Bartaman Patrika
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 

শতবর্ষে  সারাভাই
মৃন্ময় চন্দ

চন্দ্রযান-২’র সাফল্যে গর্বিত ভারত। অভিজাত মহাকাশ ক্লাবের সদস্যদেশগুলির সঙ্গে ভারত আজ এক পংক্তিতে। মহাকাশ গবেষণায় ভারতের ঈর্ষণীয় সাফল্যের রূপকার নিঃসন্দেহে ক্ষণজন্মা বিরল প্রতিভাধর মিতভাষী এক বিজ্ঞানী—বিক্রম সারাভাই। একার হাতে যিনি গড়ে দিয়ে গেছেন ভারতের বিপুলা মহাকাশ সাম্রাজ্য। ১২ই আগস্ট ছিল তাঁর জন্মশতবার্ষিকী।

মিশন চন্দ্রযান-২। ১৪ জুলাই রাত ২.৫১ মিনিট (সরকারিভাবে ১৫ জুলাই)। অতন্দ্রপ্রহরী বিশ্ব, জিএসএলভি (জিওসিনক্রোনাস স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকেল, মার্ক থ্রি-এম ওয়ান) ‘বাহুবলী’ ঘাড়ে করে নিয়ে যাবে ল্যান্ডার ‘বিক্রম’ আর রোভার ‘প্রজ্ঞান’কে। কিন্তু যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে বাতিল হয়ে গেল উড়ান। ২২ জুলাই দুপুর ২.৪৩ মিনিটে পুনর্যাত্রা। কঠিন ও তরল জ্বালানি পেটে ভরে শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান স্পেস রিসার্চ সেন্টার থেকে কান ফাটানো আওয়াজে সোনালি সাদা ঘন মেঘের চামর দুলিয়ে আকাশে ডানা মেলল ‘বাহুবলী’। ৯৭৪ সেকেন্ডে চন্দ্রযান-২ ল্যান্ডার-রোভার সমেত পৌঁছে গেল পৃথিবীর কক্ষপথে।
ইসরোর চেয়ারম্যান কে সিভান এই ‘ফিফটিন মিনিটস অব টেরর’ ছিলেন বাকরুদ্ধ। সম্বিত ফিরল সকলের সমবেত করতালিতে। হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন তিনি। ৭ সেপ্টেম্বর আবার ১৫ মিনিটের রুদ্ধশ্বাস প্রহর গোনা। সেদিন ৬ হাজার ১২০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিবেগে অরবাইটার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে ‘প্রজ্ঞানকে’ (২৭ কেজি) কোলে নিয়ে ল্যান্ডার ‘বিক্রম’ (১.৪ টন) টলমল পায়ে চাঁদের দক্ষিণ-মেরুতে দুই জ্বালামুখ ‘মানজিনাস-সি’ ও ‘সিম্পেলিয়াস-এনের’ মাঝামাঝি খানিকটা সমতলভূমি খুঁজে নামার চেষ্টা করবে। ১০ মিনিট ৩০ সেকেন্ড ধরে চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ৭.৪ কিমি উচ্চতায় পাক খাবে বিক্রম। গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৫২৬ কিমি। পরবর্তী ৩৮ সেকেন্ডে গতিবেগ কমে হবে ঘণ্টায় ৩৩১.২ কিমি, চাঁদের মাটি থেকে উচ্চতা দাঁড়াবে ৫ কিমি। পরের ৮৯ সেকেন্ডে ৪০০ মিটার উচ্চতায় নেমে যাবে ‘বিক্রম’, ১২ সেকেন্ড চক্কর খেয়ে বোঝার চেষ্টা করবে কোথায় নামা সমীচীন। ৬৬ সেকেন্ডে পরে দূরত্ব কমে দাঁড়াবে ১০০ মিটারে। আবারও ২৫ সেকেন্ড ঘুরপাক খেয়ে ‘বিক্রম’ ঠিক করবে কোথায় নামা নিরাপদ! ১০ মিটার উচ্চতায় পৌঁছে ১৩ সেকেন্ড সময় নিয়ে চতুর্দিক নিরীক্ষণ করবে ল্যান্ডার ‘বিক্রম’। স্বয়ংক্রিয় ভাবে চারটি পা বেরোবে ‘বিক্রমের’। চতুষ্পদে সে থিতু হওয়ার চেষ্টা করবে চাঁদের মাটিতে। দীর্ঘযাত্রার ধকল সামলাতে বিশ্রাম নেবে ক্ষণকাল। চন্দ্র-ভূমি স্পর্শ করা মাত্র সেন্সর মারফৎ ‘বিক্রম’-এর হৃদপিণ্ড বা ইঞ্জিন চালু হবে। নানা আনুষঙ্গিক কাজকর্ম সেরে ১৫ মিনিট পরে ‘বিক্রম’ প্রথম ছবি পাঠাবে। শ্রীহরিকোটায় অভিভাবকরা বিচার-বিশ্লেষণ করবেন বিক্রম সঠিক জায়গায় অবতরণ করল কি না! ৪ ঘণ্টা পরে অতিসন্তর্পণে ‘প্রজ্ঞানকে’ ভূমিষ্ঠ করবে ‘বিক্রম’। ‘প্রজ্ঞান’ তার ৬ পায়ে (৬টি চাকা) বিপুল অনুসন্ধিৎসায় শুরু করবে তার চরৈবেতি।
জন্মশতবর্ষে (জন্ম ১২ আগস্ট, ২০১৯) বিক্রম সারাভাইকে শ্রদ্ধা জানাতে চন্দ্রযান ২’র ল্যান্ডারের নাম রাখা হয়েছে ‘বিক্রম’। ভারতের মহাকাশ গবেষণার পথিকৃৎ, ইসরোর প্রথম চেয়ারম্যান বিক্রম আম্বালাল সারাভাই। ভারতের প্রথম মহাকাশ উড়ান তাঁর সৌজন্যেই। সারাভাইয়ের প্রজ্ঞা-পাণ্ডিত্য-দূরদর্শিতা শুরুতেই ভারতকে মহাকাশ বিজ্ঞানে বেশ কয়েক কদম এগিয়ে দিয়েছিল। পঞ্চাশের দশকের শেষাশেষি বেলুন ও ছোটখাট রকেটের মহাকাশে পাড়ি জমানোর মাধ্যমে শুরু হয়েছিল ভারতের মহাকাশ অণ্বেষণ পর্ব। সারাভাইয়ের হাত ধরে ১৯৪৭ সালের ১১ নভেম্বর, মহাকাশ গবেষণার আনুষ্ঠানিক সূচনা হয় আমেদাবাদের ‘ফিজিক্যাল রিসার্চ ল্যাবরেটরি’ বা ‘পিআরএল’-এ।

