Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মোদির গৌরব, অগৌরব
ও বিপন্ন সাংবাদিকতা
হিমাংশু সিংহ

আমেদাবাদের সাংবাদিক ধবল প্যাটেল গত প্রায় এক বছর দেশছাড়া। তাঁর অপরাধ কী? সওয়া এক বছর আগে তিনি লিখেছিলেন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রুপানিকে সরতে হচ্ছে। আজ ১৬ মাস বাদে তাঁর পূর্বাভাস মিলেও গিয়েছে হুবহু। গত ১১ সেপ্টেম্বর নিজেই ইস্তফা দিয়েছেন কিংবা বাধ্য হয়ে সরে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী রুপানি। সাধারণত কোনও সাংবাদিকের রাজনৈতিক পূর্বাভাস মিলে গেলে নামডাক হয়। বাজারে জনপ্রিয়তা বাড়ে। কিন্তু কোনও স্পেকুলেটিভ স্টোরি করার জন্য জেল এবং শেষে মুচলেকা দিয়ে প্রায় গোপনে দেশ ছাড়ার নজির এই ভারতে আর আছে কি না জানা নেই। অথচ জ্বলন্ত সেই ঘটনাই ঘটে গিয়েছে মোদির নিজের রাজ্য গুজরাতে। প্রমাণ হয়ে গিয়েছে গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ আজ এক গরিব ঘর থেকে উঠে আসা চা-ওয়ালার হাতে কতটা বিপন্ন!
সাংবাদিক ধবল প্যাটেল ‘ফেস অব নেশন’ নামে আমেদাবাদের একটি স্থানীয় পোর্টালের সম্পাদক ছিলেন। গত বছর (৭ মে, ২০২০) তিনি লেখেন, গুজরাতে শীঘ্রই মুখ্যমন্ত্রী বদল হতে চলেছে। দিল্লিতে সিদ্ধান্ত হয়ে গিয়েছে। শুধু ঘোষণার অপেক্ষা। পিছনের কারণ দলের গোলমাল ও বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তাঁর উপর আস্থার অভাব। এবং অবশ্যই কোভিড সামলানোর ব্যর্থতা। মুখ্যমন্ত্রী রুপানিকে নিয়ে তাঁর ওই সাড়া জাগানো খবরে স্বভাবতই চাঞ্চল্য পড়ে যায় আমেদাবাদ থেকে দিল্লিঘুরে জাতীয় রাজনীতিতে। স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর বশংবদ পুলিস সব ঝাঁপিয়ে পড়ে এক নিরীহ সাংবাদিকের উপর। যেহেতু দেশে করোনা চলছে তাই ধবলের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ ও বিপর্যয় মোকাবিলা আইনের কড়া ধারা দিয়ে মহামারীর মধ্যে সমাজে অশান্তি ও বিভ্রান্তি ছড়ানোর অভিযোগে এফআইআর করা হয়। সরকার এতটাই প্রোঅ্যাক্টিভ ছিল, যে  এক সপ্তাহের মধ্যে তিনি গ্রেপ্তার হন। তাঁর বাড়ি অফিসে ব্যাপক তল্লাশি চলে। ধবলের অপরাধ তিনি মুখ্যমন্ত্রী বদল হতে পারে বলে একটা খবর করেছিলেন মাত্র। চুরি করেননি। কারও সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগও নেই। সাংবাদিকতায় কিছু স্পেকুলেটিভ খবর সব সময় হয়। যার কিছু মেলে, কিছু মেলে না। অনেকটা এক্সিট পোলের মতো। এ নিয়ে শাসকের সঙ্গে ঠান্ডা লড়াই, চিঠিচাপাটি মোটেই অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিছু ক্ষেত্রে তা মানহানির মামলাতেও গড়ায়। এটা একজন সাংবাদিকের পেশাগত ঝুঁকির অন্যতম দিক। কিন্তু তার জন্য বিপর্যয় মোকাবিলা আইনের সুযোগ নিয়ে সটান সাংবাদিককে জেলে পুরে দেওয়ার নজির মনে হয় জরুরি অবস্থা