Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মমতা-মডেল ছাড়া গতি নেই বিজেপির
তন্ময় মল্লিক

টার্গেট সবসময় উঁচুতে বাঁধা হয়। তাতে লক্ষ্যের ধারেকাছে না হোক, অর্ধেকটা গেলেও সম্মান বাঁচে। বিজেপির দিল্লি নেতৃত্বও সেই নীতিতেই নির্বাচনে আসন লাভের লক্ষ্য স্থির করে। কখনও সখনও শিকে ছিঁড়লেও বেশিরভাগ সময়েই তা মুখ থুবড়ে পড়ে। তাই কেন্দ্রে ফের ক্ষমতায় ফেরা নিয়ে সন্দিহান বিজেপির এবার লোকসভার টার্গেট চারশো। স্লোগানও তৈরি, ‘আব কি বার ৪০০ পার।’ তার সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে সুকান্ত মজুমদারদের উঠছে নাভিশ্বাস। কিন্তু অঙ্ক তো মেলাতেই হবে। তাই একুশে ২০০ পারের হুঙ্কার দিয়ে ৭৭-এ আটকে যাওয়া বঙ্গ বিজেপির লোকসভার টার্গেট ২৫। এসব শুনে অনেকেই বলছেন, সংগঠনের তো নুন আনতে পান্তা ফুরানোর অবস্থা, অথচ লোভ বিরিয়ানি খাওয়ার।
২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে ৩০০ আসন পার করেছিল বিজেপি। সেবার বালাকোট ইস্যুতে দেশজুড়ে তৈরি হয়েছিল জাতীয় ভাবাবেগ। তারসঙ্গে বাংলায় যুক্ত হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসের নেতিবাচক ভোট। ২০১৮ সালের পঞ্চায়েতে বিপুল আসনে ভোট করতে না দেওয়াটা তৃণমূলের কাল হয়েছিল। ২০১৬ সালের নির্বাচনে হেরে বাম-কংগ্রেস জোট রণে ভঙ্গ দেওয়ায় বিজেপিকেই আঁকড়ে ধরেছিলেন মমতা-বিরোধীরা। বামেদের উজাড় করে দেওয়া ভোটে বিজেপি পেয়েছিল ১৮টি আসন। কিন্তু এখন সেই অবস্থা নেই। উল্টে পেট্রল, ডিজেল, রান্নার গ্যাস সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধিতে বিজেপির উপর চটে আছে গোটা দেশ। অবস্থা এতটাই খারাপ যে কেন্দ্রীয় এজেন্সির চোখ রাঙানি সত্ত্বেও একের পর এক জোট শরিক ত্যাগ করেছে বিজেপির সঙ্গ। এই অবস্থায় দেশে ৪০০, আর বাংলায় ২৫ আসনের দাবি জানিয়ে হাসির খোরাক হয়েছে বিজেপি।
একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় বিপুল প্রত্যাশা জাগিয়েও মুখ থুবড়ে পড়েছিল বিজেপি। তারপর থেকেই পায়ের তলার মাটি হারাচ্ছে গেরুয়া শিবির। প্রতিটি নির্বাচনে তাদের ভোট কমছে। তা সত্ত্বেও সাগরদিঘি উপনির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থীর পরাজয়ে বিজেপি খুব উল্লসিত হয়েছিল। কিন্তু সেই উল্লাস দিনদিন মিইয়ে যাচ্ছে। কারণ বিজেপির নেতারা বুঝতে পারছেন, সাগরদিঘির ফল তাঁদের জন্য অশনি সঙ্কেত। হু-হু করে ভোট কমার ছবি স্পষ্ট। তা সত্ত্বেও লোকসভা নির্বাচনে ২৫টি আসনের দাবির কারণ একটাই, দিল্লির নেতৃত্বের দেওয়া অঙ্কের উত্তর মেলানোর তাগিদ। তবে অনেকেই কটাক্ষ করে বলছেন, ২৫টা শেষপর্যন্ত ২+৫ না হয়ে যায়!
২০১৯ থেকেই বিজেপির বাংলা দখলের স্বপ্ন দেখা শুরু। অবশ্যই তা ঘুরপথে। আর সেই স্বপ্নটা দেখিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহ। তাঁরা নির্বাচনী প্রচারে এসে প্রায় প্রতিটি জনসভায় বলেছিলেন, দিল্লিতে বিজেপি ক্ষমতায় এলেই পতন হবে তৃণমূল সরকারের। তাই রাজ্যে ১৮টি আসন জিততেই লম্ফঝম্ফ জুড়ে দিয়েছিল বঙ্গ বিজেপি। তখন নেতাদের মুখে শুধু একটাই বুলি, ৩৫৬ ধারা। কথায় কথায় রাজভবনে গিয়ে ‘অভিভাবকে’র কাছে নালিশ ঠুকতেন। ‘নির্বাচন পরবর্তী হিংসা’কে ইস্যু করে বাংলাকে অশান্ত প্রমাণের চেষ্টা হয়েছিল অনেক। একের পর এক কেন্দ্রীয় টিম পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু লাভ হয়নি। কারণ তদন্তে নেমে কেন্দ্রীয় টিম বুঝেছিল, অধিকাংশ অভিযোগই মিথ্যে। গল্পের ‘সন্ত্রাস’কে গাছের মগডালে তোলা হয়েছে।
