Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

রাধারানিদেবীর আত্মাহুতিই
এগিয়ে দিয়েছিল শিল্পী রামকিঙ্করকে 

শিল্পী রামকিঙ্করের জীবনের সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে রয়েছে তাঁর নাম। তিনি রাধারানি। তাঁর জন্ম বর্ধমানের আউশগ্রামের গুসকরার কাছে। জানা যায় গ্রামটির নাম ছিল সাহেব বাগান। তাঁর বাবার নাম চন্দ্র আর মা দুর্গাদেবী। তাঁরা ছিলেন তিন বোন। মেজ বোন মারা যায় কম বয়সে। বাবা চাকরি করতে যেতেন শ্রীরামপুরে। বাবা কী চাকরি করতেন তা জানতেন না রাধারানি, কারণ তখন তাঁর বয়স কম। চাকরির কারণেই তাঁর বাবা কিছুদিন বোলপুরে ছিলেন। বাবার কাছে শান্তিনিকেতনে যখন আসেন তখন রবীন্দ্রনাথকে দেখেছিলেন। কিঙ্করবাবুর কাছে আসার সময় দেখেন রথীন্দ্রনাথকে।
বাবা বোলপুরে থাকার সময়, বাবারই পছন্দের বোলপুরের এক মুদি দোকানের মালিক, বছর তিরিশের চণ্ডী গড়াইয়ের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল রাধারানির। তখন তিনি ন’বছরের বালিকা। একটি ছেলেও হয়েছিল তাঁর।  পরে মারা যায়। ভেদিয়ার গ্রাম থেকে বোলপুরে গিয়ে জীবন কাটছিল। কিন্তু সুখ বেশিদিন স্থায়ী হল না। বিয়ের কয়েক মাস পরেই সাংসারিক অশান্তি শুরু হয়। দিনে দিনে তা চরমে ওঠে। এ অশান্তির মাঝে বাবার কাছে ফিরে যাবেন এমন অবস্থাও ছিল না রাধারানির। কারণ, সে পরিবারেও অভাব ছিল নিত্যসঙ্গী। শ্বশুর চাষবাস করতেন। স্বামীও চাষের কাজে তার বাবাকে সাহায্য করতেন। শ্বশুরবাড়িতে রাধারানিকে নিয়ে খুব গণ্ডগোল শুরু হয়। রাধারানির স্বামী একটি মেয়ে রেখেছিল। মেয়েটার স্বামীর সঙ্গে রাধারানির স্বামীর বন্ধুত্ব ছিল। গঙ্গাজল পাতিয়েছিল। মেয়েটি রাধারানির স্বামীর দোকানে জিনিস কিনতে আসত। এই ভাবেই তাদের সম্পর্ক ঘন হয়ে ওঠে। সে কথা জানতে পেরে রাধারানি বলেছিলেন, ওই মেয়েটার সঙ্গে সম্পর্ক রাখলে তিনি স্বামীর সঙ্গে সম্পর্ক রাখবেন না। এদিকে মেয়েটির স্বামীও সবকিছু জেনে, রাধারানিকে তাঁর ঘরে নিয়ে যেতে চাইলেন। এই নিয়ে গণ্ডগোলের সূত্রপাত। বাড়ি ছাড়তে হয় রাধারানিকে। ঠাকুমা গিয়ে নিয়ে আসেন রাধারানিকে। সেই বাপ মেয়েতে দ্বন্দ্ব! 
