Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

গানের আসরেই অসুস্থ হয়ে পড়ে গেলেন দাশু রায় 

বিধবা বিবাহ কিংবা বৈষ্ণবদের ভ্রষ্টাচারকে বিদ্ধ করলেন গানে। লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস।

অকাবাঈয়ের দলে যে গান দাশরথী বাঁধতেন, তা খুব উচ্চমানের ছিল না। কেননা তার শ্রোতারা ছিলেন যথেষ্ট নিম্নরুচি সম্পন্ন। তাই দাশরথী রায় তৃপ্তি পাচ্ছিলেন না। শুধু অকাবাঈকে ভালোবেসে তিনি পড়েছিলেন সেই দলে। অকাবাঈয়ের সংসর্গ কাটানোর জন্য তাঁর মামা অন্যত্র একটা চাকরির ব্যবস্থা করে দিলেন। মাসে তিন টাকা মাইনেতে তাঁর চাকরি জুটল অনন্তপুর কুঠুরিয়া গ্রামের নীলকুঠিতে। কিন্তু দাশু রায় সেখানে থাকতে পারলেন না। এক পিছুটান তাঁকে আবার টেনে নিয়ে এল অকার কাছে। বাড়িতে সেই খবর যেতেই সবাই ভেঙে পড়লেন। তাঁর বাবা তখনও জীবিত ছিলেন। তিনি অভিসম্পাত করে বললেন, সারা জীবনে তিনি আর ছেলের মুখ দেখবেন না।
অকাবাঈকে নিয়ে দাশরথী রায় চলে গেলেন রাজশাহীতে। একের পর এক পালার গান লিখে চললেন। কিন্তু বুঝতে পারছিলেন এ গান লেখার জন্য তিনি জন্মাননি। তিনি অনেক ভালো গান লিখতে পারেন। পণ্ডিত সমাজের কাছে আদরণীয় হয়ে উঠতে পারে, এমন গানও তিনি লিখতে পারেন। কিন্তু সে গান এখানে শুনবে কে! সেই গান তাঁর ভিতরে ভিতরে গুনগুনিয়ে ওঠে। কিন্তু শ্রোতারা সেই গান নেবেন না। আর একটা যে ধারা আছে, সেই গুণীজনের সমাজের কাছে আজ তিনি ব্রাত্য।
তাছাড়া আজকাল আসরে উঠলেই অন্য পালাকাররা তাঁর চরিত্রের স্খলন নিয়ে, তাঁর জাতিভ্রষ্ট হওয়ার প্রসঙ্গ তুলে আঁচড়ায়, কামড়ায়, রক্তাক্ত করে। গানের কথায়, সুরে তাঁকে বিদ্ধ করে। সেই খেউড় শুনে দর্শকরা আদিম উল্লাসে ফেটে পড়েন। যে আনন্দ নিয়ে তিনি পালার আসরে অবতীর্ণ হন, সেই আনন্দ নিয়ে আর পালা শেষে ফিরতে পারেন না। আসরের মধ্যে প্রতিপক্ষ তাঁকে গালমন্দ করে অস্থির করে তোলে। তাঁকে খোঁচা মেরে গান ধরেন, ‘উনি কুলের গরব করেন নিত্যি / শুনে জ্বলে যায় পিত্তি।’ দিনে দিনে সেই যন্ত্রণা অনিবার্য হয়ে উঠল। দাশু রায়ের সেই লাঞ্ছনা সহ্য করতে পারেন না অকাবাঈও। বললেন, তাঁকে ছেড়ে চলে যেতে।
অবশেষে বিচ্ছেদ এল। অকাকে ছেড়ে চলে যেতে হল। অকা তাঁকে অনেক বড় দেখতে চান। আড়ালে চলে গেলেন অকাবাঈ। যাওয়ার সময় দাশরথীর পায়ের কাছে রেখে গেলেন তাঁর রুপোর অলঙ্কার। বললেন, ‘নতুন দল কর রায়। নতুন গানে মানুষকে মুগ্ধ কর।’
