Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

কৃষকরা সকলের জন্যই
দিলেন জীবনের শিক্ষা
সমৃদ্ধ দত্ত

কী শিক্ষা দিয়ে গেল একটি আইন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত? নিছক অনড় অবস্থান থেকে পিছু হটে সরকারের সিদ্ধান্ত বদল? না। এই বার্তা শুধুই বহিরঙ্গে। কিন্তু আদতে অন্তর্নিহিত মেসেজটি অনেক গভীরে। সেটি হল, ২০২১ সালের ভারতে আজও অহিংস গণ আন্দোলনে রাষ্ট্র ভয় পায়। রাষ্ট্র নত হয়। রাষ্ট্র ক্ষমা প্রার্থনা করে। অর্থাৎ রাষ্ট্র যতই নির্বাচনী সংখ্যাগরিষ্ঠতার শক্তিতে এক ইগো সর্বস্ব অতি আত্মবিশ্বাসের উঁচু পাহাড়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করার মরিয়া চেষ্টা করুক, তাকে বাস্তবের জল কাদা রোদের মাটিতে টেনে নামানো সম্ভব হয়। 
রাষ্ট্র ও শাসক আজকের এই  অবিশ্বাস্য টেকনোলজি, স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন আর ইনফরমেশন বিস্ফোরণের যুগে পুরনো সব প্রথাকে অতীত ও পরিত্যাজ্য হিসেবে তাচ্ছিল্য করেছিল। ভেবেছিল, আমরা যদি পাত্তা না দিই, আমরা যদি গুরুত্ব না দিই, আমরা যদি অগ্রাহ্য করি, তাহ঩লেই একদিন এই রাস্তায় বসে থাকা কৃষকের দল নিজেরাই চলে যাবে মাথা নিচু করে। আর তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল অবাধ অপপ্রচার, অসম্মান, অপমান। কৃষকদের বলা হয়েছিল অ্যান্টি ন্যাশনাল। খলিস্তানি। আন্দোলনজীবী। কৃষি আইন খুব ভালো। একথা রাষ্ট্র বলেছিল। প্রচার করেছিল। কিন্তু তার থেকে বেশি সেই রাষ্ট্র ও শাসকদের পাশে দাঁড়িয়েছিল নাগরিক সমাজের বিপুল অংশ। তারাও দোহারের মতো বলে গিয়েছে অবিরত যে, হ্যাঁ, কৃষি আইন ভালো। কৃষকদের নিয়ে হাসাহাসি হয়েছে। কেন? কারণ তাদের মধ্যে শিক্ষিত ইংরেজি জানা যুবক যুবতীদের দেখা গিয়েছে পিৎজা খেতে আন্দোলনস্থলে। অর্থাৎ কৃষকদের পিৎজা খাওয়া বারণ। ইংরেজি জানা বারণ। রাষ্ট্র ও তার এই অনুগামীদের প্রবল এক ঝাঁকুনি দিলেন কৃষকরা। 
রাষ্ট্র এটা দেখতে পায়নি যে, দিল্লির সীমানায় রোদে ঝড়ে বৃষ্টিতে, শীতে খোলা আকাশের নীচে বসে এক বৃদ্ধ জানুয়ারির অপরাহ্নে জোরে জোরে পড়ছিলেন জন রিডের বিখ্যাত বই ‘দুনিয়া কাঁপানো দশদিন’। গুরমুখী ভাষায় অনুবাদ। আর তাঁকে ঘিরে একঝাঁক সাধারণ কৃষক শুনছেন সেই কাহিনি। রাষ্ট্র অবজ্ঞা করেছে তাঁদের, আন্দোলনস্থলের মাদুরে শুয়ে যাঁদের হাতে হাতে ঘুরেছে রবীন্দ্রনাথের ‘গোরা’। কৃষকরা যতটা নরেন্দ্র মোদিকে ধাক্কা দিয়েছেন, তার থেকে অনেক বেশি ধাক্কা দিয়েছেন সেই নাগরিক সমাজকে, যারা এতদিন ধরে কৃষি আইনের পক্ষে সওয়াল করেছে। কেন? কারণ, এই নাগরিক সমাজ হুজুগে ভেসে থাকে। 