সমস্যা মেটাতে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হতে বোলপুরে কাজের খোঁজে এলেন রাধারানি। অনেক খোঁজাখুঁজির পরে, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কনিষ্ঠা কন্যা মীরাদেবীর বাড়িতে মাসমাইনে ও থাকা-খাওয়ার শর্তে কাজে বহাল হলেন। এখানেই প্রতিমাদেবীর সঙ্গে আলাপ হয় রাধারানির। একবার রাধারানিকে তিনি সঙ্গে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন, মীরাদেবী রাজি হননি।
মীরাদেবীর বাড়িতেই অনেক গুণী মানুষের সঙ্গে আলাপ হয় রাধারানির। সেখানেই প্রথম দেখা, ধুতির ওপর ফতুয়া পরা অগোছালো চেহারার মানুষটিকে। কালো, ঝাঁকড়া চুল উজ্জ্বল চোখের মানুষটি। প্রথম দেখাতেই আষাঢ় নামে দু’চোখে। তিনি রামকিঙ্কর বেইজ। তত দিনে রবীন্দ্রনাথ মারা গিয়েছেন। মীরাদেবীর কাছে এসে রাধারানিকে তাঁর বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন রামকিঙ্কর। তারও মন টেনেছিল। একবার নয় বারবার। অবশেষে রাজি হন মীরাদেবী।
তবে সংসার সামলানোর পাশাপাশি, তাঁর শিল্পকর্মের সঙ্গেও জড়িয়ে গেলেন রাধারানি। রাধারানিকে নিয়ে নানা শৈল্পিক কাজ করেছেন রামকিঙ্কর। তাঁকে মডেল হিসেবে ব্যবহার করে অনেক ছবি এঁকেছেন, ভাস্কর্যের কাজও করেছেন। সেই সময়ে দু’জনের সম্পর্ক নিয়ে শান্তিনিকেতনে আপত্তিও উঠেছিল। এই খবর পৌঁছে গিয়েছিল রাধারানির বাপেরবাড়ি পর্যন্ত। তবু রামকিঙ্করের মৃত্যুদিন পর্যন্ত রাধারানি কিঙ্করের সঙ্গ ছাড়েননি। বিশ্বভারতীর কর্মকর্তারা আপত্তি জানালেন এই নিয়ে! কিন্তু রামকিঙ্কর অনড়। তাদের বিয়ে হয়নি। তবে কিঙ্কর তাঁকে স্ত্রীর মর্যাদা দিয়েছিলেন। দেশিকোত্তম পেয়েছেন রামকিঙ্কর। ছাত্ররা গিয়ে জানালেন, তাঁকে সংবর্ধনা দেবেন। উপাচার্যও থাকবেন সেই অনুষ্ঠানে। রামকিঙ্কর জানালেন, মঞ্চে উপাচার্য এবং তাঁর পাশে সম-মর্যাদায় রাধারানিকে আসন দিলে তবেই তিনি যাবেন। পরে সারা জীবনের সম্বলের কিছু দিয়ে ভুবনডাঙায় একটি খড়ের চালের বাড়ি রাধারানিদেবীর নামে কিনেছিলেন রামকিঙ্কর। সেটাই পরে দোতলা হয়। অনেক ভাস্কর্য সৃষ্টির সাক্ষী এই বাড়িটি এখনও রয়েছে। বাড়িটি রাধারানি তাঁর জীবিত কালে পালিত কন্যা অলকা অধিকারী ও জামাতা অবণী অধিকারীকে দানপত্র করে দিয়ে যান। 
রামকিঙ্করের জীবনের নানা উত্থান-পতনের সাক্ষী থেকেছেন রাধারানি। দিল্লিতে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সামনে আজও আছে ২১ ফুটের সেই যক্ষ-যক্ষীর মূর্তি। যার প্রেরণা ছিলেন রাধারানি। ১৯৫৪ সালে রামকিঙ্কর কুলু যাওয়ার পথে দেখলেন তাঁর পছন্দসই পাথর। ভাকড়া-নাঙাল ড্যামের বিশেষজ্ঞদের দিয়ে ব্লাস্ট করিয়ে পাওয়া গেল পাথরের টুকরো। ন্যারোগেজ লাইনের ট্রেনে সেই পাথর আনা ঝকমারি। বদলানো হল ওয়াগনের চেহারা। পাঠানকোটে এসে ব্রডগেজ ট্রেনে সেই পাথর আনা হল দিল্লিতে। ১৯৬৭-তে শেষ হল কাজ। রামকিঙ্কর চিঠিতে রাধারানিকে জানালেন, ‘যক্ষীটা তোমার আদলে। তোমার জন্য অনেকগুলি টাকা পেয়েছি। আমাদের বাড়ি ছেড়ে কখনও যাবে না।’ 
