Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সার্বিক টিকাকরণ ও কোভিড
স্বাস্থ্যবিধিতেই বাগ মানবে ওমিক্রন
মৃন্ময় চন্দ

গোটা পৃথিবীর রাতের ঘুম কেড়েছে ওমিক্রন। সংক্রমণ লাগামছাড়া, ডেল্টার তুলনায় ৩৫ শতাংশ বেশি। মানবশরীরে ডেল্টার তুলনায় পাঁচগুণ দ্রুতগতিতে বংশবিস্তার শুরু করে ওমিক্রন। ওমিক্রনের ‘আরনট’ বর্তমানে ১০-এর (ল্যানসেট রেসপিরেটরি মেডিসিন, ১৭ ডিসেম্বর ২০২১) বেশি। হাম বা মিজলস-এর মতোই ছোঁয়াচে ওমিক্রন। ওমিক্রন কি খেল দেখাতে পারে তার আগাম হদিশ পেতে গবেষণাগারের কৃত্রিম পরিবেশে ‘সিউডোভাইরাস’ এবং ‘হ্যামস্টারের’ (ধেড়ে ইঁদুর গোত্রের প্রাণী) শরীরের ওপরেই চলছে যাবতীয় গবেষণা, অনুসন্ধান। দেখা যাচ্ছে, হ্যামস্টাররা দুর্বল হয়ে পড়লেও, সামান্য জ্বরজ্বালা ছাড়া ফুসফুস বিকল হয়ে দুরারোগ্য অসুস্থতায় আক্রান্ত হচ্ছে না। প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক, ইতর শ্রেণির প্রাণী হ্যামস্টারের কিছু হচ্ছে না বলে মানুষও কি ততটাই নিরাপদ? 
গত কয়েক সপ্তাহের গবেষণা বা হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ওমিক্রন রোগীদের হালচালে স্পষ্ট ডেল্টার মতো ফুসফুসের ক্ষতি ওমিক্রন অদ্যপি করে উঠতে পারেনি। এসিই-টু রিসেপ্টরকে পাকড়ে আলফা/ডেল্টা মানবকোষে হানাদারি চালাত টেমপ্রেস-টু নামে একটি প্রোটিনকে ছলাকলায় ভুলিয়ে বিপথগামী করে। বিভীষণের মতো নভেলকরোনাকে মানবকোষে প্রবেশের গোপন  খিড়কির দরজা দেখিয়ে মানবশরীরের সঙ্গে চূড়ান্ত বিশ্বাসঘাতকতা করত টেমপ্রেস-টু। স্পাইক-প্রোটিনের ৩২টি মিউটেশনে, টেমপ্রেস-টুকে এড়িয়ে ওমিক্রন সরাসরি হানা দিচ্ছে মানবশরীরে। আলফা/ডেল্টার মতো ‘ক্যাথেপসিন’ উৎসেচকের ঘাড়ে চেপে চুপিসারে সিঁধ কেটে ওমিক্রন মানবকোষের এন্ডোজোমেও ঢুকতে পারছে না। ওমিক্রনের অস্বাভাবিক মিউটেশনে তৈরি ‘ইডি-সিক্সটিফোর’ নামে একটি যৌগ বাধ সাধছে সেখানেও। ফলে ফুসফুসের বদলে ওমিক্রন আক্রমণ শানাতে বাধ্য হচ্ছে মুখ এবং গলায়।
গলায় বাসা বাধা এবং ত্বরিতগতিতে বংশবিস্তার করায় সাধারণ কথাবার্তা, এমনকী মাস্কবিহীন হাইতোলার মাধ্যমেও অতিদ্রুত আশপাশের বহু মানুষকে পেড়ে ফেলছে ওমিক্রন। তিন দিনের মধ্যেই ভাইরাল লোড সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছচ্ছে। মানুষের ফুসফুসে এসিই ও টেমপ্রেস-টুর প্রভূত প্রাচুর্য। টেমপ্রেস-টু চম্পট দেওয়ায়, ফুসফুসের এসিই-টুকে খাবলে ধরতে না পেরে ওমিক্রন ফুসফুসের বারোটা বাজাতে পারছে না। ‘সিঙ্কসিশিয়া’ বা গুচ্ছ কোষের ‘প্লাক’ তৈরি না হওয়ায় ফুসফুসের অক্সিজেন সংবহনও ব্যাঘাত প্রাপ্ত হচ্ছে না। প্রাপ্তবয়স্ক ওমিক্রন রোগীদের তাই অক্সিজেন এবং