Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

ইন্দিরা গান্ধী এসেছিলেন অ্যান্টনি কবিয়াল দেখতে 

বাংলা পেশাদারি রঙ্গমঞ্চের পীঠস্থান হাতিবাগান ও সংলগ্ন অঞ্চল। ইংল্যান্ডের থিয়েটার পাড়ার সঙ্গে একসময়ে যার তুলনা করা হতো। আজ সবই অতীত।
সেই অতীতের গল্পকথায় ড. শঙ্কর ঘোষ।

কবিগানের সেরা গায়ক ভোলা ময়রা উঠতি এক ফিরিঙ্গির কবিয়াল হওয়ার ইচ্ছাকে নস্যাৎ করার জন্য কবিগানের আসরে গাইলেন—
‘‘তুই জাত ফিরিঙ্গি জবর জঙ্গি-পারব না কো তরাতে
শোন্‌ রে ভ্রষ্ট, বলি স্পষ্ট, তুই রে নষ্ট, মহা দুষ্ট।
তোর কী ইষ্ট, কালী কেষ্ট? ভজগে যা তুই, যীশু খ্রিস্ট
শ্রীরামপুরের গির্জেতে।’’
দমবার পাত্র নন সেই ফিরিঙ্গি কবি; তিনি প্রত্যুত্তরে গেয়ে উঠলেন—
‘খ্রিস্টে আর কৃষ্টে কিছু প্রভেদ নাই রে ভাই
শুধু নামের ফেরে মানুষ ফেরে এও তো কোথা শুনি নাই।’
সেই ফিরিঙ্গি আর কেউ নন। তিনি হলেন অ্যান্টনী ফিরিঙ্গি। কবিয়াল হিসাবে সর্বদা তাঁকে প্রেরণা জুগিয়েছেন তাঁর স্ত্রী সৌদামিনী। এই নিয়ে জমজমাট নাটক ‘অ্যান্টনী কবিয়াল’। রচনা বিধায়ক ভট্টাচার্যের। প্রধান তিনটি চরিত্রের শিল্পী হলেন সবিতাব্রত দত্ত (অ্যান্টনি), কেতকী দত্ত (সৌদামিনী), জহর গঙ্গোপাধ্যায় (ভোলা ময়রা)। মঞ্চস্থ হচ্ছে কোথায়? না, মানিকতলার খাল পাড়ে অবস্থিত ‘কাশী বিশ্বনাথ মঞ্চে’। এ নাটক টানা ৫১৪ রজনী অভিনীত হয়ে এ মঞ্চকে জনমানসে প্রতিষ্ঠা দিল। পরে সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় ‘মল্লিকা’ নিয়ে, সন্ধ্যা রায় ‘সুজাতা’ নিয়ে, মাধবী মুখোপাধ্যায় ‘না’ নিয়ে, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ‘নামজীবন’ নিয়ে, অনুপকুমার ‘অঘটন’ নিয়ে, সর্বোপরি অপর্ণা সেন ‘পান্নাবাঈ’ নিয়ে সরগরম করে রেখেছিলেন এই মঞ্চ। তার আগে কে চিনত এই মঞ্চকে! নান্দিক-এর তরফে কেতকী দত্তের তত্ত্বাবধানে খালপাড়ের এই মঞ্চে যখন অভিনয় হবে বলে সবাই তৈরি, তখন অনেকের মনে ভাবনা হল খালপাড়ে যাবে কে? মাথা খাটিয়ে খাটিয়ে সে পথ বার করলেন কেতকী দত্ত। গভর্নমেন্ট বাস যার একটা যাবে সাউথ ক্যালকাটা, আরেকটা যাবে হাওড়া, অপরটা যাবে নর্থ ক্যালকাটা। তিনটে বাস তিনটি রুটে যাওয়ার বন্দোবস্ত করা হল। খালপাড়ের মঞ্চ, মশার ডিপো, দর্শকদের মশা কামড়ালে কেউ আসবে?
কেতকী দত্ত অন্যান্যদের নিয়ে শো-এর আগে স্প্রে করে মঞ্চ বন্ধ করে দিতেন। শো-এর ঠিক আগে মঞ্চ খুলে দেওয়া হতো। এই নাটক শুরু হয়েছিল ১৯৬৬ সালের ২৬ অক্টোবর। সকলের মধ্যে একটা স্পিরিট কাজ করত। নইলে জহর গঙ্গোপাধ্যায়ের মত দুর্ধর্ষ নট কাউন্টারে এসে বসে টিকিট বিক্রি করতেন! প্রথম দুটো অ্যাক্ট-এ তাঁর চরিত্রের প্রবেশ ছিল না। তারপর যখন তিনি ঢুকতেন আর ওই বৃদ্ধ বয়সে পায়ে ঘুঙুর বেঁধে গাইতেন—
