Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

নারীর নিরাপত্তায় সমাজ ও রাষ্ট্রের ভূমিকা 

ঘটনা এক
অফিস থেকে ফিরতে সেদিন একটু বেশিই঩ দেরি হয়ে গিয়েছিল অন্তরার। তার কাজটাই এমন। সময়ের ঠিক থাকে না। সেদিন বড় রাস্তায় ক্যাবের জন্য অপেক্ষা করার সময় কোথা থেকে একটা গাড়ি সামনে এসে দাঁড়ায়। নেমে আসে জনা দুই-তিন বীরপুঙ্গব। শুরু হয় অশ্লীল বাক্যবাণ। তার ওপরে হাত ধরে টানাটানি। পরিস্থিতি বুঝেই একদম শুরুতেই ১০০ ডায়াল করায় সে যাত্রায় রক্ষা পেয়েছিল অন্তরা। রাগে, দুঃখে, অপমানে, ভয়ে ঠকঠক করে কাঁপছিল সে, নিজের শহরে নিজের নিরাপত্তাহীনতার কথা ভেবে।

ঘটনা দুই
সন্ধেবেলায় বন্ধুর সঙ্গে স্কুটারে চেপে বেরিয়েছিল সোহিনী। পথে, পাশ দিয়ে যাওয়া অটোর ভেতর থেকে উড়ে এল কটূক্তি। প্রতিবাদ করায় মারধর। সঙ্গে শাসানি, হুমকি আর অকথ্য ভাষার গালিগালাজ। এরপর অভিযোগ জানানো হলেও চলে চাপান-উতোর, ন্যায়-অন্যায় বিচার, সোহিনীর পোশাক নিয়ে বিতর্ক। একবিংশ শতাব্দীতে প্রযুক্তির ধ্বজা ওড়ানোর সময়ে দাঁড়িয়েও একজন মেয়ের পথ চলাতে নিরাপত্তার কতটা অভাব সেটা এই ঘটনা থেকে সহজেই অনুমেয়।