দাশরথী রায় চলে এলেন। এবার তিনি কী করবেন! কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে মনস্থির করে ফেললেন। তাঁকে কলকাতা যেতে হবে। সেখানে মানুষ ভালো গানের কদর করে। নিম্নরুচির পাঁচালি গানে এতদিন তাঁর দম বন্ধ হয়ে আসছিল। এবার জ্ঞানীগুণী মানুষের আসরে গান করতে হবে তাঁকে। মনটা যেন নতুন প্রতিজ্ঞায় নেচে উঠল। ১৮৩৬ সালে খুললেন নিজের পাঁচালি গানের দল। তখন তাঁর বয়স তিরিশ বছর। ধীরে ধীরে আসতে লাগল বায়না। নামও ছড়াতে লাগল। সেই সময় তিনি এক রাত্তির গাওনার জন্য পেতেন চার-পাঁচ টাকা। কয়েক বছরের মধ্যে তা অনেকটাই বেড়ে গেল। পরিবেশনার আঙ্গিক নিয়ে নতুন করে ভাবতে লাগলেন। কাহিনী সংগ্রহ করলেন মহাভারত, রামায়ণ, গীতা, হরিবংশ, বিষ্ণুপুরাণ, চৈতন্যচরিতামৃত থেকে। গান বাঁধলেন নতুন ভাষ্যে। পাশাপাশি পোশাকে চাকচিক্য আনলেন। পহেলা দর্শনধারী, এটা তিনি বিশ্বাস করতেন। কোথাও পালা হলে তিনি সেখানে পালকি করে যেতেন।
একবার পালা পরিবেশনের ডাক এল নবদ্বীপ থেকে। ১৮৩৯ সালে ডাক এল গান করার। খুব আনন্দ হয়েছিল তাঁর। এবার তিনি জ্ঞানীগুণীদের আসরে গান গাইবেন। কিন্তু সেখানকার বিদগ্ধজনেরা তাঁকে যে সম্মান দিয়ে গান গাইতে ডেকেছেন, তার মর্যাদা তাঁকে দিতেই হবে। সেখানকার পণ্ডিতসমাজকে খুশি করতে পারলে, তাঁর কলঙ্কের দাগ অনেকটাই কেটে যাবে। গানের বাঁধনদার বলে যে কুখ্যাতি একদিন তাঁকে অসম্মানিত করত, সেই রাহুর গ্রাসও কেটে যাবে। অতঃপর তিনি গান গাইতে যাওয়ার আগে ভালো করে মহড়া দিলেন।
সেদিন ছিল রাসপূর্ণিমার রাত। পৌরাণিক কাহিনীর পালাগানে নেমে এল ভক্তির সুরধারা। নবদ্বীপের পণ্ডিতরা আপ্লুত হলেন পালাগানে। তাঁর গান শুনে মুগ্ধ পণ্ডিতরা তাঁকে দিলেন প্রচুর দক্ষিণা, উপহার। সেই সঙ্গে পেলেন শ্রদ্ধা ও প্রীতি। মন ভরে গেল দাশরথীর। নিম্নরুচির গানের নোংরা পুষ্করিণী পেরিয়ে তিনি নাও ভাসালেন পুণ্যস্রোতা গঙ্গায়। তারপর থেকে প্রতি বছরই নবদ্বীপে গানের জন্য ডাক পেতেন। দাশরথী রায়কে অনুপ্রাণিত করল এই পণ্ডিত সঙ্গ। ভালো গান লিখতে হবে। অকাবাঈ বলেছিলেন, ‘ভালো গান লেখো রায়।’ আর পালার মধ্যে যখন মানুষ তাঁর গান শুনে হই হই করে ওঠেন, ‘সাধু সাধু’ বলেন, তখন অকাবাঈয়ের মুখটা মনে পড়ে দাশুর। মনে মনে বলেন, ‘এ সবই তোমার প্রাপ্য অকা।’
