জিন্না ২৬ জুলাই বললেন, ‘নেহরু আর কংগ্রেস কী মনে করেছে? আমরা হাতজোড় করে ভিক্ষা চা‌ই঩ছি! কখন তাঁরা ভিক্ষা দেবে? একেবারেই নয়। আমরা নিজেদের দাবি নিজেদের মতো করে আদায় করতে জানি।’ এটুকু বলেই সেদিন জিন্না শেষ করেছিলেন। পরদিন বাকিটা বললেন, ২৭ জুলাই। মুসলিম লিগের বিশেষ বৈঠকে তিনি ব্রিটিশদের ওই ফর্মুলা প্রত্যাখ্যান করে বললেন, ‘আমাদের পূর্ণাঙ্গ পাকিস্তান চাই। এবার ডিরেক্ট অ্যাকশন ডে!’
ওই ডিরেক্ট অ্যাকশন ডে কথাটির অর্থ কী বোঝা গেল না। স্পষ্ট করে বলাও হয়নি। তবে ১৬ আগস্ট তার অর্থটা জানিয়ে দিল কলকাতা। সেখান থেকেই শুরু হল এক চরম অন্ধকার সময়। দাঙ্গা। ঠিক তিনবছর আগে এরকমই এক আগস্ট মাসে বেঙ্গলে শুরু হয়েছিল দুর্ভিক্ষ। আর তিনবছর পর শুরু হল দাঙ্গা। এবং ঠিক একবছর পর দেশভাগ। দুর্ভিক্ষ, দাঙ্গা, দেশভাগ-ভারতের একটি জাতি আর একটি রাজ্যের অগ্রগতিকে স্তব্ধ করে দিল বহুকালের জন্য! বেঙ্গল ও বাঙালি!
..................................
কলকাতার বদলা নেওয়া শুরু হয়েছিল নোয়াখালিতে। নোয়াখালির প্রতিশোধ শুরু হল বিহারে। বিহারের দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ল পাঞ্জাবে। গোটা দেশ জ্বলছে। এরকম একটি সময়ে জওহরলাল নেহরুর নেতৃত্বে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার শপথগ্রহণ করল। তার ঠিক আগে ওয়াভেল নেহরু আর মহাত্মা গান্ধীকে ডেকে বললেন, ‘অন্তর্বর্তী সরকারে মুসলিম লিগ না এলে সমস্যা কিন্তু মিটবে না। বরং বাড়বে। আপনারা জিন্নার সঙ্গে একটা মীমাংসার পথে হাঁটছেন না কেন?’ গান্ধী বললেন, ‘আমাদের তো কোনও আপত্তি নেই! জিন্না আর নেহরু তো কথা বলতেই পারেন।’ ততদিনে অবশ্য কংগ্রেসের নেতৃত্বে অন্তর্বর্তী সরকারের মন্ত্রিসভাও প্রায় গঠিত। সর্দার প্যাটেল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, রাজাগোপালাচারী শিক্ষামন্ত্রী, ডঃ রাজেন্দ্র প্রসাদ কৃষি ও খাদ্যমন্ত্রী, মুসলিম প্রতিনিধি হিসেবে দিল্লির কংগ্রেস নেতা আসফ আলি হলেন রেলমন্ত্রী। শিখ প্রতিনিধি বলদেব সিং প্রতিরক্ষামন্ত্রী। কিন্তু মুসলিম লিগ নিজেদের সরিয়ে রাখল। ওয়াভেল প্রাণপণে চেষ্টা করলেন, যাতে লিগ যোগ দেয় মন্ত্রিসভায়। সেই প্রয়াস সফল হল। যখন ভোপালের নবাব দিল্লিতে এসে গান্ধীজির সঙ্গে মিটিং করলেন। এবং দীর্ঘ আলোচনার পর একটি বিবৃতি জারি হল। সেই বিবৃতিতে লেখা হয়েছিল, ‘ভারতের সিংহভাগ মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি যে মুসলিম লিগ, সেটা স্বীকার করতে আপত্তি নেই কংগ্রেসের। আপত্তি না থাকার কারণ সাম্প্রতিক নির্বাচনে সিংহভাগ মুসলিম আসনই লিগের দখলেই এসেছে।’ এই বিবৃতির ফলেই মুসলিম লিগ রাজি হল সরকারে যোগ দিতে। কিন্তু কংগ্রেসের শর্ত হল, এর অর্থ এই নয় যে, কংগ্রেস কোনও মুসলিমকে নিজেদের প্রতিনিধি করতে পারবে না সরকারে। তারাও মুসলিম নেতাকে মন্ত্রী করতে পারবে। কিন্তু সেটা পছন্দ হয়নি জিন্নার। তাই কংগ্রেস যখন আসফ আলিকে নিজেদের মন্ত্রী হিসেবে বহাল রাখল, তখন জিন্না পাল্টা কৌশলে একজন হিন্দুকে মনোনীত করলেন মন্ত্রিসভায় নিজেদের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য। তিনি ছিলেন এক তফসিলি জাতিভুক্ত নেতা, বেঙ্গলের যোগেন্দ্রনাথ মণ্ডল।
