Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

প্রভাবশালী ধনীরা
জবাবদিহির ঊর্ধ্বে
পি চিদম্বরম

ধনীরা প্রভাবশালী হয় এবং প্রভাবশালীরা ধনী হয়। একবার প্রভাবশালী এবং ধনী হয়ে গেলে, স্পষ্টতই তারা জবাবদিহির ঊর্ধ্বে চলে যাবে। এটাই হয়েছে আজেকর বিপদ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর জন শেরম্যান (প্রথম অ্যান্টিট্রাস্ট অ্যাক্ট, ১৮৯০—সাধারণভাবে যেটিকে শেরম্যান আইন হিসাবে উল্লেখ করা হয়) বলেছিলেন, ‘আমরা যদি একজন রাজাকে রাজনৈতিক শক্তি হিসাবে সহ্য না করি তবে আমাদের উৎপাদন, পরিবহণ এবং জীবনের প্রয়োজনীয় যে-কোনও জিনিসের নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে কোনও রাজাকে সহ্য করা উচিত নয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভেঙে টুকরো হয়ে গিয়েছে স্ট্যান্ডার্ড অয়েল এবং এটি অ্যান্ড টি। আলিবাবা, টেনসেন্ট এবং দিদি-র বিরুদ্ধে কঠোর হয়েছে চীন। মাইক্রোসফট, গুগল এবং ফেসবুকও অনেক দেশে এমন উত্তাপেরই মুখোমুখি। কেন? কারণ, তারা অতিকায়, অত্যন্ত ধনী এবং জবাবদিহির ঊর্ধ্বে চলে গিয়েছে।
আমরা যেমন একজন রাজাকে শাসক হিসেবে সহ্য করব না, তেমনি রাজা হয়ে উঠতে চাওয়া একজন শাসককেও আমাদের সহ্য করা উচিত নয়। অনেক দেশ তাদের রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রী পদে নেতাদের অবস্থানের মেয়াদ বেঁধে দিয়েছে। কারণ, তাঁরা যাবতীয় ক্ষমতা কুক্ষিগত করে স্বৈরাচারী হয়ে উঠতে পারেন।

গণতান্ত্রিক এবং ধনী
রাষ্ট্রপতি কিংবা প্রধানমন্ত্রী হিসাবে প্রকৃত ক্ষমতায় থেকে যাওয়ার একটি উপায় খুঁজে পেয়েছেন ভ্লাদিমির পুতিন। জি জিনপিং তাঁর ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত করেছেন। তাঁর পদে থেকে যাওয়ার মেয়াদের সীমা তুলে দিয়েছেন। আগামী বছর তাঁর থার্ড টার্ম ক্ষমতালাভের প্রস্তুতি সারা হয়ে গিয়েছে। যে-কোনও সংজ্ঞা অনুসারে, উভয় দেশই গণতান্ত্রিক নয়। এমনকী, তারা ধনী দেশের পর্যায়ভুক্তও হয়ে যায়নি।
মাথাপিছু আয়ের নিরিখে বিশ্বের শীর্ষ দশটি ধনী দেশ হল: ১. লুক্সেমবার্গ, ২. আয়ারল্যান্ড, ৩. সুইজারল্যান্ড, ৪. নরওয়ে, ৫. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ৬. আইসল্যান্ড, ৭. ডেনমার্ক, ৮. সিঙ্গাপুর, ৯. অস্ট্রেলিয়া এবং ১০. কাতার। কাতার একটি রাজতন্ত্র। প্রয়োজন বোধে গণতন্ত্র বেছে নিয়েছে সিঙ্গাপুর। বাকি আটটি দেশ পূর্ণ গণতন্ত্র। আমি আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের নাম বলতে পারব। একটু চেষ্টা করলে বলতে পারব অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রপ্রধানেরও নাম। কিন্তু বাকি আটটি দেশের কোনওটিরই প্রেসিডেন্ট বা প্রাইম মিনিস্টারের নাম বলতে পারি না। এর থেকে নীতিশিক্ষাটি বেরিয়ে আসে যে—শান্ত, সংযত এবং প্রচারের আড়ালে রয়ে যাওয়া নেতাদের নেতৃত্বেও একটি দেশ ও তার জনগণ ধনী এবং গণতান্ত্রিক হতে পারে। আমার জানা মতে, এই নেতাদের কেউই অহঙ্কার বা ঔদ্ধত্য প্রকাশের ঘটনায় কখনও অভিযুক্ত হননি।