ঘটনা তিন
কিশোরী কন্যাকে সঙ্গে নিয়ে বাবা-মা বাসে উঠেছেন। চলন্ত বাসের সামনে বসা দুই যুবকের অশালীন আচরণ, কুৎসিত অঙ্গভঙ্গি এবং শেষে মা-মেয়ের ছবি মোবাইল বন্দি করায় ঘটনা অন্য দিকে মোড় নেয়। মায়ের চিৎকারে ও বাসের লোকজনের সম্মিলিত প্রতিবাদে রক্ষা পান কিশোরী কন্যাটি। এখন শহরে কি গ্রামে দিনের আলো বা রাতের অন্ধকারে মেয়েরা নিরাপদ নয় একেবারেই। আজও ভাবলে শিউরে ওঠে কিশোরী কন্যা ও তার মা।
খবরের কাগজ খুললেই শিরোনামে নারীর ওপর নেমে আসা জঘন্য সব লাঞ্ছনার ঘটনা প্রতিদিন, প্রতিনিয়ত আমাদের চোখে পড়ে। শুধু রাতবিরেতেই নয়, দিনের আলোয়, দুপুরে, সন্ধে সব সময় ঘটে চলেছে একটার পর একটা ঘটনা। শুধু অন্তরা, সোহিনীই নয়, অপর্ণা, আরতি, অনিন্দিতা, দেবস্মিতা অথবা করুণা, মালতী, ভজা বা পচা বা ক্যাবলার মা এছাড়া ছোট ছোট দুধের শিশু দিয়া, হিয়া, রিয়া এরাই বা কতটা নিরাপদ?
স্কুলে, কলেজে, পথে, ঘাটে, বাসে, ট্রামে, ট্রেনে, প্লেনে, কর্মক্ষেত্রে এমনকী নিজের বাড়িতেও কতটা নিরাপদ মেয়েরা? সবসময়ই একজন নারী নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে। আজও সমাজে মেয়েদের দুর্বল ভাবা হয়। সমাজে, সংসারে মাথা উঁচু করে বাঁচার ক্ষেত্রে বাধার প্রাচীর হয়ে দাঁড়ায় এই সমস্ত প্রতিকূল পরিস্থিতি। মেয়েদের নিরাপত্তার জন্য সমাজ ও রাষ্ট্রের ভূমিকাই বা কতটা? কী ব্যবস্থা গ্রহণ করলে নারী নিরাপদ থাকবে? নাকি এগুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা? সমাজ বা রাষ্ট্রের দায়ই বা কতটা? কী ব্যবস্থা নিয়েছে বা নিচ্ছে সমাজ? এই সমস্ত বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন সমাজতত্ত্ববিদ ডঃ পার্থসারথি দে।
 সমাজে মেয়েদের নিরাপত্তার অভাববোধ করা কতটা সঙ্গত?
 নিরাপত্তার অভাব বা নিরাপত্তাহীনতা যদি একজনের মধ্যে দানা বাঁধে তাহলে সেটা ধীরে ধীরে সমাজে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তবে সামগ্রিকভাবে বিষয়টাকে যদি আমরা দেখি, সমাজে তো আমরা সবাই চলাফেরা করছি। কখনও যদি দু-চারটে ঘটনা ঘটে তার ওপর ভিত্তি করে তো আমরা সাধারণীকরণ করতে পারি না। তবে হ্যাঁ, যদি সেটা নিরন্তর ঘটতে থাকে অনেক মেয়ের ওপর বারবার, তখন বলা যায় বিষয়টা সমাজের ওপর গাঢ় ছায়া ফেলেছে। তখন সেটা দূর করার বিষয়ে ভাবনা-চিন্তা অবশ্যই করতে হবে। পাশাপাশি এটাও বলব যে, পুরুষদের নিরাপত্তার অধিকার তো একচেটিয়া হতে পারে না, মহিলাদেরও সমান অধিকার আছে সমাজে। তো সেই কারণে নিরাপত্তাহীনতার বোধটা মহিলাদের মধ্যে না থাকাই বাঞ্ছনীয়। মহিলারাও সব পেশায়, সব কাজে এগিয়ে আসছেন সমস্ত বাধা-বিপত্তি দূরে ঠেলে। সমাজের বুকে ঘটে চলা বিচ্ছিন্ন ঘটনাকে একসঙ্গে গাঁথার ভাবনা থেকে দূরে থাকাই উচিত। এই ধরনের ঘটনা কাঙ্ক্ষিত নয়। একশো জন মহিলার মধ্যে হয়তো একজনের সঙ্গে কোনও একদিন অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটল এখন সেইটা ধরে নিয়ে যদি মহিলারা পিছিয়ে যান বা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন সেটাও ঠিক নয় একেবারেই। তবে আবারও বলছি মেয়েদের ওপর ঘটে চলা অপরাধমূলক কোনও একটি ঘটনাও কাম্য নয় একেবারেই।
