Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

তৃণমূল বনাম তৃণমূল (বি)
শান্তনু দত্তগুপ্ত

চ্যালেঞ্জটা নিয়েছিলেন ইন্দিরা গান্ধী। সালটা ১৯৭৮। তখন তিনি আর কংগ্রেসের নন... জরুরি অবস্থার আঘাতে পরাজিত, রাজনৈতিক একাকিত্বের শিকার। তাও নিয়েছিলেন চ্যালেঞ্জটা। আজমগড় সেই সময় চরণ সিংয়ের দুর্গ। জনতা সরকার তাই একটা নিশানাতেই স্থির ছিল, ইমেজে চোট লাগতে দেওয়া যাবে না। ইন্দিরা যেন এই লোকসভা উপনির্বাচনে কোনওভাবে মাথা তুলতে না পারেন। প্রিয়দর্শিনী শেষ... এটাই আরও একবার প্রমাণ করতে হবে। তেড়েফুঁড়ে নামলেন জর্জ ফার্নান্ডেজ, অটলবিহারী বাজপেয়ি, চন্দ্রশেখররা। ভোটারদের দরজায় দরজায় ঘুরলেন। জরুরি অবস্থার প্রসঙ্গ টেনে উস্কে দিলেন আজমগড়কে। বললেন, জনতা পার্টির হাতেই আপনাদের ভবিষ্যৎ নিরাপদ। ওঁকে একটাও ভোট দেবেন না। ‘ইন্দিরা কংগ্রেসে’র সুপ্রিমোও ততদিনে ঠিক করে ফেলেছেন তাঁর প্রার্থী—মহসিনা কিদোয়াই। সংখ্যালঘু, উত্তরপ্রদেশের আদি কংগ্রেসি পরিবার থেকে উঠে আসা। বেরিয়ে পড়লেন ইন্দিরা... হাতে-বোনা সুতির শাড়ি, লম্বা হাতা ব্লাউজ। আলতোভাবে মাথায় আঁচল টেনে ঘোমটা। হুডখোলা জিপে মহসিনাকে পাশে নিয়ে রওনা দিলেন ইন্দিরা... আজমগড় জয়ের লক্ষ্যে। ৩০ ঘণ্টারও কম সময়ে ২৪টা জনসভা করেছিলেন ইন্দিরা। তাঁর শিডিউলে কতগুলো ছিল? মাত্র ১৪টা। আপডেট করার মতো সময় বা সুযোগ, কোনওটাই পাচ্ছিলেন না দলের রেকর্ডধারীরা। ইন্দিরা ছুটছেন... প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা... আজমগড়ের এক প্রান্ত থেকে অন্য কোণায়। সফরসঙ্গীদের সঙ্গেই বসে যাচ্ছেন রাতের খাবার নিয়ে... বাকিরা যা খাচ্ছে, সেটাই বরাদ্দ হচ্ছে তাঁর জন্য। তারপর ডাকবাংলোয় সামান্য বিশ্রাম। বা বলা ভালো, ভোরের আলো ফোটার অপেক্ষা...। অঙ্ক পরিষ্কার ছিল ইন্দিরার... মুসলিম ও হরিজনদের ভোট নিশ্চিত করতে পারলেই আজমগড় তাঁর হবে। ইন্দিরার লড়াই শুধু জনতা পার্টির সঙ্গে ছিল না। প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল তাঁরই দল। কংগ্রেস। কেউ ছেড়ে যায়নি, কিন্তু তাঁকে বাধ্য করেছিল দল ছেড়ে যেতে। নতুন দল গড়তে। 
আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লড়াইও কতকটা তেমন। বিজেপি অবশ্যই তাঁর প্রতিপক্ষ। কিন্তু প্রধান নয়। সেই আসন অলঙ্কৃত করে রেখেছেন মমতারই একদা বিশ্বস্ত, এখনকার দলবদলুরা। বাংলায় এখন দলবদলের সিজন। শুভেন্দু অধিকারী এবং তাঁর সঙ্গে লাইন দিয়ে অনেকেই জামার রং বদলেছেন। বিজেপির দাবি, ভোটের আদর্শ আচরণবিধি চালু হলেই সংখ্যাটা হুড়মুড়িয়ে বাড়বে। রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তো জনা পঞ্চাশেক বিধায়কের দাবিপত্র পেশ করে রেখেছেন। তাই আপাতত তাল ঠোকা চলছে। দরে না পোষালেই আসছে অন্য শিবিরে পালিয়ে যাওয়ার হুমকি। দিলীপবাবুর দাবি যদি ঠিক হয়, তাহলে রাজ্য বিজেপির ভবিষ্যৎ নিয়ে কিন্তু বেশ সংশয় আছে। এমনিতেই ইদানীং গেরুয়া শিবিরের যে সব কর্মসূচি নজরে আসছে, তাতে দিলীপবাবু ছাড়া মার্কামারা বিজেপির নেতা চোখে পড়ে না। মূলত শুভেন্দু অধিকারী, আর দলবদলের প্রত্যাশী তৃণমূলের নেতা-কর্মীতেই বিজেপির মঞ্চ ভরে যাচ্ছে। মানুষের মনে খুব স্বাভাবিকভাবেই এখন চূড়ান্ত ধন্দ, ‘এটা কি বিজেপি? নাকি তৃণমূল।’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মঞ্চে থাকলে না হয় একটা নিশ্চিন্ত ভাব আসে... এটাই তৃণমূল। না হলে দলের জার্সি বুঝতে পারাটাই সাধারণ মানুষের কাছে এই দলবদলের খেলায় বিপদ হয়ে যাচ্ছে। 