জবাবদিহির কথা ভাবুন 
যেখানে নিরঙ্কুশ ক্ষমতা কিংবা সংসদ ও মিডিয়ার প্রতি অবজ্ঞা, সেখানে গণতন্ত্র সুস্থভাবে অবস্থান করতে পারে না। ‘আমি সব জানি’ বা ‘আমিই ত্রাণকর্তা’ এমন বাগাড়ম্বরের কোনও জায়গা নেই। এই ‘গুণাবলি’ তখনই ভর করে যখন একটি রাজনৈতিক দল অতিকায় ও অত্যধিক ধনী হয় এবং জবাবদিহির ঊর্ধ্বে উঠে যায়। বিজেপি নিজেকে বিশ্বের বৃহত্তম দল বলে দাবি করে এবং আমরা জানি যে, এটাই ভারতের সবচেয়ে ধনী পার্টি। লোকসভায় মোট ৫৪৩টি আসনের মধ্যে বিজেপির দখলে ৩০০টি এবং রাজ্য বিধানসভাগুলিতে সর্বমোট ৪০৩৬টি আসনের মধ্যে ১৪৩৫টি তাদের দখলে। দেশের ২৮টি রাজ্যের মধ্যে বিজেপি ১৭টিতে ক্ষমতাসীন দল। এই ব্যাপারটা দলটিকে অতিকায় করে তুলেছে। বিজেপি বেশ ধনীও বটে। অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্রেটিক রাইটস অনুসারে জানানো যায়, ২০১৯-২০ সালে ‘নিন্দিত’ নির্বাচনী বন্ড এবং অজানা উৎসগুলি থেকে সমস্ত রাজনৈতিক দলের তরফে মোট সংগ্রহের পরিমাণ ৩,৩৭৭ কোটি টাকা। তার মধ্যে শুধু বিজেপির একার সংগ্রহ ২,৬৪২ কোটি টাকা! পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা ভোটের লাস্ট রাউন্ডে বিজেপি ২৫২ কোটি টাকা খরচ করেছিল। তার মধ্যে ১৫১ কোটি টাকা খরচ হয়েছিল শুধু পশ্চিমবঙ্গেই! 
গত সাতবছরে বিজেপি আরও জবাবদিহির ঊর্ধ্বে চলে গিয়েছে। দলটি সংসদে বিতর্ক এড়িয়ে যায়। সংসদীয় কমিটিকে দিয়ে যাচাই পর্ব এড়িয়ে এবং প্রায়ই দুই কক্ষে বিতর্ক ছাড়াই বিল পাশ করে নেয়। প্রধানমন্ত্রী নিয়ম করে সংসদ ও মিডিয়াকে এড়িয়ে চলেন। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ, সমাজকর্মী, সাংবাদিক ও ছাত্রদের বিরুদ্ধে সিবিআই, ইডি, আয়কর, এনআইএ এবং এখন এনসিবি-কে ব্যবহার করার ব্যাপারে সরকারের কোনও কুণ্ঠা নেই।
অতিকায়, অত্যধিক ধনী এবং জবাবদিহির ঊর্ধ্বে উঠেও বিজেপি একের পর এক ভোটে জিতেছে। যেখানে তারা হেরেছে, সেখানে কিছু বিধায়ক কিনেছে এবং বশংবদ রাজ্যপালদের সহায়তায় সরকার গড়েছে। তবে তার জন্য কোনওরকম বিবেকদংশন অনুভব করেনি। বরং তারা গর্বভরে এই নোংরা খেলাটির নাম দিয়েছে—অপারেশন লোটাস!

