Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

বিদ্বেষের এই পাশাখেলা...
সন্দীপন বিশ্বাস

মিথ্যা প্রচার কিংবা বিদ্বেষ যে কোনও সরকারের প্রধান লক্ষ্য হতে পারে, মোদি অ্যান্ড কোম্পানিকে না দেখলে বিশ্বাসই করা যেত না। সরকার এই দু’টো ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রতিদিন ভারতের গণতন্ত্রকে টুকরো টুকরো করে দিচ্ছে। আর মিথ্যার বেসাতি করে আমাদের মোহাবিষ্ট করতে চাইছে। নতুন ভারত গড়ার ভুয়ো স্বপ্নের কথা বলে দেশের ভবিষ্যৎকে অন্ধকারাচ্ছন্ন করে তুলছে এই সরকার। আজকের ভারতকে দেখেই বোঝা যাচ্ছে, সে কোন পথের পথিক! তবে ওসবের পরোয়া করেন না তিনি। কেননা, তাঁর এখন পাখির চোখ ২০২৪ সালের ভোট। সেই দিকে তাকিয়ে বিদ্বেষের পাশাখেলা আরও বেশি করে খেলতে শুরু করেছেন। জানেন তিনি, সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষের বিষে দেশ যত বিপন্ন হবে, সম্প্রীতি যত ক্ষুণ্ণ হবে, হানাহানি যত বাড়বে, তাঁর জয়ের প্রত্যাশা ততই পূর্ণ হয়ে উঠবে। 
মোদি-শাহ জুটি ভালো করেই জানেন, তাঁদের ব্যর্থতার রিপোর্ট কার্ড দেখিয়ে ২০ শতাংশ ভোটও আসবে না। তাই এখন থেকেই চলছে জল ঘোলা করার খেলা। সেই জলে ক্ষমতার মাছ ধরার জন্য ছিপ ফেলবে বিজেপি। এখন থেকেই শুরু সেই খেলা। কীভাবে খেলাটা শুরু হল? বারাণসীতে জ্ঞানবাপী মসজিদ, দিল্লিতে কুতুব মিনার, আগ্রায় তাজমহল এবং মথুরায় ইদগা। এগুলির মাধ্যমে স্বচ্ছ জলকে সাম্প্রদায়িকতার কাঠি দিয়ে নেড়ে বাজিমাতের ছক। আদবানিরা প্রথম ক্ষমতা দখলের আগে অযোধ্যার বাবরি মসজিদকে ইস্যু করেছিলেন। মোদিজি ২০১৪ সালের ভোটে রামমন্দিরকে ইস্যু করেছিলেন। ২০১৯ সালের ভোটে তাঁর পালে হাওয়া দিয়েছিল পুলওয়ামা কাণ্ডকে ঘিরে প্রমোট করা দেশভক্তি। এখন রামমন্দির ইস্যু আর নেই। সেই মন্দির প্রস্তুতির পথে। পাকিস্তান এখন দুর্বল। তাকে নিয়ে খুব একটা ইস্যু করা সম্ভব নয়। অগত্যা ইস্যু খুঁজে বের করেছেন মোদিজিরা। এবার মোদিজিদের টার্গেট, দেশজুড়ে হিন্দুত্ব নিয়ে এমন শোর মাচাতে হবে, যাতে টানটান উত্তেজনা তৈরি হয়। দুই সম্প্রদায়ের মানুষের মনের একটি বৃন্তে দু’টি কুসুমের ঐশ্বরিক ভাবনাকে জলাঞ্জলি দিয়ে পারস্পরিক হিংসায় মাতিয়ে দিতে হবে। ওই বিষ ভাবনাটুকুই মোদির ক্ষমতা জয়ের সোপান গড়ে তুলতে পারে, এমনই ছক কট্টর গেরুয়াপন্থীদের। সেই ছকে দেশের মানুষকে ভুলিয়ে দিতে হবে যে, পেট্রল-ডিজেলের দাম নাগালের বাইরে, টাকার দাম প্রতিদিনই পড়ে যাচ্ছে। জিনিসের দাম ঝড়ের 
গতিতে বেড়ে যাচ্ছে, চাকরি পাওয়ার আশা 
মরীচিকা। বাস্তব জীবনের এইসব কষ্ট ভোলাতে মানুষকে মাদক সেবন করানো দরকার। সেই মাদক হল জাতিগত হিংসা, সম্প্রদায়গত হিংসা এবং 
বিকৃত হিন্দুধর্মের প্রসার। মানুষের রক্তে সেই 