সেবার নবদ্বীপের আসরে গান গাইতে গিয়ে সেই গানটা ধরলেন দাশু। একদিন কিছুটা শুনিয়েছিলেন অকাকে। গানটা আবার নতুন করে বেঁধেছেন। ‘দোষ কারও নয় গো মা। / আমি স্বখাত সলিলে ডুবে মরি শ্যামা। / ষড়রিপু হল কোদণ্ড স্বরূপ, পুণ্যক্ষেত্র মাঝে কাটিলাম কূপ..’ সে গান শুনে টোলের ছাত্ররা পণ্ডিতদের জিজ্ঞসা করলেন, ‘গুরুদেব, কোদণ্ড মানে তো ধনুক। ভুলবশত দাশরথী রায় তাঁর গানে এটিকে কোদাল হিসাবে ব্যবহার করেছেন। উনি আসলে শব্দটির অর্থ জানেন না।’ সে কথা শুনে নবদ্বীপের টুলো পণ্ডিতরা নিজেদের মধ্যে আলোচনায় বসলেন। তাঁরা সিদ্ধান্ত নিলেন, দাশরথী রায় যখন ব্যবহার করেছেন, তখন কোদণ্ড শব্দের আর একটি অর্থ কোদালই হোক। সেই অর্থেই পণ্ডিতরা এটিকে অভিধানে যুক্তও করলেন।
এত জনপ্রিয়তা, এত প্রাপ্তি। মন ভরে যাচ্ছে দাশরথীর। আরও গান লিখতে হবে তাঁকে। পুরাণের পাশাপাশি সমসাময়িক সমাজকে তিনি তুলে আনলেন তাঁর গানে। বিধবা বিবাহকে বিদ্ধ করলেন রঙ্গ-রসিকতায়। ‘আমার বয়স বাহাত্তর,/ মনের মতো পাত্তর, / আর তো জুটিবে না ঘরে।’ বৈষ্ণব সমাজের ভ্রষ্টাচারকেও ব্যঙ্গ করলেন, ‘গৌরাং ঠাকুরের ভণ্ড চেংড়া / অকালকুষ্মান্ড নেড়া।’ রঙ্গ-তামাসার মধ্যে যে কৌতুক ফুটে উঠেছে, তার সঙ্গে সেই সময়ের বিবর্তিত নাগরিক প্রেক্ষাপট সেভাবে মেলেনি। তাই কলকাতা তাঁকে সেভাবে আসন পেতে না দিলেও গ্রামবাংলায় তাঁর ছিল একাধিপত্য।
বিয়ে করেছিলেন প্রসন্নময়ীকে। কিন্তু স্বাস্থ্য ক্রমেই ভেঙে পড়তে লাগল। প্রসন্নময়ী বললেন, ‘কিছুদিন বিশ্রাম নাও।’ দাশরথী বললেন, ‘বিশ্রাম নিলে হবে না। সামনে অনেক বায়না। যেতেই হবে। না হলে দাশু রায়ের দুর্নাম হবে।’ ১৮৫৭ সালের দুর্গাপুজো। কাশিমবাজারে পালাগানের আসর। কিন্তু আসরের মধ্যেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়ে গেলেন। বাড়ি আনা হল। চিকিৎসা চলল। কিন্তু অবস্থা ক্রমেই খারাপের দিকে যেতে লাগল। অবশেষে মাত্র ৫২ বছর বয়সে তিনি প্রয়াত হলেন।
কে গাইবে দাশরথীর গান! এগিয়ে এলেন তাঁর ছোটভাই তিনকড়ি। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যে তিনিও মারা গেলেন। এবার তাঁর দলের দায়িত্ব নিতে এগিয়ে এলেন কৃষ্ণনগরের বাণীকণ্ঠ বসু। কিন্তু দাশু রায়ের গানকে ধরে রাখার প্রতিভা তাঁর ছিল না। তাই হারিয়ে গেল দাশু রায়ের দল। কিন্তু গানগুলি তাঁর রয়ে গেল। কলকাতার বটতলার প্রেস থেকে তাঁর গানের অনেকগুলি সংস্করণ প্রকাশিত হল। লোকরঞ্জনের ধারায় দাশরথী রায় একটা যুগ হিসাবে ইতিহাসে চিহ্নিত হয়ে রইলেন। কিন্তু অকাবাঈকে ইতিহাস মনে রাখেনি।
অঙ্কন : সুব্রত মাজী 
27th  April, 2019
আমি চপল ভাদুড়ী
না চপলরানি!