দলবদলুদের ঠেলায় রাজ্য বিজেপি এখন কার্যত তৃণমূল শাখা সংগঠনের রূপ নিয়েছে। আরও কয়েকজন বিক্ষুব্ধ-বেসুরো যোগ দিলেই কেল্লাফতে... বিজেপি নাম বদলে তৃণমূল (বি) করে ফেললেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। তখন মানুষ ভাববে... ভোটটা কাকে দেব! তৃণমূলকে? নাকি তৃণমূলের বিজেপি শাখাকে? তার উপর ভাষণ বিভীষিকা তো রয়েইছে। ঠিক এক বছর আগেই কেশিয়াড়ির মঞ্চ থেকে এক নেতা বলছিলেন, ‘আমি যদি নেতাই থেকে লাশ কুড়োতে পারি, তাহলে চাইলে বিজেপিকে পিঁপড়ের মতো পিষেও দিতে পারি’। সেই নেতাই এখন গেরুয়া মন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে বলেন, ‘ভোটের আগে রামনবমী করব। নরেন্দ্র মোদি আসবেন। রাজ্যকে বিজেপির হাতে তুলে দিতে হবে। তৃণমূলকে বিদায় করতে হবে।’... বাংলার মানুষ মেলাতে পারছে না। একটা অস্বস্তি কাজ করে। যা দিলীপ ঘোষের বক্তৃতায় হয় না। মানুষ জানে, এই নেতা আদর্শগতভাবে বিজেপি তথা সঙ্ঘের অনুগত। তিনি বিরোধী আসনে বছর বছর বসে আছেন। শাসকের মুণ্ডপাত করছেন। এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ভোটের মরশুমে দলবদলের গামছা গলায় দিয়ে কেউ যদি সেই বুলি আওড়াতে শুরু করেন, তা ঠিক হজম হয় না। বিজেপি যতই আসন্ন পালাবদলের দাবি তুলুক না কেন, সমীকরণটা মোটেও অত সহজ নয়। কারণ, তাঁদের পথের কাঁটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নামে এক চরিত্র। দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেলে তিনি আবার একটু বেশিই ভয়ঙ্কর। বিজেপি তাঁকে তেমনই একটা জায়গায় ঠেলার চেষ্টা শুরু করেছে। আর মমতাও পাল্টা হুঙ্কার দিয়েছেন। বিজেপিকে... দলবদলুদেরও। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে নন্দীগ্রাম থেকেও লড়বেন তিনি। ভবানীপুরের পাশাপাশি। এটা অবশ্যই মাস্টারস্ট্রোক। কেন? নিন্দুকে তো বলছে, একটি আসনে জয়ের নিশ্চয়তা নেই বলেই তিনি ভবানীপুরের পাশাপাশি নন্দীগ্রামকে বেছে নিয়েছেন। একটায় হেরে গেলে যাতে আর একটা অপশন হাতে থাকে। ঠিক যেমনটা রাহুল গান্ধী গত লোকসভা ভোটে করেছিলেন। সেখানে তিনি ‘পরিবারের’ সম্মান রক্ষার লড়াইয়ে হেরে আমেথি খুইয়েছেন। কংগ্রেসও সার্বিকভাবে বিজেপির অশ্বমেধের দৌড়ে দাঁত ফোটাতে পারেনি। প্রকট বিরোধীরা খোঁচা দিতে শুরু করেছেন, মমতারও একই হাল হবে না তো? তঁারা অবশ্য নরেন্দ্র মোদির প্রথম ইনিংসের কথা ভুলে যাচ্ছেন। ২০১৪ সালে মোদি দু’টি আসনে লড়েছিলেন। ফল? ইতিহাসের পাতায়। রাজনৈতিক বিশ্লেষণ নয়... মানুষ বলছে, মমতার ভবিষ্যৎ রাহুল গান্ধীর মতো হবে না। কারণ, তৃণমূল (বি) দলকে ভোট দেওয়ার থেকে অবশ্যই তৃণমূলে আস্থা রাখা ‘বেটার’। সেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আছেন। মমতা আছেন বলেই দলটার নাম তৃণমূল। বাকি নেতানেত্রীরা তাঁরই জার্সি পরে ভোটের ময়দান কাঁপাতে নামেন। সেই জার্সি খুলে