Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মোদির সব প্রতিশ্রুতি যেন গল্পদাদুর আসর
সন্দীপন বিশ্বাস 

হঠাৎই জহর রায়ের একটি কৌতুক নকশা মনে পড়ল। এক ভদ্রলোক একটি ঘর ভাড়া নিতে গিয়েছেন। ঘর দেখে পছন্দও হয়েছে। দু’টি ঘর, রান্নাঘর, সঙ্গে আলাদা বাথরুম। কিন্তু ভাড়া শুনে ভদ্রলোকের মাথার চুল খাড়া হয়ে গেল। ভাড়া ৫০০ টাকা। গত শতাব্দীর সাতের দশকে পাঁচশো টাকা বাড়ি ভাড়া কতটা বেশি, তা প্রবীণরা জানেন। সেই ভদ্রলোক বাড়িওয়ালাকে বললেন, আচ্ছা, আমি যদি রান্নাঘর ভাড়া না নিই, কত ভাড়া দিতে হবে? বাড়িওয়ালা বললেন, চারশো টাকা দেবেন? তখন সেই ভদ্রলোক বললেন, আচ্ছা, আমি যদি বাথরুমটাও না নিই, তাহলে কত ভাড়া দিতে হবে? বাড়িওয়ালা ভদ্রলোকের এবার চোখ কপালে ওঠার জোগাড়। কিছু বুঝতে না পেরে তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, সে কী! বাথরুম নেবেন না কেন? ওটা না হলে চলবে কী করে? ভদ্রলোক তখন বললেন, দেখুন ,এত ভাড়া দিয়ে থাকলে খাওয়ার আর পয়সা থাকবে না। তাই রান্নাঘরের দরকার নেই। আর না খেলে বাথরুমের কি আর দরকার আছে? একবার বুঝেই দেখুন।
হ্যাঁ, এই কৌতুক নকশার ভিতরে যে যন্ত্রণাবোধটুকু আছে, সেটা এখনকার মানুষ হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন। ক্রমেই হাজার টাকার দিকে এগিয়ে চলেছে রান্নার গ্যাসের দাম। ফাটকা বাজারের মতো প্রতিদিন সরকার বাড়িয়ে চলেছে রান্নার গ্যাস আর পেট্রল-ডিজেলের দাম। ওই পয়সা দিয়ে গ্যাস কেনার পর পকেটে কি ছ্যাঁকা লাগবে না? একটা গ্যাস গৃহস্থের এক মাস চলা মানে প্রতিদিন শুধু জ্বালানি খরচই প্রায় ৩০ টাকার মতো? এরপরেও মোদিজি কোন সুখস্বপ্নের গল্প আমাদের শোনাচ্ছেন? মনমোহনের আমলের গ্যাস, পেট্রলের দাম সাত বছরে দ্বিগুণ হয়ে গিয়েছে। দিন দিন আপনি বুঝিয়ে দিয়েছেন, আপনি যত কথাই বলুন না কেন, পরিস্থিতি আপনার নিয়ন্ত্রণে নেই। আপনি এখন কথা বললেই মনে হয় গল্পদাদুর আসর বসেছে। এক স্বপ্নের, ইউটোপিয়ান জগতের ফানুসকে গল্পের মতো তুলে ধরে বারবার বোঝাতে চান, এটাই আসলে বাস্তব। কিন্তু আর তো বিশ্বাসের জায়গাটা আগের মতো নেই। গত সাত বছর ধরে আপনার কাজ এবং কথার ফারাক বুঝিয়ে দিয়েছে, আপনি আসলে একজন বিক্রেতা। বেনিয়া। আপনি স্বপ্ন বিক্রি করেন, দেশের সম্পদ বিক্রি করেন। কিন্তু আপনি দেশের সমস্যা মেটাতে পারেন না। আপনি গরিব মানুষের ঘরে ঘরে বিনা পয়সায় উজ্জ্বলা গ্যাস ঢুকিয়ে দিয়ে গ্রাহক সংখ্যা বাড়িয়ে গ্যাসের দাম বাড়ালেন পাক্কা ব্যবসায়ীদের মতো। কিন্তু উজ্জ্বলার স্বপ্ন ভেঙে চুরমার। ধরা পড়ে গিয়েছে গল্পদাদুর আসরের মিথ্যাচার। সেই সব গরিব মানুষ আর গ্যাস নেন না। কেননা তাঁদের কাছে সাড়ে আটশো টাকা দিয়ে গ্যাস ব্যবহার করা বিলাসিতা ছাড়া কিছুই নয়। গ্রামের মানুষ আবার কাঠ-কয়লা-কেরোসিনে ফিরে গিয়েছেন। সেই কেরোসিনের দামেও আপনি কোপ মেরেছেন। কুপি জ্বালাবার মতো তেল কেনার পয়সাও আর নেই। বহু মানুষের কাজ চলে গিয়েছে গত এক বছরে। শেষ বাজেটে আপনি একশো দিনের কাজের বরাদ্দে টাকা কমিয়ে দিয়েছেন। এরপর স্বপ্ন দেখাতে চাইলে মানুষ কি আর বিশ্বাস করবেন? এর আপনি কতটা বুঝতে পারেন জানি না। জানলে গল্পদাদুর আসর বসিয়ে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নের বেলুন ওড়াতেন না।
