Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

যাত্রায় নতুন প্রজন্ম তৈরি করেছিলেন মোহিত বিশ্বাস 

যাত্রা ছিল তাঁর কাছে ধর্মের মতো। লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস
যাত্রা একসময় ছিল তাঁর কাছে স্বাধীনতার লড়াই। গ্রামে গ্রামে মানুষের কাছে গিয়ে অভিনয় করে তিনি চেয়েছিলেন লোকশিক্ষার মাধ্যমে জনজাগরণ ঘটাতে। তাই একদিন তিনি অ্যামেচার থেকে চলে এসেছিলেন পেশাদারী যাত্রায়। সেটা ১৯৪১ সাল। জাপানি বোমার ভয়ে তখন সবাই কলকাতা ছেড়ে পালাচ্ছেন। তখন যাত্রাদলে তৈরি হয় শূন্যতা। শিল্পীর অভাব। সেই অভাব মেটাতে শহরের অ্যামেচার শিল্পীদের ডাক পড়ে। এভাবেই তিনি যোগদান করলেন পেশাদারী যাত্রায়। ১৯২১ সালের ২ ডিসেম্বর জন্ম। দীর্ঘ ৪৮ বছরের অভিনয় জীবন ছিল তাঁর। তিনি হলেন যাত্রার জনপ্রিয় অভিনেতা মোহিত বিশ্বাস। যিনি নিজেই ছিলেন একটা ঘরানা।
বাবা মারা যাওয়ার পর মোহিত বিশ্বাস মায়ের হাত ধরে মুর্শিদাবাদের সুজাপুর থেকে এই শহরে চলে আসেন। তখন তাঁর বয়স মাত্র দশ বছর। শুরু হয় জীবনযাপনের লড়াই। বেড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে একটু একটু করে যোগাযোগ ঘটে বিপ্লবী দলের সঙ্গে এবং পাশাপাশি শুরু হয় অ্যামেচার অভিনয়।
’৪২ এর আন্দোলনে জড়িয়ে পড়লেন। কলকাতায় গুলি চলল। অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন। কিন্তু জখম হলেন। নবদ্বীপে গিয়ে আত্মগোপন করে চলল চিকিৎসা। সুস্থ হয়ে ’৪৩ সালে যোগ দিলেন রায় অপেরায়। পালা ছিল ‘আকালের দেশ’ এবং ‘রাজা হরিশ্চন্দ্র’।
১৯৪৬ সালে নবশক্তি অপেরায় মোহিত বিশ্বাস অভিনয় করলেন ‘ক্ষুদিরামের ফাঁসি’ পালায়। শশাঙ্কশেখর বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন রচয়িতা ও নির্দেশক। দলে ছিলেন পূর্ণেন্দুশেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, নন্দদুলাল রায়চৌধুরী প্রমুখ। তখন দেশজুড়ে স্বাধীনতার আন্দোলন তুঙ্গে। মানুষের প্রাণে স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষা প্রবলতর হয়ে উঠেছে। সুপারহিট হল পালা। সেই পালা চলল পরের বছরও। স্বাধীন ভারতের বুকে যেন বয়ে গেল এক আনন্দলহরী। খ্যাতির পথে চলা শুরু হল মোহিত বিশ্বাসের।
এরপর একে একে করলেন নন্দবাবুর ‘বিদ্রোহী সন্তান’ (রৌদ্রাসুর), ‘জরাসন্ধ বধ’ (কালযবন), সৌরীন্দ্রমোহন চট্টোপাধ্যায়ের ‘ভক্ত হরিদাস’ (গোরাই কাজী), ‘শুম্ভ-নিশুম্ভ’ (রক্তবীজ)। ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠা পেতে লাগলেন। সেই সময় সহ অভিনেতা হিসাবে পেয়েছিলেন মহেন্দ্র গুপ্তকে। ‘পাঞ্জাব কেশরী রণজিৎ সিং’ পালায়। নীতীশ মুখোপাধ্যায়কেও তিনি পেয়েছিলন সহ অভিনেতা হিসাবে। ‘মিশরকুমারী’তে নীতীশবাবু করতেন আবন আর মোহিত বিশ্বাস খারেব। সহ অভিনেতা হিসাবে পেয়েছিলেন বড় ফণী, ছোট ফণীকেও।