বিক্রম ও মহাকাশ
আমেদাবাদের এক অত্যন্ত ধনী ব্যবসায়িক পরিবারে ১৯১৯ সালের ১২ই অগস্ট আট ভাইবোনের সংসারে বিক্রমের জন্ম। ১৯৩৭ সালে প্রথাগত পড়াশোনা শেষে বিক্রম পাড়ি জমালেন কেমব্রিজের সেন্ট জনস কলেজে। ১৯৪০ সালে অঙ্ক ও বিজ্ঞানে ‘ট্রাইপস’ ডিগ্রি লাভ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শুরুতেই ভারতে ফিরে এলেন বিক্রম। সোজা চলে গেলেন ব্যাঙ্গালোরে ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সায়েন্সে নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী সি ভি রামনের কাছে। সেখানেই পরিচয় হোমি ভাবার সঙ্গে। বিক্রম তখন ‘কসমিক রে’ বা মহাজাগতিক রশ্মি সংক্রান্ত গবেষণায় নাওয়াখাওয়া ভুলেছেন। মহাজাগতিক রশ্মি পাকড়াও করতে ‘ন্যারো অ্যাঙ্গেল টেলিস্কোপ’ বসিয়েছিলেন কোদাইকানাল, তিরুবনন্তপুরম ও গুলমার্গে। ১৯৪৭ সালে ‘কসমিক রে ইনভেস্টিগেশন ইন ট্রপিকাল ল্যাটিচিউড’ তাঁকে পিএইচডি ডিগ্রি এনে দিল। ১৯৪৭ সালে ভারতের স্বাধীনতা লাভ। জওহরলাল নেহরু প্রধানমন্ত্রী। কেমব্রিজেরই ‘হ্যারো’তে জওহরলালের পড়াশোনা। পরিচয় ছিল সারাভাইয়ের সঙ্গেও। বিজ্ঞান প্রযুক্তি ছাড়া ভারতকে যে এক পা’ও এগনো যাবে না, নেহেরু-সারাভাই দু’জনেই তা মনেপ্রাণে বিশ্বাস করতেন।
দরিদ্র ভারতে ‘মহাজাগতিক রশ্মি’ অশ্বডিম্ব ছাড়া কোনও হিতই যে সাধন করতে পারবে না, সেটা সত্বর উপলব্ধি করেই বিক্রম মনোনিবেশ করলেন কৃষি/বয়নশিল্পের উন্নতিতে। গান্ধীজির শিষ্য। শান্তি-অহিংসা তাঁর আরাধ্য। ভারতে ‘পাগোয়াস সোসাইটির’ গোড়াপত্তন তিনিই করেছিলেন। তাঁর হাত ধরেই পথচলা শুরু ‘আমেদাবাদ টেক্সটাইল ইন্ড্রাস্ট্রিজ রিসার্চ অ্যাসোসিয়েশন’-এর। এরপর ১৯৫০ সালে সারাভাই কেমিক্যালস, ১৯৫৫’তে সুহৃদ গাইগি লিমিটেড, স্বস্তিক অয়েলস মিলস, ১৯৫৮’তে সারাভাই-মার্ক লিমিটেড ও কলকাতার সারাভাই ফার্মাসিউটিক্যালস। বরোদায় ‘সারাভাই রিসার্চ সেন্টার’ আর ১৯৬০ সালে ‘অপারেশনস রিসার্চ গ্রুপ’ বিক্রমেরই মস্তিষ্কপ্রসূত। বহুকাল ঔপনিবেশিক শাসনে কাটানোর পর চিটচিটে এক হীনমন্যতা আঠার মতো সেঁটে ছিল ভারতের জনগণমনে। ১৯৬০-এ বিক্রম রাষ্ট্রসঙ্ঘের ‘পিসফুল ইউজেস অব আউটার স্পেস’ কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন। আমেরিকান নীতিনির্ধারকরা বিক্রমের মধ্যে একইসঙ্গে ধুরন্ধর ব্যবসায়ী ও এক সফল মহাকাশ বিজ্ঞানীকে খুঁজে পেয়েছিল। তখনই তিনি ‘এমআইটি’র ভিজিটিং ফ্যাকাল্টি, ভারতের মার্কিন দূতাবাস তাঁর সম্পর্কে ছিল বরাবরই উচ্ছ্বসিত। ১৯৬০-এ চীনের পারমাণবিক বিস্ফোরণের পরই ভারত ঝাঁপাল রকেট তৈরিতে। নাসার সঙ্গে যোগাযোগ করে ভাবা ও সারাভাই সলিড কন্ট্রোলড অরবাইটাল ইউটিলিটি টেস্ট সিস্টেম (SCOUT) রকেট জোগাড়ে তৎপর হন। হাল্কা উপগ্রহকে কক্ষপথে স্থাপন করার লঞ্চ ভেহিকেল ‘স্কাউট’।
‌১৯৬১’র আমেরিকান বসন্ত। বিক্রম পড়াচ্ছেন এমআইটিতে। সেখানেই আলাপ বিশ্বখ্যাত পদার্থবিদ ব্রুনো রসেইয়ের সঙ্গে। আলাপ হল আইওয়ার জেমস ভ্যান অ্যালেন ও শিকাগোর জে এ সিম্পসন এবং পি মেয়ারের সঙ্গে। আড্ডাচ্ছলে বিক্রম তাঁর মনের কথা ব্যক্ত করলেন। কীভাবে ভারতে শুরু করা যায় মহাকাশ চর্চা? নুন আনতে পান্তা ফুরনো সদ্য স্বাধীন হওয়া একটি দেশ। মহাকাশ গবেষণার বিপুল খরচ জোগাড় হবে কীভাবে? কোমর বেঁধে নামলেন বিক্রমসহ চার তরুণ তুর্কি। তাঁদের প্রবল পরাক্রমে নতজানু ‘নাসা’ সর্বতোভাবে ভারতকে সাহায্যে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। নাসার সহায়তায় আমেদাবাদের পিআরএল, বোম্বের টিআইএফআর ও টাটা ইনস্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার ফিজিক্সে জোরকদমে শুরু হল মহাকাশ চর্চা ও অনুসন্ধান।

