Bartaman Patrika
বিকিকিনি
 

তারকাদের কেনাকাটা 

চলছে আনলক-৩। শপিং মল, দোকানপাট খুলেছে। চলছে টুকটাক কেনাকাটা। আসুন জেনে নেওয়া যাক তারকাদের কেনাকাটার অভ্যেস কীরকম। তাঁরা কীভাবে কেনেন, কোথা থেকে কেনেন, কী কেনেন। খবর নিলেন স্বস্তিনাথ শাস্ত্রী।

অমিতকুমার
 আজকাল আর আমি কেনাকাটা সেভাবে করি না। তবে একসময় তো অবশ্যই করতাম। তবে সেটা ছিল মূলত জামাকাপড়, ফ্যাশন অ্যাকসেসরিজ, বেল্ট, ঘড়ি, সানগ্লাস, পারফিউম এইসব। আর কিনতাম গানের রেকর্ড, সিডি এইসব। বাড়ির রোজকার দরকারের জিনিসপত্র কোনও দিনই আমি কিনিনি। এখন আর জামাকাপড়ও নিজে কিনি না। ওটা আমার স্ত্রী রীমাই কেনেন। আমি বরাবরই খুবই ফ্যাশনেবল। তা আমার পছন্দ-অপছন্দগুলো রীমার জানা। একসময় হলুদ আমার খুবই পছন্দের রং ছিল। হলুদ রঙের জামা, পাঞ্জাবি পরতাম। কিন্তু পরে জানলাম, জ্যোতিষ শাস্ত্রমতে ওই রংটা আমার পক্ষে ভালো নয়। আমি আবার জ্যোতিষে বিশ্বাসী। তাই হলুদ রঙের কোনও কিছুই আজকাল আর পরা হয় না। নীল, সাদা এইসব রঙের জামাকাপড়ই পরি বেশি। তাছাড়া অন্যান্য হাল্কা রঙের জামাও পরি। জিনস পরি বেশি। এগুলো অনলাইন আর শপিং মল দু’জায়গা থেকেই কেনা হয়। মুম্বইয়ে লিভাইস, গুচ্চির শোরুম থেকে কেনা হয়। কলকাতায় গেলে সেখান থেকেও কেনাকাটা করা হয়। তবে কলকাতা থেকে কিনি মূলত পাঞ্জাবি আর পাজামা। আমি বাড়িতে পাঞ্জাবি পরতে পছন্দ করি। হালকা সুতির পাঞ্জাবি, কখনও হাফহাতা পাঞ্জাবিও পরি। তাছাড়া কারুকাজ করা একটু জমকালো পাঞ্জাবিও পরি। সেগুলো সব কলকাতার গড়িয়াহাট থেকে কেনে রীমা।
একটা জিনিস আমি এখনও সুযোগ পেলে কিনি, সেটা হল পারফিউম। বিদেশে শো করতে গেলে ডিউটি ফ্রি শপগুলো থেকে বাছাই করে পারফিউম কিনি। আমি দিনে দু’-তিনবার স্নান করি। প্রতিবারই আলাদা আলাদা পারফিউম লাগাই। এটা আমার শখ। তাছাড়া আমার নানা ধরনের ঘড়ির কালেকশন আছে। ঘড়ি পরতেও পছন্দ করি। কাজেই ঘড়ি কিনি। একসময় ব্লেজার কিনতাম খুব। তখন ফাংশনে ব্লেজার পরে যেতাম। ইদানীং আর ব্লেজার সেরকম পরা হয় না। তাই কিনিও না। আগে বেল্টও প্রচুর কেনা হতো। নানারকম বেল্টের কালেকশন আছে আমার। তাছাড়া কলকাতায় গেলে সেখান থেকে রীমার জন্য শাড়িও কেনা হয় অনেক। তাঁতের শাড়ি, ঢাকাই শাড়ি এইসব।

অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়
 আমি ভাই বাজার করতে ভালোবাসি। সব্জি, মাছ, মাংস এসব। সেটা আমাদের পাড়ার মোড়ের বাজার থেকেই হোক বা শপিং মলের বাজার থেকে। আমি থাকি আনোয়ার শাহ কানেক্টরের ওপর সাঁপুইপাড়ায়। ওখানে রাস্তার ওপর একটা ছোট বাজার বসে। আমি সেখান থেকেই কেনাকাটা করি। সেখানে বিক্রেতাদের অনেকের সঙ্গেই আমার বেশ ভালো পরিচয় হয়ে গিয়েছে। আমি গেলে ওঁরা সেরা জিনিসটা বেছে দেন। তবে আমি আবার দরদাম করতে পারি না। ওঁরা যে দাম বলেন, তাই দিই। অনেক সময় সাউথ সিটি মলের স্পেনসার থেকেও বাজার করি।
জামাকাপড় আমি কিনি না। আমার স্ত্রী কেনেন। আমাকে যা কিনে দেন, আমি তাই পরি। আর একটা জিনিস কিনতে আমার খুব ভালো লাগে, সেটা হল বই। বইয়ের দোকানে ঢুকলে আমার আর বেরতে ইচ্ছে করে না। রাশি রাশি বইয়ের মাঝখানে বসে থেকে তার ঘ্রাণ নেওয়া, সে যে কী আনন্দের, আহা! কলেজ স্ট্রিটে গেলে তাই আমি পাগল হয়ে যাই। আমার লেখা একটা গল্পের বইও সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে।
তবে জামাকাপড়ের ব্যাপারে আমার মতামত না থাকলেও জুতোর ব্যাপারে কিন্ত আমি খুব খুঁতখুঁতে। জানেন তো, পায়ের নার্ভে উল্টোপাল্টা প্রেশার পড়লে খুব ক্ষতি হতে পারে। তাই জুতোটা ভালো না হলে পরা ঠিক নয়। আমাকে সাড়ে তিনশো টাকা দামের জামা দিলেও আমি পরতে পারব। কিন্তু জুতোটা ঠিক না হলে পরব না। সেটা ব্র্যান্ডেড নাও হতে পারে কিন্তু কমফর্টেবল হওয়া চাই।

টোটা রায়চৌধুরী
 আমি অনলাইনে কেনাকাটা একদমই পছন্দ করি না। যা কিনি সব দোকান থেকে। কারণ, কেনাকাটা মানে আমার কাছে শুধু টাকার লেনদেন না, একটা সম্পর্ক স্থাপন করা। কিনতে গিয়ে আর একটা মানুষের সঙ্গে আমাদের সম্পর্কও তৈরি হয়ে যায়। তাই একই দোকানে আমরা বারবার যাই। সেটা শুধু ভালো জিনিসের টানে না, সম্পর্কের টানেও। অনলাইন হল একটা ফেসলেস অর্থাৎ মুখাবয়বহীন একটা বাজার। আর দোকানে বা শোরুমে গেলে পাঁচটা মানুষকে দেখা যায়, তাঁদের সঙ্গে কথা বলা যায়। চেনা দোকান হলে দু’টো সুখ-দুঃখের কথা বলা যায়। সেটা ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান ম্যাচ হোক বা রাজনীতি। তাই দোকান থেকে কেনাই আমার পছন্দ। সিনেমায় নামার আগে তো পাড়ার বাজারে বাজারও করতাম।
ইদানীং বাজার আর করা হয় না। তবে শপিং মল কিংবা বড় দোকান থেকে কেনাকাটা তো হয়ই। হাতিবাগানেও বহুদিন যাই না। তবে নিউ মার্কেট থেকে কেনাকাটা করি। একসময় ফ্রি স্কুল স্ট্রিট থেকে কিনতাম। এখনও মাঝে মাঝে যাই। বই কিনতে হলে পার্ক স্ট্রিটে অক্সফোর্ড কিংবা ল্যান্ডমার্কে যাই। বাংলা বই কিনতে হলে কলেজ স্ট্রিটে যাই। তবে সবসময় ওখানে যাওয়া হয়ে ওঠে না। আমার কাজের ছেলেটিকে লিস্ট ধরিয়ে দিলে ও-ই নিয়ে আসে।
ব্র্যান্ডের কথায় যদি আসি, তবে আমি বলব হ্যাঁ, আমি ব্র্যান্ডে বিশ্বাস করি। কিন্তু ব্র্যান্ড তো দু’ধরনের হয়, ভ্যালু ব্র্যান্ড আর অ্যাসপিরেশন ব্র্যান্ড। ভ্যালু ব্র্যান্ড হল সেটা, যার ওপর আমি চোখ বন্ধ করে ভরসা করতে পারি। আর অ্যাসপিরেশন ব্র্যান্ড হল দেখনদারি। অর্থাৎ যেটা কিনে আমি পাঁচজনকে ডেকে দেখাব, দেখ আমি কত বড় হনু হলাম। এই অ্যাসপিরেশন ব্র্যান্ডে আমার বিশ্বাস নেই। আমি বিশ্বাস করি ভ্যালু ব্র্যান্ডে। আবার অনেক সময় দেখেছি, ব্র্যান্ডেড নয় এমন জিনিসও ভীষণ ভালো সার্ভিস দিয়েছে।
বিদেশে গেলে আমি সেখানকার রেয়ার বই কিনি, সেখানকার বৈশিষ্ট্য আছে এমন জিনিসপত্র, খাবারদাবার কিনি। তাছাড়া আমার শখ হল নানা দেশের ইন্সট্যান্ট কফি আর বিস্কুট সংগ্রহ করা। সেসবও কিনি। তবে তার বেশি কিছু নয়।