ছয়ের দশকের অনেকটা সময় তিনি অভিনয় করেছিলেন গণেশ অপেরায়। সেখানে ‘মসনদ’, ‘অভিনয়’, ‘পরিচয়’, ‘দেবী চৌধুরানী’, ‘যাযাবর’, ‘পাপ ও পাপী’, ‘দেবী অষ্টভূজা’, ‘আগুন’, ‘সম্রাট নাদির শাহ’ প্রভৃতি বিখ্যাত পালায় অভিনয় করেছেন। সেই সময় সহ অভিনেতা হিসাবে পেয়েছিলেন গোপাল চট্টোপাধ্যায়, অনাদি চক্রবর্তী, গুরুদাস ধাড়া, গোরাশশী মণ্ডল, পশুপতি ঘোষ, রাধারমণ পাল, বীণা ঘোষ, বাবলী রানী, সন্তোষ রানী প্রমুখকে।
নাট্যভারতীতে তিনি গেলেন ১৯৬৮ সালে। এই সময় ‘বাঁশের কেল্লা’ পালাটি মানুষের কাছে আদরণীয় হয়ে ওঠে। সেই পালায় ‘তিতুমির’ চরিত্রটি অভিনয় করে মোহিত বিশ্বাস প্রচুর খ্যাতি ও পুরস্কার পেয়েছিলেন। এই পালায় অভিনয় চলাকালীন অসুস্থ হয়ে মারা যান ফণীভূষণ বিদ্যাবিনোদ বা বড় ফণী। সেবার ‘বাঁশের কেল্লা’ পালার অভিনয় হয়েছিল বোম্বাইয়ে। ওখানে বাঙালিদের দুর্গাপুজোর মণ্ডপে। পুজোর পাঁচদিন অভিনয় হয়েছিল শিবাজি পার্ক এবং ক্রস ময়দানে। বোম্বাইয়ের বাঙালিরা সেই পালা দেখেছিলেন। বলিউডের বাঙালি অভিনেতারাও এসেছিলেন। তার মধ্যে ছিলেন অশোককুমার, তাঁর ভাই অনুপকুমার, বিপিন গুপ্ত, বেলা বোস, শশধর মুখার্জি সহ আরও অনেকেই। সেই অভিনয় দেখে তাঁরা মুগ্ধ হয়েছিলেন। মোহিত বিশ্বাসকে জড়িয়ে ধরে অশোককুমার বলেছিলেন, ‘অসাধারণ। বাংলা যাত্রা এতো সমৃদ্ধ হয়েছে, তা জানতামই না।’ রুস্তম চরিত্রে প্রশংসা পেয়েছিলেন অসীমকুমারও।
এরপর মাধবী নাট্য কোম্পানি। সেখানে তাঁর অভিনীত বিখ্যাত পালাগুলি হল, ‘মার্ডার’, ‘হেডমাস্টার’, ‘রিকশওয়ালা’ প্রভৃতি। রিকশওয়ালায় ভজনের ভূমিকায় তিনি সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন।
১৯৭১ সালে মোহন চট্টোপাধ্যায় লিজ নেন গণেশ অপেরা। সেই সময় ওই দলের হিট পালাগুলি ছিল, ‘বামাক্ষ্যাপা’, ‘ভুলি নাই’, ‘ঘুমন্ত পৃথিবী’, ‘সন্তান’, ‘হাটে বাজারে’। এই পালাগুলিতে মোহিত বিশ্বাসের অভিনয় ছিল দাগকাটার মতো। তখন এই দলে ছিলেন গোপাল চট্টোপাধ্যায়, মোহন চট্টোপাধ্যায়, মিতা চট্টোপাধ্যায়, আনন্দময় বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ। এই গণেশ অপেরাতেই তিনি পরে করেছেন ‘পলাতক’, ‘নীল আকাশের নীচে’, ‘ময়নামতীর মাঠ’, ‘কথার দাম’। সবকটিই হিট পালা। ১৯৮৩ সালে গণেশ অপেরায় তিনি অভিনয় করলেন ‘মহুয়া বসন্ত’ এবং ‘মন্দিরে আজান’ পালায়। নির্দেশনায় ছিলেন তিনিই।
১৯৭২ সালে মোহিত বিশ্বাস গেলেন প্রভাস অপেরায়। সেবার ওই দলের বিখ্যাত পালাগুলি ছিল ‘ভক্ত কবীর’, ‘বাঁচতে চাই’ এবং ‘মেজবৌ’। নাট্যপরিচালনা ছিল তাঁরই। শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন শিবদাস মুখোপাধ্যায়, রাধারমণ পাল, বাবলু ভট্টাচার্য, প্রণয় কুমার, জয়শ্রী মুখোপাধ্যায় প্রমুখ।
পরে এক বছর অভিনয় করেছিলেন সুশীল নাট্য কোম্পানিতে। সেখানে পালা ছিল ‘সুখের সন্ধানে’ ও ‘স্বর্ণলতা’। ১৯৮৬ সালে তিনি তপোবন নাট্য কোম্পানিতে ‘লক্ষ্মণের শক্তিশেল’ পালায় রাবণের চরিত্রে অভিনয় করলেন। রাম চরিত্রে ছিলেন মনোজকুমার, মন্দোদরীর ভূমিকায় ছিলেন গীতাঞ্জলি।
