Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মমতাকে ঠেকাতে শেষে ‘রামধনু’ জোট
তন্ময় মল্লিক

‘এই বাংলা যতটা আব্বাস সিদ্দিকির ততটাই দিলীপ ঘোষের। দক্ষিণ ভারত থেকে এসেছেন ওয়াইসি, তাঁরও ততটাই অধিকার।’এখানে শেষ হলে মনে হতো, এটি কোনও ধর্মনিরপেক্ষ মানুষের বক্তব্য। উদ্দেশ্য স্পষ্ট হয়েছে এর পরের কথায়, ‘ওয়াইসি এসে এখানে মিম তৈরি করলে দিদিমণির টেনশন হচ্ছে কেন? মিম হবে না। আব্বাস সিদ্দিকি দল তৈরি করবে….দিদিমণির নাওয়া খাওয়া উঠে গিয়েছে। কেন মুসলমান সমাজ আপনার পৈতৃক সম্পত্তি নাকি? জমিদারি নাকি? যখন ইচ্ছা বলবেন….ভোট নেবেন, জেলে পুরে দেবেন, বের করে দেবেন? যদি তারা পার্টি তৈরি করে, নিশ্চয়ই করবে।’ বক্তা আর কেউ নন, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্থান হাওড়ার আমতা। তারিখ ১২ জানুয়ারি, ২০২১। অক্ষরে অক্ষরে মিলে যাচ্ছে দিলীপবাবুর ভবিষ্যদ্বাণী। আব্বাস সিদ্দিকি ঠিক তার ৯দিনের মাথায় গড়লেন ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট(আইএসএফ)। এ হেন আইএফএস এর সঙ্গে জোট করতে মরিয়া সিপিএম এবং কংগ্রেস। এটা কি নিছক কাকতালীয়, নাকি সবটাই পূর্ব পরিকল্পিত?
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বহুদিন ধরেই কংগ্রেসকে সিপিএমের ‘বি টিম’ বলতেন। তিনি বুঝেছিলেন, কংগ্রেসের মধ্যে থাকলে কিছুতেই সিপিএমকে হটানো যাবে না। সিপিএম বিরোধী আন্দোলন তীব্র হলেই হয় দিল্লির হাইকমান্ড তাতে জল ঢালত, অথবা প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব নানা ছলাকলা করে তাঁকে দমিয়ে দিত। তাই তিনি কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূল গড়েছেন এবং লক্ষ্যভেদও করেছেন। ২০১৬ সালে সেই কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করল সিপিএম। কিন্তু, কংগ্রেস ও সিপিএমের শীর্ষ নেতৃত্বের বোঝাপড়া যে অনেক আগে থেকেই, তার প্রমাণ মিলেছে স্বয়ং সীতারাম ইয়েচুরির লেখায়। প্রণববাবুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বোঝাতে গিয়ে ইয়েচুরি সাহেব ‘গোপন বোঝাপড়া’র বিষয়টি ফাঁস করে ফেলেছেন।
প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুর পর ইয়েচুরি সাহেব লিখেছেন, ‘২০০৪ সালে এনডিএ সরকারকে হারাতে সমস্ত ধর্মনিরপেক্ষ দলকে এককাট্টা করার সূত্রে প্রণববাবুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে মেলার সুযোগ হয়েছিল।… একটা বৈঠকের সময় একদিন হঠাৎ এক পাশে টেনে নিয়ে গিয়ে ওঁর লোকসভা ভোটে লড়া ঠিক হবে কি না, তা নিয়ে আমার মতামত চাইলেন। তার আগে উনি কখনও লোকসভায় সাংসদ হিসেবে জিতে আসেননি। মনে আছে, প্রথমটায় কিছু বলতে চাইনি। ওঁর মতো কাউকে এ বিষয়ে উপদেশ দেওয়াটা ঠিক হবে না বলে এড়িয়ে যাচ্ছিলাম। উনি কিন্তু জোর করলেন। বললাম, জেতার ব্যাপারে নিশ্চিত হলে তবেই লড়ুন। সেবারের ভোট খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। বিজেপিকে হারাতে আমরা সবাই মিলে কাজ করেছিলাম। প্রণবদা হারলে ভুল বার্তা যেত। শেষ পর্যন্ত প্রণবদা জঙ্গিপুর থেকে লড়লেন এবং জিতলেনও।’