হিংসা ঢুকিয়ে দিয়ে সরকার পরস্পরকে যুযুধান করে মাঠে নামিয়ে দিতে চাইছে। ডিভাইড অ্যান্ড রুল। জ্ঞানবাপী, তাজমহল, কুতুব মিনার আর ইদগা নিয়ে পায়ে পা দিয়ে ঝগড়া করার বার্তা চলে গিয়েছে 
কট্টর নেতাদের কাছে। চলছে এখন তারই সলতে পাকানোর পর্ব। অযোধ্যার রাম জন্মভূমির পর এবার টার্গেট মথুরার কৃষ্ণ জন্মভূমি।
অথচ কী নির্মম প্রেক্ষাপট! দুই সম্প্রদায়ের মানুষই যখন সঙ্কটে দিশাহারা, তখন তাঁদের কানে বিষ ঢালা হচ্ছে। এর থেকে দেশের মানুষকে সতর্ক থাকতে হবে। এই সময়ে মিথ্যা উস্কানিতে আবেগপ্রবণ হয়ে পরস্পরের প্রতি লাঠালাঠি করলে আমাদের চলবে না। বরং সতর্ক হয়ে দেখতে হবে, হিংসার সমুদ্র মন্থন থেকে উত্থিত ক্ষমতার অমৃতটুকু মোহিনীর বেশে গেরুয়াপার্টি যেন চুরি করে নিয়ে না যায়। তাহলে আমাদের পাতে শুধু গরলটুকুই পড়ে থাকবে।   
অবশ্য আমরা তো এখনই প্রতিদিনই গরল পান করে চলেছি। মোদির একের পর এক ব্যর্থতার গরলে আমাদের জীবন বিষময় হয়ে উঠেছে। মোদির ব্যর্থতার হাজার খতিয়ান লেখা হচ্ছে প্রতিদিন। সমস্ত সমীক্ষা আর বিশ্লেষণে উলঙ্গ রাজার মিথ্যা গরিমার রাংতার মুকুট ভূলুণ্ঠিত। সংবাদপত্রে স্বাধীনতার সূচকে ভারতের স্থান বিশ্বে ১৫০ নম্বরে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতন্ত্রের দেশকে কোথায় নামিয়ে এনেছেন মোদিবাবুরা! এখানেই শেষ নয়, লিঙ্গ বৈষম্য সূচকে ভারত ১৪০ নম্বরে, বিশ্বের ক্ষুধার সূচকে ভারতের স্থান ১০১। বিশ্বে শান্তির সূচকে ভারতের স্থান অনেক পিছনে। যুব উন্নয়নে, মানবাধিকারে ভারত পিছনের সারির দেশগুলির সঙ্গে গোঁতাগুঁতি করছে। এরকম প্রচুর ক্ষেত্র রয়েছে, যেখানে সারা বিশ্বের কাছে মোদি-রাজ ভারতের মাথা হেঁট করে দিয়েছে। ভারতবাসী হিসেবে বিশ্বের কাছে আমাদের যে গৌরব ছিল, তা আজ আর নেই। দেশ যা ছিল আর দেশ যা হয়েছে, তার মধ্যে লেগে আছে রাজার বিভ্রান্তির অভিশাপ। অথচ এসব বিষয় মোদি-রাজের কাছে কোনও ইস্যুই নয়। দেশকে এই গাড্ডায় পড়ে যাওয়া থেকে তুলে ধরার চেষ্টাও দেখা যায় না। তার কারণ, এই ধরনের ভালো কাজ করার জ্ঞানটুকু বা অভ্যাস যে তাঁদের নেই, তা গত আট বছরের কেরামতি থেকেই বোঝা গিয়েছে। তাই যেটা তাঁরা পারেন, সেটাই করছেন। হিংসার বিস্তার করতেই ব্যস্ততা দেখা যাচ্ছে। হিংসাই যেন আজ ভারতের মর্মবাণী। তাহলে কি বিশ্বে আমরা সব ব্যাপারেই পিছিয়ে আছি? না। সমীক্ষা বলছে, কিছু কিছু ব্যাপারে আমরা এগিয়েও আছি। যেমন বিশ্বে দাসত্বের সূচকে আমাদের স্থান চার নম্বরে, খুনোখুনির সূচকে আমাদের স্থান বিশ্বে দুই নম্বরে, ব্যক্তিগত সংগ্রহে আগ্নেয়াস্ত্র রাখার সূচকে আমাদের দেশ দুই নম্বরে। এই সমীক্ষাই বলে দেয়, আমাদের দেশকে মোদি কোন পথে ঠেলে দিয়েছেন।  