নাগরিক সমাজের সিংহভাগকে সস্তার ইন্টারনেট ডেটা উপহার দিয়ে রাষ্ট্র এবং কর্পোরেট প্রত্যেককে প্রাইভেট এক সমাজের বাসিন্দা করে দিয়েছে। একজনের সমাজ। একটি করে মোবাইল। অন্তহীন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম। পোর্টাল। এভাবে রাস্তায় নেমে আন্দোলন অথবা জনস্বার্থে দলমতনির্বিশেষে আন্দোলনে শামিল হওয়া থেকে মানুষকে দূরে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে ক্রমেই। যে কোনও প্রতিবাদে প্রথমেই ফেসবুক খুলে লিখতে ইচ্ছে করে! তাই এই সমাজের কাছে কখনও মিডিয়া ভিলেন। কখনও রাজনীতি ভিলেন। কখনও কর্পোরেট ভিলেন। মনোভাবটি খুব সহজ। আমি ভালো। অন্য সবাই খারাপ। আমাকে মিডিয়া, কর্পোরেট, রাজনীতি খারাপ করে দিচ্ছে। এই ধারণা থেকেই নাগরিক সমাজের বৃহৎ অংশ অনেক বেশি আত্মকেন্দ্রিক হয়ে গিয়েছে। আর তার ফলে গণ আন্দোলনের শক্তির মর্ম তারা বুঝতেই পারেনি। 
কৃষকরা প্রথম থেকেই বুঝেছিলেন যে, কৃষি আইন নিয়ে সবথেকে বেশি কথা বলছে এই দেশে তারাই, যারা কৃষিটাই বোঝে না। কতটা মাটিতে কতটা সার, কতটা বীজে কতটা জমিতে ফসল হবে, এই দুরূহ সমীকরণের পিছনে যে এক নিবিড় অনুশীলন, জ্ঞান, অভিজ্ঞতা আর অভিনিবেশ থাকে, সেটা ক’জন মনে রাখে? তাই নাগরিক সমাজ, রাজনৈতিক দল, আইন আদালত কারও উপর একান্ত ভরসা করে না থেকে কৃষকরা একটাই কাজ করে গিয়েছেন। দাঁত দাঁত চেপে রাস্তায় বসে থাকা। নাগরিক সমাজের সকলেই কি দূরে সরে থেকেছেন? একেবারেই নয়। লাগাতার কৃষকদের এই অনড় আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ হয়ে বহু যুবক যুবতী মধ্যবয়সি এসে হাজির হয়েছেন আন্দোলনের তাঁবু ও মঞ্চের সামনে।  
লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, কেন্দ্রীয় সরকার প্রথম প্রথম কৃষকদের সঙ্গে বৈঠক করেছে। যখন বৈঠক করেছে, তখন কৃষকদের সঙ্গে একসঙ্গে লাঞ্চ করার ছবি পোস্ট করা হয়েছে। কৃষি মন্ত্রী, বাণিজ্য মন্ত্রীরা সৌহার্দ্য  দেখিয়েছেন। যাতে প্রমাণ হয়, তাঁরা কৃষকদরদি। কিন্তু তিন কৃষি আইনে সবথেকে লাভ হবে কর্পোরেটের। আর সেই কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে অনড় হয়ে রইলেন কৃষকরা। একদিন সেটা বুঝে গেল সরকার। আর