গবেষণার দিকনির্ণয়
নাসার সঙ্গে যৌথ কারিগরি সহায়তায় ঠিক হল ভারত মূলতঃ ভূচুম্বকত্ব, সোলার রেডিও অ্যাস্ট্রোনমি, ৩০—১৫০ কিমি ঊর্ধ্বে মেঘ-বৃষ্টি-রোদ, চৌম্বকক্ষেত্রে বিকিরিত তড়িদায়িত কণিকা আর ইলেকট্রো জেট গবেষণায় মনোনিবেশ করবে। পৃথিবীবিখ্যাত আবহবিজ্ঞানী হ্যাম্পশায়ার ইউনিভার্সিটির লরেন্স কাহিলের সঙ্গে তখনই পরিচয় বিক্রমের। পরিচয় থেকে সখ্যতা। কাহিল পরবর্তীতে বেশ কয়েকবার ভারতেও আসেন। তাঁর তত্ত্বাবধানেই শুরু হল ভারতের সাউন্ডিং রকেট উৎক্ষেপণের প্রাথমিক প্রস্তুতি। বায়ুমণ্ডলের ৮০—১৬০ কিমি উচ্চতায় আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতির হদিশ পেতে কঠিন জ্বালানিতে ধাবমান সাউন্ডিং রকেটের কোনও বিকল্প নেই। ১৯৬১’র জুলাইতে নাসা সারাভাইকে একটি চিঠি পাঠিয়ে জানাল মউ স্বাক্ষরিত হবে নাসা ও আমেদাবাদের পিআরএলের মধ্যে। মহাশূন্যে ভ্রাম্যমাণ ‘গামা রে-ইলেভেন’ উপগ্রহ মারফত আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতি সম্পর্কে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে তথ্যাদি মিলছিল, ভারত তার সবটাই ব্যবহার করতে পারবে। ১৯৬১’র ৬ সেপ্টেম্বর, বিশ্বে সর্বপ্রথম, ‘পিআরএলের’ ঘরে পৌঁছল নাসার ‘টেলিমেট্রি রিসিভিং ফেসিলিটি’। ভারতে নাসার প্রথম পদার্পণ এই যন্ত্রটির মাধ্যমেই। ফেব্রুয়ারি ১৯৬২। ডিপার্টমেন্ট অব অ্যাটমিক এনার্জিতে বিক্রম সারাভাইয়ের চেয়ারম্যানশিপে ‘ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কমিটি ফর স্পেস রিসার্চ’ (INCOSPAR) তৈরির অনুমোদন দিল মন্ত্রিসভার সায়েন্টিফিক অ্যাডভাইসরি কমিটি। এর প্রথম বৈঠক হয় ২২ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬২। বিক্ষিপ্ত, অগোছালো মহাকাশচর্চাকে এক ছাতার তলায় নিয়ে আসার প্রচেষ্টা। তারই ফলশ্রুতিতে ১৯৬৯ সালে তৈরি হল ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন বা ইসরো।

থুম্বার জন্মবৃত্তান্ত
রাষ্ট্রসঙ্ঘের ‘কমিটি অন দি পিসফুল ইউজেস অব আউটার স্পেস’ সাউন্ডিং রকেট উৎক্ষেপণে দক্ষিণ গোলার্ধে বহুদিন ধরেই একটা যুতসই জায়গার খোঁজ করছিল। সারাভাইয়ের মনে হয়েছিল ভারতের মতো গরীব দেশে আবহাওয়ার পূর্বাভাস খুবই জরুরি। তাতে চাষবাসের যেমন সুবিধা হবে, তেমনি বন্যা-খরায় অহেতুক জীবনহানিও অনেকটা আটকানো সম্ভব। সেইজন্য ভূপৃষ্ঠের ৪০—২০০ কিমি ঊর্ধ্বে আয়নোস্ফিয়ারে নিপুণ নজরদারি প্রয়োজন। বেলুনের পক্ষে যে উচ্চতায় নজরদারি অসম্ভব, আবার উপগ্রহের সাবলীল প্রদক্ষিণেও এই উচ্চতা ঝুঁকির। মুশকিল আসান করতে পারে একমাত্র সাউন্ডিং রকেট। শুরু হল অনুসন্ধান, ভারতের জিও ম্যাগনেটিক ইকয়েটরের, যেখান থেকে উৎক্ষেপণ করা হবে সাউন্ডিং রকেট। কেরল উপকূল আদর্শ জায়গা বলে বিবেচিত হল। ই ভি চিটনিসের নেতৃত্বে গোটা অনুসন্ধান পর্বটা চলেছিল। কারণ বিষুব অঞ্চলের ঠিক কোন জায়গা রকেট উৎক্ষেপণের পক্ষে আদর্শ, তা খুঁজে বের করার জন্য তিনিই ছিলেন যোগ্যতম ব্যক্তি। কোচিন-আলেপ্পি-কুইলন-ত্রিবান্দ্রম-কেপ কমোরিনে (কন্যাকুমারিকা) তন্নতন্ন করে খোঁজ চলেছিল। থুম্বা ছাড়াও আরও কিছু জায়গা পরিদর্শকদের মনে ধরেছিল। যদিও ‘ম্যাগনেটিক ইকয়েটরের’ অধিষ্ঠান ছিল থুম্বা থেকে ৩২ কিমি দূরে কুইলনে। কিন্তু কুইলনকে বাছলে বহু মানুষকে বাস্তুচ্যূত হতে হতো। অগত্যা থুম্বা। ১৪ জানুয়ারি ১৯৬৩। ত্রিবান্দ্রম বিমানবন্দরে অপেক্ষমান বিক্রম। হঠাৎই দেখা ভারতের প্রথম মহাকাশ উৎক্ষেপণ কেন্দ্রের দুই প্রবাদপ্রতীম স্থপতি—আর ডি জন ও চিটনিসের সঙ্গে। তাঁদের দু’জনকেই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ‘থুম্বা’কে রকেট উৎক্ষেপণের উপযোগী করে সাজিয়ে গুছিয়ে তুলতে অনুরোধ করলেন সারাভাই। একেবারে সাধারণ পোশাকে মৃদুভাষী বিক্রমকে প্রথম দেখার অভিজ্ঞতা জন সারাজীবনেও ভুলতে পারেননি। ৫৫০ একর জায়গা জুড়ে তৈরি হয়েছিল থুম্বা। থুম্বা ইকয়েটরিয়াল রকেট লঞ্চিং স্টেশন বা TERLS কেরলবাসীর নয়নের মনি হয়ে উঠল অচিরেই।