অপরাজিতা আঢ্য
 কেনাকাটা করতে আমি খুবই ভালোবাসি। আর কেনাকাটা যদি দোকানে ঢুকে না করলাম তবে মজা কোথায়! তবে হ্যাঁ, আমি ওই একশোটা জিনিস দেখে, বেছে একটাও নিলাম না, চলে গেলাম আর একটা দোকানে— এটা করি না। আমার পছন্দের জিনিস পেয়ে গেলেই হল। অযথা ঘাঁটা আমার পছন্দ হয় না। আর কেনাকাটার জন্য গড়িয়াহাট হল আদর্শ। এই তো সেদিন প্রিয়গোপাল বিষয়ী, শ্রীনিকেতন সব দোকান থেকে ঘুরে ঘুরে শাড়ি কিনলাম। তবে ইদানীং দোকানে দোকানে ঘুরে কেনায় সমস্যা হচ্ছে। অনেক সময় সাউথ সিটি থেকেও কিনি। যখন আমি নিজে যেতে পারি না, তখন আমার ননদরা বেহালা বাজার থেকেও কেনাকাটা করে আনেন। আর বাড়ির পুরুষদের জামাকাপড় কেনার ভারও আমার ওপর। ওঁরা নিজেরা নড়ে কিনবেন না। কাজেই আমাকেই দায়িত্ব নিতে হয়। ছেলেদের টি-শার্ট, জিনস এসবের জন্য আমি একটু ভালো ব্র্যান্ড দেখেই কিনি। তবে নিজের জামাকাপড়ের জন্য আমার ব্র্যান্ড লাগে না। আমি বেছে টেকসই জিনিস কিনি। অনেক সময় কাপড় কিনে আমার পরিচিত দর্জির কাছ থেকে সেলাই করেও নিই। আমরা সাধারণ মানুষ, অত ব্র্যান্ড ব্র্যান্ড করে কী হবে? আমার বাড়ির মুদিখানার জিনিসও কিন্তু পাড়ার দোকান থেকেই আসে। তবে অনেক সময় কিছু বিশেষ স্যস বা অন্য ঩কিছু সেখানে পাওয়া যায় না। তখন স্পেনসার্সে ছুটতে হয়।
বছর দশেক আগেও আমি নিজে লেক মার্কেট কিংবা গড়িয়াহাট বাজার থেকে মাছটাছ কিনতাম। কিন্তু এখন কী হয়, আমি গেলেই এমন একটা হুড়োহুড়ি পড়ে যায় যে মাছ কেনা মাথায় উঠে যায়। তাই ও পাটটা আমার স্বামীই সামলান। আগে শ্বশুর করতেন, এখন আর পারেন না। আর অনলাইনে আমি কিনি, কিন্তু যেগুলো দোকানে পাই না সেগুলোই। অনলাইনে আবার বিপদও আছে। এই তো সেলাই করব বলে কতগুলো সেলাইয়ের সরঞ্জাম অর্ডার দিলাম আর দিয়ে গেল শুধু সূচ। সে আবার ফেরত পাঠালাম। কাজেই নিতান্ত দায়ে না পড়লে আমি অনলাইনে কিনি না।
08th  August, 2020
‌‌বিঞ্জ বেফিকরের আইপিএল মেনু 