তারপর থেকেই কৃষক দরদি মুখোশটা খুলে গেল। আধুনিক রাষ্ট্র কৃষক দরদি, শ্রমিক দরদি হতেই পারে না। তাদের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য সর্বদাই ঩বিশ্ববাণিজ্যে প্রমাণ করা যে, এই রাষ্ট্র প্রাইভেটাইজেশনের পূজারি। আর সেটা করতে হলে সবার আগে কর্পোরেট এবং কৃষক-শ্রমিকের স্বার্থের মধ্যে যে কোনও একটি দিক বেছে নিতে হবে। কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যাশিতভাবেই বেছে নিয়েছে কর্পোরেটের দিকটি। তাই দ্রুত কৃষকদের গায়ে তকমা দেওয়া হয়েছে অ্যান্টি ন্যাশনাল। 
নরেন্দ্র মোদির বিরোধীদের কাছে একটাই সুসংবাদ যে, তিনি ইতিহাস চর্চা করেন না। যদি করতেন, তাহলে বহু পদক্ষেপ নেওয়ার আগে একবার ভারতের ইতিহাসের দিকে চোখ রাখতেন। খুব বেশি পরিশ্রমও করতে হতো না। কারণ তাঁর হাতের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস রয়েছে। তাঁর নিজের রাজ্যে। ১৯২৮ সালে গুজরাতের বরদোলিতে (তখন গুজরাত নামক রাজ্য ছিল না) প্রবল কৃষক আন্দোলন শুরু হয়েছিল ব্রিটিশ সরকারের কালা কানুনের বিরুদ্ধে। কৃষকদের উপর প্রভূত অত্যাচার হয়। বিপুল ট্যাক্স আরোপ করা হয়। কারারুদ্ধ করা হয় আন্দোলনরতদের। কিন্তু কৃষকদের দমানো যায়নি। এবং কৃষকদের ওই লাগাতার বিদ্রোহ ও আন্দোলনের চাপে পিছু হটে ব্রিটিশ সরকার। ২২ শতাংশ করবৃদ্ধি কমিয়ে আনা হয় ৬ শতাংশে। জয় হয় কৃষকদের।  ওই কৃষক সত্যাগ্রহের অন্যতম নেতা ছিলেন এক কৃষকসন্তান। তিনি ১৯৩১ সালে করাচিতে আয়োজিত ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। আপ্লুত সেই নতুন কংগ্রেস সভাপতি ভাষণে বলেছিলেন, আজ আপনারা সামান্য এক কৃষকসন্তানকে ভারতের এই সর্বোচ্চ পদে অধিষ্ঠিত করলেন। এ আমার কাছে বিরাট প্রাপ্তি। আমি নিশ্চিত যে এই সম্মান আসলে গুজরাতের কৃষকদের। এই নতুন সভাপতির নাম ছিল বল্লভভাই প্যাটেল। বরদোলি সত্যাগ্রহের নেতৃত্ব দেওয়ার সময় থেকেই তাঁকে অভিহিত করা হয়েছিল ‘সর্দার’ নামে। সর্দার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছিলেন সাধারণ মহিলাদের। যাঁরা খাদি পরে, চরকা কেটে, গান গেয়ে, প্রতিদিন রান্না করে, খাবার বিলি করে কৃষক আন্দোলনকে সজীব রেখেছেন দিনের পর দিন, মাসের পর মাস। 