প্রথম রকেট উৎক্ষেপণ
সরেজমিনে সাউন্ডিং রকেট উৎক্ষেপণের খুঁটিনাটি পরিদর্শনে ১৯৬৩ সালের জানুয়ারিতে বেল্টসভিলের ‘গডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারে’ সটান হাজির বিক্রম। রকেট লঞ্চিং, পেলোড অ্যাসেম্বলি, রেঞ্জ সেফটি, ডপলার প্রযুক্তিতে রকেটৈর গতিবিধির হদিশ ও অ্যাঙ্গেল ট্র্যাকিং—সবটাই তিনি গভীর মনোযোগ দিয়ে পর্যবেক্ষণ করলেন। তাঁর বিশেষ আগ্রহ ছিল ‘রেঞ্জ টাইমিং সিস্টেমে’। নভেম্বর ২১, ১৯৬৩। প্রথম সাউন্ডিং রকেট ‘নাইকি অ্যাপাচি’ টার্লস থেকে পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে মহাশূন্যে পাড়ি দিল। সূর্যাস্তের ঠিক ২ মিনিট পরে রক্তাভ আকাশে ভেসে থাকা সোডিয়াম ভেপারের ছবি তুলবে ভারতের প্রথম স্বল্পপাল্লার রকেট। রকেটের পেলোড নাসা নির্ধারণ করেনি। এই ভার পড়েছিল ফ্রান্সের সেন্টার ন্যাশনাল ডি ইটিউডস স্পেটিয়ালিসের বিজ্ঞানী জে ই ব্লামন্টের উপর। নাসার কাছ থেকে পেলোড নেওয়ার জন্য যে পয়সার দরকার, ভারতের বিদেশি মুদ্রার ভাঁড়ারে তখন তা ছিল না। কম পয়সায় ফ্রান্সের কাছ থেকে যে পেলোড মিলবে, সে বুদ্ধি সারাভাইয়ের নাসার সতীর্থরাই তাঁকে দিয়েছিলেন। বায়ুমণ্ডলের ৮০ কিমি উপরে আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতির অনুসন্ধানই ছিল পেলোডের নির্দিষ্ট কাজ। আয়নোস্ফিয়ার নয়, থার্মোস্ফিয়ার সম্বন্ধেও যা অনেক অজানা তথ্য জোগাবে।
কাঁটায় কাঁটায় ভোর ৬.২৩ মিনিট, সাদা ধোঁয়ার মেঘ-পাহাড়ের আড়ালে ‘নাইকি আপাচি’ ছিটকে বেরোল থুম্বা রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র থেকে। পেলোড ঘাড়ে নিয়ে উঠে গেল পৃথিবীর বায়ুস্তর ছাড়িয়ে ৮০ কিমির বেশি উঁচুতে। উচ্ছ্বসিত হোমি ভাবা বললেন, ‘নাসার হাত ধরেই ভারতের মহাকাশ যাত্রা শুরু হল।’ বিক্রম তখন উৎক্ষেপণ কেন্দ্র থেকে একটু দূরে সমুদ্রের ধারে কেরলের রাজ্যপাল ও অন্য অতিথিদের সঙ্গে অবাক বিস্ময়ে লক্ষ্য করছেন উজ্জ্বল কমলা মেঘের চন্দ্রাতপে ঢেকে যাওয়া বিশ্বচরাচর। কারও মুখে কোনও কথা নেই। আর্নল্ড ফ্রাটকিন, নাসার এদ বিসেল, রবার্ট কনরাড, জ্যাক ব্ল্যামন্টরা দাঁড়িয়ে উৎক্ষেপণ কেন্দ্রে। বিক্রম স্বগতোক্তির ঢঙে বলে উঠলেন, ‘ভারতের মহাকাশ যুগের সূচনা হল থুম্বা থেকে।’ ২রা ফেব্রুয়ারি ১৯৬৮। টার্লসকে ইন্দিরা গান্ধীর পৌরোহিত্যে রাষ্ট্রসঙ্ঘের হাতে সমর্পণ করা হল। তাদের তত্ত্বাবধানে সমগ্র বিশ্বের শান্তি প্রতিষ্ঠায় পরবর্তীকালে যা ব্যবহৃত হবে। বিক্রম তখনও মগ্ন সাউন্ডিং রকেট তৈরির প্রকৌশলে। তিনি বুঝেছিলেন মহাকাশে নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে সাউন্ডিং রকেট ভারতকে নিজেকেই তৈরি করতে হবে। তাঁর সেই সুদূরপ্রসারী চিন্তার ফল আজকের ‘চন্দ্রযান-২’। মহাকাশের শান্তিপূর্ণ ব্যবহারে বিক্রমের চেয়ারম্যানশিপে ১৯৬৮ সালের আগস্ট মাসে সম্পন্ন হল ভিয়েনা কনফারেন্স। সেই প্রথম বিক্রমের বক্তব্য থেকে সারা পৃথিবী জানতে পারল ‘রিমোট সেন্সিং’-এর অপরিসীম গুরুত্ব। বৃষ্টিপাত, ভূমিক্ষয়, ভূগর্ভস্থ জল, বনভূমির বিস্তার, সমুদ্রে মাছের ঝাঁক—সবেরই নিখুঁত দিশারি ‘রিমোট সেন্সিং’। বিশ্বশান্তির অক্লান্ত প্রচারক, মনেপ্রাণে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ ও পারমাণবিক যুদ্ধবিরোধী হওয়ার কারণেই ১৯৭০ সালে তিনি ইন্টারন্যাশনাল অ্যাটমিক এজেন্সিরর জেনারেল কনফারেন্সের অবিসংবাদী সভাপতি নির্বাচিত হন। সারা বিশ্বেই অত্যন্ত সম্মানীয়-সমাদৃত ছিলেন বিক্রম।

