Bartaman Patrika
চারুপমা
 

লাল নীল সবুজের মেলা 

ওরা যেন একঝাঁক সতেজ বাতাস। ওদের পোশাকেও চাই ওদের মতোই উজ্জ্বলতার ছোঁয়া, যা দেখলে নিমেষে মন খারাপেরা উধাও। তবে শুধু রংচঙে নয়, কচিকাঁচাদের জামাকাপড়ের ফ্যাব্রিক, টেক্সচারও দেখে নিতে হবে। শিশুদের পোশাক নিয়ে রাতদিন ভাবেন এবং কাজ করেন, এমন কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে খুদেদের ফ্যাশন ট্রেন্ড জেনে নিলেন অন্বেষা দত্ত।


নিজের বাচ্চার জন্য শপিং করতে গিয়ে মনে হয়েছিল, বাজারে তেমন ভালো অপশন নেই শিশুদের জন্য। সবই একঘেয়ে। ওদের পোশাক মানেও যে একটা ব্যাপার, সেটা যেন ভাবনাতেই ছিল না কারও। মা হিসেবে নিজের বাচ্চাকে মনের মতো করে সাজিয়ে তুলতে গিয়ে মনে হচ্ছিল, কিছু একটা মিসিং। সেই ভাবনা থেকেই ২০১১ সালে দুই বোন নীলাক্ষী আর ঐন্দ্রিলা রায় শুরু করেন নিজেদের ব্র্যান্ড ‘নী অ্যান্ড অয়িঙ্ক।’ প্যারিস আর লন্ডন থেকে আগেই নেওয়া ছিল প্রশিক্ষণ। ছেলেবেলার দুষ্টুমি আর সারল্যের মিশেলটাকে পোশাকের নকশায় ফুটিয়ে তুলতে অসুবিধে হয়নি তাই।
ঐন্দ্রিলা জানালেন, বেশ কিছু বছর আগেও ভারতীয় ডিজাইনে বাচ্চাদের ভালো পোশাক তেমন ছিল না। তাই চেষ্টা করেন ন্যাচারাল ফ্যাব্রিকে ওদের জন্য কিছু তৈরি করতে। ওদের ত্বকের জন্য যা একেবারে ক্ষতিকর হবে না, এটাই ছিল প্রায়রিটি। এতদিনে ছবিটা অনেকটাই পাল্টেচ্ছে। তাঁর কথায়, ‘আগে মার্কেট এত ভালো ছিল না। শুধু অনলাইনে এক্সক্লুসিভ জিনিস দেওয়া যেত। দামও অনেক বেশি ছিল। মেশিনের থেকে হ্যান্ড ওয়ার্কে আমরা জোর দিতাম। তাতে খরচ বেড়েই যেত। তাই মেশিনে তৈরি জামাই চলত বেশি। কোনও শপে জায়গা করে নেওয়াটা চ্যালেঞ্জ ছিল। যখন প্রথম দিকে এগজিবিশনে যেতাম, দেখা যেত,আমরাই শুধু বাচ্চাদের জামা বানিয়েছি। এখন অন্তত পাঁচ-ছ’জন থাকেন সেখানে।’ এখন বাচ্চাদের জামা বানানোর ইন্ডাস্ট্রি আয়তনে অনেকটাই বেড়েছে।
হ্যান্ড এমব্রয়ডারিতেই জোর দেন ওঁরা। ভুলে যাওয়া ঐতিহ্য শিশুদের পোশাকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেন। তবে ঐন্দ্রিলা মনে করেন, বাচ্চাদের যে কোনও পোশাকেই ভালো লাগে। রাখি বা পুজোর মতো উৎসবের জন্য ছেলেদের জন্য কুর্তা-পাজামা আর মেয়েদের ঘাগরা-টপ পছন্দ তাঁর। এভাবেই ঐতিহ্য বাঁচিয়ে রাখা যায় বলে মনে করেন তিনি। পাশাপাশি বাচ্চাদের আরামের কথা তো মাথায় রাখতেই হবে। জামা পরে কুটকুট করলে ওরা কিন্তু এক মুহূর্ত সেটা গায়ে রাখবে না, মনে করিয়ে দিলেন তিনি। ওদেরও মন খারাপ হবে, মায়েরও সেটা ভালো লাগবে না। তা ছাড়া এমন কিছু কেনার মানেই নেই যেটায় ওরা স্বচ্ছন্দ নয়।