স্বাধীনতা আসছে। তার আগে অন্তর্বর্তী সরকারও গঠন হয়ে গেল। অন্যদিকে চলছে নিরন্তর দাঙ্গার অন্ধকার। ঠিক এই সময়ই অন্তর্বর্তী সরকার এবং লর্ড ওয়াভেল স্থির করলেন এবার সময় এসেছে স্বাধীন ভারতের সংবিধান রচনার। গঠন করা হল সংবিধান সভা। স্থির হল, প্রাদেশিক বিধানসভাগুলির মাধ্যমে সংবিধান-সভার সদস্য নির্বাচিত হবে। সংবিধান-সভার সদস্য সংখ্যা ছিল ৩৮৯। রাজ্যগুলি দুটি ভাগে বিভাজিত ছিল। ব্রিটিশ ভারত ও দেশীয় রাজন্যবর্গের রাজ্য। সংবিধান সভায় ২৯৬ জন ব্রিটিশশাসিত ভারতের সদস্য এলেন। আর ৯৩ জন এলেন রাজন্যশাসিত রাজ্যগুলি থেকে। সদস্য নির্বাচনের ক্ষেত্রে মাথায় রাখা হয়েছিল, প্রশাসন পরিচালনা পদ্ধতি সম্পর্কে দক্ষ, জ্ঞানী ও অভিজ্ঞ কিছু মানুষ যেন সংবিধান রচনার প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে পারেন।
মুসলিম লিগ চায়নি সংবিধান-সভার অধিবেশন বসুক। বরং আলোচনা থেকে সরে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। বহু চেষ্টা করেও মুসলিম লিগকে রাজি করাতে না পেরে ১৯৪৬ সালে ২০ নভেম্বর ঘোষণা করা হয়, সংবিধান-সভার প্রথম অধিবেশন বসবে ৯ ডিসেম্বর, ১৯৪৬। সেদিন পণ্ডিত জওহরলাল নেহরু প্রস্তাবনা এনেছিলেন। প্রস্তাবনার প্রতিপাদ্য হল, সংবিধানের ‘লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য’। জওহরলাল নেহরু ভারতের সংবিধান রচনার প্রথম প্রস্তাবনার দীর্ঘ বক্তৃতা সমাপ্তির ক্ষণে বলেছিলেন অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ কিছু বাক্য। বলেছিলেন, ‘ভবিষ্যৎ আমাদের দিকে তাকিয়ে রয়েছে। আমি এই সংবিধান-সভার কাছে আবেদন করছি, এই প্রস্তাবনাকে বিবেচনা করে আমাদের পবিত্র অতীতকে মনে রেখে, বর্তমানের অস্থিরতাকে উপলব্ধি করে এবং এখনও না আসা মহান ভবিষ্যতের প্রতি দায়বদ্ধতা বজায় রেখেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হোক।’
১৯৪৬ সালের শেষভাগে যখন সংবিধান সভার কাজ শুরু হওয়ার প্রস্তুতি চলছে, তার ঠিক আগে হঠাৎ করে এক বিদগ্ধ ভারতীয় রাজনীতিক অকস্মাৎ লক্ষ্য করলেন, তিনি যেন নতুন ভারতের রূপায়ণ পর্বের এই গুরুত্বপূর্ণ সময়টায় একাকী হয়ে গিয়েছেন। সংবিধান সভায় তাঁকে একজন সদস্য মনোনীত করা হয়েছে। তিনি বেঙ্গল থেকে নির্বাচিত এক সদস্য। ডঃ ভীমরাও আম্বেদকর। তাঁর কংগ্রেস এবং বিশেষ করে তীব্র গান্ধী বিরোধিতা সর্বজনবিদিত। কিন্তু আম্বেদকর সংবিধান সভা চলাকালীন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সদস্যদের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনার সময় বুঝিয়ে দিলেন যে তিনি কংগ্রেস বিরোধী হলেও, তার থেকেও বেশি বিরোধী জিন্নার আগ্রাসী পাকিস্তান অবস্থানের। এ ব্যাপারে তিনি অনেক বেশি জাতীয়তাবাদী। অর্থাৎ আম্বেদকর যেন সামান্য হলেও কংগ্রেসের সঙ্গে একটু হলেও নরম মনোভাব প্রদর্শন করছেন। সেটা লক্ষ্য করে তাঁর সঙ্গে খোলাখুলি কথা বললেন প্রথম যিনি, তিনি হলেন রাজকুমারী অমৃতা কাউর। সংবিধানের মৌলিক অধিকার রচনার জন্য একটি পৃথক কমিটি হয়েছে। তার নাম ফান্ডামেন্টাল রাইটস কমিটি। ওই কমিটির বৈঠক চলাকালীন অমৃতা কাউরের সঙ্গে আলাদাভাবে আম্বেদকরের বৈঠক হয়। অমৃতা কাউর ওই আলোচনার প্রেক্ষিতে মহাত্মা গান্ধীকে চিঠি লিখে জানালেন, ‘ডঃ আম্বেদকর চাইছেন তাঁর সামান্য দাবি যেন মানা হয়। সেটি হল দলিত সমাজের জন্য পৃথক নির্বাচকমণ্ডলী।’
কিন্তু মহাত্মা গান্ধী অমৃতা কাউরকে চিঠি লিখে বললেন, ‘আমার মনে হয় না ওটা কোনও সলিউশন। সেরা পথ হল সাধারণ নির্বাচকমণ্ডলী এবং দলিতদের জন্য সংরক্ষণ। যেটা আমাদের ঘোষিত নীতি। শিক্ষার আলো ছাড়া এভাবে নিছক পৃথক নির্বাচকমণ্ডলী করে দলিতদের উত্থান হবে না।’ কয়েকমাসের মধ্যেই নেহরু রাজাগোপালাচারীকে জানালেন, ‘আম্বেদকর রাজি হয়েছেন সরকারে যোগ দিতে।’ সেটা জুলাই মাস। একমাস পর স্বাধীনতা আসছে। ডঃ আম্বেদকর সেই নতুন ভারতের প্রথম সরকারের শুধু যে আইনমন্ত্রী হলেন তাই নয়, সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যানও মনোনীত হলেন। দেশভাগের ফলে তাঁর ইস্ট বেঙ্গলের আসনটি হাতছাড়া হল। সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের উদ্যোগে কংগ্রেসের এক সদস্য নিজের আসন ছেড়ে দিলেন। বম্বে থেকে নির্বাচিত হলেন ডঃ আম্বেদকর!
১৯৪৬ সালের ৯ ডিসেম্বর থেকে ১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত ভারতের সংবিধান রচনার কাজটি হয়েছিল প্রবল সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতার আবহে। এই বহুধা বিস্তৃত ধর্ম, সংস্কৃতি, ভাষা, উপভাষার দেশে একটিই সংবিধান রচনা যে কতটা কঠিন, তা সহজেই অনুমেয়। একদিকে দেশ জ্বলছে, দাঙ্গা, দেশভাগ, শরণার্থীর স্রোত। অন্যদিকে এই মানুষগুলি ভারতকে একটি আধুনিক উদার সর্বধর্মসমন্বয় আর উন্নত দেশে পরিণত করার কাজে ব্যাপৃত। ১৯৪৯ সালের ২৬ নভেম্বর সংবিধান সভায় অনুমোদিত তথা পাশ হয়েছিল ভারতের সংবিধান। স্থির হয়েছিল ঠিক ২ মাস পর অর্থাৎ ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি থেকে সেই নয়া সংবিধান অনুযায়ী ভারত হবে নয়া সাধারণতন্ত্র।
সুতরাং, এই ২০১৯ সাল ভারতের সংবিধান অনুমোদন তথা গ্রহণের ৭০তম বর্ষ। অথচ আজ আমাদের সামাজিক, রাজনৈতিক, নৈতিক আবহ তথা নিত্যদিনের চর্চা, মনোভাব ও আচরণ বহু ক্ষেত্রে কিন্তু সংবিধানের লক্ষ্য, আদর্শ ও স্পিরিটের সম্পূর্ণ বিপরীত। ওরকম এক প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের আবহে যে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা নিবিষ্টমনে এরকম একটি নিপুণ সংবিধান রচনা করে গেলেন, তাকে নস্যাৎ করে সম্পূর্ণ বিপরীত আচরণ করে আমরা কি সেই ঐতিহ্য আজ অনুসরণ করছি? তাঁদের ওই নিষ্ঠা, পরিশ্রমকে সম্মান দিচ্ছি? ধর্ম নিয়ে হানাহানি, জাতপাত নিয়ে রাজনীতি, ভাষার আগ্রাসন, সংস্কৃতির সাম্রাজ্যবাদ, জাতিগত বিভাজনই কি আজকের সমাজের প্রবল ধারাভাষ্য নয়?