পেঁয়াজের দাম চড় চড় করে চড়ছে। ষাট, সত্তর করে ক্রমেই একশোর দিকে এগচ্ছে। এই দাম নিয়ে একটু পিছনের দিকে তাকাই। পেঁয়াজের দামের আগুনে একদিন পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছিল দুই রাজ্যের বিজেপি সরকার। বেশি দিন আগের কথা নয়। ১৯৯৮ সালের কথা। দিল্লিতে এবং হরিয়ানায় গোহারান হারল বিজেপি। ১০ টাকার পেঁয়াজ সেদিন ৬০-৭০ টাকায় কিনতে গিয়ে হাত পুড়েছিল সাধারণ মানুষের। সেই ফোসকা পড়া হাতের যন্ত্রণার জবাব দুই রাজ্যের মানুষ দিয়েছিলেন ভোটবাক্সে। সুষমা স্বরাজ সরকারকে হারিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল শীলা দীক্ষিত নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস সরকার। শুধু পেঁয়াজের দামই বিজেপির পকেট থেকে সাড়ে ১৩ শতাংশেরও বেশি ভোট কেড়ে নিয়েছিল। রাজস্থানেও একই চিত্র দেখা গিয়েছিল। বিজেপির ভরাডুবি হয়েছিল। ২০০ আসনের মধ্যে কংগ্রেস একাই ১৫০ আসনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় এসেছিল। মুখ্যমন্ত্রী ভৈঁরো সিং শেখাওয়াতের মন্ত্রিসভার ২৮ জন মন্ত্রী সেদিন হেরে গিয়েছিলেন।
বাংলার ভোট ঘোষণা হয়ে গিয়েছে। সব শিবিরেই সাজো সাজো রব। সব দলই মানুষকে নানাভাবে তাদের ভোট দেওয়ার বার্তা দিচ্ছে। এবার পরিস্থিতি কিন্তু অন্যবারের থেকে একেবারে অন্যরকম। তাই আরও সচেতন হয়ে, সব দিক বিচার করে মানুষকে ভোট দিতে হবে। দেশের এবং রাজ্যের পরিস্থিতির তুল্যমূল্য বিচার করে মমতা এবং মোদির প্রতিটি পদক্ষেপের ভালোমন্দ যাচাই করতেই হবে। পেট্রপণ্যের দিনের পর দিন মূল্যবৃদ্ধি, শিল্পপতিদের ব্যাঙ্ক লুট করে দেশান্তরী হওয়া, দিনের পর দিন ব্যাঙ্কের সুদ কমে যাওয়া, ব্যাঙ্কগুলির দেউলিয়া হয়ে যাওয়ার পথে এগিয়ে চলা, খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, দেশের অর্থনীতির তলিয়ে যাওয়া, কৃষক আন্দোলনের যৌক্তিকতা, রেল থেকে অন্যান্য শিল্পের বেসরকারিকরণ, হঠাৎ করে গোপনে রেলের ভাড়া বাড়িয়ে সাধারণ মানুষকে বিপাকে ফেলা, সিএএ, এনআরসি অথবা গোলি মারো শালোকো স্লোগান— এসব বিচার করতেই হবে। বিচার করতে হবে কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, পথশ্রী, শিশুসাথী, সমব্যথী, জয় জোহার, সবুজসাথী ইত্যাদিকেও । সুতরাং এই ভোট শুধু রাজনৈতিক দলগুলিরই অগ্নিপরীক্ষা নয়, এই নির্বাচন রাজ্যের সোয়া আট কোটি ভোটারের কাছেও এক চরম অগ্নিপরীক্ষা। সেই অগ্নিপরীক্ষায় রাজ্যের মানুষ পাশ করতে না পারলে তার ফল ভোগ করতেই হবে।
