Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

স্বাধীন ভারতের এক সার্বভৌম
পি চিদম্বরম

১৯৪৭-এ আমরা ইংরেজের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করেছি। তবু, ভারতে আমাদের একজন ‘সার্বভৌম’ রয়েছে। এই সার্বভৌম হল ভারত সরকার। এই সার্বভৌমের যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার, শান্তির নামে ধাপ্পা দেওয়ার, আন্তর্জাতিক চুক্তি ও অধিবেশনের ভিতরে প্রবেশ করার, টাকা ঋণ করার এবং, সর্বোপরি, টাকা সৃষ্টি করার ক্ষমতা রয়েছে। এখানে টাকাসৃষ্টির মানে টাঁকশালে ধাতব মুদ্রা তৈরি কিংবা কাগুজে নোট ছাপানোর কথা বলা হচ্ছে। 
এই সার্বভৌম ছাড়াও রয়েছে কিছু অবয়ব, যারা উপ-সার্বভৌম হিসেবে গণ্য হয়। কিন্তু স্থানাভাবে তার বিস্তারিতে আমি যাচ্ছি না। তাদের মধ্যে রয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক (রিজার্ভ ব্যাঙ্ক বা আরবিআই) এবং বৃহৎ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কগুলি (যেমন স্টেট ব্যাঙ্ক অফন্ডিয়া বা এসবিআই)। 
ভূমিকার প্রয়োজন এই কারণে যে, ভারতে বিস্ময়করভাবে, মানুষকে ক্ষুব্ধ করেছে এমন একটি বিষয়ে উপ-সার্বভৌমদের আরও উদ্বিগ্ন বলে মনে হয়। অথচ, তখন সরকার মনে করে যে অন্যভাবে দেখলে বিষয়টি মিটে যাবে। আমি মুদ্রাস্ফীতির কথাটি বলতে চাইছি, যেটা সমস্ত গণতান্ত্রিক সরকারের কাছেই জুজু। 
উদ্বেগজনক ঘটনাগুলি
ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকস অফিসের (এনএসও) তরফে ১২ জুলাই, ২০২১ প্রকাশিত এক প্রেস রিলিজ অনুসারে, ভারতের কনজ্যুমার প্রাইস ইফ্লেশন বা উপভোক্তা মূল্যস্ফীতি (সিপিআই) সরকার ও রিজার্ভ ব্যাঙ্কের বেঁধে দেওয়া সর্বোচ্চ সীমা অতিক্রম করে গিয়েছে। উপভোক্তা মূল্যস্ফীতির রেঞ্জ হল ৪ প্লাস/মাইনাস ২ পারসেন্ট। কিন্তু সিপিআই দাঁড়িয়েছে ৬.২৩ শতাংশ। শহরাঞ্চলে সিপিআই মে মাসে ছিল ৫.৯১ শতাংশ, সেটাই তেড়েফুঁড়ে জুনে হয়ে গেল ৬.৩৭ শতাংশ। কোর ইনফ্লেশন বা মূল স্ফীতি একমাসের ভিতরে ৫.৫ শতাংশ থেকে ৫.৮ শতাংশে চড়ে বসল। 
মূল্যস্ফীতি ঘটেছে—খাদ্যদ্রব্যের ক্ষেত্রে ৫.৫৮ শতাংশ; ডাল জাতীয় জিনিসের ক্ষেত্রে ১০.০১ শতাংশ; ফলের ক্ষেত্রে ১১.৮২ শতাংশ; পরিবহণের ক্ষেত্রে ১১.৫৬ শতাংশ; জ্বালানি ও আলোর ক্ষেত্রে ১২.৬৮ শতাংশ; এবং তেল ও চর্বিজাতীয় জিনিসের ক্ষেত্রে ৩৪.৭৮ শতাংশ। 
চাহিদা-বৃদ্ধি-জনিত কারণে এই মূল্যস্ফীতি ঘটেছে বলে আমি অন্তত মনে করি না। বরং, ব্যক্তিগত ভোগ-চাহিদা এখন কমের দিকে। কিংবা ‘একসেস লিকুইডিটি’র কুফল বা সাধারণ মানুষের হাতে বাড়তি কাঁচা টাকা রয়েছে বলে এসব হচ্ছে এমনটাও নয়। এই মূল্যস্ফীতি ঘটেছে সরকারের ভুল নীতির কারণে। এর জন্য বিশেষভাবে দায়ী করনীতি। 
