Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

মেঘনাদ আবার চমকে দিলেন

 ভাগীরথীর বুকে জেগে ওঠা এক চর। শহর থেকে অনেকটাই বিচ্ছিন্ন এক গ্রাম। নাম ঈশ্বরীপুর। সেই গ্রামের দূষণহীনতার মধ্যে বেড়ে ওঠে সত্যচরণ আর ধূর্জটিনারায়ণ, দুই বন্ধু। যৌবনের শুরুতেই একই গুরুর কাছে তাঁদের রাজনীতির পাঠ নেওয়া। শিক্ষাগুরু নিত্যানন্দ ছিলেন আদর্শবাদী, ন্যায়পরায়ণ। সত্যবাদিতা যার কাছে একমাত্র সত্য। তাঁর শিক্ষাকে, দুই ছাত্র তাঁদের চারিত্রিক নিজস্বতা, দৃষ্টিভঙ্গির মধ্যে দিয়ে, নিজেদের মতো করে গ্রহণ করেন। উচ্চাভিলাষী, ক্ষমতালোভী ধূর্জটিনারায়ণ গ্রাম ছেড়ে শহরে চলে যান। সাম্প্রতিক রাজনীতির ঘোলা জলে পাঁক ঘাঁটতে তাঁর একটুকুও অসুবিধে হয় না। তিনি এখন স্বনামধন্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব।
আর সত্যচরণ প্রকৃত অর্থে গুরুর পদাঙ্ক অনুসরণ করেন। গতানুগতিক, পঙ্কিল, অস্থির রাজনৈতিক পরিবেশ থেকে নিজেকে সরিয়ে যথার্থ সমাজসেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেন। যে কারণে তিনি আজ ঈশ্বরীপুরের প্রণম্য ব্যক্তিত্ব। সারা গ্রাম তাঁকে ভালোবাসে, শ্রদ্ধা করে, মান্য করে। প্রকৃত অর্থেই তিনি একজন ভালো লোক।
কিন্তু এই ভালো লোকটিই তাঁর একমাত্র মেয়ে, কল্পার কাছে ঘৃণার পাত্র। মেয়ের জন্মের পরপরই সত্যচরণের স্ত্রী, কমলিকার হঠাৎ অন্তর্ধান, তাঁর জীবনকে বেসামাল করে দেয়। সংসারের হাল ধরে সম্পর্কিত বোন প্রভা। এই বিপদে বন্ধুর পাশে এসে দাঁড়ায় ধূর্জটিনারায়ণ। তিনি ছোট্ট কল্পাকে নিজের কাছে, শহরে নিয়ে যান, প্রকৃত অর্থে মানুষ করার জন্য। ইচ্ছে না থাকলেও পরিস্থিতির কারণে সত্যচরণকে রাজি হতে হয়। সম্পর্কের মধ্যেও যে রাজনীতির জটিল লাভের অঙ্ক কষেন ধূর্জটিনারায়ণ, সেটা সরল সত্যচরণের পক্ষে জানা সম্ভব হয় না।
ভোটে জেতার তাগিদ, সাফল্যকে ধরে রাখার জন্য অহংকারের সীমানাকে অতিক্রম করার অলীক চেষ্টা, পারস্পরিক সম্পর্ক, ভালোবাসাকে দূরে ঠেলে এগিয়ে যাবার জেদ নিয়ে ধূর্জটিনারায়ণ, তাঁর কক্ষপথে ঘুরপাক খেতে থাকেন।
আর সত্যচরণ, দাতব্য চিকিৎসালয় খুলে, মেয়েদের স্কুল প্রতিষ্ঠা করে ঈশ্বরীপুরকে এগিয়ে নিয়ে যান। তাই তিনি দেবতা, হাঁসঠাকুর, বা ভালো লোক। কিন্তু মেয়ে কল্পার চোখে তিনি ঘৃণ্য, ব্যর্থ, মেরুদণ্ডহীন এক মানুষ। কিন্তু কেন? কেন না তাকে এভাবেই ভাবতে শিখিয়েছেন ধূর্জটিনারায়ণ, কল্পার ‘ড্যাডি’!
কল্পার এই উপেক্ষা,অবজ্ঞা, অসহ্য লাগে সত্যচরণের। তাঁর প্রতি মেয়ের এই আচরণের কারণ জানতে চান। মেয়ে জানায়, তার প্রকৃত পিতা তিনি নন, ধূর্জটিনারায়ণ। সত্যচরণের পায়ের তলার মাটি সরে যেতে থাকে। ধীরে ধীরে অনেক ঘটনা পরিষ্কার হয়ে যেতে থাকে। কুয়াশার পরদা সরে যেতে থাকে। সম্পর্কের এক জটিল আবর্তের মুখোমুখি হন। এতদিনের বিশ্বাসে, দাম্পত্যে এক বড়সড় ফাটল। কাছের মানুষ কে? দূরের মানুষই বা কারা? এক ভ্রান্ত দোলাচলে পথভোলা মানুষটার