Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

পুরাণের ধূসর পাতায় ঘুমিয়ে
থাকা এক অনামা নারী সুকন্যা

আমরা রামায়ণ, মহাভারত সহ নানা পুরাণ কথায় নারীর বীরত্বের পাশাপাশি ভয়ঙ্কর অবমাননা, কুৎসিত অপমান ও নিদারুণ অসম্মান লক্ষ করেছি। কোনও সময় দেখেছি দাঁতে দাঁত চেপে নারীর লড়াই। ক্রোধ, সন্দেহ, অশ্রু, আবেগ নিজের বুকে লুকিয়ে মাথা নিচু করে মেনে ও মানিয়ে নেওয়ার ইতিহাস পাতার পর পাতা জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে। আজকের কাহিনী নারীর অমর্যাদার, আত্মসমর্পণের তো বটেই সঙ্গে নারীর নীতির প্রশ্নে অবিচল থাকার নিদর্শনেরও বটে।
রাজা শর্যাতির অপরূপ সুন্দরী কন্যা সুকন্যা। নামের সঙ্গে মিল রেখে সত্যিই সুকন্যা সে। অত্যন্ত বুদ্ধিমতী এবং পরমাসুন্দরী। আদরের কন্যা বাবার সঙ্গে বেড়াতে এসেছে এক মনোরম স্থানে। সরোবর, বন, বনানী দেখে সুকন্যার মনে তো আনন্দ ধরে না। ঘুরে বেড়াচ্ছে সে এদিক সেদিক। নানা সুন্দর ফুল গাছের সমাহার দেখে তার প্রশ্নের শেষ নেই। সখীরা তার প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতে ঘুরে বেড়াতে লাগল এদিক-সেদিক। এদিকে ওই বনেই ভৃগুর পুত্র মহর্ষি চ্যবন সরোবরের ধারে একই জায়গায় বসে বহুকাল ধরে তপস্যারত ছিলেন। ক্রমে তাঁর শরীর ধুলোয় ঢেকে তাঁর উপরে গাছপালার জন্ম হল, পিঁপড়ের বাসা হল তবু তাঁর তপস্যার শেষ নেই। ধীরে ধীরে এমন অবস্থা হল যে তাঁকে দেখলে মনে হতো যেন ছোটখাট একটা উইয়ের ঢিপি। তবে লোকজন অত্যন্ত ভক্তি করত এই বলে যে উইঢিপির ভেতর মহামুনি চ্যবন তপস্যা করছেন। এইভাবে সুদীর্ঘকাল অতিবাহিত হওয়ার পর একদিন সুকন্যার আগমন ঘটে সেই স্থানে। রাজকন্যা প্রফুল্ল মনে গাইছেন, হাত বাড়িয়ে ফুল তুলছেন, অকারণ হাসিতে গড়িয়ে পড়ছেন; বেড়াতে বেড়াতে অজান্তেই সেই উইয়ের ঢিপির সামনে এসে উপস্থিত হয়েছেন। এমন সময় সদ্য মুনির ধ্যান শেষ হয়েছে তিনি চোখ মেলে দেখেন এক অপরূপা রূপবতী কন্যা তাঁর সামনে দাঁড়িয়ে। চ্যবন মুনির খুব ইচ্ছে হল যে তিনি ওই অসামান্যা রূপসীর সঙ্গে দুটো কথা বলবেন। যেমন ভাবা তেমন কাজ। তিনি ডাকলেন তবে অত্যন্ত ক্ষীণ কণ্ঠে। বহুকালের অনভ্যস্ততায় ও অনাহারে তাঁর গলা দিয়ে সামান্য আওয়াজ হল। কিন্তু বিধাতার এমনই পরিহাস যে সুকন্যা নিজ আনন্দে নিমগ্ন থাকায় সে ডাক শুনতে পায় না। বরং মাটির নীচে উইয়ের ঢিপির উপর জ্বলজ্বলে দুচোখ দেখে কৌতূহলবশে কাঁটা দিয়ে সেটা খুঁচিয়ে দেয়। এতে অত্যন্ত রেগে যান মুনি। তাঁর অভিশাপে শর্যাতি রাজার সৈন্যদের প্রাত্যহিক ক্রিয়াকর্ম বন্ধ হয়ে যায়। রাজা অত্যন্ত বিচলিত হন এবং খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারেন যে তাঁর কন্যার জন্যই এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। তৎক্ষণাৎ শর্যাতি চ্যবন মুনির কাছে এসে নিঃশর্ত ক্ষমা চান এবং বলেন তার কন্যা বয়েসে ছোট, অজ্ঞানতা বশে অজান্তেই এই কাজ করে ফেলেছে। কিন্তু লাভ হয় না। মুনির ক্রোধ প্রশমিত হয় না এতটুকুও। তিনি বলেন অহঙ্কার বসে তাঁকে হীন জ্ঞান করেই রাজদুহিতা এই কাজ করেছে। অনেক কথোপকথনের পর মুনি জানান যে রাজা যদি তার কন্যাকে মুনিকে দান করেন তবেই তিনি ক্ষমা করবেন।