‘আমি সে ভোলানাথ নই আমি সে ভোলানাথ নই
আমি ময়রা ভোলা, হরুর চেলা, বাগবাজারে রই’, তখন দর্শকেরা মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে যেতেন।
‘অ্যান্টনী কবিয়াল’ সেই সময়ে কে না দেখেছেন। সবার আগে উল্লেখ করার মতো নাম প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর। তিনি এলেন। তাঁকে সংবর্ধিত করা হল। দেখলেন এ নাটক। তাঁর সঙ্গে ছিলেন তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থশঙ্কর রায়। ইন্দিরা গান্ধীর এই নাটক দেখতে আসার একটা বড় বাঁধানো ছবি টিকিট কাউন্টারের বিপরীত দিকের দেওয়ালে ঝোলানো ছিল বহুদিন। শুধু ইন্দিরা গান্ধী কেন? উত্তমকুমার, কিশোরকুমার, কানন দেবী, তৎকালীন রাজ্যপাল ধরমবীর, বেলুড় মঠের অধ্যক্ষ স্বামী রঙ্গনাথানন্দজি প্রমুখ স্মরণীয় মানুষেরা এ নাটক দেখতে এসেছেন বা পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। কিন্তু ভিতরের দলাদলিতে হাউসের মালিক তালা ঝুলিয়ে দিলেন। কোর্ট কেস করে তালা ভাঙা হল ঠিকই, কিন্তু ভেতরে ঢুকে দেখা গেল সব মালপত্তর সব বেপাত্তা। অনেক চেষ্টা-চরিত্র করে কেতকী দত্ত আবার শুরু করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তা আর ফলপ্রসূ হয়নি।
মুখ্যত পেশাদার শিল্পী হলেও আমন্ত্রিত শিল্পী হিসাবে অভিনয় করেছেন বিভিন্ন গ্রুপ থিয়েটারে। চতুর্মুখের সদস্যপদ নিয়েছিলেন ১৯৭১ সালের ৩০ জুন। এই চতুর্মুখের প্রযোজনায় ১৯৭১ সালের ১৫ আগস্ট প্রতাপ মঞ্চে (রাজাবাজার ট্রাম ডিপোর বিপরীতে) শুরু হল সুবোধ ঘোষের লেখা ‘বারবধূ’। নাট্যরূপ নির্দেশক চতুর্মুখের প্রধান অসীম চক্রবর্তী। সেখানে নায়িকা লতার চরিত্রে কেতকী দত্ত। নায়ক প্রসাদ-এর চরিত্রে অসীম চক্রবর্তী। তুমুল বিতর্কের মুখে পড়েছিলেন কেতকী দত্ত। কারণ নাটকের প্রথম দৃশ্যে শুধু একটা অন্তর্বাস আর সেমিজ পরে প্রসাদের সঙ্গে যৌন দৃশ্যে অভিনয় করছেন, মুখে গানও রয়েছে; ‘আমি চাইনা চাইনা চাইনা তোমার ওজন করা ভালোবাসা।’ গোড়ার দিকে বিক্রি ভালো ছিল না। সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত বিক্রি তেমন নেই। একদিন হঠাৎ করে অসীম চক্রবর্তীর মাথায় এল পাবলিসিটির জন্য নতুন এক স্লোগান— ‘ভালোবাসার ব্লো হট নাটক।’ এই যেই পাবলিসিটি পড়ল, আস্তে আস্তে বিক্রি বাড়তে বাড়তে রোজ হাউসফুল। একাদিক্রমে ১৮০০ রজনী অভিনীত হয়ে এ নাটক এক ইতিহাস সৃষ্টি করল। নাটকটির বিরুদ্ধে অশ্লীলতার অভিযোগ উঠেছিল। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছিল। কেতকী দত্ত কিন্তু শেষের রজনীগুলিতে অভিনয় করতে পারেননি।