তবে, বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসন জারির দাবিতে জল ঢেলেছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেই। বঙ্গ বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মেটানোর বৈঠকে তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন, ঘুরপথে বাংলার ক্ষমতা দখলের কোনও সুযোগ নেই। তৃণমূল সরকারের মোকাবিলা করতে হবে গণতান্ত্রিক পথে। আন্দোলন করে। আর সফল আন্দোলনকারীর দৃষ্টান্ত হিসেবে তুলে ধরেছিলেন এমন একজনের নাম যাতে বঙ্গ বিজেপির কাটা ঘায়ে পড়েছিল নুনের ছিটে। অমিত শাহ তৃণমূল নেত্রীর আন্দোলন ও পথকে অনুসরণ করার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কারণ তিনিও মানেন, মমতাই হলেন আন্দোলনের প্রতীক।
বিরোধীরা যতই সমালোচনা করুন না কেন, সাধারণ মানুষের কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই আন্দোলন, পরিষেবা ও জনসংযোগের রোলমডেল। তাঁর নেওয়া সমস্ত সরকারি কর্মসূচি সমাজ জীবনে ফেলেছে আলোড়ন। স্বাধীনতা লাভের পর দেশের বিভিন্ন রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে অনেকেই বসেছেন, কিন্তু তাঁর মতো করে মেয়েদের জন্য আর কে ভাবতে পেরেছেন? কেন্দ্রীয় সরকার তাঁর কন্যাশ্রীর আদলে চালু করেছে ‘বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও।’ রাজ্যের ‘কৃষকবন্ধু’ অনুসরণে কেন্দ্রে চলছে ‘প্রধানমন্ত্রী কৃষক সম্মাননিধি।’ ‘রূপশ্রী’ কোনও জাতীয় বা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়নি ঠিকই, কিন্তু লক্ষ লক্ষ কন্যাদায়গ্রস্ত দুঃস্থ বাবা, মায়ের দুশ্চিন্তা দূর করেছে। 
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুধু প্রকল্প চালু করেন না, তার সুযোগসুবিধাও মানুষের কাছে পৌঁছে দেন। 
তাঁর ‘দুয়ারে সরকার’ প্রকল্প সাধারণ মানুষকে 
দিয়েছে ‘গণদেবতা’র মর্যাদা। মানুষ বুঝেছে, 
সরকারি সাহায্য কোনও করুণা বা দয়ার দান নয়, সেটা তাঁদের অধিকার।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দুর্গাপুজো কমিটিগুলিকে অনুদান দেওয়ায় বিরোধীদের তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল। কিন্তু পিছু হটেননি। করোনার জন্য পুজোর অনুদান বাড়ানোয় সমালোচনার ঝাঁঝ হয়েছিল তীব্র। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় ভোটব্যাঙ্ক তৈরির অভিযোগ তুলে সরব হয়েছিলেন বহু নেটনাগরিক। কিন্তু মজাটা হল, যোগী আদিত্যনাথের সরকারও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পথ অনুসরণ করছে। উত্তরপ্রদেশে চৈত্র নবরাত্রি পালনের জন্য এবার থেকে দেওয়া হচ্ছে টাকা। পরিমাণটা কম নয়, এক লক্ষ। 