একসময় নারী চরিত্রে পুরুষদের অভিনয় করাটাই ছিল রেওয়াজ। সেই যুগের শেষ জীবিত প্রতিনিধি চপল ভাদুড়ীর সঙ্গে কথা বললেন সঞ্জীব বসু। বিশদ

04th  May, 2019
যাত্রাসম্রাজ্ঞী জ্যোৎস্না দত্ত

 মান্না দে বললেন, জ্যোৎস্না তুমি হারমোনিয়ামকেও হারিয়ে দিয়েছ...। জ্যোৎস্না দত্তকে নিয়ে লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস। বিশদ

04th  May, 2019
হাল্কাচালের হাসির নাটক

গত ১৯শে মার্চ বেহালার শরৎ সদনে অনুষ্ঠিত হল ‘ক্রিয়েটিভ বেহালা’ অয়োজিত নাটক ‘সোনার মাদুলি’। নাটকটি রচনা করেছেন বিমল বন্দোপাধ্যায়। পরিচালনায় সুদীপ বন্দোপাধ্যায়। সুদীপ ব্যানার্জী ক্রিয়েশনের সহযোগিতায় বেহালার এই দলটি আগামীদিনে নাট্য জগতে বিশেষভাবে এগিয়ে আসছে।
বিশদ

04th  May, 2019
ঐহিকের নাট্য আসর

গতবারের মতো এবারেও ‘ঐহিক সৃষ্টি সুখের উল্লাসী’ আয়োজন করেছিল সারাদিনব্যাপী এক নাটকের আসরের। যার শিরোনাম ‘বাংলার নটনটী—অভিনয়ের অঙ্গনে নটনটীর দক্ষতা’। তপন থিয়েটারে ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় এই নাট্য আসর।
বিশদ

04th  May, 2019
আজও প্রাসঙ্গিক বিসর্জন

আজ আর কোনও দেশের সঙ্গে কোনও দেশ সরাসরি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে না। এখন হয় যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা, যার গালভারি নাম ছায়া যুদ্ধ। যুদ্ধ হচ্ছে না অথচ যুদ্ধের প্রস্তুতি চলছে সব দেশেই। কেনা হচ্ছে অস্ত্রশস্ত্রের সম্ভার। বাড়ছে সামরিক খাতে ব্যয় বরাদ্দ। তাছাড়া রয়েছে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ।
বিশদ

04th  May, 2019
বহুরূপীর নাট্যোৎসব 

বাংলার সবথেকে পুরনো নাট্যদল বহুরূপী ৭১ বছর পূর্ণ করল। আগামী ১ মে তারা ৭২ বছরে পদার্পণ করবে। এই উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবারেও অ্যাকাডেমি অব ফাইন আর্টসের মঞ্চে তারা আয়োজন করেছে নাট্যোৎসবের। উৎসবের শুরু ৩০ এপ্রিল। চলবে ২ মে পর্যন্ত। 
বিশদ

27th  April, 2019
শৌভনিক ৬৩ 

আগামী ১ মে ৬৩ বছরে পা দিতে চলেছে শৌভনিক নাট্যদল। বিগত ৬২ বছরে বহু স্বল্পদৈর্ঘ্য ও পূর্ণাঙ্গ নাটক প্রযোজনা করেছে শৌভনিক। যার মধ্যে অধিকাংশই মঞ্চসফল। শুধু নাট্য প্রযোজনাই নয়।  
বিশদ

27th  April, 2019
দেখতে ভালো লাগে অভিনয় ও কোরিওগ্রাফির জন্য 

সম্প্রতি ‘তৃপ্তি মিত্র নাট্যগৃহে’ এক অন্তরঙ্গ নাট্য উৎসবের আয়োজন করে ছিল ‘সিমলা এ-বং পজিটিভ’ নাট্যদল। প্রথমেই তাদের উপস্থাপনা ছিল, বাংলাদেশের কবি কালপুরুষের ‘ঈশ্বর ও তুমি’ কবিতার নাট্যরূপ।
বিশদ

27th  April, 2019
মঞ্চে মার্ক টোয়েনের কথা 

শুধুমাত্র উপস্থাপনার গুণে কীভাবে নিছক কিছু কথা, বর্ণনা আর সংলাপক্ষেপণ শরীরীভাষার সঙ্গে মিলেমিশে দর্শককে নাটক দেখার আনন্দ দেয় তা বোঝা গেল বিনয় শর্মার অভিনয় দেখে। সম্প্রতি পদাতিকের নিজস্ব মঞ্চে অভিনীত হল ‘মার্ক টোয়েন-লাইভ ইন বোম্বে’। 
বিশদ

