Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

প্রাচ্য পুরাণে নারীর বেঁচে থাকার দুঃখ-ইতিহাস 

মহাভারতের বনপর্বে সত্যভামা দ্রৌপদীকে প্রশ্ন করেছিলেন, পাঁচ স্বামীকে তিনি কীভাবে সন্তুষ্ট রাখতে সক্ষম হয়েছেন? উত্তরে দ্রৌপদী পতিব্রতা নারীর ওপর এক সুদীর্ঘ বক্তৃতা দেন। যাঁর মূল কথা ছিল— নারী যদি সম্পূর্ণভাবে আত্মবঞ্চনা করে এবং নিজেকে স্বামীর ইচ্ছা পোষণের যন্ত্রমাত্রে পরিণত করে তবেই সে যথার্থ পতিব্রতা হতে পারে এবং স্বামীকে সন্তুষ্ট রাখতে সক্ষম হয়।
সীতা যখন স্বামীর সঙ্গে বনবাসে যায় শাশুড়ি কৌশল্যা তাঁকে পরামর্শ দেন এই বলে— যে সব স্ত্রী স্বামীর কাছে ভালো ব্যবহার পেয়েও দুর্দশাগ্রস্ত স্বামীকে অবহেলা করে প্রাপ্য মর্যাদা দেয় না, লোকে তাকে অসতী বলে। জানকী, আমার বনবাসী ছেলে নির্ধন বা ধনী যাই হোক না কেন তুমি তাঁকে দেবতুল্য জ্ঞানে অনুসরণ করো।
গান্ধারী অন্ধ স্বামীর প্রতি সহমর্মিতা প্রদর্শনে সবসময় নিজের সুস্থ সুন্দর চোখ দুটো বেঁধে রাখতেন কাপড় দিয়ে। স্বামীর প্রতি অন্ধ সহানুভূতি ও আনুগত্যে সম্পূর্ণভাবে আত্মবিলোপ করে নিজের দৃষ্টিশক্তি স্বেচ্ছায় বিসর্জন দিয়েছিলেন। একশতটি সাবালক পুত্র, একটি কন্যাসন্তানের মা হওয়া সত্ত্বেও তাদের কাউকে কখনও দেখেননি তিনি। কেবল দুর্যোধনের শেষ দিনে একবার তাঁকে দেখা ছাড়া।
গালব তাঁর গুরুদক্ষিণা জোগাড় করতে হবু স্ত্রী মাধবীকে একে একে গুটিকয় রাজার কাছে বন্ধক দিয়েছিলেন, মাধবীর মতামতের অপেক্ষা না করেই। তারও আগে রাজা যযাতি নির্দ্বিধায় কন্যা মাধবীকে ঘোড়ার পরিবর্তে গালবকে দান করেছিলেন। নিজ কন্যাকে ভোগ্যপণ্য হিসেবে তুলে দিতে দানবীর রাজার এতটুকু দ্বিধা বা সংশয় হয়নি। একটুকরো সম্পত্তির মতো করে মাধবীকে কেন্দ্র করে এই ঘৃণ্য লেনদেনে মাধবী নিজের অসম্মান, অপমান বিনা বাক্য ব্যয়ে মেনে নিয়েছিলেন।
নিষ্ঠুর, স্বার্থপর মনোহরণকারী পুরুষকে ভালোবেসে নারী এযাবৎকাল মেনে নিয়েছে যাবতীয় পীড়ন নিজের আত্মমর্যাদাকে ধুলোয় মিশিয়ে। নারীত্বের চরম আত্মত্যাগ ও অবমাননা পুরাণের পাতায় পাতায় ছড়িয়ে রয়েছে। যেখানে নারীর ইচ্ছা-অনিচ্ছা, সম্মতি-অসম্মতি বিবেচ্য ছিল না মোটেও।
সদ্য যুদ্ধে নিহত স্বামীর মরদেহ ফেলে রেখে মন্দোদরী ও তারাকে বিয়ে করতে হয়েছিল তাদের নিজ নিজ দেওরকে। রাবণকে যুদ্ধে পরাজিত ও নিহত করার পর রাম পুরস্কার হিসেবে বিভীষণের হাতে তুলে দেন রাবণের প্রধানা মহিষীকে। রাবণের বিশ্বাসঘাতক ভাই ও মন্দোদরীর ষড়যন্ত্রকারী দেওরকে ওইরকম মানসিক বিপর্যয়ের সময়ে নিরুপায় মন্দোদরীকে মেনে নিতে হয়েছিল। স্ব-ইচ্ছায়, সাদরে যে তিনি এই ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি এ তো সহজেই অনুমান করা যায়। কেন না মন্দোদরী যিনি যুদ্ধে রাবণের সঙ্গে অস্ত্র ধরেছিলেন রামের প্রতিপক্ষ হিসেবে। লঙ্কার নবনিযুক্ত রাজা বিভীষণের একাধিক পত্নীর সঙ্গে সে সময়ে যুক্ত হয়েছিল আরও একটি নাম মন্দোদরী। বানর রাজা বালীর স্ত্রী তারাকেও সুগ্রীবের হাতে তুলে দেওয়া হয়। তারা হলেন কিস্কিন্ধ্যার রানি, বানররাজ বালীর সহধর্মিণী ও সুগ্রীবের ভ্রাতৃবধূ। রামকে যুদ্ধে সহায়তা করার জন্য উপহার হিসেবে পূর্বপ্রতিশ্রুতি মতো বানর রাজা সুগ্রীব এই উপহার লাভ করেছিলেন।
