Bartaman Patrika
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 

রাজ সিংহাসন
প্রণবকুমার মিত্র

দরবারে আসছেন মহারাজ। শিঙে, ঢাক, ঢোল, কাঁসর ঘণ্টার বাদ্যি আর তোপের শব্দ সেটাই জানান দিচ্ছে। তারপর সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে মহারাজ ধীর পায়ে গিয়ে বসলেন রাজ সিংহাসনে। আগেকার দিনে রূপকথার গল্পে এটাই বলা হতো। হীরক রাজার দেশে সিনেমায় রাজার জাঁকজমক দেখে গুপী গেয়ে উঠেছিল—‘দেখে রাজার জমক মোদের মন ভরে গেছে খুশিতে।’ সত্যিই সেকালের রাজাদের জাঁকজমক দেখে তাক লেগে যেত।
মহারাজ যে আসনে বসতেন তাকে বলা হয় ‘সিংহাসন’। স্কুলের ব্যকরণ বই বলছে ‘সিংহ চিহ্নিত বা সিংহপ্রধান আসন সিংহাসন।’ কর্মধারয় সমাস। সিংহ মার্কা হলেও এটি ক্লীবলিঙ্গ। তাহলে ময়ূর সিংহাসন নাম হল কীভাবে? বোধহয় সুকুমার রায়ের লেখা হাঁসজারুর মতো ব্যাপার আর কী!
তবে এসব নিয়ে মাথা ঘামানোর সময় বোধহয় ছিল না রাজা-মহারাজাদের। বরং নিজের প্রভাব-প্রতিপত্তি জাহির করতেই সিংহাসনকে ব্যবহার করেছেন তাঁরা। সেকালে ব্যাবিলনের রাজা সলোমন নিজের জাঁকজমক প্রকাশ করার জন্য হাতির দাঁতের তৈরি সিংহাসনটিকে মুড়ে দিয়েছিলেন খাঁটি সোনা দিয়ে। সেই সিংহাসনে ছয়টি ধাপ দিয়ে উঠতে হতো। তেজ ও বীরত্বের প্রতীক সিংহের মূর্তি একটা করে প্রতি ধাপের দু’ধারে। মোট ১২টি। আবার মিশরের রাজারা সোনা বা রুপোর সিংহাসনে বসতেন। এর প্রমাণ পাওয়া যায় বালক রাজা তুতেনখামেনের সমাধিক্ষেত্র থেকে। পিরামিডের মধ্যে মিলেছিল রত্ন দিয়ে মোড়া সোনার সিংহাসন আর রুপোয় তৈরি আর একটি সিংহাসন। শুধু প্রাচীনকালে নয়, বর্তমানে ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ এখনও একটি নির্দিষ্ট দিনে সোনার সিংহাসনে বসেন।
তবে রাজ সিংহাসনের মাহাত্ম্যে পিছিয়ে নেই ভারতবর্ষও। কথিত আছে, ৩২টি পুতুল দিয়ে ঘেরা বহু মণি-মানিক্যখচিত সোনার সিংহাসনে বসতেন মহারাজা বিক্রমাদিত্য। উজ্জয়িনীতে এক ঢিপি খুঁড়ে সেই সিংহাসনটি পেয়েছিলেন রাজা ভোজ। আবার ভারতের মুঘল সম্রাট ও কিছু দেশীয় রাজাদের ছিল সোনার সিংহাসন। তাঁরা নিজেদের ধন-সম্পদ ও শৌখিনতা জাহির করার জন্যই এই বহুমূল্য সিংহাসন তৈরি করাতেন বিদেশি কারিগর ও শিল্পীকে দিয়ে।
সম্রাট জাহাঙ্গীরের আত্মজীবনী ‘জাহাঙ্গীরনামা’তে লেখা আছে—১৬০৫ খ্রিস্টাব্দের ১০ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার, দ্বিপ্রহরের সময় আটত্রিশ বৎসর বয়সে আগ্রা নগরীতে যে সিংহাসনে বসেছিলেন সেটি তৈরি হয়েছিল ১৫ কোটি টাকার সোনা ও ১৫০ কোটি টাকার হীরে, মণিমুক্ত ও নানা দামি পাথর দিয়ে। এই সুদৃশ্য সিংহাসনটি এমনভাবে তৈরি হয়, যাতে স্থানান্তরের সময় অনায়াসে খণ্ড-বিখণ্ড করে ফের তা সহজেই জোড়া লাগানো যায়।
