Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

লাক্ষাদ্বীপে গেরুয়া অ্যাজেন্ডার আতঙ্ক!
মৃণালকান্তি দাস

টলিউড বা বলিউডের মতো প্রচুর ছবি তৈরি হয় না এখানে। নামমাত্র ছবিতেই বিনোদন খোঁজে এই প্রবাল দ্বীপ। তবুও সংবাদ শিরোনামে দ্বীপের এক অভিনেত্রী এবং পরিচালক আয়েশা সুলতানা। লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসকের সমালোচনা করায় দেশদ্রোহের মামলা দায়ের হয়েছে আয়েশা সুলতানার বিরুদ্ধে।
আয়েশার বক্তব্য ছিল, কিছুদিন আগেও ওই দ্বীপে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ছিল শূন্য। কিন্তু এখন দিনে কমবেশি ১০০ জন করে আক্রান্ত হচ্ছেন। কেন্দ্র এখানে এমন একজনকে দায়িত্ব দিয়েছেন যিনি ‘জৈব অস্ত্র’। টিভি চ্যানেলের বিতর্কসভায় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এমন মন্তব্যের অভিযোগে আয়েশার বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের মামলা দায়ের করে বিজেপির লাক্ষাদ্বীপ শাখা। আয়েশার বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের মামলা ছাড়াও বিদ্বেষমূলক মন্তব্যের অভিযোগ আনা হয়।
যদিও এই অভিযোগকে সম্পূর্ণ ‘মিথ্যে’ ও ‘অনৈতিক’ বলে দাবি করে বিজেপি ছেড়েছেন দলের একাধিক নেতা। সেই তালিকায় রয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ মুল্লিপুঝাও। লাক্ষাদ্বীপের বিজেপি সভাপতি আব্দুল খাদেরকে একটি চিঠি লিখে নিজেদের পদত্যাগের কথা জানিয়েছেন নেতারা। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দ্য প্যারাডাইস ইন ইন্ডিয়ায় হঠাৎ‘গেরুয়া অ্যাজেন্ডা’-র আতঙ্ক!
গ্রেপ্তারি, প্রতিবাদ, জমায়েত, সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়। কিন্তু কী এমন হল যে মাত্র ৬০-৭০ হাজারের আবাস, আপাত শান্তিপ্রিয় এবং কখনওই সে অর্থে কোনও মেনস্ট্রিম রাজনৈতিক কারণে খবরের শিরোনামে উঠে না আসা লাক্ষাদ্বীপকে নিয়ে এত আলোচনা শুরু হয়েছে? কৃতিত্ব সেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। যাঁর ঘনিষ্ঠ গুজরাতের বিজেপি নেতা প্রশাসক নিযুক্ত হয়েই লাক্ষাদ্বীপকে ‘গেরুয়া অ্যাজেন্ডা’-র রসায়নাগার বানিয়ে তুলেছেন। লাক্ষাদ্বীপ এখন বিজেপির ক্ষমতা প্রদর্শনের নির্লজ্জ আস্ফালন। ফলে, মোদি সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছেন দ্বীপবাসী।
