Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

প্রভাবশালী ধনীরা
জবাবদিহির ঊর্ধ্বে
পি চিদম্বরম

ধনীরা প্রভাবশালী হয় এবং প্রভাবশালীরা ধনী হয়। একবার প্রভাবশালী এবং ধনী হয়ে গেলে, স্পষ্টতই তারা জবাবদিহির ঊর্ধ্বে চলে যাবে। এটাই হয়েছে আজেকর বিপদ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর জন শেরম্যান (প্রথম অ্যান্টিট্রাস্ট অ্যাক্ট, ১৮৯০—সাধারণভাবে যেটিকে শেরম্যান আইন হিসাবে উল্লেখ করা হয়) বলেছিলেন, ‘আমরা যদি একজন রাজাকে রাজনৈতিক শক্তি হিসাবে সহ্য না করি তবে আমাদের উৎপাদন, পরিবহণ এবং জীবনের প্রয়োজনীয় যে-কোনও জিনিসের নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে কোনও রাজাকে সহ্য করা উচিত নয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভেঙে টুকরো হয়ে গিয়েছে স্ট্যান্ডার্ড অয়েল এবং এটি অ্যান্ড টি। আলিবাবা, টেনসেন্ট এবং দিদি-র বিরুদ্ধে কঠোর হয়েছে চীন। মাইক্রোসফট, গুগল এবং ফেসবুকও অনেক দেশে এমন উত্তাপেরই মুখোমুখি। কেন? কারণ, তারা অতিকায়, অত্যন্ত ধনী এবং জবাবদিহির ঊর্ধ্বে চলে গিয়েছে।
আমরা যেমন একজন রাজাকে শাসক হিসেবে সহ্য করব না, তেমনি রাজা হয়ে উঠতে চাওয়া একজন শাসককেও আমাদের সহ্য করা উচিত নয়। অনেক দেশ তাদের রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রী পদে নেতাদের অবস্থানের মেয়াদ বেঁধে দিয়েছে। কারণ, তাঁরা যাবতীয় ক্ষমতা কুক্ষিগত করে স্বৈরাচারী হয়ে উঠতে পারেন।

গণতান্ত্রিক এবং ধনী
রাষ্ট্রপতি কিংবা প্রধানমন্ত্রী হিসাবে প্রকৃত ক্ষমতায় থেকে যাওয়ার একটি উপায় খুঁজে পেয়েছেন ভ্লাদিমির পুতিন। জি জিনপিং তাঁর ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত করেছেন। তাঁর পদে থেকে যাওয়ার মেয়াদের সীমা তুলে দিয়েছেন। আগামী বছর তাঁর থার্ড টার্ম ক্ষমতালাভের প্রস্তুতি সারা হয়ে গিয়েছে। যে-কোনও সংজ্ঞা অনুসারে, উভয় দেশই গণতান্ত্রিক নয়। এমনকী, তারা ধনী দেশের পর্যায়ভুক্তও হয়ে যায়নি।
মাথাপিছু আয়ের নিরিখে বিশ্বের শীর্ষ দশটি ধনী দেশ হল: ১. লুক্সেমবার্গ, ২. আয়ারল্যান্ড, ৩. সুইজারল্যান্ড, ৪. নরওয়ে, ৫. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ৬. আইসল্যান্ড, ৭. ডেনমার্ক, ৮. সিঙ্গাপুর, ৯. অস্ট্রেলিয়া এবং ১০. কাতার। কাতার একটি রাজতন্ত্র। প্রয়োজন বোধে গণতন্ত্র বেছে নিয়েছে সিঙ্গাপুর। বাকি আটটি দেশ পূর্ণ গণতন্ত্র। আমি আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের নাম বলতে পারব। একটু চেষ্টা করলে বলতে পারব অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রপ্রধানেরও নাম। কিন্তু বাকি আটটি দেশের কোনওটিরই প্রেসিডেন্ট বা প্রাইম মিনিস্টারের নাম বলতে পারি না। এর থেকে নীতিশিক্ষাটি বেরিয়ে আসে যে—শান্ত, সংযত এবং প্রচারের আড়ালে রয়ে যাওয়া নেতাদের নেতৃত্বেও একটি দেশ ও তার জনগণ ধনী এবং গণতান্ত্রিক হতে পারে। আমার জানা মতে, এই নেতাদের কেউই অহঙ্কার বা ঔদ্ধত্য প্রকাশের ঘটনায় কখনও অভিযুক্ত হননি।

