Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

রাজনীতি এমন করে মেলাতে পারে না কেন?

হিমাংশু সিংহ: কিছুই হারায়নি। এই সুপ্রাচীন সংস্কৃতি আর স্বতঃস্ফূর্ত মিলনমেলা ঠিক যেমনটি ছিল তেমনই আছে। হাতের কাছেই নিখুঁত গোছানো টানটান। প্রবাসীর ঘরে ফেরা, রাত জেগে উদ্বেল ঠাকুর দেখা, ভোররাতে পায়ে ফোস্কা—সব একই আছে। গত দু’বছর বিশ্বব্যাপী মহামারীর আঘাত, ভোটের স্বার্থে মানুষে মানুষে বিভেদ তৈরির কুটিল ষড়যন্ত্র, মূল্যবৃদ্ধির ধাক্কা, কাজ হারানো শ্রমিকের কান্না, নেতাদের কথা না রাখা, এখানে ওখানে টাকার পাহাড় আবিষ্কার নিশ্চিতভাবে নাড়া দিয়েছে বঙ্গজীবনকে, কিন্তু বদলে দিতে পারেনি অনাবিল মনটাকে। অন্যায় হয়েছে, অপরাধ বেড়েছে। কিন্তু ঢেউ চলে গেলেই সমুদ্রতটের বালুকাবেলা যেমন আগের মতোই একাকার হয়ে যায়, আমাদের জীবনও অবিকল তেমনই। না-হলে রাস্তায় বসে থাকা চাকরিপ্রার্থীদের সুবিচার পাইয়ে দিতে আদালতকে এমন সক্রিয় হতে দেখা গিয়েছে কবে?
আশ্বিন প্রাতে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের মহিষাসুরমর্দিনী রেডিওতে বাজতেই ধরণীর অন্তর ও বহিঃআকাশ বদলের সঙ্গে তাল রেখেই বাঙালি মন আবারও তাই পুজোমুখী। বিশ্বের দরবারে দুর্গাপুজোর অনন্য স্বীকৃতি এবারের উৎসবকে নতুন মাত্রা দিয়েছে। সেই উৎসাহ থেকেই জাতপাত ভুলে বর্ধমানের পুজো সফল করতে ছুটছেন মহম্মদ ইসমাইল। অন্ডালে একই ভূমিকায় মহম্মদ ফিয়াজ। ওদের ধর্ম যাই হোক, নাওয়া-খাওয়ার সময় নেই এই পুজোয়। নিঃসন্দেহে এক বিরল দৃশ্য। এই একটা উপলক্ষ, যার জন্য দেওয়াল লিখতে হয় না, মাইকে সকাল বিকেল গর্জন করতে হয় না। বিজ্ঞাপন দিতে হয় না। ‘ব্রিগেড চলুন’ পোস্টার সাঁটাতে হয় না। স্ট্রিট কর্নার করতে হয় না। পাঁজি, নির্ঘণ্ট কোনও কিছুর খোঁজ না রাখলেও আপনাআপনি মনটা কেমন অন্যরকম হয়ে যায়। কোনও কিছুর তোয়াক্কা না করেই পেঁজা তুলোর মতো উড়ে যায় এক মণ্ডপ থেকে অন্যত্র একান্ত প্রিয়জনের হাত ধরে। কেমন যেন একটা মন হারানো সুর কড়া নাড়ে দরজায়। সবার অজান্তেই ‘মা আসছেন’, এই অমোঘ ধ্বনি পৌঁছে যায় ধনীর সাতমহলা থেকে কুঁড়েঘরের ভগ্ন দালানের চুনসুরকি খসা কড়ি-বরগায়, টালির চালে। এঁদোগলি থেকে রাজপথের সর্বত্র। ম্যাজিকের মতো আপামর বাঙালির এই চারদিনের বদলে যাওয়া জীবন চর্চায় ধনী-দরিদ্র, হিন্দু-মুসলিম, তৃণমূল, বিজেপি, বাম কোনও বিভেদই কাজে আসে না। খামতি ঢাকতে রাজনৈতিক দলগুলো জনসংযোগে ঝাঁপায় বটে, তাতে যেন কোনও ভ্রুক্ষেপই নেই মানুষের। ধর্ম যার যার, উৎসব সবার—এই আপ্তবাক্যটির মর্মার্থ আর কোনও সময় এমন জীবন্ত হয়ে ধরা পড়ে না দৈনন্দিন যাপনে। এই ক’দিন কলকাতা থেকে ক্যালিফোর্নিয়া আমাদের একটাই পরিচয়—বাঙালি। সেই আবহমান সংস্কৃতির এমন উচ্চকিত উদযাপন আর কোথায় মেলে? কেউ জানলে সন্ধান দেবেন। সেইসঙ্গে রাজনীতির ওস্তাদ কারবারিদের কাছে প্রশ্ন, তাঁরাও তো চেষ্টা করলেই মানুষকে ছোট ছোট গোষ্ঠীতে বিভক্ত করার বদলে একই বৃন্তে ঠাঁই করে দেওয়ার প্রয়াসে ব্রতী হতে পারেন? কিন্তু তা করেন না কেন? রাজনীতির সুখ কি শুধু ভাঙনেই? বোধ আর অনুভবকে ভোঁতা করে মানুষে মানুষে সুদীর্ঘ প্রাচীর তুলে দেওয়ায়!
যত দিন যাচ্ছে পুজো ততই এগিয়ে আসছে। চার নয়, দশদিনের উৎসবে পরিণত হচ্ছে। আমাদের ছোটবেলায়ও ষষ্ঠীর আগে বড় একটা ঠাকুর দেখার চল ছিল না। আস্তে আস্তে তার ব্যাপ্তি বাড়ছে। গতবারও তৃতীয়া-চতুর্থীর আগে ফুটপাত লাগোয়া বাঁশের বেড়ার ঘেরাটোপে মানুষকে বড় একটা হাঁটতে দেখিনি। আর এবার মহালয়া কিংবা তারও আগে থেকেই ঠাকুর দেখার ভিড় শুরু হয়ে গিয়েছে। অধিকাংশ ঠাকুর কুমোরটুলি থেকে মণ্ডপে চলে গিয়েছে মহালয়ার মধ্যেই। কোথাও থিম তো কোথাও আবার সাবেকিয়ানার জয়গান, সর্বত্রই আয়োজন সম্পূর্ণ। মহালয়া থেকেই সব দুঃখ, পরাজয়, ব্যর্থতা, না-পাওয়া ভুলে মানুষ হেঁটে চলেছেন—দেবীদর্শনে, না নিজেকে এই আনন্দোৎসবের অকৃত্রিম যাত্রায় শামিল করতে। সেই ভিড়ে ধর্ম সম্প্রদায় কোনওদিন প্রাচীর হয়ে ওঠেনি। দেওয়াল তুলে দেয়নি কোনও রাজনৈতিক রং। একই কারণে, এই রবিবার থেকে একটা সপ্তাহ যাবতীয় চর্চা আর আড্ডাতেও পুজো ছাড়া আর কিছুই ঠাঁই পায় না বঙ্গজদের সুসজ্জিত ড্রইংরুম থেকে আটপৌরে চায়ের দোকানে। মা যতক্ষণ মর্তে, রাজনীতির কূটকচালি নেতাদের জারিজুরি, ভোলবদল, ডিগবাজি সব ব্রাত্য!
অফিস থেকে বাড়ি ফেরার সময় উত্তর কলকাতার টালাপার্কে দেখেছি, দুই ভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ কেমন একই লাইনে সারিবদ্ধভাবে এগচ্ছেন প্রত্যয়ের সঙ্গে মায়ের ভুবনভোলানো মুখ চাক্ষুষ করতে। একই ছবি পার্কসার্কাসেও। শ্রীভূমি, একডালিয়া, চালতাবাগান, সুরুচি সঙ্ঘ, কলেজস্ট্রিট, চেতলা অগ্রণী সর্বত্র। শুধু বদলে যায় স্থান-কাল, আঙ্গিক আর সাজ। আসলে সবটাই যেন একই ক্যানভাসের অংশ। সব ভুলে কেমন যেন মন্ত্রমুগ্ধের মতো পলকহীন দৃষ্টিতে চেটেপুটে নিতে