কারণ ‘বারবধূ’র জনপ্রিয়তা কেতকী দত্তকে নিয়ে। সবাই এসে বলতেন কেতকী অপূর্ব, কেতকী অতুলনীয়, কেতকী একাই একশো ইত্যাদি ইত্যাদি। অসীম চক্রবর্তীর মনে কমপ্লেক্স গ্রো করল। যার জন্য মেন্টাল আর ফিজিকাল টর্চার আরম্ভ করলেন অসীম চক্রবর্তী কেতকী দত্তের ওপরে। স্টেজের মধ্যে পর্যন্ত টর্চারিং হতো নিয়মিত। হাত দুটো অসীম এমনভাবে ধরতেন যে, পাঁচটা আঙুলের ছাপ পড়ে যেত। সিনের শেষে যেই লাইট অফ হতো, মুখটা অসীম নিয়ে আসতেন কেতকীর কাঁধের কাছে, জোরে কামড় বসিয়ে দিতেন। কেতকী যত ভালো অভিনয় করেন, তত বেশি টর্চার চলত। দুমদাম মার। একদিন থাকতে না পেরে সিন থেকে বেরিয়ে এসে কেতকী এর কারণ জিজ্ঞাসা করলেন। অসীম স্পষ্ট বললেন, ‘যদি চরিত্রটা না দিতাম, কে চিনত কেতকী দত্তকে?’ চুপ করে থাকতে পারলেন না কেতকী দত্ত; ‘শোনো তুমি ভুল বললে। কেতকী দত্তকে অনেকে চেনে। তোমার বারবধূ’র থেকে কেতকী দত্তকে চেনে না। অ্যান্টনী কবিয়াল-এর কেতকী দত্তকে চেনে। তা ছাড়া তুমি তো স্রষ্টা। তুমি তো লতা চরিত্রটা সৃষ্টি করেছ। আমি তাতে রূপ দিয়েছি। রূপটা সার্থক হয়েছে বলেই দর্শকেরা ভালো বলছে। এতে তোমার আনন্দ পাওয়ার কথা। এতে তোমার রাগ হয় কেন?’ কে শোনে কার কথা। মাঝে কেতকী দত্তকে বসিয়ে দিয়ে ছন্দা চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে আসা হল লতা চরিত্র করার জন্য। দর্শকদের মন ভরলো না। আবার সেই কেতকী দত্তকে আনা হল। সিনের মধ্যে একটু-আধটু ভুল হলে আবার টর্চার। একদিন প্রতিবাদ করে বলেছিলেন, ‘ভুল মানুষ মাত্রেই হয়।’ যেই বলা, দুম করে এক ঘুঁষি। নাকটা ফেটে ঝরঝর করে রক্ত পড়তে আরম্ভ করল। উইংসের আড়ালে যাঁরা ছিলেন, তাঁরা এর মধ্যে আর ঢোকেন না। কারণ এ যে নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। সেই অপমানিত কেতকী দত্ত নাটকের জগতের জনপ্রিয় অভিনেত্রী প্রভা দেবীর মেয়ে। ২০০২ সালে তিনি ‘সঙ্গীত নাটক আকাদেমি’ পুরস্কার পেয়েছেন। অনেক নাটকে মঞ্চ দাপিয়ে বেরলেও তাঁকে নাট্যমোদীরা মনে রাখবেন ‘অ্যান্টনী কবিয়াল’-এর সৌদামিনী এবং ‘বারবধূ’ নাটকের লতা চরিত্র দুটির জন্য। মৃত্যুর পূর্বে এক স্মৃতিচারণে তিনি বলেছেন, ‘আমার মনে হয়, আর বোধ হয় পাবলিক থিয়েটার মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না। পাবলিক থিয়েটার মরে গেছে।’ 
27th  July, 2019
সালকিয়া আগন্তুকের নাট্যোৎসব 