এখানে দু’টি বিষয় খুব গুরুত্বপূর্ণ। সেবার জঙ্গিপুরে সিপিএমের প্রার্থী হেরেছিলেন। আর মুর্শিদাবাদ লোকসভা আসনে কংগ্রেসের মান্নান হোসেন হেরেছিলেন। জিতেছিল সিপিএম। হতে পারে কাকতালীয়, কিন্তু নিন্দুকে বলে, ‘বোঝাপড়া’।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বেশ কিছুদিন ধরে কংগ্রেস, সিপিএম, বিজেপির ‘রামধনু জোটে’র কথা বলছেন। বিজেপির সঙ্গে সিপিএমের মতো তথাকথিত ‘ধর্মনিরপেক্ষ’ দলের আঁতাত? নৈব নৈব চ। এসব করা তো দূরের কথা, ভাবাও মহাপাতকের কাজ। দলের নিচুতলার কর্মী-সমর্থকরা তৃণমূলকে হারানোর জন্য ‘ভুল করে’ বিজেপিকে ভোট দিতেই পারেন, তা বলে সিপিএম নেতারা তলে তলে ধর্মীয় শক্তির সঙ্গে হাত মেলাবেন? অসম্ভব। কিছুতেই হতে পারে না। কারণ মহামতি লেনিন বলেছেন, ‘ধর্ম হল আফিমের মতো।’ তাই ধর্ম থেকে শতহস্ত দূরে। সিপিএমের একটাই মন্ত্র, শ্রেণি সংগ্রাম। ধনীর বিরুদ্ধে গরিবের লড়াই। এখানে ধর্ম বা ভাববাদের কোনও জায়গা নেই। সেই কারণেই তো হেগেল সাহেবকে বাদ দিয়ে কাল মার্কস ও মহামতি লেনিনকেই তাঁরা ‘গুরু’ মেনেছেন।
মার্কসবাদ সম্পর্কে যাঁদের ন্যূনতম জ্ঞানগম্যি আছে তাঁরা জানেন, এই মতবাদের ভিত্তি হল লড়াই এবং সংগ্রাম। প্রলেতারিয়েতের ক্ষমতা প্রতিষ্ঠাই মূল উদ্দেশ্য। সবটাই মেহনতি মানুষের স্বার্থে। আন্দোলনই বামেদের ঘুরে দাঁড়ানোর একমাত্র রাস্তা। সেই রাস্তাতেই হাঁটতে শুরু করেছিল বাম নেতৃত্ব। নয়া কৃষি আইনের প্রতিবাদে রাস্তায় নামতেই মৃতপ্রায় বাম শিবিরে জেগেছে প্রাণের স্পন্দন। যুব সমাজ কাজের দাবিকে সামনে রেখে লাল ঝান্ডাকেই আঁকড়ে ধরতে চাইছে। এমনই এক সন্ধিক্ষণে আব্বাস সিদ্দিকির সঙ্গে জোটের চেষ্টা? এটা কি ‘গেম প্ল্যান’?
সিপিএম নেতারা বলেন, বিজেপি এবং তৃণমূলকে হটাতে তাঁরা যে কোনও ধর্মনিরপেক্ষ, বাম গণতান্ত্রিক শক্তির সঙ্গে জোট করতে প্রস্তুত। তাঁদের মতে, বিজেপি হিন্দুদের পার্টি। আর তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংখ্যালঘু তোষণকারী। অতএব ‘সাচ্চা ধর্মনিরপেক্ষ’ হল বামেরা। আর সঙ্গী হওয়ার সুবাদে কংগ্রেসও। সম্প্রতি সিপিএম আরও একটি ‘ধর্মনিরপেক্ষ’ শক্তির সন্ধান পেয়েছে। আইএসএফ, যার নেতা আব্বাস সিদ্দিকি। কয়েকটি আসন বেশি পাওয়ার লোভে আব্বাস সিদ্দিকির সঙ্গে সমঝোতা করতে মরিয়া সিপিএম। একে সমঝোতা না বলে ‘আত্মসমর্পণ’ বলাই ভালো।
কে এই আব্বাস সিদ্দিকি? না, কোনও শ্রেণি সংগ্রামের ইতিহাস তাঁর নেই। তাঁর পরিচয়, তিনি ফুরফুরা শরিফের পীরজাদা। তিনি জলসায় ভাষণ দেন। তাঁর নাকি অনেক অনুগামী। তাঁর জ্বালাময়ী ভাষণ সোশ্যাল সাইটে ঘোরে। তেমনই এক জলসার ভিডিওতে তৃণমূলের অভিনেত্রী সাংসদ সম্পর্কে আব্বাস সিদ্দিকি বলছেন, ‘মন্দিরেও যাব, মসজিদেও যাব, আমার ইচ্ছা। তোর বাপের সম্পত্তি নাকি? ইসলাম কারও বাবাশালী সম্পত্তি নয়। ভালো না লাগে বেরিয়ে যা। ঘোষ হয়ে যা, দুলে হয়ে যা। হিন্দু হয়ে যা, খ্রিস্টান হয়ে যা। আমরা কোনও আপত্তি করব না। ইসলামকে নিয়ে নাটক করবি না। আব্বাস সিদ্দিকি যদি কোনও দিন পাওয়ারে আসে তোদের রাস্তায় গাছে বেঁধে পিটবে।’