তখন পর্দায় শক্তি সামন্তের ‘অনুসন্ধান’ সুপারহিট ছবি। সেটা যাত্রায় হল। ভোলানাথ অপেরায়। শম্ভু সিনহা তখন মারা গিয়েছেন। তাঁর ভাই অশোক সিনহা যাত্রায় এলেন। অশোক করতেন অমিতাভ বচ্চনের চরিত্রটা এবং মোহিত বিশ্বাস করতেন আমজাদ খানের চরিত্রটা। কিছুদিন পরেই চরিত্র বদল করতে হল। মোহিত বিশ্বাস চলে গেলেন উৎপল দত্তের চরিত্রটায়। আমজাদের চরিত্রে স্টেজে মারামারির সময় খুব ডিগবাজি খেতে হতো, ছিটকে পড়তে হতো। ওই বয়সে আর সেই ধকল নিতে পারতেন না। মাঝে মাঝেই হাঁটুতে, কোমরে চোট লাগত। তাই উৎপল দত্তের চরিত্রে চলে গিয়েছিলেন।
অন্যান্য যেসব পালায় অভিনয় করে তিনি আনন্দ ও খ্যাতি পেয়েছিলেন সেগুলি হল, ‘ধর্মের বলি’ (মুর্শিদকুলি খাঁ), ‘দেবী চৌধুরানী’ (ব্রজেশ্বর), ‘অভিনয়’ (আকবর সর্দার), ‘হে অতীত কথা কও’ (রাজ্যবর্ধন), ‘হাটে-বাজারে’, ‘পলাতক’ (আংটি চাটুজ্জে), ‘কলিকালের বউ’, ইত্যাদি।
মোহিত বিশ্বাস শুধু একজন অভিনেতা বা নির্দেশক ছিলেন না। তিনি ছিলেন একজন বড় নাট্য পরিচালক এবং শিক্ষকও। যাত্রাপ্রেমী প্রবীণ মানুষ স্বদেশ রায়। তাঁর মূল্যায়ণ, ‘মোহিত বিশ্বাস যত বড় শিল্পী, তার থেকেও বড় শিক্ষক। তাঁর হাত দিয়ে যে চিৎপুরের কত শিল্পীর সৃষ্টি হয়েছে এবং কত নাট্যকারের জন্ম হয়েছে, তার ইয়ত্তা নেই। তিনি নিজে যেমন অভিনয় করে গিয়েছেন, তেমনই প্রজন্মও তৈরি করে গিয়েছেন। তাঁর মতো উপযুক্ত শিক্ষকের অভাবেই আজ যাত্রার এই দুর্দশা’।
যাত্রা গবেষক দিবাকর ভৌমিক বলেছিলেন, ‘মোহিত বিশ্বাস এবং পঞ্চু সেন ছিলেন এক ঘরানার শিল্পী। বহুবার দেখা গিয়েছে পঞ্চু সেন দল ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন। পরের বছর মোহিত বিশ্বাস গিয়ে সেই চরিত্রে অভিনয় করতেন। যেমন বিনয় বাদল দীনেশ। সেখানে পঞ্চু সেন যে চরিত্র করেছিলেন, সেটাই মোহিত বিশ্বাস করেছিলেন। আবার উল্টো ঘটনাও আছে। কোনওবার হয়তো মোহিত বিশ্বাস অন্য দলে চলে গেলেন। সেবার পঞ্চু সেন এসে মোহিতবাবুর চরিত্রটা অভিনয় করতেন। আসলে পঞ্চু সেনের অভিনীত কোনও চরিত্রে রূপ দেওয়া অন্য কোনও শিল্পীর কাছে ছিল অকল্পনীয়। কিন্তু মোহিতবাবুর দৃঢ় আত্মবিশ্বাস থাকায় তিনি সসম্মানে উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, সেই সঙ্গে সেই চরিত্রটিকে নতুনভাবে উপস্থাপিতও করতে পারতেন।’
মোহিত বিশ্বাসের সুযোগ্য শিষ্য অসীমকুমার আজও জীবিত। তিনি বলেছিলেন, ‘মোহিতদার কাছে অনেক কিছু শিখেছি। তাঁর কাছে যাত্রা ছিল ধর্মের মতো। তাই কোনও আপসেই তিনি যাত্রাধর্ম থেকে বিচ্যুত হননি। অসাধারণ সম্পাদনা করতে পারতেন। যে কোনও দুর্বল পালাকে ঠিক দাঁড় করিয়ে দিতেন।’
১৯৮৮ সালের ১০ ডিসেম্বর প্রয়াত হন এই শিল্পী। অনেক কাছ থেকে দেখেছি তাঁর জীবন ও অভিনয়। তাঁর কাছে শুনেছি অনেক কথা। কেন না তিনি ছিলেন আমার বাবা।
ছবি : সংশ্লিষ্ট সংস্থার সৌজন্যে 
07th  September, 2019
এনএসডি-র আদিরঙ মাতিয়ে দিল দ্বারোন্দা 