আইসিইউ-র ঘানি প্রায় টানতে হচ্ছে না। কমবয়সি বা শিশুদের কিছুটা ঝামেলায় ফেলছে ওমিক্রন। আপার রেসপিরেটরি ট্র্যাক্ট, মুখ-গলায় ওমিক্রন পাখা মেলায়, শিশুরা ব্রঙ্কাইটিস, ক্রুপ বা শুকনো কাশি ও শ্বাসকষ্টের সমস্যায় বেশি ভুগছে। সঙ্কটজনকও হয়ে পড়ছে। নাকে বা গলায় কাঠি ঢুকিয়ে শিশুদের আরটিপিসিআর বা র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করাও মুশকিল। 
টেমপ্রেস-টুর আধিক্যের কারণে নাকের শ্লেষ্মারসে ওমিক্রনের দেখা মিলছে না। নাকের কোষকলার কোনও ক্ষতি ওমিক্রন করতে না পারায় গন্ধের অনুভূতিও (এনসমিয়া) থাকছে অটুট অবিকৃত। সঙ্গতকারণে গলা বা মুখের লালারস পরীক্ষাতেই কেবল হদিশ মিলছে ওমিক্রনের। নামকরা র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট কিট অ্যাবটের ‘বাইন্যাক্স-নাউ’-এর ‘স্পেসিফিসিটি’ ৯৮.৫% (ফলস পজিটিভ ১.৫) ও ‘সেনসিটিভিটি’ নাকি ৮৪.৬% (ফলস নেগেটিভ ১৫.৪%)। সিডিসি-র তদন্তে ধরা পড়েছে বাইনাক্স-নাউ ৬৪.২% মাত্র ‘সেনসিটিভ’। অর্থাৎ বাইনাক্স-নাউ ৩৫.৮% কোভিড রোগীকে নির্দ্বিধায় বলছে কোভিডমুক্ত। ফলস পজিটিভে ক্ষতি নেই, কিন্তু ৩৫.৮% ফলস নেগেটিভ করোনা অতিমারীতে নিঃসন্দেহে, ঘৃতাহুতি দেবে। সিডিসি-র মতো কোনও নজরদার সংস্থার অভাবে ভারতে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টের ফলাফল তাই সন্তোষজনক নয় মোটেই! আরটিপিসিআরের ‘জিনোম সিকোয়ন্সিং’, সময়সাপেক্ষ ও ব্যয়বহুল হলেও ওমিক্রন শনাক্তকরণে নির্ভরযোগ্য। ভারতে ৭ দিন বিচ্ছিন্ন বাসের পরে কোনও পরীক্ষা ছাড়াই আক্রান্তকে মুক্তকচ্ছ হয়ে ঘুরে বেড়ানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় অন্তত দেখে নেওয়া যেতেই পারত ছাড়া পাওয়া ব্যক্তিটি তখনও সংক্রামক কি না!  
বিশ্বের যাবতীয় ওমিক্রন সংক্রান্ত গবেষণা এখনও শৈশবে টলমল। সেই সমস্ত গবেষণার ওপর ভিত্তি করে তড়িঘড়ি কোনও অনুসিদ্ধান্তে না আসাই মঙ্গল। ওমিক্রনকে হালকাভাবে না নেওয়ার জন্য বিশ্ববাসীকে সতর্ক করেছেন ‘হু’ প্রধানও। তাঁর আশঙ্কার অন্যতম কারণ, ওমিক্রন পূর্বের  কোভিড সংক্রমণজাত অ্যান্টিবডি বা ভ্যাকসিনজাত ‘নিউট্রালিজিং অ্যান্টিবডি’র কড়া নজরদারিকেও অক্লেশে এড়িয়ে মানুষকে হামেশাই বিপদে ফেলছে। রক্ষে একটাই, অসুস্থতা বাড়াবাড়ির পর্যায়ে পৌঁছচ্ছে না এখনও। বয়স্ক বা রোগভোগের প্রাক-ইতিহাস না থাকলে ওমিক্রনের অব্যর্থ উপসর্গ, ঘুষঘুষে জ্বর, গা গুলোন, বমি ভাব, ডায়রিয়া, জলশূন্যতা, গলা জ্বালা ও শুকনো কাশিতে অহেতুক ভয় পাওয়া নিষ্প্রয়োজন।  