মমতার কন্যাশ্রী সারা বিশ্বে স্বীকৃতি পেয়েছে। একদিন ‘দুয়ারে সরকার’ও দেশের এবং বিশ্বের মডেল হয়ে উঠতে পারে। রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এই কনসেপ্ট নিয়ে গবেষণা হতে পারে। নবান্ন থেকে সরকার পৌঁছে গিয়েছে গ্রামের পাঠশালা, হাট, আটচালা, খেত-খামারে। মানুষ ঘিরে ধরে সরকারের কাছে আবেদন জানাচ্ছেন, তাঁরা এটা পাননি, ওটা চান। লাল ফিতের ফাঁস খুলে গিয়ে সরকার হয়ে উঠেছিল তাঁর প্রতিবেশী, তাঁর পরিবারের সদস্য। আজ প্রতিটি রাজ্যের সরকারকে এই ভূমিকাই পালন করতে হবে। এই সরকার মেয়েদের সম্মান দিয়েছে। মেয়েকে তারা বিদায় করে দেওয়ার সামগ্রী ভাবে না। মেয়েকে যাঁরা বিদায় করে দেওয়ার সম্পত্তি ভাবেন, তাঁরা মেয়েদের সম্মান দেন না এবং মেয়েদের শক্তি সম্পর্কেও তাঁদের স্পষ্ট ধারণা নেই। এখনও তাঁরা সেই মধ্যযুগীয় বর্বর ভাবনার মধ্যেই আটকে রয়েছেন। বাংলার সাড়ে তিন কোটি মেয়ে এবার এই অসম্মানের কথা মাথায় রেখে তাঁদের ভোটটা দেবেন।
সবশেষে যে প্রসঙ্গটা চলে আসে, সেটা হল ইভিএম প্রসঙ্গ। অতীতে ইভিএম নিয়ে অনেক বিতর্ক হয়েছে। ভবিষ্যতেও হবে। কিন্তু ইভিএম নিয়ে কোনও সদর্থক সিদ্ধান্তে পৌঁছনো এখনও সম্ভব হয়নি। প্রশ্নটা হল ইভিএম কি হ্যাক করা সম্ভব? অর্থাৎ ইভিএমকে কি নিয়ন্ত্রণ করা যায়? অনেকে বলেন, সম্ভব নয়। আবার অনেকে বলেন সম্ভব। এর আগে কয়েকটি রাজ্যের ভোটে দেখা গিয়েছে, ভোটাররা যে কোনও বাটনই টিপুন না কেন, ভোট চলে যাচ্ছে একটি বিশেষ প্রতীকে। কম্পিউটার মেমরিতে এমন প্রোগ্রাম করা যায় বলে বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন। ধরা যাক, একটি মেশিনে প্রথম একশোটি ভোট পড়ল সঠিকভাবে। কিন্তু একশো ভোটের পর নিজস্ব ইচ্ছেমতো ভোটিং প্রোগ্রামিং করা যায় বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত। সেটা ৬:৩:১ বা ৫:৩:২ বা যেমন ইচ্ছে, তেমন অনুপাতে হবে। অর্থাৎ যেকোনও ১০টি ভোটের ক্ষেত্রে প্রথম পছন্দে যাবে ৬টি ভোট, দ্বিতীয় পছন্দে যাবে ৩টি ভোট এবং তৃতীয় পছন্দে যাবে ১টি ভোট। ইচ্ছেমতো অনুপাতে প্রোগ্রামিং সম্ভব। অনেকে বলেন, না না এটা সম্ভব নয়। অপর পক্ষের যুক্তি হল, অজানা দূরত্বে বসে যদি জঙ্গিরা পেন্টাগনের ওয়েবসাইট হ্যাক করতে পারে, ভারতের ওয়েবসাইটের মধ্যে ঢুকে যেতে পারে, অন্য রাষ্ট্রে বসে দুষ্টু লোকেরা যদি আপনার, আমার অ্যাকাউন্টের টাকা তুলে নিতে পারে কিংবা পৃথিবীতে বসে মঙ্গলের যন্ত্রযানকে নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে, তার তুলনায় এত কম পয়সার মেশিনে সেটা নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না কেন? এনিয়ে বিতর্ক থেকেই যাবে। জানি না। ভোটের পর বিতর্ক বাড়বে কি না! তবে ভোটাররা বিশ্বাস করেন, তাঁদের গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাকে বা ভোটদানের সততাকে ইভিএম মেশিন প্রতারণা করবে না।  
03rd  March, 2021
স্বাধীন ভারতে সবথেকে
কলঙ্কিত নির্বাচন
সন্দীপন বিশ্বাস