জবাবদিহির কথা ভাবুন 
যেখানে নিরঙ্কুশ ক্ষমতা কিংবা সংসদ ও মিডিয়ার প্রতি অবজ্ঞা, সেখানে গণতন্ত্র সুস্থভাবে অবস্থান করতে পারে না। ‘আমি সব জানি’ বা ‘আমিই ত্রাণকর্তা’ এমন বাগাড়ম্বরের কোনও জায়গা নেই। এই ‘গুণাবলি’ তখনই ভর করে যখন একটি রাজনৈতিক দল অতিকায় ও অত্যধিক ধনী হয় এবং জবাবদিহির ঊর্ধ্বে উঠে যায়। বিজেপি নিজেকে বিশ্বের বৃহত্তম দল বলে দাবি করে এবং আমরা জানি যে, এটাই ভারতের সবচেয়ে ধনী পার্টি। লোকসভায় মোট ৫৪৩টি আসনের মধ্যে বিজেপির দখলে ৩০০টি এবং রাজ্য বিধানসভাগুলিতে সর্বমোট ৪০৩৬টি আসনের মধ্যে ১৪৩৫টি তাদের দখলে। দেশের ২৮টি রাজ্যের মধ্যে বিজেপি ১৭টিতে ক্ষমতাসীন দল। এই ব্যাপারটা দলটিকে অতিকায় করে তুলেছে। বিজেপি বেশ ধনীও বটে। অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্রেটিক রাইটস অনুসারে জানানো যায়, ২০১৯-২০ সালে ‘নিন্দিত’ নির্বাচনী বন্ড এবং অজানা উৎসগুলি থেকে সমস্ত রাজনৈতিক দলের তরফে মোট সংগ্রহের পরিমাণ ৩,৩৭৭ কোটি টাকা। তার মধ্যে শুধু বিজেপির একার সংগ্রহ ২,৬৪২ কোটি টাকা! পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা ভোটের লাস্ট রাউন্ডে বিজেপি ২৫২ কোটি টাকা খরচ করেছিল। তার মধ্যে ১৫১ কোটি টাকা খরচ হয়েছিল শুধু পশ্চিমবঙ্গেই! 
গত সাতবছরে বিজেপি আরও জবাবদিহির ঊর্ধ্বে চলে গিয়েছে। দলটি সংসদে বিতর্ক এড়িয়ে যায়। সংসদীয় কমিটিকে দিয়ে যাচাই পর্ব এড়িয়ে এবং প্রায়ই দুই কক্ষে বিতর্ক ছাড়াই বিল পাশ করে নেয়। প্রধানমন্ত্রী নিয়ম করে সংসদ ও মিডিয়াকে এড়িয়ে চলেন। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ, সমাজকর্মী, সাংবাদিক ও ছাত্রদের বিরুদ্ধে সিবিআই, ইডি, আয়কর, এনআইএ এবং এখন এনসিবি-কে ব্যবহার করার ব্যাপারে সরকারের কোনও কুণ্ঠা নেই।
অতিকায়, অত্যধিক ধনী এবং জবাবদিহির ঊর্ধ্বে উঠেও বিজেপি একের পর এক ভোটে জিতেছে। যেখানে তারা হেরেছে, সেখানে কিছু বিধায়ক কিনেছে এবং বশংবদ রাজ্যপালদের সহায়তায় সরকার গড়েছে। তবে তার জন্য কোনওরকম বিবেকদংশন অনুভব করেনি। বরং তারা গর্বভরে এই নোংরা খেলাটির নাম দিয়েছে—অপারেশন লোটাস!