কেন্দ্রশাসিত লাক্ষাদ্বীপে কোনও বিধানসভা নেই। নিজস্ব কোনও মুখ্যমন্ত্রী নেই। প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক প্রতিনিধিত্ব বলতে এখান থেকে নির্বাচিত একজন সাংসদ রয়েছেন। বর্তমানে এনসিপির মহম্মদ ফয়জল এখানকার নির্বাচিত সাংসদ। তাছাড়া এখানে স্থানীয় সরকার বলতে রয়েছে পঞ্চায়েত। এই পঞ্চায়েত প্রতিনিধিদের স্থানীয় বাসিন্দারাই নির্বাচিত করেন। আর আছেন একজন মনোনীত প্রশাসক। যাঁকে কেন্দ্রের তরফে নিয়োগ করেন রাষ্ট্রপতি। লাক্ষাদ্বীপবাসী কিন্তু চিরকালই নিজস্ব সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক পরিচয়কে খুব শক্তিশালী এবং অনন্য করে রেখেছে। ইউনিয়ন টেরিটোরি হওয়ার সুবাদে এখানকার প্রশাসক এতদিন বুরোক্রাসি থেকেই নিযুক্ত হতো। মোদি শাসনে সেই ধারায় ব্যতিক্রম ঘটিয়ে গুজরাতের এক বর্ষীয়ান বিজেপি নেতাকে এই পদটি দেওয়া হয়েছে। প্রফুল্ল খোড়া প্যাটেল। আপাদমস্তক আরএসএসের ঘরের লোক। গত ছ’মাস ধরে তিনি লাক্ষাদ্বীপের শাসনকর্তা।
২০১০ সালে অমিত শাহকে যখন সিবিআই অ্যারেস্ট করে, সেই সময় ওই বিজেপি নেতা গুজরাতের স্বরাষ্ট্র দপ্তরের মন্ত্রী হন। প্রফুল্ল প্যাটেল এতদিন ধরে খবরে চর্চিত হয়ে আসছেন বিভিন্ন কু-কারণে। মোদি ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর প্রফুল্ল প্যাটেলকে কেন্দ্র শাসিত দমন ও দিউয়ের প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ করা হয়। এখানেও আইএস, আইপিএসের ট্র্যাডিশন ভেঙে প্রথম কোনও রাজনৈতিক ব্যক্তিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। ২০১৬ সালে দাদরা ও নগর হাভেলির প্রশাসক হিসেবেও নিয়োগ করা হয়। সর্বত্রই এই প্যাটেল নাকি স্থানীয়দের সর্বনাশ করে নিজের পেটোয়াদের মুনাফার ব্যাপারটি অতি যত্নসহকারে দেখভাল করেন। একসময় দাদরা ও নগর হাভেলির দীর্ঘকালীন সাংসদ মোহন দেলকারের আত্মহত্যার তদন্তেও তাঁর নাম উঠে এসেছিল। অভিযোগ, প্যাটেল ছিলেন দেলকারের আত্মহত্যায় প্ররোচক। কিন্তু এই আত্মহত্যা সেই সময় সংবাদমাধ্যমে কোনও প্রচারই পায়নি, যেখানে সুশান্ত সিংয়ের আত্মহত্যার খবর সংবাদমাধ্যম বিরতিহীনভাবে প্রচার করে গিয়েছে। দেলকারের আত্মহত্যার তদন্তের জন্য কোনও কেন্দ্রীয় সংস্থাও মুম্বইতে উড়ে আসেনি।
ছ’মাস আগে সেই তাঁকেই দেওয়া হয় লাক্ষাদ্বীপের দায়িত্বও। ক্ষমতায় বসেই জারি করেছেন কুখ্যাত নিয়মাবলি। যেমন, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ (৯৭ শতাংশ) দ্বীপে গোমাংস নিষিদ্ধ হবে। অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে বন্ধ হবে আমিষ। এত কালের নিষেধাজ্ঞা তুলে গোটা দ্বীপপুঞ্জে মদ বিক্রি শুরু হবে পর্যটনের যুক্তিতে। প্রতিটি ব্যাপারেই সেখানকার ‘জাতীয়তাবাদী’ হিন্দুত্ববাদ বনাম আঞ্চলিক মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠের দ্বন্দ্ব তৈরি করা হয়েছে। এমনই একগুচ্ছ খসড়া আইন এনে তুমুল চাঞ্চল্য ফেলে দিয়েছেন লাক্ষাদ্বীপের প্রশাসক প্রফুল্ল খোড়া প‌্যাটেল।