এরপরেও সিপিএম নেতাদের চোখে আব্বাস সিদ্দিকির নেতৃত্বাধীন দল সেকুলার! জানতে ইচ্ছা করছে, সিপিএম নেতারা কি নিজেদের ‘গঙ্গাজল’ ভাবেন? নাকি তাঁরাও বিজেপির দুর্নীতি পরিষ্কারের ‘ওয়াশিং মেশিন’ এর মতো ‘ধর্মনিরপেক্ষ’ করার মেশিন বের করেছেন? তাঁদের সঙ্গে হাত মেলালেই ‘ধর্মনিরপেক্ষ’? সেকুলার, সেকুলার বলে ঢাক পেটালেই ধর্মনিরপেক্ষ হওয়া যায় না। আচারে-আচরণে, কাজে-কর্মে প্রমাণ হয়, কে ধর্মনিরপেক্ষ, আর কে সাম্প্রদায়িক।
সিপিএম মুখে বিজেপিকে যতই আক্রমণ করুক, এখনও তাদের মূল শত্রু সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার জ্বালা সেলিম সাহেবরা কিছুতেই ভুলতে পারছেন না। তাই তৃণমূলের সরকার গঠনের রাস্তায় কাঁটা ছড়িয়ে দিতে মরিয়া। সেই কারণে তাঁরা আব্বাস সিদ্দিকির হাত ধরছেন। মহাজোটপন্থী নেতারা ভাবছেন, মুসলিম ভোটের কিছুটা কব্জা করতে পারলেই তৃণমূলের ‘ক্লিন স্যুইপ’ আটকে যাবে। আর কোনও রকমে ত্রিশঙ্কু হলে তো কথাই নেই। খুলে যাবে ‘নেপোর’ দই খাওয়ার দরজা।
যাঁকে সামনে রেখে দই খাওয়ার স্বপ্নে বিভোর ‘মহাজোটপন্থী’ সিপিএম নেতাদের আব্বাস সিদ্দিকির একটি ভিডিও দেখার জন্য অনুরোধ রইল। সেখানে আব্বাস সিদ্দিকি বলছেন, ‘আমি এই মুহূর্তে বাম-কংগ্রেসের সঙ্গে একুশের জন্য সিট সমঝোতা করতে চাইছি। শুধু মাত্র একুশের জন্য। একুশের পরে ওদেরও প্রতিশোধ নেব আমরা। কারণ ওরাও তো অনেক জ্বালিয়েছে। আমি একথা ওপেন বলছি ভাই। তাতে ওরা আসবে কি আসবে না, ওদের ব্যাপার।’
ডুবতে বসা মানুষ খড়কুটো আঁকড়ে ধরেও বাঁচতে চায়। সিপিএমও বাঁচতে চাইছে। কিন্তু লড়াইয়ের ধকল নিতে চাইছে না। তাই সহজ রাস্তার সন্ধান। সংখ্যালঘু ভোটের আশায় ‘ধর্মীয় নেতা’র হাত ধরতে চাইছে। বাঁচার চেষ্টা সবাই করে। আপনারাও করছেন। ভালো কথা। তবে, এরপর আর ‘ধর্মনিরপেক্ষতার’ আলখাল্লাটা গায়ে জড়াবেন না। দয়া করে আব্দুল্লাহ রসুল, মহবুব জাহেদি আর আব্বাস সিদ্দিকিকে এক করে ফেলবেন না।
সিপিএমের উদ্দেশ্য না হয় বোঝা গিয়েছে। কিন্তু, আব্বাস সিদ্দিকির দল গঠন নিয়ে দিলীপ ঘোষরা এত আগ্রহী কেন?
‘রথযাত্রা’ ফ্লপ। সিবিআইও তেমন মাইলেজ দিতে পারছে না। তূণ থেকে একের পর এক তির বেরিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু প্রতিপক্ষ ঘায়েল হচ্ছে না। সামনে রয়েছে বিহারের উদাহরণ। মিম এর সৌজন্যে ক্ষমতা দখল। তাই জোট বাঁধো, তৈরি হও। কংগ্রেস, সিপিএম, বিজেপির পথ ভিন্ন হলেও উদ্দেশ্য এক। মমতাকে ঠেকানো। কথায় আছে, ‘সবে মিলে করি কাজ/হারি জিতি নাহি লাজ।’ অতএব ‘রামধনু জোট’। তবে, সবটাই ঘোমটার আড়ালে। 
27th  February, 2021
স্বাধীন ভারতে সবথেকে
কলঙ্কিত নির্বাচন
সন্দীপন বিশ্বাস