তারার মন্দলাগা, স্বামী হারানোর শোক-দুঃখের কোনও মূল্যই ছিল না কারওর কাছে। পুত্র অঙ্গদের প্রাণাশঙ্কা আর সমাজের শাসনে তারা বাধ্য হল। তবে ভক্তি, আনুগত্যর প্রকাশে লক্ষ্মণের স্ত্রী ঊর্মিলার কথাও ভুললে চলবে না। বিবাহিত লক্ষ্মণ যুবতী ঊর্মিলার শত অনুরোধে তাকে সঙ্গে নিয়ে বনবাসে তো যাননি। অথবা তার কাছে প্রাসাদেও থেকে যাননি। অল্পবয়সি স্ত্রীর নিরাপত্তা, আর ইচ্ছা-অনিচ্ছা, শারীরিক ও মানসিক চাহিদা সব কিছুকে তুচ্ছ করে চোদ্দো বছরের জন্য দিব্য বনবাসে চলে যায় ভ্রাতৃপ্রেমের পরাকাষ্ঠা দেখিয়ে। অথচ পত্নী প্রেম সেখানে অপাংক্তেয়ই রয়ে যায়। লক্ষ্মণের অবহেলিত স্ত্রী ঊমিলা সাধ্বী স্ত্রীর উদাহরণ হিসেবে জ্বলন্ত প্রদীপে ক্রমাগত তেল ঢেলে ঢেলে তাকে প্রজ্জ্বলিত রেখে সেই প্রদীপের দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে পতি প্রেমের বিরহে শোকাকুলা হয়ে চোদ্দো বছর কাটিয়ে দেন।
স্বামীর প্রত্যাখ্যানকে নিশ্চুপে মেনে নিয়ে আত্মবঞ্চনা আর উপেক্ষিতার চূড়ান্ত নিদর্শন হয়ে ঊর্মিলার নাম ইতিহাসে রয়ে গিয়েছে। তবে মেনে নিলেও গর্ভবতী সীতাকে যখন লক্ষ্মণ বনবাসে রেখে আসছিল তখন সীতার খেদোক্তি— শুধু দুঃখ ভোগ করার জন্যই এই দেহটার সৃষ্টি হয়েছিল।
নারী-পুরুষের যাপিত জীবনে পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় চিরদিনই ঘর আর বাইরে বিভক্ত হয়ে আছে। সব মেয়ের জন্য একটা সময় পর্যন্ত নির্দিষ্ট ছিল স্বামীসেবা, তাকে সঙ্গদান, তার পরিবার-পরিজনদের আনন্দ দেওয়া। মেয়েদের শিক্ষা অবশ্যই ছিল স্বামীসেবার শিক্ষা, আত্মপ্রবঞ্চনার শিক্ষা, গৃহস্থালির শিক্ষা, মেনে নেওয়ার শিক্ষা, মানিয়ে নেওয়ার শিক্ষা।
আচ্ছা কেমন হতো যদি সীতা কৌশল্যাকে মুখ ফুটে বলে ফেলত মনের কথাটা। অথবা দ্রৌপদী যদি পাঁচ স্বামীর মনরক্ষা না করে চলত? ঊর্মিলা যদি নিজের মর্জিমাফিক সিদ্ধান্ত নিত লক্ষ্মণের মতামতের তোয়াক্কা না করেই। আর গান্ধারী যদি তাঁর চাঁদের আলোর মতো স্নিগ্ধ মায়াবী প্রশান্ত চোখ দুটোকে না বেঁধে স্বপ্নিল এই পৃথিবীর রূপ-রং চুটিয়ে উপভোগ করতেন, কেমন হতো তাহলে? নাহ্‌, ঩নিছক কল্পনাটুকুই সার।
সীতা, মন্দোদরী, মাধবী, দ্রৌপদী বা তারাকে তো সেই অপমান আর অধর্মকে সহ্য করে যেতেই হয়েছিল। বিজয়া রাজা বিজিত রাজার থেকে উপঢৌকন হিসেবে নারীকে লাভ করবে, নারী ইচ্ছেমতো ব্যবহৃত হবে অথবা উপেক্ষার আগুনে ঝলসে যাবে এটাই তো নীতি। এই তো ধর্ম। এটাই দস্তুর, জীবনের নানা কঠিন পরিবেশ পরিস্থিতিতে যুগ যুগ ধরে চলে আসা রীতি ও সংস্কারই মেয়েদের বাধ্য করেছে অপমানের দগদগে ক্ষত নিয়ে বাঁচতে। নারীর জন্য সেখানে কোনও সমাজ নেই, পায়ের নীচে মাটি নেই। কোনও পুরুষ দয়িত, পিতা, ভ্রাতা কেউ নেই।
সুদীর্ঘ মহাভারতের চরিত্রে বৈচিত্র্যময়তার মাঝে আরেক নারী কুন্তীও কিন্তু পাণ্ডুর অপারগতা সত্ত্বেও পাণ্ডুর কথাতেই দেবসঙ্গম করেছিলেন। স্ব-ইচ্ছায় নয়। এবং অবশ্যই তা ছিল অনিচ্ছুক সহবাস। দ্রৌপদী চিরকাল অর্জুনকে ভালোবাসলেও পাঁচ স্বামীকেই মেনে নিতে বাধ্য হয়েছিলেন। দুঃখ সাগরে ডুবে থাকা তারা ও মন্দোদরীকে স্বামীর হত্যাকারী ও ষড়যন্ত্রকারীকে পুরুষের দেওয়া বিধান হিসেবে জীবনে মেনে নিতে হয়েছিল। নিষ্ঠুর স্বার্থপর বহুগামী পুরুষকে দুনিয়ার সব কিছু ত্যাগ করে বেঁচে থাকার আর্তি নিয়ে বাঁচতে হয়েছিল। দুঃসহ যন্ত্রণা আর শাণিত অপমান গিলে নিতে হয়েছিল। পুরাণের কাহিনীতে আজও চাপা পড়ে আছে নারীর বেঁচে থাকার দুঃখ-ইতিহাস। একক এবং সহস্র— অশ্রু আর আগুন। যার শুরু আছে শেষ নেই।
তনুশ্রী কাঞ্জিলাল মাশ্চরক 
29th  June, 2019
সবার অনুপ্রেরণা হয়ে উঠব,
সেটাই ছিল আমার স্বপ্ন: শিবাঙ্গী  