 কী করে সমাজে মেয়েদের অবস্থানের উন্নতি ঘটবে?
 মেয়েদের অবস্থার উন্নতি ঘটার ক্ষেত্রে মেয়েদের পরিবারের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। লিঙ্গবৈষম্য শুরু হয় পরিবার থেকেই। এটা কাটানোর জন্য সামাজিক শিক্ষা খুব জরুরি। মানসিকতার আমূল পরিবর্তন প্রয়োজন। পুরুষ ও নারীর সমানাধিকার এই ভাবনা তৈরি করার পিছনে বাবা-মা, দাদু-ঠাকুমা, কাকা-পিসি সহ পরিবারের প্রত্যেকের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। আবহমানকাল ধরে প্রথম পরিবারেই শুরু হয় মেয়েদের খাটো করার পদ্ধতি। একই পরিবারে ভাই-বোন দু’জন থাকলে ছেলেটিকে খাওয়া, খেলা, পড়া, আদর-আহ্লাদে প্রাধান্য দেওয়ার মানসিকতা দেখা যায়। এই মনোভাবের পরিবর্তন ভীষণভাবে দরকার। তবেই ছোট থেকে কন্যাসন্তানটির বোধ, ভরসা, বিশ্বাসের জায়গা তৈরি হবে। এছাড়া সমাজতাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে আরেক বিষয় উল্লেখ করা দরকার, সেটা হল গ্রাম এবং শহরে এই দুই ক্ষেত্রেই মহিলাদের সমান গুরুত্ব দিয়ে ভাবতে হবে। গ্রামীণ মহিলাদের শুধু শিক্ষা নয়, স্বনির্ভর করতে হলে প্রশিক্ষণ জরুরি। সমাজ ও রাষ্ট্রকে এগিয়ে আসতে হবে আইন, নিয়ম-কানুন নিয়ে। যে কোনও বয়েসের মহিলাদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণের মধ্যে দিয়ে স্বনির্ভর করে গড়ে তুলতে হবে তাই নয়, মেয়েটি যাতে শারীরিক নিগ্রহ বা লাঞ্ছনার শিকার হলেও প্রতিবাদের মনোবল অক্ষুণ্ণ রাখতে পারে সেই মানসিকতা তার মনে গড়ে তুলতে হবে পরিবারের লোকজনদের। ভয়ে, লজ্জায় নয়, দৃঢ় মনোভাব নিয়ে পরিস্থিতির মোকাবিলা করার সাহসের শিক্ষা আসবে পরিবার থেকেই।
 আজও সমাজে মেয়েদের দুর্বল ভাবা হয়। এই ধারণা কতটা সঠিক?
 এমন ভাবনাই ভুল। সমাজের বুকে যুগ যুগ ধরে চলে আসা এই ধারণার বদল দরকার। মেয়েরা তো সব পেশায়, সব ক্ষেত্রে ছেলেদের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দৌড়ে বেড়াচ্ছে। ছেলেদের তুলনায় শারীরিক পার্থক্য থাকা সত্ত্বেও তাদের আটকানো যাচ্ছে কি? শুধু দৌড়ে বেড়াচ্ছে বলা বোধহয় ভুল হবে নিজেদের সফল হিসেবে প্রমাণও করেছে মেয়েরা। তাহলে তাদের দুর্বল ভাবার কারণটা কী? এই মানসিকতার পরিবর্তন বাঞ্ছনীয়।
 মেয়েদের আত্মসচেতনতা কতটা জরুরি?
 ভীষণ জরুরি। এর পিছনে পরিবার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবদান খুব গুরুত্বপূর্ণ। একটি মেয়ে আত্মসচেতন হলে তবেই পরিস্থিতির উন্নতি সম্ভব। এর জন্য কিছু সংস্থা, সংগঠন, সমাজের অন্য অংশের মানুষ, গোষ্ঠী, সম্প্রদায় এবং রাষ্ট্রের পরিকল্পনা প্রয়োজন। গ্রামের মেয়েদের ক্ষেত্রে কেবলমাত্র আর্থিক সহায়তা দিয়ে উন্নতি ও সচেতনতা সম্ভব নয়। সামাজিক শিক্ষা এবং বার্তারও প্রয়োজন। গ্রামীণ সমাজ ব্যবস্থার প্রতিবন্ধকতাও দূর করতে হবে।
 আর্থিক স্বনির্ভরতা মেয়েদের কতটা নিরাপত্তার অনুভূতি জোগায়?
