Bartaman Patrika
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 

রাজীব ৭৫
মণিশঙ্কর আইয়ার

ছিয়াশি সালের ডিসেম্বর। অঝোরে তুষারপাত হচ্ছে। আমরা যাচ্ছি কাশ্মীর। কিন্তু একটা সময় আর্মি জানাল, আর যাওয়া সম্ভব নয়। এত তুষারপাতে হেলিকপ্টার ওড়ানো যাবে না। তাহলে? যাব কী করে? বাকিরাও বলল, দিল্লি ফিরে চলুন। কিন্তু প্রধাননমন্ত্রী বললেন, তা হয় না। যাব যখন বলেছি যেতে হবে। লোকেরা অপেক্ষা করে থাকবে যে! ঠিক হল, যাওয়া হবে অন রোড। প্রধানমন্ত্রীই ঠিক করলেন। সেই মতো উধমপুর থেকে গাড়িতে শ্রীনগর। প্রধানমন্ত্রী একটা গাড়িতে, আমি একটায়। পিছনে আমাদের লাগেজ। কাগজপত্র। কিন্তু কিছু দূর যাওয়ার পরেই বিরাট ধস। পাহাড় ধসে নেমে এল রাস্তায়। আমরা এগিয়ে গেলেও মালপত্রের গাড়ি রয়ে গেল ধসের ওপারে। পিছনে। কিন্তু আমরা এগিয়ে চললাম। শ্রীনগর পৌঁছতেই প্রধানমন্ত্রীর মুখ প্রসন্ন। শ্রীনগরও তখন খ্রিস্টমাসের পিকচার পোস্টকার্ড! তুষারে ঢেকে গিয়েছে চারপাশ। তার মধ্যে কাশ্মীরি ছেলেমেয়েরা অপেক্ষা করছে। কিন্তু ওই অবস্থায় কী করে যে ওদের মুখে হাসি লেগেছিল, ভেবে আশ্চর্য হয়েছিলাম। একে কনকনে ঠান্ডা। তায় পায়ে জুতো নেই। যা দেখে প্রধানমন্ত্রী অবাক হয়ে গিয়েছিলেন। তবে আমাকে বললেন, ‘মুখে হাসি রাখবে সব সময়। কাশ্মীর যেমন সুন্দর, তেমনই সেখানকার মানুষজন।’ ওদের চাওয়া পাওয়া মন দিয়ে শুনেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। পরে দিল্লি ফিরে কাশ্মীরের মানুষের জন্য কী করা যায়, তার পরিকল্পনা করেছিলেন। মানুষের সঙ্গে মিশে তাদের জানা, বোঝার চেষ্টা করতেন রাজীব গান্ধী। এমনই প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তিনি। বলতেন, যেখানকার মানুষের জন্য কিছু করবে বলে সরকার ভাবে, সবার আগে সেখানকার মানুষের মন বুঝতে হবে। তাদের রায় নিতে হবে। তবেই তাদের ভারত সম্পর্কে ভালোবাসা বাড়বে। এমনই ছিলেন সেদিনের প্রধানমন্ত্রী... রাজীব গান্ধী। অথচ আজকের সময়ে যা ঘটছে, তা নিয়ে আর বাড়তি বলার কিছু নেই। সবাই দেখছেন। বুঝছেন। এই সময়ের প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে রাজীব সম্পর্কে লিখতে গিয়ে তা‌ই সবার আগে এটাই মনে পড়ছে!
এরকম আরও অনেক ঘটনা আছে। স্রেফ মানুষের মন বোঝার চেষ্টাই নয়। ভারতের সীমান্ত সম্পর্কে কেবল মানচিত্রের রেখায় নয়, প্রান্তিক নাগরি঩কের কাছে পৌঁছেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। রাজীব গান্ধী ছিলেন অ্যাথলিট মানসিকতার মানুষ। কিছুদিন আগেই প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। ঠিক হল, যাওয়া হবে মিজোরামের এক্কেবারে শেষ প্রান্ত। টিলাবোঙ্গ। প্লেটোর উপর হেলিকপ্টার দাঁড়িয়ে। আর রাজীব গান্ধী হেঁটে উঠে যাচ্ছেন আরও উঁচুতে। আমি চলেছি ধীরে, কিছুটা পিছনে। সঙ্গে এক মিজো মানুষ। রাজীবকে ওভাবে উঠে যেতে দেখে সেই মিজো মানুষটি জিজ্ঞেস করল, কে ওই ভদ্রলোক? উত্তর দিলাম, প্রাইম মিনিস্টার। বিশ্বাস হল না তাঁর। বললেন, না। উনি কী করে প্রধানমন্ত্রী হবেন। প্রধানমন্ত্রীর তো গোঁফ দেখেছি টিভিতে। এঁর তো নেই!