বাদ দিলে এদেশে বড় একটা নেই। অথচ অবাধ গণতন্ত্রের ধ্বজা ওড়ানো মোদি সরকারের আমলে তাই হয়েছে। ধবল প্যাটেল শুধু গ্রেপ্তারই হননি, যখন তিনি বুঝেছেন মহামারী আইনে যেভাবে তাঁকে বেঁধে ফেলা হয়েছে, তাতে সহজে রেহাই মিলবে না, তখন মুচলেকা দিয়ে প্রাণে বেঁচেছেন। এবং কিছুদিনের মধ্যেই দেশ ছেড়েছেন। এই মোদি সরকারই জরুরি অবস্থার সময়ে সাংবাদিকদের ক্ষমতা কেড়ে নেওয়া নিয়ে আজ সাড়ে চার দশক বাদেও সভায় সমাবেশে চোঙা ফুঁকে আসর গরম করেন। অথচ গত সাত বছরে সম্পাদক ধবল প্যাটেলের মতো এমন সাংবাদিক দমনের ঘটনা ভূরি ভূরি ঘটলেও কারও কোনও হেলদোল নেই! পরিসংখ্যানই বলছে, মোদি জমানায় ২০১৫ সাল থেকে চলতি ২০২১ সাল পর্যন্ত ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্সে ভারত দ্রুত নেমেছে। ৬ বছর আগে আমরা ছিলাম ১৩৬তম স্থানে, আর আজ দুর্ভাগ্যজনকভাবে নেমে গিয়েছি ১৪২ নম্বরে। 
রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ও আইনের সুযোগ নিয়ে সাময়িক কোনও সাংবাদিক ও সংবাদপত্রগোষ্ঠীকে দমিয়ে রাখা গেলেও সত্যি তো আর দীর্ঘদিন চাপা থাকে না। ইন্দিরা গান্ধী কালা কানুন মিসা ব্যবহার করেও প্রবাদপ্রতিম বরুণ সেনগুপ্ত, গৌরকিশোর ঘোষকে দমাতে পারেননি। রুখতে পারেননি সাতাত্তরের ঐতিহাসিক পালাবদল। আশা করি, সময় এলে দোর্দণ্ডপ্রতাপ নরেন্দ্র মোদিও পারবেন না। সত্যি, আজ নয় কাল প্রতিষ্ঠিত হবেই। যেভাবেই হোক। সমাজের বিভিন্ন স্তরে কৃষক শ্রমিক খেটে খাওয়া মানুষের বিক্ষোভ ও অশান্তির টুকরো টুকরো ছবির মধ্যে দিয়ে তা ইতিমধ্যেই জানান দিতেও শুরু করেছে। গুজরাতের ক্ষেত্রেও যা অনিবার্য ছিল তাই ঘটে গিয়েছে। ভাগ্যের এমনই পরিহাস ওই পোর্টাল সম্পাদকের জেলবাসের ১৬ মাস পর রুপানি সাহেবকে মাথা নিচু করেই মুখ্যমন্ত্রী পদে ইস্তফা দিতে হয়েছে নেতৃত্বের নির্দেশে। মুখে সংগঠনের কাজ করবেন বলে সাফাই দিলেও কোভিড মোকাবিলায় গুজরাত সরকারের চূড়ান্ত ব্যর্থতায় মোদি-অমিত শাহ যে যারপরনাই ক্ষুব্ধ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তার ওপর বিধানসভা ভোটের এক বছর আগে গুরুত্বপূর্ণ প্যাটেল সম্প্রদায়ও সেখানে মুখ্যমন্ত্রীর কাজে খুশি নন। গোলমাল চরমে। তাই বিজেপির গদি বাঁচাতে রুপানির অপসারণ একপ্রকার অনিবার্যই ছিল। আর সেই কথা লিখেই সরকারের কোপে পড়েছিলেন এক সম্পাদক। আজ যখন তাঁর করা খবর বাস্তবের সঙ্গে মিলে গেল, তখন সেই সাংবাদিককে আর  শুভেচ্ছা জানানোর কেউ নেই। নিশ্চয়ই বিদেশে একলা বসে সেদিনের নোট বইটা খুঁটিয়ে দেখে পাওয়া তথ্যগুলো আর একবার যাচাই করতে গিয়ে তৃপ্তির হাসি হেসেছেন নিপীড়িত সেই সাংবাদিক। আর ওই তৃপ্তিটাই দু’সপ্তাহের জেল যন্ত্রণার দীর্ঘশ্বাস ও বাধ্য হয়ে বিদেশে পাড়ি দেওয়ার অসহায়তা থেকে তাঁকে অন্তত একটু স্বস্তি দিয়েছে। সান্ত্বনা এটুকুই।