বিজেপির বাংলা জয়ের লক্ষ্যের পিছনে রয়েছে নিধন-বাসনা। উড়েছে বস্তা বস্তা বেহিসেবি টাকা। বিজেপির আসল লক্ষ্য বাঙালির অস্মিতা নিধন, বাঙালির ভাষা নিধন, বাঙালির সংস্কৃতি নিধন, বাঙালির ঐক্য নিধন। বাঙালিকে হিরো থেকে জিরো করে দাসানুদাসে পরিণত করা। কিন্তু তা বোধহয় সম্ভব হল না। শোনা যাচ্ছে জননির্ঘোষ, ‘ঘর সামলাও চৌ...কি...দা...র।’ বিশদ

শীতলকুচি ট্রেলার হলে পুরো সিনেমাটা কী? 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ফেলুদা সোফায় বসে বাটিটা মোড়ক থেকে খুলে টেবিলের উপর রেখে বলল, ‘এটার একটা বিশেষত্ব আছে।’
‘কী বিশেষত্ব?’
‘জীবনে এই প্রথম একটা বাটি দেখলাম যেটাকে সোনার পাথরবাটি বললে খুব ভুল বলা হয় না।’
জয়সলমিরের মানুষ বাংলা সম্পর্কে প্রথম যে শব্দবন্ধটি শেখে, সেটি একটি নাম—সত্যজিৎ রায়। ‘সোনার পাথরে’ তৈরি বাটি-ঘটি বিক্রির খুব সাধারণ দোকানে গিয়েও দেখেছি, সত্যজিৎ রায়ের ছবি টাঙানো। 
বিশদ