লাক্ষাদ্বীপে এখন সবচেয়ে বেশি আতঙ্ক প্রফুল্ল প্যাটেলের প্রস্তাবিত ভূমিসংস্কারের পরিকল্পনা নিয়ে। এতে শাসকের হাতে জমি অধিগ্রহণের এবং ইচ্ছেমতো স্থানীয়দের পুনর্বাসন দেওয়ার বিপুল ক্ষমতা তুলে দেওয়ার কথা বলা আছে। এই পরিকল্পনা অনুযায়ী দ্বীপপুঞ্জের সমস্ত খনি এবং খনিজ পদার্থ নিয়ে যথেচ্ছাচার করা যাবে। প্যাটেলের তৈরি নিয়ম মোতাবেক যাঁদের দু’টির বেশি সন্তান আছে, তাঁদের পঞ্চায়েত নির্বাচনে লড়ার অধিকার থাকবে না। মজার কথা, এই নীতিতে চললে বিজেপির ৩০৩ জন সাংসদের মধ্যে ৯৬ জনই কিন্তু আর ভোটে লড়াই করতে পারবেন না। কিন্তু এই নিয়মের ফাঁসে শুধু ভুগতে হবে লাক্ষাদ্বীপের মানুষকেই। ১৫টি স্কুল বন্ধ করে দেওয়া, সরকারের বিভিন্ন স্তরের অস্থায়ী কর্মীদের ছাঁটাই, দ্বীপে বহিরাগতদের বাধ্যতামূলক কোভিড টেস্ট বন্ধ করা সহ একাধিক জনবিরোধী কেরামতির অভিযোগ উঠেছে প্রফুল্ল প্যাটেলের বিরুদ্ধে।
এই দ্বীপপুঞ্জের সমস্ত দ্বীপগুলি মিলিয়ে মোট স্থলভাগের পরিমাণ মাত্র ৩২ বর্গ কিলোমিটারের মতো। যেখানে গাড়ি খুব কম চলাচল করে। অধিকাংশই টু-হুইলার। অথচ, জাতীয় সড়কের মতো সড়ক গড়ার জন্য এখানে উদ্যোগ নিয়েছেন প্রফুল্ল প্যাটেল। প্রশ্ন উঠছে, সেখানে হাইওয়ে গড়ার জন্য হাজার হাজার গাছ কেটে ফেলে জৈব বৈচিত্র ধ্বংস করার যৌক্তিকতা কী? বুলডোজার দিয়ে এখানকার গরিব মানুষের ঘরবাড়ি গুঁড়িয়ে দেওয়ার কী যৌক্তিকতা আছে? বাণিজ্যিকীকরণের লক্ষ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে দ্বীপের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তর। নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, বড় ডেয়ারি ফার্মগুলিকেও বন্ধ করার। সেই নির্দেশের জেরে সেখানকার অস্থায়ী কর্মীদেরও বরখাস্ত করা হয়েছে এবং নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে দপ্তরের প্রাণিসম্পদ। এর পাশাপাশি সেখানে গুজরাতকেন্দ্রিক সংস্থাকে দুধ এবং দুধজাত সামগ্রী বিক্রির জন্য একতরফা অনুমতি দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ, গুজরাতের স্বার্থ দেখতেই তাঁর এই পদক্ষেপ। ফলে দ্বীপবাসীদের ক্ষোভের আগুনে ঘি পড়েছে।