লেফটেন্যান্ট শিবাঙ্গী হিসেবেই তিনি পরিচিত। পদবি ব্যবহারে বড্ড আপত্তি। নামই বরং হয়ে উঠুক পরিচয়, ক্ষতি কী? তবে গত ডিসেম্বর মাস থেকে তাঁর পরিচয়ের পরিধি আর একটু প্রসারিত। তিনি এখন লেফটেন্যান্ট শিবাঙ্গী, ভারতীয় নৌসেনার প্রথম মহিলা পাইলট।  বিশদ

04th  July, 2020
পেশার দুনিয়ায় প্রথা ভেঙে প্রথমা
বাঁধা গতে নয়, এগিয়ে যেতে চাই নিজের পছন্দে: হর্ষিণী কনহেকর  

মেয়েদের সম্পর্কে পুরনো ধারণাগুলো একে একে পাল্টে দিতে আমরা মেয়েরাই পারি। ভিন্নধর্মী দু’টি পেশায় নিযুক্ত দু’জন মহিলার তেমনই পদক্ষেপ সম্পর্কে জানালেন কমলিনী চক্রবর্তী। 
বিশদ

04th  July, 2020
এখন মেয়েরা 

এখন সময় মানবিকতার। করোনা সঙ্কটে কাউকে কাছে টানা যায় না ঠিকই, কিন্ত পাশে থাকা যায়। যেসব মানুষ লকডাউনের কারণে অনিশ্চিত জীবনের মধ্যে পড়ে গিয়েছেন, তাঁদের পাশে বিত্তবানদের দাঁড়ানো উচিত।  বিশদ