মোদি কয়েকদিন আগেই সারা বিশ্বকে আশ্বাস দিয়ে বলেছিলেন, ভারতের হাতে রয়েছে অফুরন্ত খাদ্যভাণ্ডার। আমাদের দেশের চাষিরা সারা বিশ্বকে খাওয়াতে পারে। একথা বলে মোদি সারা বিশ্বের কাছে কৃষক দরদি সাজার ভান করলেও এদেশের সবাই জানেন, কীভাবে তিনি দেশের কৃষকদের দুর্বিপাকে ফেলতে চেয়েছিলেন। কৃষিবিল এনে তিনি ভারতীয় চাষিদের দাসে পরিণত করতে চেয়েছিলেন। ভারত ছিল একদা শস্য ও সম্পদে অন্যতম সেরা দেশ। কিন্তু তার হাল আজ সত্যিই খারাপ। লক্ষ্মী আজ অচলা। একেবারে সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের পদক্ষেপ বুঝিয়ে দিয়েছে, ভারতের খাদ্য নির্ভরতা শক্তিতে টান পড়েছে। বিদেশে গম রপ্তানি বন্ধ করতে হয়েছে ভারতকে। গম রপ্তানির মাধ্যমে আমাদের হাতে আসত প্রচুর বিদেশি মুদ্রা। বিশেষ করে রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের মধ্যে ভারতের সামনে ছিল সারা বিশ্বে গম রপ্তানি করে প্রচুর বিদেশি মুদ্রা আয় করার সুযোগ। তা নষ্ট হল। উপায় নেই বলেই সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারলেন না মোদিরা। 
আমরা জানি যে দেশের বিদেশি মুদ্রা ভাণ্ডার যত শক্তিশালী, সেই দেশের অর্থনৈতিক বনিয়াদ ততই মজবুত। আমাদের সেই মজুত বিদেশি অর্থ ভাণ্ডারে ধস নেমেছে। গম রপ্তানি করে সেই অর্থ ভাণ্ডারকে শক্তিশালী করা যেত। কিন্তু তা সম্ভব হল না, আমাদের খাদ্য ভাণ্ডার দুর্বল হয়ে পড়ায়। সরকার স্বীকার না করলেও তার কতকগুলি পদক্ষেপ সেই ইঙ্গিতই করছে। আর কিছুদিনের মধ্যেই আমাদের দেশের রেশন ব্যবস্থায় তার চাপ মালুম হবে। ইতিমধ্যেই তার লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করেছে। মোদি সরকার রাজ্যগুলিকে বলে দিয়েছে, তারা প্রয়োজনীয় গম দিতে পারবে না।
মোদির মতো অযোগ্য প্রধানমন্ত্রীর হাতে পড়ে ভারতের সব সম্পদ একে একে বিনষ্ট হয়ে যাচ্ছে। দেউলিয়া হওয়ার সব লক্ষণ ফুটে উঠছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে মনে পড়ে যাচ্ছে, শ্রীলঙ্কার সাম্প্রতিক ছবিগুলি। প্রশ্ন জাগতেই পারে, তাহলে কি নতুন পথ দেখাচ্ছে শ্রীলঙ্কা? শেষ পর্যন্ত শাসকের ব্যর্থতার বিচার হবে প্রকাশ্য জনতার আদালতে? শ্রীলঙ্কার সদ্য ইতিহাস জনগণ অভ্যুত্থানের নিদর্শন হয়ে রইল। যদিও ব্যর্থ রাষ্ট্রনায়কদের ধরে ধরে এই প্রহার, তাঁদের প্রতি এই নিষ্ঠুর আচরণ মেনে নেওয়া যায় না, তা গণতন্ত্রের পরিপন্থী। কিন্তু সর্বহারা জনতা আইন মানে না। তাই তাদের নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। তবে এটা ঠিক, শ্রীলঙ্কার শাসকরাই দেশটাকে এই পরিণতির দিকে ঠেলে দিয়েছিলেন। শ্রীরামচন্দ্রের কাছে প্রার্থনা করব, মোদির ভারত যেন সেই পথে না যায়।
18th  May, 2022
প্যাকেজিংয়ের ঘোড়ায়
বিভাজনের সওয়ারি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