ভেঙ্গে পড়াটাকে আটকায় প্রভা, এবং তার কাছে থাকা ‘সেই চিঠি’। যে চিঠি নিত্যানন্দ লিখেছিলেন তাঁর মেয়ে কমলিকাকে। মতামত না নিয়েই তার সঙ্গে সত্যচরণের বিয়ে দিয়েছিলেন নিত্যানন্দ। সেই চিঠির প্রেক্ষিতে মুখোমুখি হয় দুই বন্ধু। যে চিঠি নিঃস্ব করে দেয় ধূর্জটিকে। ভেঙ্গে দেয় তাঁর দম্ভ, হিংসা, লালসাকে। যে চিঠি এক অন্য উত্তরণের পথ দেখায় কল্পাকে। যে চিঠি তাকে নতুন করে ভাবতে শেখায়, সত্যচরণ ব্যর্থ, মেরুদণ্ডহীন, ধূর্জটির কৃপালোভী কোনও ক্লীব মানুষ নন। সত্যচরণ প্রকৃত অর্থে একজন ভালো মানুষ। তার স্নেহপরায়ণ পিতা, তার ভালো বাবা। তার গর্ব।
ফরাসি কবি-সাহিত্যিক-নাট্যকার লুইজি পিরানদেল্লোর কাহিনীর সার্থক বঙ্গীকরণ করেছেন চন্দন সেন। মেঘনাদ ভট্টাচার্যের নির্দেশনা এতোটাই আঁটসাঁটো, এতটাই মেদহীন, যে মঞ্চ থেকে চোখ এক মুহূর্তের জন্য সরে না। তাঁকে উপযুক্ত সঙ্গত করেছে সৌমিক-পিয়ালীর মঞ্চসজ্জা, সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের আলো, স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের শব্দ, এবং গৌতম ঘোষের সংগীত।
সত্যচরণ একজন সরল, পরোপকারী মানুষ, যার মুখের কথা এবং কাজে কোনও পার্থক্য নেই। নাটকের প্রথমেই এরকম এক সত্যচরণকে অতি সহজেই প্রতিষ্ঠা করে দেন মেঘনাদ। নাটক যতো এগয় ততোই সত্যচণের অনুভূতির নানা দিক উন্মোচিত হতে থাকে। স্ত্রীর প্রতি বিশ্বাস, ভালোবাসা, মেয়ের প্রতি টান, স্নেহ, বন্ধুকে প্রাপ্য সম্মান, গ্রামবাসীদের জন্য চিন্তা— সব নিয়ে মঞ্চে শুধুই সত্যচরণ। মেঘনাদকে খুঁজে পাওয়া যায় না। অভিনেতা এবং তাঁর চরিত্র একাকার। সত্যচারণের ব্যথা, বিশ্বাসভঙ্গের বেদনা, ক্রোধ, অসহায়তা, হাহাকারের সঙ্গে সহজেই দর্শক একাত্ম হয়ে পড়ে। মঞ্চে একাকী, নিঃস্ব সত্যচরণ। আলোর বৃত্তের মাঝখানে বসে আছেন। চারপাশে অন্ধকার। এ যেন তাঁর বেদনার, একা হয়ে যাবার প্রতীক। কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছেন, সব হারানো এক অসহায় মানুষ। ব্যাকগ্রাউণ্ডে বেজে ওঠেন কবিগুরু — সহে না যাতনা। অসাধারণ এক দৃশ্যকল্প তৈরি হয়। সত্যচণের হাহাকার, ব্যথাটা সংক্রামিত হয়ে গলার কছে দলা পাকিয়ে ওঠে। চোখ ভিজে যেতে চায়। আবেগটাকে কোথায়, কতটা ধরে রাখতে হয়, কোনখানেই বা ভেঙে দিতে হয় — মেঘনাদ আবার নতুন করে চমকে দিলেন। উচ্চারণ কোথায় তীব্র হবে, স্বর কখন গলা থেকে আসবে, আর কখনই বা নাভি থেকে উঠে আসবে সব কিছু তাঁর নখদর্পণে। শুধু অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকতে হয়। পাশাপাশি সুন্দর এক কনট্রাস্ট ধূর্জটিনারায়ণ। মেঘনাদের পাশে উজ্জ্বল হয়ে উঠেছেন আশিস ঘোষ। বন্ধুত্বের চমৎকার সেতুবন্ধন ঘটিয়েছেন ‘জলেশ্বর’ প্রদীপ দাস। প্রভার সংযত রূপকে যথার্থ অর্থে ফুটিয়ে তুলেছেন রুণা মুখোপাধ্যায়। কথাকলির ‘কল্পা’ উপযুক্ত সঙ্গত করেছেন। ভালো লাগে অন্যান্যদেরও।
22nd  June, 2019
সালকিয়া আগন্তুকের নাট্যোৎসব 