ভয় কেবল পরাজয়ের
তিনটি কৃষি আইন পাশ এবং আইনগুলির পক্ষ নিয়ে একগুঁয়ে সওয়ালের ক্ষেত্রে তারা চূড়ান্তরকম অহঙ্কার ও ঔদ্ধত্য দেখিয়েছিল। আইনগুলি প্রথমে অর্ডিন্যান্স বা অধ্যাদেশের মাধ্যমে আনা হয়েছিল। পরে সংসদের মাধ্যমে আইনে রূপান্তরিত হয়েছিল, বিতর্ক এড়িয়ে গিয়েই। কৃষকরা ১৫ মাস ধরে আন্দোলন করলেও সরকার তাঁদের দাবির প্রতি কর্ণপাত করেনি। আলোচনার জন্য কৃষকদের আমন্ত্রণ করার ভিতরে কোনও আন্তরিকতা ছিল না, এবং আলোচনাটিও হয়ে উঠেছিল রাজনৈতিক নাটক। কৃষক ও তাঁদের সমর্থকদের গালমন্দ এবং বদনাম (‘খালিস্তানি, দেশদ্রোহী’) করার বহরটা শালীনতার সীমা অতিক্রম করে গিয়েছিল। পুলিসি অভিযান হয়ে উঠেছিল নির্মম। সুপ্রিম কোর্টের প্রতি প্রতিক্রিয়াটি ছিল অবজ্ঞাসহকারে বিরোধে প্রবৃত্ত হওয়ার মতো। যতক্ষণ না গোয়েন্দা রিপোর্ট এবং সার্ভেগুলির রেজাল্ট উপরমহলকে চমকে দিল ততক্ষণ পর্যন্ত সরকার ছিল আত্মতুষ্টিতে ভরপুর এবং একেবারে ফিটফাট! 
এটা পরিষ্কার যে মোদি সরকারের একটাই ভয়—নির্বাচনে হেরে যাওয়া। ৩০টি বিধানসভা আসনের উপনির্বাচনের ফলাফল প‍্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে পেট্রল এবং ডিজেলের দাম কমানো হয়েছিল। ওই ভোটে বিজেপি জিতেছিল মাত্র সাতটি আসনে। মন্ত্রিসভার অনুমোদন ছাড়াই কৃষি আইনগুলি আকস্মিকভাবে প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মোদি। এর মধ্যে স্পষ্ট ইঙ্গিতটি হল, উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, মণিপুর এবং গোয়ায় (যেখানে আজ তাঁর পার্টি শাসনক্ষমতায় রয়েছে) ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করেন তিনি। পাঞ্জাবে সাফ হয়ে যাওয়ার ভয় পাচ্ছেন। তাঁর মন্ত্রীদের মুখে প্রধানমন্ত্রীর ‘স্টেটসম্যানশিপ’-এর বানানো প্রশংসা এটাই খোলসা করে দিল, কী ভয়ানক ‘ডাম্ব চিয়ারলিডার’ হয়ে উঠেছেন তাঁরা: যখন আইনটি পাশ করলেন শ্রীমোদি তখন ছিলেন একজন ‘স্টেটসম্যান’ বা রাষ্ট্রনায়ক এবং শ্রীমোদি ‘বিগার স্টেটসম্যান’ বা বৃহত্তর রাষ্ট্রনায়ক হয়ে উঠলেন যখন আইনটি তিনি বাতিল করলেন!
ভারতে গণতন্ত্র তবু টিকে থাকতে পারে, বিজেপি ভোটে হেরে যাওয়ার আশঙ্কা যতক্ষণ করবে। আরও ভালো হয় ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাদের প্রকৃত পরাজয় হলে, ঘটনাটি কিছু অহঙ্কার ও ঔদ্ধত্য ঝেড়ে ফেলতে বিজেপিকে সাহায্য করতে পারে।
লেখক সাংসদ ও ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। 
মতামত ব্যক্তিগত
29th  November, 2021
গরিষ্ঠতা নিয়ে নার্ভাস
বরং নরেন্দ্র মোদিই