চায় এই আনন্দযজ্ঞের ভাগটুকু। কোনও রাজনৈতিক সভা নয়। নানা ছুতোয় বিক্ষোভ দেখানোর দু’শো ফিরিস্তিও নয়, স্রেফ একটা পুজো কত কাছে নিয়ে আসতে পারে সব রং, সব আয় ও ধর্মের মানুষকে। আমাদের নেতানেত্রীরা যখন ক্রমাগত বিভাজনের তাস খেলেন, মানুষে মানুষে দূরত্ব রচনা করে ভোট কুড়নোর খেলায় মত্ত হয়ে ওঠেন, কিন্তু সবকিছুকে ছাপিয়ে জিতে যায় বাঙালির এই উৎসব। এই মিলনমেলা ছাপিয়ে যায় স্বার্থান্বেষীদের চক্রান্ত থেকে যাবতীয় ব্যক্তিগত দুঃখ আর চোখের জলের নির্মম আর্তিকেও।
করোনায় মারা গিয়েছে বাড়ির একমাত্র রোজগেরে ছেলে অনির্বাণ। সেই কুড়ি সালের আগস্ট থেকে ও বাড়িতে আলোটা কেমন ম্লান। একুশের শ্রাবণে ভালো পাত্র দেখে ঘটা করে বাড়ির বড় মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন তুষার ভট্টাচার্য। বছর ঘুরতে না ঘুরতেই সব পাঠ চুকিয়ে মেয়ে ফিরে এসেছে বাপের ঘরে। অনন্তবাবু অনেক কষ্ট করে সারাজীবনের সঞ্চয় ভাঙিয়ে ছেলেকে বিদেশে পাঠিয়েছেন পাঁচ বছর আগে। কিন্তু বিদেশে চাকরি পেয়ে ছেলে ওখানেই বিয়ে করে সেটল করেছে। আর বৃদ্ধ বাবা-মাকে মনে রাখেনি। অনন্তবাবু ও তাঁর স্ত্রী এখন নিঃসহায়। কোনওক্রমে ডালভাতটুকু জুটে যায়। ওষুধের খরচেও বেজায় টান। পোস্ট অফিসের ওই ক’টা টাকায় আর কী হয়! এই সব হাজারো ক্ষয় আর সব হারানো সর্বনাশের গল্প থেকে একটুকু আলোর ছোঁয়া আর স্বস্তি দিতেই যেন আবির্ভাব হয় তাঁর। বিশ্বজননীর। সুন্দরবনের প্রান্তিক মানুষ থেকে উত্তরে চা বাগানের শীর্ণ শ্রমিক সবার রক্তেই একটু জীবন খেলে যায়। বাংলার সীমা ছাড়িয়ে সব দেশে সব কালে সর্বজনীন তাঁর আবেদন। এই গ্রহে যেখানেই বাঙালি আছে সেখানেই। 
মহাসপ্তমীর এই পুণ্য মুহূর্তে কামনা একটাই, এই আলো আর উৎসবের বন্যায় ভেসে যাক যাবতীয় দুঃখ আর না-পাওয়ার অন্ধকার। অমৃত ছোঁয়া ছড়িয়ে পড়ুক প্রত্যেকের জীবনে। পুজো সবার ভালো কাটুক, শান্তিতে কাটুক। দেবীর মুখের দীপ্তি আর আলো যাবতীয় অন্ধকার ঢেকে দিয়ে নতুন ভোর নিয়ে আসুক মর্তলোকে।
02nd  October, 2022
কতটা আয় করলে তাকে গরিব বলা যায়
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষগুলোই সমাজের আসল রূপ দেখতে পায়। —হুমায়ুন আহমেদ
বহুল প্রচলিত একটা গল্প মনে পড়ল। রাজার উপর এক ভিক্ষুকের ভয়ানক ঈর্ষা। রাজার কতই না আরাম! তিনি সর্বক্ষণ ভালোমন্দ খেতে পারেন, দামি জামা পরেন, নরম গদির পালঙ্কে ঘুমোতেও পারেন।
বিশদ