ঠিক এই চিত্রই দেখা যায় ২০২০ থেকে ২০২১ সালের গত এক বছরে। কৃষক আন্দোলনে। এই এক বছরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সাতবার বিদেশ সফরে গিয়েছেন। একবারও কৃষকদের আন্দোলনস্থলে আসেননি। এলে দেখতে পেতেন, ১৯২৮ সালের বরদোলি আন্দোলনেরই পুনরাবৃত্তি হচ্ছে দিল্লির সীমান্তে। রাষ্ট্র যখন নিজের দেশের ইতিহাস ভুলে গিয়ে নিজের ঐতিহ্যকেই অস্বীকার করে, তখনই সেই রাষ্ট্রের আসে দুঃসময়। সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল মোদিজির কাছে রোল মডেল।  তাহলে তাঁর একটি অমোঘ বাক্য মোদি রাখলেন না কেন? সর্দার বলেছিলেন, ‘কৃষক প্রাণের সঞ্চার ঘটায়, গোটা বিশ্বের মুখে খাদ্য জোগায়। আর সবথেকে বেশি পীড়নের শিকার হয় এই কৃষকই। তাই কৃষকের শক্তিকে অবহেলা করা সবথেকে বড় ভুল শাসকের।’ মোদি একই ভুল করেছেন প্যাটেলের অনুগামী হয়েও। 
আমরা সাধারণ নাগরিক সমাজ বিগত কয়েকমাস ধরে ক্রমেই আগ্রহ ও উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছিলাম। আমরা আর অত বেশি বেশি আলোচনা করতাম না কৃষক আন্দোলন নিয়ে। তাঁরা যে এখনও ওই একইভাবে অহিংস আন্দোলনে বসে আছেন, এটা আমরা ধীরে ধীরে ভোট, দুর্গাপুজো, আইপিএলের স্রোতে ভুলেই যাচ্ছিলাম। কম কম আলোচনা হতো আজকাল। আচমকা জিতে গিয়ে আমাদের সজোরে ধাক্কা দিলেন কৃষকরা। আমরা হতচকিত হয়ে দেখলাম, আত্মবিশ্বাসী আন্দোলনের কী বিপুল শক্তি! 
কৃষকরা জানতেন, এই লড়াই তাঁদের আগামীতে বাঁচার লড়াই। অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই। তাই তাঁরা অনড় রইলেন। ভারতবর্ষকে আবার উদ্বুদ্ধ করে বার্তা দিলেন যে, যত বড় শক্তিশালীই হোক, কোনও শাসকই লার্জার দ্যান লাইফ নয়। কেউ সুপারম্যান নয়। কেউ অপরাজেয় নয়। জনগণমনঅধিনায়ক হতে হলে মাটিতে নামতে হবে। নামতে রাজি না হলে? বাধ্য করতে হবে। কৃষকরা পারলেন! তাঁরা আমাদের মতো সাধারণ মানুষকেও আজীবনের মন্ত্র দিলেন যে, ধৈর্য আর সহনশীলতা বজায় রেখে, কঠোর আত্মত্যাগেও লক্ষ্য অবিচল থাকলে, জয় একদিন আসবেই! আমাদের যেন ভরসা হল, আমরাও তাহলে জীবনের ছোট ছোট লড়াইগুলো জিততে পারি! হাল ছাড়তে নেই!
26th  November, 2021
বিজেপির খিচুড়ি রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ঘটনাটা লকডাউন শুরুর ঠিক পরের। ২০২০ সালের এপ্রিলের ১০ তারিখ। উত্তরপ্রদেশের কুশীনগরের এক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। রান্নার লোক আসেনি বলে গ্রামপ্রধান লীলাবতী দেবী নিজেই কোমর বেঁধে নেমে পড়েছিলেন। ভেবেছিলেন, জনা পাঁচেকের রান্না... একাই সামলে দিতে পারব। বিশদ

