Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

স্বাধীনতার ইতিহাসে দুই জাপানি মহিলা ও রাসবিহারী বসু

ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে অনেক মহিলা নিজেদের জীবন উৎসর্গ করেছিলেন, তাঁদের মধ্যে দুই বিদেশি মহিলা যাঁরা ভারতীয় না হয়েও ভারতের স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে নিজেদের জীবন উৎসর্গ করেছিলেন তাঁদের কথা আজ বলি। ভারতীয় মহান বিপ্লবী রাসবিহারী বসুর জীবন রক্ষার্থেই সেই কাহিনী শুরু হয়েছিল।
রাসবিহারী বসুর স্বাধীনতা আন্দোলন ছিল দুটি অধ্যায়ে বিভক্ত। ১৯১৫ সালের ১৫ মে পর্যন্ত একটি অধ্যায় যখন তিনি ছিলেন ভারতে এবং পরবর্তী অধ্যায় পি এন ঠাকুর নাম নিয়ে জাপানে তাঁর জীবনাবসান পর্যন্ত।
জাপানে থাকাকালীন দুই জাপানি মহিলা মা ও মেয়ে শ্রীমতি কোকো সোমা ও তোসিকা সোমা পরবর্তীকালে তোসিকা বসু রাসবিহারী বসুকে রক্ষা করার জন্য নিজেদেরকে উৎসর্গ করেছিলেন। নিজেদের জীবনকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন। তাঁরা নিজেদের, ছেলেমেয়েদের কথা ভুলে শুধুমাত্র ভারতের স্বাধীনতা অর্জনের জন্য যে বিপ্লবী নিজের জীবন তুচ্ছ করে লড়াই করে চলেছেন তাঁরই পাশে এসে দাঁড়িয়েছিলেন।
জাপানে থাকার সময়ে ইংরেজ দূতাবাস থেকে চাপ দেওয়া হতে থাকে জাপান সরকারকে, চর মারফত খবর নিয়ে ইংরেজদের দূতাবাস জানতে পারল যে, পি এন ঠাকুর আসলে রাসবিহারী বসু। তখন ইংরেজ দূতাবাস রাসবিহারী বসুকে জাপান থেকে বের করে দেবার জন্য চাপ দিতে থাকে। সেই সময় রাসবিহারী বসু মিঃ আইজু সোমার বাড়িতে আত্মগোপন করেছিলেন।
আইজু সোমার স্ত্রী শ্রীমতি কোকো সোমা রাসবিহারী বসুকে ছেলের মতো স্নেহে আত্মগোপনে সাহায্য করতেন। ফলত, সোমা পরিবারের উপর পুলিসি নজরদারি শুরু হল, অত্যাচারও শুরু হল এবং সেটা চলতে লাগল ধারাবাহিকভাবে।
সেই সময় শ্রীমতি কোকো সোমা ভারতের স্বাধীনতার কথা ভেবে, ভারতের মঙ্গলের কথা ভেবে নিজের কথা ভুলে এমনকী নিজের বাচ্চার কথাও ভুলে গেলেন। একসময় স্নায়ুর চাপে নিজের শরীর খারাপ হতে লাগল, অপুষ্টি ও অযত্নে নিজের বাচ্চার মৃত্যু হল, শ্রীমতি কোকো সোমা অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী হয়ে পড়লেন।
এই সময় ঘটল একটি ঘটনা। ১৯১৬ সালে ইংরেজ যুদ্ধ জাহাজ জাপ স্টিমারের ৬ জন জাপানির উপর নৃশংস অত্যাচার করে ও ধরে নিয়ে যায়। ফলে জাপ জনমত ইংরেজদের বিরুদ্ধে যায়, সেই সময় জাপান সরকার বিদেশ নীতি বদলাতে বাধ্য হয়।
ওই সময় রাসবিহারী বসু ছদ্মবেশে প্রকাশ্যে আসেন, সেটা ছিল ১৯১৬ সালের এপ্রিল মাস। শ্রীমতি কোকো সোমা রাসবিহারীকে অন্যত্র চলে যেতে বলেন এবং রাসবিহারী অন্যত্র চলে যান।
যাবার সময় অসুস্থ শ্রীমতি কোকো সোমার কাছে রাসবিহারী নিজে দেখা করতে যান এবং বলেন, ‘মাগো আমি জানি না আমি কীভাবে তোমায় ধন্যবাদ জানাব, শুধুমাত্র ভারতের কথা চিন্তা করে আমাকে বাঁচানোর জন্য তুমি তোমার প্রিয় শিশুটিকে হারিয়েছ, মাগো আমার কৃতজ্ঞতার ভাষা নেই।’