ইউক্যালিপটাসের সুউচ্চ গাছগুলোর মাথায় মেঘমুক্ত পশ্চিমাকাশে ধ্রুবতারাটা জ্বলজ্বল করছিল। শেষ লগ্নে এসেও শীত তার দাপট জানান দিচ্ছে তীব্র হিমেল হাওয়ায়। তবু বোলপুরের দ্বারোন্দা গ্রামের মুক্ত প্রান্তরে মানুষের ভিড় কম নয়। চলছে দিল্লির ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা (এনএসডি) আয়োজিত ‘আদিরঙ’ অর্থাৎ আদিবাসী রঙ্গোৎসব।  
বিশদ

22nd  February, 2020
প্রেমের ঘেরাটোপে শয়তানের পদচারণা 

আ কনফেশন অব সাইকোফেনিক— আলোচনাটা এভাবে শুরু করা যায়। জালের ঘেরাটোপের মধ্যে শুরু হয় নাটক। একটি অন্তরঙ্গ ঘরে, কুলকুল জলের শব্দে, জালের মধ্যে গাঢ় বেগুনি আলোয় ভেসে ওঠে কতকগুলি বিমূর্ত হাত। একপাশে যুগল অন্তরঙ্গ হয়ে চুম্বনরত ও তাদের ঘিরে পুলিসবেশী ডাক্তার ও নার্সের পদচারণা।  
বিশদ

22nd  February, 2020
ভাষা দিবসে এনআরসি বিরোধী নাট্য 

শুধুমাত্র মাতৃভাষার জন্য আন্দোলন করতে গিয়ে একটা দেশ স্বাধীনতার স্বাদ উপলব্ধি করতে পেরেছিল। তারই স্বীকৃতি স্বরূপ ইউনেসকো ২১ ফেব্রুয়ারি দিনটিকে বিশ্ব মাতৃভাষা দিবস হিসেবে চিহ্নিত করে। যা গোটা বিশ্বে পালিত হয়। 
বিশদ

22nd  February, 2020
বাংলাদেশের নাটকের উৎসব 

এবছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবর্ষ। বাংলাদেশের মুক্তিসূর্য সেই মুজিবার রহমানকে শ্রদ্ধা জানাতে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ১ মার্চ পর্যন্ত দক্ষিণ কলকাতার তপন থিয়েটারে বসছে বাংলাদেশের একগুচ্ছ নাটকের আসর। মোট সাতটি দল আসছে বাংলাদেশ থেকে। দলগুলি হল থিয়েটার ফ্যাক্টরি।
বিশদ