 নিঃসঙ্গ বিক্রম
আমেদাবাদের উসমানাপুরে, সবরমতী নদীর ধারে বিক্রম-মৃণালিনীর স্বপ্নের মঞ্জিল ‘চিদম্বরম’। মধুর কলতানে আজান আর মন্দিরের ঘণ্টাধ্বনি যুগপৎ ভেসে আসে। মৃণালিনীর বাবা, সুব্বারামা স্বামীনাধন ছিলেন সেইসময়ের নামী ব্যারিস্টার। বোন লক্ষ্মী সেহগল, নেতাজির আজাদ হিন্দ ফৌজের মহিলা ব্রিগেডের সক্রিয় সেনানী। মৃণালিনী বরাবরই দৃঢ়চেতা, অন্তর্লীন-আত্মমুখী। শান্তিনিকেতনে রবীন্দ্রনাথের সান্নিধ্যে তাঁর বেড়ে ওঠা। তারপর মুথুকুমারা ও মীনাক্ষী সুন্দরম পিল্লাইয়ের কাছে ধ্রুপদী নৃত্যের কঠোর তালিম। উটিতে টেনিস কোর্টে মৃণালিনীর সঙ্গে আলাপ বিক্রমের। বয়সে বিক্রমের থেকে এক বছরের বড় ছিলেন মৃণালিনী। বিক্রমের নিঃশ্বাস ফেলার ফুরসত নেই, নৃত্যে মৃণালিনীও ততোধিক ব্যস্ত। দু’জনেই দৃঢ় প্রতিজ্ঞ বিয়ে করবেন না। কিন্তু ছ’মাসও কাটল না। প্রেমের জোয়ারে ভেসে ১৯৪২ সালে সাতপাকে বাঁধা পড়লেন বিক্রম-মৃণালিনী। যৌথ পরিবারে বিক্রম-মৃণালিনীর ব্যক্তিগত কোনও মূহূর্ত নিভৃতে কাটানোর উপায় ছিল না। ‘চিদম্বরম’ তৈরি সেই কারণেই। প্রথম পুত্র কার্তিকেয়, দ্বিতীয় কন্যা মল্লিকা। বিক্রমের বোন মৃদুলার সঙ্গে ভীষণ মিল মল্লিকার। অকুতোভয় মৃদুলা ১৯৪৬ সালের কুখ্যাত ‘নোয়াখালি’ দাঙ্গার সময় গান্ধীজির সঙ্গে পাড়ি জমিয়েছিলেন নোয়াখালিতে। পুত্র-কন্যা দু’জনেই পেশাগত জগতে চূড়ান্ত সফল। মৃণালিনী একটা নীল রঙের পরচুলা পরে নানারকম অদ্ভুত সাজে সাজতে ভালোবাসতেন। ছেলেমেয়েদের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ না করলেও, নজরদারিতে খামতি ছিল না কখনও। ঘরবাড়ি সাজানো থেকে সাজপোশাক—সবেতেই নিখুঁত পারিপাট্য ও রুচির পরিশীলিত ছাপ লেগে থাকত। নৃত্যের অভিঘাতেই মৃণালিনী ক্রমশ মজেছিলেন কৃষ্ণ-প্রেমে। ডুবে যাচ্ছিলেন কৃষ্ণ-সুধারসে। ব্যক্তিগত জীবনে বিক্রমের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হচ্ছিল। ভয়ানক ব্যস্ত বিক্রম, সারা পৃথিবীতে চরকিপাক খেতে খেতে ক্রমশ নিজের সংসার থেকেই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছিলেন। তারই মধ্যে মৃণালিনীর বন্ধু কমলা চৌধুরীর সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল বিক্রমের। তৃষিত হৃদয়ে অপরিসীম একাকীত্ব আর খ্যাতির বিড়ম্বনা থেকে বাঁচতে বিক্রম আশ্রয় খুঁজছিলেন কমলার সান্নিধ্যে। রূপে-গুণে অনন্যা, বিড়ম্বিত কমলা ত্রিকোণ সম্পর্ক থেকে মুক্তি পেতে দিল্লি ডিসিএমে চাকরি নিলেন। কিন্তু কমলাকে আমেদাবাদে ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর বিক্রম তাঁকে ‘পিআরএলের’ অধিকর্তার পদ প্রদান করলেন। লন্ডনের ‘টাভিসস্টক ইনস্টিটিউটের’ সঙ্গে কথা বলে ওরকমই আর একটি প্রতিষ্ঠান খুলতে চাইলেন আমেদাবাদে। তা বাস্তবায়িত না হওয়ায় ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্টের শাখা খুলতে উদ্যোগী হলেন। ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে কমলা আর বিক্রমের সম্পর্ক ছিল মধুর। ফলে আমেদাবাদে দ্বিতীয় আইআইএম খোলার ব্যাপারে সবরকম সরকারি সহায়তা বিক্রম অতি সহজেই পেলেন। প্রথমে ঠিক হয়েছিল ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া আমেদাবাদ আইআইএমকে সবরকম সাহায্য করবে। কিন্তু কমলা-বিক্রমের প্রেমকাহিনী পল্লবিত হতেই এবং অন্যান্য কিছু কারণে ক্যালিফোর্নিয়া আহমেদাবাদ আইআইএম থেকে হাত গুটিয়ে নেয়। কিন্তু বিক্রমের সঙ্গে সুমধুর সম্পর্কের সুবাদে এগিয়ে আসে হার্ভার্ড বিজনেস স্কুল। বিক্রম আমেদাবাদ আইআইএমের প্রথম ডিরেক্টর, কমলা হলেন রিসার্চ ডিরেক্টর। কমলার সঙ্গে আলোচনা না করে আইআইএমের কোনও সিদ্ধান্ত বিক্রম কখনও নেননি।
তারপর হঠাৎই এল সেই অশুভ দিন। ১৯৭১ সালের ৩০ ডিসেম্বর। কাজপাগল বিক্রম মগ্ন থুম্বাতে। হঠাৎই বুকে চিনচিনে ব্যথা, চিকিৎসার সুযোগও মিলল না। মাত্র ৫২ বছর বয়সে আচম্বিতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন অমিত সম্ভাবনাময় যুগপুরুষ বিক্রম সারাভাই। পাড়ি জমালেন তাঁর সাধের মহাকাশে। চিরসখা তারাদের মাঝে। তাঁর মৃত্যু ঘিরেও সেইসময় নানা রহস্য দানা বেঁধেছিল। মহাকাশে ভারত আজ যখন সাফল্যের ডানা ঝাপটাচ্ছে, তখন সুদূর কোনও নীহারিকাপুঞ্জের আড়াল থেকে হয়তো ক্ষণজন্মা বিক্রম মিটিমিটি হাসছেন।
ছবি : সংশ্লিষ্ট সংস্থার সৌজন্যে
গ্রাফিক্স : সোমনাথ পাল
সহযোগিতায় : উজ্জ্বল দাস
18th  August, 2019
আরাধনা ৫০
সমৃদ্ধ দত্ত