কথাটা শুনে আমি হাসছি। পরে শুনে হাসছেন রাজীব গান্ধীও। কিন্তু মনে মনে ঠিক করছেন অন্য কিছু। যা জানলাম ফিরতিপথে। হেলিকপ্টারে। বললেন, ওই মিজো মানুষটার কোনও দোষ নেই। উনি তো বাংলাদেশ টিভি দেখেন। তাই (তৎকালীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি) এরশাদকেই দেখেছেন। টিলাবোঙ্গ বাংলাদেশ সীমান্তে। তাই ওখানে বাংলা টিভি আসে। আমাদের নয়। দিল্লি ফিরেই তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রককে প্রধানমন্ত্রী অর্ডার দিলেন, মিজোরামে দূরদর্শনের টাওয়ার বসান। এবং সেটা টিলাবোঙ্গেই। ওরা যে ভারতীয়, ভারতের অংশে থাকেন মিজোরা, সেটা ওদের বোঝাতে হবে। হলও তাই। যা দেখে আমি বুঝলাম, কেবল ট্যুরিজম নয়। তারই মধ্যে দিয়ে কীভাবে মানুষের মনে পৌঁছানো যায়।
ভারতের মানুষ, সংস্কৃতি নিয়ে গোটা দেশের নাগরিকদের যুক্ত করায় প্রয়াসী ছিলেন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী। বিদেশ মন্ত্রকের আমলা থেকে প্রধানমন্ত্রী অফিসের জয়েন্ট সেক্রেটারি হিসেবে কাজ করার সূত্রে কাছ থেকে দেখেছি তাঁকে। পঞ্চায়েতস্তরে গ্রামের মানুষের কাছেও যাবতীয় অধিকার পূরণে উদ্যোগী। আধুনিক ভারত গড়ার কারিগর তো বটেই। কেবল নিত্য সরকারি কাজের সূত্রে যোগাযোগই নয়, একটা সময়ে আমি রাজীব গান্ধীর স্পিচও লিখতাম। আমার ড্রাফট পছন্দ করতেন। তাই এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের অনেকের আপত্তি উড়িয়ে আমার লেখাই পড়তেন। আসলে পাঞ্জাবের অপারেশন ব্লু-স্টারের সময় মিসেস গান্ধীকে (ইন্দিরা গান্ধী) যে গোপন রিপোর্ট লিখে দিতাম, স্পেশাল পাবলিসিটি গ্রুপের হয়ে কাজ করতাম, তার কপি উনি রাজীব গান্ধীকে দিতেন। আলোচনা করতেন। আমি যদিও তা জানতামই না। পরে রাজীব গান্ধী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে জেনেছি।
তবে সেসব নিজের কথার বাইরে আজ ‘বর্তমান’ কাগজের পাঠকের জন্য অন্য কয়েকটা ঘটনার কথা বলব বলেই ঠিক করেছি। যেখানে অন্য রাজীব গান্ধী রয়েছে। দেশের মানুষই ছিল রাজীব গান্ধীর প্রায়োরিটি। রাজনীতি পরে।
মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী কংগ্রেসের লালথাং হাওলার শপথ গ্রহণে যাওয়া হবে। হঠাৎ রাজীব গান্ধী জানালেন, তিনি অরুণাচলেও যেতে চান। একইদিনে। আমি সঙ্গে সঙ্গে জর্জকে বললাম। ভিনসেন্ট জর্জ, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব। বললাম, কী হবে? জর্জ বলল, প্রধানমন্ত্রী চাইছেন। ব্যবস্থা করতেই হবে। হলও। ইটানগরে একটা জনসভার আয়োজন হল। প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী মঞ্চে বক্তৃতা দিচ্ছেন। আমি সাধারণভাবে যেমন থাকতাম, তেমনই মঞ্চের নীচে একটা কোণে দাঁড়িয়ে শুনছি। কিন্তু এ কী শুনছি! রাজীব গান্ধী ঘোষণা করলেন, কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে অরুণাচল হবে সম্পূর্ণ রাজ্য। আমার বিশ্বাসই হচ্ছিল না। এমন ঘোষণা? তাও চীন সফরের আগে! তাই সভার পর ডিব্রুগড় থেকে দিল্লি ফেরার পথে প্রোটোকল ভেঙে আমি প্রধানমন্ত্রীর কেবিনে গেলাম। জানতে চাইলাম, যা স্বাধীনতা দিবসের বক্তৃতায় বলার কথা, তা আগেভাগেই কেন ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী? তাও চীন যাওয়ার আগে? রাজীব গান্ধী হেসে জবাব দিলেন, মণি, আমরাই যদি নিজেদের না চিনি, বর্ডার না বুঝি, তাহলে চীনকে কী বোঝাব! সীমান্ত সম্পর্কে সাংঘাতিক ওই বোঝাপড়া এবং সঙ্গে কূটনৈতিক বার্তা দেওয়ার বিষয়টি শুনে আমি চুপ করে গিয়েছিলাম। বলেছিলাম, আই স্যালুট ইউ!
উত্তর-পূর্ব সহ সীমান্তের মানুষকে কীভাবে কাছে টানা যায়, কীভাবে মেনল্যান্ডের সঙ্গে নাগরিকদের জোড়া যায়, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাজীব গান্ধীকে তা বারবার দেখেছি। একের পর এক ঘটনায়। কেবল সরকারি প্রোটোকলে নয়। সেখানকার মানুষের আবেগকে ছুঁয়ে কীভাবে কাজ করতে হয়, তারও সাক্ষী আমি। লাদাখে একটা জায়গা আছে... জাংস্কার ভ্যালি। পদুম গ্রাম। রাজীব গান্ধী ঠিক করলেন সেখানে যাবেন। ব্যবস্থা হল। কিন্তু তুষারপাত হচ্ছে। বরফে ঢেকে গিয়েছে পদুম। বরফের উপর পাতা হয়েছে লোহার মোটা পাত। সেখানেই হেলিকপ্টার নামবে। কিন্তু নামবে কী? হেলিকপ্টারের রোটর ব্লেডের প্রচণ্ড গতির দাপটে সেই পাত উড়ে যাওয়ার উপক্রম। পাইলট জানিয়ে দিল, অসম্ভব। নামা যাবে না। তাই অগত্যা হেলিকপ্টার উড়ে গেল কার্গিলে। খানিকক্ষণ বাদে তুষারপাত কমলে প্রস্তাব দিলাম, ফের একবার চেষ্টা করে দেখি। আমি যাচ্ছি পদুম। তারপর সেখান থেকে পরিস্থিতি জানাব। ফিরে গিয়ে দেখি তখনও প্রধানমন্ত্রীকে দেখার জন্য ঠায় উপত্যকার মানুষ দাঁড়িয়ে। আমি এসপিজি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে কার্গিলে খবর পাঠালাম। হেলিকপ্টার উড়ে গেল কার্গিল। অপেক্ষমান মানুষকে বললাম, আপনারা দাঁড়ান। ওয়াজিরে আজম অব আ রহে হ্যায়। কিছুক্ষণের মধ্যে কার্গিল থেকে হেলিকপ্টার আবার এল। প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী। সঙ্গে ফারুক আবদুল্লা। কিন্তু ফের একই হাল হল। লোহার পাত উড়ে যাওয়ার উপক্রম। এদিকে প্রধানমন্ত্রীও জানিয়ে দিলেন, তিনি নামবেনই। পাইলট মানা করলেন। কিন্তু রাজীব গান্ধী অটল। নামবেন। শেষমেশ মাটি থেকে প্রায় এক ফুট ওপরে হেলিকপ্টার ভেসে রইল। চলন্ত অবস্থায় দরজা খুলে লাফিয়ে নামলেন রাজীব গান্ধী। অনুসরণ করলেন ফারুক। কেবল নেমে মানুষের সঙ্গে কথা বলাই নয়, একইরকম ঝুঁকি নিয়ে ভেসে থাকা হেলিকপ্টারে উঠেওছিলেন রাজীব গান্ধী। বলেছিলেন, দেশের মানুষের জন্য এই সামান্য ঝুঁকিও যদি না নিতে পারি, তাহলে আর কী!