22nd  February, 2020
যুদ্ধের ন্যায় ও ন্যায়ের যুদ্ধ 

ন্যায় কোনটা? আর অন্যায়টাই বা কী? এ নিরূপণ করা খুবই দুরূহ। যুদ্ধের প্রাক্কালে উভয়পক্ষই দাবি করে তাঁরাই ন্যায়ের জন্য যুদ্ধ করছে। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধের আগে কৃষ্ণ দাবি করেছিলেন তিনি ন্যায়ের পক্ষে লড়াই করছেন, তাই পাণ্ডবদের সহায়তা করছেন। কিন্তু কতটা যুক্তিযুক্ত ছিল সেই দাবি? কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে কি সত্যিই ন্যায় রক্ষিত হয়েছিল সদাসর্বদা?
বিশদ

22nd  February, 2020
পঞ্চদশ সাউথ এশিয়ান থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল 

আমাদের রাজ্যের মানুষদের মনে একটা ধারণা আছে বিদেশে গিয়ে বুঝি বাঙালিরা নিজেদের কৃষ্টি সংস্কৃতি ভুলে যায়। ধারণাটা পুরোপুরি ভুল না হলেও, এই ধারণার একটা বিপ্রতীপ দিকও আছে। যেখানে দেখা যায় বিদেশে বসবাসকারী বাঙালিরা নিজেদের ভাষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি রক্ষা করার জন্য আপ্রাণ লড়াই যাচ্ছেন।  
বিশদ

22nd  February, 2020
একই বৃন্তে... 

মুসলমান যুবক আলম ভালোবাসে হিন্দু যুবতী সোনালিকে। সোনালির মা বাবা এ সম্পর্ক কিছুতেই মেনে নিতে পারেন না। বিয়ে করার আগে অগত্যা সোনালীকে নিয়ে আলম বাংলাদেশে তার নিজের বাড়িতে আসে। আলমের মাও কিন্তু ধর্মের কারণেই মেনে নিতে পারেন না এই সম্পর্ক। সোনালি কিন্তু হাল না ছেড়ে জিতে নেয় আলমের মায়ের মন। 
বিশদ

22nd  February, 2020
একই বৃন্তে... 

মুসলমান যুবক আলম ভালোবাসে হিন্দু যুবতী সোনালিকে। সোনালির মা বাবা এ সম্পর্ক কিছুতেই মেনে নিতে পারেন না। বিয়ে করার আগে অগত্যা সোনালীকে নিয়ে আলম বাংলাদেশে তার নিজের বাড়িতে আসে। আলমের মাও কিন্তু ধর্মের কারণেই মেনে নিতে পারেন না এই সম্পর্ক। সোনালি কিন্তু হাল না ছেড়ে জিতে নেয় আলমের মায়ের মন। 
বিশদ

14th  February, 2020
পঞ্চদশ সাউথ এশিয়ান থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল 

আমাদের রাজ্যের মানুষদের মনে একটা ধারণা আছে বিদেশে গিয়ে বুঝি বাঙালিরা নিজেদের কৃষ্টি সংস্কৃতি ভুলে যায়। ধারণাটা পুরোপুরি ভুল না হলেও, এই ধারণার একটা বিপ্রতীপ দিকও আছে। যেখানে দেখা যায় বিদেশে বসবাসকারী বাঙালিরা নিজেদের ভাষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি রক্ষা করার জন্য আপ্রাণ লড়াই যাচ্ছেন। 
বিশদ

14th  February, 2020
মিনার্ভা নাট্য সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র আয়োজিত
৫ম জাতীয় নাট্য উৎসব 

আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে মিনার্ভা নাট্য সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্রের পঞ্চম ‘জাতীয় নাট্য উৎসব’। মিনার্ভা থিয়েটার, রবীন্দ্র সদন ও মধুসূদন মঞ্চ, এই তিনটি প্রেক্ষাগৃহে আটদিন ধরে চলবে এই নাট্য উৎসব। আগামীকাল রবীন্দ্র সদনে বিকেল সাড়ে পাঁচটায় উৎসবের উদ্বোধন।  
বিশদ

14th  February, 2020
প্রেমের ঘেরাটোপে শয়তানের পদচারণা 

আ কনফেশন অব সাইকোফেনিক— আলোচনাটা এভাবে শুরু করা যায়। জালের ঘেরাটোপের মধ্যে শুরু হয় নাটক— বলা ভালো একটি গল্প বলতে থাকা অনাটক এটি। একটি অন্তরঙ্গ ঘরে, কুলকুল জলের শব্দে, জালের মধ্যে গাঢ় বেগুনি আলোয় ভেসে ওঠে কতকগুলি বিমূর্ত হাত।
বিশদ