শৈশবে নিজের ফেলে আসা নরম আদুরে জামাদের ভুলতে পারেন না পারমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তাই বড়দের পোশাক করতে করতেই বছর দুয়েক আগে ছোটদের জন্য নিজের লেবেল ‘ছোট্ট পা’ শুরু করেছেন তিনি। বললেন, ‘ওদের জন্য একেবারে সিম্পল জামাকাপড় মার্কেটে পাওয়া একটু কষ্টকর। ছোটবেলায় আমরা স্মকিং-এর কটন ড্রেস পরতাম। হ্যান্ড এমব্রয়ডারি বা ফ্রেঞ্চ নট দিয়ে খুব সুন্দর জামা পাওয়া যেত। সেই রকম সাধারণ কিন্তু হাতের কারুকাজ করা জামা পাচ্ছিলাম না। তাই থেকেই ‘ছোট্ট পা’-এর শুরু।’এখন কাস্টমাইজড ডিজাইনও করছেন তিনি। কারণ কোনও রিটেল স্টোর নেই যারা শুধু এই ধরনের কিডসওয়্যার রাখে। তাই অর্ডার অনুযায়ী করে দেন তাঁরা। মূলত ০-৫ বছরের বাচ্চাদের জন্যই করেন। তাঁর মতে,‘পাঁচের ওপরে উঠে গেলে ওদেরও মতামত তৈরি হয়ে যায়। তাই তখন আর মা নিজের খেয়ালখুশিতে ওদের মোটেই সাজাতে
পারেন না!’
নিজেদের হ্যান্ড উভেন ফ্যাব্রিক ব্যবহার করেন পারমিতারা। সিন্থেটিক মেটেরিয়াল কখনওই নয়। জামার বোতামও নারকেলের খোলের তৈরি। আর একটা জিনিস অবশ্যই খেয়াল রাখেন তিনি। বাচ্চাদের জামা এমন ভাবে তৈরি হয় যাতে সেটা লিকুইড ডিটারজেন্টে হ্যান্ড ওয়াশ করা যায়। অত ছোটদের জামা ড্রাই ওয়াশে দেওয়ার পক্ষপাতী নন তিনি। শীতের সময় বাচ্চাদের জন্য দু’দিকেই পরা যায় এমন কুইল্টেড জ্যাকেটও তৈরি করেন (একদিকে কটন আর একদিকে জামদানি), সেগুলোও যাতে হাতে কাচা যায়, সেদিকে নজর দেন পারমিতা। ডিজাইনের ক্ষেত্রে সিম্পল লুকেই বিশ্বাসী তিনি। জানালেন, অঙ্গারাখা বাচ্চাদের স্টাইল হিসেবে খুব জনপ্রিয়। ধোতি প্যান্ট আর কুর্তাও আছে তাঁদের। এ ছাড়া ১-২ বছরের বাচ্চাদের উপহার দেওয়ার জন্য তাঁরা তৈরি করেন জাপলা। ন্যাপির ওপরে জড়িয়ে পরার জন্য। একজোড়া একসঙ্গে দেন তাঁরা। বাচ্চার নাম লেখা একটা ব্যাগে সুন্দর করে গুছিয়ে দেওয়া হয় এই উপহার। পরে ওই ব্যাগটা খুব কাজে আসে, জানালেন তিনি। লকডাউন পর্ব শেষ হলে বাচ্চাদের জামার সঙ্গে বাঁশের তৈরি ছোট হ্যাঙারও দিতে চান তাঁরা।
তাঁদের তৈরি মেয়েদের ঘাগরা স্কার্ট খুব জনপ্রিয়। তিন-চার মিটারের ঘের দেওয়া ঘাগরার সঙ্গে থাকে শর্ট টপ। তাঁর নিজের নামের ব্র্যান্ডে অভিনবত্ব এনেছে জামদানি। তাই বাচ্চাদের ক্ষেত্রেও জামদানি রেখেছেন পারমিতা। তাঁর মতে, জামদানির মতো এত ফাইন মসলিন আর হয় না। এ রাজ্যের তাঁতিরাই বুনে দেন, রং পছন্দ করে দেন তাঁরা। মসলিনের ওপরে গামছা চেকসও করেন তাঁরা। দিনে পরার জন্য এগুলো খুবই আরামদায়ক। সুতির ওপরেই রাখেন সব কিছু। মোটিফে থাকে ঐতিহ্যবাহী জামদানি। আগেকার দিনের মায়েদের শাড়ির সেই মোটিফ ফিরে আসে তাঁর নকশায়। বাচ্চাদের জন্য মিনিয়েচার সাইজেই আসে ওই মোটিফ। তাঁর কথায়, ‘প্রিন্ট আমরা করি না। কারণ প্রিন্টে কোয়ালিটি চেক করা একটু কঠিন। ওগুলো ন্যাচারাল ডাই হয় না। ওগুলো থেকে বাচ্চাদের নরম ত্বকে রিঅ্যাকশন হতে পারে।’ বাচ্চাদের জন্য তাঁর তৈরি ড্রেসের চাহিদাই বেশি। স্কার্টও তাই। তবে মেয়েদের সাজানোর ঝোঁকটা বেশি বলে মেয়েদের জামাকাপড়ের চাহিদাই বেশি বলে জানালেন তিনি।