সালকিয়া আগন্তুক নাট্য সংস্থার পরিচালনায় উজ্জ্বল ঘোষ স্মরণে দুদিনব্যাপী একটি নাট্যোৎসবের আয়োজন করা হয়েছিল হাওড়ার রামগোপাল মঞ্চে।  বিশদ

অশনি নাট্যমের নাট্যোৎসব 

অবরুদ্ধ কাশ্মীর, এনআরসি, ডিটেনশন ক্যাম্প, নয়া ইউএপিএ আইন, অর্থনৈতিক মন্থরতা এসব নিয়ে দেশের মানুষের যখন উদ্বিগ্ন হওয়ার কথা তখনই ধর্ম ও মেকী জাতীয়তাবাদের মোড়ক দিয়ে দেশের নাগরিকদের ভুলিয়ে রাখার প্রচেষ্টা চোখে পড়ছে।  
বিশদ

উদীয়মান নারীর মঞ্চ 

গত বছরের মতো এবছরও মানিকতলা দলছুট নাট্য সংস্থা আয়োজন করেছে তাদের ‘উদীয়মান নারীর মঞ্চ’। আগামী ১৯ ডিসেম্বর থেকে ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত গোবরডাঙা সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে চলবে এই উৎসব। প্রতিদিন চারটি করে নাটক মঞ্চস্থ হবে। বেশিরভাগ নাটকের পরিচালকই নারী।
বিশদ

অন্য চুপকথার নবম নাট্য উৎসব

প্রতিবছরের মতো এবছরও চাকদহ অন্য চুপকথার নাট্য উৎসব শুরু হয়েছে চাকদহের সম্প্রীতি মঞ্চে। চলেবে আগামী ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এবারের উৎসবে মোটা ছ’টি নাটক প্রদর্শিত হবে। প্রথমদিন অর্থাৎ ১৩ ডিসেম্বর ছিল ইন্দ্ররঙ্গ প্রযোজিত নাটক অদ্য শেষ রজনী। পরদিন ১৪ ডিসেম্বর দমদম শ্রুতিরঙ্গমের দুটি ছোট নাটক সত্য ডিরে এসো ও প্রমীলা পিয়াজি।  
বিশদ

গঙ্গা যমুনা নাট্য উৎসব 

আগামী ১৫ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে ‘অনীকের গঙ্গ যমুনা নাট্য উৎসব’। এই উৎসব এবার ২২ বছরে পড়ল। এবছর তপন থিয়েটারে এই নাট্য উৎসবের সূচনা ডলস থিয়েটারের পুতুল নাটক দিয়ে। সেদিনই থাকবে দমদম কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারের আবাসিকদের নাটক ‘রক্তকরবী’।
বিশদ

নটসেনার সরোজ নাট্যমেলা 

নটসেনা তাদের প্রয়াত পরিচালক সরোজ রায়কে স্মরণ করে আয়োজন করেছিল একটি নাট্যমেলার, যার শিরোনাম ‘সরোজ নাট্যমেলা’। গত ৮ ডিসেম্বর থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দক্ষিণ কলকাতার তপন থিয়েটারে অনুষ্ঠিত হল এই নাট্যমেলা। প্রথমদিন ছিল একটি নাট্য বিষয়ক আলোচনা—বিদ্যালয় পাঠ্যসূচীতে থিয়েটার সংযুক্তিকরণ। 
বিশদ

মাঙ্গলিকের পরিবর্তন 

আমাদের চারধারে চলছে নানা বুজরুকির ব্যবসা। প্রচুর মানুষ নিয়মিত ঠকছেন। ঠকে শিখছেন। এক শ্রেণীর কর্মবিমুখ অলস মানুষ যারা অল্প আয়াসেই ধনী হওয়ার স্বপ্ন দেখে তারাই মূলত এই ধরনের ব্যবসার সফল উদ্যোগপতি। নারান এইরকমই এক লোক। সে মানুষকে নেশার কবল থেকে মুক্ত করার নামে এক বুজরুকির ব্যবসা চালায়। 
বিশদ

দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রাসঙ্গিক এক নাট্য 

নবম বর্ষে তিলজলা ঋতুর নবতম প্রযোজনা ‘তরবারি সুমঙ্গল’ নাটকটি মঞ্চস্থ হল মধুসূদন মঞ্চে। গত ২৯শে অক্টোবর এই নাটকটির প্রথম উপস্থাপনা ছিল। নাটকটি লিখেছেন অশোক মুখোপাধ্যায়, নির্দেশনায় জয়ন্ত দীপ চক্রবর্তী। এর কাহিনী বর্তমানে ভারতীয় রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত প্রসঙ্গিক। 
বিশদ

দৈর্ঘ্যে স্বল্প কিন্তু গভীরতায় সাগর 

সম্প্রতি ‘ভাণ’ প্রযোজিত দুটি স্বল্প দৈর্ঘের নাটক পরপর মঞ্চস্থ হল— ‘বিষদিগ্ধা’ এবং ‘বিদ্যার সাগরেরা’। দুটি নাটকের নাটককার এবং নির্দেশক গৌরাঙ্গ দন্ডপাট। বিষয়গত দিক থেকে ‘বিষদিগ্ধা’ বেশ পরিচিত। দাম্পত্য অস্থিরতা এবং ব্যক্তিত্বের সংঘাত। স্বামী সফল নাট্যকার। 
বিশদ