সালকিয়া আগন্তুক নাট্য সংস্থার পরিচালনায় উজ্জ্বল ঘোষ স্মরণে দুদিনব্যাপী একটি নাট্যোৎসবের আয়োজন করা হয়েছিল হাওড়ার রামগোপাল মঞ্চে।   বিশদ

07th  December, 2019
অশনি নাট্যমের নাট্যোৎসব 

অবরুদ্ধ কাশ্মীর, এনআরসি, ডিটেনশন ক্যাম্প, নয়া ইউএপিএ আইন, অর্থনৈতিক মন্থরতা এসব নিয়ে দেশের মানুষের যখন উদ্বিগ্ন হওয়ার কথা তখনই ধর্ম ও মেকী জাতীয়তাবাদের মোড়ক দিয়ে দেশের নাগরিকদের ভুলিয়ে রাখার প্রচেষ্টা চোখে পড়ছে।  বিশদ

07th  December, 2019
উদীয়মান নারীর মঞ্চ 

গত বছরের মতো এবছরও মানিকতলা দলছুট নাট্য সংস্থা আয়োজন করেছে তাদের ‘উদীয়মান নারীর মঞ্চ’। আগামী ১৯ ডিসেম্বর থেকে ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত গোবরডাঙা সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে চলবে এই উৎসব।  বিশদ

07th  December, 2019
নান্দীকারের জাতীয় নাট্য উৎসব 

প্রতিবছরের মতো এবছরও নান্দীকার আয়োজিত জাতীয় নাট্যমেলা শুরু হতে চলেছে আগামী ১৬ ডিসেম্বর থেকে অ্যাকাডেমি অব ফাইন আর্টসের মঞ্চে। চলবে ২৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এবছর এই নাট্য উৎসব ৩৬ বছরে পা দিল।  বিশদ

07th  December, 2019
গঙ্গা যমুনা নাট্য উৎসব 

আগামী ১৫ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে ‘অনীকের গঙ্গ যমুনা নাট্য উৎসব’। এই উৎসব এবার ২২ বছরে পড়ল। এবছর তপন থিয়েটারে এই নাট্য উৎসবের সূচনা ডলস থিয়েটারের পুতুল নাটক দিয়ে।  বিশদ

07th  December, 2019
নটসেনার সরোজ নাট্যমেলা 

নটসেনা তাদের প্রয়াত পরিচালক সরোজ রায়কে স্মরণ করে আয়োজন করেছে একটি নাট্যমেলার, যার শিরোনাম ‘সরোজ নাট্যমেলা’। আজ থেকে আগামী ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দক্ষিণ কলকাতার তপন থিয়েটারে অনুষ্ঠিত হবে এই নাট্যমেলা।  বিশদ

07th  December, 2019
মাঙ্গলিকের পরিবর্তন 

আমাদের চারধারে চলছে নানা বুজরুকির ব্যবসা। প্রচুর মানুষ নিয়মিত ঠকছেন। ঠকে শিখছেন। এক শ্রেণীর কর্মবিমুখ অলস মানুষ যারা অল্প আয়াসেই ধনী হওয়ার স্বপ্ন দেখে তারাই মূলত এই ধরনের ব্যবসার সফল উদ্যোগপতি।  বিশদ

07th  December, 2019
দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রাসঙ্গিক এক নাট্য 