 অন্যতম ক্লাউড কিচেন বিঞ্জ বেফিকর আইপিএল উপলক্ষে স্পেশাল মেনু নিয়ে এসেছে। স্পেশাল মেনুতে জিভে জল আনা স্বাদের স্বাস্থ্যকর অনেক রকম আমিষ ও নিরামিষ স্ন্যাক্স পাওয়া যাবে। বিশদ

26th  September, 2020
মিনুর পকেট-শাড়ি ও শাড়ি মাস্ক 

আধুনিক মেয়েরা যে পোশাকই পরুন না কেন, তাঁদের পছন্দের শেষ কথা শাড়িই। করোনার বিপদ এড়াতে মাস্কও অপরিহার্য। সে কথা মাথায় রেখেই মিনু‌ নিয়ে এসেছে শাড়ির সঙ্গে ম্যাচ করা আকর্ষণীয় মাস্ক। দাম মাত্র ৪০০ টাকা থেকে ৪৫০ টাকা। মিনুর নবতম সংযোজন পকেটওয়ালা শাড়ি। বিশদ

26th  September, 2020
টাইটান এসবিআই-এর পেমেন্ট পে ওয়াচ 

 করোনা আবহে খুচরো কেনাকাটায় সুরক্ষিত এবং নিরাপদ পেমেন্ট জরুরি হয়ে পড়েছে। বিষয়টি মাথায় রেখে বিশ্বের অন্যতম ঘড়ির ব্র্যান্ড, টাইটান কোম্পানি লিমিটেড এবং স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (এসবিআই) ‘টাইটান পে ওয়াচ’ নামে একটি বিশেষ ঘড়ির কালেকশন নিয়ে এসেছে। বিশদ

26th  September, 2020
কলকাতায় নাইকা’র স্টোর 

 সম্প্রতি বিউটি ও লাইফস্টাইল ব্র্যান্ড নাইকা কলকাতায় এই প্রথম ‘নাইকা অন ট্রেন্ড স্টোর’ খুলল। অ্যাক্রোপলিস মলে চালু হওয়া এই স্টোরটি প্রায় ২০৯০ বর্গফুট জায়গা জুড়ে ছড়ানো। বিশদ

26th  September, 2020
আধ্যাত্মিক বই প্রকাশ 

 ১৭ সেপ্টেম্বর, মহালয়া তিথিতে শ্রীশ্রীদাদাজি মহারাজের আশ্রমে তাঁর আধ্যাত্মিক জীবনের প্রত্যক্ষ ঘটনা নিয়ে বাংলা ও হিন্দি ভাষায় দু’টি বই প্রকাশিত হয়েছে। বাংলা ভাষায় বইটির নাম ‘শিবাবতার শ্রীশ্রী দাদাজী মহারাজ’ এবং হিন্দিতে নাম রাখা হয়েছে ‘শিবস্বরূপ মহাযোগী দাদাজী মহারাজ’। বিশদ

26th  September, 2020
পুজোর প্রদর্শনী

পুজো স্পেশাল পসরা নিয়ে প্রদর্শনী শুরু করেছেন নানা ডিজাইনার। কোথায় কেমন পোশাক মিলছে, তারই খোঁজ নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হচ্ছি আমরা প্রতি সপ্তাহে। এবার থাকছে পাঁচটি বুটিকের খবর। বিশদ

26th  September, 2020
অনলাইনে কোথায় কী? 

 এবার পুজোর বাজার সারতে দোকানে দোকানে না ঘুরে বরং ভরসা করুন অলনাইনে। ভাইরাস-ভয়ে দিনবদলের সময়ে মাউসের এক ক্লিকেই কিন্তু পেয়ে যাবেন পোশাকের পছন্দসই নকশা। ছেলেদের শার্ট ও টি-শার্টে কোন সাইটে কেমন কালেকশন? হদিশ দিলেন মনীষা মুখোপাধ্যায়। বিশদ

26th  September, 2020
লোপামুদ্রার প্রথা 

যিনি রাঁধেন তিনিই আবার চুলও বাঁধেন। সেলিব্রিটিরা অনেকেই তাঁদের নির্দিষ্ট কাজের পাশাপাশি পছন্দের আরও কাজকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছেন। যেমন সঙ্গীতশিল্পী লোপামুদ্রা মিত্র শাড়ি আর গয়নার নকশায় খুঁজে পেয়েছেন মনের আনন্দ। তাঁর সঙ্গে কথা বলেছেন সোমা লাহিড়ী। বিশদ