মুখ্যমন্ত্রীর ক্ষমতা প্রত্যাশীরা
পি চিদম্বরম

কিছু লোকের আবার ওয়েস্টমিনস্টার সিস্টেম পছন্দ নয়। একইভাবে, তারা রাজ্যটাজ্য পছন্দ করে না; তাদের পছন্দ নয় নির্বাচিত বিধানসভা; এবং তারা মুখ্যমন্ত্রীদেরও পছন্দ করে না। সংক্ষেপে এটাই বলতে হয় যে, তারা রাজ্য সরকারগুলির থেকে পরিত্রাণ চায়। ১৪২ কোটি ৬০ লক্ষ জনসংখ্যার চীনের যদি একটি সরকার থাকতে পারে, তবে ১৪১ কোটি ২০ লক্ষ জনসংখ্যার ভারতেরও তা থাকবে না কেন?
বিশদ

28th  November, 2022
গুজরাত নিয়ে মোদির এত ভয় কীসের?
হিমাংশু সিংহ

‘গত দু’দশক ধরে পাকাপাকি শান্তি বিরাজ করছে গুজরাতে। ওদের উচিত শিক্ষা দেওয়া হয়েছে।’ ভোটপ্রচারের চূড়ান্ত পর্বে অমিত শাহের মুখে এই ‘সাম্প্রদায়িক’ কথাগুলি কীসের ইঙ্গিত? সমঝদার মানুষ মাত্রই বলবেন, ‘ইশারাই কাফি।’ বিশদ

27th  November, 2022
দেউচা-পাঁচামি ও কিছু অঙ্ক
তন্ময় মল্লিক

মহম্মদবাজারের দেওয়ানগঞ্জে মেঠো রাস্তার ধারে লুলু টুডুর ছোট্ট চায়ের দোকান। দোকান নয়, ঝুপড়ি বলাই ভালো। এলাকায় বসতি তেমন নেই।
বিশদ

26th  November, 2022
মোদির রাজত্বে ক্ষতি বিজেপিরই
সমৃদ্ধ দত্ত

সেই স্লোগানের নাম ছিল শাইনিং ইন্ডিয়া। ২০০৪ সাল। আর এখন নয়া স্লোগানের নাম অমৃতকাল। সামনেই ২০২৪ সাল। ২০ বছরে ভারত অনেক পাল্টেছে। পাল্টেছে রাজনীতি। রাজনৈতিক সমীকরণ। পাল্টেছে নেতা-নেত্রী। পাল্টে গিয়েছে জনতার মনোভাব। বিশদ

25th  November, 2022
সন্ত্রাসের মুদ্রা তৈরির নেপথ্যে
মৃণালকান্তি দাস

গোপন খবর ছিল সিবিআইয়ের কাছে। সেই সূত্র ধরেই ভারত-নেপাল সীমান্তের বিভিন্ন ব্যাঙ্কের প্রায় ৭০টি শাখায় আচমকা হানা। উদ্ধার বিপুল পরিমাণ জাল নোট। সালটা ২০০৯-১০। বিশদ

24th  November, 2022
দেশের অর্থনীতি এগচ্ছে আরও ধ্বংসের দিকে
সন্দীপন বিশ্বাস

এর আগে আমাদের দেশে দু’বার রিসেশনের আভাস দেখা গিয়েছিল। ১৯৯১ সালে এবং ২০০৮ সালে। মনে রাখা দরকার, দু’বারই ভারত যে মানুষটির হাত ধরে তা এড়িয়ে যেতে সক্ষম হয়েছিল, তাঁর নাম মনমোহন সিং। একবার তিনি ছিলেন অর্থমন্ত্রী, অন্যবার প্রধানমন্ত্রী। এখন মোদির পরীক্ষা। অবশ্য এর মোকাবিলার জন্য শিক্ষা, মেধা, বিচক্ষণতার প্রয়োজন। গত সাড়ে আট বছরের রাজত্বকালে এই সরকার তার কণামাত্রও দেখাতে পারেনি। দেশের মানুষের আতঙ্কটা সেখানেই।
বিশদ

23rd  November, 2022
মোদিজি, আপনি হয়তো জানেন না...
শান্তনু দত্তগুপ্ত

যোগী আদিত্যনাথ কি অনামিকা শুক্লাকে চেনেন? নাঃ, তিনি কোনও সেলিব্রিটি বা গো-রক্ষক নন, একজন ‘প্রাক্তন শিক্ষিকা’। এঁর বিশেষত্ব হল, ধাপ্পাটাকে তিনি শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে চলে গিয়েছিলেন।
বিশদ

22nd  November, 2022
গুজরাত, কোনও অনুসরণযোগ্য মডেল নয়
পি চিদম্বরম

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অক্টোবর থেকে বেশ কয়েকবার গুজরাত সফর করেছেন। আশা করা হচ্ছে, রাজ্যে ১ ও ৫ ডিসেম্বর নির্বাচনের আগে, নভেম্বরে আরও কয়েকবার সফর করবেন তিনি।
বিশদ