04th  July, 2020
নাচেই মুক্তির দিশা 

শুধু নাচ শেখানো নয়। নাচকে আত্মবিশ্বাস ফেরানোর কাজে লাগাতে চেয়েছিলেন তিনি। পাচার হয়ে যাওয়া মেয়েদের বেঁচে থাকাকে সম্মান জানাতে চেয়েছিলেন। তাই নির্যাতনে কুঁকড়ে গিয়ে একদিন যাঁদের জীবন থমকে গিয়েছিল, তাঁরাই আজ অগ্রণী। ৩০ জুলাই, আর্ন্তজাতিক মানব-পাচার বিরোধী দিবস। তার আগে কলকাতা সংবেদের সোহিনী চক্রবর্তীর সঙ্গে কথা বলেছেন অন্বেষা দত্ত। 
বিশদ

04th  July, 2020
বিশ্বের সেরা সুন্দরী ঠাকুমা
ভারতের আরতিদেবী 

সম্প্রতি ইউরোপের দেশ বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়ায় শেষ হল ‘গ্র্যান্ডমা আর্থ ২০২০-র আসর। বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী ঠাকুমার মুকুট উঠেছে ভারতীয় মহিলা আরতি চাটলানির মাথায়। এই পুরস্কার এই প্রথম কোনও ভারতীয় মহিলার মাথায় উঠল। চলতি বছর (২০২০) ১৯ থেকে ২৩ জানুয়ারি বুলগেরিয়ায় এই অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়।  
বিশদ

27th  June, 2020
৯০ বছর বয়সে ব্যবসায়
হাতেখড়ি বৃদ্ধার 

৯০ বছরের মায়ের সঙ্গে গল্প জুড়েছিলেন মেয়ে। বৃদ্ধা মা এখন ভালো করে হাঁটতে পারেন না, চোখের দৃষ্টিও আগের চেয়ে অনেক ঝাপসা। মায়ের কী করতে ভালো লাগে? ৯০ বছর কাটানোর পর জীবনটাকে কীভাবে দেখেন তিনি? এইসব নিয়ে কথা এগোচ্ছিল। কথা প্রসঙ্গেই মাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন মেয়ে, তাঁর জীবনে কোনও আক্ষেপ রয়েছে কি না।  
বিশদ

27th  June, 2020
মহিলাদের মধ্যে বেকারত্ব বাড়ছে লকডাউনের জন্য 

দীর্ঘ লকডাউনের ফলে অনেকেই চাকরি হারিয়েছেন। রোজগার বন্ধ হয়েছে বহুজনের। তার মধ্যে মহিলারা যতটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, পুরুষরা ততটা হননি। অন্তত পরিসংখ্যান তাই বলছে। এই বিষয়ে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্প্রতি একটি গবেষণা করেছেন র‌্যাশেল লেভেনসন ও লায়লা ও’কেন।  বিশদ

27th  June, 2020
সঙ্কটে দাম্পত্য, বাড়ছে নারী নির্যাতন
বন্দি ঘরের মধ্যে বেড়েছে হিংসা, আমরা চেষ্টা করেছি পাশে থাকার 

লকডাউনের অনেক অসুবিধার মধ্যে শিরোনামে এসেছে বাড়িতে দাম্পত্য অশান্তি, মনোমালিন্য থেকে শুরু করে পুরোদস্তুর নির্যাতন বেড়ে যাওয়ার ঘটনা। মহিলা এবং শিশুরাই যার প্রাথমিক শিকার। ২০-৩১মার্চের মধ্যে (লকডাউনের প্রথম সপ্তাহ) চাইল্ডলাইন ১০৯৮এ সারা দেশ থেকে ৯২ হাজার এসওএস কল গিয়েছে। জাতীয় মহিলা কমিশন শুধু এপ্রিলেই ৩১৫টি পারিবারিক হিংসার অভিযোগ পেয়েছে। পরিসংখ্যানগুলোর গ্রাফ কিন্তু এখনও উর্ধ্বমুখী। এ ব্যাপারে সমাজকর্মী অনুরাধা কাপুরের সঙ্গে আলোচনায় কমলিনী চক্রবর্তী এবং অন্বেষা দত্ত।  
বিশদ