14th  February, 2020
যুদ্ধের ন্যায় ও ন্যায়ের যুদ্ধ 

ন্যায় কোনটা? আর অন্যায়টাই বা কী? এ নিরূপণ করা খুবই দুরূহ। যুদ্ধের প্রাক্কালে উভয়পক্ষই দাবি করে তাঁরাই ন্যায়ের জন্য যুদ্ধ করছে। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধের আগে কৃষ্ণ দাবি করেছিলেন তিনি ন্যায়ের পক্ষে লড়াই করছেন, তাই পাণ্ডবদের সহায়তা করছেন। কিন্তু কতটা যুক্তিযুক্ত ছিল সেই দাবি? কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে কি সত্যিই ন্যায় রক্ষিত হয়েছিল সদাসর্বদা?
বিশদ

14th  February, 2020
এনএসডি-র আদিরঙ মাতিয়ে দিল দ্বারোন্দা 

ইউক্যালিপটাসের সুউচ্চ গাছগুলোর মাথায় মেঘমুক্ত পশ্চিমাকাশে ধ্রুবতারাটা জ্বলজ্বল করছিল। শেষ লগ্নে এসেও শীত তার দাপট জানান দিচ্ছে তীব্র হিমেল হাওয়ায়। তবু বোলপুরের দ্বারোন্দা গ্রামের মুক্ত প্রান্তরে মানুষের ভিড় কম নয়। চলছে দিল্লির ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা (এনএসডি) আয়োজিত ‘আদিরঙ’ অর্থাৎ আদিবাসী রঙ্গোৎসব। 
বিশদ

14th  February, 2020
কাঁকিনাড়ায় নাট্য উৎসব 

গত ১৪ ও ১৫ ডিসেম্বর কাঁকিনাড়ায় দু’দিনের জন্য নাট্য উৎসবের আয়োজন করেছিল ‘কাঁকিনাড়া স্বস্তি নাট্য শিল্পম’। রথতলা রাজলক্ষ্মী বালিকা বিদ্যালয়ের অডিটোরিয়ামে ওই উৎসবের আয়োজন করা হয়। এবার ছিল চতুর্থ বর্ষ। উৎসবের উদ্বোধন করেন নাট্যকার চন্দন সেন।  
বিশদ

08th  February, 2020
একনজরে
 সমৃদ্ধ দত্ত, নয়াদিল্লি, ২২ ফেব্রুয়ারি: স্টেজ হবে রিভলভিং। থাকবে দুটি পোডিয়াম। দুই রাষ্ট্রপ্রধানের জন্য। ঠিক যেখানে ক্লাবহাউস প্যাভিলিয়ন তার নীচেই হবে মঞ্চ। আর মোট চারটি ...

ওয়েলিংটন, ২২ ফেব্রুয়ারি: অন্তিম সেশনে ইশান্ত-সামি-অশ্বিনরা যেভাবে লড়াইয়ে ফেরার ইঙ্গিত দিলেন, তা ভারতের পক্ষে খুবই ইতিবাচক। বাইশ গজে দারুণ জমে যাওয়া কেন উইলিয়ামসন ও রস ...

সংবাদদাতা, নবদ্বীপ: শনিবার নবদ্বীপ স্টেট জেনারেল হাসপাতালে বসে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিল নবদ্বীপ এপিসি ব্লাইন্ড স্কুলের ছাত্রী স্মৃতি নন্দী। ব্লাইন্ড স্কুলের হোস্টেল সুপার সুরেন্দ্রকুমার চক্রবর্তী বলেন, বুধবার রাতে স্মৃতি অসুস্থ হয়ে নবদ্বীপ স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়। ...