সমৃদ্ধ দত্ত

শুধু কংগ্রেসমুক্ত ভারত নির্মাণ করাই যে যথেষ্ট নয়, সেটা মোদি এবং অমিত শাহ বুঝেছেন। কারণ, রাজ্যে রাজ্যে একঝাঁক আঞ্চলিক দল রয়েছে, যাঁদের শক্তি অনেক বেশিই রয়ে যাচ্ছে। তাই আঞ্চলিক দলগুলিকে ধ্বংস করতে উদ্যত বিজেপি। ফর্মুলাটি হল, প্রথমে তাদের সঙ্গে জোট করে বন্ধুত্ব পাতানো। তারপর ধীরে ধীরে তাদের ভোটব্যাঙ্কে  ভাগ বসানো। বিশদ

ভারতবর্ষের গণতন্ত্র এবং
সরকারি সাম্প্রদায়িকতা
হুমায়ুন কবীর

গত জুলাইতে লন্ডনের কিংস কলেজে ভারতীয় ছাত্র এবং অ্যালামনি ইউনিয়নের উদ্যোগে ‘ইন্ডিয়া অ্যাট ৭৫’ নামে এক লেকচার সিরিজ অনুষ্ঠিত হয়। তাতে ‘গণতন্ত্র এবং উন্নয়নে’র উপর ভাষণ প্রসঙ্গে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নর রঘুরাম রাজন উন্নয়নের লক্ষ্যে শক্তিশালী নেতা, আরও প্রগতিশীল সরকার এবং উন্মুক্ত গণতন্ত্রের নিদান দেন। বিশদ

তাইওয়ান নিয়ে সংঘাতের পিছনে চিপযুদ্ধ
মৃণালকান্তি দাস

ন্যান্সি পেলোসির সঙ্গে বেজিংয়ের লড়াই সেই ১৯৮৯ সাল থেকেই। পেলোসি যেমন বরাবরই চীনের ঘোর সমালোচক, তেমনই আমেরিকার হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকারকে ‘অসত্য ও বিভ্রান্তিপূর্ণ তথ্যে ভরপুর’ বলে মনে করে বেজিংও।
বিশদ

11th  August, 2022
পূর্বসূরিদের কলঙ্ক মুছতে প্রয়াসী বিজেপি
সন্দীপন বিশ্বাস

বেলাগাম হয়ে ছুটছে মূল্যবৃদ্ধির অশ্বমেধের ঘোড়া। মানুষকে দলিত করে, আহত করে সে ছুটছে আপন খেয়ালে। তাকে রোখার ক্ষমতা নেই রাজাধিরাজের।
বিশদ

10th  August, 2022
ধন্যি রাজনৈতিক অধ্যাবসায়
শান্তনু দত্তগুপ্ত

শ্রদ্ধেয় নীতীশবাবু, রাষ্ট্রপতি আর উপ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের সৌজন্যে বিরোধী জোট রাজনীতির উনুনটা কেমন যেন নিবু নিবু হয়ে পড়েছিল। আচমকা আপনি তাতে জোরদার একটা ফুঁ মেরেছেন।
বিশদ

09th  August, 2022
আমি যে বক্তব্য
রাখতে পারতাম
পি চিদম্বরম

এই বিতর্ক কয়েকদিন আগে হওয়া উচিত ছিল। বিধি ২৬৭-র অধীনে আলোচনা এবং অন্যকোনও নিয়মের মধ্যে ‘বাস্তবিক’ পার্থক্য বুঝতে আমি ব্যর্থ হয়েছি। সরকার একগুঁয়ে, জনগণ এজন্য তার হামবড়া ভাবকে দায়ী করে।
বিশদ

