Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার চেষ্টায়
অন্যায়ের কী আছে?
সমৃদ্ধ দত্ত

উত্তমকুমার বাংলা সিনেমা জগতে সুপারস্টার হয়ে যাওয়ার পর স্থির করেছিলেন, এবার একবার হিন্দি চলচ্চিত্র সাম্রাজ্যে ভাগ্যান্বেষণের চেষ্টা করলে কেমন হয়? সেই প্রয়াস তিনি করেছিলেন। কিন্তু ভুল গাইডেন্স, সঠিক পরিকল্পনার অভাব এবং কিছু পারিষদবর্গের স্বার্থান্বেষী দিশানির্দেশের সম্মিলিত ফলাফল হিসেবে তাঁর সেই উদ্যোগটি সফল হতে পারেনি। ‘ছোটি সি মুলাকাত’ সিনেমা করতে গিয়ে তিনি আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হন। এবং বুঝতে পারেন বাংলা এবং বম্বের সিনেমা জগৎ সমান নয়। পরবর্তী সময়ে তিনি কিছু হিন্দি সিনেমায় অভিনয় করেন। তবে সেগুলি নিছকই চরিত্রাভিনেতা। বম্বে জয় করার স্বপ্নটি অধরাই থেকে গিয়েছে। দক্ষিণের মহাতারকা হয়ে যাওয়ার পর চেষ্টা করেছিলেন রজনীকান্তও। তিনিও সফল হতে পারেননি। ভারতের এক নম্বর শিল্পপতি হওয়ার পর মুকেশ আম্বানির লক্ষ্য বিশ্বজুড়ে একটি ব্র্যান্ড হয়ে ওঠা এবং প্রথম সারির স্থান দখল করা। তাই তিনি কখনও ফেসবুকের সঙ্গে চুক্তি করছেন, কখনও নিজস্ব মোবাইল হ্যান্ডসেট আনছেন। 
আমরা যখন স্কুলের চাকরি পাই, কিছুদিন পর সকলেরই মনের একটি গোপন ইচ্ছা থাকে, স্কুলে আটকে থাকলে চলবে না। এরপর কলেজে শিক্ষকতার জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। আমরা যখন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য অথবা কাউন্সিলার পদে নির্বাচিত হই, আমাদের বাসনা ও স্বপ্ন থাকে এরপর বিধায়ক, তারপর মন্ত্রী হব। একজন  ব্যবসায়ী তাঁর ক্ষুদ্র ব্যবসাটি পরিশ্রম করে বাড়িয়ে যখন দেখলেন বেশ লাভজনক হয়েছে, তাঁর লক্ষ্য থাকে ব্যবসা বাড়াতে হবে, আরও একটি দোকান কিনতে হবে অথবা অন্য একটি নতুন বাণিজ্যে টাকা লগ্নি করলে কেমন হয়? আমাদের মধ্যে অনেকেই রাজ্য সরকারের ইউডিসি পদে চাকরি পাওয়ার পর, প্রাণপণে পড়াশোনা করি ডব্লুবিসিএস পাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে। ডাক্তারি ছাত্রদের আকাঙ্ক্ষা থাকে, এমবিবিএসের পর এমডি, তারপর বিদেশ গিয়ে একটা বিশেষজ্ঞ ডিগ্রি অর্জন। বসিরহাট থেকে কলকাতায় যিনি এতকাল ডিম সাপ্লাই দিচ্ছেন, তাঁর একান্ত কল্পনা থাকে, বৈঠকখানা বাজারে আমার একটা নিজের দোকান হলে ভালো হয়। এই তালিকার অন্ত নেই। অর্থাৎ জীবিকা, কেরিয়ার, রাজনীতি, পারফর্মিং আর্টস, শিক্ষা, সাহিত্য, সমাজসেবা প্রতিটি ক্ষেত্রেই মানুষের মনস্তাত্ত্বিক একটি লক্ষ্য থাকে, আরও একটু এগিয়ে যাওয়া। যতটা অর্জন করেছি, আরও একটু নতুন লক্ষ্যপূরণের স্বপ্ন বুকে বাসা বাঁধে। এটাই স্বাভাবিক। কেউ সফল হয়। কেউ ব্যর্থ হয়। কিন্তু এই যে পরবর্তী একটি লক্ষ্যকে সামনে রেখে পরিশ্রম করে অগ্রসর হওয়া, এর মধ্যে অন্যায় নেই। বরং এটাই হওয়া উচিত। 