ভারতীয় অর্থনীতি নিয়ে বৃথা অহঙ্কার
পি চিদম্বরম

মানুষের কথাবার্তায় আলোচনায় অবশ্য জিডিপির চেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে গ্যাস, ডিজেল ও পেট্রলের দাম। বেকারত্ব নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে। সিএমআইই-র হিসেবে, শহুরে বেকারত্বের হার ৮.৫১ শতাংশ এবং গ্রামীণ বেকারত্বের হার ৬.৭৪ শতাংশ। তবে বাস্তবটা আরও ভয়াবহ! বিশদ

17th  January, 2022
উত্তরপ্রদেশ মোদির
ওয়াটারলু হবে না তো!
হিমাংশু সিংহ

গত এপ্রিলে যখন কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে মিরাট থেকে শাহাজাহানপুর, অযোধ্যা থেকে বারাণসী, তখন এক যুবক ক্রমাগত ছুটছেন উত্তরপ্রদেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত। দলিত আর পিছড়ে বর্গের মানুষের ঘরে ঘরে। কোনওকিছুতেই যেন ভ্রুক্ষেপ নেই তাঁর। বয়স ৪৮।
বিশদ

16th  January, 2022
বিজেপির গেম প্ল্যানে জল
ঢেলে দিল সুপ্রিম কোর্ট
তন্ময় মল্লিক

প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা এবং কার গাফিলতিতে ফিরোজপুরের ঘটনা তার যথাযথ তদন্ত চায় সুপ্রিম কোর্ট। দেশের মানুষের সামনে সত্যিটা তুলে ধরতে চায়। তাই গঠন করেছে তদন্ত কমিটি। এই কমিটি যেমন বিজেপির তোলা প্রধানমন্ত্রীকে খুনের চক্রান্তের অভিযোগ খতিয়ে দেখবে, তেমনি তদন্তের আতসকাচের নীচে যাচাই হবে এসপিজির সেদিনের ভূমিকাও। সুপ্রিম কোর্ট বুঝিয়ে দিল, তদন্তের অজুহাতে রাজনীতি আর চলবে না।
বিশদ

15th  January, 2022
সার্বিক টিকাকরণ ও কোভিড
স্বাস্থ্যবিধিতেই বাগ মানবে ওমিক্রন
মৃন্ময় চন্দ

গোটা পৃথিবীর রাতের ঘুম কেড়েছে ওমিক্রন। সংক্রমণ লাগামছাড়া, ডেল্টার তুলনায় ৩৫ শতাংশ বেশি। মানবশরীরে ডেল্টার তুলনায় পাঁচগুণ দ্রুতগতিতে বংশবিস্তার শুরু করে ওমিক্রন। ওমিক্রনের ‘আরনট’ বর্তমানে ১০-এর (ল্যানসেট রেসপিরেটরি মেডিসিন, ১৭ ডিসেম্বর ২০২১) বেশি। হাম বা মিজলস-এর মতোই ছোঁয়াচে ওমিক্রন। বিশদ

15th  January, 2022
দেশের যে সমস্যাগুলি
আড়ালে থেকে যাচ্ছে
সমৃদ্ধ দত্ত

লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসের এডিটোরিয়াল পেজ এডিটর সিউয়েল চ্যান বলেছিলেন, ইন্টারনেটের মাধ্যমে, কেবল নিউজের মাধ্যমে জন্ম হচ্ছে নন স্টপ ওপিনিয়ন মেশিনের।
বিশদ

14th  January, 2022
স্বামীজি ধর্মের নামে কারবার ঘৃণা করতেন
মৃণালকান্তি দাস

 

ছেলেবেলায় বাবার বৈঠকখানায় সব গড়গড়ার নল মুখে নিয়ে জাত যায় কী করে, পরীক্ষা করতে চেয়েছিলেন।
বাবা বিশ্বনাথ দত্তের রসুইখানার বাবুর্চিও ছিলেন মুসলিম।
বিশদ

13th  January, 2022
নেমে আসুক সেই
উজ্জ্বল জ্যোতিষ্কের আলো
সন্দীপন বিশ্বাস

যে ভারত গড়ার স্বপ্ন স্বামীজি দেখেছিলেন, সেই ভারতকে আজ খুঁজে পাওয়া সম্ভব নয়। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সেই মহামানব নরেন্দ্রর বাণীকে জীবনে ও কর্মে আত্মস্থ করতে পারেননি। বারবার তাঁর কথায় স্বামীজির প্রতি ভক্তির প্রকাশ দেখা যায় বটে, কিন্তু কর্মে তাঁর অবস্থান একেবারে বিপরীত মেরুতে। বিগত কয়েক বছরে তাঁর শাসন দক্ষতার নিদর্শন বুঝিয়ে দিয়েছে, যে ভরসা মানুষ তাঁর উপর করেছিলেন, সেখানে তিনি পুরোপুরি ব্যর্থ।
বিশদ

12th  January, 2022
মহামারীর ব্যবসা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

শিয়ালদহ স্টেশন। রাত ৯টা ৩৭ মিনিট। তীব্র হর্নে কেঁপে উঠল শিয়ালদহ সাউথ। লাস্ট ক্যানিং লোকাল ছেড়ে যাচ্ছে। আর ব্যাগ কাঁধে পিছন পিছন ছুটছেন এক বৃদ্ধ। বছর ৬৫ বয়স। এই ট্রেনটা বেরিয়ে গেলে রাতটা কাটাতে হবে প্ল্যাটফর্মেই। তাই ছুটছেন তিনি। কোনওমতে শেষ কামরার রডটা ধরলেন। বিশদ