27th  June, 2020
সঙ্কটে দাম্পত্য, বাড়ছে নারী নির্যাতন
ক্রমশ বাড়ছে অন্তর্দ্বন্দ্ব, নড়বড়ে হচ্ছে বৈবাহিক সম্পর্কের ভিত

লকডাউনের অনেক অসুবিধার মধ্যে শিরোনামে এসেছে বাড়িতে দাম্পত্য অশান্তি, মনোমালিন্য থেকে শুরু করে পুরোদস্তুর নির্যাতন বেড়ে যাওয়ার ঘটনা। মহিলা এবং শিশুরাই যার প্রাথমিক শিকার। ২০-৩১মার্চের মধ্যে (লকডাউনের প্রথম সপ্তাহ) চাইল্ডলাইন ১০৯৮এ সারা দেশ থেকে ৯২ হাজার এসওএস কল গিয়েছে। জাতীয় মহিলা কমিশন শুধু এপ্রিলেই ৩১৫টি পারিবারিক হিংসার অভিযোগ পেয়েছে। পরিসংখ্যানগুলোর গ্রাফ কিন্তু এখনও উর্ধ্বমুখী। এ ব্যাপারে সমাজতত্ত্ববিদ অভিজিৎ মিত্রের সঙ্গে আলোচনায় কমলিনী চক্রবর্তী এবং অন্বেষা দত্ত।  
বিশদ

27th  June, 2020
যোগাসনে সুস্থ মন 

এই অনিশ্চিত সময়ে ভালো থাকুন যোগাসনে। পরামর্শ দিলেন
যোগবিদ রাজশ্রী চৌধুরী। 
বিশদ

20th  June, 2020
পাশে থেকে 

করোনার মধ্যে কাজ হারিয়েছিলেন মহারাষ্ট্রের মুলুন্ডের তরুণী বিদ্যা শেল্কে। তবু আর পাঁচজনের মতো ভেঙে পড়েননি। ট্যাক্সি চালানোর সংস্থা তাঁকে ছাঁটাই করার পরে মহারাষ্ট্রে আটকে পড়া বিভিন্ন মানুষকে বাড়ি ফিরিয়ে দেওয়ার কাজে হাত লাগান।   বিশদ

20th  June, 2020
বিদেশে সাফল্য 

বিলেতের মাটিতে ভারতীয় গবেষকের কৃতিত্ব। করোনার দাপটে বন্ধ ঘরে থেকেও গবেষণায় ছেদ পড়েনি অমৃতা গাডগের। সম্প্রতি ঘরে বসেই তিনি তৈরি করেছেন পদার্থের পঞ্চম অবস্থা ‘বোস-আইনস্টাইন কনডেনসেট’।   বিশদ

20th  June, 2020
এয়ার বিএনবি-র ব্যবসায় মেয়েরাই ভরসা 

ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এয়ার বিএনবি। বেড়াতে গিয়ে লোকে আর হোটেল নয়, বরং এই ধরনের অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া করতে চাইছে। আর সেইসব বন্দোবস্ত চালানোর ক্ষেত্রে এয়ার বিএনবি কর্তৃপক্ষ মহিলাদের ওপরেই ভরসা করছে।  বিশদ

20th  June, 2020
নারীর উন্নতির পথে সমাজই প্রধান বাধা 

সাত বছর। নির্ভয়া কাণ্ডের বিচার পেতে সাত-সাতটা বছর লেগে গেল। তবু শেষ পর্যন্ত যে অভিযুক্তদের শাস্তি দেওয়া গিয়েছে, সেটাই আশার দিক। নির্ভয়া কাণ্ডের বিচারের জন্য যিনি অক্লান্ত লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন, সেই আইনজীবী সীমা কুশওয়াহাকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, আমাদের সমাজ এখনও মেয়েদের পর্দার আড়ালে রাখতে চায়।   বিশদ

20th  June, 2020
একনজরে
 জীবানন্দ বসু, কলকাতা: গত এক বছরে দেশের কম আয়ের শ্রমিক-কর্মচারীদের স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষা দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা ইএসআই কর্পোরেশন। এর আয় ৫ ...

 সুখেন্দু পাল, বহরমপুর: গতবারের চেয়ে এবার রাজ্যের পঞ্চায়েতগুলিতে অর্থ কমিশনের টাকা অনেক কম পাঠানো হচ্ছে। কোনও কোনও পঞ্চায়েতে প্রথম কিস্তিতে গত বছরের তুলনায় অর্ধেকেরও কম টাকা পাঠানো হবে। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বঞ্চনার অভিযোগ তুলে ইতিমধ্যেই প্রধানরা সরব হয়েছেন। ...