রিজার্ভ ব্যাঙ্কের বিশ্লেষণ 
খানিকটা আত্মরক্ষার মতো করে হলেও, জুলাই, ২০২১ বুলেটিন মারফত আরবিআই মেনে নিয়েছে যে, খাদ্য ও তেলের দাম বেড়ে গিয়েছে। কিন্তু অনুকূল ‘বেস এফেক্ট’ (পূর্ববর্তী বছরের অনুরূপ সময়ে দাম কমেছিল) সিপিআই-কে মাত্রারিক্ত বাড়িয়ে দিয়েছে। বুলেটিন আরও বিশেষভাবে দেখিয়েছে যে, পোশাক-পরিচ্ছদ, গৃহস্থালিতে ব্যবহার্য জিনিসপত্র ও পরিষেবা এবং শিক্ষা-বিষয়ক ক্ষেত্রে মূল্যস্ফীতি ঘটেছে অনেকটাই। এটা আরও দেখিয়েছে যে, লিটার 
প্রতি পেট্রলের দাম গড়ে ১০০ টাকার বেশি হয়ে গিয়েছে। ডিজেলের দাম হয়েছে ৯৩ টাকা ৫২ পয়সা। বেড়েছে কেরোসিন এবং রান্নার গ্যাসেরও (এলপিজি) দাম। আরও তাৎপর্যপূর্ণ ব্যাপার এই যে, ম্যানুফ্যাকচারিং এবং পরিষেবা ক্ষেত্রের ‘ইনপুট কস্টস’ বেড়ে গিয়েছে। (প্রসঙ্গত জানানো যায় যে, একটি পণ্য বা পরিষেবা ব্যবহার্য আকারে পরিবেশন করতে বিভিন্ন জিনিস বাবদ উৎপাদককে মোট যে খরচ করতে হয় অর্থনীতির পরিভাষায় সেটাকে ‘ইনপুট কস্টস’ বলা হয়। কাঁচামাল, শ্রমিক/কর্মীর মজুরি বা বেতন এবং ওভারহেড কস্ট বাবদ প্রত্যক্ষভাবে যে খরচ করা হয়, সেটাই হল সংশ্লিষ্ট শিল্পের ‘ইনপুট কস্টস’।)
সমস্ত তথ্য তর্জনী তুলছে একটি দিকে, সেটা হল সরকারের করনীতি। তিনটি কর, বিরাট ক্ষতি করে দিয়েছে।
এক নম্বর হল, পেট্রল ও ডিজেলের উপর কর। বিশেষভাবে উল্লেখ করব কেন্দ্রীয় সরকার যে ‘সেস’ চাপিয়ে রেখেছে তার কথা। এইসব জ্বালানির উপর কেন্দ্রীয় শুল্ক (সেন্ট্রাল এক্সাইজ) এবং রাজ্য শুল্ক (স্টেট এক্সাইজ) আদায় আমরা মানতে পারি। কারণ, কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে রাজস্ব সংগ্রহ করতে হয়। কিন্তু তার পরেও ‘সেস’ আদায় কোনওভাবেই ন্যায্য নয়। প্রতি লিটার পেট্রলের উপর সেস আদায় করা হয় ৩৩ টাকা। অঙ্কটা ডিজেলের ক্ষেত্রে ৩২ টাকা। শুধু সেস বাবদ কেন্দ্রীয় সরকার একাই বছরে আদায় করে মোটামুটিভাবে ৪ লক্ষ ২০ হাজার কোটি টাকা। এবং, এই বিপুল অর্থ কেন্দ্র নিজের কাছেই রেখে দেয়। সেস সাধারণভাবে আরোপ করা হয় একটা ‘নির্দিষ্ট’ উদ্দেশ্যে এবং ‘নির্দিষ্ট’ সময়সীমার জন্যে। এই দু’টি সীমাবদ্ধতাই নস্যাৎ হয়ে গিয়েছে। এবং, পেট্রল ও ডিজেলের উপর সেস নামক অস্ত্রটা অপব্যবহৃত হচ্ছে। এটা শোষণ, এবং অত্যন্ত নিম্নমানের অর্থগৃধ্নুতা। 
নম্বর দুই হল, চড়া আমদানি শুল্ক। ২০০৪ সালে শুরু হওয়া প্রবণতাকে উল্টে দিয়ে, সরকার বিপুল সংখ্যক পণ্যের উপর আমদানি শুল্ক বাড়িয়ে 