 অধিকাংশ ক্ষেত্রেই জোগায়। মেয়েরা যদি আর্থিক দিক থেকে স্বয়ম্ভর হয় তাহলে নিরাপত্তার প্রশ্নে তারা অনেকটা সাহস পায়। প্রতিকূল পরিস্থিতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো বা মোকাবিলা করার জোর আপনিই আসে। বাইরের জগতের সঙ্গে যোগাযোগ মেয়েদের মনের প্রসার ঘটায়। শুধু তাই নয়, অনেক সময়ই দেখা যায় নিজের জীবন সম্পর্কে স্বাধীন সিদ্ধান্ত নিতে পারার মনোবল ও আত্মপ্রত্যয় স্বনির্ভরতা থেকেই আসে।
 সমাজে ও সংসারে মাথা উঁচু করে বাঁচতে হলে বিশেষ কী কী পদক্ষেপ নেওয়া দরকার?
 (১) প্রতিটি মেয়েকে শিক্ষা দিতে হবে। অর্থাৎ শিক্ষার অধিকার বাস্তবায়িত করতে হবে। (রাইট টু এডুকেশন)।
(২) সচেতনতার প্রশিক্ষণ দিতে হবে। (অ্যাওয়ারনেস ট্রেনিং)
(৩) কী শহরে অথবা গ্রামে বিভিন্ন মহিলাদের বয়স অনুযায়ী হাতে-কলমে প্রশিক্ষিত করতে হবে। বয়স্ক শিক্ষা (অ্যাডাল্ট এডুকেশন) জরুরি।
(৪) প্রতিকূল পরিস্থিতিতে মেয়েদের সহায়ক নানা ব্যবস্থা যে সমাজ ও রাষ্ট্রের আছে এটা মেয়েদের জানা জরুরি।
 মেয়েরা নাকি লাইসেন্স নেওয়া বন্দুক কিনছে। এটা কি আদৌ জরুরি? নাকি বাড়াবাড়ি চিন্তা?
 না, এটা একেবারেই সমর্থনযোগ্য নয়। বন্দুক মানে তো আরেকটা হিংস্রতার জন্ম দেওয়া। তার জন্য রাষ্ট্রের ব্যবস্থা রয়েছে, পুলিস আছে। তারা লাইসেন্স নিয়ে ব্যবহার করবে। গ্রামের ক’টা মেয়ে এটা পারবে? ধরা যাক, একটি ছেলে অভব্য আচরণ করল তাহলে সেই মেয়েটি নিরাপত্তার জন্য তাকে গুলি করে মেরে দেবে? তাহলে তো একটা অন্যায় আরেকটা অন্যায়ের জন্ম দেবে। এগুলো পশ্চিমী ধারণা। আমাদের দেশে এর থেকে অনেক ভালো পদ্ধতি রয়েছে। নিরাপত্তার জন্য বন্দুক না রেখে মেয়েরা বরং ক্যারাটে, জুডো শিখুক।
 মেয়েদের নিরাপত্তার জন্য, উন্নতির জন্য সমাজ কী ব্যবস্থা নিয়েছে বা নিচ্ছে?
 ভারতবর্ষের সামাজিক যে পরিকাঠামো, যে ঐতিহ্য আর সংস্কৃতি রয়েছে তাতে সব সময় যে মহিলাদের খুব খারাপ অবস্থা ছিল তেমনটা নয়। স্বাধীনতার পর থেকে মহিলাদের অবস্থার ক্রমশ উন্নতি হয়েছে। এরও পরে একবিংশ শতাব্দীতে এসে সামাজিক, রাজনৈতিক অথবা অর্থনীতিতেও মহিলাদের অংশগ্রহণ দেখবার মতো। সমস্ত কঠিন শিক্ষাও দেয় তাদের সহজাত দক্ষতায়। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে অর্থনীতিবিদ, সোশ্যাল প্ল্যানার, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, এয়ার ক্রাফট পাইলট এবং অনেক ধরনের এমন পেশা যেগুলোয় পুরুষদের একচেটিয়া আধিপত্য ছিল, সেই সব পেশা যেমন যুদ্ধবিমান পরিচালনা এবং আর্মিতে মহিলাদের স্কোয়াড তৈরি হয়েছে। কোনও ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই তারা। এই যে সমাজের সর্বস্তরে মহিলাদের উত্তরণ এর পেছনে কোনও না কোনওভাবে রাষ্ট্র এবং সমাজের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সমাজের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তনও নানা সদর্থক পদক্ষেপ গ্রহণের ফলেই এসব সম্ভব হয়েছে।
তনুশ্রী কাঞ্জিলাল মাশ্চরক 
19th  October, 2019
অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় রাকুল 