সুন্দরী রাজকন্যা বা নারী বা রানিকে দেখে মুনি ঋষিরা বিচলিত হতেন এমন উল্লেখ আমরা পুরাণে বহুবার পেয়েছি। অনেক সময় রাজারাজড়ারাও মুনি ঋষিদের শরণাপন্ন হতেন বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে এঁদের দিয়ে নিজ নিজ স্ত্রীদের গর্ভে সন্তান উৎপাদনের জন্য। এক্ষেত্রেও অবশেষে চ্যবন মুনির ইচ্ছেকে মান্যতা দিয়ে সুকন্যার মতামতের অপেক্ষা না করেই রাজা শর্যাতি নিজ কন্যাকে ওই জরাগ্রস্ত বয়স্ক মুনির কাছে কোনও দ্বিধা ছাড়াই সমর্পণ করেন। কী আশ্চর্যের তাই না? পূর্বাপর কোনও বিচার বিবেচনা নেই। কারও সঙ্গে শলাপরামর্শ নেই, কন্যার ইচ্ছে-অনিচ্ছের প্রশ্ন নেই, একতরফা সিদ্ধান্ত গ্রহণ। একজন নারীর মান, সম্মান, আত্মমর্যাদা সবই মূল্যহীন সেখানে। এই সমস্ত ক্ষেত্রে আমরা বারবার দেখেছি এইরকম কঠিন পরিস্থিতিতে নারী কিন্তু সবসময়ই আত্মবলিদান দিতে প্রস্তুত। কখনও স্বামীর জন্য, কখনও পিতার জন্য। পুরুষে পুরুষে যুদ্ধ, কার্যোদ্ধারে, মধ্যস্থতায় ফন্দিফিকিরে ঘুঁটি সেই নারী। এমন সহজলভ্যা সমাজে সংসারে আর কে আছে।
বিয়ে তো হয়ে গেল মুনির ইচ্ছানুযায়ী সুকন্যার। আঘাত সব নারীর জন্য। লোভনীয় নারীর সেবা পেয়ে চ্যবন যার পর নাই খুশি। নিশ্চুপ সুকন্যা সর্বশক্তিমান পুরুষের আধিপত্যে ঠিক ভুলের ক্ষুদ্রতা মুছে নিজের অন্তর্নিহিত শক্তিকে পাথেয় করে জীবনের পথে চলার সাহস দেখায়।
কিছুদিন পর একদিন সুকন্যা সরোবরের জলে আপন মনে অবগাহন করছেন। তার রূপের বিভায় উদ্ভাসিত চারপাশ। সেই সময়ই অশ্বিনীকুমারেরা তাঁকে দেখে ফেলেন। এবং তার রূপে মোহিত হয়ে যান। আশ্চর্য হয়ে জানতে চান এমন সুন্দরী রমণী কেন ওই জরাজর্জরিত অক্ষম বৃদ্ধের কাছে পড়ে রয়েছেন? ওই বৃদ্ধের সংস্রব ত্যাগ করে তাদের মধ্যে কোনও একজনকে বরণ করুন রাজকন্যা। উত্তরে দুঃখ সাগরে ডুবে থাকা অবিচলিত অলোকসামান্যা নারী দৃঢ় কণ্ঠে জানায় যে তিনি তাঁর স্বামীর প্রতি অনুরক্ত। পৃথিবীর সবকিছু ত্যাগ করে তিনি স্বামীকে আঁকড়েই বেঁচে আছেন। এবং এভাবেই বাঁচতে চান। কিছুটা আশাহত হলেও চেষ্টার কসুর নেই দেবচিকিৎসক যুগলের। তাঁরা আবার বলেন যে চাইলে তাঁদের সুচিকিৎসার দ্বারা মুনি তার রূপ যৌবন ফিরে পেতে পারেন। শর্ত একটাই তখন এই তিন জনের মধ্যে থেকে একজনকে সুকন্যাকে বরণ করতে হবে। আবার চুক্তি। আবার শর্ত। প্রাপ্য বুঝে নেওয়ার খেলা। নিষ্ঠুর স্বার্থপর মনোহরণ, বহুগামী পুরুষের বীরত্বের দম্ভ। কিন্তু নারী যুগযুগান্তের অবহেলা আর অপমানের পরেও নিঃশর্তে ভালোবাসতে পারে। চ্যবন জানতে পেরে এই প্রস্তাবে সম্মত হন। অশ্বিনীকুমারদ্বয় এবং চ্যবন এই তিনজনে জলে প্রবেশ করলে মুহূর্তকাল পরে তিন জনেরই দিব্য রূপ ও একই বেশ ধারণ করে জল থেকে উঠলেন। এবার সুকন্যার সমানরূপও বেশধারী তিন জনের মধ্যে একজনকে বরণ করে নেওয়ার পালা।
পুরুষের ইচ্ছের দাস কোণঠাসা নারী আবার কঠিন পরীক্ষার সামনে। সমস্ত দুঃখ, দহন আর্তি বিশ্বাস, ভালোবাসা, সম্পর্ককে দু’হাতে আঁকড়ে প্রস্তুত সুকন্যা। সুবেশা, সুপুরুষ তিনজনের মধ্যে অব্যর্থভাবে চ্যবনকেই বেছে নেন তিনি অবলীলায়।
বিষয়টা গল্প শুনতে যতটা সহজ মনে হয় ঠিক ততটা সহজ নয় একেবারেই। একজন নারী উপেক্ষায়, অপেক্ষায়, অবহেলায়, নিরূপায় বশ্যতা স্বীকার করে নেয় স্বপ্ন, আশা আর অধিকার বুঝে ওঠার আগেই। পুরাকাল থেকে কবির রচনায় উঠে এসেছে অনামা এমন বহু নারী চরিত্র। পুরাণের বিবর্ণ পাতায় পাতায় তাঁরা ঘুমিয়ে থাকে, না জাগার শপথ নিয়ে। বহু যুগের ওপার থেকে শূন্যতার অন্তঃপুরে বোবা কান্নায় গুমরে মরে সুকন্যারা আজও।
তনুশ্রী কাঞ্জিলাল মাশ্চরক
27th  July, 2019
স্ত্রীর উন্নতিতে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন স্বামী 