এসব প্রসঙ্গ উত্থাপনের কারণ কী? কারণ হল, বাংলার রাজনীতির সাম্প্রতিক গতিপ্রকৃতি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধীদের মধ্যে আপাতত একটি ব্যঙ্গবিদ্রুপ শুরু হয়েছে। সেটি হল, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন? তিনি যে কোনওভাবেই প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন না এই ভবিষ্যদ্বাণী নিয়ে ঠাট্টা ইয়ার্কি কটাক্ষ করা হচ্ছে। বিরোধীরা তো রাজনীতিগতভাবে মমতা বিরোধী। তাহলে তাঁরা যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রাণপণে রাজনীতির ময়দানে পরাস্ত ও বিব্রত দেখতে চাইবেন এটা তো স্বাভাবিক? অন্যায়ের কী আছে? একেবারেই ঠিক। কিন্তু এক্ষেত্রে বিষয়টি নিছক রাজনীতির প্রতিপক্ষের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। তাঁকে হেয় প্রতিপন্ন করা হচ্ছে এই প্রচারে যে, প্রধানমন্ত্রী হওয়ার ধৃষ্টতা তিনি কেন দেখাচ্ছেন? তাঁর পক্ষে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখাটাই যেন বিরাট অপরাধ এবং উপহাসযোগ্য! 
খুব স্বাভাবিক নিয়মেই মমতা প্রধানমন্ত্রী হতে চাইতেই পারেন। ১৯৮৪ সাল থেকে তিনি বিরোধী নেত্রী। কংগ্রেসের মতো এক বিপুল বটগাছের আশ্রয় থেকে বেরিয়ে তেপান্তরের মতো এক শূন্য ময়দানে এসে তিনি নিজের একক দলের চারাগাছ তৈরি করেছিলেন ১৯৯৮ সালে। মাত্র ১৩ বছরের মধ্যে সেই দল বাংলায় সরকার গঠন করে ফেলেছিল। এর পরবর্তী দুটি নির্বাচনেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিপুলভাবে গরিষ্ঠতা পেয়ে জয়ী হয়েছেন। অর্থাৎ মোট তিনবার তিনি সরকার গঠন করেছেন। ভারতের যে কোনও প্রথম সারির রাজনীতিবিদের কাছে তিনবারের মুখ্যমন্ত্রী হওয়াই এক চরম সাফল্য। সুতরাং, এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরবর্তী গোলপোস্ট যদি প্রধানমন্ত্রীর আসনটি হয়, সেটা অস্বাভাবিক তো নয়ই, বরং সেটাই কাম্য। একইভাবে নবীন পট্টনায়ক দেখতে পারেন এই স্বপ্ন। নীতীশ কুমার পারেন। শারদ পাওয়ার পারেন। অরবিন্দ কেজরিওয়ালেরও মনে এই বাসনা আছে। এসবই অত্যন্ত স্বাভাবিক। 
তিনবারের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে যাওয়ার পর এবার একটি উচ্চতর সাফল্যকে স্পর্শ করতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেটায় তিনি সফল হতে পারেন।  চরম ব্যর্থও হতে পারেন। সেই ফলাফল ২০২৪ সালে জানা যাবে। কিন্তু এই উদ্যোগটি হাস্যকর, অস্বাভাবিক, ইম্যাচিওরড এরকম ভাবছে কেন বিরোধীরা? দুবারের  সফল মুখ্যমন্ত্রী, দলের উপর আধিপত্য কায়েম করতে সিদ্ধহস্ত এবং গুজরাতের সফল প্রশাসক হিসেবে দেশে পরিচিত নরেন্দ্র মোদি ২০১২ সাল থেকেই ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী হওয়ার বাসনায়। সেটাও ছিল স্বাভাবিক। তাঁর সুবিধা ছিল যে, তিনি একটি সর্বভারতীয় দলের নেতা। সুতরাং তাঁর জয়ের সম্ভাবনা বেশিই ছিল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লড়াই কঠিন। এককভাবে তৃণমূল তো আর গরিষ্ঠতা পাবে না। সুতরাং একটি বিজেপি বিরোধী জোট গড়তে হবে। তার আগে প্রতিটি বিজেপি বিরোধী দলের মোট আসন মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপির থেকে বেশি হতে হবে। গরিষ্ঠতা অর্জন করতে হবে। সকলকে সহমতের ভিত্তিতে একই ছাতার নীচে আনতে হবে। অনেক কঠিন রাস্তা, সমীকরণ এবং রসায়ন পেরিয়ে যেতে হবে তাঁকে। কিন্তু চেষ্টায় দোষ কী? 