গ্ল্যামার ডিজাইন বুটিকের কোহিনূর মণ্ডল জানালেন, তাঁরা বাচ্চাদের জন্য এথনিক ওয়্যারের কাজই শুধু করেন। উৎসবে বড়রা যেভাবে সাজেন, তারই মিনিয়েচার ভার্সন তৈরি করে দেওয়ার খুবই চাহিদা রয়েছে। খুদেদের মধ্যে ছেলেদের জন্য তাই কোঁচানো ধুতি পাঞ্জাবি আর কুর্তা পাজামা, জ্যাকেট তৈরি করেন তাঁরা। বড়দের মতো উজ্জ্বল রঙের অ্যাসেমিট্রিক্যাল কুর্তাও এখানে পাওয়া যায়। খুদে বলে হালফ্যাশন থেকে পিছিয়ে পড়বে, তার তো কোনও মানে নেই। মেয়েদের জন্য শাড়ি, (বিশেষ করে সরস্বতী পুজোর সময়ে বাসন্তী রঙের তো চাই-ই), সালোয়ার কুর্তা, ড্রেস সবই মিলবে এখানে। বিশেষ কোনও অনুষ্ঠানের জন্য এক পরিবারে মা-বাবা আর দুই খুদের জন্য ম্যাচিং সেটও করে দেন তাঁরা। তবে ফ্যাব্রিকের ক্ষেত্রে এখানেও একই চাহিদা, সেটা হল কটন। সুতির নরম কাপড়ের মতো আরাম আর কিচ্ছুতে নেই যে। নরম তুলতুলে কচিকাঁচাদের শরীরে তাই কটনেরই প্রাধান্য সব জায়গায়। এই বুটিকে ৭০০-৮০০ টাকা থেকে শুরু বাচ্চাদের এথনিক ওয়্যার।
দক্ষিণাপণে অরণ্য-র চন্দনী বসুও বললেন, তাঁরা বাচ্চাদের জন্য কটনেই জোর দেন। বড়দের মতো ইন্দো-ওয়েস্টার্ন স্টাইলে তাঁরা ছোটদের পোশাক রাখেন। এখানে অভিনবত্ব সেটাই। ঐতিহ্যের বাইরে অন্যভাবে বাড়ির খুদে সদস্যটিকে সাজিয়ে তুলতে চাইলে এই স্টাইল চোখে পড়ার মতো। ৬ মাস থেকে ১০-১২ বছর বয়সের বাচ্চাদের পোশাক রয়েছে এখানে। চন্দনী জানালেন, টডলারদের জন্য রয়েছে রম্পার, আর বাকি শিশুদের জন্য স্প্যাগেটি টপ, ছোট স্কার্ট, এমব্রয়ডায়েরি করা ফ্রক তাঁরা রাখেন। ফ্রকের চাহিদা ভালোই। ছেলেদের অঙ্গারাখা স্টাইলও জনপ্রিয়।
মহামারীর সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাচ্চাদের জামাকাপড়ে এসেছে আরও একটি নতুন ভাবনা— জীবাণুরোধী ফ্যাব্রিক। পিঙ্ক এন ব্লু, স্টপ, ক্যারট, বেবি হাগ ইত্যাদি ব্র্যান্ডের ম্যানুফ্যাকচারার এবং নিজের ব্র্যান্ড ইয়ং ওয়ানস-এর তরফে সঞ্জয় জয়সিং জানালেন, বাচ্চাদের পোশাক নিয়ে কোনও ঝুঁকি নিতে চাইছেন না আর কেউ। অর্গ্যানিক কটনে তৈরি জামার চাহিদা তো ছিলই। এখন দেখা হচ্ছে, জামায় ক্ষতিকর কেমিক্যালের ব্যবহারও যাতে না হয়। তাঁর মতে, মেয়েদের জন্য ফ্রিল দেওয়া ঘেরওয়ালা ফ্রক এখনও খুব ভালো লাগে। ছেলেদের টি শার্ট-প্যান্ট সব সময়েই চাহিদা থাকে।
তাই কখনও ঐতিহ্য মেনে আর কখনও চলতি হাওয়ার পন্থী করে সাজিয়ে নিতেই পারেন ছোট্ট সোনাকে। মন ভালো করার চটজলদি রাস্তাটা বাতলে দেবে ওরাই। 
তুলতুলে ত্বকের যত্ন 