দিলে কী হতে পারে, তা আগামী ভোটের ফলে বোঝা যাবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও জার্সি বদলেছিলেন, কিন্তু অন্য কোনও দলে যোগ দিয়ে নয়। নিজের দল গড়ে। সেই দল আজও শুধু তাঁকেই সামনে রেখে চলে। ২৯৪টি আসনে তৃণমূল প্রার্থী দিলেও ভোটাররা শুধু একটিই নাম মাথায় রেখে ইভিএমের বোতামে চাপ দেন—মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরকম একটি ছাতার নীচ থেকে বেরিয়ে পালাবদলের স্বপ্ন দেখা ভালো। কিন্তু ওভার কনফিডেন্স? ধৃষ্টতা। ভোট এবং কামাইয়ের গন্ধে জেলায় জেলায় বহু নেতাই আজ দলবদলু। কিন্তু তাঁদের দেখে কতজন পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য বা জেলা কর্মাধ্যক্ষ বিজেপিতে লাইন দিয়েছেন? কতজন সাধারণ কর্মী মনে করছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আর পারবেন না? সংখ্যাটা বিন্দুতে সিন্ধুর সমতুল। ভোট কিন্তু নেতাদের দিয়ে হয় না! ভোট হয় সংগঠনে, কর্মীদের আপ্রাণ চেষ্টায়। বিশ্বাসে। সেই বিশ্বাস কি দলবদলুরা তৃণমূল থেকে ভাঙিয়ে নিয়ে যেতে পেরেছেন? সেই গ্যারান্টি স্বয়ং নরেন্দ্র মোদিও দিতে পারছেন না। হতে পারে বাংলার ভোট প্রধানমন্ত্রীর কর্তৃত্ব কায়েমের অ্যাসিড টেস্ট। কিন্তু একুশ যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরও প্রেস্টিজ ফাইট! কেন্দ্রের সরকারে থেকেই বা বাংলার মানুষের জন্য বিজেপি কী করেছে? দাঁড়িপাল্লার একদিকে কেন্দ্র, আর অন্যদিকে মমতার সরকারকে রাখলে উন্নয়ন এবং বেনিফিশিয়ারির নিরিখেই বিজেপি অনেক নীচে নেমে যাবে। তারপরও হাওয়া চলছে। বিজেপি ক্যাডার ভিত্তিক পার্টি। সঙ্ঘের বিরাট ছাতার তলায় তাদের দিন গুজরান। সেই অনুশাসন, একাগ্রতা এবং লক্ষ্যে স্থির মানসিকতাই এ ধরনের প্রচারে সঙ্ঘ পরিবার তথা বিজেপির পালে হাওয়া দিচ্ছে। লড়াই এবার কঠিন... সে ব্যাপারে সংশয় নেই। কিন্তু মমতাও যে চ্যালেঞ্জটা নিয়ে ফেলেছেন! ঠিক যেভাবে নিয়েছিলেন ইন্দিরা গান্ধী। জয় হয়েছিল মহসিনা কিদোয়াইয়ের। পেরেছিলেন ইন্দিরা। ১৯৮০ সালের লোকসভা নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়েছিল ইন্দিরা কংগ্রেস। আর শেষমেশ তাঁর দলকেই ‘আসল’ কংগ্রেসের মান্যতা দিতে বাধ্য হয়েছিল নির্বাচন কমিশন। এই ‘হার না মানা’ লড়াইয়ে আজমগড় ছিল তাঁর ঘুরে দাঁড়ানোর জমি। সেই ১৯৭৮... সেই উপনির্বাচন। নন্দীগ্রামের আন্দোলন বামফ্রন্ট সরকারের বিরুদ্ধে জমি দিয়েছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। সেই মাটিকেই আরও একবার বেছে নিয়েছেন তিনি। গত ভোটে এই আসনে জিতে আসা তৃণমূল প্রার্থীর নাম? শুভেন্দু অধিকারী। এবারও চ্যালেঞ্জ নিলেন তিনি। লড়বেন তিনি তৃণমূল (বি) দলের হয়ে। মমতার বিরুদ্ধে... নন্দীগ্রাম থেকেই। উপায়ও ছিল না তঁার। জিততে পারলে রাজনৈতিক অস্তিত্ব থাকবে। আর হারলে? ইতিহাসের পাতায়। এই ‘যুদ্ধে’ প্রতি পদে তঁার সঙ্গী হবে একটা অনুভূতি... মাথার উপর একটা ছাতা কিন্তু আজ আর নেই। সেই ছাতার নামটাই যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
19th  January, 2021
নন্দীগ্রাম নয়, মমতার চ্যালেঞ্জ একলপ্তে ২৯১
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