রামকিঙ্করের জীবনের বড় ভরসা হয়ে উঠেছিলেন রাধারানি। প্রতক্ষ্যদর্শীর বিবরণে পাওয়া যায়, চিকিৎসার জন্য শিল্পীকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি চলছে। সে সময়েও রামকিঙ্কর শিশুর মতো কাকুতি মিনতি করেছিলেন রাধারানির কাছে! মৃত্যুকালেও, সে কথা বলে চোখের জল ফেলতেন রাধারানি। ১৯৭৩-৭৪ সালে জন্মদিনে কলাভবন রামকিঙ্করকে অভিনন্দিত করার ব্যবস্থা করেন। রামকিঙ্কর সেদিন সেজেগুজে হাজির, সঙ্গে রাধারানিকে নিয়ে। কলাভবনে রাধারানিকে সসম্মানে আসন দেওয়া হয়েছিল। দিল্লিতে এক ছাত্রের বাড়িতে নিয়ে গিয়েছিলেন স্বামী স্ত্রী’র মতো। কোনও বন্ধু বা ছাত্র ছাত্রী এলে রাধারানিকে দেখিয়ে বলতেন, ‘ওর ফিগার দারুণ ছিল!’ রাধারানি ছিলেন সাধারণ ঘরের মেয়ে, তাঁর মধ্যে যে অসাধারণত্ব লুকিয়ে আছে নিজেই জানতেন না। জেনেছিলেন রামকিঙ্কর। সাধারণ ঘরের মেয়ে অসাধারণ শিল্পীর ছোঁয়াতে অমর হয়ে রইলেন শিল্পে, যক্ষ যক্ষীতে। 
যক্ষীর জন্য রামকিঙ্কর রাধারানির দেহকে অবলম্বন করেছিলেন। আর যক্ষের জন্য নিজের দেহকে। রামকিঙ্কর যক্ষ যক্ষীর আরাধ্য রূপ অন্বেষণ করেছেন। রোমন্থন করছিলেন।
রাধারানি রাতের পর রাত, সংস্কার সরিয়ে রেখে, নারীর স্বাভাবিক লজ্জা দূর করে, নিজের শারীরিক গঠনকে রামকিঙ্করের সামনে তুলে ধরলেন। ধ্যানমগ্ন রামকিঙ্কর বেইজ রাধারানির স্থূল দেহকে স্টাডি করেন। সে নির্মাণ আজ জগৎ বিখ্যাত হয়ে আছে। 
রামকিঙ্কর বেইজের মৃত্যুর পরে তাঁর শিল্পকর্ম বিক্রির অর্থের একটা অংশ পেয়েছিলেন রাধারানি। সে টাকায় তিনি শান্তিনিকেতনের বেশ কয়েকজনকে সাহায্য করেছিলেন। শেষ জীবনে পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। ১৯৭৮, ১৮ নভেম্বর রাধারানি ভুবনডাঙার বাড়িতেই শেষ  নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। শিল্পী রামকিঙ্কর আর রাধারানি প্রায়ই আসতেন অজয়ের কোলে বর্ধমানের ভেদিয়াতে। সেই স্মৃতি আজও আঁকড়ে আছে বর্ধমানের নাম। 
রাধামাধব মণ্ডল  
03rd  August, 2019
মায়া প্রকৃতির সঙ্গে বিয়ে হয় মহুল গাছের ছাদনাতলায় 