বিষের রং নীল

একফোঁটা গরল যেমন মানুষের শরীরে প্রবেশ করলে শেষ করে দিতে পারে প্রাণ, তেমনিই অপরাধ ও অপরাধী মানসিকতা সমাজের ভীতে ধরিয়ে দিতে পারে ঘুণ। সেই ঘুণ ধীরে ধীরে ফোঁপড়া করে দেয় সমাজকে। ভেঙে পড়ে সমাজ ব্যবস্থা। শুরু হয় অরাজকতা। কিন্তু কীভাবে এর প্রতিরোধ করা যায়?  
বিশদ

নান্দীকারের গঙ্গাজলে গঙ্গাপুজো 

এ যেন গঙ্গাজলে গঙ্গাপুজো। যে প্রতিষ্ঠানটিকে বুকে আগলে সন্তানসম মমতায় লালন পালন করেছেন, সেই প্রতিষ্ঠানটিই যখন পালককে মহাসমারোহে সম্মান জানাতে চায় তখন কেমন লাগে? রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত অর্থাৎ যাঁর সম্বন্ধে এই ভণিতা তিনি বললেন, আমার খুব বিচ্ছিরি লাগছে। কেন? ফোনে পাল্টা প্রশ্ন, লাগবে না? 
বিশদ

অন্য থিয়েটারের নাট্যস্বপ্নকল্প ২০১৯ 

এবার একটু অন্যরকম, অন্য তরঙ্গ নিয়ে হাজির হচ্ছে অন্য থিয়েটারের বার্ষিক অনুষ্ঠান ‘নাট্যস্বপ্নকল্প’। বর্ষশেষ আর বর্ষশুরুর সন্ধিক্ষণে নাটক নিয়ে সরারাতব্যাপী অন্যরকম কিছু করার অভিপ্রায় নিয়ে বিভাস চক্রবর্তী শুরু করেছিলেন নাট্যস্বপ্নকল্প। রবীন্দ্রসদনে ৩১ ডিসেম্বর সন্ধে থেকে শুরু হতো এই উৎসব, চলত পরদিন ভোর পর্যন্ত।  
বিশদ

সালকিয়া আগন্তুকের নাট্যোৎসব 

সালকিয়া আগন্তুক নাট্য সংস্থার পরিচালনায় উজ্জ্বল ঘোষ স্মরণে দুদিনব্যাপী একটি নাট্যোৎসবের আয়োজন করা হয়েছিল হাওড়ার রামগোপাল মঞ্চে।   বিশদ

07th  December, 2019
অশনি নাট্যমের নাট্যোৎসব 

অবরুদ্ধ কাশ্মীর, এনআরসি, ডিটেনশন ক্যাম্প, নয়া ইউএপিএ আইন, অর্থনৈতিক মন্থরতা এসব নিয়ে দেশের মানুষের যখন উদ্বিগ্ন হওয়ার কথা তখনই ধর্ম ও মেকী জাতীয়তাবাদের মোড়ক দিয়ে দেশের নাগরিকদের ভুলিয়ে রাখার প্রচেষ্টা চোখে পড়ছে।  বিশদ

07th  December, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, পূর্বস্থলী: পূর্বস্থলীর বাঁশদহ বিলেও এবার পরিযায়ী পাখিদের আগমন শুরু হয়েছে। ওই বিলের দক্ষিণ-পূর্ব দিকে কচুরিপানার উপর পরিযায়ী পাখিদের বিচরণ করতে দেখা যাচ্ছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, চার থেকে পাঁচটি প্রজাতির পরিযায়ী পাখি এখানে এসেছে।  ...

পানাজি, ১৩ ডিসেম্বর (পিটিআই): গোয়ায় বসবাসকারী পর্তুগিজ পাসপোর্টধারীদের উপর নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের কোনও প্রভাব পড়বে না। শুক্রবার গোয়ার এনআরআই কমিশনের পক্ষ থেকে এই কথা জানানো হয়েছে।  ...