সংস্কারের ঘোড়ায় চেপে প্রবল গতিতে ছুটে চলেছেন মোদিজি। তাই তো দখল হচ্ছে একের পর এক রাজ্য। একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই! থোড়াই কেয়ার। নানা ছক বেরিয়ে আসছে আস্তিন থেকে। তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ছে একের পর এক রাজ্য সরকার। এত ব্যস্ততার মধ্যে নূপুর শর্মার মতো ছোট্ট ইস্যুতে কি সত্যিই কথা বলা যায়?
বিশদ

দু’টি বিভক্ত গণতন্ত্র
পি চিদম্বরম

ভারত এমনিতেই বর্ণ, ধর্ম, ভাষা এবং লিঙ্গ বৈষম্যে বিভক্ত। এরপর বিজেপির সংখ্যাগরিষ্ঠের আধিপত্যবাদ এবং নীতির কেন্দ্রীকরণে ভারত নতুনভাবে আরও বিভক্ত হয়ে চলেছে। … আপনি কি কখনও কল্পনা করেছিলেন যে এমন একটি দিন আসবে যখন দু’টি বৃহৎ যুক্তরাষ্ট্রীয় গণতন্ত্র বিভক্ত হবে?
বিশদ

04th  July, 2022
বিজেপির পরের লক্ষ্য কি বিহার ও রাজস্থান?
হিমাংশু সিংহ

জার্মানির মাটিতে দাঁড়িয়ে জরুরি অবস্থার আদ্যশ্রাদ্ধ করছেন প্রধানমন্ত্রী। সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার পক্ষে লম্বা চওড়া সওয়াল করে বেআব্রু করছেন কংগ্রেস থুড়ি ইন্দিরা জমানার কালো সময়টাকে।
বিশদ

03rd  July, 2022
নিঃস্ব বামেরা বিজেপিকে
শক্তি জোগাচ্ছে
তন্ময় মল্লিক

উস্কানি এভারেস্ট ছুঁলেও বিজেপি তা থেকে ফায়দা তুলতে পারল না। মহকুমা পরিষদের নির্বাচন বুঝিয়ে দিল, বাংলা ভাগের ফাঁদে পা দেয়নি শিলিগুড়ি। তাই কর্পোরেশনের পর মহকুমা পরিষদের নির্বাচনেও ভরসা থাকল সেই শাসক দলেই। বিশদ

02nd  July, 2022
সবকা বিকাশ? বিজলি
পানি সড়কই হল না! 
সমৃদ্ধ দত্ত

এত সরকারি, বেসরকারি অফিসার। এত গাড়ি। এত বড় বড় ট্রাক। ওড়িশার ময়ূরভঞ্জ জেলার উপারবেড়া গ্রামের মানুষ উত্তেজিত। গ্রামে বড়সড় কোনও ঘটনা ঘটতে চলেছে নিশ্চয়ই।
বিশদ

01st  July, 2022
মোদি জমানায় সুইস
ব্যাঙ্কে কালো টাকার পাহাড়!
মৃণালকান্তি দাস

২০১৪ সালে মোদি ক্ষমতায় আসার আগে বিজেপির দাবি ছিল, সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের সাড়ে ১৭ লক্ষ কোটি কালো টাকা লুকনো রয়েছে। সেই টাকা তাঁরা উদ্ধার করবেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মোদি। ‘কালো টাকা’ উদ্ধারের গাজর ঝুলিয়ে দেশবাসীকে আজও বোকা বানিয়ে চলেছেন। আর উল্টো দিকে, কোটি কোটি টাকা ঋণখেলাপ করে ‘ঘনিষ্ঠ’ শিল্পপতিরা একে একে বিদেশ চলে যাচ্ছেন।
বিশদ

30th  June, 2022
বুলডোজার রাজনীতিই
চিনিয়ে দেয় স্বৈরতন্ত্রকে
সন্দীপন বিশ্বাস

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এখন তো তিনিই দায়বদ্ধ। তিনি অনায়াসেই বলতে পারেন, তাঁর আমলে কাদের টাকা সুইস ব্যাঙ্কে ঢুকেছে। তাহলে কি দেখা যাচ্ছে? নোট বাতিলে ধরা পড়ল না একটাও কালো টাকা। উল্টে তারপরেই সুইস ব্যাঙ্কে বেড়ে গেল কালো টাকার পরিমাণ। নোট বাতিলের ‘সুফল’ কারা ভোগ করলেন? তাই দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উচিত সুইস ব্যাঙ্কের তথ্যপ্রকাশ করে প্রকৃত রাজধর্ম পালন করা। বিশদ