কিন্তু ধবল প্যাটেল তো একা নন। গত কয়েক বছরে রাষ্ট্রের হাতে হেনস্তার শিকার সাংবাদিকের তালিকাটা কিন্তু দীর্ঘ।  সঙ্ঘ পরিবারের স্নেহধন্য কেউ গ্রেপ্তার হলে নজিরবিহীনভাবে দ্রুত সুপ্রিম কোর্টে মামলা ওঠে। খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ট্যুইট করেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা রে রে করে নেমে পড়েন। জামিনের সঙ্গে মেলে বীরের সম্মানও। বশংবদ না হলে ঝুলে থাকে মামলা, কেউ খোঁজও নেয় না। দিল্লির ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক প্রশান্ত কানোজিয়া একটা নিরীহ ট্যুইট করেছিলেন রামমন্দির নিয়ে। তাতেই রেগে গিয়ে গেরুয়া শিবির তাঁকে দিল্লি থেকে লখনউতে তুলে নিয়ে গিয়ে জেল খাটিয়েছে। বাড়ি অফিসে তল্লাশির নামে তাণ্ডব চলেছে। টিভি চ্যানেলের জনপ্রিয় অ্যাঙ্কর পুণ্যপ্রসূন বাজপেয়ি এক সময়ের অত্যন্ত পরিচিত নাম। হঠাৎ একটি নামকরা চ্যানেলের শীর্ষ পদ থেকে তাঁর সরে যাওয়া ঘিরে নানা অপ্রিয় প্রশ্ন সামনে এসেছে। কার চাপে ও অঙ্গুলিহেলনে এমনটা হয়েছে, সে রহস্যের এখনও পর্দাফাঁস হয়নি। কার্যত তাঁর কেরিয়ারই খতম করে দেওয়ার আয়োজন সম্পূর্ণ। তালিকায় আছেন জনপ্রিয় মহিলা সাংবাদিক ও অ্যাঙ্কর বরখা দত্তও। ব্যক্তিগতভাবে প্রতিশোধ নিতে পাকিস্তানের চর বলে দেগে দেওয়া হয়েছে তাঁকে। দেশীয় সংবাদমাধ্যমের কোথাও টিকতে দেওয়া হয়নি অকুতোভয় বরখাকে। আজকাল মাঝে মাঝে কিছু বিদেশি গণমাধ্যমে তাঁর কলাম দেখতে পাই বটে, তবে ওইটুকুই। টাইম ম্যাগাজিনে বিশ্বের ১০০ প্রভাবশালীর তালিকায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে লেখাটাও তাঁর। কাশ্মীর নিয়ে নিয়মিত খবর করে সরকারের কোপে পড়েছেন সাংবাদিক মুস্তাক আহমেদ গনাই। তাঁকে শুধু গ্রেপ্তার করেই ক্ষান্ত হয়নি প্রশাসন, চলেছে অকথ্য অত্যাচারও। সবমিলিয়ে শুধু ২০২০ সালেই রাষ্ট্রের হাতে নিপীড়িত সাংবাদিকের সংখ্যাটা অনেক, এবং প্রতিনিয়তই তা বাড়ছে। তথ্যের আদানপ্রদান, স্বাধীন চিন্তা ও মতামতকে ইতিহাসে কোথাও একনায়করা ভালো চোখে দেখেননি। আমরা ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে শুধু একজন হিটলারের কথা বলি, কিন্তু সমাজে সংসারে, দৈনন্দিন চারপাশে এবং অবশ্যই রাজনীতিতে ‘হিটলার’ কখনও কম পড়েনা! 
কেন বললাম এতগুলো কথা। এর কারণ একটাই এদেশে গত সাত বছরে সংখ্যালঘু মুসলিমদের সঙ্গে সাংবাদিকরাও যে অনিশ্চয়তার মুখোমুখি তা সবিস্তারে তুলে ধরা প্রয়োজন। টাইম ম্যাগাজিন বিশ্বের ১০০ প্রভাবশালীর তালিকায় নরেন্দ্র মোদির নাম অর্ন্তভুক্ত করেও সংখ্যালঘু ও সাংবাদিকদের এই বিপন্নতার কথাই সবিস্তারে তুলে ধরেছে। সাংবাদিক ফরিদ জাকারিয়া লিখেছেন, ‘৭৪ বছরে স্বাধীন ভারত তিনজন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে পেয়েছে। জওহরলাল নেহরু, ইন্দিরা গান্ধী ও নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু নরেন্দ্র মোদি ভারতকে ধর্মনিরপেক্ষ থেকে টেনে নামিয়ে হিন্দু রাষ্ট্র করার দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। তাঁর আমলে সংখ্যালঘুদের অধিকার খর্ব হয়েছে এবং সাংবাদিকদের ঠাঁই হয়েছে জেলে।’ একবারে হক কথা। তবে শুধু সংখ্যালঘু ও সাংবাদিকরাই নন, আজ বিপন্ন দেশের মহিলারাও। ডবল ইঞ্জিন রাজ্য উত্তরপ্রদেশ নিয়ে ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর পরিসংখ্যানের দিকে তাকালেই পরিস্থিতিটা পরিষ্কার হয়ে যাবে। গত সপ্তাহেই সেই রাজ্যের আদ্যন্ত ‘যোগী’ মুখ্যমন্ত্রী অজয় বিস্ত মহিলাদের সঙ্গে গোরু, মোষকে একাসনে বসিয়ে গোটা দেশকে চমকে দিয়েছেন। কট্টর গেরুয়া সংসারে নারীর স্থান কোথায় তা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে তাঁর ওই একটা কথাতেই। এরাই আবার মাঠে ময়দানে ‘ভারত মাতা কি জয়’ বলে ছদ্ম জাতীয়তাবাদের ধ্বজা তুলে ধরেন। আর বিরুদ্ধে বেফাঁস কেউ কিছু বললেই পাকিস্তানি সাজিয়ে আসর মাত করেন! আর তাতেও কাজ না হলে ইন্টারনেট পরিষেবাই বন্ধ করে দাও। তথ্যের আদানপ্রদান যেখানে স্তব্ধ, মানুষে মানুষে যোগাযোগ যেখানে ক্ষীণ সেখানে প্রতিবাদ ভাষা খুঁজে পায় না। পোড় খাওয়া শাসকের অস্ত্র তাই মানুষে মানুষে দূরত্ব তৈরি করা। একটা পরিসংখ্যান বলছে, রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে ভারতেই সবচেয়ে বেশি ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করা হয়েছে। কাশ্মীর তার জ্বলন্ত উদাহরণ। কারণটা উপলব্ধি করা সহজ, মোদিজি গোলযোগ বেশি সইতে পারেন না! তাই সংসদে নিজের ঘরে হাজির থাকলেও বহু গুরুত্বপূর্ণ বিতর্ক চলার সময়ও তিনি অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করেন না। যেমন জরুরি অবস্থার ফিকে বসন্তে ইন্দিরাজিও সহ্য করতে পারতেন না। কিন্তু ইতিহাস যে ওসব বোঝে না, ঠিক সময়ে নির্মমভাবে প্রতিশোধ নেয়। ৪৪-৪৫ বছর আগের ইতিহাস খুঁড়ে আজকের শাসক তাঁর এগিয়ে যাওয়ার অক্সিজেন খোঁজেন। একইভাবে মোদিজিরও গৌরবের তুলনায় অগৌরবের পাল্লা ভারী হলে ইতিহাস কিন্তু ক্ষমা করবে না। টাইম ম্যাগাজিন ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের যে তালিকা তুলে ধরেছেন তাতে ভারতের প্রাপ্তি তিন। মমতা ও পুনাওয়ালার নাম স্থান পেয়েছে গৌরবের আতিশয্যে। আর মোদিজি অগৌরবেই বিশ্ব সেরাদের মঞ্চে। আজ থেকে দু’দশক বাদে তাঁর শাসনকালও সাংবাদিকদের কাছে জরুরি অবস্থার কলঙ্কের সঙ্গে এক নিঃশ্বাসে উচ্চারিত হলে আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকবে না। নোট বাতিল, কাশ্মীরকে সবক শেখানো, অযোধ্যার রামমন্দির নির্মাণ আর হিন্দু রাষ্ট্রের গৌরব সেই কালি মুছে দিতে পারবে তো!
19th  September, 2021
দু’টো ডোজ মানেই
বিশল্যকরণী নয়
শান্তনু দত্তগুপ্ত