যদিও মহামারী বিদ্যার পাঠ্যপুস্তকের বিধিসম্মত সতর্কীকরণ: মাত্রাতিরিক্ত সংক্রমণে অসুস্থতা বাড়লে, হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়বে মৃত্যুহারও। আত্মতুষ্টি ব্যতিরেকে, সর্বাগ্রে সতর্ক, সচেতন, সাবধান হওয়াই বাঞ্ছনীয়। কোনও ভাইরাসের ভীমপ্রলয়ী হয়ে ওঠার সম্ভাবনার পূর্বাভাস মেলে ভাইরাসটির সংক্রমণ প্রবণতা এবং তার রোগসৃষ্টির ক্ষমতা দেখে। ওমিক্রন ভয়ঙ্কর সংক্রামক হলেও আপাতদৃষ্টিতে নয় ততটা বিপজ্জনক। কিন্তু খুব সামান্য সংখ্যক মানুষও গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে, ভারতের পক্ষে তা অশনিসঙ্কেত। ভারতে খাতায়-কলমে আইসিইউ বেডের সংখ্যা ৭৫৮৬৭টি হলেও, ২০২০সালের ২৯ ডিসেম্বর সেই আইসিইউ বেডের সংখ্যা সরকারি হিসেবেই কমে হয়েছে ৪০,৪৮৬টি। ভেন্টিলেটরের সংখ্যা ভারতে ৪০৬২৭টি মাত্র। ডিসেম্বর ২৯, ২০২০-তে অক্সিজেন-পোষিত শয্যার সংখ্যা ছিল ২৭০৭১০টি। ২০২১-এর ২৮ জানুয়ারি সেই শয্যা সংখ্যা কমে হল ১৫৭৩৪৪টি। শতাংশের হিসেবে এক মাসে একধাক্কায় অক্সিজেন-যুক্ত শয্যা ৪২ শতাংশ কমে গেল। ১১% আইসিইউ বেড ও ৪২% ভেন্টিলেটর হ্রাসপ্রাপ্ত হল। ১৩৮ কোটি ভারতবাসীর ১ শতাংশ বা ১ কোটি ৩৮ লাখ অভাগাকেও  ওমিক্রন যদি কোনওভাবে বেকায়দায় ফেলে তাদের অধিকাংশের পক্ষেই আইসিইউ বেড জোটানো দুষ্কর।
সুপরিকল্পিত সর্বজনীন টিকাকরণে অসুস্থতা বা সংক্রমণ বাধ মানত। বিভিন্ন হিসাব থেকে প্রতিভাত, ভারতে প্রায় ৫০ শতাংশ মানুষ আজও টিকাবিহীন। টিকাবিহীন ৫০ শতাংশ মানুষের সৌজন্যে বুস্টার বা গালভরা ‘পরীক্ষণ ডোজের’ নকল বুঁদির গড় ওমিক্রন সুনামিতে খড়কুটোর মতো ভেসে যেতে বাধ্য। হঠাৎই ১২ থেকে ১৮বছরের পরিবর্তে কেন ১৫ থেকে ১৮ বছর বয়সিদের টিকাকরণ শুরু করা হল তারও নেই কোনও সদুত্তর! জাইকোভ-ডির সফল ট্রায়ালের পর কেনই বা কোভ্যাকসিনকে ১৫—১৮র জন্য বাছা হল? ফাইজারের অত্যুৎকৃষ্ট এমআরএনএ ভ্যাকসিনটিকে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের ছাড়পত্র দেওয়ার পরেও কেন ভারতের বাজারে আজও তা অমিল? কেনই বা মোদিজি ‘বেলর কলেজ অফ মেডিসিন’ ও ‘টেক্সাস চিলড্রেন’স সেন্টার ফর ভ্যাকসিন ডেভেলপমেন্টে’র ‘প্রোটিন সাবইউনিট টেকনোলজিতে’ তৈরি ‘করবিভ্যাক্সের’ মতো আনকোরা, কিয়দংশে অপরীক্ষিত (মাত্র  ৩০০০ জনের উপর ট্রায়াল চলেছে) পিছড়েবর্গের একটি ভ্যাকসিন ভারতবাসীকে কোভিড কালবেলায় উপহার দিতে গেলেন? সরকারের ঘোলা জলে মাছ ধরার বরাবরের কুঅভ্যাসকে পাশে সরিয়ে সতর্ক সচেতন মানুষকে স্ব-উদ্যোগে টিকা নিয়ে, কোভিড স্বাস্থ্যবিধিকে সুচারুভাবে মেনেই খেদাতে হবে ওমিক্রন। রুখতে হবে লকডাউন।
লেখক অতিমারী বিশেষজ্ঞ, গিলিংস স্কুল অফ গ্লোবাল পাবলিক হেলথ, ইউনিভার্সিটি অফ নর্থ ক্যারোলিনা। মতামত ব্যক্তিগত
15th  January, 2022
মতাদর্শ শিকেয় তুলে রেখেছেন মোদি-শাহ
মৃণালকান্তি দাস

দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তখন লালকৃষ্ণ আদবানি। আর স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আমেদাবাদ পূর্ব লোকসভা আসনে সাত-সাতবার ভোটে জেতা সাংসদ, আদবানি ঘনিষ্ঠ হারিন পাঠক।
বিশদ

চাকরির আকাল ঘোচাবে
মমতার সাইকেল শিল্প
হারাধন চৌধুরী

আমরা আশা রাখব, খড়্গপুরের প্রস্তাবিত সাইকেল পার্ক বাংলার সেই ঐতিহ্য পুনরুদ্ধারেরই এক সোনালি অধ্যায় হয়ে উঠবে। রাজ্যের বিপুল চাহিদাকে পাথেয় করে সাইকেল কারখানার সংখ্যাও বাড়বে ধীরে ধীরে। সাইকেল শিল্পের পথ ধরেই গড়ে উঠবে যন্ত্রাংশ ও টায়ার শিল্প। জোয়ার আসবে বাংলার চাকরির বাজারে।
বিশদ

25th  May, 2022
চাকরির ভরসা... দায় সরকারের
শান্তনু দত্তগুপ্ত

নরেন্দ্র মোদি সরকারও আট বছরের ‘সাফল্য কাহিনি’ প্রচারের জন্য কোমর বাঁধছে। দেশজুড়ে বোঝাতে হবে, এটাই আচ্ছে দিন। আগে কিছুই ছিল না। যা করেছে, মোদি সরকার। সেই ঢক্কানিনাদে চাপা পড়ে যাবে চাকরির দাবিতে আন্দোলনরত ছেলেমেয়েদের কণ্ঠ। কেউ পাগল হয়ে যাবে, কেউ মানবতার আদর্শ হারিয়ে মরিয়া চেষ্টা চালাবে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর।
বিশদ

24th  May, 2022
চাই নয়া নীতি, সাহস, স্বচ্ছতা ও গতি
পি চিদম্বরম

যেসব পরিশ্রমী পরিবার ছেলেমেয়েদের শিক্ষিত করার জন্য তাদের যথাসর্বস্ব ব্যয় করে দেখছে চাকরিই নেই—মোদি সরকার তাদের হতাশ করেছে। হিন্দুত্বের আবেগে ভাসিয়ে দিয়ে মোদি সরকার হয়তো সাময়িকভাবে পিঠ বাঁচাতে পারবে, কিন্তু  তরুণরা অচিরেই বুঝতে পারবেন যে হিন্দুত্ব (এবং একটি মেরুকৃত ও বিভক্ত সমাজ) কাউকে চাকরি দেবে না—তিনি নারী/পুরুষ, হিন্দু, মুসলিম, খ্রিস্টান, শিখ, অন্যকোনও ধর্মবিশ্বাসী কিংবা নাস্তিক যেটাই হোন না কেন। বিশদ

23rd  May, 2022
ইতিহাস ভুলিয়ে দেওয়ার
ট্র্যাডিশন সমানে চলছে ...
হিমাংশু সিংহ

সব ফেলে একটা মসজিদ নিয়ে দেশ উত্তাল কেন? এতে কি রান্নার গ্যাসের দাম কমবে, না বাড়ির বেকার ছেলেটা চাকরি পাবে! না, কিছুই হবে না। উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, মূল্যবৃদ্ধিতে রাশ টানার কোনও চেষ্টাই সফল হবে না, এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েই টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসতে ধর্মের এই আফিম বিতরণের পথে এগচ্ছেন মোদি সরকারের বাজনদাররা।
বিশদ

22nd  May, 2022
অনলাইন পরীক্ষায় ফিরতে
পারে নকশাল আমলের লজ্জা
তন্ময় মল্লিক

‘ভারতরত্ন’ এপিজে আব্দুল কালামের কথায়, ‘ফেল (FAIL) মানে ফার্স্ট অ্যাটেম্পট ইন লার্নিং। অর্থাৎ শেখার প্রথম ধাপ। বিফলতাই সফল হওয়ার রাস্তা দেখিয়ে দেবে।’ অনলাইনে বই দেখে লিখে পাশ করলে সেই রাস্তাটা বন্ধ হয়ে যাবে। তাই অনলাইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের দায়িত্ব শুধু শিক্ষক, অধ্যাপকদের ঘাড়ে চাপালেই চলবে না, সন্তানদের অন্যায় আবদারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে অভিভাবকদেরও। বিশদ