শুনলে অবাক হবেন, লাক্ষাদ্বীপে এখন গুন্ডা অ্যাক্ট বা প্রিভেনশন অব অ্যান্টি-সোশাল অ্যাকটিভিটিজ (পাসা) রেগুলেশন অনুযায়ী, যে কাউকে এক বছরের জন্য জেলবন্দি করে রাখা যাবে। কাকপক্ষীও জানতে পারবে না। অথচ, লাক্ষাদ্বীপে অপরাধের হার দেশের মধ্যে সবচেয়ে কম। আপাতদৃষ্টিতে এই সমস্ত নিয়মাবলি নাকি চালু করা হবে দ্বীপমালার অর্থনৈতিক অবস্থাকে উন্নত করার জন্য এবং মালদ্বীপের মতো ট্যুরিস্ট স্পট গড়ে তোলার জন্য। কিন্তু এই উন্নয়নের ঢাকের বাদ্যিতে চাপা পড়ছে না প্যাটেল কোম্পানির অন্য খেলা। স্থানীয় মানুষের মালিকানাধীন জমি হস্তান্তরের ফিকিরে কর্পোরেটের কাছে বিকিয়ে যাবে ছবির মতো সুন্দর সমুদ্রতীর। কারণ, জমি কেড়ে নেওয়ার আইনে স্পষ্ট করে বলা আছে জমির মালিকের রাজি হওয়া বা না হওয়ায় কিছুই যায় আসবে না। এমনকী যৎসামান্য ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে কি না তা নির্ভর করবে প্রশাসনের মর্জির উপর।
এর মধ্যেই কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। সৈকত থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে জেলে সম্প্রদায়কে। এমনকী তাদের নৌকো রাখবার লেগুনগুলিও বেহাত হয়ে গিয়েছে রিসর্ট তৈরির পরিকল্পনায়। তারা এখন কর্মহীন। প্রতিবাদ করলেই জেলে চালান হওয়ার ভয়। অনেকেই বলছেন, এই রিসর্টগুলির মালিকরা বেশিরভাগই নাকি গুজরাতি বড় ব্যবসায়ী। সমুদ্রতীরই যদি বানিয়াদের কাছে বেহাত হয়ে যায়, তাহলে কী হবে এই প্রবাল প্রাচীরের? কী হবে যুগ যুগ ধরে বহমান ভুমি সংরক্ষণ, সমুদ্র ব্যবহারের পরম্পরা নির্দেশিত যাপনের? এখানকার বাস্তুতন্ত্রনির্ভর অর্থনীতি, সামুদ্রিক মৎস্যশিকার, নারকেল চাষ, শুটকি মাছের কেনাবেচা। তাকে তছনছ করে, পারস্পরিক সহযোগিতা, সহিষ্ণুতা এবং নির্ভরতার সামাজিক বাতাবরণকে ধ্বংস করে বিজেপি লাক্ষাদ্বীপকে লণ্ডভণ্ড করে দিতে চাইছে। যেমন চেয়েছিল এই বাংলাকে ধ্বংস করতে।
শশী থারুর বলেছিলেন, ‘‘বিজেপি প্রথমে নির্বাচনে নিজেদের জেতা জায়গাগুলোকে ধ্বংস করে। তারপরে যেখানে তাদের কোনও অস্তিত্ব নেই, সেগুলোকে নিয়ে পড়ে। তাদের নীতিই হল—‘বাগে যদি না-আসে, তা হলে ভাঙো’।’’ মানুষও বুঝতে পারছে, মোদি জমানা মানে—দেশবাসীর সঙ্গে সম্পর্ক শুধু মালিক আর চাকরের। শাসিত এবং শোষিতের! আসলে গোটা দেশজুড়ে এখন এক কর্তৃত্বপরায়ণ ‘বিগ বস’ জাতীয় নেতৃত্বব্যবস্থার প্রতিচ্ছবি, যা ভিন্নমত বা কোনও বিকল্প শক্তি কাঠামো সহ্য করতে পারে না। বাংলার মানুষকে কুর্নিশ, তাঁরা লাক্ষাদ্বীপের মতো এ রাজ্যে ধ্বংসলীলা চালানোর আগেই থমকে দিয়েছেন মোদির অঙ্গুলিহেলন!
17th  June, 2021
এই অসহনীয় পরিস্থিতি থেকে কবে মুক্তি হবে?
সমৃদ্ধ দত্ত