 রবি শর্মার বাড়িতে গুরু দত্ত এসেছেন। প্রায় মধ্যরাত। এত রাতে কী ব্যাপার? রবি শর্মা চোখে জিজ্ঞাসু দৃষ্টি। গুরু দত্ত বললেন, ‘রবি আমি একটা গান চা‌ই। একটি মানুষ অনেক রাত পর্যন্ত মুশায়রার আসর থেকে বাড়ি ফিরেছে। তার সবেমাত্র বিয়ে হয়েছে। অপূর্ব সুন্দরী স্ত্রী। সেই মেয়েটি স্বামীর জন্য অপেক্ষা করে করে একসময় ঘুমিয়ে পড়েছে। স্বামী ভদ্রলোক বাড়ি ফিরে দেখছেন স্ত্রী গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন।
বিশদ

03rd  November, 2019
ডাকাত কালী
সুভাষচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়

 কয়েকশো বছর আগের কাহিনী। তখন এখানে চারপাশে ঘন জঙ্গল। বহু জায়গায় সূর্যালোক পর্যন্ত পৌঁছত না। ছিল একাধিক হিংস্র পশুও। পাশেই সরস্বতী নদীর অববাহিকা। সেখানে বহু ডাকাতের বসবাস ছিল। বাংলার বিখ্যাত রঘু ও গগন ডাকাতও এই পথ দিয়ে ডাকাতি করতে যেতেন।
বিশদ

27th  October, 2019
মননে, শিক্ষায় পুরোপুরি বাঙালি

সুইডিশ অ্যাকাডেমি ঘোষণাটা করার পর কিছু সময়ের অপেক্ষা। আগুনের মতো খবরটা ছড়িয়ে গিয়েছিল গোটা দেশে... একজন বাঙালি, একজন ভারতীয় আরও একবার জগৎসভায় দেশের নাম উজ্জ্বল করেছেন। অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। অমর্ত্য সেনের পর অর্থনীতিতে নোবেল পাচ্ছেন তিনি। বিশদ

20th  October, 2019
অর্থনীতিতে নীতি
অনির্বাণ মুখোপাধ্যায়

 লেখাটা শুরু করা যেতে পারে আমার ছাত্রজীবনে রাশিবিজ্ঞানের ক্লাসে শোনা একটা গল্প দিয়ে। কোনও একসময় ইংল্যান্ডের স্কুলশিক্ষা দপ্তর ঠিক করেছিল, স্কুলের বাচ্চাদের দুধ খাইয়ে দেখবে তাদের স্বাস্থ্যের উপর তার কোনও সুপ্রভাব পড়ে কি না। সেইমতো স্কুলগুলিতে কোনও একটি ক্লাসের অর্ধেক বাচ্চাকে দুধ খাওয়ানো হয় এবং বাকিদের তা দেওয়া হয়নি। বিশদ

20th  October, 2019
বাহন কথা 
রজত চক্রবর্তী

আকাশে সোনার থালার মতো চাঁদ। বাড়িতে বাড়িতে দোরগোড়া থেকে লতানে ধানের শিষ। এঁকে বেঁকে চলে গিয়েছে চৌকাঠ ডিঙিয়ে, ডাইনিংয়ের পাশ দিয়ে প্রতিটি ঘরে ঘরে... এমনকী সিঁড়ির পাশ দিয়েও উঠেছে দোতলায়। ধানের শিষের পাশে পাশে ছোট্ট ছোট্ট সুন্দর পায়ের ছাপ।  
বিশদ

13th  October, 2019
প্র তি মা র বি ব র্ত ন
সোমনাথ দাস

বর্ষা আর শরৎ এখন মিলেমিশে একাকার। বিশ্ব উষ্ণায়নের কৃপাদৃষ্টিতে শহরবাসীর পক্ষে আর এই দু’টি ঋতুকে আলাদা করা সম্ভব নয়। তবে ভাদ্রের সমাপ্তি এবং আশ্বিনের সূচনা বাঙালির জীবনে নিয়ে আসে এক অনাবিল আনন্দ। মা দুর্গার আগমনবার্তায় আমাদের হৃদয় নেচে ওঠে।   বিশদ