একবার নয়। বারবার ঝুঁকি নিয়েছেন রাজীব গান্ধী। আন্দামান নিকোবরে গ্রেটার নিকোবরে পিগমেলিয়ান পয়েন্টে (এখন যা ইন্দিরা পয়েন্ট) যাবেন। মূল ভূখণ্ড থেকে জায়গাটা প্রায় ৮০ নটিক্যাল মাইল। জায়গাটা ভারতের মূল ভূখণ্ডের চেয়ে সুমাত্রার কাছে। ওখানে অবসরপ্রাপ্ত শিখ সেনাদের একাংশ থাকতেন। রাজীব গান্ধী বললেন, আমি যাব। এসপিজির আপত্তি। মিসেস গান্ধীর হত্যার স্মৃতি রয়েছে। তাই এসপিজি নারাজ। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীও জানিয়ে দিলেন, ওরা আমাদেরই দেশের নাগরিক। আমাদের নিজেদের লোক। তাই ওদের কাছে যাবই। ভয় কী?
অথচ এই রাজীবকেই আমি চিনতাম না। রাজীব গান্ধী যে আমার হয়ে কেমব্রিজে ক্যাম্পেন করেছেন, তাও জেনেছি পরে। আমি ইউনিভার্সিটির ছাত্র নির্বাচনে লড়ছি। প্রেসিডেন্ট পদ। যদিও জিততে পারিনি। তবে সেক্রেটারি হয়েছিলাম। ভারতীয় ছাত্রছাত্রীদের কাছে গিয়ে রাজীবের প্রচার ছিল, ভারতীয় একজন প্রেসিডেন্টের পদে লড়ছেন। তাঁকে ভোট দেবেন না? অনেক পরে প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর সঙ্গে তাঁর জয়েন্ট সেক্রেটারি হিসেবে পিএমওতে কাজ করার সময় ওই ঘটনার কথা জেনেছিলাম। সেই থেকে আমি রাজীবের প্রতি কৃতজ্ঞ। মজার ব্যাপার হল, স্কুল এবং ইউনিভার্সিটিতে রাজীব আমার জুনিয়র থাকলেও পরে ও আমার কাছে হল ‘স্যার।’ প্রাইম মিনিস্টার। কোনওদিন নাম ধরে ডাকিনি। অলওয়েজ বলেছি স্যার। ও ডাকত মণি বলে। সেটাই স্বাভাবিক। পদ মর্যাদা এবং ব্যক্তিত্বই বড়। বয়স নয়। যদিও আমাদের সম্পর্ক ছিল আন্তরিক।
মনে পড়ছে দুন স্কুলের জুনিয়রকেও। আমার চেয়ে রাজীব ছিল তিন বছরের জুনিয়র। একটা লাজুক ছেলের মুখ ভেসে ওঠে। ঠান্ডা গলায় জিজ্ঞেস করেছিল, ‘আমি কি একটু সাঁতার কাটতে পারি?’ স্কুলে সব ক্লাসেই সাঁতারের সময় ভাগ করা ছিল। সেই সময়ের বাইরে হলে অনুমতি নিতে হতো। আমরা সিনিয়র। ওটা ছিল আমাদের সময়। কিন্তু একজন জুনিয়র এসে সাঁতার কাটতে চাইল। আমার অন্য ক্লাসমেটরা ততটা আগ্রহ দেখাল না। কিন্তু আমি বললাম, ওকে। যাও। অনুমতি আদায় করে সেই ছেলেটির মুখে কী আনন্দ। স্মিত হাসি। আজীবন সেদিনের সেই নিষ্পাপ হাসিটা অটুট ছিল রাজীবের। ৭৫ বছরের জন্মদিনে সংসদ ভবনের সেন্ট্রাল হলে রাজীব গান্ধীর ছবির দিকে তাকিয়েও দেখলাম, সেই হাসিটা এখনও একইরকম প্রাণবন্ত!
 অনুলিখন: সন্দীপ স্বর্ণকার
25th  August, 2019
দেশবন্ধু
সমৃদ্ধ দত্ত