ভয় কেবল পরাজয়ের
তিনটি কৃষি আইন পাশ এবং আইনগুলির পক্ষ নিয়ে একগুঁয়ে সওয়ালের ক্ষেত্রে তারা চূড়ান্তরকম অহঙ্কার ও ঔদ্ধত্য দেখিয়েছিল। আইনগুলি প্রথমে অর্ডিন্যান্স বা অধ্যাদেশের মাধ্যমে আনা হয়েছিল। পরে সংসদের মাধ্যমে আইনে রূপান্তরিত হয়েছিল, বিতর্ক এড়িয়ে গিয়েই। কৃষকরা ১৫ মাস ধরে আন্দোলন করলেও সরকার তাঁদের দাবির প্রতি কর্ণপাত করেনি। আলোচনার জন্য কৃষকদের আমন্ত্রণ করার ভিতরে কোনও আন্তরিকতা ছিল না, এবং আলোচনাটিও হয়ে উঠেছিল রাজনৈতিক নাটক। কৃষক ও তাঁদের সমর্থকদের গালমন্দ এবং বদনাম (‘খালিস্তানি, দেশদ্রোহী’) করার বহরটা শালীনতার সীমা অতিক্রম করে গিয়েছিল। পুলিসি অভিযান হয়ে উঠেছিল নির্মম। সুপ্রিম কোর্টের প্রতি প্রতিক্রিয়াটি ছিল অবজ্ঞাসহকারে বিরোধে প্রবৃত্ত হওয়ার মতো। যতক্ষণ না গোয়েন্দা রিপোর্ট এবং সার্ভেগুলির রেজাল্ট উপরমহলকে চমকে দিল ততক্ষণ পর্যন্ত সরকার ছিল আত্মতুষ্টিতে ভরপুর এবং একেবারে ফিটফাট! 
এটা পরিষ্কার যে মোদি সরকারের একটাই ভয়—নির্বাচনে হেরে যাওয়া। ৩০টি বিধানসভা আসনের উপনির্বাচনের ফলাফল প‍্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে পেট্রল এবং ডিজেলের দাম কমানো হয়েছিল। ওই ভোটে বিজেপি জিতেছিল মাত্র সাতটি আসনে। মন্ত্রিসভার অনুমোদন ছাড়াই কৃষি আইনগুলি আকস্মিকভাবে প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মোদি। এর মধ্যে স্পষ্ট ইঙ্গিতটি হল, উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, মণিপুর এবং গোয়ায় (যেখানে আজ তাঁর পার্টি শাসনক্ষমতায় রয়েছে) ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করেন তিনি। পাঞ্জাবে সাফ হয়ে যাওয়ার ভয় পাচ্ছেন। তাঁর মন্ত্রীদের মুখে প্রধানমন্ত্রীর ‘স্টেটসম্যানশিপ’-এর বানানো প্রশংসা এটাই খোলসা করে দিল, কী ভয়ানক ‘ডাম্ব চিয়ারলিডার’ হয়ে উঠেছেন তাঁরা: যখন আইনটি পাশ করলেন শ্রীমোদি তখন ছিলেন একজন ‘স্টেটসম্যান’ বা রাষ্ট্রনায়ক এবং শ্রীমোদি ‘বিগার স্টেটসম্যান’ বা বৃহত্তর রাষ্ট্রনায়ক হয়ে উঠলেন যখন আইনটি তিনি বাতিল করলেন!
ভারতে গণতন্ত্র তবু টিকে থাকতে পারে, বিজেপি ভোটে হেরে যাওয়ার আশঙ্কা যতক্ষণ করবে। আরও ভালো হয় ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাদের প্রকৃত পরাজয় হলে, ঘটনাটি কিছু অহঙ্কার ও ঔদ্ধত্য ঝেড়ে ফেলতে বিজেপিকে সাহায্য করতে পারে।
লেখক সাংসদ ও ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। 
মতামত ব্যক্তিগত
29th  November, 2021
বিজেপির খিচুড়ি রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ঘটনাটা লকডাউন শুরুর ঠিক পরের। ২০২০ সালের এপ্রিলের ১০ তারিখ। উত্তরপ্রদেশের কুশীনগরের এক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। রান্নার লোক আসেনি বলে গ্রামপ্রধান লীলাবতী দেবী নিজেই কোমর বেঁধে নেমে পড়েছিলেন। ভেবেছিলেন, জনা পাঁচেকের রান্না... একাই সামলে দিতে পারব। বিশদ

ভারতীয় অর্থনীতি নিয়ে বৃথা অহঙ্কার
পি চিদম্বরম

মানুষের কথাবার্তায় আলোচনায় অবশ্য জিডিপির চেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে গ্যাস, ডিজেল ও পেট্রলের দাম। বেকারত্ব নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে। সিএমআইই-র হিসেবে, শহুরে বেকারত্বের হার ৮.৫১ শতাংশ এবং গ্রামীণ বেকারত্বের হার ৬.৭৪ শতাংশ। তবে বাস্তবটা আরও ভয়াবহ! বিশদ