স্ত্রীর আয় বেশি বলে স্বামীকে হীনম্মন্যতা ও নিরাপত্তার অভাবে ভুগতে দেখার দৃশ্য বলিউডের অনেক ছবিতেই রয়েছে। ‘অভিমান’ থেকে শুরু করে ‘ম্যায়, মেরি পত্নী ওউর ওহ’র মতো ছবিতে এমন ঘটনা দেখা যায়। যুক্তরাজ্যের বাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের গবেষণাতেও এ তথ্য উঠে এসেছে। গবেষণায় ছয় হাজার দম্পতির তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়।  
বিশদ

11th  January, 2020
গ্র্যামির মনোনয়নে নারীরাই জয়ী 

কিছুদিন আগে অবধিও সঙ্গীত বিশ্বে ছিল পুরুষের জয়-জয়কার। দু’বছর আগে তাই গ্র্যামির মঞ্চে বলা হয়েছিল, ‘নারীরা জেগে ওঠো, চিৎকার করে অস্তিত্বের জানান দাও।’ ২০২০ সালের গ্র্যামি মনোনয়নে দেখা গেল, নারীরা জেগে উঠেছে, চিৎকার করেছে। সেই চিৎকারে বর্ণময় হয়ে উঠেছে চারপাশ। 
বিশদ