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনও প্রকল্প চালু করলেই বিরোধীরা তার পিছনে অভিসন্ধি খুঁজে পান। সমালোচনাও করেন। আবার বাঁচার জন্য সেই কর্মসূচিকে আঁকড়ে ধরেন। কেবল নামটা বদলে 
দেন। কোনও দলের কর্মসূচি বা সরকারি প্রকল্প 
ভালো হলে তাকে অনুসরণ করা অন্যায় নয়। 
বরং সাধারণ মানুষের জন্যে তা স্বাস্থ্যকর। কিন্তু সমালোচনা করার পর তাকেই আঁকড়ে ধরলে? বুঝতে হবে, সেটা দৈন্যের লক্ষণ।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন, জনপ্রতিনিধির সবচেয়ে বড় মূলধন জনসংযোগ। তাই মুখ্যমন্ত্রী হয়েও সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশে যান অনায়াসেই। গাড়ি থেকে নেমে দোকানে ঢুকে চা বানিয়ে কিংবা তেলেভাজা ভেজে খাওয়াতে পারেন সঙ্গীদের। দলের নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের একাংশের জনবিচ্ছিন্নতা ও বিচ্যুতি দেখে তিনি চালু করেছিলেন ‘দিদির দূত’ কর্মসূচি। সঙ্গে সঙ্গে তাকে ‘দিদির ভূত’ বলে কটাক্ষ শুরু করে দেয় বিরোধীরা। অথচ ভোট এগিয়ে আসতেই সুকান্ত মজুমদাররা সেই রাস্তাতে হাঁটার চেষ্টা করছেন। শুরু করেছে ‘বুথ সশক্তিকরণ’ কর্মসূচি। আর বালুরঘাটে ‘পাড়ায় সুকান্ত’। বিজেপির রাজ্য সভাপতির কথায়, উদ্যোগ ফলপ্রসূ হলে রাজ্যের অন্যত্রও তা চালু হবে। 
বিজেপির এই কর্মসূচির সাফল্যের পিছনে সংশয়ের কারণ দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের তোলা কৃত্রিম হওয়ার জোরে বিজেপি এরাজ্যে প্রধান বিরোধী দল হয়েছে। কিন্তু সাংগঠনিক দুর্বলতা থেকেই গিয়েছে। তাই বিজেপির কোনও আন্দোলনই বেশিদিন টেকে না। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে লড়াই করে উঠে এসেছেন।  কঠিন পরিস্থিতির মুখেও কীভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হয়, সেটা তিনি জানেন। 
এরাজ্যে যাঁরা মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন তাঁরা প্রত্যেকেই দলের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে তাঁদের ক্ষেত্রে দলীয় প্রতীকটাই ছিল বড়। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে দল গড়েছেন। তিনিই দলের মুখ। মানুষ তাঁকে দেখেই তৃণমূলকে ভোট দেয়। অন্যদের সঙ্গে তাঁর ফারাকটা এখানেই। তাই রাস্তায় নামলেই তিনি ‘হ্যামলিন’।
মানুষের অধিকার নিয়ে যে আন্দোলন তাঁকে মহিলা মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে হ্যাটট্রিক করার বিরল সম্মান এনে দিয়েছে তা থেকে তিনি সরেননি। দেড় বছর ধরে অনেক অনুনয়, বিনয় করেও রাজ্যের প্রাপ্য বকেয়া আদায় করতে পারেননি। তাই ফের নামছেন আন্দোলনে। তাঁর দু’দিনের ধর্নায় কি কেন্দ্র বাংলায় ১০০ দিনের কাজ চালু করে দেবে? মোটেই না। যারা কোভিডের দোহাই দিয়ে গরিবের ‘ইজ্জত’ মান্থলি বন্ধ করে, আধার ও প্যান কার্ডের সংযোগে দেরি হওয়ায় ঘাড় ধরে হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে, তারা সুযোগ পেলেই গরিবের পেটে লাথি মারবে, এটাই তো স্বাভাবিক। বিরোধী অনৈক্যের সুযোগ নিয়ে নরেন্দ্র মোদি হয়তো ফের একবার প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন, কিন্তু কিছুতেই গরিবের বন্ধু হতে পারবেন না।
মোদি সরকার এত স্বল্পে ভীত কেন?
সমৃদ্ধ দত্ত