29th  September, 2019
পুজোর ফুলের যন্ত্রণা
বিশ্বজিৎ মাইতি

 বিশ্বজিৎ মাইতি: হাওড়া‑খড়্গপুর রেলওয়ে শাখার বালিচক স্টেশন। মার্চ মাসের এক শুক্রবারের সকালে বেশ কয়েকজনকে ধরেছেন টিটি। বিনা টিকিটে ট্রেন সফর। তাঁদের মধ্যে এক যুবকের হাতে গোটা চারেক বস্তা। হাতে একগুচ্ছ ব্যাগ। গাল ভর্তি দাড়ি। উসকো-খুসকো চুল। পরনে নানান দাগে ভর্তি জামা ও হাফপ্যান্ট। করুণ চোখে আচমকাই নিজের মানিব্যাগ টিটির মুখের সামনে দেখিয়ে ধরা গলায় বলল, ‘স্যার একটা টাকাও নেই। পুরো শরীর চেক করে দেখুন...।
বিশদ

22nd  September, 2019
ভো-কাট্টা

বিশ্বকর্মা পুজোর সঙ্গে ঘুড়ি ওড়ানোটা সমার্থক হয়ে গিয়েছে। বিশ্বকর্মা পুজো মানেই আকাশজোড়া ঘুড়ির আলপনা। অসংখ্য ঘুড়ির ভেলায় যেন স্বপ্ন ভাসে। বহু কৈশোর আর যৌবনের মাঞ্জায় লেগে আছে ঘুড়ি ওড়ানোর স্মৃতি। যে ছেলেটা কোনওদিন সকাল দেখেনি, সেও বিশ্বকর্মা পুজোর দিনে সূর্য ওঠার আগেই ঘুড়ি-লাটাই নিয়ে ছাদে উঠে যায়।  
বিশদ

15th  September, 2019
নির্মাণশিল্পী বিশ্বকর্মা
সন্দীপন বিশ্বাস

জরাসন্ধ তখন প্রবল প্রতাপান্বিত। বারবার মথুরা আক্রমণ করছিলেন। কিন্তু সপ্তদশ প্রচেষ্টাতেও মথুরা জয় করা তাঁর পক্ষে সম্ভব হয়নি। তাই ফের তিনি মথুরা আক্রমণের প্রস্তুতি নিতে লাগলেন। কৃষ্ণ অবশ্য জানতেন জরাসন্ধ কিছুতেই মথুরা জয় করতে পারবেন না।
বিশদ

15th  September, 2019
আগুন বাজার
বীরেশ্বর বেরা

 ‘কেন? আপনি যে পটল বেচছেন, এমন পটল তো আমরা ৩০-৩২ টাকায় কিনছি!’ গ্রাম্য যুবক তাঁর আপাত-কাঠিন্যের খোলস ছেড়ে সহজ হয়ে গেলেন হঠাৎ। তেলের টিনের উপর চটের বস্তা বেঁধে টুলের মতো বসার জায়গাটা এগিয়ে দিয়ে বললেন, ‘বসুন তাহলে, বলি। বিশদ

08th  September, 2019
সমাপ্তি
সমৃদ্ধ দত্ত

মহাত্মা গান্ধীর প্রকাশিত রচনাবলীর খণ্ড সংখ্যা ৯০ ছাড়িয়ে গিয়েছে। এ পর্যন্ত জওহরলাল নেহরুর লেখা নিয়ে প্রকাশিত যত রচনা আছে, তা প্রায় ৫০ খণ্ড অতিক্রান্ত। বাবাসাহেব আম্বেদকরের সারা জীবনের যাবতীয় রচনা সমন্বিত করে এখনও পর্যন্ত ১৬টি খণ্ডসংবলিত রচনাবলী প্রকাশ পেয়েছে। 
বিশদ

01st  September, 2019
রাজীব ৭৫
মণিশঙ্কর আইয়ার

 ছিয়াশি সালের ডিসেম্বর। অঝোরে তুষারপাত হচ্ছে। আমরা যাচ্ছি কাশ্মীর। কিন্তু একটা সময় আর্মি জানাল, আর যাওয়া সম্ভব নয়। এত তুষারপাতে হেলিকপ্টার ওড়ানো যাবে না। তাহলে? যাব কী করে? বাকিরাও বলল, দিল্লি ফিরে চলুন। কিন্তু প্রধাননমন্ত্রী বললেন, তা হয় না। যাব যখন বলেছি যেতে হবে। লোকেরা অপেক্ষা করে থাকবে যে!
বিশদ

25th  August, 2019
জয় জওয়ান

ঝুঁকি শব্দটি যখনই উল্লেখ করা হয়, তখনই তার সঙ্গে আবশ্যিকভাবে যুদ্ধের বিষয়টি এসে পড়ে। কিন্তু শুধু যুদ্ধে নয়, ঝুঁকি রয়েছে প্রশিক্ষণ পর্বেও। একজন যুদ্ধবিমানের পাইলটকে নানাভাবে তৈরি হতে হয়। আকাশপথে সেই প্রশিক্ষণ যখন শুরু হয়, তখন প্রতিটি স্তরেই ঝুঁকি থাকে। সেগুলো অতিক্রম করে সাফল্য পাওয়াই একজন পাইলটের কাছে চ্যালেঞ্জ। বিশদ

11th  August, 2019
জাতীয়তাবাদ ও রবিঠাকুর 
সমৃদ্ধ দত্ত

জাতীয়তাবাদের সংজ্ঞা তাঁর কাছে আলাদা। বিশ্বাস করতেন, গ্রামই ভারতের চেতনা। সম্পদ। তাই শুধু ইংরেজ বিরোধিতা নয়, রবিঠাকুরের লক্ষ্য ছিল ভারতের উন্নয়ন। ভারতবাসীর উন্নয়ন। তাঁদের স্বনির্ভর করে তোলা। অন্যরকম তাঁর স্বদেশপ্রেম। আরও এক ২২ শ্রাবণের আগে স্মরণ এই অন্য রবীন্দ্রনাথকে। 
বিশদ