সংবিধানের খসড়া রচনা কমিটি সংবিধান-সভা গঠন করেছিল ১৯৪৭ সালের ২৯ আগস্ট। সেই কমিটির প্রথম বৈঠক হয়েছিল ৩০ আগস্ট। ৩০ আগস্ট থেকে ১৪১ দিন ধরে মিলিত হয়েছিল সংবিধানের খসড়া রচনা কমিটি। প্রথমে হল খসড়া সংবিধানের একটি ভিত্তি। তারপর সেই ভিত্তিকেই সম্প্রসারিত করে খসড়া রচনা কমিটি নিয়োজিত হয়েছিল ২৪৩টি ধারা এবং ১৩টি তফসিলকে সমন্বিত একটি রূপ দিতে। খসড়া কমিটির পেশ করা রিপোর্টে প্রথমে ছিল ৩১৫টি ধারা এবং ৮টি তফসিল। প্রাথমিক বিবেচনার পর খসড়া সংবিধানে ধারার সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছিল ৩৮৬। আর খসড়া সংবিধান যখন চূড়ান্ত রূপ ধারণ, তখন সেখানে ৩৯৫টি ধারা এবং ৮টি তফসিল। খসড়া সংবিধানের উপর প্রায় ৭৬৩৫টি সংশোধনী জমা পড়ে। আর তার মধ্যে সভায় চূড়ান্তভাবে পেশ হয়েছিল মোট ২৪৭৩টি সংশোধনী। সংবিধান সভা বসেছিল ১৬৬ দিন ধরে। এসব কথা বলার অর্থ কী? অর্থ হল, এটা উপলব্ধি করা যে, কতটা পরিশ্রম করেছিলেন ওই মানুষগুলি। বাঙালি হিসেবে আমাদের গর্ব করার পৃথক কারণ আছে। খসড়া কমিটির সর্বপ্রথম খসড়া রচয়িতার নাম এস এন মুখার্জি। স্বয়ং ডঃ আম্বেদকর তাঁর সর্বশেষ বক্তৃতায় বলেছিলেন, ‘মিস্টার মুখার্জির বৈদগ্ধ ছাড়া আমরা কাজ শুরু করতেই পারতাম না।’
১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর সংবিধানের খসড়া চূড়ান্ত করে সংবিধান সভায় পেশ করার পর তাঁর শেষ বক্তৃতায় ডঃ আম্বেদকর একঝাঁক প্রশ্ন করেছিলেন ভবিষ্যতের উদ্দেশে। আমাদের উদ্দেশে। পরবর্তীকালের রাজনৈতিক দল ও নেতাদের উদ্দেশে। সেগুলি সাধারণ প্রশ্ন ছিল না। ছিল এক চরম সতর্কবার্তা! আমরা ঠিক ৭০ বছর পর ডঃ আম্বেদকরের উত্থাপিত কয়েকটি প্রশ্ন আজ স্মরণ করতে পারি। সেটি আজও প্রাসঙ্গিক। তিনি বলেছিলেন, ‘১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি ভারত হবে এক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। অর্থাৎ সেই দিন থেকে ভারত হবে এমন এক রাষ্ট্র, যা একান্তই জণগণের, জণগণের দ্বারা এবং জণগণেরই জন্য....আমাদের গণতান্ত্রিক সংবিধানের ভাগ্যে ভবিষ্যতে কী লেখা আছে? ভারত কি এটা রক্ষা করতে সক্ষম হবে?.......যদি রাজনৈতিক দলগুলি নিজেদের নীতি আদর্শকে, দেশের স্বার্থেরও উপরে স্থান দেয়, তা হলে আমাদের স্বাধীনতা দ্বিতীয়বারের জন্য আবার সঙ্কটে পড়বে এবং হয়তো চিরকালের মতো সেই স্বাধীনতা লুপ্ত হবে। আমাদের সকলকেই এই প্রবণতাকে প্রতিরোধ করে রক্ষা করতে হবে দেশকে। আমাদের স্বাধীনতাকে শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে সুরক্ষিত করার শপথ নিতে হবে আমাদের।’
আমরা কি পারব সংবিধান, গণতন্ত্র, স্বাধীনতাকে রক্ষা করতে? ডঃ আম্বেদকরের তোলা সেই অমোঘ প্রশ্নটি আমাদের এবার করতে হবে নিজেদের। এখন।
গ্রাফিক্স  সোমনাথ পাল
সহযোগিতায়  উজ্জ্বল দাস 
15th  December, 2019
দেশবন্ধু
সমৃদ্ধ দত্ত