আজও আদিবাসীদের বিয়েতে গাছ ও জলের সঙ্গে বিয়ে হয় প্রথমে, পরে হয় মানুষে মানুষে বিয়ে। লৌকিক বিশ্বাসের রীতি আজও ধরে রেখেছে আদিবাসী সমাজ। তারা তাদের জীবনে আম ও মহুল গাছকে ঈশ্বর জ্ঞানে বিশ্বাস করে, পূজা করে।   বিশদ

07th  December, 2019
বিয়ের ধর্মাধর্ম! 

ধর্মেও আছি, জিরাফেও আছি। এই প্রবচন বিলকুল খেটে যায় বিয়ের ব্যাপারে। খানিক খোলসা করে বলা যাক। বংশবিস্তার বা রাজ্যবিস্তারের মোক্ষম রাজনৈতিক চাল হিসেবে বিয়ের কথা প্রচলিত।  বিশদ

07th  December, 2019
পুরাণে পরিণয় 

হিন্দু পুরাণ হল ঐতিহ্যবাহী কথামালার এক বৃহৎ রূপ। রামায়ণ, মহাভারত সহ অষ্টাদশ পুরাণে নানা কথামালা গভীর ও সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত হয়েছে। নানা রূপে এই সব আখ্যান পুরাণকথাকে সমৃদ্ধ করেছে। আজ আমরা দেখব পুরাণের পরিণয় কথা।  বিশদ

07th  December, 2019
ভলিবলে বিজয়িনী তারকেশ্বরের দুই কন্যা তিথি ও অনন্যা 

গ্রামবাংলার মেয়েরাও ক্রীড়াজগতে আজ পিছিয়ে নেই। বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক খেলার আসরে অংশগ্রহণ করে ক্রীড়াচাতুর্যে বিজয় ডঙ্কা বাজিয়ে বিজয়িনী হয়ে তারা সাফল্যের স্বাক্ষর রেখে চলেছে। এমনই দুই মহিলা ভলিবল খেলোয়াড়ের সাফল্যের ইতিবৃত্ত সংবাদের শিরোনামে উঠে এসেছে। 
বিশদ

30th  November, 2019
নারীদের সূর্যপূজা 

ভারতের মেয়েরা সামাজিক তথা দেশীয় নির্দেশানুসারে ধর্মীয় অধিকার ও সুযোগ-সুবিধা থেকে বহুকালই বঞ্চিত ছিলেন। তাই তাঁরা বিভিন্ন ব্রত পালনের মধ্য দিয়ে তাঁদের আশা-আকাঙ্ক্ষাকে পূরণ করার চেষ্টা করতেন।  
বিশদ

30th  November, 2019
কন্যাসন্তানকে রুখে দাঁড়াতে শেখান, মানিয়ে নিতে নয় 

ঘরে বাইরে নারীর এত উন্নতি তবু দিনে দিনে বাড়ছে নারী নির্যাতন। আ‌জকের উন্নত সমাজেও মেয়েরা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে। কিন্তু কেন? কীভাবেই বা নারীর নিরাপত্তা বাড়িয়ে তোলা সম্ভব? প্রশ্ন তুললেন কমলিনী চক্রবর্তী। 
বিশদ

30th  November, 2019
লাল রং জোরিকার মনে শক্তি জাগায় 

গোটা জীবনই লালের মধ্যে কেটেছে বসনিয়ার জোরিকা রেবার্নিকের। মৃত্যুর পরও তিনি ঠিক এভাবেই থাকতে চান। গত চার দশক ধরে মাথা থেকে পা পর্যন্ত লাল রঙা পোশাক পরছেন জোরিকা। তাঁর স্বামী জোরানের সঙ্গে বিয়েটাও হয়েছিল লাল রঙের গাউন পরেই।  বিশদ

23rd  November, 2019
চা-বাগানে প্রথম মহিলা ম্যানেজার 

উত্তরপূর্ব ভারতের অসমে চা বাগানের ২০০ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম কোনও একজন নারী ম্যানেজারের পদে নিযুক্ত হয়েছেন। ৬৩৩ হেক্টরেরও বেশি এলাকা জুড়ে থাকা বাগানের আনাচে-কানাচে মোটরবাইক বা সাইকেল অথবা জিপে চেপে ঘুরে দেখাশোনার কাজ করবেন ৪৩ বছর বয়সি মঞ্জু বড়ুয়া।  বিশদ