 অভিমন্যু মাহাত, বারাকপুর, বিএনএ: ‘আমি অনুতপ্ত। ওভারটেক করতে গিয়েই দুর্ঘটনা। আমি এই দুর্ঘটনা ভুলে যেতে চাই। আচ্ছা, ঋষভ এখন কেমন আছে?’ কল্যাণী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের মানসিক স্থিরতা রাখা দরকার। প্রেম-প্রণয়ে বাধাবিঘ্ন থাকবে। তবে নতুন বন্ধু লাভ হবে। সাবধানে পদক্ষেপ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস
১৮৪৮: কার্ল মার্ক্স প্রকাশ করেন কমিউনিস্ট ম্যানিফেস্টো
১৮৭৮ - মিরা আলফাসা ভারতের পণ্ডিচেরি অরবিন্দ আশ্রমের শ্রীমার জন্ম
১৮৯৪: ডাঃ শান্তিস্বরূপ ভাটনগরের জন্ম
১৯৩৭: অভিনেত্রী সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫২: পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমান বাংলাদেশ) ভাষা আন্দোলনে প্রাণ দিলেন চারজন
১৯৬১: নোবেলজয়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৭০ - অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার মাইকেল স্লেটারের জন্ম
১৯৯১: অভিনেত্রী নূতনের মৃত্যু
১৯৯৩ - বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক ও কবি অখিল নিয়োগীর (যিনি স্বপনবুড়ো ছদ্মনামে পরিচিত) মৃত্যু
২০১৩: হায়দরাবাদে জোড়া বোমা বিস্ফোরণে ১৭জনের মৃত্যু

১৭৩২: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম রাষ্ট্রপতি জর্জ ওয়াশিংটনের জন্ম
১৯০৬: অভিনেতা পাহাড়ি সান্যালের জন্ম
১৯৪৪: মহাত্মা গান্ধীর স্ত্রী কস্তুরবা গান্ধীর মৃত্যু
১৯৫৮: স্বাধীনতা সংগ্রামী আবুল কালাম আজাদের মৃত্যু
২০১৫: বাংলাদেশে নৌকাডুবি, মৃত ৭০

21st  February, 2020




ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৯৪ টাকা ৭২.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯০.৯৮ টাকা ৯৪.৩০ টাকা
ইউরো ৭৬.০৫ টাকা ৭৯.০১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
21st  February, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৩,১৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,৯৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪১,৫৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৮,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৮,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১০ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, রবিবার, (মাঘ কৃষ্ণপক্ষ) অমাবস্যা ৩৭/১৭ রাত্রি ৯/২। ধনিষ্ঠা ১৮/৫৮ দিবা ১/৪৩। সূ উ ৬/৭/২৩, অ ৫/৩৩/৫, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৩ গতে ৯/৫৬ মধ্যে। রাত্রি ৭/১৩ গতে ৮/৫৪ মধ্যে। বারবেলা ১০/২৫ গতে ১/১৫ মধ্যে। কালরাত্রি ১/২৫ গতে ২/৫৮ মধ্যে। 
১০ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, রবিবার, অমাবস্যা ৩৪/৪২/৪০ রাত্রি ৮/৩/৩৭। ধনিষ্ঠা ১৭/৩৭/৪৩ দিবা ১/১৩/৩৮। সূ উ ৬/১০/৩৩, অ ৫/৩১/৫৮। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪০ গতে ৯/৪৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/১৭ গতে ৮/৫৪ মধ্যে। কালবেলা ১১/৫১/১৬ গতে ১/১৬/২৬ মধ্যে। কালরাত্রি ১/২৬/৫ গতে ৩/০/৫৪ মধ্যে। 
২৮ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ময়নাগুড়ির বালাসন এলাকায় চিতা বাঘের আতঙ্ক, ঘটনাস্থলে বনদপ্তরের কর্মীরা 

22-02-2020 - 02:10:59 PM

কোচবিহারে পথ দুর্ঘটনায় জখম ১০ 
কোচবিহারের বানেশ্বর শিব মন্দিরে শিবের মাথায় জল ঢেলে বাড়ি ফেরার ...বিশদ

22-02-2020 - 01:48:00 PM

জয়নগরে স্কুলের গেটে ট্রাকের ধাক্কায় জখম প্রহরী 

22-02-2020 - 01:02:00 PM

বারুইপুরে আত্মঘাতী কিশোরী 
বারুইপুরে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী কিশোরী। গতকাল সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটে ...বিশদ

22-02-2020 - 01:01:00 PM

কৃষ্ণা বসুর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 

22-02-2020 - 12:57:00 PM

উলুবেড়িয়ায় ৬ নম্বর জাতীয় সড়কে উল্টাল গ্যাস ট্যাঙ্কার, ব্যাহত যান চলাচল 

22-02-2020 - 12:39:00 PM