গান্ধীজির একের পর এক অনুগামীকে নিজের দিকে টেনে আনতে সক্ষম হলেও, তাঁর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হয়নি একবিন্দুও। আবার তাঁকেই দীক্ষাগুরু হিসেবে স্থির করেছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু। জন্মের সার্ধশতবর্ষে ফিরে দেখা সেই চিত্তরঞ্জন দাশকে। বিশদ

23rd  February, 2020
পথদ্রষ্টা ফালকে
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

‘রাজা হরিশ্চন্দ্র’-এর হাত ধরে পথচলা শুরু হয় প্রথম ভারতীয় পূর্ণাঙ্গ কাহিনীচিত্রের। ভারতীয় জাতীয়তাবাদের সঙ্গেও ফালকের নাম অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। ৭৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে এ দেশের সিনেমার পথদ্রষ্টাকে ফিরে দেখা। 
বিশদ

16th  February, 2020
ইতিহাসে টালা
দেবাশিস বসু

 ‘টালা’ কলকাতার অন্যতম প্রাচীন উপকণ্ঠ। ১৬৯০ সালের ২৪ আগস্ট জব চার্নক নেমেছিলেন সুতানুটিতে। ১৬৯৩ সালের ১০ জানুয়ারি তিনি মারা যান। অর্থাৎ তিনি সুতানুটিতে ছিলেন জীবনের শেষ আড়াই বছর। তাঁর মৃত্যুর প্রায় পাঁচ বছর পরে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি সাবর্ণ চৌধুরীদের কাছ থেকে গোবিন্দপুর, কলকাতা ও সুতানুটি গ্রাম তিনটির জমিদারি স্বত্ব কিনে নেয়।
বিশদ

09th  February, 2020
মহাশ্বেতা 

সন্দীপন বিশ্বাস: ‘সরস্বতী পুজো।’ শব্দ দুটো লিখে ল্যাপটপের কি-বোর্ড থেকে হাতটা সরিয়ে নিল শুভব্রত। চেয়ারে হেলান দিয়ে বাইরে চোখ। রাত এখন গভীর। আর কয়েকদিন পরেই সরস্বতী পুজো। এডিটর একটা লেখা চেয়েছেন। পুজো নিয়ে স্পেশাল এডিশনে ছাপা হবে। সাহিত্যিক হিসেবে শুভর একটা খ্যাতি আছে। 
বিশদ