রাকুল প্রীত সিংয়ের কেরিয়ার শুরু মডেলিং দিয়ে। এখন তিনি দক্ষিণের এবং বলিউডের ব্যস্ততম নায়িকা। নিজের লাইফস্টাইেলর কথা জানালেন রাকুল। 
বিশদ

16th  November, 2019
অ্যাথলেটিক্সে নয়া নজির
দুই মায়ের বিশ্বরেকর্ড 

অ্যাথলেটিক্সের ইতিহাসে দাপট এখন মেয়েদের, বলা চলে দুই মায়ের। যারা অসম্ভবকে সম্ভব করলেন। সম্প্রতি দোহায় অনুষ্ঠিত বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে জামাইকার ‘স্প্রিন্ট কুইন’ শেলি অ্যান ফ্রেজার প্রাইস ১০০ মিটার দৌড়ে চার নম্বর সোনা জিতলেন দুর্দান্তভাবে।  বিশদ

16th  November, 2019
দুয়ের বেশি সন্তান মায়েদের
জন্য অশনিসংকেত 

দুয়ের বেশি সন্তান যে সব মায়েদের, তাঁদের জন্য আশঙ্কার খবর শুনিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। যাঁদের সন্তান সংখ্যা দুই বা তার বেশি তাঁরা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে রয়েছেন। সাম্প্রতিক এক গবেষণার শেষে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, নারীরা দুয়ের বেশি কয়টি সন্তানের জননী, তার ওপর নির্ভর করে তিনি কতটা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে রয়েছেন।   বিশদ

16th  November, 2019
পুরুষের তুলনায় ঘুমের
বেশি প্রয়োজন নারীদের 

নারী ও পুরুষের শারীরিক চাহিদা যে আলাদা সে কথা প্রায় সবারই জানা। যেমন পুরুষের তুলনায় নারীর ঠান্ডা লাগে বেশি। তেমনই ঘুম ব্যাপারটি পুরুষের তুলনায় নারীরই বেশি প্রয়োজন। সমীক্ষায় এমনই তথ্য সামনে এসেছে। সেখানে বলা হয়েছে নারীদের ঘুমের প্রয়োজন বেশি হওয়ার মূল কারণ দুটি। বিশদ

16th  November, 2019
নারীবাদ ও নারীমুক্তি  

মহিষাসুরের কবল থেকে স্বর্গরাজ্য উদ্ধারের জন্য দেবতাগণ দেবী দুর্গার আবাহন করেছিলেন। তিনি দশভুজা, অসুরদলনী এবং সর্বোপরি তিনি মা। নারীকে তুলনা করা হয় দেবী দুর্গার সঙ্গে। ঋগ্‌বেদের যুগে সমাজ ছিল মাতৃতান্ত্রিক। সেই সমাজে নারীই ছিল প্রধান।  বিশদ

16th  November, 2019
 শিশুর সামাজিক বিকাশে নারীর ভূমিকা

বর্তমান জীবনের প্রেক্ষাপটে বিশ্লেষণ করলে শিশু কতটা সফল তা অনেকটাই নির্ভর করে শিশুর সামাজিক বিকাশের উপর। সুন্দর সামাজিক বিকাশ শিশুকে পরবর্তী জীবনে করে তোলে সফল, সক্ষম ও সুনাগরিক। বিশদ

09th  November, 2019
 ৭৫ বছর ধরে মেয়েদের স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে
নারী সেবা সংঘ

  ১৯৪৩ সাল। সবে শেষ হয়েছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। দেশ তথা বাংলা তখন ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের কবলে পড়ে প্রায় বিধ্বস্ত। আর সে সময়ই বাংলার কিছু সমাজ সচেতন ব্যক্তি এগিয়ে আসেন, দুর্ভিক্ষের কবলে পড়ে করুণ অবস্থার শিকার হওয়া মহিলা আর শিশুদের উপকার করার জন্য। বিশদ

09th  November, 2019
 অগ্নিযোদ্ধা তানিয়া

 হাতে সময় মাত্র ২ মিনিট ১৮ সেকেন্ড, আর সেটাই হচ্ছে সারভাইভাল টাইম। বিমান দুর্ঘটনা ঘটলে, এটুকু সময়ের মধ্যেই যা করার করতে হবে। উদ্ধার কাজ শেষ করার জন্য বরাদ্দ এই সময়টাকে কাজে লাগাতে না পারলে প্রাণ বাঁচানো যাবে না বিমানযাত্রী এবং কর্মীদের। তাই গোটা প্রক্রিয়াটাই খুব চ্যালেঞ্জিং।
বিশদ

09th  November, 2019
মানুষ চেনা খুব কঠিন: অন্বেষা হাজরা 

মেয়েটির ভূত দেখার খুব ইচ্ছে। তাই সে ভূত দেখার জন্য যখন তখন হানাবাড়িতে হানা দেয়। কিন্তু ভূতের বদলে সেখানে দেখা মেলে শুধুমাত্র চোরের। মেয়ের ভূত দেখার তাড়নায় অতিষ্ঠ হয়ে বাড়ির লোক মেয়েটিকে বলে যে, তাকে ভূতের বাড়িতেই বিয়ে দেবে। যেখানে শাশুড়ি হবে শাকচুন্নি আর ননদ হবে পেতনি। 
বিশদ