08th  August, 2022
সোনিয়া গান্ধী কি গ্রেপ্তার হবেন?
হিমাংশু সিংহ

পরতে পরতে নাটক দেখছে দেশের জনগণ। যার স্ক্রিপ্ট রচিত হয়েছে সাততারা দীনদয়াল উপাধ্যায় মার্গের ঝাঁ চকচকে অফিসের কনফারেন্স রুমে। তারই প্রতিফলন আজ দিল্লির রাজপথ থেকে রাজ্যে রাজ্যে অলিগলি তস্য গলিতে। মঞ্চস্থ নাটকের নাম ‘বিরোধী ধরো জেল ভরো’। বিশদ

07th  August, 2022
ভয় থেকেই কি সিআইডি তদন্তে বাধা
তন্ময় মল্লিক

‘এমন সুযোগ আর আসবে না কোনো দিন/ বাছবাছাই না করে হাতের কাছে যা পাস/ তাই দিয়ে পোঁটলাপুঁটলি বেঁধে নে হুট করে।/ বেরিয়ে পড়,/দেরি করলেই পস্তাতে হবে/’ অচিন্ত্যকুমার সেনগুপ্তের ‘উদ্বাস্তু’ কবিতার ভূষণ পাল এভাবেই গোটা পরিবারটাকে নাড়িয়ে দিয়েছিলেন। বিশদ

06th  August, 2022
মাননীয় অর্থমন্ত্রী, মূল্যবৃদ্ধি কাকে বলে?
সমৃদ্ধ দত্ত

মূল্যবৃদ্ধিকে ঠিক কেমন দেখতে? জিডিপির মতো? পেট্রল ডিজেলের দামের মতো? ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধের মতো? ডলার ও টাকার বিনিময় মূল্যের মতো? আমদানি রপ্তানি শুল্কের কঠিন অঙ্কের মতো? রেপো রেটের মতো? কেমন হয় মূল্যবৃদ্ধি? সরকার কী বলে আমাদের? বিশদ

05th  August, 2022
বিজেপি কি ধোয়া তুলসী পাতা!
মৃণালকান্তি দাস

গত বছর কর্ণাটকের স্টেট কন্ট্রাক্টর অ্যাসোসিয়েশন প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরকে একটি চিঠি পাঠিয়েছিল। চিঠিতে অভিযোগ তোলা হয়েছিল, বেঙ্গালুরুতে যে কোনও নির্মাণকাজ শুরু করতে গেলে আগে টেন্ডারের মূল্যের ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের দিতে হয়, এর সঙ্গে যুক্ত হয় বিল ক্লিয়ার করার জন্য উপরি ৫ শতাংশ।
বিশদ

04th  August, 2022
এই দুর্দিনে সোনার
ছেলেমেয়েরাই প্রেরণা

হারাধন চৌধুরী

বরং আমাদের প্রেরণা হয়ে উঠুন মীরাবাঈ চানু, জেরেমি লালরিনুঙ্গা, অচিন্ত্য শিউলিরা। তাঁরাই প্রকৃত সোনার মেয়ে ও সোনার ছেলে। আলোচনা চলুক কমনওয়েলথ গেমসে, আন্তর্জাতিক পরিসরে তাঁদের উজ্জ্বল উপস্থিতি নিয়ে। রাজনীতিকরা রোজই কোনও-না-কোনওভাবে আমাদের আশাহত করছেন, মুখ কালো করে দিচ্ছেন। সেই কালো মুখে এইটুকু আশার আলোর মূল্য মোটেই ন্যূন নয়।‌
বিশদ

03rd  August, 2022
এজেন্সির ঘেরাটোপ
শান্তনু দত্তগুপ্ত

বিরোধীশূন্য মসৃণ রাস্তায় হেঁটে পৌঁছতে হবে অভীষ্ট লক্ষ্যে—একচ্ছত্র আধিপত্য। একনায়কতন্ত্রের সঙ্গে গণতন্ত্রের ফারাক কতটা? একটা সুতোর উপর ঝুলছে সেই পার্থক্য—দুর্বলতা। শাসকের নজর রয়েছে ২৪ ঘণ্টা। খোঁজ চলছে অনিয়মের। অর্থ? বেআইনি কাজ কারবার? ফৌজদারি অপরাধ? এগুলোই যে দুর্বলতা! তাহলেই বেঁধে ফেলা যাবে বিরোধীদের। তারা হয় আত্মসমর্পণ করবে, না হলে জেলের দরজা খোলাই রয়েছে। বিশদ