বিরোধীরা হয়তো বুঝতেই পারছেন না যে, তাঁরা এই ইস্যু নিয়ে হাসাহাসি কিংবা ব্যঙ্গবিদ্রুপ করার পরোক্ষ অর্থ হল, তাঁরা মনেপ্রাণে চাইছেন না যে একজন বাঙালি প্রধানমন্ত্রী হন। অর্থাৎ তাঁদের মনোভাব হল, এই প্রথম কোনও বাঙালি ভারতের প্রধানমন্ত্রী হবেন কি না সেটা নিয়ে কোনও মাথাব্যথা নেই। কিন্তু ব্যক্তি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেন ব্যর্থ হন। অর্থাৎ বাঙালির স্বার্থ নিয়ে তাঁদের কোনও আবেগ অথবা উচ্চাশা নেই। তাঁরা তৃণমূলকে ভোটে হারানোর জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ুন না! সেটাই তো স্বাভাবিক হবে। কিন্তু মমতা কেন প্রধানমন্ত্রী হতে চাইছেন এই প্রশ্ন উত্থাপন করা তো অর্থহীন! 
বিরোধীদের বিশ্লেষণ করা দরকার যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পছন্দ করি আর নাই করি, তাঁর রাজনীতির আমি সমর্থক যদি নাও হই, শেষ বিচারে স঩ত্যিই যদি একজন বাঙালি প্রধানমন্ত্রী আমরা পেয়ে যাই, সেটা বাঙালি জাতি এবং রাজ্যের উন্নয়নের নিরিখে একটি বিরাট সুযোগ উপস্থিত করবে। দুই দফায় রেলমন্ত্রী থাকার সময়ই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গোটা দেশের সব সমালোচনা সহ্য করে এবং বহু আপত্তি অগ্রাহ্য করে বাংলার জন্য অগাধ উপহার দিয়েছিলেন বাজেটের পর বাজেটে। সেজন্য তাঁকে নিজের সরকারের মধ্যেই প্রচুর আপত্তি, কটাক্ষ, প্রতিবাদের সম্মুখীন হতে হয়েছিল। সর্বভারতীয় মিডিয়ায় মমতার রেলবাজেটে বাংলার জন্য কল্পতরু হওয়া নিয়ে শিরোনাম করা হয়েছে, ‘বেঙ্গল এক্সপ্রেস’! তিনি তোয়াক্কা করেননি। পরের বছর আবার দিয়েছেন বাংলাকে উপহার। 
সুতরাং প্রধানমন্ত্রীর পদটি একবার বাঙালির কাছে এলে যে আদতে বাংলার ভবিষ্যৎ অনেকটাই অন্যরকম হবে, সেই আশা করা‌ই যায়। বিগত ৭৪ বছরে তো সম্পূর্ণ উপেক্ষিত হয়েই রইলাম আমরা। এবার একটা মরিয়া চেষ্টা হলে ক্ষতি কী? সবথেকে বড় কথা, এটাই হয়তো শেষ সুযোগ! কারণ, এই মুহূর্তে আর কোন বাঙালি রাজনীতিক আছেন যিনি প্রভাব, প্রতিপত্তি, জনপ্রিয়তায় প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন ভবিষ্যতে? এরকম পরিস্থিতি যে কোনও রাজ্যে তৈরি হলে কিন্তু সেই রাজ্যবাসী চাইতেন তাঁদের রাজ্যের নেতাই যেন প্রধানমন্ত্রী হন। তিনি যে দলেরই হন। বাঙালিও নিশ্চয়ই সেরকমই চাইবে। বাংলার স্বার্থে। 
২০২৪ সালে দেশজুড়ে ভোটের ফলাফল কেমন হবে সেটার উপর নির্ভর করছে সম্ভাবনা কোনদিকে অগ্রসর হবে। সেরকম কোনও পরিস্থিতি আদৌ তৈরি হবে কি না, হলেও মমতাকে সব বিজেপি বিরোধী দল মেনে নেবে কি না ইত্যাদি অসংখ্য পারমুটেশন কম্বিনেশনের প্রশ্ন আছে ভবিষ্যতের গর্ভে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাফল্যের গ্রাফ চমকপ্রদ। দেখা যাচ্ছে, ১৯৮৪ সাল থেকে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত বিগত ৩৭ বছরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিপক্ষ হয়ে এ রাজ্যে দীর্ঘদিন রাজনীতি করেছেন, এরকম প্রজন্ম একে একে মূলস্রোত থেকে বিদায় নিয়েছেন অথবা নিচ্ছেন কিংবা ভোটে হেরে গুরুত্বহীন হয়ে যাচ্ছেন রাজ্য রাজনীতিতে। বাম, কংগ্রেস, বিজেপি সর্বত্রই এই চিত্র।  সফল হয়ে রয়ে গিয়েছেন তিনি একা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনীতি ভালো হোক অথবা মন্দ, তাঁর সমর্থক হই অথবা না হই, তীক্ষ্ণভাবে লক্ষ্য করে দেখা যাচ্ছে যে, এ রাজ্যে রাজনৈতিক যুদ্ধে তিনি ধীরে ধীরে সম্পূর্ণ প্রতিপক্ষহীন হয়ে যাচ্ছেন! 
24th  September, 2021
দু’টো ডোজ মানেই
বিশল্যকরণী নয়
শান্তনু দত্তগুপ্ত