29th  June, 2022
দেশকে গনগনে আগুনের পথেই ঠেলে দিতে অগ্নিপথ
হুমায়ুন কবীর

ভারতের স্বাধীনতার দিনেই ‘ব্রিটিশ ইন্ডিয়ান আর্মি’-র আনুগত্য পাল্টে যায়। তবে, আমাদের সেনার পথ চলা শুরু ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি সংবিধান কার্যকর হওয়ার দিন থেকে।
বিশদ

28th  June, 2022
একটি আত্মনির্ভরতার কাহিনি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাট। মাস দুয়েক আগের ছবিটাও ছিল এক্কেবারে অন্যরকম। ঈদ আসছে... আর বাড়ি ফিরছে মানুষ। এই সময়টার জন্যই যে অপেক্ষায় থাকে মুজিবুর রহমানের দেশ। 
বিশদ

28th  June, 2022
ছুঁচ গলে না, হাতি পেরিয়ে যায়
পি চিদম্বরম

সরকার যেসব তথাকথিত পরিবর্তন করেছে এবং কিছু ছাড় দিয়েছে তা থেকে এই মৌলিক প্রশ্নের উত্তর মিলছে না যে, যৎসামান্য-প্রশিক্ষিত, নামমাত্র অনুপ্রাণিত এবং মূলত চুক্তিভিত্তিক প্রতিরক্ষা বাহিনী দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে ভীষণভাবে দুর্বল করে দেবে কি না।
বিশদ

27th  June, 2022
বালাসাহেব থাকলে এই
দিন দেখতে হতো না...
হিমাংশু সিংহ

অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস পতন ডেকে আনে। বালা সাহেবের উগ্র হিন্দুত্বের লাইন থেকে সরে শারদ পাওয়ারের কথায় পথ চলা একদিন না একদিন যে ব্যুমেরাং হবেই, তাও নিশ্চিতই ছিল। সেই সুযোগটারই ফায়দা তুলতে নেমেছে গেরুয়া শিবির। সঙ্গে শিবসেনার হিন্দু ভোটব্যাঙ্ক দখলের হাতছানি! এই খেলার অন্তিম পরিণতি জানতে আরও বেশকিছুটা সময় অপেক্ষা করতেই হবে। শিবসৈনিকদের রাশ কার হাতে থাকবে তা এখনও অনিশ্চিত।
বিশদ

26th  June, 2022
মানুষ কিনতে না পেরেই ‘রায়’ কেনার মরিয়া চেষ্টা
তন্ময় মল্লিক

‘পারিব না—এ কথাটি বলিও না আর,...একবার না-পারিলে দেখ শতবার।’ কবি কালীপ্রসন্ন ঘোষ। বিজেপির দিল্লির নেতৃত্ব কি কবির এই কথাতেই অনুপ্রাণিত? সেই কারণেই কি প্রথম দু’বারের চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় মুখে কালি লাগলেও হাল ছাড়েনি!​​​​ 
বিশদ

25th  June, 2022
একনজরে
‘গর্বের পদ্মা সেতু’ নিয়ে আবেগে ভাসছে গোটা বাংলাদেশ। সেই সঙ্গে দেশবাসীর প্রশংসাও কুড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ২৫ জুন বাংলাদেশের দীর্ঘতম পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেন ...

বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় এবার বেসরকারি স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল, আবাসনের ক্ষেত্রে কড়াকড়ির পথে হাঁটছে কলকাতা পুরসভা। এ সংক্রান্ত যে আইন রয়েছে, তা বাস্তবায়ন করতে চাইছে পুর কর্তৃপক্ষ। দিনে ১০০ কেজি বা তার বেশি আবর্জনা জমা হয়, এমন বহুতলের জঞ্জাল ব্যবস্থাপনা তাদেরই করতে হবে। ...

মেমারির আমাদপুর দিঘিরপাড়ের বাবু ঘোষ ও অনিতা ঘোষ পাঁচ মাস আগেই ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন। দু’জনের এটা ছিল দ্বিতীয় বিয়ে। তাঁদের দু’জনেরই আগের পক্ষের একটি করে ছেলে রয়েছে। দ্বিতীয়বার বিয়ে করার পর প্রথম দু’-তিন মাস তাঁদের ভালোই চলছিল। হঠাৎ করেই অনিতার ...