করোনা বিদায় নেয়নি। তা সত্ত্বেও আনন্দে মেতেছেন এঁরা... পুজো কমিটির ধারক ও বাহকেরা। তাঁরা প্রভাবশালী। তাই ২০০৯ সালের কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ হেলায় অমান্য করতে পারেন। আদালত তো জানিয়েই দিয়েছিল, কোনওভাবে মণ্ডপের উচ্চতা যেন ৪০ ফুট না ছড়ায়। তা সত্ত্বেও বছরের পর বছর বহু পুজো কমিটি ইচ্ছেমতো প্রভাব খাটিয়ে চলেছে।
বিশদ

মানবাধিকারের পক্ষে ক্ষতিকারক মানসিকতা
পি চিদম্বরম

গত তিন বৎসরাধিককালে প্রধানমন্ত্রী ভীমা কোরেগাঁও মামলায় বন্দিদের মানবাধিকার নিয়ে একটি শব্দও খরচ করেননি। এমনকী এনআইএ নামক যে সংস্থার দায়িত্বে তিনি রয়েছেন তার তরফে এই মামলার অভিযোগ গঠনে দীর্ঘ বিলম্বের কারণ নিয়েও তিনি নিশ্চুপ। ... আমি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সম্পূর্ণ একমত যখন তিনি বলেন, ‘‘এই ধরনের মানসিকতা মানবাধিকারের প্রভূত ক্ষতিসাধন করে।’’ বিশদ

18th  October, 2021
ক্ষুধার দেশে মোদিজিকে
ধন্যবাদ, শুভেচ্ছা...
হিমাংশু সিংহ

এই অবনমনের ব্যর্থতা শুধু অনাহার আর ক্ষুধার সূচকেই সীমাবদ্ধ নেই। আছে যুদ্ধক্ষেত্রেও। ৫৬ ইঞ্চি ছাতির সেই দাপট যেন কোথায় স্তিমিত বিগত বেশ কিছুদিন ধরে। নাকি হিসেব তোলা থাকছে আগামী চব্বিশ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে ফের কোনও বিতর্কিত ধামাকার জন্য।
বিশদ

17th  October, 2021
সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছাড়া
স্কুল খোলা উচিত নয়
মৃন্ময় চন্দ

ভারতে স্কুল বন্ধ ১৭ মাস। লকডাউন পর্বে বেহাল শিক্ষার হালহকিকত জানতে বিহারের, ঔরাঙ্গাবাদের বিজেপি সাংসদ সুশীল কুমার সিং, শিক্ষামন্ত্রীর কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন লিখিত আকারে পেশ করেছেন। যেমন, করোনা অতিমারীর কারণে রাজ্যভিত্তিক স্কুলছুটের সঠিক তথ্য-পরিসংখ্যান সরকারের কাছে আছে কি না? বিশদ