নবম বর্ষে তিলজলা ঋতুর নবতম প্রযোজনা ‘তরবারি সুমঙ্গল’ নাটকটি মঞ্চস্থ হল মধুসূদন মঞ্চে। গত ২৯শে অক্টোবর এই নাটকটির প্রথম উপস্থাপনা ছিল। নাটকটি লিখেছেন অশোক মুখোপাধ্যায়, নির্দেশনায় জয়ন্ত দীপ চক্রবর্তী।  বিশদ

07th  December, 2019
মুকুন্দদাস ও তাঁর স্বদেশি যাত্রা 

চারণকবি মুকুন্দদাসের ব্রত ছিল পালাগানের মধ্যে দিয়ে দেশবাসীকে পরাধীনতার বিরুদ্ধে জাগিয়ে তোলা। মুকুন্দদাস ও তাঁর স্বদেশি যাত্রা নিয়ে লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস। 
বিশদ

07th  December, 2019
কতই রঙ্গ আছে প্রেমের দুনিয়ায় 
কাঁটা গাছে ফুটলো ফুল

সারা বিশ্বেই ফরাসি কমেডির এক অমোঘ আকর্ষণ রয়েছে। বিশেষ করে সে নাটক যদি হয় ‘ফ্লেউর দ্য ক্যাকটাস’। যার রচয়িতাদ্বয় হলেন প্যারি ব্যারিলেট এবং জাঁ পিয়ের গ্রেডি। এই নাটক সেই দেশের মঞ্চে অভিনীত হতে শুরু করেছিল ১৯৬৫ সালের ৮ ডিসেম্বর।
বিশদ

30th  November, 2019
দীনবন্ধু, গিরিশ ও শম্ভু মিত্র পুরস্কার প্রদান
পুরস্কার মূল্য দান করলেন ব্রাত্য

  পশ্চিমবঙ্গ তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগ এবং পশ্চিমবঙ্গ নাট্য অ্যাকাডেমির যৌথ উদ্যোগে, প্রতি বছরের মত এবারেও জমে উঠেছে ‘ঊনবিংশ নাট্যমেলা’। ১১ দিন ব্যাপী এই নাট্যোৎসবে কলকাতাসহ বিভিন্ন জেলার ২৩০টির মতো নাট্যদল তাদের প্রযোজনাকে মঞ্চস্থ করার সুযোগ পেয়েছে।
বিশদ

30th  November, 2019
 ছাতার নীচে বাঁচা

ভারি বর্ষার এক রাত। তুমুল ঝড়ে ভেঙ্গে গেল এক ব্যাঙের ছাতা। তাহলে উপায়? মাথাটাকে যে বাঁচাতে হবে! অতএব দুর্যোগের মধ্যেই সে বেরিয়ে পড়ল অন্য ছাতার খোঁজে। সে আসলে ব্যাঙ নয়। ব্যাঙরূপী কূপমন্ডক এক মানুষ। কিন্তু সে তো এই সমাজের জীব। কাজেই ছাতা যে তার চাই-ই। সমাজের কোন মানুষটি তাকে দেবে ছাতার আশ্রয়?
বিশদ

30th  November, 2019
সায়কের বর্ষপূর্তি উৎসব

 ৪৬ বছর অতিক্রম করল নাট্যদল সায়ক। সেই উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবছরও একটি নাট্য উৎসবের আয়োজন করেছে তারা। অ্যাকাডেমি প্রেক্ষাগৃহে আগামী ১ ও ২ ডিসেম্বর মোট ৩টি নাটক মঞ্চস্থ হবে। বিশদ

30th  November, 2019
 থেসপিয়ানসের রৌপ্যজয়ন্তী

থেসপিয়ানস তাদের রৌপ্য জয়ন্তী উপলক্ষে গত ২৩ নভেম্বর স্টার থিয়েটারে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল। মঞ্চস্থ হয় তাদের নতুন নাটক ‘বিসর্জন’। এরপর বিভিন্ন ক্ষেত্রের গুণি মানুষদের সম্মাননা জ্ঞাপন করা হয়।
বিশদ

30th  November, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, তারকেশ্বর: তারকেশ্বর নতুন বাসস্ট্যান্ডে নির্মিত পুরসভার প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষাগার বেসরকারিকরণ হতে চলেছে। ‌বোর্ড মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে পুরসভা সূত্রে জানা গেছে। এই বিষয়ে ...