11th  January, 2022
বেলাগাম গোঁড়ামি
পি চিদম্বরম

প্রথমে ওরা কমিউনিস্টদের জন্য এসেছিল, এবং আমি প্রতিবাদ করিনি—
কারণ আমি কমিউনিস্ট নই।
তারপরে তারা সমাজতন্ত্রীদের জন্য এসেছিল, এবং আমি প্রতিবাদ করিনি—
কারণ আমি সমাজতন্ত্রী নই।
বিশদ

10th  January, 2022
বাংলারই রিপ্লে দেখছি পাঞ্জাবে...
হিমাংশু সিংহ

আপাতভাবে বিরোধীরা হীনবল হলেও আন্দোলন আর প্রতিবাদের নতুন চালিকা শক্তি আজ কৃষকরা। যাঁদের সামনে মাথা ঝোঁকাতে হয়েছে সর্বশক্তিমানকেও। পার্লামেন্টে গরিষ্ঠতা থাকা সত্ত্বেও। সেই পথ ধরেই শ্রমিক, সরকারি কর্মী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ তাঁদের হক বুঝে নিতে চাইছে। লোকসভা ভোটের দু’বছর আগে এই বার্তা মোটেও শুভ সঙ্কেত নয় নোট বাতিলের ব্যর্থ নায়কের পক্ষে!
বিশদ

09th  January, 2022
মনমোহন পারলেও
মোদি পারলেন না
তন্ময় মল্লিক

মোদিজির ‘বেঁচে ফেরা’র মন্তব্য প্রাণহানির আশঙ্কা থেকে নাকি রাজনৈতিক গিমিক, তা নিয়ে বিতর্ক চলবে। তবে যখন কমান্ডো পরিবেষ্টিত একজন প্রধানমন্ত্রী তাঁর নিজের দেশে দাঁড়িয়ে প্রাণ সংশয়ের কথা বলেন, তখন তাঁর রাজনৈতিক দেউলিয়াপনাই প্রকাশ পেয়ে যায়।
বিশদ

08th  January, 2022
একনজরে
রেল লাইনের ধার থেকে আহত একটি পূর্ণ বয়স্ক বন বিড়াল (জাঙ্গল ক্যাট) উদ্ধার করল বনদপ্তর। অন্যদিকে, গৃহস্থের বাড়িতে ঢুকে পড়া অপর একটি বন বিড়ালকে উদ্ধার ...

রান্নার গ্যাসের দাম ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়ায় গরিব থেকে মধ্যবিত্ত সকলের কপালেই চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। সেখানে পাইপলাইনে গ্যাসের জোগান শুরু হলে হেঁশেলের বিপদ যেমন কাটবে, তেমনই ...

হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট সারিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে হোম সিরিজে ফিরতে চলেছেন রোহিত শর্মা। ফেব্রুয়ারির গোড়ায় ভারতে আসছে ক্যারিবিয়ানরা। খেলবে তিনটি ওয়ান ডে এবং তিনটি টি-২০ ম্যাচ। ...