করোনা বিদায় নেয়নি। তা সত্ত্বেও আনন্দে মেতেছেন এঁরা... পুজো কমিটির ধারক ও বাহকেরা। তাঁরা প্রভাবশালী। তাই ২০০৯ সালের কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ হেলায় অমান্য করতে পারেন। আদালত তো জানিয়েই দিয়েছিল, কোনওভাবে মণ্ডপের উচ্চতা যেন ৪০ ফুট না ছড়ায়। তা সত্ত্বেও বছরের পর বছর বহু পুজো কমিটি ইচ্ছেমতো প্রভাব খাটিয়ে চলেছে।
বিশদ

মানবাধিকারের পক্ষে ক্ষতিকারক মানসিকতা
পি চিদম্বরম

গত তিন বৎসরাধিককালে প্রধানমন্ত্রী ভীমা কোরেগাঁও মামলায় বন্দিদের মানবাধিকার নিয়ে একটি শব্দও খরচ করেননি। এমনকী এনআইএ নামক যে সংস্থার দায়িত্বে তিনি রয়েছেন তার তরফে এই মামলার অভিযোগ গঠনে দীর্ঘ বিলম্বের কারণ নিয়েও তিনি নিশ্চুপ। ... আমি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সম্পূর্ণ একমত যখন তিনি বলেন, ‘‘এই ধরনের মানসিকতা মানবাধিকারের প্রভূত ক্ষতিসাধন করে।’’ বিশদ

18th  October, 2021
ক্ষুধার দেশে মোদিজিকে
ধন্যবাদ, শুভেচ্ছা...
হিমাংশু সিংহ

এই অবনমনের ব্যর্থতা শুধু অনাহার আর ক্ষুধার সূচকেই সীমাবদ্ধ নেই। আছে যুদ্ধক্ষেত্রেও। ৫৬ ইঞ্চি ছাতির সেই দাপট যেন কোথায় স্তিমিত বিগত বেশ কিছুদিন ধরে। নাকি হিসেব তোলা থাকছে আগামী চব্বিশ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে ফের কোনও বিতর্কিত ধামাকার জন্য।
বিশদ