বিজেপির বাংলা জয়ের লক্ষ্যের পিছনে রয়েছে নিধন-বাসনা। উড়েছে বস্তা বস্তা বেহিসেবি টাকা। বিজেপির আসল লক্ষ্য বাঙালির অস্মিতা নিধন, বাঙালির ভাষা নিধন, বাঙালির সংস্কৃতি নিধন, বাঙালির ঐক্য নিধন। বাঙালিকে হিরো থেকে জিরো করে দাসানুদাসে পরিণত করা। কিন্তু তা বোধহয় সম্ভব হল না। শোনা যাচ্ছে জননির্ঘোষ, ‘ঘর সামলাও চৌ...কি...দা...র।’ বিশদ

শীতলকুচি ট্রেলার হলে পুরো সিনেমাটা কী? 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ফেলুদা সোফায় বসে বাটিটা মোড়ক থেকে খুলে টেবিলের উপর রেখে বলল, ‘এটার একটা বিশেষত্ব আছে।’
‘কী বিশেষত্ব?’
‘জীবনে এই প্রথম একটা বাটি দেখলাম যেটাকে সোনার পাথরবাটি বললে খুব ভুল বলা হয় না।’
জয়সলমিরের মানুষ বাংলা সম্পর্কে প্রথম যে শব্দবন্ধটি শেখে, সেটি একটি নাম—সত্যজিৎ রায়। ‘সোনার পাথরে’ তৈরি বাটি-ঘটি বিক্রির খুব সাধারণ দোকানে গিয়েও দেখেছি, সত্যজিৎ রায়ের ছবি টাঙানো। 
বিশদ