গান্ধীজির একের পর এক অনুগামীকে নিজের দিকে টেনে আনতে সক্ষম হলেও, তাঁর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হয়নি একবিন্দুও। আবার তাঁকেই দীক্ষাগুরু হিসেবে স্থির করেছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু। জন্মের সার্ধশতবর্ষে ফিরে দেখা সেই চিত্তরঞ্জন দাশকে। বিশদ

23rd  February, 2020
পথদ্রষ্টা ফালকে
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

‘রাজা হরিশ্চন্দ্র’-এর হাত ধরে পথচলা শুরু হয় প্রথম ভারতীয় পূর্ণাঙ্গ কাহিনীচিত্রের। ভারতীয় জাতীয়তাবাদের সঙ্গেও ফালকের নাম অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। ৭৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে এ দেশের সিনেমার পথদ্রষ্টাকে ফিরে দেখা। 
বিশদ

16th  February, 2020
ইতিহাসে টালা
দেবাশিস বসু

 ‘টালা’ কলকাতার অন্যতম প্রাচীন উপকণ্ঠ। ১৬৯০ সালের ২৪ আগস্ট জব চার্নক নেমেছিলেন সুতানুটিতে। ১৬৯৩ সালের ১০ জানুয়ারি তিনি মারা যান। অর্থাৎ তিনি সুতানুটিতে ছিলেন জীবনের শেষ আড়াই বছর। তাঁর মৃত্যুর প্রায় পাঁচ বছর পরে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি সাবর্ণ চৌধুরীদের কাছ থেকে গোবিন্দপুর, কলকাতা ও সুতানুটি গ্রাম তিনটির জমিদারি স্বত্ব কিনে নেয়।
বিশদ

09th  February, 2020
মহাশ্বেতা 

সন্দীপন বিশ্বাস: ‘সরস্বতী পুজো।’ শব্দ দুটো লিখে ল্যাপটপের কি-বোর্ড থেকে হাতটা সরিয়ে নিল শুভব্রত। চেয়ারে হেলান দিয়ে বাইরে চোখ। রাত এখন গভীর। আর কয়েকদিন পরেই সরস্বতী পুজো। এডিটর একটা লেখা চেয়েছেন। পুজো নিয়ে স্পেশাল এডিশনে ছাপা হবে। সাহিত্যিক হিসেবে শুভর একটা খ্যাতি আছে। 
বিশদ

02nd  February, 2020
শতবর্ষে জনসংযোগ
সমীর গোস্বামী

অনেকে মজা করে বলেন, সেলুনে যিনি হেয়ার স্টাইল ঠিক করেন, তিনি অনেক সময় বিশিষ্ট মানুষের কানেও হাত দিতে পারেন। জনসংযোগ আধিকারিক বা পিআরও’রাও খানিকটা তেমনই। প্রচারের স্বার্থে তাঁরা কেবল সাহসের উপর ভর করে অনেক কিছু করতে পারেন। মনে পড়ছে, বহু কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বা গণ্যমান্য ব্যক্তিকে কোনও কিছু উদ্বোধনের সময় ফিতে কাটতে দিতাম না। 
বিশদ

26th  January, 2020
অনন্য বিকাশ 

পাহাড়ী স্যান্যাল থেকে উত্তমকুমার সবাই ছিলেন তাঁর অভিনয়ের গুণমুগ্ধ ভক্ত। হেমেন গুপ্তের ‘৪২’ ছবিতে এক অত্যাচারী পুলিস অফিসারের ভূমিকায় এমন অভিনয় করেছিলেন যে দর্শকাসন থেকে জুতো ছোঁড়া হয়েছিল পর্দা লক্ষ্য করে। এই ঘটনাকে অভিনন্দন হিসেবেই গ্রহণ করেছিলেন তিনি। সেই অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনেতা বিকাশ রায়কে নিয়ে লিখেছেন বেশ কিছু সিনেমায় তাঁর সহ অভিনেতা ও মণীন্দ্রচন্দ্র কলেজের বাংলা বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান অধ্যাপক ডঃ শঙ্কর ঘোষ।  
বিশদ