মোক্ষম জবাবটা দিয়েছেন ওমর আবদুল্লা। গত শনিবার বেহালার মুচিপাড়ায় শুভেন্দু অধিকারী বলেছিলেন, ‘তৃণমূল ক্ষমতায় ফিরলে পশ্চিমবঙ্গটা কাশ্মীর হয়ে যাবে।’ ২০১৯ সালে কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিদায় নেওয়ার পর থেকে ওমর আবদুল্লা ভালোই ভুগছেন। 
বিশদ

অর্থনীতির পাশাপাশি স্বাধীনতাও বিপন্ন
পি চিদম্বরম 

ভারতীয় অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে কি না তা একটা বিতর্কের বিষয়। চলতি অর্থবর্ষের তৃতীয় ত্রৈমাসিকে ০.৪ শতাংশ বৃদ্ধির যে এস্টিমেট ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকস অফিস (এনএসও) দিয়েছে, সরকার সেটাকে ‘সেলিব্রেট করছে’। 
বিশদ

08th  March, 2021
বাইশে উত্তরপ্রদেশে কুড়ি
দফায় ভোট হবে তো!
হিমাংশু সিংহ 

প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হতে শুরু করেছে। খেলেঙ্গে, লড়েঙ্গে, জিতেঙ্গে আবেগে ভাসছে নন্দীগ্রাম। সব পক্ষই বলছে, খেলা হবে। বাংলা ও বাঙালির ভবিষ্যৎ নিয়ে ভয়ঙ্কর নির্ণায়ক খেলা। বহিরাগত শক্তি বনাম হাসিমুখে ঘরের মেয়ের লড়াই। তবে বাংলার কৃষ্টি ও সংস্কৃতিকে বাঁচিয়েই খেলতে হবে। তাকে আক্রান্ত করে, জখম করে নয়। 
বিশদ