প্রত্যুত্তরে কোকো সোমা বলেছিলেন, উনি আমায় মা বলে ডাকছেন, তা শুনে আমার কথা সরল না, আমরা একে অপরের হাত ধরলাম। দু’জনের চোখ বেয়ে শুধু জল গড়াতে লাগল, কোকো সোমা বললেন, আমি আমার সন্তানকে হারিয়েছি বটে, কিন্তু পেয়েছি মহান ভারত আত্মার সান্নিধ্য। এই মহীয়সী রমণী বিদেশি হয়েও ভারতমাতার জন্য যে স্বার্থত্যাগ করলেন তা অবর্ণনীয়।
এবার বলব তারই কন্যা তোসিকো সোমার কথা।
রাসবিহারী বসু তো চলে গেলেন, কিন্তু ওঁকে কে বাঁচাবে এই চিন্তায় সোমা দম্পতির চিত্ত অস্থির হয়ে উঠল। ইতিমধ্যেই রাসবিহারীর সঙ্গে আলাপ হয়েছিল মহাচীনের প্রথম অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট ডাঃ সান ইয়াৎ সেনের, সেই সময় তিনি ছিলেন দেশ থেকে নির্বাসনে। আলাপ হয়েছিল জাপানের একজন বিশিষ্ট দক্ষিণপন্থী জাতীয়তাবাদী নেতা প্রিন্স টায়োমার সঙ্গে। ঈঙ্গ জাপান জোট থাকা সত্ত্বেও তিনি মনে-প্রাণে চাইতেন যে ইংরেজদের শাসন থেকে ভারত মুক্তি পাক, স্বাধীন হোক। সেই সময় জাপানের রাজপরিবারের সন্তান টায়োমা, সোমা দম্পতিকে একটি প্রস্তাব দিলেন। সোমা পরিবারের বড় মেয়ে তোসিকা সোমা তখন স্কুলে পড়ে, তার সঙ্গে বসুর বিয়ের প্রস্তাব দেন টায়োমা। বসুকে সোমা পরিবার পুত্রবৎ স্নেহ করতেন কিন্তু তোসিকার সঙ্গে বসুর বিয়ের কথা কখনও ভাবেননি। অথচ বসুকে রক্ষা করার জন্য তোসিকা এ ঝুঁকিটা নিক, ভারতবর্ষের ৪০ কোটি মানুষের জন্য তোসিকা নিজের জীবন উৎসর্গ করুক এটি ছিল সোমা দম্পতির মনের ইচ্ছা। তাই তোসিকাকে একথা কোকো সোমা বললেন। কিন্তু অপ্রস্তুত তোসিকা, সে একমাস সময় চাইল। বসুকেও তার জীবন রক্ষার্থে বিবাহের কথা বলা হল। অনিচ্ছা সত্ত্বেও নানা চিন্তা করে রাসবিহারী বসু রাজি হলেন।
তোসিকা একমাস পর প্রস্তাবে সম্মতি দিলেন। তখন টায়োমা ও তোসিকোর দাদা তিকাকো বিয়ের সব ব্যবস্থা করলেন। বাবা আইজু সোমা তোসিকার সঙ্গে রাসবিহারী বসুর বিবাহ দিলেন ১৯১৮ খ্রিস্টাব্দের ৯ জুলাই।
তারপর দীর্ঘ ৮ বছর ধরে ঘাতকদের হাত থেকে বসুকে বাঁচানোর জন্য তোসিকাকে ১৭ বার বাড়ি বদল করতে হয় এবং রাসবিহারী বসুকে লুকিয়ে রাখতে হয়।
১৯২০ খ্রিস্টাব্দের ১৩ আগস্ট জন্ম হয় পুত্র মাশাহিদে যার ভারতীয় নাম ভারতচন্দ্র, ১৯২২-এর ১৪ ডিসেম্বর জন্ম হয় মেয়ে তেৎসুকোর। ১৯২৩ সালের ২ জুলাই জাপানের নাগরিকত্ব পান রাসবিহারী বসু এবং তিনি প্রকাশ্য জীবনে আসেন। কিন্তু হায়, প্রচণ্ড উত্তেজনায় ও স্নায়ুর চাপে তোসিকার শরীর ভেঙে পড়ল, সুখ তোসিকার জীবনে কোনও দিনই এল না। ২৮ বছর বয়সে ২টি সন্তান রেখে তোসিকা অমৃতলোকে যাত্রা করলেন।
একজন মহীয়সী রমণী ও একজন স্নেহময়ী মা যাঁরা বিদেশিনী হয়েও এবং বিদেশের মাটিতে থেকেও ভরতকে, ভারতের জনগণকে এতই ভালোবেসেছিলেন যে নিজেদের জীবন তুচ্ছ করেও তাঁরা ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রণ করেন। সক্রিয়ভাবে যোগ না দিয়েও পরোক্ষে কাজ করেন। নিজেদের সংসার ও সন্তানকে তুচ্ছ করতেও দ্বিধা করলেন না। তাই ভারতদরদি সোমা কোকো ও তোসিকা কোকো চিরকাল আমাদের মধ্যে বেঁচে থাকবেন। অক্ষয় হয়ে থাকবে তাঁদের কীর্তি।
সুপ্রকাশ বন্দ্যোপাধ্যায়
10th  August, 2019
স্ত্রীর উন্নতিতে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন স্বামী 