দিয়েছে। তার ফল কী হয়েছে দেখুন। শিল্পক্ষেত্রে উৎপাদনের কাজে যে-সব কাঁচামাল অত্যন্ত জরুরি এবং পাম অয়েল, ডাল ও গৃহস্থালির ব্যবহার্য অনেক জিনিস প্রভৃতি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দামও চড়ে গিয়েছে। 
নম্বর তিন হল, জিএসটির অন্যায্য হার। জিএসটির অনেকগুলি রেট—একটি সমস্যা। সেটা রেখেই দেওয়া হয়েছে। প্রসাধনসামগ্রী, প্রক্রিয়াজাত খাদ্যদ্রব্য, অন্যধরনের খাদ্যসামগ্রী, গৃহস্থালির দ্রব্য (হোম অ্যাপলায়েন্স) প্রভৃতি সাধারণ মানুষ বেশি পরিমাণে ব্যবহার করেন। আর এগুলি থেকেই ১২ অথবা ১৮ শতাংশ হারে জিএসটি আদায় করা হচ্ছে। চড়া হারে জিএসটি, এমনকী বিস্ফোরণ ঘটাবে জেনেও রেখে দেওয়া হয়েছে, শেষমেশ দাম বেড়েই যাচ্ছে। 
জ্বালানির উপর সেস সত্যিই নির্দয়  
সেস, আমদানি শুল্ক এবং জিএসটির মতো পরোক্ষ করগুলি ধনী ও গরিব সবার উপরেই সমানভাবে প্রযোজ্য হয়। করগুলি এই দিক থেকে ‘রিগ্রেসিভ’ বা ‘পশ্চাদমুখী’। সরকার এই দিকটি উপেক্ষা করেছে। ফলে, গরিবের উপর এই বোঝাটি তুলনায় পীড়নমূলক হয়ে উঠেছে। দ্বিতীয় যেটা উপেক্ষিত হয়েছে, ‘ভ্যালু চেইন’ মারফত এই সমস্ত করের বোঝা ‘ইনপুটস’ বা উৎপাদনে ব্যবহার্য পণ্য ও পরিষেবা এবং পরিবহণের উপরে পড়ে। তার ফলে সমস্ত পণ্য ও পরিষেবার চূড়ান্ত দাম চড়া হয়ে যায়। জ্বালানির দামটা ধরুন। জ্বালানির দামবৃদ্ধি মানুষের প্রতিটি গতিবিধিকে প্রভাবিত করে থাকে: পর্যটন, পরিবহণ, চাষাবাদ (ট্রাক্টর ও সেচের কাজে ডিজেল প্রয়োজন), শিল্প-কারখানা (বিদ্যুৎ প্রয়োজন), পরিষেবা (ডেলিভারি) এবং বাড়িতে আলো। 
জ্বালানি ব্যয় স্বাস্থ্য, মুদি এবং দৈনন্দিন পরিষেবার মতো খরচগুলিও বাড়িয়ে দিচ্ছে বলে সতর্ক করেছে স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া। এসবিআই গবেষকরা আরও লক্ষ করেছেন যে, ব্যাঙ্ক আমানত উল্লেখযোগ্য পরিমাণে হ্রাস পেয়েছে। অন্যদিকে, বেড়ে গিয়েছে গৃহস্থের ঋণ এবং কমে গিয়েছে আর্থিক সঞ্চয়। করকে যুক্তিগ্রাহ্য করে জরুরি ভিত্তিতে তেলের দাম কমানোর দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। ওইসঙ্গে তাঁরা সতর্ক করেছেন যে, এর অন্যথা হলে অর্থনীতির পুনরুজ্জীবন বিলম্বিত হয়ে যাবে। 
‘মানুষের দুর্ভোগ-টুর্ভোগ আমি পরোয়া করি না’। এই হল সরকারের মনোভাব। অন্যদিকে, সাধারণ মানুষের ধ্যানধারণা হল—‘এটাই আমাদের নিয়তি’। এই দু’টি থেকে আমরা কী করব? একমাত্র সিদ্ধান্ত যেটা হতে পারে তা হল, ‘মানুষের সরকার, মানুষের দ্বারা সরকার এবং মানুষের জন্য সরকার’ বলে যা ধরে নেওয়া হয়েছিল, সেখানে গণতন্ত্রের একটা সার্বিক বিকৃতি উপস্থিত হয়েছে।
 লেখক সাংসদ ও ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। মতামত ব্যক্তিগত 
19th  July, 2021
বিদ্বেষপূর্ণ এবং মিথ্যে ধর্মযুদ্ধ