17th  October, 2021
সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছাড়া
স্কুল খোলা উচিত নয়
মৃন্ময় চন্দ

ভারতে স্কুল বন্ধ ১৭ মাস। লকডাউন পর্বে বেহাল শিক্ষার হালহকিকত জানতে বিহারের, ঔরাঙ্গাবাদের বিজেপি সাংসদ সুশীল কুমার সিং, শিক্ষামন্ত্রীর কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন লিখিত আকারে পেশ করেছেন। যেমন, করোনা অতিমারীর কারণে রাজ্যভিত্তিক স্কুলছুটের সঠিক তথ্য-পরিসংখ্যান সরকারের কাছে আছে কি না? বিশদ

17th  October, 2021
গণেশ জননী নবপত্রিকাবাসিনী দুর্গা
চৈতন্যময় নন্দ

মার্কণ্ডেয় পুরাণের অন্তর্গত সপ্তশতী চণ্ডীতে দেবী দুর্গা শস্যদেবীরূপে যেন জগতে অবতীর্ণা এ বার্তা দৃপ্ত কণ্ঠে বিঘোষিত। সর্বজীবের প্রাণরক্ষার উপযোগী শাক-শস্যের দ্বারা তিনি পৃথিবীকে পালন করেন তাই মহাজননী শারদেশ্বরীর আর এক নাম শাকম্ভরী।  বিশদ

12th  October, 2021
১৮ লক্ষ প্রদীপ এবং কিছু বাস্তব
শান্তনু দত্তগুপ্ত

উত্তরপ্রদেশে ১৮ লক্ষ দিয়া জ্বালিয়ে এই অবিচারের অন্ধকার দূর হবে কি? কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে, আপনার তরফ থেকে একটাও বিবৃতি জারি হয়নি। এখনও না। কেন? ওই মানুষগুলো কি এতটুকুরও যোগ্য নয়? করুণা তারা চায়নি। টাকাও নয়। তারা চেয়েছিল বিচার। বিশদ

12th  October, 2021
কার আইন, কার আদেশ?
পি চিদম্বরম

শব্দগুলি জোরে এবং স্পষ্ট, উচ্চাঙ্গে, প্রায় নাটকীয়ভাবে বেজে ওঠে, ‘আমরা, ভারতের জনগণ ... নিজেদেরকে এই সংবিধান দিয়েছি।’ এবং স্বাধীনতা, সৌভ্রাতৃত্ব এবং অন্যান্য উদ্দেশ্যগুলির মধ্যে সবাইকে সুরক্ষিত করার জন্য আমরা আমাদেরকে এই সংবিধান দিয়েছি।
বিশদ

11th  October, 2021
কৃষকের রক্ত লেগেছে
হাতে তবু পুলিস নির্বিকার...
হিমাংশু সিংহ

সুপ্রিম কোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত মামলায় কেন্দ্রকে নিশানা করে যোগী সরকারকে জোরালো ভর্ৎসনা না করলে হয়তো গ্রেপ্তারির প্রক্রিয়া শুরু হতো না। সমনের নোটিসও ইস্যু হতো না মন্ত্রিপুত্রের নামে। শুধু একটা এফআইআর করেই দায় সারতে চেয়েছিল উত্তরপ্রদেশ সরকার। যেন মৃতদের পরিবারের জন্য নেহাতই একটা সান্ত্বনা পুরস্কার।​​​
বিশদ

10th  October, 2021
 মমতাকে আটকানোই যেন লক্ষ্য না হয়
 
​​​​​​​

কেউ উপরে উঠতে গেলেই শুরু হয়ে যায় টেনে নামানোর মরিয়া চেষ্টা। কর্মক্ষেত্র থেকে রাজনীতি, সর্বত্র একই ছবি। সেই কারণে মুখে মুখে ছড়ানো ‘বাঙালি কাঁকড়া’র গল্প এত জনপ্রিয়। জাতীয় রাজনীতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গুরুত্ব বাড়তেই শুরু হয়েছে তাঁকে টেনে নামানোর লড়াই।​​​​​​
বিশদ