07th  March, 2021
যেখানে ‘ডবল ইঞ্জিন’
সেখানেই হেরেছে বিজেপি
তন্ময় মল্লিক

বিজেপির নেতাদের মুখে ‘ডবল ইঞ্জিন’-এর প্রশংসার ফুলঝুরি ফুটছে। তাঁরা বোঝাতে চাইছেন, কেন্দ্রে ও রাজ্যে একই দলের সরকার থাকলে প্রচুর উন্নতি হবে। কলকারখানা হবে। চাকরি হবে। মাস্টারমশাই, সরকারি কর্মীদের বেতন বাড়বে। 
বিশদ

06th  March, 2021
বিদায় শ্রেণিসংগ্রাম, স্বাগত টুম্পা
সমৃদ্ধ দত্ত

আত্মীয় অথবা পরিবারের মধ্যে কিছু কিছু বিশেষ ব্যক্তিকে দেখা যায়, যাঁরা কোনও একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পর সেটি যে শ্রেষ্ঠ, সেকথা উচ্চৈঃস্বরে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করেন। অন্যদের মতামত অথবা মৃদু বিরোধিতাকে পাত্তা দেন না তাঁরা। কিন্তু পরে যখন প্রমাণ হয় যে, ওই সিদ্ধান্ত শুধু যে ভুল ছিল তা‌ই নয়, গোটা পরিবারের পক্ষেও ক্ষতিকর হয়ে গিয়েছে, তখনই বিড়ম্বনার সৃষ্টি। 
বিশদ

05th  March, 2021
নদীবাঁধ রক্ষাই সুন্দরবনের অস্তিত্বের প্রধান শর্ত
কান্তি গাঙ্গুলী

প্রাচীন ইতিহাসে টলেমি ও মেগাস্থিনিসের বিবরণে গঙ্গারিডি বলে যে ভূখণ্ডের উল্লেখ পাওয়া যায়, আজকের সুন্দরবন ও তৎসংলগ্ন নিম্নগাঙ্গেয় উপত্যকা সম্ভবত সেই ভূখণ্ডই। কলকাতার এন্টালি অঞ্চলটির নামকরণের পিছনে হেঁতাল গাছের প্রভূত উপস্থিতির কারণও হয়তো বিদ্যমান।  
বিশদ

04th  March, 2021
গোল্লায় যাবে শিল্প-সংস্কৃতি
ব্রাত্য বসু 

বাংলা ও তার সংস্কৃতি বাঁচাতে গেলে বহিরাগত এই বিজেপি রাজনীতিকে ঠেকাতেই হবে। বিজেপি কখনও বাংলায় এসে রবীন্দ্রনাথের জন্মস্থান বদলে দিচ্ছে, কখনও বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙে তছনছ করছে, কখনও চৈতন্যদেবের মৃত্যুর অন্তত দুশো বছর পরে তাঁকে কাটোয়ায় জীবিত করে তুলছে, কখনও আবার বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিশেষণে ঔপন্যাসিক না লিখে বলছে ‘উপনিবেশিক’। 
বিশদ

04th  March, 2021
মোদির সব প্রতিশ্রুতি যেন গল্পদাদুর আসর
সন্দীপন বিশ্বাস 

হঠাৎই জহর রায়ের একটি কৌতুক নকশা মনে পড়ল। এক ভদ্রলোক একটি ঘর ভাড়া নিতে গিয়েছেন। ঘর দেখে পছন্দও হয়েছে। দু’টি ঘর, রান্নাঘর, সঙ্গে আলাদা বাথরুম। কিন্তু ভাড়া শুনে ভদ্রলোকের মাথার চুল খাড়া হয়ে গেল। ভাড়া ৫০০ টাকা।  
বিশদ