13th  April, 2021
ফিরে এল রাফালের ভূত
পি চিদম্বরম 

স্মৃতি ক্ষণস্থায়ী। সাধারণ মানুষের পক্ষে রোজকার বেঁচে থাকা একটা চ্যালেঞ্জ। দেশ এবং দেশের প্রশাসনের বৃহত্তর চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে তারা সচেতন। কিন্তু তারা সেসব নিয়ে দীর্ঘকাল ভাবতে পারে না। 
বিশদ

12th  April, 2021
বাংলার মহিলাদের জীবনে
এই ভোট কেন গুরুত্বপূর্ণ
হিমাংশু সিংহ

ইতিমধ্যেই যে ক’দফা ভোট হয়েছে তাতে অন্যতম বৈশিষ্ট্য হিসেবে উঠে এসেছে মহিলাদের লম্বা লাইন। যা আশা জাগিয়েই শুধু ক্ষান্ত হয়নি, প্রমাণ করেছে প্রত্যয়ী মুখে বর্গীর হানাদারি রুখতে বঙ্গ নারী কতটা অকুতোভয়। আসলে এই শক্তি তাঁরা পাচ্ছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে দেখেই।
  বিশদ

11th  April, 2021
আক্রান্ত প্রার্থীরা: বঙ্গ
রাজনীতিতে ‘অশনি সঙ্কেত’
তন্ময় মল্লিক

ভোটের দফা যত গড়াচ্ছে রাজনৈতিক মারামারি, প্রার্থীদের উপর হামলা ততই বাড়ছে। নেতাদের ‘জয়লাভে’র দাবিকে সত্যি ধরে নিয়ে অনেকেই ‘বদলা’ নেওয়ার মহড়া শুরু করে দিয়েছে। নন্দীগ্রাম কার্যত বারুদের স্তূপের উপর দাঁড়িয়ে আছে। রাজ্যের জন্য এ-এক ‘অশনি সঙ্কেত’।
  বিশদ

10th  April, 2021
মতুয়াদের সামনে ‘গাজর’
ঝুলিয়ে লাভ নেই! 
মৃণালকান্তি দাস

অসমের গল্পটা নিশ্চিত এতদিনে বাংলার মতুয়া সম্প্রদায়ের কাছে জলের মতো পরিষ্কার। কী সেই গল্প? নাগরিকত্ব আইন আনার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৬ সালে অসম দখল করেছিল বিজেপি। আর পাঁচ বছর পর, বিধানসভা ভোটের মুখে জানা গেল, টাকা শেষ। অতএব ঝাঁপ বন্ধ এনআরসি দপ্তরের।  
বিশদ

09th  April, 2021
সোনার বাংলা গড়বে না
বেচে দেবে, প্রশ্ন সেটাই
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

যে সরকার নিজেই তার সমস্ত সংস্থা বিক্রি করে দিতে উঠে পরে লেগেছে সেই সরকার ভবিষ্যতে চাকরিবাকরি বা পরিষেবা দেবে কী দিয়ে? মানুষকেই তার নিজের যোগ্যতায় রোজগার করার পথ খুঁজে নিতে হবে। সরকার কিছু দেবে না, উল্টে সরকারের সব সম্পদ বেচে দেবে। এটাই হল মোদি সরকার বা বিজেপির সরকার চালানোর আসল দর্শন! বিশদ

08th  April, 2021
পুরনো হিসেব পরে, এখন
শুধুই বাংলা ও বাঙালি
হারাধন চৌধুরী

এই ভোটে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে টক্কর নিতে পারেন একজনই। তিনি আর কেউ নন বাংলার বাঘিনী। তাই আমরা ঠিক করেছি, তাঁর উপর আর রাগ পুষে রাখা নয়। পুরনো হিসেব পরে হবে। আপাতত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত শক্ত করার পক্ষে আমরা। বিশদ

07th  April, 2021
প্রতিশ্রুতি বনাম বাস্তব:
সুদের হার কিন্তু কমবেই
শান্তনু দত্তগুপ্ত