17th  October, 2021
গণেশ জননী নবপত্রিকাবাসিনী দুর্গা
চৈতন্যময় নন্দ

মার্কণ্ডেয় পুরাণের অন্তর্গত সপ্তশতী চণ্ডীতে দেবী দুর্গা শস্যদেবীরূপে যেন জগতে অবতীর্ণা এ বার্তা দৃপ্ত কণ্ঠে বিঘোষিত। সর্বজীবের প্রাণরক্ষার উপযোগী শাক-শস্যের দ্বারা তিনি পৃথিবীকে পালন করেন তাই মহাজননী শারদেশ্বরীর আর এক নাম শাকম্ভরী।  বিশদ

12th  October, 2021
১৮ লক্ষ প্রদীপ এবং কিছু বাস্তব
শান্তনু দত্তগুপ্ত

উত্তরপ্রদেশে ১৮ লক্ষ দিয়া জ্বালিয়ে এই অবিচারের অন্ধকার দূর হবে কি? কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে, আপনার তরফ থেকে একটাও বিবৃতি জারি হয়নি। এখনও না। কেন? ওই মানুষগুলো কি এতটুকুরও যোগ্য নয়? করুণা তারা চায়নি। টাকাও নয়। তারা চেয়েছিল বিচার। বিশদ

12th  October, 2021
কার আইন, কার আদেশ?
পি চিদম্বরম

শব্দগুলি জোরে এবং স্পষ্ট, উচ্চাঙ্গে, প্রায় নাটকীয়ভাবে বেজে ওঠে, ‘আমরা, ভারতের জনগণ ... নিজেদেরকে এই সংবিধান দিয়েছি।’ এবং স্বাধীনতা, সৌভ্রাতৃত্ব এবং অন্যান্য উদ্দেশ্যগুলির মধ্যে সবাইকে সুরক্ষিত করার জন্য আমরা আমাদেরকে এই সংবিধান দিয়েছি।
বিশদ

11th  October, 2021
কৃষকের রক্ত লেগেছে
হাতে তবু পুলিস নির্বিকার...
হিমাংশু সিংহ

সুপ্রিম কোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত মামলায় কেন্দ্রকে নিশানা করে যোগী সরকারকে জোরালো ভর্ৎসনা না করলে হয়তো গ্রেপ্তারির প্রক্রিয়া শুরু হতো না। সমনের নোটিসও ইস্যু হতো না মন্ত্রিপুত্রের নামে। শুধু একটা এফআইআর করেই দায় সারতে চেয়েছিল উত্তরপ্রদেশ সরকার। যেন মৃতদের পরিবারের জন্য নেহাতই একটা সান্ত্বনা পুরস্কার।​​​
বিশদ

10th  October, 2021
 মমতাকে আটকানোই যেন লক্ষ্য না হয়
 
​​​​​​​

কেউ উপরে উঠতে গেলেই শুরু হয়ে যায় টেনে নামানোর মরিয়া চেষ্টা। কর্মক্ষেত্র থেকে রাজনীতি, সর্বত্র একই ছবি। সেই কারণে মুখে মুখে ছড়ানো ‘বাঙালি কাঁকড়া’র গল্প এত জনপ্রিয়। জাতীয় রাজনীতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গুরুত্ব বাড়তেই শুরু হয়েছে তাঁকে টেনে নামানোর লড়াই।​​​​​​
বিশদ