21st  May, 2022
উচ্চশিক্ষা কি গরিবের
হাতের বাইরে যাচ্ছে?
সমৃদ্ধ দত্ত

পুরসভা পরিচালিত স্কুলগুলি একে একে বন্ধ হয়ে যায়। ছাত্রছাত্রী পাওয়া যায় না। কলকাতা অথবা জেলার ব্র্যান্ডেড নামজাদা সরকারি অথবা স্পনসর্ড স্কুল বাদ দিলে বাংলা মাধ্যম স্কুলগুলির চিত্রটি খুব উজ্জ্বল নয়।
বিশদ

20th  May, 2022
তাজমহলের নিয়তি!
মৃণালকান্তি দাস

রামমন্দির আন্দোলন ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের থেকেও বড়! বলেছিলেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুরেন্দ্র জৈন। তাঁর দাবি, এই পথেই রামরাজ্যের দিকে দেশ যাত্রা শুরু করেছে।
বিশদ

19th  May, 2022
বিদ্বেষের এই পাশাখেলা...
সন্দীপন বিশ্বাস

মিথ্যা প্রচার কিংবা বিদ্বেষ যে কোনও সরকারের প্রধান লক্ষ্য হতে পারে, মোদি অ্যান্ড কোম্পানিকে না দেখলে বিশ্বাসই করা যেত না। সরকার এই দু’টো ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রতিদিন ভারতের গণতন্ত্রকে টুকরো টুকরো করে দিচ্ছে।
বিশদ

18th  May, 2022
কানে ‘কান্ট্রি অব অনার’-এর মর্যাদা পেল ভারত
অনুরাগ সিং ঠাকুর

ফ্রেঞ্চ রিভিয়েরার নিস্তব্ধ উপকূলে এখন কান চলচ্চিত্র উৎসবের ৭৫ তম সংস্করণ আয়োজনের ব্যস্ততা। এবছর ‘মার্শে ডু ফিল্মস’-এর উদ্বোধনী সন্ধ্যার মূল ভাবনার দেশ হিসেবে ভারত বিশ্বের দর্শকদের সামনে দেশীয় চলচ্চিত্রের উৎকর্ষ, প্রযুক্তিগত দক্ষতা, সমৃদ্ধ সংস্কৃতি এবং গল্প বলার অসামান্য ঐতিহ্য তুলে ধরতে চায়।
বিশদ

18th  May, 2022
কামরাজ প্ল্যানেই বাজিমাতের লক্ষ্যে মোদি?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেন কিছুতেই বিরোধী শক্তির সামনের সারিতে আসতে না পারেন—এটাই লক্ষ্য বিজেপির। বরং এলেবেলের স্তরে পৌঁছে যাওয়া কংগ্রেস যত খুশি গুরুত্ব পাক, ক্ষতি নেই। কিছুতেই যেন জোটের জমি শক্ত না হয়। তাহলেই মানুষ বিকল্প না খুঁজে মোদিজিতে ফের আস্থা রাখবেন। চব্বিশেও পদ্ম ফুটবে সংসদে। বিশদ

17th  May, 2022
ভালো, খারাপ ও সন্দেহজনক
পি চিদম্বরম

যদি মহিলাদের একটি বড় অংশ রক্তাল্পতায় ভোগেন এবং শিশুদের মধ্যে একটি বিরাট অংশ কম ওজনের কিংবা রক্তাল্পতার শিকার হয়, পাশাপাশি অনেক শিশু স্টান্টেড অথবা ওয়েস্টেড হয়, তবে তার কারণ পর্যাপ্ত পুষ্টির অভাব। আমার মনে হয় যে খাদ্যের অভাব হল, দারিদ্র্যের একটি নির্ধারক সূচক। একজন খুদে ভগবানের সন্তান হিসেবে ওই গরিব মানুষগুলিকে এই সরকার ভুলিয়ে দিতে চাইছে। বিশদ

16th  May, 2022
একনজরে
মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে ন’মাসের ট্রেনিং হয়েছিল ইকনার। প্রশিক্ষণ শেষে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে সুন্দরবনের সজনেখালিতে তাকে নিয়ে আসা হয়েছিল। তার বয়স তখন পাঁচ বছর।  জঙ্গল থেকে লোকালয়ে ...