17th  January, 2022
উত্তরপ্রদেশ মোদির
ওয়াটারলু হবে না তো!
হিমাংশু সিংহ

গত এপ্রিলে যখন কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে মিরাট থেকে শাহাজাহানপুর, অযোধ্যা থেকে বারাণসী, তখন এক যুবক ক্রমাগত ছুটছেন উত্তরপ্রদেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত। দলিত আর পিছড়ে বর্গের মানুষের ঘরে ঘরে। কোনওকিছুতেই যেন ভ্রুক্ষেপ নেই তাঁর। বয়স ৪৮।
বিশদ

16th  January, 2022
বিজেপির গেম প্ল্যানে জল
ঢেলে দিল সুপ্রিম কোর্ট
তন্ময় মল্লিক

প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা এবং কার গাফিলতিতে ফিরোজপুরের ঘটনা তার যথাযথ তদন্ত চায় সুপ্রিম কোর্ট। দেশের মানুষের সামনে সত্যিটা তুলে ধরতে চায়। তাই গঠন করেছে তদন্ত কমিটি। এই কমিটি যেমন বিজেপির তোলা প্রধানমন্ত্রীকে খুনের চক্রান্তের অভিযোগ খতিয়ে দেখবে, তেমনি তদন্তের আতসকাচের নীচে যাচাই হবে এসপিজির সেদিনের ভূমিকাও। সুপ্রিম কোর্ট বুঝিয়ে দিল, তদন্তের অজুহাতে রাজনীতি আর চলবে না।
বিশদ

15th  January, 2022
সার্বিক টিকাকরণ ও কোভিড
স্বাস্থ্যবিধিতেই বাগ মানবে ওমিক্রন
মৃন্ময় চন্দ

গোটা পৃথিবীর রাতের ঘুম কেড়েছে ওমিক্রন। সংক্রমণ লাগামছাড়া, ডেল্টার তুলনায় ৩৫ শতাংশ বেশি। মানবশরীরে ডেল্টার তুলনায় পাঁচগুণ দ্রুতগতিতে বংশবিস্তার শুরু করে ওমিক্রন। ওমিক্রনের ‘আরনট’ বর্তমানে ১০-এর (ল্যানসেট রেসপিরেটরি মেডিসিন, ১৭ ডিসেম্বর ২০২১) বেশি। হাম বা মিজলস-এর মতোই ছোঁয়াচে ওমিক্রন। বিশদ

15th  January, 2022
দেশের যে সমস্যাগুলি
আড়ালে থেকে যাচ্ছে
সমৃদ্ধ দত্ত

লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসের এডিটোরিয়াল পেজ এডিটর সিউয়েল চ্যান বলেছিলেন, ইন্টারনেটের মাধ্যমে, কেবল নিউজের মাধ্যমে জন্ম হচ্ছে নন স্টপ ওপিনিয়ন মেশিনের।
বিশদ

14th  January, 2022
স্বামীজি ধর্মের নামে কারবার ঘৃণা করতেন
মৃণালকান্তি দাস

 

ছেলেবেলায় বাবার বৈঠকখানায় সব গড়গড়ার নল মুখে নিয়ে জাত যায় কী করে, পরীক্ষা করতে চেয়েছিলেন।
বাবা বিশ্বনাথ দত্তের রসুইখানার বাবুর্চিও ছিলেন মুসলিম।
বিশদ

13th  January, 2022
নেমে আসুক সেই
উজ্জ্বল জ্যোতিষ্কের আলো
সন্দীপন বিশ্বাস

যে ভারত গড়ার স্বপ্ন স্বামীজি দেখেছিলেন, সেই ভারতকে আজ খুঁজে পাওয়া সম্ভব নয়। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সেই মহামানব নরেন্দ্রর বাণীকে জীবনে ও কর্মে আত্মস্থ করতে পারেননি। বারবার তাঁর কথায় স্বামীজির প্রতি ভক্তির প্রকাশ দেখা যায় বটে, কিন্তু কর্মে তাঁর অবস্থান একেবারে বিপরীত মেরুতে। বিগত কয়েক বছরে তাঁর শাসন দক্ষতার নিদর্শন বুঝিয়ে দিয়েছে, যে ভরসা মানুষ তাঁর উপর করেছিলেন, সেখানে তিনি পুরোপুরি ব্যর্থ।
বিশদ

12th  January, 2022
মহামারীর ব্যবসা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