11th  January, 2020
আশালতা চতুষ্পাঠীতে মেয়েরা সংস্কৃত পড়ছেন 

উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার হাসনাবাদ রেল স্টেশনের পাশে অধ্যক্ষ অনিলকুমার দাশের ‘আশালতা চতুষ্পাঠী’তে মুসলিম, আদিবাসী, হিন্দু, তফসিলি ও খ্রিস্টান মহিলারা খুব আগ্রহ সহকারে সংস্কৃত ভাষা শিক্ষা করছেন। 
বিশদ

11th  January, 2020
শেষ পৌষের বাউলমেলায় 

মাধবের মন্দিরে একসময় আশালতা দাসী, কর্তাল ঠুকে গাইতেন, ‘ওপারে বন্ধু আমার/এপারেতে স্বজন/ মনের ভিতর তুই আমার অতি আপনজন’! সেই ইতিহাসের অজয় নদ! তার তীরে বীরভূমের ইলামবাজারের অদূরে, প্রাচীন কেন্দুলী গ্রাম। এ অঞ্চলের অন্ত‌্যজ শ্রেণীর মেয়েরাও গাইত মাটির গান। 
বিশদ

11th  January, 2020
নবনীতার আলো 

নবনীতা দেবসেনের গল্প, ভ্রমণ বা কবিতায় মন ডুবিয়ে বাস্তবের থেকে বহু বহু দূরে পাড়ি জমান পাঠকরা। তাঁর জন্মদিনের প্রাক্কালে তাঁর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধার্ঘ্য
বিশদ

11th  January, 2020
নারী পাইলটকে স্বাগত জানাল ভারতীয় নৌবাহিনী 

প্রথমবারের মতো কোনও নারী পাইলটকে স্বাগত জানাল আমাদের দেশের নৌবাহিনী। সাব-লেফটেন্যান্ট শিবাঙ্গী নামের ওই নারী যখন একটি বিমানের নিয়ন্ত্রণ হাতে নেন, তখন তা আমাদের দেশের সশস্ত্র বাহিনীর জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক বলেই ধরে নেওয়া হয়েছে। 
বিশদ

04th  January, 2020
নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত মেয়েরা অবহেলার শিকার

নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ছেলে ও মেয়ের চিকিৎসায় হাসপাতালে কোনও পার্থক্য হয় না। তবু তীব্র নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত মেয়ের মৃত্যু বেশি হয়। অন্যদিকে ছেলেশিশু ভর্তি হয় বেশি। গবেষকরা বলছেন, হাসপাতালে ভর্তি করাতে পরিবার ছেলেদের অগ্রাধিকার দিয়ে থাকতে পারে।  
বিশদ

04th  January, 2020
সর্বকালের সেরা আফ্রিকান কৃষ্ণাঙ্গ কোটিপতি নারী 

যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন জগতের খুব পরিচিত মুখ ওপরাহ্‌ উইনফ্রে। মিসিসিপির নিভৃত পল্লিতে ১৯৫৪ সালের ২৯ জানুয়ারি অবিবাহিত এক মায়ের ঘরে জন্ম তাঁর। কেরিয়ারের শুরুতে টেলিভিশন উপস্থাপিকা হিসেবে আগমন তাঁর। আর তাতেই বাজিমাত করেন। ১৯৮০-র দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে তিনি বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।  
বিশদ

04th  January, 2020
আপসহীন শর্বরী 

বেশ কয়েক বছর আগের ঘটনা, কলকাতা হাইকোর্টে তখনকার প্রধান বিচারপতি জে.এন. প্যাটেল স্বয়ং কথা বলতে চাইলেন সি.আই.ডি-র ইনস্পেক্টর শর্বরী ভট্টাচার্যের সঙ্গে। প্রধান বিচারপতির ডাক পেয়ে শশব্যস্ত হয়ে ছুটলেন শর্বরী। আর্দালি প্রথমে তাঁকে চেম্বারে ঢুকতে দিতে চাননি কিন্তু হাইকোর্টেরই এক আইনজীবীর নজরে পড়ে যান তিনি। 
বিশদ