১৯৭৫ সালের এপ্রিল মাসে মোরারজি দেশাই অনশনে বসেছিলেন। তাঁর অন্যতম দাবি ছিল এক বছর আগে ভেঙে দেওয়া গুজরাত বিধানসভা আবার গঠনের জন্য অবিলম্বে নতুন করে নির্বাচন ঘোষণা করা হোক। বিশদ

24th  March, 2023
সিআইএ প্রধানের
কুনজরে আসলে কে?
মৃণালকান্তি দাস

মার্কিন গুপ্তচর সংস্থা সিআইএ’র ডিরেক্টর উইলিয়াম জে বার্নস গোটা বিশ্বের কাছে বিশেষ পরিচিত মুখ নন। ফলে, ডিরেক্টর কবে কোথায় যাচ্ছেন, তা নিয়ে এজেন্সি যেমন কোনও আলোচনা করে না, তেমনই দুনিয়ার কেউ ঘুণাক্ষরে টের পায় না তাঁর গতিবিধি। বিশদ

23rd  March, 2023
অন্য স্বাধীনতার লড়াই কি দুর্বল হচ্ছে?
হারাধন চৌধুরী

শেষ জনগণনা রিপোর্ট সামনে এসেছে ২০১১ সালে। ওই রিপোর্টে ভারতের যে নারীচিত্র প্রকাশিত হয়, তা ভয়াবহ। ন্যাশনাল কমিশন ফর প্রোটেকশন অফ চাইল্ড রাইটসের (এনসিপিসিআর) রিপোর্ট অনুসারে, ২০০১ পরবর্তী একদশকে ভারতে ২৯ লক্ষ বাল্যবিবাহের ঘটনা সামনে আসে। বিশদ

22nd  March, 2023
রাজনীতির জটিল জ্যামিতি এবং বিরোধী জোট
শান্তনু দত্তগুপ্ত

রাজনীতি বিষয়টার সঙ্গে বিজ্ঞানের এক অদ্ভুত যোগাযোগ। কখনও মনে হয়, নিউটনের তৃতীয় সূত্রের সঙ্গে এর মিলমিশ সবচেয়ে বেশি। যেমন ক্রিয়া, তার ঠিক সমান এবং বিপরীত প্রতিক্রিয়া। বিশদ

21st  March, 2023
সংসদীয় গণতন্ত্রের ধ্বংসযজ্ঞ চলছে
পি চিদম্বরম

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-ভিত্তিক সংস্থা ফ্রিডম হাউস ভারতকে ‘আংশিকভাবে মুক্ত গণতন্ত্র’-এর স্তরে রেখেছে। এটা ভারতের গণতন্ত্রের পক্ষে অবনমন বলেই ধরতে হবে। অন্যদিকে, সুইডেনের ভি-ডেম ইনস্টিটিউট ভারতকে ‘ইলেক্টোরাল অটোক্রেসি’ আখ্যা দিয়েছে।
বিশদ

20th  March, 2023
দেশের অপমান নিয়েও রাজনীতি!
হিমাংশু সিংহ

রাজনীতি আমাদের মজ্জায়। দুর্নীতি, লোভ আর উচ্চাকাঙ্ক্ষা শিরায় শিরায়। ডানবাম সবাই এই দোষে কমবেশি দুষ্ট। শিক্ষা নিয়ে রাজনীতি বড় কম হয়নি। ধর্ম, সম্প্রদায় নিয়েও লড়াই সপ্তমে। অর্থনীতি, সমাজনীতি, কর্মসংস্থান, কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্ক, দুর্নীতির আমি তুমি, বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণ, সবই সঙ্কীর্ণ দলীয় আকচাআকচির শিকার। বিশদ

19th  March, 2023
মমতাকে চাষি-বিরোধী
প্রমাণ অত সোজা নয়
তন্ময় মল্লিক

মন জয়ের সহজতম উপায় হল, বঞ্চনার অভিমানকে উস্কে দেওয়া। পঞ্চায়েত ভোট আসন্ন। তাই বাংলায় শুরু হয়েছে চাষিদের খ্যাপানোর চেষ্টা। বিরোধীদের দাবি, এরাজ্যের চাষিরা আলুর দাম পাচ্ছেন না। অবস্থা এতটাই নাকি খারাপ যে আলুচাষি আত্মহত্যা করতে বাধ্য হচ্ছেন। বিশদ

18th  March, 2023
জোট করে ভোট? নাকি
ভোটের পর জোট?
সমৃদ্ধ দত্ত

বিজেপি বনাম বিরোধীদের মধ্যে রাজনৈতিক লড়াইয়ে বিরোধীদের বারংবার পরাস্ত হতে হচ্ছে এক ও একটিমাত্র মানদণ্ডে। সেটি হল প্রচার অথবা প্রোপাগান্ডা। প্রচারকে বিজেপি একটি ৩৬৫ দিনের প্রকল্প হিসেবেই গ্রহণ করেছে। পরিণত করেছে উন্নত শিল্পে। বিশদ