ইতিহাস বলছে, ক্রুসেডস হল কিছু ধর্মযুদ্ধ, যা একাদশ শতকের শেষাশেষি শুরু হয়েছিল। লড়াইগুলো হয়েছিল ১০৯৫ এবং ১২৯১ খ্রিস্টাব্দের ভিতরে। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় যে এসব সংঘটিত হয়েছিল ইউরোপীয় খ্রিস্টানদের দ্বারা। বিশদ

ভবানীপুর থেকেই শুরু হোক নয়া ইতিহাস
হিমাংশু সিংহ

রাজ্য রাজনীতির এই সন্ধিক্ষণে ভবানীপুর থেকেই অশুভ শক্তির বিনাশের শপথ নিতে হবে। বাংলার পবিত্র মাটিতে ভিনদেশি ষড়যন্ত্রকে হারাতে হবে। ৩০ সেপ্টেম্বর ঝড় বৃষ্টি দুর্যোগ যাই হোক ভোট দেওয়া প্রত্যেক ভবানীপুরবাসীর অবশ্য কর্তব্য। বিশদ

26th  September, 2021
‘উপেক্ষিত নায়ক’ হয়েই
থেকে গেলেন দিলীপ
তন্ময় মল্লিক

মুখ বদলে ‘মুখরক্ষা’ মোদি-অমিত শাহ জমানার নয়া কৌশল। গুজরাত থেকে বাংলা, সর্বত্র একই ট্রেন্ড। কেন্দ্রের ব্যর্থতার দায় অন্যের ঘাড়ে চাপিয়ে দিয়ে মানুষকে বোকা বানানোর এই টেকনিক তাঁদেরই আমদানি। দিলীপ ঘোষকে সরিয়ে দিয়ে সুকান্ত মজুমদারকে বসানো তারই অঙ্গ। বিশদ

25th  September, 2021
ম্যানগ্রোভকে ঘিরেই
সুন্দরবনবাসীর হাসি-কান্না
শ্যামল মণ্ডল

লক্ষ্য সুন্দরবনের মধ্যে আরও একটি ‘সুন্দর’বন গড়ে তোলা। আর এই উদ্দেশ্য সফল করতে নদীবাঁধের ধার বরাবর বিভিন্ন প্রজাতির ম্যানগ্রোভ গাছের প্রাচীর গড়ে তোলা হচ্ছে। গত তিন বছর ধরে চলছে এই কৃত্রিম ‘ম্যানগ্রোভ বন’ তৈরির কাজ। বিশদ

25th  September, 2021
প্রধানমন্ত্রী হওয়ার চেষ্টায়
অন্যায়ের কী আছে?
সমৃদ্ধ দত্ত

উত্তমকুমার বাংলা সিনেমা জগতে সুপারস্টার হয়ে যাওয়ার পর স্থির করেছিলেন, এবার একবার হিন্দি চলচ্চিত্র সাম্রাজ্যে ভাগ্যান্বেষণের চেষ্টা করলে কেমন হয়? সেই প্রয়াস তিনি করেছিলেন। কিন্তু ভুল গাইডেন্স, সঠিক পরিকল্পনার অভাব এবং কিছু পারিষদবর্গের স্বার্থান্বেষী দিশানির্দেশের সম্মিলিত ফলাফল হিসেবে তাঁর সেই উদ্যোগটি সফল হতে পারেনি।
বিশদ

24th  September, 2021
বিমা দুর্নীতির ইতিহাস
ভুলে গিয়েছেন মোদি
মৃণালকান্তি দাস

সরকারি জীবন বিমা সংস্থায় আমজনতা টাকা রাখেন নিরাপদ মনে করে। একের পর এক দুরবস্থা সামাল দিতে তাকেই এগিয়ে দিয়ে সাধারণ মানুষের কষ্টার্জিত পুঁজিকে ঝুঁকির মুখে ফেলা হচ্ছে কেন? যে রুগ্ন সংস্থাগুলিকে এলআইসি টাকা ধার দিয়েছে, তা শোধ না হলে কী হবে?
বিশদ

23rd  September, 2021
আফগান মেয়েদের কথা
ভাবলই না চীন, রাশিয়া
হারাধন চৌধুরী

চীন-রাশিয়ারই অস্ত্রে বলীয়ান হয়ে তালিবান এই যে মানবাধিকারকে লাগাতার বলাৎকার করে যাচ্ছে, তাতে সিলমোহর দিচ্ছে কোন নীতিতে এই দুই ‘মহান’ রাষ্ট্র? শুধু চীন, রাশিয়ার ‘অর্ধেক আকাশ’ মুক্ত থাকলেই হল, তাই তো! বিশদ