শিয়ালদহ স্টেশন। রাত ৯টা ৩৭ মিনিট। তীব্র হর্নে কেঁপে উঠল শিয়ালদহ সাউথ। লাস্ট ক্যানিং লোকাল ছেড়ে যাচ্ছে। আর ব্যাগ কাঁধে পিছন পিছন ছুটছেন এক বৃদ্ধ। বছর ৬৫ বয়স। এই ট্রেনটা বেরিয়ে গেলে রাতটা কাটাতে হবে প্ল্যাটফর্মেই। তাই ছুটছেন তিনি। কোনওমতে শেষ কামরার রডটা ধরলেন। বিশদ

11th  January, 2022
বেলাগাম গোঁড়ামি
পি চিদম্বরম

প্রথমে ওরা কমিউনিস্টদের জন্য এসেছিল, এবং আমি প্রতিবাদ করিনি—
কারণ আমি কমিউনিস্ট নই।
তারপরে তারা সমাজতন্ত্রীদের জন্য এসেছিল, এবং আমি প্রতিবাদ করিনি—
কারণ আমি সমাজতন্ত্রী নই।
বিশদ

10th  January, 2022
বাংলারই রিপ্লে দেখছি পাঞ্জাবে...
হিমাংশু সিংহ

আপাতভাবে বিরোধীরা হীনবল হলেও আন্দোলন আর প্রতিবাদের নতুন চালিকা শক্তি আজ কৃষকরা। যাঁদের সামনে মাথা ঝোঁকাতে হয়েছে সর্বশক্তিমানকেও। পার্লামেন্টে গরিষ্ঠতা থাকা সত্ত্বেও। সেই পথ ধরেই শ্রমিক, সরকারি কর্মী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ তাঁদের হক বুঝে নিতে চাইছে। লোকসভা ভোটের দু’বছর আগে এই বার্তা মোটেও শুভ সঙ্কেত নয় নোট বাতিলের ব্যর্থ নায়কের পক্ষে!
বিশদ

09th  January, 2022
মনমোহন পারলেও
মোদি পারলেন না
তন্ময় মল্লিক

মোদিজির ‘বেঁচে ফেরা’র মন্তব্য প্রাণহানির আশঙ্কা থেকে নাকি রাজনৈতিক গিমিক, তা নিয়ে বিতর্ক চলবে। তবে যখন কমান্ডো পরিবেষ্টিত একজন প্রধানমন্ত্রী তাঁর নিজের দেশে দাঁড়িয়ে প্রাণ সংশয়ের কথা বলেন, তখন তাঁর রাজনৈতিক দেউলিয়াপনাই প্রকাশ পেয়ে যায়।
বিশদ

08th  January, 2022
একনজরে
মাত্র ২৪ ঘণ্টা। এর মধ্যেই ধর্মগুরু যতি নরসিংহানন্দের গ্রেপ্তারি নিয়ে সাফাই দিল পুলিস। নরসিংহানন্দকে মহিলাদের প্রতি আপত্তিকর মন্তব্যের জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে রবিবার জানিয়েছিল ...

রেল লাইনের ধার থেকে আহত একটি পূর্ণ বয়স্ক বন বিড়াল (জাঙ্গল ক্যাট) উদ্ধার করল বনদপ্তর। অন্যদিকে, গৃহস্থের বাড়িতে ঢুকে পড়া অপর একটি বন বিড়ালকে উদ্ধার ...

হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট সারিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে হোম সিরিজে ফিরতে চলেছেন রোহিত শর্মা। ফেব্রুয়ারির গোড়ায় ভারতে আসছে ক্যারিবিয়ানরা। খেলবে তিনটি ওয়ান ডে এবং তিনটি টি-২০ ম্যাচ। ...