27th  April, 2019
আটেশ্বরতলার নাট্যোৎসব
যথার্থই মানুষের উৎসব 

নাট্যোৎসব তো কতই হয়। কিন্তু সেটা সত্যি সত্যি উৎসবের চেহারা নেয় ক’টা জায়গায়? বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তো নিমন্ত্রিত বিশিষ্ট অতিথিদের সমাগমে প্রেক্ষাগৃহ ভরে ওঠে। সাধারণ মানুষের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণ দেখা যায় ক’টা ক্ষেত্রে? একসময় কয়েকটা ক্ষেত্রে হলেও এখন বোধহয় একটি ক্ষেত্রেও তা চোখে পড়ে না।  
বিশদ

27th  April, 2019
সভাগার থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল

 সংস্কৃতি সাগর ও সেন্টার স্টেজ ক্রিয়েশনের যৌথ উদ্যোগে ২২ থেকে ২৪ মার্চ বিড়লা সভাগৃহে হয়ে গেল সভাগার থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল। ছিল তিনটি ভিন্নস্বাদের নাটক। পৌরাণিক, সামাজিক ও মনস্তাত্ত্বিক নাটকগুলির আলোচনায় কমলিনী চক্রবর্তী।
বিশদ

20th  April, 2019
 কালিন্দী নাট্যসৃজনের নতুন নাটক

  মোহন রাকেশের ‘আষাঢ়কা একদিন’ নাটকের অবলম্বনে কালিন্দী নাট্যসৃজনের নতুন প্রযোজনা ‘আষাঢ়ের প্রথম দিনে’। বাংলা রূপান্তর করেছেন গৌতম চৌধুরী। নাটকটি আগামী ছাব্বিশে এপ্রিল সন্ধে ছ’টায় তপন থিয়েটারে অভিনীত হতে চলেছে। মোহন রাকেশ নাটকটি লিখেছিলেন উনিশো আটান্ন সালে।
বিশদ

20th  April, 2019
 চতুর্থ অন্তরঙ্গ চর্যাপদ

 আসানসোল চর্যাপদ বিশ্ব নাট্যবিদসে আয়োজন করেছিল চতুর্থ অন্তরঙ্গ চর্যাপদের। যা আসলে অন্তরঙ্গ নাটকের একটি উৎসব। উৎসব শুরু হয় একটি আলোচনা সভা দিয়ে, যার বিষয়বস্তু ছিল, ‘অন্তরঙ্গ থিয়েটার—প্রতিবন্ধকতা ও সম্ভাবনা’। 
বিশদ

20th  April, 2019
দাশরথী রায়কে গানের জগতে
নিয়ে এলেন অকাবাঈ

কলকাতা যে সময়ে বিদ্যাসুন্দর নিয়ে মেতে উঠেছিল, সেই সময়ে গ্রাম বাংলার বুকে ঝড় তুলেছিল পাঁচালি গান। কত রকম পালাগান হত সেই সব পাঁচালি গানের আসরে। কৃষ্ণগান, মঙ্গলকাব্য থেকে বেহুলার ভাসান, লাউসেনের কাহিনী, রামায়ণের গান, মহাভারতের কথা আরও কত কী! গান, দোহার, কাব্য, কথা ইত্যাদির মধ্য দিয়ে একটা কাহিনীকে তুলে ধরা হতো।
বিশদ

20th  April, 2019
একনজরে
বীরেশ্বর বেরা, কলকাতা: বালিগঞ্জ ফার্ন রোডের অভিজাত এলাকায় সাদা রঙের দোতলা বাড়ির বাসিন্দা মিতা চক্রবর্তী। এবার তিনি কলকাতা দক্ষিণ কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী। প্রথমবার নির্বাচনে দাঁড়ালেও ...

  বিএনএ, বর্ধমান: স্ট্রংরুম পরিদর্শনে গিয়ে লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থীদের এজেন্টরা তার ধারেকাছে ঘেঁষতে পারবেন না। প্রার্থীদের এজেন্টরা পরিচয়পত্র নিয়ে নিয়মিত স্ট্রংরুম ভিজিটে যান। কিন্তু, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ, প্রেমিসেস থেকে বেশকিছুটা দূরে একটি ক্যাম্প তৈরি করতে হবে। ...

 নয়াদিল্লি, ১৫ মে (পিটিআই): ষষ্ঠ দফা ভোটের মধ্যেই বিজেপি কেন্দ্রে সরকার গড়ার মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে ফেলেছে। সপ্তম দফার ভোট সম্পন্ন হলে বিজেপির আসন ৩০০ অতিক্রম করে যাবে। বুধবার দিল্লিতে সাংবাদিক বৈঠকে এই মন্তব্য করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। ...