22nd  September, 2021
লগ্ন মেনেই টিকা!
মোদির ভারতের ভবিতব্য
শান্তনু দত্তগুপ্ত

আপনার জন্মদিনের প্রোপাগান্ডায় আড়াই কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ আমাদের মনে কিছু প্রশ্নের ঝড় তুলে দেয়। সেখানেও হিসেবে গরমিলের অভিযোগ ওঠে। আমরা ভাবতে বাধ্য হই, আপনি শুধুই নিজের তূণীর সমৃদ্ধ করতে বেশি আগ্রহী। একদিন ২৫ লক্ষ ভ্যাকসিন, আর একদিন আড়াই কোটি ডোজের অঙ্কে সাধারণ মানুষের জীবনের পথ মসৃণ হয় না। তাতে কাঁটার সংখ্যা বাড়তেই থাকে। 
বিশদ

21st  September, 2021
বৈষম্য ও অবিচার
বড্ড চোখে লাগছে
পি চিদম্বরম

রাজ্য সরকারগুলি রাজ্যের করদাতাদের টাকায় কেন সরকারি মেডিক্যাল কলেজ প্রতিষ্ঠা করবে? কেন ছেলেমেয়েরা মাতৃভাষার মাধ্যমে পড়বে? কেন রাজ্য বোর্ডের পরীক্ষায় বসবে? রাজ্য শিক্ষা বোর্ড রেখে দেওয়ার আদৌ যুক্তি আছে কি আর? শহুরে ছাত্ররা কি পিএইচসি এবং মফস্‌সলের হাসপাতালগুলিতে রোগীর সেবা করবে? ‘মেরিট’ সম্পর্কে এক সন্দেহজনক তত্ত্ব খাড়া করে নিট মারাত্মক বৈষম্য ও অবিচারের এক নতুন যুগের সূচনা করছে।
বিশদ

20th  September, 2021
মোদির গৌরব, অগৌরব
ও বিপন্ন সাংবাদিকতা
হিমাংশু সিংহ

আমেদাবাদের সাংবাদিক ধবল প্যাটেল গত প্রায় এক বছর দেশছাড়া। তাঁর অপরাধ কী? সওয়া এক বছর আগে তিনি লিখেছিলেন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রুপানিকে সরতে হচ্ছে। আজ ১৬ মাস বাদে তাঁর পূর্বাভাস মিলেও গিয়েছে হুবহু। গত ১১ সেপ্টেম্বর নিজেই ইস্তফা দিয়েছেন কিংবা বাধ্য হয়ে সরে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী রুপানি। বিশদ

19th  September, 2021
মোদিকে টক্কর দিচ্ছেন মমতা
তন্ময় মল্লিক

ক্ষমতায়, পদমর্যাদায়, দাপটে, প্রভাবে যে কোনও মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ে প্রধানমন্ত্রী অনেক অনেক এগিয়ে। কিন্তু টাইমের সমীক্ষায় ফারাকটা তেমন কিছু নয়, বরং খুব কাছাকাছি। পৃথিবীর বিখ্যাত ম্যাগাজিন ‘টাইম’ জানিয়ে দিল, এই মুহূর্তে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে টক্কর দেওয়ার ক্ষমতা ভারতবর্ষের একজনেরই আছে। নাম তাঁর মমতা।
বিশদ

18th  September, 2021
আফগান যুদ্ধ: কার লাভ
কার ক্ষতি? এরপর কী?
সমৃদ্ধ দত্ত

চীন অথবা আমেরিকা?  অলক্ষ্যে চলছে এক মরণপণ প্রতিযোগিতা! কে হবে আগামী সুপার পাওয়ার? এই চীন ও আমেরিকার সুপার পাওয়ার হওয়ার যুদ্ধে কোন দেশটির ভূমিকাই হতে পারে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ। ভারত!
বিশদ

17th  September, 2021
একনজরে
রাজ্যের শস্যভাণ্ডার পূর্ব বর্ধমানে চিন্তা বাড়াচ্ছে ‘শস্য গ্যাং’এর দাপট। জেলার বিভিন্ন গোডাউন থেকে শস্য লুটের ঘটনায় ঘুম উবেছে পুলিসের। গত ১০দিনের ব্যবধানে জেলায় দুই জায়গায় ...