13th  April, 2021
ফিরে এল রাফালের ভূত
পি চিদম্বরম 

স্মৃতি ক্ষণস্থায়ী। সাধারণ মানুষের পক্ষে রোজকার বেঁচে থাকা একটা চ্যালেঞ্জ। দেশ এবং দেশের প্রশাসনের বৃহত্তর চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে তারা সচেতন। কিন্তু তারা সেসব নিয়ে দীর্ঘকাল ভাবতে পারে না। 
বিশদ

12th  April, 2021
বাংলার মহিলাদের জীবনে
এই ভোট কেন গুরুত্বপূর্ণ
হিমাংশু সিংহ

ইতিমধ্যেই যে ক’দফা ভোট হয়েছে তাতে অন্যতম বৈশিষ্ট্য হিসেবে উঠে এসেছে মহিলাদের লম্বা লাইন। যা আশা জাগিয়েই শুধু ক্ষান্ত হয়নি, প্রমাণ করেছে প্রত্যয়ী মুখে বর্গীর হানাদারি রুখতে বঙ্গ নারী কতটা অকুতোভয়। আসলে এই শক্তি তাঁরা পাচ্ছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে দেখেই।
  বিশদ

11th  April, 2021
আক্রান্ত প্রার্থীরা: বঙ্গ
রাজনীতিতে ‘অশনি সঙ্কেত’
তন্ময় মল্লিক

ভোটের দফা যত গড়াচ্ছে রাজনৈতিক মারামারি, প্রার্থীদের উপর হামলা ততই বাড়ছে। নেতাদের ‘জয়লাভে’র দাবিকে সত্যি ধরে নিয়ে অনেকেই ‘বদলা’ নেওয়ার মহড়া শুরু করে দিয়েছে। নন্দীগ্রাম কার্যত বারুদের স্তূপের উপর দাঁড়িয়ে আছে। রাজ্যের জন্য এ-এক ‘অশনি সঙ্কেত’।
  বিশদ

10th  April, 2021
মতুয়াদের সামনে ‘গাজর’
ঝুলিয়ে লাভ নেই! 
মৃণালকান্তি দাস

অসমের গল্পটা নিশ্চিত এতদিনে বাংলার মতুয়া সম্প্রদায়ের কাছে জলের মতো পরিষ্কার। কী সেই গল্প? নাগরিকত্ব আইন আনার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৬ সালে অসম দখল করেছিল বিজেপি। আর পাঁচ বছর পর, বিধানসভা ভোটের মুখে জানা গেল, টাকা শেষ। অতএব ঝাঁপ বন্ধ এনআরসি দপ্তরের।  
বিশদ

09th  April, 2021
সোনার বাংলা গড়বে না
বেচে দেবে, প্রশ্ন সেটাই
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

যে সরকার নিজেই তার সমস্ত সংস্থা বিক্রি করে দিতে উঠে পরে লেগেছে সেই সরকার ভবিষ্যতে চাকরিবাকরি বা পরিষেবা দেবে কী দিয়ে? মানুষকেই তার নিজের যোগ্যতায় রোজগার করার পথ খুঁজে নিতে হবে। সরকার কিছু দেবে না, উল্টে সরকারের সব সম্পদ বেচে দেবে। এটাই হল মোদি সরকার বা বিজেপির সরকার চালানোর আসল দর্শন! বিশদ

08th  April, 2021
পুরনো হিসেব পরে, এখন
শুধুই বাংলা ও বাঙালি
হারাধন চৌধুরী

এই ভোটে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে টক্কর নিতে পারেন একজনই। তিনি আর কেউ নন বাংলার বাঘিনী। তাই আমরা ঠিক করেছি, তাঁর উপর আর রাগ পুষে রাখা নয়। পুরনো হিসেব পরে হবে। আপাতত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত শক্ত করার পক্ষে আমরা। বিশদ

07th  April, 2021
প্রতিশ্রুতি বনাম বাস্তব:
সুদের হার কিন্তু কমবেই
শান্তনু দত্তগুপ্ত