৫৫তম নকশালবাড়ি দিবস উপলক্ষে জঙ্গলমহলে সতর্কতা জারি করল রাজ্য গোয়েন্দা সংস্থা (আইবি)। মঙ্গলবার জারি করা ওই সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, সাম্প্রতিককালে জঙ্গলমহলে হিংসাত্মক ঘটনার নজির নেই। ...

ভোরের আলো ফোটার আগেই ঝুড়ি, গাঁইতি নিয়ে কয়লা কাটতে যাওয়াই নিয়তি হয়ে গিয়েছিল ঩শিল্পাঞ্চলের দরিদ্র মানুষের। অবৈধভাবে কয়লা কেটে রোজগার ভালো থাকলেও যে কোনও সময় ...

ফের বন্দুকবাজের হামলা আমেরিকায়। মঙ্গলবার সকালে টেক্সাসের উভালদে শহরের একটি প্রাথমিক স্কুলে এলোপাথাড়ি গুলি চালায় এক কিশোর। ঘটনায় নিহত কমপক্ষে ২১ জন। তাদের মধ্যে ১৯ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

স্ত্রীর সূত্রে বিত্তলাভ যোগ আছে। ব্যবসায়িক বিনিয়োগ বৃদ্ধিতেও মনোমতো ফলের অভাব। মনে অস্থিরতা থাকবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১২৯৩: জাপানে বিধ্বংসী ভূমিকম্পে মৃত্যু হয় ৩০ হাজার মানুষের
১৮৯৭: ব্রাম স্টোকারের উপন্যাস ড্রাকুলা প্রকাশিত হয়
১৯৪৫: মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বিলাসরাও দেশমুখের জন্ম
১৯৪৯: মার্কিন কম্পিউটার প্রোগামিং বিশেষজ্ঞ ওয়ার্ড কানিংহামের জন্ম, তিনিই উইকিপিডিয়ার প্রথম সংস্করণ বের করেছিলেন
১৯৭৭: ইতালির ফুটবলার লুকা তোনির জন্ম



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৬.৭০ টাকা ৭৮.৪৪ টাকা
পাউন্ড ৯৫.৪৯ টাকা ৯৮.৮৭ টাকা
ইউরো ৮১.৫৭ টাকা ৮৪.৬০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫১,৮৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৯,২০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৯,৯৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬২,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬২,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২। একাদশী ১৪/৫৫ দিবা ১০/৫৫। রেবতী নক্ষত্র ৪৯/১৫ রাত্রি ১২/৩৯। সূর্যোদয় ৪/৫৬/৪০, সূর্যাস্ত ৬/১০/২৬। অমৃতযোগ দিবা ৩/৩১ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৬/৫৩ গতে ৯/২ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ২/৪ মধ্যে পুনঃ ৩/৩০ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৫/৪৯ মধ্যে পুনঃ ৯/২১ গতে ১১/৭ মধ্যে। বারবেলা ২/৫১ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৩৩ গতে ১২/৫৪ মধ্যে।
১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২। একাদশী দিবা ১/৫। রেবতী নক্ষত্র রাত্রি ২/৩২। সূর্যোদয় ৪/৫৭, সূর্যাস্ত ৬/১২। অমৃতযোগ দিবা ৩/৪০ গতে ৬/১২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২ গতে ৯/১০ মধ্যে ও ১১/৫৮ গতে ২/৬ মধ্যে ও ৩/৩০ গতে ৪/৫৬ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৫/৪৮ মধ্যে ও ৯/২২ গতে ১১/১০ মধ্যে। কালবেলা ২/৫৩ গতে ৬/১২ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৩৪ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। 
২৪ শওয়াল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইপিএল: ১৪ রানে জিতল আরসিবি
 

25-05-2022 - 12:23:11 AM

আইপিএল: লখনউ ১৫৩-৩ (১৬ ওভার)
 

25-05-2022 - 11:51:43 PM

আইপিএল: লখনউ ৮৯-২ (১০ ওভার)
 

25-05-2022 - 11:17:05 PM

আইপিএল: লখনউ ৪৫-২ (৫ ওভার)
 

25-05-2022 - 10:48:59 PM

আইপিএল: লখনউকে ২০৮ রানের টার্গেট দিল আরসিবি
 

25-05-2022 - 10:07:23 PM

আইপিএল: আরসিবি ১২৩-৪ (১৫ ওভার)

 

25-05-2022 - 09:37:03 PM