প্রসেনজিৎ কোলে, কলকাতা: এক সপ্তাহের মাথায় দেশজুড়ে টোলপ্লাজাগুলিতে কেবলমাত্র একটি করে লেনে ছাড় দিয়ে বাধ্যতামূলকভাবে চালু হতে যাচ্ছে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল সংগ্রহের ব্যবস্থা। এই ব্যবস্থা চালু করতে গেলে গাড়িতে থাকতেই হবে ফাস্ট্যাগ।  ...

সিওল, ৮ ডিসেম্বর (এএফপি): পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ প্রশ্নে আমেরিকার উপর চাপ বাড়াল উত্তর কোরিয়া। ফের শক্তিশালী অস্ত্রের পরীক্ষা করল কিম জং উনের দেশ। শনিবার স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র থেকে ‘খুবই গুরুত্বপূর্ণ’ এই পরীক্ষাটি চালায় পিয়ংইয়ং।  ...

সংবাদদাতা, পুরাতন মালদহ : যে আমবাগান থেকে দিন তিনেক আগে উদ্ধার করা হয়েছে দগ্ধ মহিলার দেহ, তার এক প্রান্তে রয়েছে আড়াপুর জোত টিপাজানি আহ্লাদমণি ঘোষ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

মাঝে মধ্যে মানসিক উদ্বেগের জন্য শিক্ষায় অমনোযোগী হয়ে পড়বে। গবেষণায় আগ্রহ বাড়বে। কর্মপ্রার্থীদের নানা সুযো ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৪৮৩: অন্ধকবি সুরদাসের জন্ম
১৮৯৮: বেলুড় মঠ প্রতিষ্ঠিত হল
১৬০৮: ইংরেজ কবি জন মিলটনের জন্ম
১৯৪৬: কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর জন্ম
১৯৪৬: অভিনেতা শত্রুঘ্ন সিনহার জন্ম
২০১১: আমরি হাসপাতালে আগুন 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৪৯ টাকা ৭২.১৯ টাকা
পাউন্ড ৯২.২০ টাকা ৯৫.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৭৫ টাকা ৮০.৭৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
07th  December, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮, ৩৮৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬, ৪২০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬, ৯৬৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩, ৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৩, ৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
08th  December, 2019

দিন পঞ্জিকা

২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯, সোমবার, দ্বাদশী ৯/২৩ দিবা ৯/৫৪। ভরণী ৫৭/৯ শেষ রাত্রি ৫/০। সূ উ ৬/৮/৫৩, অ ৪/৪৮/২৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৩ মধ্যে পুনঃ ৮/৫৮ গতে ১১/৬ মধ্যে। রাত্রি ৭/২৮ গতে ১১/২ মধ্যে পুনঃ ২/৩৫ গতে ৩/৩০ মধ্যে, বারবেলা ৭/২৭ গতে ৮/৪৮ মধ্যে পুনঃ ২/৮ গতে ৩/২৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/৪৮ গতে ১১/২৮ মধ্যে। 
২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯, সোমবার, দ্বাদশী ৭/১০/১১ দিবা ৯/২/২২। ভরণী ৫৭/৩১/১০ শেষরাত্রি ৫/১০/২৬, সূ উ ৬/১০/১৮, অ ৪/৪৯/১, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৯ মধ্যে ও ৯/৪ গতে ১১/১১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩১ গতে ১১/৫ মধ্যে ও ২/৪০ গতে ৩/৩৪ মধ্যে, কালবেলা ৭/৩০/৮ গতে ৮/৪৯/৫৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/৪৯/৩০ গতে ১১/২৯/৪০ মধ্যে।
১১ রবিয়স সানি 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
দ্বিতীয় টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভারতের বিরুদ্ধে ৮ উইকেটে জিতল

08-12-2019 - 10:32:44 PM

দ্বিতীয় টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭৩/১ (১০ ওভার) 

08-12-2019 - 09:47:37 PM

দ্বিতীয় টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৭১ রানের টার্গেট দিল ভারত 

08-12-2019 - 08:47:23 PM

কোচবিহারে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ, জখম ২ 
কোচবিহারে ফের বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ। বোমার ঘায়ে জখম দুই তৃণমূল সমর্থক। ...বিশদ

08-12-2019 - 08:23:24 PM

দ্বিতীয় টি২০: ভারত ১৩২/৪ (১৫ ওভার) 

08-12-2019 - 08:19:18 PM

দ্বিতীয় টি২০: ভারত ১১২/৩ (১২ ওভার) 

08-12-2019 - 08:06:46 PM