04th  January, 2020
নারী মনের নানা দিক 

নারী মনের ওপর বয়সের প্রভাব পড়ে বিভিন্ন সময়। একদম অল্প বয়সে যখন সে বালিকা তখন তার মন থাকে চঞ্চল, উচ্ছল। এরপর কৈশোর আসে। মেয়েদের শরীরে তখন বদল ঘটে। হরমোনের প্রভাব পড়ে শরীর ও মনে। এরপর যৌবন। তখন মনের আবেগ ও শরীরের তেজ সবচেয়ে বেশি থাকে। তারপর ক্রমশ বার্ধক্য গ্রাস করে নারী মনকে।  
বিশদ

04th  January, 2020
লিঙ্গবৈষম্য ও সংস্কার 

ঘটনা এক: সান্ধ্যকালীন এক অনুষ্ঠান বাড়িতে উপস্থিত হয়েছে লোপা। মাঝ বয়েস ছুঁই ছুঁই লোপা এক কন্যাসন্তানের জননী। হাসি, মজা, কথাবার্তায় মহিলা মহলে উপস্থিত বেশ কয়েকজন নীল ষষ্ঠীর ব্রত উপবাসের কথা বলছিলেন। পুত্রসন্তানের জননী বলে কোথাও যেন কৌলীণ্য বেশি তাদের। 
বিশদ

28th  December, 2019
নিজের জ্ঞান সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে চান সুপর্ণা 

চীনে এবার মিসেস ইউনিভার্স ২০১৯ অনুষ্ঠিত হবে। গ্র্যান্ড ফাইনাল হবে ৩০ ডিসেম্বর। তার আগেই কলকাতার থেকে প্রতিযোগী হিসেবে অংশগ্রহণ করছেন সুপর্ণা মুখোপাধ্যায়। তিনি এই বিষয়ে বর্তমান পত্রিকাকে নানা কথা জানালেন। 
বিশদ

28th  December, 2019
নারীর সম্মান রক্ষায় কল্পতরু শ্রীরামকৃষ্ণ 

আজকের দিনে নবজাগরণের অন্যতম অঙ্গ হল নারীর ন্যায্য অধিকার সচেতনতার আন্দোলন। সমাজের সকল স্তরে নারীর অবমাননা আজকের দিনে এমন এক চরম অবস্থায় পৌঁছেছে যে তার আমূল সংস্কার একান্তভাবে প্রয়োজন। আমাদের আর্য সভ্যতার উষালগ্নে বৈদিক যুগ ছিল নারীর স্বর্ণযুগ, সেই যুগে নারী ছিল উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক। 
বিশদ

28th  December, 2019
 কলকাতার বড়দিন ও শতাব্দীপ্রাচীন গির্জা

 কলকাতার বড়দিনে যে সব শতাব্দীপ্রাচীন চার্চ গির্জায় মানুষের ঢল নামে সেই সম্পর্কে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। দক্ষিণ কলকাতার খিদিরপুরে যে সব শতাব্দীপ্রাচীন চার্চ গির্জা যুগ যুগ ধরে হিন্দু মুসলমানের মসজিদের পাশাপাশি অবস্থান করে সম্প্রীতির সাক্ষ্য বহন করে চলেছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল সেন্ট স্টিফেন্স চার্চ।
বিশদ

21st  December, 2019
একনজরে
ইসলামাবাদ, ১৬ জানুয়ারি (পিটিআই): নিম্ন আদালতের মৃত্যুদণ্ডের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে গেলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশারফ। পাক সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, মোশারফের হয়ে ৯০ পাতার পিটিশন দাখিল করেছেন তাঁর আইনজীবী। ...

সংবাদদাতা, গঙ্গারামপুর: যে রাধে সে যেমন চুলও বাঁধে, তেমনি যিনি চোর-ডাকাত-অপরাধীর পিছনে ছুটে বেড়ান, তিনি আবার সাহিত্যচর্চাও করেন। হরিরামপুর থানায় কর্তব্যরত পুলিস কর্মী তাপস মণ্ডল ডিউটির চাপ সামলেও সামান্য যেটুকু অবসর পেয়েছেন, তাতেই একটি বই লিখে ফেলেছেন।   ...