‘ডবল ইঞ্জিন’ সরকার হলে ‘ডবল বেনিফিট’ আদৌ হবে কি না জানা নেই। কিন্তু হ্যাঁ, সাঁড়াশির ডবল চাপে মানুষ ব্যতিব্যস্ত হবে—সেটা নিশ্চিত। যেমন হচ্ছে ত্রিপুরায়। যেমন হচ্ছে অসমে। প্রতিশ্রুতি আমরা আজ শুনছি... তখন স্মৃতি রোমন্থন করব। বিশদ

06th  April, 2021
মোদি-ভাবনা ও তার পরিণাম
পি চিদম্বরম 

আগামিকাল, মঙ্গলবার শেষ হবে অসম, কেরল, তামিলনাড়ু এবং পুদুচেরির ভোটগ্রহণ। পশ্চিমবঙ্গের আংশিক ভোটগ্রহণ হয়ে গিয়েছে। বাংলায় বাকি থাকছে আর পাঁচ দফার ভোটগ্রহণ। অসম এবং পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির ভালো প্রভাব রয়েছে। বাকি তিনটি জায়গাতেও পায়ের তলায় মাটি খুঁজে পাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে গেরুয়া শিবির। 
বিশদ

05th  April, 2021
নন্দীগ্রামে জিতবে বাংলাই
হিমাংশু সিংহ

আচ্ছা, নন্দীগ্রামে কে জিতবে বলুন তো? বাজারের মাছওয়ালা থেকে ধোপদুরস্ত বহুতলের বাবু, গত বৃহস্পতিবার টানটান উত্তেজনার মধ্যে ভোট যত এগিয়েছে এই একটা প্রশ্নেই ঘুরপাক খেয়েছে বাঙালি সমাজ। যত উত্তেজনা ছড়িয়েছে বাঙালির রক্তচাপ ততই ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে। বিশদ

04th  April, 2021
বিজেপির ‘হাওয়া’ আর রুদালির
‘কান্না’ আজ একাকার
তন্ময় মল্লিক

বিজেপি বঙ্গ দখলে আগ্রাসী না হলে বাঙালির কত কিছুই অজানা থেকে যেত! টাকা দিয়ে হাসি, উচ্ছ্বাস, এমনকী চোখের জলও কেনা যায়। কিন্তু আন্তরিকতা কেনা যায় না। ভাবনায় ও চেতনায়, রুদালির ‘কান্না’ আর বিজেপির ‘হাওয়া’ কেমন করে যেন একবিন্দুতে লীন হয়ে যাচ্ছে। বিশদ

03rd  April, 2021
একনজরে
শীতলকুচিতে আক্রান্ত হয়েই গুলি চালিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী—এই যুক্তি প্রতিষ্ঠার মরিয়া চেষ্টা শুরু করেছে গেরুয়া বাহিনী। আর সেই মরিয়া চেষ্টার অঙ্গ হিসেবে একের পর এক ‘ফেক’ ভিডিও ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে চলেছে বিজেপি। ...

১৯৫৮ এশিয়ান গেমসে রুপো জয়ী ভারতীয় হকি দলের সদস্য বলবীর সিং জুনিয়র ৮৮ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন। তাঁর কন্যা মনদীপ সামরা জানিয়েছেন,‘রবিবার সকালে ঘুমের মধ্যেই হার্ট অ্যাটাক হয় বাবার।   ...

বাঙালির রক্তে নিজেদের লালসা পূরণ করতে চাইছে বিজেপি। ওদের জবাব মানুষ ২মে দেবেন। মঙ্গলবার রায়নার জনসভা থেকে শীতলকুচির ঘটনা নিয়ে এভাবেই বিজেপিকে তোপ দাগলেন তৃণমূল ...