সোমবার সকালে তমলুকের শ্রীরামপুর থেকে পাঁশকুড়া যাওয়ার গ্রামীণ সড়ক যোজনার রাস্তায় দোবাঁধি এলাকায় ধস নেমে প্রায় ২০ ফুট নীচে চলে গেল ২৫টি দোকানঘর। ভেঙে পড়েছে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসায়িক কর্মোন্নতির প্রবল যোগ। আর্থিক প্রাপ্তি হবে মোটা অঙ্কে। কর্মপ্রাপ্তির সুখবরে মনে প্রফুল্লতা। স্বাস্থ্য এক ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৭৮ - ব্রিটিশ অভিযাত্রী ক্যাপ্টেন জেমস কুক হাওয়াই দ্বীপ আবিষ্কার করেন
১৮৫৪ -আলেকজান্ডার গ্রাহাম বেলের সহকারী তথা টেলিফোন আবিষ্কারের অন্যতম প্রবর্তক  টমাস আউগুস্তুস ওয়াটসনের জন্ম
১৮৬২ - বঙ্গীয় আইন পরিষদ গঠিত হয়
১৯৪৭: সঙ্গীতশিল্পী কে এল সায়গলের মৃত্যু
১৯৪৮ - হিন্দু মুসলমান দাঙ্গা বন্ধ হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গান্ধী তার ১২১ ঘণ্টার অনশনের অবসান ঘটিয়েছিলেন ১৯৭২: ক্রিকেটার বিনোদ কাম্বলির জন্ম
১৯৯৬: রাজনীতিক ও অভিনেতা এন টি রামারাওয়ের মৃত্যু
২০০৩: কবি হরিবংশ রাই বচ্চনের মৃত্যু
২০১৮: বিশিষ্ট বাঙালি সাংবাদিক ও কার্টুনিস্ট চন্ডী লাহিড়ীর মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৩৭ টাকা ৭৫.০৮ টাকা
পাউন্ড ৯৯.৮২ টাকা ১০৩.২৭ টাকা
ইউরো ৮৩.২৪ টাকা ৮৬.৩০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮,৮০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬,৩০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭,০০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬২,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬২,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ মাঘ, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২। প্রতিপদ অহোরাত্র। পুষ্যা নক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৬/২৩/৩, সূর্যাস্ত ৫/১০/৫৫। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩২ গতে ১০/৪১ মধ্যে পুনঃ ১২/৫০ গতে ২/১৭ মধ্যে পুনঃ ৩/০ গতে ৪/২৬ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩ মধ্যে পুনঃ ৮/৪১ গতে ১১/১৯ মধ্যে পুনঃ ১/৫৮ গতে ৩/৪৩ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৩ গতে ৯/৪ মধ্যে পুনঃ ১/৭ গতে ২/২৭ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৪৯ গতে ৮/২৮ মধ্যে। 
৪ মাঘ, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৮  জানুয়ারি ২০২২। প্রতিপদ শেষরাত্রি ৬/১৫। পুষ্যা নক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৬/২৬, সূর্যাস্ত ৫/১০। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩১ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ১২/৫৬ গতে ২/২৫ মধ্যে ও ৩/৯ গতে ৪/৩৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৩ মধ্যে ও ৮/৪৯ গতে ১১/২৪ মধ্যে ও ১/৫৯ গতে ৩/৪৩ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪৬ গতে ৯/৭ মধ্যে ও ১/৮ গতে ২/২৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৪৯ গতে ৮/২৯ মধ্যে। 
১৪ জমাদিয়স সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ওমিক্রন মোকাবিলায় টিকা তৈরি ভারতীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থার
করেনার ‘ওমিক্রন’ ভ্যারিয়েন্টের মোকাবিলায় একটি ভ্যাকসিন তৈরি করেছে ভারতীয় ওষুধ ...বিশদ

08:54:12 AM

উচ্চ মাধ্যমিকের প্রজেক্ট খাতা সংগ্রহ ২০ জানুয়ারি থেকে
স্কুল থেকে নন-ল্যাবরেটরি বিষয়ের প্রজেক্ট নোটবুক সংগ্রহ করতে শুরু করবে ...বিশদ

08:50:00 AM

কাশ্মীরে অস্ত্র পাচারের ঘটনায় চার্জশিট
গত বছর লস্করের সহযোগী জঙ্গিনেতাকে গ্রেপ্তার করে নাশকতার ছক বানচাল ...বিশদ

08:40:00 AM

পিএফ পেনশন ৫ হাজার চায় বিএমএস
প্রভিডেন্ট ফান্ডের (পিএফ) অন্তর্ভুক্ত দেশের ৬৫ লক্ষ পেনশনভোগীর হয়ে দাবি ...বিশদ

08:30:00 AM

সাংবাদিকদের জন্যও পোস্টাল ব্যালট
আগামী মাসে উত্তরপ্রদেশ, পাঞ্জাব, উত্তরাখণ্ড, গোয়া ও মণিপুরে বিধানসভা নির্বাচন। ...বিশদ

08:20:00 AM

ইতিহাসে আজকের দিনে
১৭৭৮ - ব্রিটিশ অভিযাত্রী ক্যাপ্টেন জেমস কুক হাওয়াই দ্বীপ আবিষ্কার ...বিশদ

08:14:42 AM