09th  October, 2021
সিপিএমের রাজনৈতিক
ভবিষ্যৎ কী হতে চলেছে?
সমৃদ্ধ দত্ত

মানুষ তৃণমূলকে কেন ভোট দিচ্ছে? এসব বিশ্লেষণ না করে, সিপিএমের বিশ্লেষণ করা উচিত ছিল যে, আমাদের কেন দিচ্ছে না? এখন বিশ্লেষণ করে কাজ হবে? না হবে না। দেরি হয়ে গিয়েছে। বাংলায় সিপিএম ক্রমেই পরিণত হয়ে যাবে একটি অতীত পার্টিতে! স্মৃতির রাজনীতি হয়ে! বাঙালির নতুন নস্টালজিয়া-সিপিএম!
বিশদ

08th  October, 2021
এ নরেন সে নরেন নয়!
মৃণালকান্তি দাস

বিশ্বকে মানবতার মূল্য শিখিয়েছিলেন স্বামীজি...
তারিখটি ছিল ৯/১১। শিকাগো ভাষণের বর্ষপূর্তিতে স্বামী বিবেকানন্দকে স্মরণ করে এমনই মন্তব্য করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মোদি বলেছিলেন, মানবতার মূল্য বুঝতে আজও ১৮৯৩ সালের সেই বক্তৃতার গুরুত্ব অপরিসীম। প্রধানমন্ত্রী বেলুড় মঠের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে থাকা স্বামীজির বাণী সংযুক্ত করেছিলেন নিজের টুইটে।
বিশদ

07th  October, 2021
মোদি সরকারের ভ্যাকসিন ব্যর্থতা
হারাধন চৌধুরী

টিকাকরণের স্বল্পতা এবং ধীরগতির পুরো দায় সরকারের। ভ্যাকসিন ইস্যুতে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে দেশের মাথা হেঁট হয়ে যাওয়ার দায়ও নিতে হবে মোদি সরকারকে। বিদেশের মাটিতে এই যে উপর্যুপরি মর্যাদাহানি, এটা ভারতের বিরাট কূটনৈতিক ব্যর্থতাও বটে। বিশদ

06th  October, 2021
একনজরে
সাইকেল চোর সন্দেহে বছর বত্রিশের এক হাইস্কুল শিক্ষককে মারধরের অভিযোগ উঠল ইংলিশবাজার পুরসভার ওয়ার্ড কোঅর্ডিনেটর তৃণমূল কংগ্রেসের পরিতোষ চৌধুরী ওরফে সেভেন ও তাঁর সঙ্গীদের বিরুদ্ধে। ...

ক্ষমতা থেকে বিদায় নেওয়ার বছর থেকেই সিপিএম তথা বামেদের জনসমর্থনের গ্রাফ ক্রমশ নিম্নগামী হয়েছে। একের পর এক ভোটে তাদের প্রতি মানুষের সমর্থন প্রায় তলানিতে এসে ...

‘বর্তমান’-এর প্রাক্তন কর্মী গণেশচন্দ্র দাস প্রয়াত। বেলঘরিয়ার বাসিন্দা গণেশবাবু গত ১০ অক্টোবর বেলা ১টা ২০ মিনিট নাগাদ একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর ...

দেশের শেয়ার বাজার যথেষ্ট চাঙ্গা। ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী সূচক। পাশাপাশি সাধারণ মানুষের ঝোঁক বাড়ছে মিউচুয়াল ফান্ডের উপর। আর তার জেরেই দেশে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগের অঙ্ক লাফিয়ে বাড়ছে। মিউচুয়াল ফান্ড সংস্থাগুলির সর্বভারতীয় সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব মিউচুয়াল ফান্ডস ইন ইন্ডিয়ার দেওয়া তথ্য বলছে, ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মে বাধা থাকলেও অগ্রগতি হবে। ব্যবসায় লাভ হবে সর্বাধিক। অর্থাগম যোগটি শুভ। কর্মক্ষেত্রে এবং রাজনীতিতে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৩৮৬: জার্মানীর সর্বাপেক্ষা প্রাচীন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়
১৮৬৯: স্বাধীনতা সংগ্রামী মাতঙ্গিনী হাজরার জন্ম
১৮৮৮: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শান্তিনিকেতন প্রতিষ্ঠা করেন
১৯০৩:বিশিষ্ট সুরকার তথা সঙ্গীত পরিচালক রাইচাঁদ বড়ালের জন্ম
১৯২৪: কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর জন্ম
১৯৫৬: বলিউড তারকা সানি দেওলের জন্ম
২০০৫: বাগদাদে শুরু হয় সাদ্দাম হুসেনের বিচার প্রক্রিয়া