স্ত্রীর আয় বেশি বলে স্বামীকে হীনম্মন্যতা ও নিরাপত্তার অভাবে ভুগতে দেখার দৃশ্য বলিউডের অনেক ছবিতেই রয়েছে। ‘অভিমান’ থেকে শুরু করে ‘ম্যায়, মেরি পত্নী ওউর ওহ’র মতো ছবিতে এমন ঘটনা দেখা যায়। যুক্তরাজ্যের বাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের গবেষণাতেও এ তথ্য উঠে এসেছে। গবেষণায় ছয় হাজার দম্পতির তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়।  
বিশদ

11th  January, 2020
গ্র্যামির মনোনয়নে নারীরাই জয়ী 

কিছুদিন আগে অবধিও সঙ্গীত বিশ্বে ছিল পুরুষের জয়-জয়কার। দু’বছর আগে তাই গ্র্যামির মঞ্চে বলা হয়েছিল, ‘নারীরা জেগে ওঠো, চিৎকার করে অস্তিত্বের জানান দাও।’ ২০২০ সালের গ্র্যামি মনোনয়নে দেখা গেল, নারীরা জেগে উঠেছে, চিৎকার করেছে। সেই চিৎকারে বর্ণময় হয়ে উঠেছে চারপাশ। 
বিশদ

11th  January, 2020
আশালতা চতুষ্পাঠীতে মেয়েরা সংস্কৃত পড়ছেন 

উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার হাসনাবাদ রেল স্টেশনের পাশে অধ্যক্ষ অনিলকুমার দাশের ‘আশালতা চতুষ্পাঠী’তে মুসলিম, আদিবাসী, হিন্দু, তফসিলি ও খ্রিস্টান মহিলারা খুব আগ্রহ সহকারে সংস্কৃত ভাষা শিক্ষা করছেন। 
বিশদ

11th  January, 2020
শেষ পৌষের বাউলমেলায় 

মাধবের মন্দিরে একসময় আশালতা দাসী, কর্তাল ঠুকে গাইতেন, ‘ওপারে বন্ধু আমার/এপারেতে স্বজন/ মনের ভিতর তুই আমার অতি আপনজন’! সেই ইতিহাসের অজয় নদ! তার তীরে বীরভূমের ইলামবাজারের অদূরে, প্রাচীন কেন্দুলী গ্রাম। এ অঞ্চলের অন্ত‌্যজ শ্রেণীর মেয়েরাও গাইত মাটির গান। 
বিশদ

11th  January, 2020
নবনীতার আলো 

নবনীতা দেবসেনের গল্প, ভ্রমণ বা কবিতায় মন ডুবিয়ে বাস্তবের থেকে বহু বহু দূরে পাড়ি জমান পাঠকরা। তাঁর জন্মদিনের প্রাক্কালে তাঁর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধার্ঘ্য
বিশদ

11th  January, 2020
নারী পাইলটকে স্বাগত জানাল ভারতীয় নৌবাহিনী 

প্রথমবারের মতো কোনও নারী পাইলটকে স্বাগত জানাল আমাদের দেশের নৌবাহিনী। সাব-লেফটেন্যান্ট শিবাঙ্গী নামের ওই নারী যখন একটি বিমানের নিয়ন্ত্রণ হাতে নেন, তখন তা আমাদের দেশের সশস্ত্র বাহিনীর জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক বলেই ধরে নেওয়া হয়েছে। 
বিশদ

04th  January, 2020
নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত মেয়েরা অবহেলার শিকার

নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ছেলে ও মেয়ের চিকিৎসায় হাসপাতালে কোনও পার্থক্য হয় না। তবু তীব্র নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত মেয়ের মৃত্যু বেশি হয়। অন্যদিকে ছেলেশিশু ভর্তি হয় বেশি। গবেষকরা বলছেন, হাসপাতালে ভর্তি করাতে পরিবার ছেলেদের অগ্রাধিকার দিয়ে থাকতে পারে।  
বিশদ