02nd  February, 2020
শতবর্ষে জনসংযোগ
সমীর গোস্বামী

অনেকে মজা করে বলেন, সেলুনে যিনি হেয়ার স্টাইল ঠিক করেন, তিনি অনেক সময় বিশিষ্ট মানুষের কানেও হাত দিতে পারেন। জনসংযোগ আধিকারিক বা পিআরও’রাও খানিকটা তেমনই। প্রচারের স্বার্থে তাঁরা কেবল সাহসের উপর ভর করে অনেক কিছু করতে পারেন। মনে পড়ছে, বহু কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বা গণ্যমান্য ব্যক্তিকে কোনও কিছু উদ্বোধনের সময় ফিতে কাটতে দিতাম না। 
বিশদ

26th  January, 2020
অনন্য বিকাশ 

পাহাড়ী স্যান্যাল থেকে উত্তমকুমার সবাই ছিলেন তাঁর অভিনয়ের গুণমুগ্ধ ভক্ত। হেমেন গুপ্তের ‘৪২’ ছবিতে এক অত্যাচারী পুলিস অফিসারের ভূমিকায় এমন অভিনয় করেছিলেন যে দর্শকাসন থেকে জুতো ছোঁড়া হয়েছিল পর্দা লক্ষ্য করে। এই ঘটনাকে অভিনন্দন হিসেবেই গ্রহণ করেছিলেন তিনি। সেই অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনেতা বিকাশ রায়কে নিয়ে লিখেছেন বেশ কিছু সিনেমায় তাঁর সহ অভিনেতা ও মণীন্দ্রচন্দ্র কলেজের বাংলা বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান অধ্যাপক ডঃ শঙ্কর ঘোষ।  
বিশদ

19th  January, 2020
যদি এমন হতো! 
সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়

যদি এমন হতো? সিমুলিয়ার দত্ত পরিবারে নরেন্দ্রনাথ এসেছেন, ধনীর আদরের সন্তান; কিন্তু শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেব পৃথিবীতে আসেননি। তাহলে নরেন্দ্রনাথ কি স্বামী বিবেকানন্দ হতেন! মেধাবী, সাহসী, শ্রুতিধর এই সুন্দর যুবকটি পিতাকে অনুসরণ করে হয়তো আরও শ্রেষ্ঠ এক আইনজীবী হতেন, ডাকসাইটে ব্যারিস্টার, অথবা সেই ইংরেজযুগের সর্বোচ্চ পদাধিকারী, ঘোড়ায় চাপা ব্রাউন সাহেব— আইসিএস। ক্ষমতা হতো, সমৃদ্ধি হতো।
বিশদ

12th  January, 2020
সেলুলয়েডের শতবর্ষে হিচকক 
মৃন্ময় চন্দ

‘Thank you, ….very much indeed’
শতাব্দীর হ্রস্বতম অস্কার বক্তৃতা। আবার এটাও বলা যেতে পারে, মাত্র পাঁচটি শব্দ খরচ করে ‘ধন্যবাদজ্ঞাপন’।
হ্যাঁ, হয়তো অভিমানই রয়েছে এর পিছনে।
বিশদ

05th  January, 2020
ফিরে দেখা
খেলা

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি। 
বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
বিনোদন

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।  
বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
রাজ্য 

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।   বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
দেশ-বিদেশ 

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।  
বিশদ

29th  December, 2019
বঙ্গ মিষ্টিকথা 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মিষ্টান্ন ভোজন। যার সঙ্গে জড়িয়ে বাঙালির আবেগ, অনুভূতি, অ্যাডভেঞ্চার। ডায়েটিংয়ের যুগে আজও বহু বাঙালি ক্যালরির তোয়াক্কা করে না। খাওয়া যতই আজব হোক, মিষ্টি না হলে ভোজ সম্পূর্ণ হয় না যে! 
বিশদ

22nd  December, 2019
রাজ সিংহাসন
প্রণবকুমার মিত্র

 দরবারে আসছেন মহারাজ। শিঙে, ঢাক, ঢোল, কাঁসর ঘণ্টার বাদ্যি আর তোপের শব্দ সেটাই জানান দিচ্ছে। তারপর সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে মহারাজ ধীর পায়ে গিয়ে বসলেন রাজ সিংহাসনে। আগেকার দিনে রূপকথার গল্পে এটাই বলা হতো।
বিশদ

08th  December, 2019
একনজরে
 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে, সেগুলির কয়েকটির বাজার বন্ধকালীন দর। ...