রান্নার গ্যাসের দাম ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়ায় গরিব থেকে মধ্যবিত্ত সকলের কপালেই চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। সেখানে পাইপলাইনে গ্যাসের জোগান শুরু হলে হেঁশেলের বিপদ যেমন কাটবে, তেমনই ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসায়িক কর্মোন্নতির প্রবল যোগ। আর্থিক প্রাপ্তি হবে মোটা অঙ্কে। কর্মপ্রাপ্তির সুখবরে মনে প্রফুল্লতা। স্বাস্থ্য এক ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৭৮ - ব্রিটিশ অভিযাত্রী ক্যাপ্টেন জেমস কুক হাওয়াই দ্বীপ আবিষ্কার করেন
১৮৫৪ -আলেকজান্ডার গ্রাহাম বেলের সহকারী তথা টেলিফোন আবিষ্কারের অন্যতম প্রবর্তক  টমাস আউগুস্তুস ওয়াটসনের জন্ম
১৮৬২ - বঙ্গীয় আইন পরিষদ গঠিত হয়
১৯৪৭: সঙ্গীতশিল্পী কে এল সায়গলের মৃত্যু
১৯৪৮ - হিন্দু মুসলমান দাঙ্গা বন্ধ হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গান্ধী তার ১২১ ঘণ্টার অনশনের অবসান ঘটিয়েছিলেন ১৯৭২: ক্রিকেটার বিনোদ কাম্বলির জন্ম
১৯৯৬: রাজনীতিক ও অভিনেতা এন টি রামারাওয়ের মৃত্যু
২০০৩: কবি হরিবংশ রাই বচ্চনের মৃত্যু
২০১৮: বিশিষ্ট বাঙালি সাংবাদিক ও কার্টুনিস্ট চন্ডী লাহিড়ীর মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৩৭ টাকা ৭৫.০৮ টাকা
পাউন্ড ৯৯.৮২ টাকা ১০৩.২৭ টাকা
ইউরো ৮৩.২৪ টাকা ৮৬.৩০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮,৮০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬,৩০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭,০০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬২,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬২,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ মাঘ, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২। প্রতিপদ অহোরাত্র। পুষ্যা নক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৬/২৩/৩, সূর্যাস্ত ৫/১০/৫৫। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩২ গতে ১০/৪১ মধ্যে পুনঃ ১২/৫০ গতে ২/১৭ মধ্যে পুনঃ ৩/০ গতে ৪/২৬ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩ মধ্যে পুনঃ ৮/৪১ গতে ১১/১৯ মধ্যে পুনঃ ১/৫৮ গতে ৩/৪৩ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ গতে ৯/৪ মধ্যে পুনঃ ১/৭ গতে ২/২৭ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৪৯ গতে ৮/২৮ মধ্যে। 
৪ মাঘ, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৮  জানুয়ারি ২০২২। প্রতিপদ শেষরাত্রি ৬/১৫। পুষ্যা নক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৬/২৬, সূর্যাস্ত ৫/১০। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩১ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ১২/৫৬ গতে ২/২৫ মধ্যে ও ৩/৯ গতে ৪/৩৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৩ মধ্যে ও ৮/৪৯ গতে ১১/২৪ মধ্যে ও ১/৫৯ গতে ৩/৪৩ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৬ গতে ৯/৭ মধ্যে ও ১/৮ গতে ২/২৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৪৯ গতে ৮/২৯ মধ্যে। 
১৪ জমাদিয়স সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আমেদাবাদে গিল
হার্দিক পান্ডিয়া ও রশিদ খানের পর শুভমান গিলকে নিল আমেদাবাদ ...বিশদ

09:59:58 AM

ওয়ান ডে সিরিজের প্রস্তুতি শুরু ভারতের
টেস্ট সিরিজের পর সামনে তিন ম্যাচের ওয়ান ডে সিরিজ। যা ...বিশদ

09:59:26 AM

রেড রোডের কুচকাওয়াজে থাকছে নেতাজি-ট্যাবলো
সাধারণতন্ত্র দিবসে দেশের রাজধানীতে মূল অনুষ্ঠান থেকে নেতাজির ট্যাবলো বাদ ...বিশদ

09:40:49 AM

পশ্চিমী ঝঞ্ঝা কাটতেই রাজ্যজুড়ে শীতের দাপট
পশ্চিমী ঝঞ্ঝা কাটতেই রাজ্যজুড়ে শীতের দাপট। আজ, মঙ্গলবার কলকাতার সর্বনিম্ন ...বিশদ

09:40:13 AM

উচ্চ মাধ্যমিকের প্রজেক্ট খাতা সংগ্রহ ২০ জানুয়ারি থেকে
স্কুল থেকে নন-ল্যাবরেটরি বিষয়ের প্রজেক্ট নোটবুক সংগ্রহ করতে শুরু করবে ...বিশদ

09:31:14 AM

দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ ৩৮ হাজারের বেশি
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লক্ষ ৩৮ হাজার ...বিশদ

09:30:45 AM