 কাঠমাণ্ডু: গদি বাঁচাতে শেষপর্যন্ত করোনাকে হাতিয়ার করতে চাইছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি। তবে খাদের কিনারায় দাঁড়িয়ে তাঁর এই কৌশল কতটা কার্যকর হবে, তা নিয়ে সন্দিগ্ধ রাজনৈতিক মহল। জানা গিয়েছে, করোনার মোকাবিলায় দেশে স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে জরুরি অবস্থা জারির প্রস্তাব ...

বার্সেলোনা: খেতাবের দৌড়ে পিছিয়ে পড়েও লড়াই জারি বার্সেলোনার। বুধবার ক্যাম্প ন্যু’য়ে লুই সুয়ারেজের করা একমাত্র গোলে কাতালন ডার্বিতে এস্প্যানিয়লকে পরাস্ত করল কিকে সেতিয়েন-ব্রিগেড। এই জয়ের ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পঠন-পাঠনে আগ্রহ বাড়লেও মন চঞ্চল থাকবে। কোনও হিতৈষী দ্বারা উপকৃত হবার সম্ভাবনা। ব্যবসায় যুক্ত হলে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৮৫- ভাষাবিদ মহম্মদ শহীদুল্লাহর জন্ম,
১৮৯৩- গণিতজ্ঞ কে সি নাগের জন্ম,
১৯৪৯- ক্রিকেটার সুনীল গাভাসকরের জন্ম,
১৯৫০- গায়িকা পরভীন সুলতানার জন্ম,
১৯৫১- রাজনীতিক রাজনাথ সিংয়ের জন্ম



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.০৪ টাকা ৭৬.৭৪ টাকা
পাউন্ড ৯২.১৪ টাকা ৯৭.১৪ টাকা
ইউরো ৮২.৯৩ টাকা ৮৭.৪০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫০,০৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,৪৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮,২০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫১,৭১০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫১,৮১০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৬ আষাঢ় ১৪২৭, ১০ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, পঞ্চমী ১৬/৩০ দিবা ১১/৩৯। পূর্বভাদ্রপদ অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৫/২/৪২, সূর্যাস্ত ৬/২১/২৷ অমৃতযোগ দিবা ১২/৮ গতে ২/৪৮ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৮ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/২২ গতে ১১/৪২ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/১ গতে ১০/২১ মধ্যে।
২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ১০ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, পঞ্চমী দিবা ১১/২৭। পূর্বভাদ্রপদ নক্ষত্র অহোরাত্র। সূযোদয় ৫/২, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ১২/৯ গতে ২/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৩০ মধ্যে ও ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/৩ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৩ গতে ১১/৪৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৩ গতে ১০/২৩ মধ্যে।
১৮ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কন্টেইনমেন্ট জোনে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ 
কন্টেইনমেন্ট জোনে বিভিন্ন আবাসন, বাড়ি কিংবা পাড়ার বাসিন্দাদের নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ ...বিশদ

09:00:19 AM

 শিয়ালদহ-ভুবনেশ্বর স্পেশাল ট্রেন এখন সপ্তাহে ২ দিন
আগামী ১৩ জুলাই থেকে শিয়ালদহ-ভুবনেশ্বর স্পেশাল ট্রেন সপ্তাহে তিনদিনের বদলে ...বিশদ

09:00:00 AM

ফের রেকর্ড আমেরিকায়, একদিনে আক্রান্ত ৬৫ হাজারেরও বেশি
করোনা আক্রান্ত নিয়ে ফের রেকর্ড আমেরিকায়। গত ২৪ ঘণ্টায় মার্কিন ...বিশদ

08:55:18 AM

আজ আইসিএসই, আইএসসির ফল
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আজ, শুক্রবার দুপুর ৩টেয় প্রকাশিত হতে চলেছে ...বিশদ

08:43:37 AM

আজ থেকে বন্ধ হাইকোর্ট
আজ থেকে সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারবিভাগীয় ও প্রশাসনিক কাজ বন্ধ ...বিশদ

08:30:00 AM

উত্তরবঙ্গে প্রবল বর্ষণের পূর্বাভাস
 আগামী রবিবার পর্যন্ত উত্তরবঙ্গের প্রায় সবকটি জেলাতেই ভারী থেকে অতি ...বিশদ

08:26:37 AM