21st  November, 2022
তিন বছরের শিশুর ‘জন্মদিন’ নিয়েও রাজনীতি?
হিমাংশু সিংহ

একুশের বিধানসভা ভোটের বিপর্যয় কাটার কোনও দিশা নেই। উল্টে আসন্ন পঞ্চায়েত ভোটে জেলায় জেলায় গেরুয়া দলের নিচুতলার প্রতিনিধি খুঁজতে হিমশিম অবস্থা। সঙ্গে গা-ঝাড়া দেওয়া বামেদের ভোটবৃদ্ধি সঙ্কটে ফেলেছে।  বাধ্য হয়ে তাই টেট পরীক্ষার্থীদের পর্যন্ত ভোটে দাঁড়ানোর টোপ দিতে হচ্ছে। কিন্তু এক শিশুর জন্মদিন ঘিরে মিথ্যে রটনা করে রাজ্যেরই একজন পোড়-খাওয়া নেতা যা করলেন তাকে আর যাই হোক সভ্যতার উদাহরণ বলা যায় না।
বিশদ

20th  November, 2022
মার খেয়েছে ভোটে, তাই
বাংলাকে মারছে ‘ভাতে’
তন্ময় মল্লিক

বিজেপি ভাবছে, ১০০ দিনের কাজে টাকা বন্ধ করে দিলে গরিব মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর ক্ষেপে গিয়ে ঝুঁকবে গেরুয়া শিবিরের দিকে। পঞ্চায়েত ভোটে কিছু কিছু জায়গায় বিজেপির এটাই গেমপ্ল্যান। কিন্তু শুধু কিছু ভোট পাওয়ার আশায় ১০০ দিনের মতো জনপ্রিয় সামাজিক প্রকল্পকে গোটা রাজ্যে বন্ধ করে দিতে হবে? দুর্নীতি যারা করেছে, তাদের ঘাড় ধরে জেলে ঢোকানো হোক, কিন্তু লক্ষ লক্ষ গরিব মানুষের পেটে লাথি মারা হচ্ছে কেন? একটা বা দু’টো পরীক্ষা কেন্দ্রে গণটোকাটুকি হলে কি বাতিল করে দেওয়া যায় গোটা বোর্ডের পরীক্ষা?
বিশদ

19th  November, 2022
সরকার শীতঘুমে,
হচ্ছে দক্ষ কর্মী ছাঁটাই
সমৃদ্ধ দত্ত

বিশ্বের বৃহত্তম ই-মার্কেটিং সংস্থা আমাজন প্রায় ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনা নিয়েছে। ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে সেই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন। টুইটার কোম্পানির মালিকানা বদল হওয়ার পর নতুন মালিক বিশ্বের অন্যতম ধনী ব্যক্তি এলন মাস্ক প্রথম যে কাজটি করেছেন, সেটি হল ছাঁটাই। বিশদ

18th  November, 2022
একনজরে
কোয়ারেন্টাইন পর্ব শেষ। এবার দু’টি মেয়ে চিতাকে মধ্যপ্রদেশের কুনো জাতীয় পার্কের বড় এনক্লোজারে ছাড়া হল। ডিভিশনাল ফরেস্ট অফিসার পি কে ভার্মা জানিয়েছেন, সাফল্যের সঙ্গেই এই ...

ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত টানটান উত্তেজনা। শেষপর্যন্ত ক্যামেরুন ও সার্বিয়ার ম্যাচটি ৩-৩ গোলে শেষ হয়। সোমবার আল জানুব স্টেডিয়ামে রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে প্রতি মুহূর্তে পেন্ডুলামের ...

গোরুপাচার মামলায় এবার তিন আইপিএস আধিকারিককে দিল্লিতে তলব করতে চলেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। এর মধ্যে একজন প্রাক্তন ও দু’জন বর্তমানে কর্মরত। ...