‘ডবল ইঞ্জিন’ সরকার হলে ‘ডবল বেনিফিট’ আদৌ হবে কি না জানা নেই। কিন্তু হ্যাঁ, সাঁড়াশির ডবল চাপে মানুষ ব্যতিব্যস্ত হবে—সেটা নিশ্চিত। যেমন হচ্ছে ত্রিপুরায়। যেমন হচ্ছে অসমে। প্রতিশ্রুতি আমরা আজ শুনছি... তখন স্মৃতি রোমন্থন করব। বিশদ

06th  April, 2021
মোদি-ভাবনা ও তার পরিণাম
পি চিদম্বরম 

আগামিকাল, মঙ্গলবার শেষ হবে অসম, কেরল, তামিলনাড়ু এবং পুদুচেরির ভোটগ্রহণ। পশ্চিমবঙ্গের আংশিক ভোটগ্রহণ হয়ে গিয়েছে। বাংলায় বাকি থাকছে আর পাঁচ দফার ভোটগ্রহণ। অসম এবং পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির ভালো প্রভাব রয়েছে। বাকি তিনটি জায়গাতেও পায়ের তলায় মাটি খুঁজে পাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে গেরুয়া শিবির। 
বিশদ

05th  April, 2021
নন্দীগ্রামে জিতবে বাংলাই
হিমাংশু সিংহ

আচ্ছা, নন্দীগ্রামে কে জিতবে বলুন তো? বাজারের মাছওয়ালা থেকে ধোপদুরস্ত বহুতলের বাবু, গত বৃহস্পতিবার টানটান উত্তেজনার মধ্যে ভোট যত এগিয়েছে এই একটা প্রশ্নেই ঘুরপাক খেয়েছে বাঙালি সমাজ। যত উত্তেজনা ছড়িয়েছে বাঙালির রক্তচাপ ততই ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে। বিশদ

04th  April, 2021
বিজেপির ‘হাওয়া’ আর রুদালির
‘কান্না’ আজ একাকার
তন্ময় মল্লিক

বিজেপি বঙ্গ দখলে আগ্রাসী না হলে বাঙালির কত কিছুই অজানা থেকে যেত! টাকা দিয়ে হাসি, উচ্ছ্বাস, এমনকী চোখের জলও কেনা যায়। কিন্তু আন্তরিকতা কেনা যায় না। ভাবনায় ও চেতনায়, রুদালির ‘কান্না’ আর বিজেপির ‘হাওয়া’ কেমন করে যেন একবিন্দুতে লীন হয়ে যাচ্ছে। বিশদ

03rd  April, 2021
একনজরে
১৯৫৮ এশিয়ান গেমসে রুপো জয়ী ভারতীয় হকি দলের সদস্য বলবীর সিং জুনিয়র ৮৮ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন। তাঁর কন্যা মনদীপ সামরা জানিয়েছেন,‘রবিবার সকালে ঘুমের মধ্যেই হার্ট অ্যাটাক হয় বাবার।   ...

বাঙালির রক্তে নিজেদের লালসা পূরণ করতে চাইছে বিজেপি। ওদের জবাব মানুষ ২মে দেবেন। মঙ্গলবার রায়নার জনসভা থেকে শীতলকুচির ঘটনা নিয়ে এভাবেই বিজেপিকে তোপ দাগলেন তৃণমূল ...

বিনা বিচারে ৪১ বছর বন্দি থাকা নেপালের বাসিন্দা দীপক যোশির ঘটনা নাড়িয়ে দিয়েছে বিচার বিভাগ সহ রাজ্য প্রশাসনকে। কারণ, মানসিকভাবে অসুস্থ এমন আরও বন্দির হদিশ মিলেছে। ...