09th  October, 2021
সিপিএমের রাজনৈতিক
ভবিষ্যৎ কী হতে চলেছে?
সমৃদ্ধ দত্ত

মানুষ তৃণমূলকে কেন ভোট দিচ্ছে? এসব বিশ্লেষণ না করে, সিপিএমের বিশ্লেষণ করা উচিত ছিল যে, আমাদের কেন দিচ্ছে না? এখন বিশ্লেষণ করে কাজ হবে? না হবে না। দেরি হয়ে গিয়েছে। বাংলায় সিপিএম ক্রমেই পরিণত হয়ে যাবে একটি অতীত পার্টিতে! স্মৃতির রাজনীতি হয়ে! বাঙালির নতুন নস্টালজিয়া-সিপিএম!
বিশদ

08th  October, 2021
এ নরেন সে নরেন নয়!
মৃণালকান্তি দাস

বিশ্বকে মানবতার মূল্য শিখিয়েছিলেন স্বামীজি...
তারিখটি ছিল ৯/১১। শিকাগো ভাষণের বর্ষপূর্তিতে স্বামী বিবেকানন্দকে স্মরণ করে এমনই মন্তব্য করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মোদি বলেছিলেন, মানবতার মূল্য বুঝতে আজও ১৮৯৩ সালের সেই বক্তৃতার গুরুত্ব অপরিসীম। প্রধানমন্ত্রী বেলুড় মঠের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে থাকা স্বামীজির বাণী সংযুক্ত করেছিলেন নিজের টুইটে।
বিশদ

07th  October, 2021
মোদি সরকারের ভ্যাকসিন ব্যর্থতা
হারাধন চৌধুরী

টিকাকরণের স্বল্পতা এবং ধীরগতির পুরো দায় সরকারের। ভ্যাকসিন ইস্যুতে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে দেশের মাথা হেঁট হয়ে যাওয়ার দায়ও নিতে হবে মোদি সরকারকে। বিদেশের মাটিতে এই যে উপর্যুপরি মর্যাদাহানি, এটা ভারতের বিরাট কূটনৈতিক ব্যর্থতাও বটে। বিশদ

06th  October, 2021
একনজরে
‘বর্তমান’-এর প্রাক্তন কর্মী গণেশচন্দ্র দাস প্রয়াত। বেলঘরিয়ার বাসিন্দা গণেশবাবু গত ১০ অক্টোবর বেলা ১টা ২০ মিনিট নাগাদ একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর ...

এটিকে মোহন বাগানের নতুন সহকারী কোচ হচ্ছেন বাস্তব রায়। সঞ্জয় সেন টানা পাঁচ মাস জৈব বলয়ে থাকতে চাইছেন না বলেই তাঁকে দায়িত্ব দেওয়া হল। যুব উন্নয়নের দায়িত্বে রাখা হচ্ছে সঞ্জয় সেনকে। ...

দেশের শেয়ার বাজার যথেষ্ট চাঙ্গা। ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী সূচক। পাশাপাশি সাধারণ মানুষের ঝোঁক বাড়ছে মিউচুয়াল ফান্ডের উপর। আর তার জেরেই দেশে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগের অঙ্ক লাফিয়ে বাড়ছে। মিউচুয়াল ফান্ড সংস্থাগুলির সর্বভারতীয় সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব মিউচুয়াল ফান্ডস ইন ইন্ডিয়ার দেওয়া তথ্য বলছে, ...

পুজোর আগে থেকেই সব্জির বাজার ঊর্ধ্বমুখী ছিল। টোম্যাটো, পটল, বেগুন বা অন্যান্য সব্জি কিনতে গিয়ে ক্রেতাদের মাথায় হাত পড়েছে। অনেকেই আশা করেছিলেন, পুজোর কয়েকটা দিন ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মে বাধা থাকলেও অগ্রগতি হবে। ব্যবসায় লাভ হবে সর্বাধিক। অর্থাগম যোগটি শুভ। কর্মক্ষেত্রে এবং রাজনীতিতে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৩৮৬: জার্মানীর সর্বাপেক্ষা প্রাচীন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়
১৮৬৯: স্বাধীনতা সংগ্রামী মাতঙ্গিনী হাজরার জন্ম
১৮৮৮: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শান্তিনিকেতন প্রতিষ্ঠা করেন
১৯০৩:বিশিষ্ট সুরকার তথা সঙ্গীত পরিচালক রাইচাঁদ বড়ালের জন্ম
১৯২৪: কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর জন্ম
১৯৫৬: বলিউড তারকা সানি দেওলের জন্ম
২০০৫: বাগদাদে শুরু হয় সাদ্দাম হুসেনের বিচার প্রক্রিয়া