লেসলি ক্লিভলিকে গোলরক্ষক কোচ নিযুক্ত করল এসসি ইস্ট বেঙ্গল। তিনি এর আগে চেলসিতে কাজ করেছেন। ক্লিভলির উয়েফা ‘এ’ লাইসেন্স রয়েছে। ...

‘কাকা আভি জিন্দা হ্যায়…।’ ‘কাকা’ নামেই ছত্তিশগড়ে খ্যাত ভূপেশ বাঘেল। মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রদেশ কংগ্রেসের শীর্ষনেতাকে এই নামেই ডাকতে অভ্যস্ত দলের কর্মী-সমর্থকরা। ...

লোকসভা এবং রাজ্যসভায় দলের সদস্য সংখ্যার বিচারে একাধিক সংসদীয় স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতির পদ ধরে রাখা কংগ্রেসের পক্ষে কঠিন হয়ে পড়েছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সন্তানের সাফল্যে গর্ব বোধ। আর্থিক অগ্রগতি হবে। কর্মে বিনিয়োগ বৃদ্ধি। ঘাড়, মাথায় যন্ত্রণা বৃদ্ধিতে বিব্রত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব পর্যটন দিবস
১৯৫৮ - ভারতীয় হিসাবে প্রথম মিহির সেন ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করেন।
১৯০৭ - বিপ্লবী শহিদ ভগৎ সিংয়ের জন্ম
১৮৩৩: বিশ্বপথিক রাজা রামমোহন রায়ের মৃত্যু
১৯৩২: ভারতীয় চিত্রপরিচালক যশ চোপড়ার জন্ম
২০০৮: প্রখ্যাত ভারতীয় সঙ্গীতশিল্পী মহেন্দ্র কাপুরের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার    
পাউন্ড    
ইউরো    
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম)  
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম)  
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম)  
রূপার বাট (প্রতি কেজি)  
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি)  
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

 ১০ আশ্বিন ১৪২৮, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ষষ্ঠী ২৫/৩৩ দিবা ৩/৪৪। রোহিণী নক্ষত্র ৩০/২৮ সন্ধ্যা ৫/৪২। সূর্যোদয় ৫/৩০/২১, সূর্যাস্ত ৫/২৫/১১। অমৃতযোগ দিবা ৭/৫ মধ্যে পুনঃ ৮/৪০ গতে ১১/৪ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪৯ গতে ১১/৪ মধ্যে পুনঃ ২/১৭ গতে ৩/৬ মধ্যে। বারবেলা ৭/০ গতে ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ২/২৭ গতে ৩/৫৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৫৭ গতে ১১/২৭ মধ্যে। 
১০ আশ্বিন ১৪২৮, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ষষ্ঠী দিবা ১/৮। রোহিণী নক্ষত্র অপরাহ্ন ৪/২৭। সূর্যোদয় ৫/৩০, সূর্যাস্ত ৫/২৭। অমৃতযোগ দিবা ৭/২৯ মধ্যে ও ৮/৪১ গতে ১০/৫৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩৭ গতে ১০/৫৭ মধ্যে ও ২/১৭ গতে ৩/৭ মধ্যে। কালবেলা ৭/০ গতে ৮/২৯ মধ্যে ও ২/২৮ গতে ৩/৫৮ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৫৮ গতে ১১/২৯ মধ্যে।
 ১৯ শফর।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইপিএল ২০২১ : রাজস্থানের বিরুদ্ধে ৭ উইকেটে জয় সানরাইজার্স হায়দরাবাদের

11:06:59 PM

আইপিএল ২০২১ : হায়দরাবাদ : ৯১/১ (১০ ওভার)

10:14:16 PM

আইপিএল ২০২১ : সানরাইজার্স হায়দরাবাদের জয়ের জন্য প্রয়োজন ১৬৫ রান

09:38:30 PM

আইপিএল ২০২১ : রাজস্থান ৮১/৩ (১১ ওভার)

08:27:31 PM

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে অনেকটাই কমল দৈনিক করোনা সংক্রমণ
গতকালের তুলনায় রাজ্যে অনেকটাই কমল করোনার দৈনিক সংক্রমণ। গত ২৪ ...বিশদ

08:25:56 PM

কয়লাপাচার কাণ্ডে গ্রেপ্তার লালা ঘনিষ্ঠ ৪ অভিযুক্ত
আজ, সোমবার কয়লাপাচার কাণ্ডে লালা ওরফে অনুপ মাজি ঘনিষ্ঠ ৪ ...বিশদ

05:31:00 PM