জাহাঙ্গীরের পুত্র শাহজাহানও নবাবিতে কম যেতেন না। বরং বলা যেতে পারে, মুঘল রাজাদের মধ্যে সবচেয়ে শৌখিন ও বিলাসী সম্রাট ছিলেন তিনি। বিখ্যাত স্বর্ণকারিগর সইদ গিলানির সাত বছর পরিশ্রমের ফল এই ময়ূর সিংহাসন। প্রথমে এর নাম ছিল ‘তখ্‌ত মুরাসা’ বা রত্নসজ্জিত সিংহাসন। সিংহাসনের দুই হাতলে ময়ূরের মূর্তি থাকায় ফারসি শব্দে নামকরণ হয় তখ্ত-ই-তাউস। তখত মানে সিংহাসন আর তাউস হচ্ছে ময়ূর। অনেক পরে এর নাম দেওয়া হয় ‘ময়ূর সিংহাসন’। এই সিংহাসন তৈরিতে সোনা লেগেছিল তখনকার দিনে ৯০ লক্ষ টাকার আর ৮৬ লক্ষ টাকার রত্নাবলী। পর্যটক ট্যাভারনিয়ের মতে, ময়ূর সিংহাসনে ময়ূরের গলায় ভারতের সবচেয়ে বড় ও উজ্জ্বল মুক্তো লাগানো হয়েছিল। এই ময়ূর সিংহাসন বানিয়ে সইদ গিলানি সম্রাটের কাছ থেকে বিশেষ উপাধি পেয়েছিলেন। ‘বিবাদাল খান’। এর অর্থ অতুলনীয় পণ্ডিত। তার সঙ্গে পুরস্কার ও সম্রাটের সমান ওজনের স্বর্ণমুদ্রা দিয়ে সম্মানিত করা হয়েছিল তাঁকে। শাহজাহানের রাজকোষে মজুত হয়েছিল দেশীয় নৃপতি ও পাঠান রাজাদের কাছ থেকে লুট করা প্রচুর মণি-রত্ন, বাৎসরিক নজরানা এবং উপঢৌকন পাওয়া রত্নাবলী। আরও সাতটি সুন্দর সিংহাসন গড়িয়ে সেগুলির সদ্ব্যবহার করেছিলেন সম্রাট শাহজাহান।
ভারতের রাজাদের সোনার সিংহাসনের মধ্যে আরও একটি বিখ্যাত হল মহীশূরের ওয়াদিয়র রাজবংশের সিংহাসনটি। কথিত আছে, এটি নাকি হস্তিনাপুরের পাণ্ডবদের সিংহাসন। প্রচুর সোনা ও নানা ধরনের দামি রত্নাবলী দিয়ে সাজানো সিংহাসনটিতে ত্রয়ী দেবতা, হাতি, ঘোড়া এবং নারীমূর্তি কারুকার্য করা। মহীশূরের মহারাজারা দশেরা উৎসবের সময় হাতির পিঠে এই সোনার সিংহাসনে বসে যেতেন। আর তখনই জনসাধারণ এটির দর্শন পেতেন। টিপু সুলতান বসতেন বহু মূল্যবান রত্ন দিয়ে কারুকার্য করা বাঘের আকৃতির সোনার সিংহাসনে। ৮ ফুট লম্বা ও ১১ ফুট চওড়া অপরূপ সিংহাসনটি অবশ্য ধ্বংস হয় ব্রিটিশদের হাতে। আবার এর উলটপুরাণও আছে।
লন্ডনের জাদুঘরে মহারাজা রঞ্জিত সিংহের সোনার পাত দিয়ে মোড়া পদ্মফুল আকৃতির অপূর্ব সিংহাসনটি রাখা আছে এখনও।
এবার আসি রুপোর সিংহাসনের কথায়। ব্রিটিশ সম্রাজ্ঞী মহারানি ভিক্টোরিয়ার কাছ থেকে সুদৃশ্য রুপোর সিংহাসন উপহার পেয়েছিলেন মুর্শিদাবাদের নবাব নাজিম হুমায়ুন খাঁ। হাজারদুয়ারি প্রাসাদের দোতলায় এটি রাখা আছে। আর ওই প্রাসাদের আর্ট গ্যালারিতে নবাব মুর্শিদকুলি খাঁর মার্বেল পাথরের একটি সুদৃশ্য সিংহাসন আছে। ১৬৪৩ খ্রিস্টাব্দে তৈরি আর একটি কালো মার্বেল পাথরের সিংহাসনে বসতেন নবাব নাজিম হুমায়ুন খাঁ। মুর্শিদকুলি খাঁয়ের সময় থেকে মুর্শিদাবাদের নবাবরা এই সিংহাসনেই বসতেন। এই সিংহাসনে বসেছেন মিরজাফর, নজমউদ্দৌলা এমনকী লর্ড কার্জনও। আর একটি সুন্দর মার্বেল পাথরের রাজ সিংহাসন ‘তখ্‌ত-ই-নিশান’ রাখা আছে হায়দরাবাদের চৌমহল্লা রাজপ্রাসাদে। জয়পুরের রাজার ছিল রুপোর সিংহাসন।