17th  March, 2023
ডলারের আধিপত্যে থাবা
মৃণালকান্তি দাস

ডলারের আগে বিশ্বব্যাপী আধিপত্য ছিল ব্রিটিশ মুদ্রা পাউন্ডের। ১৯২০ সাল পর্যন্ত দুনিয়ায় রাজত্ব করেছে এই মুদ্রাই। ডলারের আত্মপ্রকাশের আগে ৫০০ বছর ধরে যেসব মুদ্রা রাজত্ব করেছে তার মধ্যে রয়েছে ব্রিটেন, ফ্রান্স, পর্তুগাল, নেদারল্যান্ডস ও স্পেনের মুদ্রা। বিশদ

16th  March, 2023
এখন বিজেপি ও দ্বিচারিতা শব্দের অর্থ একই
সন্দীপন বিশ্বাস

এ যেন এক অবিশ্বাস্য ঘটনা! মনে হয়, এ আবার হয় নাকি! কিন্তু সেটা যে সম্ভব, তা করে দেখিয়েছে নেদারল্যান্ডস। গত কয়েক বছরে ধীরে ধীরে সেখানে জেল উঠে গিয়েছে। ২০১৮ সালে পুরোপুরি জেল উঠে যায়। বিশাল বিশাল জেলগুলি এখন নানা কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে।
বিশদ

15th  March, 2023
হতাশা ঢাকতে চলছে সংখ্যার কারসাজি
পি চিদম্বরম

২০০৮ সালের কথা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচার পর্ব চলছে। রিপাবলিকান পার্টির প্রচারকে লক্ষ্য করে ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রার্থী বারাক ওবামা বলেছিলেন, ‘একটা শূকরকে আপনি লিপস্টিক দিয়ে সাজাতেই পারেন, কিন্তু সেটা শেষমেশ শূকরই থাকবে।’ 
বিশদ

13th  March, 2023
বিরোধীদের ছত্রভঙ্গ করার গেরুয়া ব্লুপ্রিন্ট
হিমাংশু সিংহ

এবারের বসন্তটা একেবারে আলাদা। ফাল্গুনে প্রকৃতির ফুল, রং, বাহার সবকিছুকেই ছাপিয়ে গিয়েছে বিরোধীদের কোণঠাসা করার মোটা দাগের গেরুয়া কৌশল। বেআব্রু নরেন্দ্র মোদির তৃতীয়বার কেন্দ্রের গদি দখলের ব্লুপ্রিন্ট। ভোটের আগে এজেন্সি লাগাও, আর ফল বেরলে টাকার থলি নিয়ে এমপি-এমএলএ ভাঙাও। বিশদ

12th  March, 2023
একনজরে
শুক্রবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর থানার কালদীঘি এলাকার একটি বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরি হয়। তা নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। পুলিস জানিয়েছে, ওই বাড়িতে থাকেন ওয়ারেশ মিঞা।  ...

সোনার গয়না ও কাঁসার বাসন পালিশ করার নামে অলঙ্কার হাতানোর ঘটনায় এবার বিহার যোগ মিলল। বাঁকুড়া জেলার একাধিক থানা এলাকায় এমন ঘটনায় কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়ে পুলিসের। অবশেষে নাকা চেকিং করে বিহার ও পশ্চিম বর্ধমান জেলার দুই দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করেছে ...

২০১৫ সালের জুলাইয়ে দুই বছরের জন্য আইপিএলে খেলার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছিল চেন্নাই সুপার কিংসের উপর। যার ফলে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে তারা অংশ নিতে পারেনি কোটিপতি লিগে। ...

হরিপাল থানার অন্তর্গত নালিকুল পশ্চিম পঞ্চায়েত অফিসে চুরির ঘটনাকে ঘিরে উত্তেজনা ছাড়াল শুক্রবার। শাসক দলের দাবি, পঞ্চায়েতকে বদনাম করতে চক্রান্ত করছে বিরোধীরা। শুক্রবার সকালে পঞ্চায়েতের এক কর্মী অফিস খুলতে এসে দেখেন জানালা ভাঙা। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সাংগঠনিক কর্মে বড় সাফল্য পেতে পারেন। উপস্থিত বুদ্ধি আর সাহসের জোরে কার্যোদ্ধার। বিদ্যায় সাফল্য। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