ভোটের একেবারে মুখে আচমকা বিজেপির উত্তর দিনাজপুর জেলা সভাপতি বদল করা হল। এতে দলের অভ্যন্তরেই মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। তবে কেন তাঁকে বদল করা হল, এবিষয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। এতে দলের কর্মীদের একাংশের মধ্যে ক্ষোভও ছড়িয়েছে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মক্ষেত্রে সহকর্মীর ঈর্ষার কারণে সম্মানহানি হবে। ব্যবসায়ীদের আশানুরূপ লাভ না হলেও মন্দ হবে না। দীর্ঘদিনের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯১: দলিত আন্দোলনের পথিকৃত ভীমরাও রামজি আম্বেদকরের জন্ম
১৯১৯: গায়িকা সামসাদ বেগমের জন্ম
১৯২২: বিশিষ্ট সরোদ শিল্পী আলি আকবর খানের জন্ম
১৯৬৩: পণ্ডিত ও লেখক রাহুল সাংকৃত্যায়নের মৃত্যু 
১৯৮৬ - বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক নীতীন বসুর মৃত্যু।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.১১ টাকা ৭৫.৮৩ টাকা
পাউন্ড ১০০.৯০ টাকা ১০৪.৩৮ টাকা
ইউরো ৮৭.৫৬ টাকা ৯০.৭৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
13th  April, 2021
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৭,১৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৪,৭৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৫,৪০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৭,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৭,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩১ চৈত্র ১৪২৭, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১। দ্বিতীয়া ১৮/৩৭ দিবা ১২/৪৮। ভরণী নক্ষত্র ৩০/৩ অপরাহ্ন ৫/২৩। সূর্যোদয় ৫/২১/২০, সূর্যাস্ত ৫/৫২/৪০। অমৃতযোগ দিবা ৭/১ মধ্যে পুনঃ ৯/৩২ গতে ১১/১২ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে ৫/৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৯ গতে ৮/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১/৩১ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪২ গতে ৩/২৩ মধ্যে। রাত্রি ৮/৫৬ গতে ১০/২৮ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৯ গতে ১০/৩ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৭ গতে ১/১১ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৯ গতে ৩/৫৫ মধ্যে। 
৩১ চৈত্র ১৪২৭, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১। দ্বিতীয়া দিবা ১১/০। ভরণী নক্ষত্র দিবা ৩/৫১। সূর্যোদয় ৫/২২, সূর্যাস্ত ৫/৫৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১২ মধ্যে ও ৩/২১ গতে ৫/১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/২২ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪১ গতে ৩/২১ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৫৫ গতে ১০/২৭ মধ্যে। কালবেলা ৮/৩০ গতে ১০/৪ মধ্যে ও ১১/৩৮ গতে ১/১২ মধ্যে। কালরাত্রি ২/৩০ গতে ৩/৫৬ মধ্যে।
১ রমজান।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ওড়িশার ময়ূরভঞ্জে ৪০ লক্ষ টাকার নিষিদ্ধ মাদক সহ গ্রেপ্তার ১ 

11:02:19 AM

করোনা আক্রান্ত সপা প্রধান অখিলেশ যাদব, রয়েছেন হোম কোয়ারেন্টাইনে 

11:00:38 AM

দেশে একদিনে করোনা আক্রান্ত ১ লক্ষ ৮৪ হাজার ৩৭২ জন
 

ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ১ লক্ষ ৮৪ হাজার ...বিশদ

10:09:47 AM

আইকোর মামলায় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্তকে তলব ইডির 

10:06:00 AM

বাড়িতে বসে ভ্যাকসিন নিলেন বিহারের বিজেপি বিধায়ক, বিতর্ক
করোনার ভ্যাকসিন পেতে বিভিন্ন হাসপাতালে হত্যে দিয়ে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। ...বিশদ

09:10:49 AM

২৫ এপ্রিল বীরভূমে তিনটি সভা মমতার 
আগামী ২৫ এপ্রিল বীরভূমে দলীয় প্রার্থীদের হয়ে প্রচারে আসছেন তৃণমূল ...বিশদ

09:00:00 AM