এই ‘সিংহাসন’-এ বসার জন্য কত রক্তপাত, কত যুদ্ধ হয়েছে! সিংহাসনে বসার সুখ যেমন আছে, তেমন রাজা হওয়ার ঝকমারিও কম পোয়াতে হয় না। সিংহাসনে টিকে থাকার জন্য অদ্ভুত অদ্ভুত কুসংস্কার জন্মাতো তাঁদের মনে। রাজস্থানের মেবারের রণনিপুণ রাণা কুম্ভের অদ্ভুত আচরণ সবাইকে অবাক করে দিয়েছিল। রাণা শত্রুদের পরাস্ত করে ফিরে সিংহাসনে বসার আগে নিজের কোমরে বাঁধা তরোয়াল খাপ থেকে বের করে মাথার উপর তিনবার ঘুরিয়ে নিতেন।
তবে শুধু সিংহাসনে বসলেই হল না। সেটাকে নিজের হাতের মুঠোয় বহুদিন ধরে রাখাটাই আসল বিষয়। তাই বোধহয় সুকুমার রায় ‘বোম্বাগড়ের রাজা’ কবিতায় লিখেছেন— রাজা রাজসভায় এসেই ‘হুক্কা হুয়া’ বলে চ্যাঁচান আর সিংহাসনে ভাঙ্গা শিশি-বোতল ঝুলিয়ে রাখেন, যার কারণ কোন সভাসদই খুঁজে পায় না। এরকম উদাহরণ রয়েছে পুরাণেও। দেবরাজ ইন্দ্র নিজের স্বর্গরাজ্য সামলাতে হিমশিম খেয়ে যেতেন। প্রায়ই অসুররা মেরে দেবতাদের স্বর্গছাড়া করে দিত। রাজা হিসেবে মোটেই ইন্দ্র ওস্তাদ ছিলেন না। এক-একবার নানা উপায়ে স্বর্গরাজ্য ফিরে পেতেন। এমনকী মহিলার (মা দুর্গা) সাহায্য নিয়েও এই সিংহাসন উদ্ধার করেছিলেন তিনি।
রামায়ণ-মহাভারতের সময়ের ইতিহাস ঘেঁটে দেখলেও এই ধরনের উদাহরণ পাওয়া যাবে। রামায়ণে দেখা গিয়েছে, পিতৃসত্য পালনের জন্য রামচন্দ্র বনবাসে যাওয়ায় ভরত বড় দাদার পাদুকা জোড়া (খড়ম) সিংহাসনে রেখে রাজ্য শাসন করেন, যত দিন না লঙ্কাকাণ্ড সেরে শ্রীরামচন্দ্র অযোধ্যায় ফেরেন। আবার মহাভারত বলছে, ভীষ্ম নিজে সিংহাসনে না বসে সৎ ভাই বিচিত্রবীর্যকে রাজ সিংহাসনে বসিয়ে রাজ্যপাট সামলেছেন। ইতিহাসেও এমন উদাহরণ আছে। খুদে আকবর বসেছেন সিংহাসনে, আর সম্রাটের বকলমে শাসন চালিয়েছেন বৈরাম খাঁ। নিজপুত্র দামোদর রাওকে রাজ সিংহাসনে বসিয়ে ঝাঁসির রানি লক্ষ্মীবাঈ তরোয়াল হাতে লড়ে গিয়েছেন ইংরেজদের বিরুদ্ধে।
এই সিংহাসন নিয়ে অজস্র গল্প আছে বিভিন্ন দেশে। সেই আদিকাল থেকে। সিংহাসন বানানোর সময় নানারকম কারিকুরি করতেন দক্ষ শিল্পীরা। গ্রিক পুরাণে অগ্নি দেবতা এবং দেব কারিগর হেফিস্টাফ একবার একটা অদ্ভুত সিংহাসন তৈরি করেন। সিংহাসনটি দেখতে অপূর্ব। দেখলেই বসে পড়তে ইচ্ছে হবে। তবে একবার বসলে আর ওঠা যায় না। সূক্ষ্ম মাকড়সার মতো জালে জড়িয়ে পড়ে মৃত্যু অনিবার্য। আর ওই জাল সরাবার কৌশল একমাত্র জানতেন হেফিস্টাফ।
আর বর্তমানেও সিংহাসনে বসতে গেলে প্রচুর দক্ষতা, অভিজ্ঞতা, দূরদর্শিতা, সাহস, প্রজা মনোরঞ্জনকারী নীতি নির্ণয় জরুরি। নইলে, ওই মাকড়সার জাল...
গ্রাফিক্স  সোমনাথ পাল
সহযোগিতায়  স্বাগত মুখোপাধ্যায়
08th  December, 2019
দেশবন্ধু
সমৃদ্ধ দত্ত