02nd  November, 2019
বিদ্যাসাগরের বিধবারা 

বঙ্গবিধবাদের জগন্নাথধাম ‘পালানো’ সম্পর্কে এই বর্ণনা পাওয়া যায় ১৮৪৯ সালের ‘সম্বাদ রসরাজ’ পত্রিকায়— ‘নগরেতে হইয়াছে গেল গেল রব।/ পলাইয়া ক্ষেত্রে যায় নরনারী সব।।/ কাহারো পলায়ে গেল বিধবা বহুড়ী।/ এর বাড়ি তার বাড়ি খুঁজিছে শাশুড়ী।।’  
বিশদ

02nd  November, 2019
মা দুর্গার আর এক অন্য রূপ জ গ দ্ধা ত্রী

মা জগদ্ধাত্রী মহাশক্তির প্রতীক, তিনি সর্বস্থানে বিচরিত, তিনি চির শাশ্বত। তাঁর ধ্যান মন্ত্রে পাওয়া যায়,
সিংহ স্কন্ধ সমারূঢ়াং নানালঙ্কার ভূষিতাং।
চতুর্ভুজাং মহাদেবীং নাগ যজ্ঞোপবীতিধারিণীং...
নারদাদ্যৈ মুনিগণৈঃ সেবিতাং ভবসুন্দরীয়।।  বিশদ

02nd  November, 2019
যুগে যুগে ভা ই ফোঁ টা 

‘ভাইয়ের কপালে দিলাম ফোঁটা, যমদুয়ারে পড়ল কাঁটা’— বোনেরা এই মন্ত্র উচ্চারণে কপালে চন্দনের ফোঁটা দিয়ে তাদের ভাইদের দীর্ঘায়ু কামনা করে। এই নিয়ম যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। কিন্তু এখন তো প্রায় সবাই একা একা বড় হচ্ছে। তাই আগেকার মতো ভাইফোঁটা সবাই কি পালন করতে পারে? নাকি ভাইফোঁটা হারিয়ে যাচ্ছে? 
বিশদ

26th  October, 2019
ডুব দে রে মন কালী বলে 

জব চার্নকের শহরে উত্তর থেকে দক্ষিণ অজস্র কালীবাড়ি রয়েছে। কোনও কালীবাড়ি সম্ভ্রান্ত পরিবারের রানির হাত ধরে, কোনওটা বা ফিরিঙ্গি সাহেবের প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। সারাবছর যে নিয়মই থাকুক না কেন দীপান্বিতা অমাবস্যায় অর্থাৎ কালীপুজোর বিশেষ দিনে কীভাবে পূজিত হন কলকাতার বিখ্যাত সব মন্দিরের মাতৃমূর্তি?
বিশদ

26th  October, 2019
মা কালী ও তন্ত্রসাধনা 

তন্ত্র সাধনার দেশ ভারতবর্ষ। সেই সুপ্রাচীন কাল থেকে ভক্ত তার সিদ্ধিলাভের জন্য তন্ত্র সাধনা করে আসছেন। যে সব দেব-দেবীর উদ্দেশ্যে তন্ত্র সাধনা হয়ে থাকে তার মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় দেবী হলেন কালী। বিভিন্ন উদ্দেশ্যে সাধক-সাধিকারা মা কালীর নানা রূপের সাধনা করেন। তন্ত্র সাধনা খুবই গুপ্ত ও কঠিন সাধনা। 
বিশদ

26th  October, 2019
একনজরে
বিএনএ, কোচবিহার: এই প্রথম কলকাতার সল্টলেকে পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের উদ্যোগে প্রাথমিক শিক্ষকদের খেলাধুলোর বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। কোচবিহার জেলার পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি সূত্রে জানা গিয়েছে, কোচবিহার থেকে পাঁচজন প্রাথমিক শিক্ষক এই প্রশিক্ষণ নিতে গিয়েছেন।  ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