04th  August, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, নবদ্বীপ: রাস উৎসবকে সামনে রেখে নবদ্বীপে ফেরিঘাটগুলিতে নিরাপত্তা বাড়ানো হল। রাসের দিনগুলিতে ফেরিঘাট দিয়ে কয়েক লক্ষ মানুষের আনাগোনা লেগে থাকে। ফলে তাদের পারাপার ও নিরাপত্তা নিয়ে নবদ্বীপের ফেরিঘাট কর্তৃপক্ষ উদ্যোগী হয়েছেন। পাশাপাশি নবদ্বীপ পুরসভা ও ব্লক প্রশাসনও এনিয়ে তৎপর। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী শিক্ষাবর্ষে প্রাথমিকে পঞ্চম শ্রেণীর আসা বড়সড় প্রশ্নচিহ্নের মুখে। সরকারের এই পরিকল্পনা কার্যকর করতে স্কুলগুলিতে যে অতিরিক্ত ক্লাসরুমের বন্দোবস্ত করতে হবে, তার ...

সংবাদদতা, আলিপুরদুয়ার: ২০২১ সালে বিধানসভা ভোট। তার আগেই রয়েছে আলিপুরদুয়ার পুরসভার ভোট। এই জোড়া নির্বাচনকে পাখির চোখ করে জেলায় বন্ধ চা বাগানের ইস্যুকে হাতিয়ার করে তেড়েফুঁড়ে ময়দানে নেমে পড়েছে গেরুয়া বাহিনী। অন্যদিকে বিজেপির প্রধান প্রতিপক্ষ রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল শিবিরে ...

রাঁচি, ৭ নভেম্বর (পিটিআই): ঝাড়খণ্ডের গিরিডিতে এক মহিলার মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর পরিবারের দাবি, না খেতে পেয়ে তিনি মারা গিয়েছেন। যদিও রাজ্য প্রশাসনের তরফে অনাহারে মৃত্যুর ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসা সূত্রে উপার্জন বৃদ্ধি। বিদ্যায় মানসিক চঞ্চলতা বাধার কারণ হতে পারে। গুরুজনদের শরীর-স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৬২- সঙ্গীত জগতের কিংবদন্তি পুরুষ ওস্তাদ আলাউদিন খাঁর জন্ম।
১৮৯৫- জার্মান পর্দাথবিদ উইলিয়াম কনরাড রঞ্জন এক্স রে আবিষ্কার করেন।
১৯১০ - ওয়াশিংটনের নির্বাচনে প্রথম কোনও মহিলা ভোট দেন।
১৯২৭- রাজনীতিক লালকৃষ্ণ আদবানির জন্ম
১৯৩৬ - প্রখ্যাত হিন্দী কথাসাহিত্যিক মুনশি প্রেমচাঁদের মৃত্যু
১৯৪৭ – সঙ্গীতশিল্পী ঊষা উত্থুপের জন্ম
১৯৭৬ - ক্রিকেটার ব্রেট লি’র জন্ম
২০১৭ – ভারতে ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল হয়





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৪৮ টাকা ৭২.৬৪ টাকা
পাউন্ড ৮৯.১২ টাকা ৯৩.৪৫ টাকা
ইউরো ৭৬.৭৪ টাকা ৮০.৪৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৮২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৮৩৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৩৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৭৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,৮৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২১ কার্তিক ১৪২৬, ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, একাদশী ১৬/৩০ দিবা ১২/২৫। পূর্বভাদ্রপদ ১৫/৫৯ দিবা ১২/১২। সূ উ ৫/৪৮/২৭, অ ৪/৫২/২১, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৩ মধ্যে পুনঃ ৭/১৭ গতে ৯/৩০ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ২/৩৯ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৫/৪৪ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৬ গতে ৩/১৩ মধ্যে পুনঃ ৪/৫ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/৩৫ গতে ১১/২১ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৬ গতে ৯/৪৩ মধ্যে। 
২১ কার্তিক ১৪২৬, ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, একাদশী ১৫/৫৮/১৯ দিবা ১২/১২/৪৩। পূর্বভাদ্রপদ ১৭/৫৮/২৫ দিবা ১/০/৪৫, সূ উ ৫/৪৯/২৩, অ ৪/৫৩/১৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৪ মধ্যে ও ৭/২৭ গতে ৯/৩৬ মধ্যে ও ১১/৪৫ গতে ২/৩৭ মধ্যে ও ৩/২০ গতে ৪/৫৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৩৯ গতে ৯/১১ মধ্যে ও ১১/৫০ গতে ৩/২২ মধ্যে ও ৪/১৫ গতে ৫/৫০ মধ্যে, বারবেলা ৮/৩৫/২১ গতে ৯/৫৮/২০ মধ্যে, কালবেলা ৯/৫৮/২০ গতে ১১/২১/১৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৭/১৬ গতে ৯/৪৪/১৭ মধ্যে। 
১০ রবিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আগামীকাল অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করবে সুপ্রিম কোর্ট

09:17:50 PM

এবার হকি বিশ্বকাপ ভারতে
২০২৩ সালে পুরুষদের এফআইএইচ হকি বিশ্বকাপ আয়োজন করবে ভারত। ...বিশদ

05:08:38 PM

পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী
 মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দিলেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ। সরকার গড়ার ...বিশদ

05:01:39 PM

আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হল এবছরের আন্তর্জাতিক কলকাতা ফিল্ম উৎসবের

05:01:00 PM

বর্ধমান স্টেশনে পদপিষ্ট হয়ে জখম বহু
বর্ধমান স্টেশনে ৪ ও ৫ নম্বর প্লাটফর্মের মাঝে ফুটওভারব্রিজে ওঠানামা ...বিশদ

04:54:00 PM

গান্ধী পরিবারের এসপিজি নিরাপত্তা তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের: সূত্র 

03:53:10 PM