 সংবাদদাতা, মালবাজার: ফুল ঝাড়ুকেই এখন প্রধান অর্থনৈতিক ফসল হিসাবে বেছে নিয়েছেন কালিম্পং জেলার গোরুবাথান ব্লকের সামসিং ফরেস্ট কম্পাউন্ড বস্তির কয়েকশ চাষি। অন্যান্য ফসলের তুলনায় সকলেই এখন ঝাড়ুকেই বেশি প্রাধান্য দিচ্ছেন। কারণ ঝাড়ু ফলিয়ে তাঁরা এখন বেশি লাভের মুখ দেখছেন। একবার ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উপস্থিত বুদ্ধি ও সময়োচিত সিদ্ধান্তে শত্রুদমন ও কর্মে সাফল্য। ব্যবসায় গোলযোগ। প্রিয়জনের শরীর-স্বাস্থ্যে অবনতি। উচ্চশিক্ষায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩১: বঙ্গ নাট্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা যতীন্দ্রমোহন ঠাকুরের জন্ম
১৯৭০: টেনিস খেলোয়াড় গ্যাব্রিয়েলা সাবাতিনির জন্ম
১৯৭৫: প্রথম মহিলা হিসেবে এভারেস্ট জয় করলেন জুঙ্কো তাবেই
১৯৭৮: অ্যাথলিট সোমা বিশ্বাসের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৪৯ টাকা ৭১.১৮ টাকা
পাউন্ড ৮৯.১৯ টাকা ৯২.৪৬ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৪ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,৮১৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,১৩৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১,৬০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,৩৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,৪৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৬ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৮/৮ দিবা ৮/১৬। চিত্রা ৫৮/১০ রাত্রি ৪/১৬। সূ উ ৫/০/৮, অ ৬/৫/৪৪, অমৃতযোগ দিবা ৩/২৮ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৬/৪৯ গতে ৯/০ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ২/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৪ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/৪৯ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/৩৩ গতে ১২/৫৫ মধ্যে।
১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৬ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৫/৩২/৪৭ দিবা ৭/১৩/২৬। চিত্রানক্ষত্র ৫৭/১১/১৩ রাত্রি ৩/৫২/৪৮, সূ উ ৫/০/১৯, অ ৬/৭/১৫, অমৃতযোগ দিবা ৩/৩৪ গতে ৬/৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৫৮ গতে ৯/৪ মধ্যে ও ১১/৫৬ গতে ২/৪ মধ্যে ও ৩/৩০ গতে ৫/০ মধ্যে, বারবেলা ৪/২৮/৫৩ গতে ৬/৭/১৫ মধ্যে, কালবেলা ২/৫০/৩১ গতে ৪/২৮/৫৩ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৩৩/৪৭ গতে ১২/৫৫/২৫ মধ্যে।
১০ রমজান
এই মুহূর্তে
ঝড়-বৃষ্টিতে তার ছিঁড়ে অন্ধকারে ডুবল জলপাইগুড়ি
জলপাইগুড়ি শহরের বিস্তীর্ন অংশ ডুবে রয়েছে অন্ধকারে। সন্ধ্যা থেকে ঝড়-বৃষ্টির ...বিশদ

08:10:08 PM

ডায়মন্ডহারবারের এসডিপিও এবং আমহার্স্ট স্ট্রিট থানার ওসিকে সরিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন

07:27:00 PM

বিমান সংস্থার উপর চটলেন শ্রেয়া
বিমানে বাদ্যযন্ত্র নিয়ে যেতে বাধা দেওয়া হয় সঙ্গীতশিল্পী শ্রেয়া ঘোষালকে। ...বিশদ

06:21:47 PM

ভোটের দিন গরম বাড়বে
উত্তর বঙ্গের পাঁচ জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলেও ভোটের দিন কিন্তু ...বিশদ

06:10:39 PM

এবার কমিশনের তোপের মুখে খোদ সিইও দপ্তরের আধিকারিকরাই
রাজনৈতিক দল ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নয়। এবার নির্বাচন কমিশনের তোপের ...বিশদ

05:49:03 PM

সল্টলেকে ৪০ লক্ষ টাকা সহ ধৃত ১
রবিবার ভোট। ঠিক তার মুখে আজ বৃহস্পতিবার সল্টলেকের এফ ই ...বিশদ

05:39:55 PM