23rd  November, 2019
অল ইন ওয়ান মৈত্রেয়ী 

তারিখটা ছিল ৩ নভেম্বর, ১৯৭৯। বয়স তখন সবে মাত্র ১০ বছর ছাড়িয়েছে। কলকাতার রাশিয়ান কনস্যুলেট জেনারেলের অফিসের সাংস্কৃতিক বিভাগ থেকে তাকে চিঠি দিয়ে ডেকে পাঠানো হল গোর্কি সদনে।  বিশদ

23rd  November, 2019
অবসরের পর অবসাদ নয় 

শিক্ষা আর স্বনির্ভরতা—এই দুটি ডানায় ভর করে এখন মেয়েরা অনেক বেশি বাইরে কাজ করেন। সেই কাজ অত্যন্ত দায়িত্ব নিয়ে যোগ্যতার সঙ্গে তাঁরা পালন করেন। বহু বছর সেই কাজ দায়িত্ব নিয়ে পালন করার পর হঠাৎ সেই কর্মজগৎ থেকে সরে আসায় একটা মানসিক সমস্যায় অনেককেই ভুগতে দেখা যায়।  বিশদ

23rd  November, 2019
অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় রাকুল 

রাকুল প্রীত সিংয়ের কেরিয়ার শুরু মডেলিং দিয়ে। এখন তিনি দক্ষিণের এবং বলিউডের ব্যস্ততম নায়িকা। নিজের লাইফস্টাইেলর কথা জানালেন রাকুল। 
বিশদ

16th  November, 2019
অ্যাথলেটিক্সে নয়া নজির
দুই মায়ের বিশ্বরেকর্ড 

অ্যাথলেটিক্সের ইতিহাসে দাপট এখন মেয়েদের, বলা চলে দুই মায়ের। যারা অসম্ভবকে সম্ভব করলেন। সম্প্রতি দোহায় অনুষ্ঠিত বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে জামাইকার ‘স্প্রিন্ট কুইন’ শেলি অ্যান ফ্রেজার প্রাইস ১০০ মিটার দৌড়ে চার নম্বর সোনা জিতলেন দুর্দান্তভাবে।  বিশদ

16th  November, 2019
দুয়ের বেশি সন্তান মায়েদের
জন্য অশনিসংকেত 

দুয়ের বেশি সন্তান যে সব মায়েদের, তাঁদের জন্য আশঙ্কার খবর শুনিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। যাঁদের সন্তান সংখ্যা দুই বা তার বেশি তাঁরা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে রয়েছেন। সাম্প্রতিক এক গবেষণার শেষে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, নারীরা দুয়ের বেশি কয়টি সন্তানের জননী, তার ওপর নির্ভর করে তিনি কতটা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে রয়েছেন।   বিশদ

16th  November, 2019
পুরুষের তুলনায় ঘুমের
বেশি প্রয়োজন নারীদের 

নারী ও পুরুষের শারীরিক চাহিদা যে আলাদা সে কথা প্রায় সবারই জানা। যেমন পুরুষের তুলনায় নারীর ঠান্ডা লাগে বেশি। তেমনই ঘুম ব্যাপারটি পুরুষের তুলনায় নারীরই বেশি প্রয়োজন। সমীক্ষায় এমনই তথ্য সামনে এসেছে। সেখানে বলা হয়েছে নারীদের ঘুমের প্রয়োজন বেশি হওয়ার মূল কারণ দুটি। বিশদ

16th  November, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, শিলিগুড়ি: শিলিগুড়ির কাঞ্চনজঙ্ঘা ক্রীড়াঙ্গণে অস্থায়ীভাবে ক্রিকেট পিচ করা হল। শহরের ক্রিকেট খেলোয়াড়দের সুবিধার জন্যই অস্থায়ীভাবে এই পিচ করেছে শিলিগুড়ি মহকুমা ক্রীড়া পরিষদ। স্টেডিয়াম থেকে ক্রিকেট খেলা চাঁদমনির মাঠে স্থানান্তর করার পর অনেক অসুবিধায় পড়তে হয় শিলিগুড়ি ক্রিকেট খেলোয়াড়দের।   ...