কীভাবে ছোট্ট সোনার কোমল ত্বকের যত্ন নেবেন জানাচ্ছেন অভিজ্ঞ বিউটিশিয়ান অঞ্জলি গঙ্গোপাধ্যায়। লিখেছেন সোমা লাহিড়ী। 
বিশদ

বিবির নতুন পৃথিবী

বিবি রাসেল। বাংলাদেশের ফ্যাশন ডিজাইনার। খ্যাতি তাঁর জগৎজোড়া। এই প্রথম তিনি পা রাখছেন অনলাইন দুনিয়ায়। আনছেন নিউ নর্মাল পৃথিবীর জন্য নতুন সম্ভার। বাংলাদেশ থেকে হোয়াটসঅ্যাপ কলে সাক্ষাত্কার দিলেন সোমা লাহিড়ীকে। বিশদ

25th  July, 2020
 চুলে রং নিন

গায়ের রং অনুযায়ী একটু বদল আনুন চুলের রঙেও। তাই বলে বিদেশি কায়দায় চুল রং করবেন না যেন। কেমন হবে রঙের ধরন? পরামর্শ দিলেন হেয়ার এক্সপার্ট জাভেদ হাবিব। বিশদ

25th  July, 2020
ফ্যাশনে ফিরেছে কাফতান

এত দিন ঘরোয়া পরিধেয় হিসেবেই পরিচিতি ছিল কাফতানের। কালের নিয়মে বদলে গিয়েছে তার রূপ। বেড়েছে কদর। কাফতানের রকমফেরের খবর রইল আপনাদের জন্য। বিশদ

25th  July, 2020
নিজের যত্নে হাল্কা সাজ

মাস্ক আর স্যানিটাইজার মাখা জীবনে কি আর কোনও বৈচিত্র থাকবে না? এখন সাজগোজ করে মন ভালো রাখার কোনও উপায়ই কি তাহলে সুরক্ষিত নয়, জানালেন বিশেষজ্ঞরা। লিখেছেন অন্বেষা দত্ত।  বিশদ

18th  July, 2020
বর্ষার সাজগোজ 

শহরে বর্ষা মানেই কাদা প্যাচপ্যাচে রাস্তা আর আর্দ্র অাবহাওয়া। এমন দিনে নিজেকে কীভাবে সাজিয়ে তুলবেন? বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের মতামত জানালেন কমলিনী চক্রবর্তী। 
বিশদ

18th  July, 2020
ছিল শাড়ি হয়ে গেল গাউন 

সোশ্যাল মিডিয়া আমাদের বদলে দিয়েছে। এখন দামি পছন্দের শাড়িটিও বারবার পরতে মন চায় না। পোশাকটি পরে একবার ছবি পোস্ট মানেই সেটির কথা সবাই জেনে গেল। তাহলে জমে থাকা সেই শাড়ির গতি কী হবে? উপায় বাতলেছেন ডিজাইনার দেবযানী গঙ্গোপাধ্যায়। লিখেছেন সোমা লাহিড়ী।
বিশদ

18th  July, 2020
দোলাচলে পুজো ফ্যাশন

প্রতি বছর রথের সময় থেকেই পুজোর কাউন্টডাউন শুরু হয়ে যায় চারূপমায়। এ বছর পরিস্থিতি একেবারে আলাদা। এখনও পুরোপুরি প্রস্তুত নন ডিজাইনাররা। তবে কাজ শুরু করেছেন অনেকেই। পুজো ফ্যাশনের খোঁজে সোমা লাহিড়ী।
বিশদ