03rd  March, 2021
৮ দফার পর নিশ্চয়ই রিগিংয়ের
অভিযোগ উঠবে না!
শান্তনু দত্তগুপ্ত

সেশন সাহেব, বড্ড মিস করছি আপনাকে। আপনি বলতেন, ‘গণতন্ত্র হল এমন একটা ব্যবস্থা, যেখানে আইনের শাসন সবার জন্য সমানভাবে বলবৎ থাকবে।’ সব মানুষের জন্য। সব রাজনৈতিক দলের জন্য। আপনি প্রমাণ করেছেন, এটা ছেলে ভুলানো গল্প নয়।  
বিশদ

02nd  March, 2021
আদালতগুলি স্বাধীনতার ঘণ্টাধ্বনি দিচ্ছে
পি চিদম্বরম

ঠিক যখন আমরা আশা ছেড়ে দিচ্ছি, তখনই ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে ব্যক্তি স্বাধীনতার বর্মটা হারিয়ে যায়নি। আমেরিকার স্বাধীনতার ঘোষণা সম্পর্কিত স্বাক্ষর হয়েছিল ১৭৭৬-এর ৪ জুলাই। 
বিশদ

01st  March, 2021
কে প্রধান শত্রু, আজ ব্রিগেডে
পরিষ্কার করুক সিপিএম 
হিমাংশু সিংহ

প্রয়াত সলিল চৌধুরী আজ বেঁচে থাকলে ‘টুম্পা সোনা’ শুনে কী বলতেন জানি না। তবে তাঁর ‘ও আলোর পথযাত্রী’ কিংবা ‘ঢেউ উঠছে কারা টুটছে’ যে এত তাড়াতাড়ি ব্রাত্য হয়ে যাবে কে ভেবেছিল! অভাবে স্বভাব নষ্ট আর দুর্দিনে চরিত্র। তাই আর ঘোমটার তলায় খ্যামটা নাচ নয়। 
বিশদ

28th  February, 2021
মমতাকে ঠেকাতে শেষে ‘রামধনু’ জোট
তন্ময় মল্লিক

‘এই বাংলা যতটা আব্বাস সিদ্দিকির ততটাই দিলীপ ঘোষের। দক্ষিণ ভারত থেকে এসেছেন ওয়াইসি, তাঁরও ততটাই অধিকার।’এখানে শেষ হলে মনে হতো, এটি কোনও ধর্মনিরপেক্ষ মানুষের বক্তব্য। উদ্দেশ্য স্পষ্ট হয়েছে এর পরের কথায়, ‘ওয়াইসি এসে এখানে মিম তৈরি করলে দিদিমণির টেনশন হচ্ছে কেন? 
বিশদ

27th  February, 2021
একনজরে
সম্প্রতি চাকুলিয়া ও ডালখোলায় তৃণমূলের অন্দরের কোন্দল সামনে এসেছিল। কিন্তু ভোটের মুখে সেই দলীয় অসন্তোষ যাতে সামনে না আসে, সেজন্য তৎপর হয়েছেন দলের উত্তর দিনাজপুর জেলার সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল। ...

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে দিল্লি সীমানার সিঙ্ঘু, তিক্রি এবং গাজিপুরে কৃষক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিলেন মহিলা কষকরা। শুধু প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নেওয়াই নয়, আন্দোলনের সমর্থনে জ্বালাময়ী ভাষণ দেন মহিলারা।   ...

কেন্দ্রের পেট্রল-ডিজেল-রান্নার গ্যাসের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে সরব হয়েছে গোটা বাংলা। সেই পথেই সোমবার গাড়ি ছেড়ে সাইকেলে অভিনব প্রচার শুরু করলেন ময়ূরেশ্বর বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী ...