04th  January, 2020
সর্বকালের সেরা আফ্রিকান কৃষ্ণাঙ্গ কোটিপতি নারী 

যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন জগতের খুব পরিচিত মুখ ওপরাহ্‌ উইনফ্রে। মিসিসিপির নিভৃত পল্লিতে ১৯৫৪ সালের ২৯ জানুয়ারি অবিবাহিত এক মায়ের ঘরে জন্ম তাঁর। কেরিয়ারের শুরুতে টেলিভিশন উপস্থাপিকা হিসেবে আগমন তাঁর। আর তাতেই বাজিমাত করেন। ১৯৮০-র দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে তিনি বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।  
বিশদ

04th  January, 2020
আপসহীন শর্বরী 

বেশ কয়েক বছর আগের ঘটনা, কলকাতা হাইকোর্টে তখনকার প্রধান বিচারপতি জে.এন. প্যাটেল স্বয়ং কথা বলতে চাইলেন সি.আই.ডি-র ইনস্পেক্টর শর্বরী ভট্টাচার্যের সঙ্গে। প্রধান বিচারপতির ডাক পেয়ে শশব্যস্ত হয়ে ছুটলেন শর্বরী। আর্দালি প্রথমে তাঁকে চেম্বারে ঢুকতে দিতে চাননি কিন্তু হাইকোর্টেরই এক আইনজীবীর নজরে পড়ে যান তিনি। 
বিশদ

04th  January, 2020
নারী মনের নানা দিক 

নারী মনের ওপর বয়সের প্রভাব পড়ে বিভিন্ন সময়। একদম অল্প বয়সে যখন সে বালিকা তখন তার মন থাকে চঞ্চল, উচ্ছল। এরপর কৈশোর আসে। মেয়েদের শরীরে তখন বদল ঘটে। হরমোনের প্রভাব পড়ে শরীর ও মনে। এরপর যৌবন। তখন মনের আবেগ ও শরীরের তেজ সবচেয়ে বেশি থাকে। তারপর ক্রমশ বার্ধক্য গ্রাস করে নারী মনকে।  
বিশদ

04th  January, 2020
লিঙ্গবৈষম্য ও সংস্কার 

ঘটনা এক: সান্ধ্যকালীন এক অনুষ্ঠান বাড়িতে উপস্থিত হয়েছে লোপা। মাঝ বয়েস ছুঁই ছুঁই লোপা এক কন্যাসন্তানের জননী। হাসি, মজা, কথাবার্তায় মহিলা মহলে উপস্থিত বেশ কয়েকজন নীল ষষ্ঠীর ব্রত উপবাসের কথা বলছিলেন। পুত্রসন্তানের জননী বলে কোথাও যেন কৌলীণ্য বেশি তাদের। 
বিশদ

28th  December, 2019
নিজের জ্ঞান সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে চান সুপর্ণা 

চীনে এবার মিসেস ইউনিভার্স ২০১৯ অনুষ্ঠিত হবে। গ্র্যান্ড ফাইনাল হবে ৩০ ডিসেম্বর। তার আগেই কলকাতার থেকে প্রতিযোগী হিসেবে অংশগ্রহণ করছেন সুপর্ণা মুখোপাধ্যায়। তিনি এই বিষয়ে বর্তমান পত্রিকাকে নানা কথা জানালেন। 
বিশদ

28th  December, 2019
নারীর সম্মান রক্ষায় কল্পতরু শ্রীরামকৃষ্ণ 

আজকের দিনে নবজাগরণের অন্যতম অঙ্গ হল নারীর ন্যায্য অধিকার সচেতনতার আন্দোলন। সমাজের সকল স্তরে নারীর অবমাননা আজকের দিনে এমন এক চরম অবস্থায় পৌঁছেছে যে তার আমূল সংস্কার একান্তভাবে প্রয়োজন। আমাদের আর্য সভ্যতার উষালগ্নে বৈদিক যুগ ছিল নারীর স্বর্ণযুগ, সেই যুগে নারী ছিল উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক। 
বিশদ

28th  December, 2019
 কলকাতার বড়দিন ও শতাব্দীপ্রাচীন গির্জা

 কলকাতার বড়দিনে যে সব শতাব্দীপ্রাচীন চার্চ গির্জায় মানুষের ঢল নামে সেই সম্পর্কে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। দক্ষিণ কলকাতার খিদিরপুরে যে সব শতাব্দীপ্রাচীন চার্চ গির্জা যুগ যুগ ধরে হিন্দু মুসলমানের মসজিদের পাশাপাশি অবস্থান করে সম্প্রীতির সাক্ষ্য বহন করে চলেছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল সেন্ট স্টিফেন্স চার্চ।
বিশদ

21st  December, 2019
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্যপালের দায়িত্ব নিয়ে এই প্রথম নির্বিঘ্নে কোনও সমাবর্তনে হাজির হলেন জগদীপ ধনকার। আর সেই অনুষ্ঠানে গিয়েও সরকারের উদ্দেশ্যে খোঁচা দিতে ছাড়লেন না ...