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৬০ টাকা ৭৬.৯২ টাকা
পাউন্ড ১০০.৯৮ টাকা ১০৫.৮৩ টাকা
ইউরো ৮৫.১৫ টাকা ৮৯.২৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮,০০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৫,৫৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৬,২৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৩,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৩,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

দিনপঞ্জি----------------------

দৃকসিদ্ধ: ২ কার্তিক, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১। চর্তুদ্দশী ৩৩/৩৩ রাত্রি ৭/৪। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র ১৬/২৫ দিবা ১২/১২। সূর্যোদয় ৫/৩৮/১৪, সূর্যাস্ত ৫/৫/২। অমৃতযোগ দিবা ৬/২৪ মধ্যে পুনঃ ৭/১০ গতে ১০/৫৯ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩৭ গতে ৮/২৭ মধ্যে পুনঃ ৯/১৬ গতে ১১/৪৭ মধ্যে পুনঃ ১/২৭ গতে ৩/৭ মধ্যে পুনঃ ৪/৪৮ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/৩৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪ গতে ৮/৩০ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৭ গতে ২/১৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৩৯ গতে ৮/১৩ মধ্যে। 
১ কার্তিক, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১। চর্তুদ্দশী রাত্রি ৬/৪৫। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র দিবা ১/৮। সূর্যোদয় ৫/৩৯, সূর্যাস্ত ৫/৬। অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৩ মধ্যে ও ৭/১৭ গতে ১০/৫৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৭ গতে ৮/১৯ মধ্যে ও ৯/১৯ গতে ১১/৪৬ মধ্যে ও ১/৩০ গতে ৩/১৩ মধ্যে ও ৪/৫৭ গতে ৫/৪০ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/২৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৫ গতে ৮/৩১ মধ্যে ও ১২/৪৮ গতে ২/১৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৪০ গতে ৮/১৪ মধ্যে।
১২ রবিয়ল আউয়ল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনে মহিলাদের ৪০ শতাংশ টিকিট দেবে কংগ্রেস
আগামী বছর উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনে মহিলাদের ৪০ শতাংশ টিকিট দেবে কংগ্রেস। ...বিশদ

03:35:25 PM

ভারত-পাক ম্যাচের আগে একসঙ্গে দুই কোচ
রবিবার মরুশহরে আয়োজিত হবে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ। ভারত-পাক ম্যাচ শুরু হওয়ার ...বিশদ

03:13:30 PM

বিশ্ব ক্রমতালিকায় প্রথম দশ থেকে ছিটকে গেলেন ফেডেরার
লন টেনিসের অন্যতম কিংবদন্তি রজার ফেডেরোর। এখনও পর্যন্ত ২০টি গ্র্যান্ড ...বিশদ

02:51:17 PM

সাপের কামড়ে মৃত্যু গৃহবধূর
ঘরে ঘুমানোর সময় সাপের কামড়ে মৃত্যু হল এক গৃহবধূর। গুসকরা ...বিশদ

02:44:10 PM

নৈনিতালের লেকের জল উপচে পড়ছে রাস্তায়
একটানা বৃষ্টির ফলে উত্তরাখণ্ডের নৈনিতালে লেকের জল উপচে পড়ছে রাস্তায়। ...বিশদ

02:13:39 PM

হলদিয়ার এলপিজি বটলিং প্ল্যান্টে জখম শ্রমিকের সঙ্গে দেখা করলেন তাপস মাইতি
হলদিয়ার এলপিজি বটলিং প্ল্যান্টে দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম শ্রমিকের সঙ্গে মঙ্গলবার ...বিশদ

02:09:58 PM