নর্থ ইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে প্রথম লেগে শেষপর্বে গোল হজম করেছিল এটিকে মোহন বাগান। রক্ষণের সেই ভুল কিছুতেই মানতে পারছেন না কোচ আন্তোনিও লোপেজ হাবাস। শেষ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চতর বিদ্যায় সফলতা আসবে। সরকারি ক্ষেত্রে কর্মলাভের সম্ভাবনা। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সাফল্য আসবে। প্রেম-প্রণয়ে মানসিক অস্থিরতা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৪৫৪: আমেরিগেডস পুচির (তাঁর নামানুসারে আমেরিকার নাম করন হয়) জন্ম
১৮৫৮: দ্বিতীয় বাহাদুর শাহ জাফারি রেঙ্গুনে নির্বাসিত
১৯৩৪: মহাকাশচারী ইউরি গ্যাগারিনের জন্ম
১৯৫১: তবলাবাদক জাকির হুসেনের জন্ম
১৯৫৯: নিউ ইয়র্কে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল টয় ফেয়ারে আত্মপ্রকাশ করল বার্বি ডল
১৯৬১: মহাকাশ যান স্ফুটনিক ৯-এর সফল উৎক্ষেপণ
২০১২: বলিউড অভিনেতা ও পরিচালক জয় মুখার্জির মৃত্যু 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৩৯ টাকা ৭৪.১০ টাকা
পাউন্ড ৯৯.৪৩ টাকা ১০২.৯২ টাকা
ইউরো ৮৫.৬০ টাকা ৮৮.৭৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৫, ১৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪২, ৮৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৩, ৫০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬, ১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬, ২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৫ ফাল্গুন, ১৪২৭, মঙ্গলবার, ৯ মার্চ ২০২১। একাদশী ২২/৪৯ দিবা ৩/৩। উত্তরাষাঢ়া নক্ষত্র ৩৬/৫৬ রাত্রি ৮/৪১। সূর্যোদয় ৫/৫৫/১, সূর্যাস্ত ৫/৩৯/৪৩। অমৃতযোগ দিবা ৮/১৫ গতে ১০/৩৬ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৭ গতে ২/৩২ মধ্যে পুনঃ ৩/১৯ গতে ৪/৫৩ মধ্যে। রাত্রি ৬/২৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৫৫ গতে ১১/২১ মধ্যে পুনঃ ১/৪৮ গতে ৩/২৫ মধ্যে। বারবেলা ৭/২৩ গতে ৮/৫১ মধ্যে পুনঃ ১/১৫ গতে ২/৪৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/১০ গতে ৮/৪৩ মধ্যে।  
২৪ ফাল্গুন ১৪২৭, মঙ্গলবার, ৯ মার্চ ২০২১। একাদশী অপরাহ্ন ৪/১৫। উত্তরাষাঢ়া নক্ষত্র রাত্রি ৯/৫৪। সূর্যোদয় ৫/৫৭, সূর্যাস্ত ৫/৩৯। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩ গতে ১০/২৮ মধ্যে ও ১২/৫৪ গতে ২/৩১ মধ্যে ও ৩/১৯ গতে ৪/৫৬ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩২ মধ্যে ও ৮/৫৫ গতে ১১/১৭ মধ্যে ও ১/৪০ গতে ৩/১৫ মধ্যে। বারবেলা ৭/২৫ গতে ৮/৫৩ মধ্যে ও ১/১৬ গতে ২/৪৪ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/১২ গতে ৮/৪৪ মধ্যে।  
২৪ রজব। 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইএসএল : টাইব্রেকারে ম্যাচ জিতে ফাইনালে মুম্বই সিটি এফসি
 

08-03-2021 - 10:36:07 PM

আইএসএলের দ্বিতীয় পর্বের সেমিফাইনাল গড়াল অতিরিক্ত সময়ে
 

08-03-2021 - 09:38:35 PM

ফের কলকাতা মেট্রোতে চালু হচ্ছে টোকেন ব্যবস্থা
ফের আগামী ১৫ মার্চ থেকে কলকাতা মেট্রোতে চালু হচ্ছে টোকেন ...বিশদ

08-03-2021 - 09:05:49 PM

আইএসএল: মুম্বই সিটি ০ – গোয়া ০ (হাফটাইম) 

08-03-2021 - 08:26:33 PM

কাশীপুর বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী কমলাকান্ত হাঁসদা  

08-03-2021 - 07:57:48 PM

স্ট্যান্ড রোড সংলগ্ন বহুতলে আগুন
স্ট্যান্ড রোডে রেলের একটি ভবনে আগুন। জানা গিয়েছে, ওই বহুতলটির ...বিশদ

08-03-2021 - 06:58:00 PM