11th  July, 2020
বিক্রিতে টান,ছক ভাঙা
সাজে মন ডিজাইনারদের

 পোশাক-গয়না নকশার দুনিয়ায় এসেছে বদল। ডিজাইনার থেকে মডেল, কোভিড-সঙ্কট সকলকেই বাধ্য করেছে নতুন পন্থা খুঁজতে। সেইমতোই এগোচ্ছেন কয়েকজন নকশার কারবারি। তারই সুলুকসন্ধানে মনীষা মুখোপাধ্যায়।
বিশদ

11th  July, 2020
যত্নে রাখুন হাত পা

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা রক্ষার প্রতি এখন আমাদের সজাগ দৃষ্টি। হাত পা সারাক্ষণ সাবানে ধুয়ে তা স্যানিটাইজ করে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই পরিস্থিতিতে হাত ও পায়ের যত্ন নিতে পেডিকিওর ও ম্যানিকিওর কতটা জরুরি? পরামর্শ দিলেন বিউটিশিয়ান শেহনাজ হুসেন।
বিশদ

11th  July, 2020
ছোট্ট ঘরে স্বপ্ন উড়ান 

চার দেওয়ালের মধ্যেই আপনার সোনামণির স্বপ্নপূরণের যাত্রা শুরু। তাই তার ঘরটি যেন পজিটিভ এনার্জিতে ভরপুর হয়। আপনার সন্তানের ঘরের সাজ কেমন হওয়া উচিত, পরামর্শে এক্সটিরিয়র ইন্টিরিয়র অ্যাকাডেমির ডিরেক্টর অপর্ণা রায়। লিখেছেন সোমা লাহিড়ী। 
বিশদ

04th  July, 2020
বাড়ি হবে বাড়ির মতো 

পায়েল সরকার: লকডাউনে প্রত্যেকেই দেখছি কম বেশি ঘরের কাজ করছেন। ঘর বাড়ি সাজাচ্ছেন এবং সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করছেন। ব্যস্ত জীবনে অনেক সময় আমরা নিজের মাথার ছাদের যত্ন নিতে ভুলে যাই।  বিশদ

04th  July, 2020
ঘরে বসেই ঘর সাজান 

নিজের ঘর নিজেই সাজিয়ে তুলতে পারেন। কিন্তু কী ভাবে? এই বিষয়ে বিশিষ্ট ইন্টিরিয়র ডিজাইনার এবং শাহরুখ-পত্নী গৌরী খানের পরামর্শ শোনালেন কমলিনী চক্রবর্তী। 
বিশদ

04th  July, 2020
চুলে চাই  চেকনাই

একে তো ভ্যাপসা বর্ষা, তার ওপর লকডাউনে পার্লার যাওয়া হয়নি তিন মাস, সঙ্গে বাড়ির কাজের চাপ— তিনে মিলে চুলের দফারফা। কীভাবে যত্ন নিলে চুলের স্বাস্থ্য ফিরবে, জানাচ্ছেন মুম্বইয়ের পিডি হিন্দুজা হসপিটালের কনসালট্যান্ট, কায়া স্কিন ক্লিনিকের হেয়ার অ্যান্ড ওয়েলনেস এক্সপার্ট ডাঃ অপর্ণা সান্থানাম। কথা বলেছেন সোমা লাহিড়ী।
বিশদ

27th  June, 2020
একনজরে
সংবাদদাতা, ঘাটাল: ভাইয়ের গায়ে অ্যাসিড ছুঁড়ে মারার অভিযোগ উঠল দাদার বিরুদ্ধে। শুক্রবার ভোরে ঘাটাল থানার পান্না গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আক্রান্ত যুবকের নাম অনুপ পাল।   ...

ওয়াশিংটন: ক্ষমতা দেখাতে পুরো বিশ্বকে নিজেদের নাগালের মধ্যে আনতে উঠেপড়ে লেগেছে চীন। এবার তাদের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে জবাব দেওয়ার সময় এসেছে। বৃহস্পতিবার মার্কিন কংগ্রেসে এই ভাষাতেই চীনের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠলেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সোমেন মিত্র প্রয়াত হলেও তাঁর দেখানো পথে বামেদের সঙ্গে সখ্য গড়েই আগামী বিধানসভা নির্বাচনে লড়তে চায় প্রদেশ কংগ্রেস।   ...