সত্যজিৎ রায়ের ‘অপরাজিত’ ছবিতে স্কুল পরিদর্শকের সামনে স্কুলের এক ছাত্র অপূর্ব কুমার রায় ‘কিশলয়’ কবিতাটি  মনোগ্রাহী ভঙ্গিতে আবৃত্তি করে স্কুলের সম্মান রক্ষা করেছিল।
বিশদ

জনসংখ্যার বিস্ফোরণ, দায় কার?
মৃণালকান্তি দাস

২০২১ সালে দাঁড়িয়ে ভারতের শাসকরা ষাটের দশকের দাঁড়িপাল্লায় হিন্দু এবং মুসলিমের জন্মহার মাপছেন। আসলে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণেও লক্ষ্য বিভাজন। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের সঙ্গে ধর্মকে জুড়ে ফের মেরুকরণও উস্কে দিচ্ছেন তাঁরা। বিশদ

22nd  July, 2021
একুশে জুলাইয়ের
লড়াই শেষ হয়ে যায়নি
সন্দীপন বিশ্বাস

আজ একুশে জুলাই হয়ে উঠতে পারে একটা অপ্রতিরোধ্য শক্তির ব্যঞ্জনা। রাজ্যে স্বল্প পরিসরের বাইরে বেরিয়ে সারা দেশকে অনুপ্রাণিত করতে পারে একুশে জুলাইয়ের লড়াই। সেই লড়াইয়ের যোগ্য নেতৃত্ব দিতে পারেন একজনই। তিনি হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যয়। সারাদেশে তিনি হয়ে উঠেছেন মোদির অক্ষম শাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলনের জননী।
বিশদ

21st  July, 2021
একনায়কতন্ত্রের নজরদারি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 পিকে সদ্য সমাপ্ত বাংলার বিধানসভা ভোটে তৃণমূলের জয়ের কারিগর। আর অভিষেক নিজেই দলের কার্যত সেকেন্ড ইন কমান্ড। এই দু’জনের ফোন ট্যাপ করলেই মাথা পর্যন্ত পৌঁছে যাওয়া যায়—অর্থাৎ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিশদ

20th  July, 2021
স্বাধীন ভারতের এক সার্বভৌম
পি চিদম্বরম

১৯৪৭-এ আমরা ইংরেজের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করেছি। তবু, ভারতে আমাদের একজন ‘সার্বভৌম’ রয়েছে। এই সার্বভৌম হল ভারত সরকার।
বিশদ

19th  July, 2021
সত্যি কি তৃতীয় ঢেউ
আটকাতে চান নরেন্দ্র মোদি!
হিমাংশু সিংহ

কোভিড পর্বে ৫৬ ইঞ্চি ছাতির ধ্যাষ্টামি কম দেখেনি দেশ। গতবছর ২২ মার্চ থালা-ঘটি-বাটি বাজানো থেকেই সেই চোর-পুলিস খেলার শুরু। 
বিশদ

18th  July, 2021
পার্টি ম্যান দিলীপ, হতে
পারলেন না ‘ইয়েস ম্যান’
তন্ময় মল্লিক

ফের সেই অঙ্ক। গেরো থেকে কিছুতেই বেরনো যাচ্ছে না। তবে এবার অঙ্কটা একটু অন্য রকম। ৩ থেকে বেড়ে ৭৭, নাকি ১২১ থেকে কমে? কোন দিক থেকে ৭৭-এর অঙ্ক কষা হবে, সেটা বিজেপির অন্দরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। অনেকে বলছেন, এই অঙ্কের উপরেই নাকি দাঁড়িয়ে আছে দিলীপ ঘোষের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ!
বিশদ

17th  July, 2021
রাহুল সোনিয়া  কি আদৌ
চান মোদিকে হারাতে?
সমৃদ্ধ দত্ত

সোনিয়া গান্ধী এবং রাহুল গান্ধী এক কথার মানুষ। তাঁরা স্বধর্মে অটল। বিগত ২২ বছরে তাঁরা নিজেদের দলের কোনও রাজ্য নেতাকে এককভাবে শক্তিশালী অথবা জনপ্রিয় হওয়াকে মোটেই পছন্দ করেননি।
বিশদ

16th  July, 2021
সেন্ট্রাল ভিস্তা, দম্ভের সৌধ
মৃণালকান্তি দাস

ভারতের নতুন সংসদ ভবনের আসন সংখ্যা বাড়ানো কি বিজেপির নয়া কৌশল? বিজেপি যে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প ২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের যথেষ্ট আগে শেষ করাতে চাইছে, তার পিছনে কি কাজ করছে হিন্দু জাতীয়তাবাদের বড় কোনও পরিকল্পনা?
বিশদ

15th  July, 2021
দিল্লিতে বাংলার চার আব্বুলিশ
হারাধন চৌধুরী

মোদি বাংলা থেকে একজনকেও পূর্ণমন্ত্রী করতে পারলেন না! ... চারজন ‘আব্বুলিশ’ মন্ত্রী রাখার একটাই ব্যাখ্যা খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আরও বাগড়া দেওয়া, যেটা ধনকারকে দিয়ে হয়ে উঠছে না অনেক সময়। এই গুরুত্বহীন সম্প্রসারণে বাংলার কোনও লাভ হবে না। আঞ্চলিক বা সম্প্রদায়গত মলম লেপন কিছু হবে হয়তো, কিন্তু ওই খণ্ডাংশেরও সামান্য উত্থান হবে না এতে।
বিশদ