 কোচি, ১৩ ডিসেম্বর: শুক্রবার আইএসএলের অ্যাওয়ে ম্যাচে কেরল ব্লাস্টার্সের বিরুদ্ধে দু’গোলে এগিয়ে গিয়েও ২-২ গোলে ড্র করল জামশেদপুর এফসি। এদিন কোচির জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে ম্যাচের ৩৮ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে জামশেদপুরকে এগিয়ে দেন পিটি। ...

সুজিত ভৌমিক, কলকাতা: নতুন বছরের গোড়াতেই দুটি নতুন থানা পেতে চলেছেন কলকাতাবাসী। এগুলি হল, কালীতলা ও গল্ফগ্রিন। কলকাতা পুলিস ইতিমধ্যেই এব্যাপারে স্বরাষ্ট্র দপ্তরের ছাড়পত্র পেয়ে গিয়েছে। এখন চালু করার জন্য সবুজ সঙ্কেতের অপেক্ষায় লালবাজার। কলকাতা পুলিস সূত্রেই এই খবর জানা ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

বিদ্যার্থীদের অধিক পরিশ্রম করতে হবে। অন্যথায় পরীক্ষার ফল ভালো হবে না। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় ভালো ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২৪: অভিনেতা ও পরিচালক রাজ কাপুরের জন্ম
১৯৩১: কুমিল্লায় বিপ্লবী শান্তি ঘোষ ও সুনীতি চৌধুরি ম্যাজিস্ট্রেট স্টিভেনসকে হত্যা করেন
১৯৩৪: পরিচালক শ্যাম বেনেগালের জন্ম
১৯৫৩: ভারতীয় টেনিস খেলোয়াড় বিজয় অমৃতরাজের জন্ম
১৯৫৭: হাওড়া এবং ব্যান্ডেলের মধ্যে প্রথম চালু হল বৈদ্যুতিক ট্রেন 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৮০ টাকা ৭১.৪৯ টাকা
পাউন্ড ৯৩.৪৩ টাকা ৯৬.৮০ টাকা
ইউরো ৭৭.৪৪ টাকা ৮০.৪৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৮৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৩২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, দ্বিতীয়া ৬/২৯ দিবা ৮/৪৭। পুনর্বসু ৫৭/৮ শেষরাত্রি ৫/৩। সূ উ ৬/১১/৫৯, অ ৪/৪৯/৫৩, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৪ মধ্যে পুনঃ ৭/৩৬ গতে ৯/৪৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫২ গতে ২/৪২ মধ্যে পুনঃ ৩/২৫ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৫১ গতে ২/৩৮ মধ্যে, বারবেলা ৭/৩২ মধ্যে পুনঃ ১২/৫১ গতে ২/৩৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৩০ মধ্যে পুনঃ ৪/৩২ গতে উদয়াবধি। 
২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, দ্বিতীয়া ৮/৪৯/১৯ দিবা ৯/৪৫/২৯। আর্দ্রা ২/৫১/২২ দিবা ৭/২২/১৮, সূ উ ৬/১৩/৪৫, অ ৪/৫০/১০, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩ মধ্যে ও ৭/৪৫ গতে ৯/৫২ মধ্যে ও ১২/২ গতে ২/৪৯ মধ্যে ও ৩/৩১ গতে ৪/৫০ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৫৯ গতে ২/৪৬ মধ্যে, কালবেলা ৭/৩৩/১৮ মধ্যে ও ৩/৩০/৩৭ গতে ৪/৫০/১০ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৩০/৩৭ মধ্যে ও ৪/৩৩/১৮ গতে ৬/১৪/২৯ মধ্যে। 
১৬ রবিয়স সানি  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে বিক্ষোভকারীদের ইটের ঘায়ে জখম হাওড়া সিটি পুলিসের ডিসি সাউথ জোন 

11:38:53 AM

মুরারইতে রেল অবরোধের জেরে বাঁশলৈ স্টেশনে দাঁড়িয়ে পড়েছে ডাউন শতাব্দী এক্সপ্রেস 

11:26:10 AM

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের মুরারইতে রেল ও পথ অবরোধ 

10:59:00 AM

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে অবরোধ

10:45:00 AM

সকাল থেকে রাজ্যের বিভিন্ন অংশে ট্রেন অবরোধ 
সকাল থেকে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে রাজ্যের বিভিন্ন অংশে চলছে ...বিশদ

10:35:00 AM

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন: উত্তর ২৪ পরগনার নানা জায়গায় অবরোধ
গতকালের পর শনিবার সকাল থেকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে রাজ্যের ...বিশদ

10:21:00 AM