গান্ধীজির একের পর এক অনুগামীকে নিজের দিকে টেনে আনতে সক্ষম হলেও, তাঁর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হয়নি একবিন্দুও। আবার তাঁকেই দীক্ষাগুরু হিসেবে স্থির করেছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু। জন্মের সার্ধশতবর্ষে ফিরে দেখা সেই চিত্তরঞ্জন দাশকে। বিশদ

23rd  February, 2020
পথদ্রষ্টা ফালকে
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

‘রাজা হরিশ্চন্দ্র’-এর হাত ধরে পথচলা শুরু হয় প্রথম ভারতীয় পূর্ণাঙ্গ কাহিনীচিত্রের। ভারতীয় জাতীয়তাবাদের সঙ্গেও ফালকের নাম অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। ৭৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে এ দেশের সিনেমার পথদ্রষ্টাকে ফিরে দেখা। 
বিশদ

16th  February, 2020
ইতিহাসে টালা
দেবাশিস বসু

 ‘টালা’ কলকাতার অন্যতম প্রাচীন উপকণ্ঠ। ১৬৯০ সালের ২৪ আগস্ট জব চার্নক নেমেছিলেন সুতানুটিতে। ১৬৯৩ সালের ১০ জানুয়ারি তিনি মারা যান। অর্থাৎ তিনি সুতানুটিতে ছিলেন জীবনের শেষ আড়াই বছর। তাঁর মৃত্যুর প্রায় পাঁচ বছর পরে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি সাবর্ণ চৌধুরীদের কাছ থেকে গোবিন্দপুর, কলকাতা ও সুতানুটি গ্রাম তিনটির জমিদারি স্বত্ব কিনে নেয়।
বিশদ

09th  February, 2020
মহাশ্বেতা 

সন্দীপন বিশ্বাস: ‘সরস্বতী পুজো।’ শব্দ দুটো লিখে ল্যাপটপের কি-বোর্ড থেকে হাতটা সরিয়ে নিল শুভব্রত। চেয়ারে হেলান দিয়ে বাইরে চোখ। রাত এখন গভীর। আর কয়েকদিন পরেই সরস্বতী পুজো। এডিটর একটা লেখা চেয়েছেন। পুজো নিয়ে স্পেশাল এডিশনে ছাপা হবে। সাহিত্যিক হিসেবে শুভর একটা খ্যাতি আছে। 
বিশদ

02nd  February, 2020
শতবর্ষে জনসংযোগ
সমীর গোস্বামী

অনেকে মজা করে বলেন, সেলুনে যিনি হেয়ার স্টাইল ঠিক করেন, তিনি অনেক সময় বিশিষ্ট মানুষের কানেও হাত দিতে পারেন। জনসংযোগ আধিকারিক বা পিআরও’রাও খানিকটা তেমনই। প্রচারের স্বার্থে তাঁরা কেবল সাহসের উপর ভর করে অনেক কিছু করতে পারেন। মনে পড়ছে, বহু কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বা গণ্যমান্য ব্যক্তিকে কোনও কিছু উদ্বোধনের সময় ফিতে কাটতে দিতাম না। 
বিশদ