14th  July, 2021
‘সাফল্যের’ ছাঁটাই
শান্তনু দত্তগুপ্ত

কথায় বলে, ধোঁয়া যখন বেরচ্ছে, আগুনও কোথাও না কোথাও আছে। অর্থাৎ, রেলকে বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়ার কানাঘুষো একেবারে গুজব নয়। নতুন মন্ত্রী সেই ইন্ধনে কিন্তু ঘি ঢেলেছেন। কে এই মন্ত্রী? অশ্বিনী বৈষ্ণব।
বিশদ

13th  July, 2021
ভূতটা স্বমূর্তি ধরছে
পি চিদম্বরম

আন্তঃসরকার চুক্তি এবং ২০১৮-র ১৪ ডিসেম্বর বিচারপতি গগৈ কর্তৃক প্রদত্ত রায় ‘রিভিউ’ করে দেখার জন্য আদালতকে রাজি করানো যেতে পারে। সংবাদ মাধ্যমের উপরেও আমি আস্থা রাখব। অনেকে আত্মসমর্পণ করেছে। কিছু হয়েছে দমনপীড়নের শিকার। তা সত্ত্বেও সংবাদ মাধ্যমে এখনও কিছু কলম এবং কণ্ঠ রয়েছে—যারা নিজেদের পাঠযোগ্য এবং শ্রাব্য করে তুলতে পারে।
বিশদ

12th  July, 2021
একনজরে
বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই একের পর এক পঞ্চায়েত হাতছাড়া হয়েছে বিজেপি’র। পরাজয়ের পর তাদের নেতা-কর্মীদের একাংশ দল ভেঙে যোগ দিয়েছে তৃণমূলে। তাহলে কি দলীয় কর্মীদের উপর রাশ আলগা হচ্ছে বিজেপি’র? ...

করোনা আতঙ্কে দীর্ঘ দিন কঠোর বিধি পালন করছে দেশবাসী। দূরত্ব বিধি, স্যানিটাইজেশন, লকডাউন—নানা রক্ষ্মণাত্মক কৌশলের মধ্য দিয়ে চলছে দেশ। এমন অবস্থায় আতঙ্কের ভয়ঙ্কর ছবি সামনে এল অন্ধ্রপ্রদেশের পূর্ব গোদাবরী জেলায়। ...

আগামী ১৮ আগস্ট এএফসি কাপের প্রথম ম্যাচে মাঠে নামবে এটিকে মোহন বাগান। তার আগে দলকে অন্তত দু’সপ্তাহ অনুশীলন করাতে চাইছেন কোচ আন্তোনিও লোপেজ হাবাস। ...