26th  September, 2020
নকশা আঁকা ব্লাউজেই সাজুন যতনে 

শাড়ি যেমনই হোক, তার সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলবে ব্লাউজ। আর চটকদার ব্লাউজই পারে একটা ছিমছাম সাজকে আরও সুন্দর করে তুলতে। তাই উৎসবের মরশুমে মানানসই ব্লাউজও বাছতে হবে বেশ যত্ন নিয়ে। শাড়ির দোসর এই পোশাক কেনার সময় কোন কোন বুটিক বা দোকানের কথা মাথায় রাখবেন? এবার পুজোয় ফ্যাশনে ইন কোন নকশা? হদিশ দিচ্ছেন মনীষা মুখোপাধ্যায়। 
বিশদ

19th  September, 2020
পু জো র প্র দ র্শ নী 

শিল্পী নিকেতনের পুজো সেল শুরু হচ্ছে আজ থেকে। এখানে পাবেন সামারকুল মলমলে এক্সক্লুসিভ ব্লকপ্রিন্ট করা শাড়ি ৭০০-৮০০ টাকা, মলমলে হ্যান্ড বাটিক ১২০০-১৫০০ টাকা, খেসের শাড়িতে কাঁথা কাজ ১৫০০ টাকা।   বিশদ

19th  September, 2020
টু ক রো খ ব র 

বাড়ি থেকে বেরিয়ে হঠাৎ দেখলেন, আপনার বাড়ির সামনে আস্ত একটি ‘বাজার কলকাতা’ হাজির! ভাবছেন সে আবার হয় নাকি? হ্যাঁ, এরকমই একটি অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে কলকাতার অন্যতম ফ্যাশন স্টোর বাজার কলকাতা। সামনেই পুজো, অথচ করোনা সংক্রমণের জন্য ক্রেতারা ইচ্ছেমতো শো রুমে এসে কেনাকাটা করতে পারছেন না।  বিশদ

19th  September, 2020
ম্যাডাম-এর নতুন কালেকশন 

 অতিমারীর জন্য বেশিরভাগ মানুষ এখনও গৃহবন্দি। অধিকাংশ ক্ষেত্রে অফিসের কাজ চলছে ওয়ার্ক ফ্রম হোমের মাধ্যমে। পরিবারের অন্য সদস্যরাও বাড়ির কাজে ব্যস্ত। কোনও কিছুতে নতুনত্ব নেই। এমনকী, বাইরে বেরিয়ে পছন্দসই ফ্যাশনেবল পোশাক কেনারও কোনও উপায় নেই। বিশদ

12th  September, 2020
নোকিয়া’র নতুন স্মার্টফোন 

 সম্প্রতি নোকিয়া ‘নোকিয়া ৫.৩’ মডেলের একটি অত্যাধুনিক স্মার্টফোন বাজারে এনেছে। স্মার্টফোনটির এইচডি প্লাস ডিসপ্লে ৬.৫৫ ইঞ্চির। এতে ব্যবহার করা হয়েছে শক্তিশালী কুয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৫৫ প্রসেসর। বিশদ

12th  September, 2020
এল জি’র নতুন বেস্ট শপ 

 একদিকে কোভিড-১৯, অন্যদিকে ক্রেতাদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে বৈদ্যুতিন সামগ্রী প্রস্তুতকারী সংস্থা এলজি কলকাতায় আরও তিনটি নতুন বেস্ট শপ চালু করেছে। কালিকাপুর, সোদপুর এবং মধ্যমগ্রামে শপগুলি খোলা হয়েছে। উদ্বোধন করেন এল জি ইলেকট্রনিক্স ইন্ডিয়া’র সিনিয়র রিজিওনাল বিজনেস হেড প্রবাল সাক্সেনা। বিশদ

12th  September, 2020
একনজরে
 অভিষেকেই জয়ের স্বাদ পেলেন বার্সেলোনার কোচ রোনাল্ড কোম্যান। দলের প্রাণভোমরা লিও মেসির গোল তাঁকে স্বস্তি দিয়েছে। গত মরশুমের ব্যর্থতা ঝেড়ে ফেলে ঘরের মাঠ ক্যাম্প ন্যু’য়ে ...