বাস খাদে পড়ে মৃত্যু হল ১২ জনের। গুরুতর জখম আরও তিনজন। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার হিমাচল প্রদেশের কুলুতে।  এদিন সকালে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি খাদে পড়ে যায়। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

দেবকর্মে অমনোযোগিতা ও বাধা। আইনজীবীদের কর্মোন্নতি ও উপার্জন বৃদ্ধি। স্বাস্থ্য চলনসই থাকবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৬৮৭: ইংরেজ বিজ্ঞানী এবং আধুনিক বিজ্ঞানের অন্যতম পথিকৃৎ স্যার আইজাক নিউটনের লেখা ফিলোসফিয়া ন্যাচারালিস প্রিন্সিপিয়া ম্যাথামেটিকা  প্রকাশিত হয়
১৮৪১: টমাস কুক প্রথম ট্রাভেল এজেন্সি চালু করেন
১৯০১:বিশিষ্ট চলচ্চিত্র প্রযোজক ও কলকাতার নিউ থিয়েটার্সের প্রতিষ্ঠাতা  বীরেন্দ্রনাথ সরকারের জন্ম
 ১৯৪৪: অভিনেতা দীপঙ্কর দের জন্ম
১৯৪৬: রাজনীতিক রামবিলাস পাসোয়ানের জন্ম
১৯৭৩: নৃত্যশিল্পী তথা বিশিষ্ট কোরিওগ্রাফার গীতা কাপুরের জন্ম
১৯৮২: সঙ্গীত শিল্পী জাভেদ আলির জন্ম
১৯৯৩: অভিনেতা  কালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৯৫: বিশিষ্ট ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় পি ভি সিন্ধুর জন্ম 
২০০৫: ক্রিকেটার বালু গুপ্তের মূত্যু
২০০৭: অভিনেতা শুভেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৮.১৩ টাকা ৭৯.৮৭ টাকা
পাউন্ড ৯৩.৯১ টাকা ৯৭.২৪ টাকা
ইউরো ৮০.৯০ টাকা ৮৩.৯০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
03rd  July, 2022
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫২,৮৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫০,১৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫০,৯০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫৮,৭৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫৮,৮৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
03rd  July, 2022

দিন পঞ্জিকা

২০ আষাঢ়, ১৪২৯, মঙ্গলবার, ৫ জুলাই ২০২২। ষষ্ঠী ৩৬/১১ রাত্রি ৭/২৯। পূর্বফাল্গুনী নক্ষত্র ১৩/৪৪ দিবা ১০/৩০। সূর্যোদয় ৫/০/৩৯, সূর্যাস্ত ৬/২১/১৩। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে পুনঃ ৯/২৭ গতে ১২/৭ মধ্যে পুনঃ ৩/৪১ গতে ৪/৩৪ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪ মধ্যে পুনঃ ১২/২ গতে ২/১০ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৯ গতে ৯/৫৪ মধ্যে। বারবেলা ৬/৪১ গতে ৮/২১ মধ্যে পুনঃ ১/২১ গতে ৩/১ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪১ গতে ৯/১ মধ্যে। 
২০ আষাঢ়, ১৪২৯, মঙ্গলবার, ৫ জুলাই ২০২২। ষষ্ঠী দিবা ৩/১৩। পূর্বফাল্গুনী নক্ষত্র দিবা ৭/২৭। সূর্যোদয় ৫/০, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৩ মধ্যে ও ৯/২৯ গতে ১২/৯ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৪/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ২/৫৫ মধ্যে। বারবেলা ৬/৪১ গতে ৮/২১ মধ্যে ও ১/২২ গতে ৩/৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪৩ গতে ৯/৩ মধ্যে। 
৫ জেলহজ্জ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
পঞ্চম টেস্ট: ভারতকে হারিয়ে ৭ উইকেটে জিতল ইংল্যান্ড, সিরিজ ড্র (২-২)

04:45:14 PM

রেকর্ড, ডলার প্রতি টাকার দাম কমে হল ৭৯.৩৬

04:31:00 PM

বার্মিংহাম টেস্ট: পঞ্চম দিনে দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ড ৩৫৮/৩, জয়ের জন্য প্রয়োজন ২০ রান

04:27:00 PM

১০০ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স

04:01:29 PM

হলদিয়ায় শিল্প সংস্থাগুলিকে নিয়ে জেলা প্রশাসনের বৈঠক

04:00:56 PM

নেপালের দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১

03:13:39 PM