জীবানন্দ বসু, কলকাতা: গত কয়েক মাস ধরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তথা রাজ্য সরকারের সঙ্গে অহি-নকুল সম্পর্ক তৈরি হয়েছে রাজ্যপালের। সম্প্রতি শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় তাঁর সঙ্গে দেখা করায় সমঝোতার আবহ তৈরি হলেও পরবর্তীকালে নানা ইস্যুতে ফের সংঘাতের বাতাবরণ ফিরে এসেছে।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কথা রাখতে ব্যর্থ মোহন বাগান কর্তারা। তাঁরা আনতে পারলেন না নতুন ইনভেস্টর কিংবা স্পনসর। শেষ পর্যন্ত এটিকের সঙ্গে সংযুক্তিকরণের পথেই হাঁটতে হল ...

ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

গুরুজনের চিকিৎসায় বহু ব্যয়। ক্রোধ দমন করা উচিত। নানাভাবে অর্থ আগমনের সুযোগ। সহকর্মীদের সঙ্গে ঝগড়ায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪১: মহান বিপ্লবী সুভাষচন্দ্র বসুর মহানিষ্ক্রমণ
১৯৪২: মার্কিন মুষ্টিযোদ্ধা মহম্মদ আলির জন্ম
১৯৪৫: গীতিকার ও চিত্রনাট্যকার জাভেদ আখতারের জন্ম
২০১০: কমিউনিস্ট নেতা তথা পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর মৃত্যু 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯. ২০ টাকা ৭২.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৯০.১৯ টাকা ৯৪.৫৮ টাকা
ইউরো ৭৭.১০ টাকা ৮০.৮৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০, ৩৯৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮, ৩২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৮, ৯০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬, ৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬, ৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২ মাঘ ১৪২৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী ২/৪০ দিবা ৭/২৮। চিত্রা ৪৭/৪ রাত্রি ১/১৩। সূ উ ৬/২৩/৭, অ ৫/৯/৫১, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৩২ গতে ১০/৪১ মধ্যে পুনঃ ১২/৫০ গতে ২/১৭ মধ্যে পুনঃ ৩/৪৪ গতে অস্তাবধি। বারবেলা ৯/৪ গতে ১১/৪৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/২৮ গতে ১০/৭ মধ্যে। 
২ মাঘ ১৪২৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী ১২/৪/১৯ দিবা ১১/১৫/২৬। হস্তা ০/৩/৫ প্রাতঃ ৬/২৬/৫৬ পরে চিত্রা নক্ষত্র দং ৫৬/৯/৪১ শেষরাত্রি ৪/৫৩/৩৪। সূ উ ৬/২৫/৪২, অ ৫/৮/৫৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৮ মধ্যে ও ৮/৩২ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ১২/৫৫ গতে ২/২৩ মধ্যে ও ৩/৫১ গতে ৫/৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩ গতে ৮/৪৭ মধ্যে ও ৩/৪৪ গতে ৪/৩৬ মধ্যে। কালবেলা ১০/২৬/৫৫ গতে ১১/৪৭/১৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/২৮/৮ গতে ১০/৭/৪৩ মধ্যে । 
মোসলেম: ২১ জমাদিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ভারত ৩৬ রানে জিতল 

09:55:34 PM

অস্ট্রেলিয়া ২৩৫/৫ (৪০ ওভার), টার্গেট ৩৪১ 

08:50:02 PM

অস্ট্রেলিয়া ১৫১/২ (২৬ ওভার), টার্গেট ৩৪১

07:46:57 PM

অস্ট্রেলিয়াকে ৩৪১ রানের টার্গেট দিল ভারত 

05:12:00 PM

নির্ভয়া কাণ্ড: দোষীদের ফাঁসি ১ ফেব্রুয়ারি 
নির্ভয়া কাণ্ডে চারজন দোষীদের ফাঁসি ২২ জানুয়ারির বদলে হবে ১ ...বিশদ

05:08:00 PM

ভারত ২৪৯/৩ (৪০ ওভার) 

04:25:39 PM