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৬০ টাকা ৭৬.৯২ টাকা
পাউন্ড ১০০.৯৮ টাকা ১০৫.৮৩ টাকা
ইউরো ৮৫.১৫ টাকা ৮৯.২৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮,০০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৫,৫৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৬,২৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৩,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৩,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

দিনপঞ্জি----------------------

দৃকসিদ্ধ: ২ কার্তিক, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১। চর্তুদ্দশী ৩৩/৩৩ রাত্রি ৭/৪। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র ১৬/২৫ দিবা ১২/১২। সূর্যোদয় ৫/৩৮/১৪, সূর্যাস্ত ৫/৫/২। অমৃতযোগ দিবা ৬/২৪ মধ্যে পুনঃ ৭/১০ গতে ১০/৫৯ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩৭ গতে ৮/২৭ মধ্যে পুনঃ ৯/১৬ গতে ১১/৪৭ মধ্যে পুনঃ ১/২৭ গতে ৩/৭ মধ্যে পুনঃ ৪/৪৮ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/৩৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪ গতে ৮/৩০ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৭ গতে ২/১৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৩৯ গতে ৮/১৩ মধ্যে। 
১ কার্তিক, ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১। চর্তুদ্দশী রাত্রি ৬/৪৫। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র দিবা ১/৮। সূর্যোদয় ৫/৩৯, সূর্যাস্ত ৫/৬। অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৩ মধ্যে ও ৭/১৭ গতে ১০/৫৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৭ গতে ৮/১৯ মধ্যে ও ৯/১৯ গতে ১১/৪৬ মধ্যে ও ১/৩০ গতে ৩/১৩ মধ্যে ও ৪/৫৭ গতে ৫/৪০ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/২৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৫ গতে ৮/৩১ মধ্যে ও ১২/৪৮ গতে ২/১৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/৪০ গতে ৮/১৪ মধ্যে।
১২ রবিয়ল আউয়ল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনে মহিলাদের ৪০ শতাংশ টিকিট দেবে কংগ্রেস
আগামী বছর উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনে মহিলাদের ৪০ শতাংশ টিকিট দেবে কংগ্রেস। ...বিশদ

03:35:25 PM

ভারত-পাক ম্যাচের আগে একসঙ্গে দুই কোচ
রবিবার মরুশহরে আয়োজিত হবে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ। ভারত-পাক ম্যাচ শুরু হওয়ার ...বিশদ

03:13:30 PM

বিশ্ব ক্রমতালিকায় প্রথম দশ থেকে ছিটকে গেলেন ফেডেরার
লন টেনিসের অন্যতম কিংবদন্তি রজার ফেডেরোর। এখনও পর্যন্ত ২০টি গ্র্যান্ড ...বিশদ

02:51:17 PM

সাপের কামড়ে মৃত্যু গৃহবধূর
ঘরে ঘুমানোর সময় সাপের কামড়ে মৃত্যু হল এক গৃহবধূর। গুসকরা ...বিশদ

02:44:10 PM

নৈনিতালের লেকের জল উপচে পড়ছে রাস্তায়
একটানা বৃষ্টির ফলে উত্তরাখণ্ডের নৈনিতালে লেকের জল উপচে পড়ছে রাস্তায়। ...বিশদ

02:13:39 PM

হলদিয়ার এলপিজি বটলিং প্ল্যান্টে জখম শ্রমিকের সঙ্গে দেখা করলেন তাপস মাইতি
হলদিয়ার এলপিজি বটলিং প্ল্যান্টে দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম শ্রমিকের সঙ্গে মঙ্গলবার ...বিশদ

02:09:58 PM