সংবাদদাতা, নকশালবাড়ি: শুক্রবার বাগডোগরা থানার রানিডাঙা এসএসবি ক্যাম্পের মুখোমুখি একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের এটিএম কাউন্টারে সিসি ক্যামেরা, এসির বৈদ্যুতিক কেবল ছেঁড়া এবং রিসিভ স্লিপ তছনছ অবস্থায় থাকায় লুটের আতঙ্ক ছড়ায়। যদিও পুলিসের দাবি, সেখানে লুটপাটের কোনও ঘটনা ঘটেনি।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিতর্ক-বিবাদ এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। প্রেম-পরিণয়ে মানসিক স্থিরতা নষ্ট। নানা উপায়ে অর্থোপার্জনের সুযোগ।প্রতিকার: অন্ধ ব্যক্তিকে সাদা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৭৪- অক্সিজেনের আবিষ্কার করেন যোশেফ প্রিস্টলি
১৮৪৬ - বাংলার নবজাগরণের উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব দ্বারকানাথ ঠাকুরের মৃত্যু
১৯২০ – স্বাধীনতা সংগ্রামী বালগঙ্গাধর তিলকের মৃত্যু
১৯২০- অসহযোগ আন্দোলন শুরু করলেন মহাত্মা গান্ধী
১৯২৪ -ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার ফ্রাঙ্ক ওরেলের জন্ম
১৯৩২- অভিনেত্রী মীনাকুমারীর জন্ম
১৯৫৬- ক্রিকেটার অরুণলালের জন্ম।
১৯৯৯- সাহিত্যিক নীরদ সি চৌধুরির মৃত্যু 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৯৪ টাকা ৭৫.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯৬.৫৩ টাকা ৯৯.৯০ টাকা
ইউরো ৮৭.৪০ টাকা ৯০.৫৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৪,৬৪০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫১,৮৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫২,৬২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৪,৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৪,৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৬ শ্রাবণ ১৪২৭, শনিবার, ১ আগস্ট ২০২০, ত্রয়োদশী ৪১/৪৮ রাত্রি ৯/৫৫। মূলানক্ষত্র ৪/২ দিবা ৬/৪৮। সূর্যোদয় ৫/১১/৪৮, সূর্যাস্ত ৬/১৩/৫৮। অমৃতযোগ দিবা ৯/৩২ গতে ১/১ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৬ গতে ১০/৩৭ মধ্যে পুনঃ ১২/৫ গতে ১/৩২ মধ্যে পুনঃ ২/১৬ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। বারবেলা ৬/৫০ মধ্যে পুনঃ ১/২০ গতে ২/৫৮ মধ্যে পুনঃ ৪/৩৬ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/৩৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৫০ গতে উদয়াবধি। 
১৬ শ্রাবণ ১৪২৭, শনিবার, ১ আগস্ট ২০২০, ত্রয়োদশী রাত্রি ৯/৪৮। মূলানক্ষত্র দিবা ৭/৫৩। সূর্যোদয় ৫/১১, সূর্যাস্ত ৬/১৭। অমৃতযোগ দিবা ৯/৩০ গতে ১/২ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/২৯ গতে ১০/৩৮ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ১/৩০ মধ্যে ও ২/১৩ গতে ৩/৩৯ ম঩ধ্যে। কালবেলা ৬/৪৯ মধ্যে ও ১/২২গতে ৩/০ মধ্যে ও ৪/৩৯ গতে ৬/১৭ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৩৯ মধ্যে ও ৩/৪৯ গতে ৫/১১ মধ্যে।  
১০ জেলহজ্জ 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল  
মেষ: নানা উপায়ে অর্থোপার্জনের সুযোগ। বৃষ: কর্মক্ষেত্রে উচ্চাশাপূরণ। মিথুন: গুরুজনের স্বাস্থ্যোন্নতি। ...বিশদ

07:11:04 PM

ইতিহাসে আজকের দিনে 
১৭৭৪- অক্সিজেনের আবিষ্কার করেন যোশেফ প্রিস্টলি১৮৪৬ - বাংলার নবজাগরণের উল্লেখযোগ্য ...বিশদ

07:03:20 PM

করোনা: রাজ্যে আক্রান্ত আরও ২৫৮৯ জন  
রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৫৮৯ জনের শরীরে মিলল করোনা ...বিশদ

08:42:26 PM

মহারাষ্ট্রে করোনা পজিটিভ আরও ৯,৬০১ জন, মৃত ৩২২ 

08:41:24 PM

কর্ণাটকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা পজিটিভ ৫,১৭২ জন, মৃত ৯৮ 

07:56:50 PM

করোনা: কেরলে নতুন করে আক্রান্ত আরও ১১২৯, মোট আক্রান্ত ১০৮৬২ 

07:50:00 PM