 ফিরদৌস হাসান, শ্রীনগর,২০ নভেম্বর: বুধবার শ্রীনগরের বিধায়ক হোস্টেলে ‘বন্দি’ নেতাদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দিল কেন্দ্র। এই মুহূর্তে বিধায়ক হোস্টেলে ৩০ জন বিভিন্ন দলের নেতা বন্দি। তাঁদের সঙ্গে দেখা করে হোস্টেল থেকে বেরিয়েই ক্ষোভে ফেটে পড়লেন আত্মীয়-পরিজনেরা। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শীতের মরশুমের আগেই আলিপুর চিড়িয়াখানায় হাজির নতুন অতিথি। ভাইজাগ চিড়িয়াখানা থেকে মঙ্গলবার রাতে কলকাতায় এল চারটি জঙ্গলি কুকুর বা ঢোল, দু’টি রিং টেলড লেমুর (বাঁদরের এক প্রজাতি) এবং দু’টি স্পুনবিল পেলিকান। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উপার্জন বেশ ভালো হলেও ব্যয়বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে সঞ্চয় তেমন একটা হবে না। শরীর খুব একটা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব টেলিভিশন দিবস
১৬৯৪: ফরাসি দার্শনিক ভলতেয়ারের জন্ম
১৮৭৭: ফোনোগ্রাফ আবিষ্কারের কথা জানালেন থমাস এডিসন
১৯৭০: নোবেলজয়ী পদার্থবিদ চন্দ্রশেখর বেঙ্কটরামনের মৃত্যু
১৯৭৪ - শিশু সাহিত্যিক পুণ্যলতা চক্রবর্তীর মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.১৭ টাকা ৭৩.৩৩ টাকা
পাউন্ড ৯০.৪৯ টাকা ৯৪.৮৫ টাকা
ইউরো ৭৭.৬২ টাকা ৮১.৩৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৯৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৯৮০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৫৩৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২১ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, নবমী ১৩/৫০ দিবা ১১/২৯। পূর্বফাল্গুনী ৩১/২২ রাত্রি ৬/২৯। সূ উ ৫/৫৬/৪২, অ ৪/৪৮/০০, অমৃতযোগ দিবা ৭/২৩ মধ্যে পুনঃ ১/১১ গতে ২/৩৮ মধ্যে। রাত্রি ৫/৪১ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ৩/১৯ মধ্যে পুনঃ ৪/১২ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/৫ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/২২ গতে ১/০ মধ্যে।
৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২১ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, নবমী ৮/১৫/৩৯ দিবা ৯/১৭/৩। পূর্বফাল্গুনী ২৮/৯/৬ সন্ধ্যা ৫/১৪/২৫, সূ উ ৫/৫৮/৪৭, অ ৪/৪৭/৪৮, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৪ মধ্যে ও ১/১৫ গতে ২/৪০ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৩ গতে ৯/১৫ মধ্যে ও ১১/৫৫ গতে ৩/২৯ মধ্যে ও ৪/২২ গতে ৬/০ মধ্যে, বারবেলা ৩/২৬/৪১ গতে ৪/৪৭/৪৮ মধ্যে, কালবেলা ২/৫/৩৩ গতে ৩/২৬/৪১ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/২৩/১৭ গতে ১/২/১২ মধ্যে।
২৩ রবিয়ল আউয়ল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
গোটা দেশে এনআরসি হবে: অমিত শাহ 
গোটা দেশে এনআরসি হবে বলে রাজ্যসভায় জানালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত ...বিশদ

20-11-2019 - 04:31:00 PM

পর্ণশ্রীতে গ্যাস সিলিন্ডার চুরি, ধৃত ২ 

20-11-2019 - 03:18:00 PM

নরেন্দ্রপুরে দম্পতির রহস্যমৃত্যু 
নরেন্দ্রপুরে এক দম্পতির দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য। আজ সকালে নরেন্দ্রপুরের ...বিশদ

20-11-2019 - 02:34:00 PM

মায়ের বকুনি, অভিমানে আত্মঘাতী সপ্তম শ্রেণীর পড়ুয়া 
পড়াশোনা নিয়ে মায়ের বকুনির জেরে অভিমানে আত্মঘাতী হল সপ্তম শ্রেণীর ...বিশদ

20-11-2019 - 01:38:34 PM

আসানসোলে ৫ কুখ্যাত দুষ্কৃতী গ্রেপ্তার 
ডাকাতির উদ্দেশ্যে জরো হওয়া পাঁচ কুখ্যাত দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করল আরপিএফের ...বিশদ

20-11-2019 - 01:32:39 PM

মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘিতে সভামঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 

20-11-2019 - 01:26:09 PM