02nd  August, 2022
একনজরে
কলকাতা প্রিমিয়ার লিগে বড় জয় পেল ভবানীপুর ক্লাব। বৃহস্পতিবার রেলওয়ে এফসিকে ৪-১ ব্যবধানে উড়িয়ে দিল তারা। ...

ঝাড়খণ্ডের কংগ্রেস বিধায়ক গ্রেপ্তার কাণ্ডে নয়া মোড়! বৃহস্পতিবারই তিন বিধায়ককে হাওড়ায় সাংসদ-বিধায়কদের জন্য নির্ধারিত আদালতে পেশের নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। নির্দেশ পাওয়া মাত্র তিন বিধায়ককে হাওড়ার ওই বিশেষ আদালতে তোলা হয়। ...

গণরোষে শ্রীলঙ্কা থেকে পালানোর পর এখনও স্থায়ী ঠিকানা খুঁজে পাচ্ছেন না গোতাবায়া রাজাপাকসে। শ্রীলঙ্কার গদিচ্যুত প্রেসিডেন্ট আপাতত গেলেন থাইল্যান্ডে। আর্থিক সঙ্কটে জেরবার শ্রীলঙ্কায় তীব্র গণ আন্দোলনে চাপে দেশ ছেড়ে গত ১৩ জুলাই মালদ্বীপে পৌঁছন গোতাবায়া। ...

আন্তঃজেলা অপহরণ চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে মালদহ জেলা পুলিস। অপহরণ ছাড়াও মাদক পাচার সহ আরও বেশকিছু অপরাধের সঙ্গে তারা যুক্ত বলে জানতে পেরেছে পুলিস। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

যে কোনও ধরনের কর্মে ব্যস্ততা বাড়বে। অর্থকড়ি রোজগার বাড়তে পারে। অর্থ সঞ্চয়ের ক্ষেত্র বিচারে সতর্ক ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস
বিশ্ব হাতি দিবস