পশ্চিমবঙ্গ মাছ উৎপাদনে স্বয়ম্ভর হওয়ার দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ভিন রাজ্য থেকে মাছের সরবরাহ আগের তুলনায় অনেক কমেছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সব কর্মেই শুভ ফল প্রাপ্তির সম্ভাবনা। হঠকারী সিদ্ধান্তে ক্ষতির আশঙ্কা। ধনপ্রাপ্তি যোগ অনুকূল। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৭৫: স্যার জেমস জে অদৃশ্য কালি আবিষ্কার করেন
১৭৯২: মার্ক উডের করা সমগ্র কলকাতার নকশা প্রথম প্রকাশ করেন মি. বেইলি
১৮৯৭: ইংল্যান্ডের সারেতে প্রথম মোটরসাইকেল রেস হয়
১৯১০: ট্রাফিক বাতির পেটেন্ট হয়
১৯৩৬: অভিনেতা শুভেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৪৪: ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান অ্যানিমেটর ও লেজারশিল্পী তথা জাদুকর পিসি সরকারের জ্যেষ্ঠ পুত্র মানিক সরকারের জন্ম
১৯৪৯: রস-সাহিত্যিক কেদারনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৫১: অভিনেতা প্রমথেশ বড়ুয়ার মৃত্যু
১৯৯৩: জে আর ডি টাটার মৃত্যু
২০০১: জনপ্রিয় গায়ক এবং গিটারিস্ট জর্জ হ্যারিসনের মৃত্যু
২০১১: লেখিকা ইন্দিরা গোস্বামীর মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৮০.৮৬ টাকা ৮২.৬০ টাকা
পাউন্ড ৯৭.৩৬ টাকা ১০০.৭৪ টাকা
ইউরো ৮৩.৮৯ টাকা ৮৬.৯৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৩,৪০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫০,৬৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫১,৪০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬২,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬২,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২। ষষ্ঠী ১২/৩৬ দিবা ১১/৫। শ্রবণা নক্ষত্র ৬/২৯ দিবা ৮/৩৮। সূর্যোদয় ৬/২/২৯, সূর্যাস্ত ৪/৪৭/১৩। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৫ মধ্যে পুনঃ ৭/২৮ গতে ১১/৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/২৬ গতে ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ৮/১২ গতে ১১/৫১ মধ্যে পুনঃ ১/৩৭ গতে ৩/২৪ মধ্যে পুনঃ ৫/৯ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/২৬ মধ্যে। বারবেলা ৭/২৪ গতে ৮/৪৪ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৬ গতে ২/৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৬ মধ্যে।  
১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২। ষষ্ঠী দিবা ৩/৪৫। শ্রবণা নক্ষত্র দিবা ১/৪৩। সূর্যোদয় ৬/৪, সূর্যাস্ত ৪/৪৭। অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে ও ৭/৪২ গতে ১১/১৩ 
মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩২ গতে ৮/২৬ মধ্যে ও ৯/২০ গতে ১২/১ মধ্যে ও ১/৪৯ গতে ৩/৩৬ মধ্যে ও ৫/২৪ গতে ৬/৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/৩২ মধ্যে। বারবেলা ৭/২৪ গতে ৮/৪৫ মধ্যে ও ১২/৪৬ গতে ২/৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৬ মধ্যে।
৪ জমাদিয়ল আউয়ল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কাতারের কড়চা: অদম্য ব্রিটিশ সমর্থক গ্রেগরি
 

পল গ্রেগরি ওরফে ট্যাঙ্গো। অতি পরিচিত ব্রিটিশ সমর্থক। তিনি এখন ...বিশদ

12:50:08 PM

আলিপুর জেল মিউজিয়ামে যাবেন বিধায়করা
আগামিকাল বিধায়কদের আলিপুর জেল মিউজিয়ামে নিয়ে যাওয়া হবে। বিধানসভার অধিবেশন ...বিশদ

12:31:18 PM

দ্য কাশ্মীর ফাইলস নিয়ে মন্তব্য করায় ইজরায়েলি পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের আইনজীবীর

12:29:00 PM

হিঙ্গলগঞ্জে পৌঁছে বনবিবি মন্দিরে পুজো দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

12:27:10 PM

বিধানসভায় বিজেপি বিধায়কদের ওয়াকআউট
প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিজেপির আনা মুলতুবি প্রস্তাব খারিজ স্পিকারের। ...বিশদ

12:21:00 PM

এমবাপের জরিমানা
ডেনমার্কের বিরুদ্ধে জোড়া গোল করে ম্যাচের নায়ক তিনিই। পান সেই ...বিশদ

12:19:49 PM