দিব্যেন্দু বিশ্বাস, নয়াদিল্লি, ১৬ জানুয়ারি: শুধুমাত্র নামের আদ্যক্ষর ব্যবহার করে টিকিট বুকিং করা যাবে না। দিতে হবে পুরো নাম এবং পদবি। দালালরাজ আটকাতে এবার টিকিট ...

জীবানন্দ বসু, কলকাতা: গত কয়েক মাস ধরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তথা রাজ্য সরকারের সঙ্গে অহি-নকুল সম্পর্ক তৈরি হয়েছে রাজ্যপালের। সম্প্রতি শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় তাঁর সঙ্গে দেখা করায় সমঝোতার আবহ তৈরি হলেও পরবর্তীকালে নানা ইস্যুতে ফের সংঘাতের বাতাবরণ ফিরে এসেছে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

গুরুজনের চিকিৎসায় বহু ব্যয়। ক্রোধ দমন করা উচিত। নানাভাবে অর্থ আগমনের সুযোগ। সহকর্মীদের সঙ্গে ঝগড়ায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪১: মহান বিপ্লবী সুভাষচন্দ্র বসুর মহানিষ্ক্রমণ
১৯৪২: মার্কিন মুষ্টিযোদ্ধা মহম্মদ আলির জন্ম
১৯৪৫: গীতিকার ও চিত্রনাট্যকার জাভেদ আখতারের জন্ম
২০১০: কমিউনিস্ট নেতা তথা পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর মৃত্যু 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯. ২০ টাকা ৭২.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৯০.১৯ টাকা ৯৪.৫৮ টাকা
ইউরো ৭৭.১০ টাকা ৮০.৮৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০, ৩৯৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮, ৩২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৮, ৯০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬, ৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬, ৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২ মাঘ ১৪২৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী ২/৪০ দিবা ৭/২৮। চিত্রা ৪৭/৪ রাত্রি ১/১৩। সূ উ ৬/২৩/৭, অ ৫/৯/৫১, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৩২ গতে ১০/৪১ মধ্যে পুনঃ ১২/৫০ গতে ২/১৭ মধ্যে পুনঃ ৩/৪৪ গতে অস্তাবধি। বারবেলা ৯/৪ গতে ১১/৪৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/২৮ গতে ১০/৭ মধ্যে। 
২ মাঘ ১৪২৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী ১২/৪/১৯ দিবা ১১/১৫/২৬। হস্তা ০/৩/৫ প্রাতঃ ৬/২৬/৫৬ পরে চিত্রা নক্ষত্র দং ৫৬/৯/৪১ শেষরাত্রি ৪/৫৩/৩৪। সূ উ ৬/২৫/৪২, অ ৫/৮/৫৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৮ মধ্যে ও ৮/৩২ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ১২/৫৫ গতে ২/২৩ মধ্যে ও ৩/৫১ গতে ৫/৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩ গতে ৮/৪৭ মধ্যে ও ৩/৪৪ গতে ৪/৩৬ মধ্যে। কালবেলা ১০/২৬/৫৫ গতে ১১/৪৭/১৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/২৮/৮ গতে ১০/৭/৪৩ মধ্যে । 
মোসলেম: ২১ জমাদিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ভারত ৩৬ রানে জিতল 

09:55:34 PM

অস্ট্রেলিয়া ২৩৫/৫ (৪০ ওভার), টার্গেট ৩৪১ 

08:50:02 PM

অস্ট্রেলিয়া ১৫১/২ (২৬ ওভার), টার্গেট ৩৪১

07:46:57 PM

অস্ট্রেলিয়াকে ৩৪১ রানের টার্গেট দিল ভারত 

05:12:00 PM

নির্ভয়া কাণ্ড: দোষীদের ফাঁসি ১ ফেব্রুয়ারি 
নির্ভয়া কাণ্ডে চারজন দোষীদের ফাঁসি ২২ জানুয়ারির বদলে হবে ১ ...বিশদ

05:08:00 PM

ভারত ২৪৯/৩ (৪০ ওভার) 

04:25:39 PM