26th  January, 2020
অনন্য বিকাশ 

পাহাড়ী স্যান্যাল থেকে উত্তমকুমার সবাই ছিলেন তাঁর অভিনয়ের গুণমুগ্ধ ভক্ত। হেমেন গুপ্তের ‘৪২’ ছবিতে এক অত্যাচারী পুলিস অফিসারের ভূমিকায় এমন অভিনয় করেছিলেন যে দর্শকাসন থেকে জুতো ছোঁড়া হয়েছিল পর্দা লক্ষ্য করে। এই ঘটনাকে অভিনন্দন হিসেবেই গ্রহণ করেছিলেন তিনি। সেই অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনেতা বিকাশ রায়কে নিয়ে লিখেছেন বেশ কিছু সিনেমায় তাঁর সহ অভিনেতা ও মণীন্দ্রচন্দ্র কলেজের বাংলা বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান অধ্যাপক ডঃ শঙ্কর ঘোষ।  
বিশদ

19th  January, 2020
যদি এমন হতো! 
সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়

যদি এমন হতো? সিমুলিয়ার দত্ত পরিবারে নরেন্দ্রনাথ এসেছেন, ধনীর আদরের সন্তান; কিন্তু শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেব পৃথিবীতে আসেননি। তাহলে নরেন্দ্রনাথ কি স্বামী বিবেকানন্দ হতেন! মেধাবী, সাহসী, শ্রুতিধর এই সুন্দর যুবকটি পিতাকে অনুসরণ করে হয়তো আরও শ্রেষ্ঠ এক আইনজীবী হতেন, ডাকসাইটে ব্যারিস্টার, অথবা সেই ইংরেজযুগের সর্বোচ্চ পদাধিকারী, ঘোড়ায় চাপা ব্রাউন সাহেব— আইসিএস। ক্ষমতা হতো, সমৃদ্ধি হতো।
বিশদ

12th  January, 2020
সেলুলয়েডের শতবর্ষে হিচকক 
মৃন্ময় চন্দ

‘Thank you, ….very much indeed’
শতাব্দীর হ্রস্বতম অস্কার বক্তৃতা। আবার এটাও বলা যেতে পারে, মাত্র পাঁচটি শব্দ খরচ করে ‘ধন্যবাদজ্ঞাপন’।
হ্যাঁ, হয়তো অভিমানই রয়েছে এর পিছনে।
বিশদ

05th  January, 2020
ফিরে দেখা
খেলা

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি। 
বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
বিনোদন

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।  
বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
রাজ্য 

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।   বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
দেশ-বিদেশ 

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।  
বিশদ

29th  December, 2019
বঙ্গ মিষ্টিকথা 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মিষ্টান্ন ভোজন। যার সঙ্গে জড়িয়ে বাঙালির আবেগ, অনুভূতি, অ্যাডভেঞ্চার। ডায়েটিংয়ের যুগে আজও বহু বাঙালি ক্যালরির তোয়াক্কা করে না। খাওয়া যতই আজব হোক, মিষ্টি না হলে ভোজ সম্পূর্ণ হয় না যে! 
বিশদ

22nd  December, 2019
সংবিধানের ৭০
সমৃদ্ধ দত্ত

ভারত এবং বিশেষ করে আগামীদিনের শাসক কংগ্রেসের সঙ্গে এভাবে চরম তিক্ততার সম্পর্ক করে রেখে পৃথক পাকিস্তান পাওয়ার পর, সেই নতুন দেশের নিরাপত্তা কতটা সুনিশ্চিত? কীভাবে সম্ভাব্য পাকিস্তানের নিরাপত্তা সুরক্ষিত করা যাবে? কী কী সমস্যা আসতে পারে?  
বিশদ

15th  December, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী আর্থিক বছর থেকে বিভিন্ন প্রশাসনিক খরচের বিল অনুমোদনের ক্ষেত্রে দপ্তরগুলিকে বিশেষ ছাড় দেওয়া হবে না। তাই দপ্তরগুলিকে বরাদ্দ টাকা যথাযথভাবে ও নিয়ম মেনে খরচ করার পরামর্শ দিয়েছে অর্থদপ্তর। দপ্তরগুলির আর্থিক পরামর্শদাতাদের সঙ্গে অর্থদপ্তরের বৈঠকের পর এই ...