বিএনএ, আসানসোল: বেসরকারি গ্যাস কোম্পানির নিরাপত্তারক্ষী ছাঁটাই নিয়ে ক্রমশ জটিলতা বাড়ছে আসানসোলে। কোম্পানি থেকে ২৯জনকে ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে মঙ্গলবার থেকে অনশন শুরু করেছেন ছাঁটাই হওয়া নিরাপত্তারক্ষীরা।   ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী আর্থিক বছর থেকে বিভিন্ন প্রশাসনিক খরচের বিল অনুমোদনের ক্ষেত্রে দপ্তরগুলিকে বিশেষ ছাড় দেওয়া হবে না। তাই দপ্তরগুলিকে বরাদ্দ টাকা যথাযথভাবে ও নিয়ম মেনে খরচ করার পরামর্শ দিয়েছে অর্থদপ্তর। দপ্তরগুলির আর্থিক পরামর্শদাতাদের সঙ্গে অর্থদপ্তরের বৈঠকের পর এই ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কলকাতা কর্পোরেশনের ভোটে ওয়ার্ড ভিত্তিক সমস্যা তুলে ধরতে নাগরিকদের কাছে বিশেষ সমীক্ষক টিম পাঠাচ্ছে বিজেপি। মহানগরের ১৪৪টি ওয়ার্ডের নিত্যদিনের সমস্যার চিত্র তুলে ধরতে চাইছে গেরুয়া শিবির। ভোটের প্রচারে স্থানীয় স্তরে এই ইস্যুগুলিকে সামনে রেখে শাসক তৃণমূলকে বিঁধতে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের ক্ষেত্রে আজকের দিনটা শুভ। কর্মক্ষেত্রে আজ শুভ। শরীর-স্বাস্থ্যের ব্যাপারে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। লটারি, শেয়ার ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮০২- ফরাসি লেখক ভিক্টর হুগোর জন্ম
১৯০৮- লেখিকা লীলা মজুমদারের জন্ম
১৯৩১- স্বাধীনতা সংগ্রামী চন্দ্রশেখর আজাদের মৃত্যু
১৯৩৬- চিত্র পরিচালক মনমোহন দেশাইয়ের জন্ম
২০১২- কিংবদন্তি ফুটবলার শৈলেন মান্নার মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৮৯ টাকা ৭২.৫৯ টাকা
পাউন্ড ৯১.৫৯ টাকা ৯৪.৮৮ টাকা
ইউরো ৭৬.৪৯ টাকা ৭৯.৪১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৩,১৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,৯৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪১,৫৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, (ফাল্গুন শুক্লপক্ষ) চতুর্থী অহোরাত্র। রেবতী ৪৭/৪০ রাত্রি ১/৮। সূ উ ৬/৪/১৪, অ ৫/৩৫/২, অমৃতযোগ রাত্রি ১/৫ গতে ৩/৩৫ বারবেলা ২/৪২ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪৯ গতে ১/৩৫ মধ্যে। 
১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্থী, রেবতী ৪২/২৩/২২ রাত্রি ১১/৪/৩৪। সূ উ ৬/৭/১৩, অ ৫/৩৪/৯। অমৃতযোগ দিবা ১/০ গতে ৩/২৮ মধ্যে। কালবেলা ২/৪২/২৫ গতে ৪/৮/১৭ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৫০/৪১ গতে ১/২৪/৪৯ মধ্যে। 
২ রজব 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
এসএসকেএম থেকে ছাড়া পেল পোলবা দুর্ঘটনায় জখম দিব্যাংশ ভকত 

07:08:00 PM

দিল্লি হিংসার ঘটনায় দুটি সিট গঠন করল ক্রাইম ব্রাঞ্চ 

06:49:02 PM

১৪৩ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

04:08:26 PM

জলপাইগুড়িতে ২১০ কেজি গাঁজা সহ ধৃত ৩ 

03:39:45 PM

পুরভোট অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে হবে, রাজ্য নির্বাচন কমিশনারকে নির্দেশ রাজ্যপাল 
পুরভোটের দিনক্ষণ চূড়ান্ত না হলেও প্রশাসনিক তৎপরতা তুঙ্গে। এরমধ্যেই রাজ্য ...বিশদ

01:25:00 PM

লেকটাউনে নির্মীয়মাণ বিল্ডিং থেকে পড়ে মৃত শ্রমিক 

01:10:00 PM