শীতলকুচিতে আক্রান্ত হয়েই গুলি চালিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী—এই যুক্তি প্রতিষ্ঠার মরিয়া চেষ্টা শুরু করেছে গেরুয়া বাহিনী। আর সেই মরিয়া চেষ্টার অঙ্গ হিসেবে একের পর এক ‘ফেক’ ভিডিও ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে চলেছে বিজেপি। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মক্ষেত্রে সহকর্মীর ঈর্ষার কারণে সম্মানহানি হবে। ব্যবসায়ীদের আশানুরূপ লাভ না হলেও মন্দ হবে না। দীর্ঘদিনের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯১: দলিত আন্দোলনের পথিকৃত ভীমরাও রামজি আম্বেদকরের জন্ম
১৯১৯: গায়িকা সামসাদ বেগমের জন্ম
১৯২২: বিশিষ্ট সরোদ শিল্পী আলি আকবর খানের জন্ম
১৯৬৩: পণ্ডিত ও লেখক রাহুল সাংকৃত্যায়নের মৃত্যু 
১৯৮৬ - বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক নীতীন বসুর মৃত্যু।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.১১ টাকা ৭৫.৮৩ টাকা
পাউন্ড ১০০.৯০ টাকা ১০৪.৩৮ টাকা
ইউরো ৮৭.৫৬ টাকা ৯০.৭৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
13th  April, 2021
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৭,১৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৪,৭৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৫,৪০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৭,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৭,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩১ চৈত্র ১৪২৭, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১। দ্বিতীয়া ১৮/৩৭ দিবা ১২/৪৮। ভরণী নক্ষত্র ৩০/৩ অপরাহ্ন ৫/২৩। সূর্যোদয় ৫/২১/২০, সূর্যাস্ত ৫/৫২/৪০। অমৃতযোগ দিবা ৭/১ মধ্যে পুনঃ ৯/৩২ গতে ১১/১২ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে ৫/৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৯ গতে ৮/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১/৩১ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪২ গতে ৩/২৩ মধ্যে। রাত্রি ৮/৫৬ গতে ১০/২৮ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৯ গতে ১০/৩ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৭ গতে ১/১১ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৯ গতে ৩/৫৫ মধ্যে। 
৩১ চৈত্র ১৪২৭, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১। দ্বিতীয়া দিবা ১১/০। ভরণী নক্ষত্র দিবা ৩/৫১। সূর্যোদয় ৫/২২, সূর্যাস্ত ৫/৫৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১২ মধ্যে ও ৩/২১ গতে ৫/১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/২২ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪১ গতে ৩/২১ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৫৫ গতে ১০/২৭ মধ্যে। কালবেলা ৮/৩০ গতে ১০/৪ মধ্যে ও ১১/৩৮ গতে ১/১২ মধ্যে। কালরাত্রি ২/৩০ গতে ৩/৫৬ মধ্যে।
১ রমজান।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বাড়িতে বসে ভ্যাকসিন নিলেন বিহারের বিজেপি বিধায়ক, বিতর্ক
করোনার ভ্যাকসিন পেতে বিভিন্ন হাসপাতালে হত্যে দিয়ে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। ...বিশদ

09:10:49 AM

২৫ এপ্রিল বীরভূমে তিনটি সভা মমতার 
আগামী ২৫ এপ্রিল বীরভূমে দলীয় প্রার্থীদের হয়ে প্রচারে আসছেন তৃণমূল ...বিশদ

09:00:00 AM

তারকেশ্বর মন্দিরে গর্ভগৃহ বন্ধ
করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করায় এবার তারকেশ্বর মন্দিরের গর্ভগৃহ বন্ধ ...বিশদ

08:59:48 AM

আজ রাজ্যে আসছেন রাহুল, থাকছেন না অধীর ও মান্নান
প্রথম চার দফার ভোটের প্রচারে তাঁর দেখা পায়নি বাংলা। বালাই ...বিশদ

08:49:08 AM

শীতলকুচি: আজ মাথাভাঙায় মমতা
আজ, বুধবার মাথাভাঙায় আসছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মাথাভাঙা শহরের ...বিশদ

08:40:04 AM

মাথাভাঙা মহকুমা হাসপাতালের মাঠে এসে পৌঁছলেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে নিহতদের পরিজনেরা 

08:37:00 AM