সংবাদদাতা, বালুরঘাট: সরকারি আইটিআই প্রতিষ্ঠানে পঠনপাঠন লাটে ওঠার অভিযোগ তুলে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ দেখাল পড়ুয়ারা। বুধবার ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার হিলি থানার জমালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের রামজীবনপুর আইটিআইতে।   ...

 রূপাঞ্জনা দত্ত, লন্ডন, ২৬ ফেব্রুয়ারি: সুয়েলা ব্রাভেরমান। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের ক্যাবিনেটে রদবদলের পর চলতি মাসের শুরুতে ব্রিটেনের প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত মহিলা হিসেবে অ্যাটর্নি জেনারেলের পদে নিযুক্ত হন এই এমপি। অবশেষে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে শপথ নিলেন তিনি। ...

বিএনএ, আসানসোল: বেসরকারি গ্যাস কোম্পানির নিরাপত্তারক্ষী ছাঁটাই নিয়ে ক্রমশ জটিলতা বাড়ছে আসানসোলে। কোম্পানি থেকে ২৯জনকে ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে মঙ্গলবার থেকে অনশন শুরু করেছেন ছাঁটাই হওয়া নিরাপত্তারক্ষীরা।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের ক্ষেত্রে আজকের দিনটা শুভ। কর্মক্ষেত্রে আজ শুভ। শরীর-স্বাস্থ্যের ব্যাপারে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। লটারি, শেয়ার ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮০২- ফরাসি লেখক ভিক্টর হুগোর জন্ম
১৯০৮- লেখিকা লীলা মজুমদারের জন্ম
১৯৩১- স্বাধীনতা সংগ্রামী চন্দ্রশেখর আজাদের মৃত্যু
১৯৩৬- চিত্র পরিচালক মনমোহন দেশাইয়ের জন্ম
২০১২- কিংবদন্তি ফুটবলার শৈলেন মান্নার মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৮৯ টাকা ৭২.৫৯ টাকা
পাউন্ড ৯১.৫৯ টাকা ৯৪.৮৮ টাকা
ইউরো ৭৬.৪৯ টাকা ৭৯.৪১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৩,১৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,৯৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪১,৫৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, (ফাল্গুন শুক্লপক্ষ) চতুর্থী অহোরাত্র। রেবতী ৪৭/৪০ রাত্রি ১/৮। সূ উ ৬/৪/১৪, অ ৫/৩৫/২, অমৃতযোগ রাত্রি ১/৫ গতে ৩/৩৫ বারবেলা ২/৪২ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪৯ গতে ১/৩৫ মধ্যে। 
১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্থী, রেবতী ৪২/২৩/২২ রাত্রি ১১/৪/৩৪। সূ উ ৬/৭/১৩, অ ৫/৩৪/৯। অমৃতযোগ দিবা ১/০ গতে ৩/২৮ মধ্যে। কালবেলা ২/৪২/২৫ গতে ৪/৮/১৭ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৫০/৪১ গতে ১/২৪/৪৯ মধ্যে। 
২ রজব 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
এসএসকেএম থেকে ছাড়া পেল পোলবা দুর্ঘটনায় জখম দিব্যাংশ ভকত 

07:08:00 PM

দিল্লি হিংসার ঘটনায় দুটি সিট গঠন করল ক্রাইম ব্রাঞ্চ 

06:49:02 PM

১৪৩ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

04:08:26 PM

জলপাইগুড়িতে ২১০ কেজি গাঁজা সহ ধৃত ৩ 

03:39:45 PM

পুরভোট অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে হবে, রাজ্য নির্বাচন কমিশনারকে নির্দেশ রাজ্যপাল 
পুরভোটের দিনক্ষণ চূড়ান্ত না হলেও প্রশাসনিক তৎপরতা তুঙ্গে। এরমধ্যেই রাজ্য ...বিশদ

01:25:00 PM

লেকটাউনে নির্মীয়মাণ বিল্ডিং থেকে পড়ে মৃত শ্রমিক 

01:10:00 PM