করোনার চতুর্থ ঢেউ ঢুকে পড়ল ফ্রান্সে। লকডাউন থেকে বাঁচতে ফের করোনা বিধিতে জোর দিয়েছে সরকার। সিনেমা, মিউজিয়াম বা খেলার অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গেলে অবশ্যই টিকার ডোজ সম্পূর্ণ করতে হবে। অথবা থাকতে হবে করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসায় বাড়তি বিনিয়োগ প্রত্যাশিত সাফল্য নাও দিতে পারে। কর্মক্ষেত্রে পদোন্নতি। শ্বাসকষ্ট ও বক্ষপীড়ায় শারীরিক ক্লেশ। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২৯- আমেরিকাতে টাইপরাইটারের পূর্বসুরী টাইপোগ্রাফার পেটেন্ট করেন উইলিয়াম অস্টিন বার্ড
১৮৪৩ - সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও বাগ্মী রায়বাহাদুর কালীপ্রসন্ন ঘোষের জন্ম
১৮৫৬- স্বাধীনতা সংগ্রামী বাল গঙ্গাধর তিলকের জন্ম
১৮৮১ - আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সংস্থাগুলির মধ্যে সবচেয়ে পুরাতন আন্তর্জাতিক জিমন্যাস্টিক ফেডারেশন প্রতিষ্ঠিত 
১৮৯৩ - কলকাতায় বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ পূর্বতন বেঙ্গল একাডেমি অব লিটারেচার স্থাপিত
১৮৯৫- চিত্রশিল্পী মুকুল দের জন্ম
১৮৯৮ - বিশিষ্ট বাঙালি কথাসাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯০৬ - চন্দ্রশেখর আজাদ, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের বিপ্লবী
১৯২৭ - সালের এই দিনে ইন্ডিয়ান ব্রডকাস্টিং কোম্পানি বোম্বাইয়ে ভারতের প্রথম বেতার সম্প্রচার শুরু করে
১৯৩৩ - ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের সশস্ত্র বিপ্লবী ও আইনজীবী যতীন্দ্রমোহন সেনগুপ্তের মৃত্যু
১৯৪৯ -  দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার ক্লাইভ রাইসের জন্ম
১৯৫৩ - ইংল্যান্ডের প্রাক্তন ক্রিকেটার গ্রাহাম গুচের জন্ম
১৯৯৫- হেল-বপ ধূমকেতু আবিস্কার হয়, পরের বছরের গোড়ায় সেটি খালি চোখে দৃশ্যমান হয়
২০০৪- অভিনেতা মেহমুদের মৃত্যু
২০১২- আই এন এ’ যোদ্ধা লক্ষ্মী সায়গলের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৬৪ টাকা ৭৫.৩৬ টাকা
পাউন্ড ১০০.৪১ টাকা ১০৩.৯২ টাকা
ইউরো ৮৬.৩১ টাকা ৮৯.৪৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮, ৩০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৫, ৮৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৬, ৫৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৭, ৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৭, ৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ শ্রাবণ, ১৪২৮, শুক্রবার, ২৩ জুলাই ২০২১।  চতুর্দ্দশী ১৪/০ দিবা ১০/৪৪। পূর্বাষাঢ়া নক্ষত্র ২৩/১৪ দিবা ২/২৬।  সূর্যোদয় ৫/৭/৫৭, সূর্যাস্ত ৬/১৮/৫। অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৩ মধ্যে পুনঃ ৭/৪৬ গতে ১০/২৪ মধ্যে পুনঃ ১/২ গতে ২/৪৮ মধ্যে পুনঃ ৪/৩৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/৪৫ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ২/৫৮ গতে ৩/৪১ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ১০/৩৮ গতে ১১/২১ মধ্যে পুনঃ ৩/৪১ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/২৫ গতে ১১/৪৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/০ গতে ১০/২২ মধ্যে। 
৬ শ্রাবণ, ১৪২৮, শুক্রবার, ২৩ জুলাই ২০২১।  চতুর্দ্দশী দিবা ১০/৩। পূর্ব্বাষাঢ়া নক্ষত্র দিবা ২/৪৫। সূর্যোদয় ৫/৬, সূর্যাস্ত ৬/২১। অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৭ মধ্যে ও ৭/৪৯ গতে ১০/২৪ মধ্যে ও ১২/৫৯ গতে ২/৪৩ মধ্যে ও ৪/২৬ গতে ৬/২১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩৮ গতে ৯/৭ মধ্যে ও ৩/১ গতে ৩/৪৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ১০/৩৫ গতে ১১/২০ মধ্যে ও ৩/৪৫ গতে ৫/৬ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৫ গতে ১১/৪৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৩ গতে ১০/২৩ মধ্যে। 
১২ জেলহজ্জ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
তৃতীয় ওয়ান ডে: শ্রীলঙ্কা ১২৭/১ (২০ ওভার), টার্গেট ২২৬ 

09:53:36 PM

তৃতীয় ওয়ান ডে: শ্রীলঙ্কা ৬৮/১ (১১ ওভার), টার্গেট ২২৬ 

09:11:30 PM

করোনা: গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে আক্রান্ত ৮৪২, মৃত ১৬ 

08:53:07 PM

তৃতীয় ওয়ান ডে: ভারত ২২৫ রানে অলআউট 

08:03:45 PM

তৃতীয় ওয়ান ডে: ভারত ২১৮/৮ (৪০ ওভার)  

07:46:45 PM

জুহুর বাড়িতে শিল্পা শেট্টিকে জিজ্ঞাসাবাদ মুম্বই পুলিসের 

07:34:57 PM