19th  January, 2020
যদি এমন হতো! 
সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়

যদি এমন হতো? সিমুলিয়ার দত্ত পরিবারে নরেন্দ্রনাথ এসেছেন, ধনীর আদরের সন্তান; কিন্তু শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেব পৃথিবীতে আসেননি। তাহলে নরেন্দ্রনাথ কি স্বামী বিবেকানন্দ হতেন! মেধাবী, সাহসী, শ্রুতিধর এই সুন্দর যুবকটি পিতাকে অনুসরণ করে হয়তো আরও শ্রেষ্ঠ এক আইনজীবী হতেন, ডাকসাইটে ব্যারিস্টার, অথবা সেই ইংরেজযুগের সর্বোচ্চ পদাধিকারী, ঘোড়ায় চাপা ব্রাউন সাহেব— আইসিএস। ক্ষমতা হতো, সমৃদ্ধি হতো।
বিশদ

12th  January, 2020
সেলুলয়েডের শতবর্ষে হিচকক 
মৃন্ময় চন্দ

‘Thank you, ….very much indeed’
শতাব্দীর হ্রস্বতম অস্কার বক্তৃতা। আবার এটাও বলা যেতে পারে, মাত্র পাঁচটি শব্দ খরচ করে ‘ধন্যবাদজ্ঞাপন’।
হ্যাঁ, হয়তো অভিমানই রয়েছে এর পিছনে।
বিশদ

05th  January, 2020
ফিরে দেখা
খেলা

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি। 
বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
বিনোদন

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।  
বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
রাজ্য 

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।   বিশদ

29th  December, 2019
ফিরে দেখা
দেশ-বিদেশ 

আর তিনদিন পরেই নতুন বছর। স্বাগত ২০২০। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে পুরনো বছরকেও। তাই ২০১৯ সালের বেশকিছু স্মরণীয় ঘটনার সংকলন নিয়ে চলতি বছরের সালতামামি।  
বিশদ

29th  December, 2019
বঙ্গ মিষ্টিকথা 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মিষ্টান্ন ভোজন। যার সঙ্গে জড়িয়ে বাঙালির আবেগ, অনুভূতি, অ্যাডভেঞ্চার। ডায়েটিংয়ের যুগে আজও বহু বাঙালি ক্যালরির তোয়াক্কা করে না। খাওয়া যতই আজব হোক, মিষ্টি না হলে ভোজ সম্পূর্ণ হয় না যে! 
বিশদ

22nd  December, 2019
সংবিধানের ৭০
সমৃদ্ধ দত্ত

ভারত এবং বিশেষ করে আগামীদিনের শাসক কংগ্রেসের সঙ্গে এভাবে চরম তিক্ততার সম্পর্ক করে রেখে পৃথক পাকিস্তান পাওয়ার পর, সেই নতুন দেশের নিরাপত্তা কতটা সুনিশ্চিত? কীভাবে সম্ভাব্য পাকিস্তানের নিরাপত্তা সুরক্ষিত করা যাবে? কী কী সমস্যা আসতে পারে?  
বিশদ

15th  December, 2019
একনজরে
সুকান্ত বেরা  কলকাতা: ইডেনের ঘড়িতে তখন দুপুর ১২টা বেজে ২০ মিনিট। প্র্যাকটিস শেষে বাংলার কোচ অরুণ লাল ও ক্যাপ্টেন অভিমন্যু ঈশ্বরণ যখন সাংবাদিক সম্মেলন ...

 বিএনএ, চুঁচুড়া: সম্পত্তি বিবাদে ছোট ভাইকে খুনের ঘটনায় বড় ভাইকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিলেন চুঁচুড়ার ফাস্ট ট্র্যাক (প্রথম) আদালতের বিচারক শুভেন্দু সাহা। গত বৃহস্পতিবার বিচারক বিশ্বনাথ মালিক নামে ওই বিচারাধীন বন্দিকে দোষী সাব্যস্ত করেন। ...