 
১৫৭০: পোপ পঞ্চম পায়াম কর্তৃক ব্রিটেনের রানী প্রথম এলিজাবেথ ধর্মচ্যুত হন
১৫৮৬: সম্রাট আকবরের সভাসদ বীরবলের মৃত্যু
১৭৫৪: ইংরেজ কবি উইলিয়াম হ্যামিলটনের মৃত্যু
১৮৪৩: টেমস নদীর বিখ্যাত সুড়ঙ্গ খোলা হয়
১৮৬২: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম কাগজের মুদ্রা চালু হয়
১৮৯৬: আধুনিক অলিম্পিক ক্রীড়ার প্রথম স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়
১৮৯৮: স্বামী বিবেকানন্দ মার্গারেট এলিজাবেথ নোবেলকে দীক্ষান্তে নিবেদিতা নামকরণ করেন
১৯২৭: হকি খেলোয়াড় লেসলি ক্লডিয়াসের জন্ম
১৯৪৮: অভিনেতা ফারুক শেখের জন্ম
১৯৮৪: ক্রিকেটার অশোক দিন্দার জন্ম
২০১০: ভারতীয় বাঙালি আলোকচিত্রী নিমাই ঘোষের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৮১.৪৮ টাকা ৮৩.২২ টাকা
পাউন্ড ৯৯.৩৬ টাকা ১০২.৮০ টাকা
ইউরো ৮৭.৫৯ টাকা ৯০.৭৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৬০,১০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫৭,০০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫৭,৮৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭০,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭০,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১০ চৈত্র, ১৪২৯, শনিবার, ২৫ মার্চ ২০২৩। চতুর্থী ২৬/৪৮ অপরাহ্ন ৪/২৪। ভরণী নক্ষত্র ১৯/৬ দিবা ১/১৯। সূর্যোদয় ৫/৪০/২৩, সূর্যাস্ত ৫/৪৫/২৯। অমৃতযোগ দিবা ৯/৪১ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। রাত্রি ৮/৮ গতে ১০/৩১ মধ্যে পুনঃ পুনঃ ১২/৬ গতে ১/৪১ মধ্যে পুনঃ ২/২৯ গতে ৪/৪ মধ্যে। বারবেলা ৭/১২ মধ্যে পুনঃ ১/১৩ গতে ২/৪৪ মধ্যে পুনঃ ৪/১৪ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ৭/১৪ মধ্যে পুনঃ ৪/১১ গতে উদয়াবধি। 
১০ চৈত্র, ১৪২৯, শনিবার, ২৫ মার্চ ২০২৩। চতুর্থী রাত্রি ৭/৩। ভরণী নক্ষত্র দিবা ৩/৫৯। সূর্যোদয় ৫/৪২, সূর্যাস্ত ৫/৪৬। অমৃতযোগ দিবা ৯/৩৫ গতে ১২/৫৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/১০ গতে ১০/২৯ মধ্যে ও ১২/২ গতে ১/৩৫ মধ্যে ও ২/২১ গতে ৩/৫৪ মধ্যে। কালবেলা ৭/১২ মধ্যে ও ১/১৪ গতে ২/৪৫ মধ্যে ও ৪/১৫ গতে ৫/৪৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/১৫ মধ্যে ও ৪/১২ গতে ৫/৪১ মধ্যে। 
২ রমজান।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মল্লারপুরে উদ্ধার বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র ও বোমা তৈরির মশলা, ধৃত ১
বীরভূমের মল্লারপুর থানার জুবুনি গ্রামে তল্লাশি অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণে ...বিশদ

03:05:16 PM

সিভিক ভলান্টিয়ারদের এক্তিয়ার নিয়ে জারি হল নির্দেশিকা
রাজ্যে সিভিক ভলান্টিয়ারদের দায়িত্ব কী! প্রশাসনিক ও আইনগত দিক দিয়ে ...বিশদ

02:37:00 PM

প্রশ্ন করা থামাব না, সাংবাদিক বৈঠকে বললেন রাহুল
গতকাল সাংসদ পদ খারিজের পর আজ সাংবাদিক বৈঠক করলেন কংগ্রেস ...বিশদ

01:29:00 PM

আদালতে ২ বছরের বেশি সাজাপ্রাপ্ত বিধায়ক-সাংসদদের সদস্যপদ খারিজের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা
কোনও অভিযোগে আদালতে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর দু’বছর বা তার ...বিশদ

12:56:34 PM

দিল্লির ইডি অফিসে হাজিরা দিলেন সিউড়ির ইনস্পেক্টর মহম্মদ আলি

12:48:16 PM

আজ সাংবাদিক বৈঠক করবেন রাহুল গান্ধী
সাংসদ পদ খারিজ হয়ে যাওয়ার পর প্রথম সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি ...বিশদ

12:10:06 PM