বিএনএ, আসানসোল: ডিসেম্বরের শুরুতে জাঁকিয়ে শীত না পড়লেও দুর্গাপুর ব্যারেজ সহ চিত্তরঞ্জনের নানা ঝিল ও মাইথন জলাধারে পরিযায়ী পাখির দল ভিড় জমাতে শুরু করেছে। বেশ কয়েক বছর আগে পরিযায়ী পাখির আগমন উল্লেখযোগ্যভাবে কমে গেলেও ফের তাদের সংখ্যা বাড়ছে।   ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: রোগীকে অন্য হাসপাতালে স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া হতে দেরি হওয়ার অভিযোগে বুধবার বিকেলে ফুলেশ্বরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভাঙচুর চালাল রোগীর আত্মীয়রা। এই ঘটনাকে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

আত্মবিশ্বাস এত বৃদ্ধি পাবে যে, কোনও কাজই কঠিন মনে হবে না। সঞ্চয় বেশ ভালো হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯১১: রদ হল বঙ্গভঙ্গ
১৯১১: নতুন রাজ্য হল বিহার ও ওড়িশা
১৯১১: কলকাতা থেকে রাজধানী স্থানান্তরিত হল দিল্লিতে
১৯৫০: অভিনেতা রজনীকান্তের জন্ম
১৯৫৭: পূর্ব রেলে ইএমইউ ট্রেনযাত্রা চালু
২০০৫: পরিচালক রামানন্দ সাগরের মূত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.০৪ টাকা ৭১.৭৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.৪৭ টাকা ৯৪.৮০ টাকা
ইউরো ৭৭.১৫ টাকা ৮০.১৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৩১৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩,৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৩,৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, পূর্ণিমা ১১/১৯ দিবা ১০/৪২। রোহিণী ০/২৮ দিবা ৬/২২। সূ উ ৬/১০/৪৫, অ ৪/৪৯/১৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৫ মধ্যে পুনঃ ১/১৬ গতে ২/৪১ মধ্যে। রাত্রি ৫/৪২ গতে ৯/১৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৬ গতে ৩/৩০ মধ্যে পুনঃ ৪/২৪ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/১০ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/২৯ গতে ১/৯ মধ্যে।
২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, পূর্ণিমা ১১/৫৬/৫১ দিবা ১০/৫৯/৫। রোহিণী ২/৩৮/১৪ দিবা ৭/১৫/৩৯, সূ উ ৬/১২/২১, অ ৪/৪৯/৪১, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৭ মধ্যে ও ১/২৩ গতে ২/৪৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৮ গতে ৯/২৩ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ৩/৩৯ মধ্যে ও ৪/৩৩ গতে ৬/১৩ মধ্যে, কালবেলা ২/১০/২১ গতে ৩/৩০/১ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৩১/১ গতে ১/১১/২১ মধ্যে।
১৪ রবিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
তৃতীয় টি-২০: ৬৭ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে সিরিজ জয় ভারতের 

11-12-2019 - 10:43:00 PM

তৃতীয় টি-২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৪১/৬ (১৫ ওভার) 

11-12-2019 - 10:23:54 PM

তৃতীয় টি-২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯৭/৪ (১০ ওভার)

11-12-2019 - 09:54:00 PM

 তৃতীয় টি-২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪১/৩ (৬ ওভার)

11-12-2019 - 09:34:43 PM

 রাজ্যসভায় পাস হয়ে গেল নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল
রাজ্যসভায় সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয়ে গেল নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। আজ ...বিশদ

11-12-2019 - 09:24:00 PM

তৃতীয় টি-২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২৪১ রানের টার্গেট দিল ভারত 

11-12-2019 - 08:50:10 PM