বরফ দেওয়া থার্মোকলের বাক্সের ভিতরে বোঝাই করে চলে আসছে ‘রুপোলি শস্য’। কোথাও নদীপথ, কোথাও কাঁটাতারের ফাঁক গলে এপারে তারা। চকচক করতে থাকা আটশো থেকে এক ...

 প্যাকেট ছাড়া বিড়ি-সিগারেট বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করল মহারাষ্ট্র সরকার। দেশের মধ্যে প্রথম রাজ্য হিসেবে মহারাষ্ট্রের এই পদক্ষেপ। সে রাজ্যের জনস্বাস্থ্য বিভাগের তরফে জারি করা নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, এখন থেকে আর খোলা বিড়ি-সিগারেট বিক্রি করা যাবে না। ...

সংবাদদাতা, পতিরাম: গঙ্গারামপুর ব্লকের বেলবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের মোহিনীপাড়ায় রবিবার গভীর রাতে ভেঙে গেল পূনর্ভবা নদী বাঁধের একাংশ। ভোররাত থেকেই বাঁধ বাঁচাতে কাজ শুরু করেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা সেচ দপ্তর। যদিও রবিবার রাত থেকেই ওই নদী বাঁধ সংলগ্ন এলাকায় জল ঢুকে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মক্ষেত্রে প্রভাব প্রতিপত্তি বৃদ্ধি। অত্যধিক ব্যয় প্রবণতায় রাশ টানা প্রয়োজন। ব্যবসায়ীদের ক্ষেত্রে আজ শুভ। সৎসঙ্গে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৩২: অভিনেতা মেহমুদের জন্ম
১৯৭১: ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গে ঝড় ও সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাসে অন্তত ১০ হাজার মানুষের মৃত্যু  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৮৭ টাকা ৭৪.৫৮ টাকা
পাউন্ড ৯২.৫৪ টাকা ৯৫.৮৪ টাকা
ইউরো ৮৪.২৪ টাকা ৮৭.৩৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫০, ৩১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭, ৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮, ৪৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫৮, ৪৪০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫৮, ৫৪০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১২ আশ্বিন ১৪২৭, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, দ্বাদশী ৩৮/৪১ রাত্রি ৮/৫৯। ধনিষ্ঠানক্ষত্র ৪২/৪৯ রাত্রি ১০/৩৮। সূর্যোদয় ৫/৩০/৪৪, সূর্যাস্ত ৫/২৩/৫৬। অমৃতযোগ দিবা ৭/৫ মধ্যে পুনঃ ৮/৪০ গতে ১১/৪ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪৯ গতে ১১/৪ মধ্যে পুনঃ ২/১৭ গতে ৩/৬ মধ্যে। বারবেলা ৭/০ গতে ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ২/২৭ গতে ৩/৫৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৫৭ গতে ১১/২৭ মধ্যে।
১১ আশ্বিন ১৪২৭, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, দ্বাদশী রাত্রি ৯/৪৮। ধনিষ্ঠানক্ষত্র রাত্রি ১২/২৮। সূর্যোদয় ৫/৩০, সূর্যাস্ত ৫/২৬। অমৃতযোগ দিবা ৭/৯ মধ্যে ও ৮/৪১ গতে ১০/৫৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩৭ গতে ১০/৫৭ মধ্যে ও ২/১৭ গতে ৩/৭ মধ্যে। কালবেলা ৭/০ গতে ৮/২৯ মধ্যে ও ২/২৭ গতে ৩/৫৭ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৫৮ গতে ১১/২৮ মধ্যে।
১০ শফর।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইপিএল: দিল্লি ক্যাপিটালসকে ১৬৩ রানের টার্গেট দিল হায়দরাবাদ 

09:23:02 PM

আইপিএল: হায়দরাবাদ ১২৮/২ (১৬ ওভার) 

09:09:08 PM

এফটিআইআইয়ের প্রেসিডেন্ট ও গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান হলেন শেখর কাপুর 

08:41:11 PM

আইপিএল: হায়দরাবাদ ৫২/০ (৭ ওভার) 

08:17:03 PM

আইপিএল: টসে জিতে হায়দরাবাদকে প্রথম ব্যাট করতে পাঠাল দিল্লি 

07:11:11 PM

আজ সন্ধ্যায় কলকাতা সহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় বৃষ্টির সম্ভাবনা 

05:41:37 PM