১৭৬৫: ইস্ট ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে রবার্ট ক্লাইভ দ্বিতীয় শাহ আলমের কাছ থেকে বাংলা, বিহার ও ওড়িশায় দেওয়ানি স্বত্ত্ব লাভ করেন
১৮৪৮:  স্টিম ইঞ্জিনের রূপকার জর্জ স্টিফেনসনের মৃত্যু
১৮৭৭: টমাস এডিসন গ্রামোফোন তৈরি করেন
১৮৭৭: বহুভাষাবিদ তথা কলকাতার ইম্পেরিয়াল লাইব্রেরির (জাতীয় গ্রন্থাগারের) প্রথম গ্রন্থাগারিক হরিনাথ দের জন্ম
১৮৯২: বিশিষ্ট গণিতজ্ঞ ও গ্রন্থাগারিক।এস আর রঙ্গনাথনের জন্ম 
১৮৯৫: অভিনেতা অহীন্দ্র চৌধুরীর জন্ম
১৮৯৮: যুক্তরাষ্ট্রের সাথে হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের আনুষ্ঠানিক সংযুক্তি
১৯০১: বিপিনচন্দ্র পাল সাপ্তাহিক ‘নিউ ইন্ডিয়া’ প্রকাশ করেন
১৯০৮: বিপ্লবী ক্ষুদিরামের ফাঁসি কার্যকর
১৯১৯: পদার্থবিজ্ঞানী তথা ইসরোর প্রাণপুরুষ বিক্রম আম্বালাল সারাভাইয়ের জন্ম
১৯২২: কাজী নজরুল ইসলামের সম্পাদনায় ‘ধুমকেতু’ প্রকাশিত
১৯৬০: প্রথম যোগাযোগ উপগ্রহ ইকো-১ মহাশূন্যে উৎক্ষেপিত
১৯৬০:  সঙ্গীতশিল্পী, লেখক, অনুবাদক ও ঠাকুরবাডীর প্রগতিশীল বিদুষী মহিলা ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণীর মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৮.৬৩ টাকা ৮০.৩৭ টাকা
পাউন্ড ৯৫.৩৮ টাকা ৯৮.৭৩ টাকা
ইউরো ৮০.৩৬ টাকা ৮৩.৩৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫২,৮৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫০,১৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫০,৯০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫৮,৭৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫৮,৮৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৭ শ্রাবণ, ১৪২৯, শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২। পূর্ণিমা ৪/৩৫ দিবা ৭/৬ পরে প্রতিপদ ৫৬/১৮ দিবা ৩/৪৭। ধনিষ্ঠা নক্ষত্র ৫০/৫০ রাত্রি ১/৩৬। সূর্যোদয় ৫/১৫/৫৪, সূর্যাস্ত ৬/৭/৩২। অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ৭/৫০ গতে ১০/২৪ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ২/৪১ মধ্যে পুনঃ ৪/২৪ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/৩৬ গতে ৯/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৩ গতে ৩/৪৭ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ১০/৩৫ গতে ১১/১৯ মধ্যে পুনঃ ৩/৪৭ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ১০/৩৫ গতে ১১/১৯ মধ্যে পুনঃ ৩/৪৭ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/২৯ গতে ১১/৪২ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫৫ গতে ১০/১৮ মধ্যে।
২৬ শ্রাবণ, ১৪২৯, শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২। পূর্ণিমা দিবা ৭/৩৭। শ্রবণা নক্ষত্র প্রাতঃ ৫/২৭ পরে ধনিষ্ঠা নক্ষত্র শেষ রাত্রি ৪/৬। সূর্যোদয় ৫/১৫, সূর্যাস্ত ৬/১০। অমৃতযোগ দিবা ৭/১ মধ্যে ও ৭/৫১ গতে ১০/২১ মধ্যে ও ১২/৫২ গতে ২/৩২ মধ্যে ও ৪/১২ গতে ৬/১০ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৪ গতে ৮/৫৩ মধ্যে ও ৩/৩ গতে ৩/৪৯ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ১০/২৮ গতে ১১/১৪ মধ্যে ও ৩/৪১ গতে ৫/১৫ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৯ গতে ১১/৪৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫৬ গতে ১০/২০ মধ্যে। 
১৩ মহরম।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মানুষকে ঠকালে সমর্থন নয়: তৃণমূল
কোনও দুর্নীতিকেই প্রশয় দেয় না দল। মানুষকে ঠকালে কোনওভাবেই সমর্থন ...বিশদ

11-08-2022 - 05:55:44 PM

আগামী ২৪ আগষ্ট বিহার বিধানসভায় আস্থা ভোট

11-08-2022 - 04:10:26 PM

কংগ্রেসে বিধায়কদের গ্রেপ্তার মামলায় নয়া মোড়
ঝাড়খণ্ডের কংগ্রেসে বিধায়কদের গ্রেপ্তার মামলায় নয়া মোড়! ঝাড়খণ্ডের গ্রেপ্তার হওয়া ...বিশদ

11-08-2022 - 04:08:38 PM

শীতলপুর গেস্ট হাউসে আনা হয়েছে অনুব্রত মণ্ডলকে

11-08-2022 - 03:11:00 PM

এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় ১৭ আগষ্ট পর্যন্ত সিবিআই হেফাজতে দুই প্রাক্তন কর্তা
এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় আদালতের রায়ে আপাতত হেফাজতে শান্তিপ্রসাদ সিনহা ...বিশদ

11-08-2022 - 02:07:32 PM

রাখী বন্ধন উৎসবে শুভেচ্ছা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
 

11-08-2022 - 02:02:15 PM