 জেনিভা, ২৮ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): পাকিস্তানের মাটিকে নাশকতা ছড়াতে ব্যবহার করা এবং সন্ত্রাসে আর্থিক মদতের প্রসঙ্গে ফের ইসলামাবাদকে সতর্ক করল ভারত। তাও আবার রাষ্ট্রসঙ্ঘের মঞ্চে। ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে সেগুলির মধ্যে কয়েকটির বাজার বন্ধকালীন দর। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যায় মাঝেমধ্যে উদ্বেগ দেখা দেবে। প্রেম-প্রণয়ে শুভাশুভ মিশ্র, মাঝেমধ্যে মতান্তর ঘটবে। বুঝেশুনে চলা দরকার। কর্মে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৪৬৮ - পোপ দ্বিতীয় পলের জন্ম
১৭১২ - সুইডেনে ২৯ ফেব্রুয়ারির পর ৩০ ফেব্রুয়ারি পালনের সিদ্বান্ত হয়। এর কারণ তারা আগের নিয়মে ফিরতে চেয়েছিল।
১৮৯৬ - ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেসাইয়ের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭১.২৯ টাকা ৭৩.০০ টাকা
পাউন্ড ৯১.৩৬ টাকা ৯৪.৬৮ টাকা
ইউরো ৭৭.৮৮ টাকা ৮০.৮৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪২,৯৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,৭৬৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪১,৩৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, (ফাল্গুন শুক্লপক্ষ)পঞ্চমী। ভরণী অহোরাত্র ৭/৪৮ দিবা ৯/১০। সূ উ ৬/২/৩৭, অ ৫/৩৫/৫৭, অমৃতযোগ দিবা ৯/৫৩ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। রাত্রি ৮/৫ গতে ১০/৩৪ মধ্যে পুনঃ ১২/১৩ গতে ১/৫৩ মধ্যে পুনঃ ২/৪৩ গতে ৪/২২ মধ্যে। বারবেলা ৭/৩০ মধ্যে পুনঃ ১/১৬ গতে ২/৪২ মধ্যে পুনঃ ৪/৮ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/৯ মধ্যে পুনঃ ৪/২৯ গতে উদয়াবধি।
১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, ষষ্ঠী, ভরণী ৫৩/২৫/৩২ রাত্রি ৩/২৭/৪৩। সূ উ ৬/৫/৩০, অ ৫/৩৫/১১। অমৃতযোগ দিবা ৯/৪৯ গতে ১২/৫৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৬ গতে ১০/৩৩ মধ্যে ও ১২/১১ গতে ১/৪৯ মধ্যে ও ২/৩৮ গতে ৪/১৭ মধ্যে। কালবেলা ৭/৩১/৪৩ মধ্যে ও ৪/৮/৫৯ গতে ৫/৩৫/১১ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৮/৫৮ মধ্যে ও ৪/৩১/৪২ গতে ৬/৪/৩৭ মধ্যে।
৪ রজব

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মালদহের ইংলিশবাজারে বাড়িতে ঢুকে গৃহবধূকে ছুরি তিন দুষ্কৃতীর, চাঞ্চল্য 

04:04:32 PM

বাঁকুড়ার জয়পুরে ট্রাক্টরের ধাক্কায় শিশুর মৃত্যু, মৃতদেহ আটকে চলছে বিক্ষোভ 

01:45:04 PM

চার নম্বর ব্রিজে স্কুটিতে ধাক্কা গাড়ির, জখম চালক 

01:19:00 PM

কামারহাটির প্রান্তিক নগরে গ্যাস সিলিন্ডার ফেটে আগুন, দমকলের চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে 

12:07:00 PM

ঋণ দেওয়ার নামে প্রতারণা, ধৃত ১ 
ঋণ দেওয়া ও তামাদি হওয়া বিমা পুনর্জীবিত করার নাম করে ...বিশদ

11:32:51 AM

মুর অ্যাভেনিউতে বাড়িতে চুরি, ধৃত ১ 
মুর অ্যাভেনিউতে এক আইনজীবীর বাড়িতে চুরির অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার ...বিশদ

10:57:03 AM