Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

‌বিমল গুরুংয়ের প্রত্যাবর্তন
ও পাহাড়ের রাজনীতি

তন্ময় মল্লিক

এই মুহূর্তে বঙ্গ রাজনীতির অন্যতম চর্চিত চরিত্র বিমল গুরুং। রাজ্যে প্রত্যাবর্তন করেই গেরুয়া সঙ্গ ত্যাগ ও তৃণমূলকে সমর্থনে তাঁর ঘোষণা রাজ্য রাজনীতিতে ঝড় তুলেছে। বিধানসভা নির্বাচনের মুখে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার প্রাক্তন সুপ্রিমোর এই ডিগবাজি গেরুয়া শিবিরে বিনা মেঘে বজ্রপাত। রাষ্ট্রদ্রোহিতায় অভিযুক্ত গুরুংকে ধরে রাখতে বিজেপির চেষ্টার খামতি ছিল না। গোর্খাল্যান্ড ইস্যুতে ত্রিপাক্ষিক বৈঠক ডেকে গুরুংয়ের ক্ষোভ চাপা দিতে চেয়েছিল। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠক বয়কটের সিদ্ধান্তে সেই গেম প্ল্যানও ভেস্তে যায়। তারপরই গুরুংয়ের শিবির বদলের সিদ্ধান্ত। কারণ তিনি বুঝেছেন, তৃণমূল ফের জিতলে দীর্ঘায়িত হবে তাঁর আত্মগোপন পর্ব। তাই পাহাড়ে ফেরার রাস্তা মসৃণ করতেই তৃণমূলকে তাঁর নিঃশর্ত সমর্থনের ঘোষণা।
ভোট সর্বস্ব রাজনীতিতে শিবির বদল বা ডিগবাজি নতুন নয়। রাজনীতির কারবারিরা শিবির বদল করেন বলেই পাল্টে যায় জোট রাজনীতির সমীকরণ। বদলায় ক্ষমতা। তবে গুরুংয়ের শিবির বদল তা থেকে কিছুটা ভিন্ন। আপাতদৃষ্টিতে গুরুং শিবির বদল করেছেন বলে মনে হলেও বাস্তবটা হল, তিনি আত্মসমর্পণ করেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসনিক কৌশলের কাছে তিনি মাথা ঝোঁকাতে বাধ্য হয়েছেন। তাই তিনি বিজেপির বিরুদ্ধে বিশ্বাসভঙ্গের অভিযোগ তুলে তৃণমূল নেত্রীর বিশ্বাস অর্জনের চেষ্টা করছেন।
বিজেপির ছত্রচ্ছায়ায় থেকে টানা তিন বছর গুরুং রাজ্য সরকার এবং তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়েছেন। ভেবেছিলেন, লোকসভা ভোটে বিজেপি প্রার্থীকে জেতালে এবং কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদি সরকার গড়লে পূরণ হবে গোর্খাল্যান্ডের দাবি। কিন্তু সরকার গঠনের পর বছর ঘুরলেও গোর্খাল্যান্ড নিয়ে তিনি একচুলও এগতে পারেননি। উল্টে তাঁকে লুকিয়ে থাকতে হয়েছে। সেই সুযোগে একদা তাঁরই ঘনিষ্ঠ বিনয় তামাংকে সামনে রেখে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পাহাড়ে গণতন্ত্রের ভিত মজবুত করছেন। রাস্তাঘাট, পানীয় জল, বিদ্যুৎ সমস্যা মিটিয়ে বিনয় তামাং ও অনীত থাপা হয়ে উঠছেন দক্ষ প্রশাসক। পাশাপাশি তাঁর ঘনিষ্ঠদেরও এক এক করে কাছে টেনে নিচ্ছেন। এই অবস্থা চলতে থাকলে তাঁর আমও যাবে, ছালাও যাবে। গোর্খাল্যান্ড তো হবেই না, পাহাড়ের দরজাও বন্ধ হয়ে যাবে। তাই একদা পাহাড়ের এই বেতাজ বাদশার সামনে নিঃশর্ত আত্মসমর্পণ ছাড়া অন্য রাস্তা ছিল না। সম্ভবত দিল্লিতে বসেও তিনি টের পাচ্ছিলেন, বদলাচ্ছে বঙ্গের পরিস্থিতি।
তবে কেউ কেউ গুরুংয়ের এই আত্মসমর্পণের পিছনে বিজেপির সূক্ষ্ম প্যাঁচ আছে বলে মনে করছেন। তাঁদের বক্তব্য, বিমল গুরুংয়ের মাথায় ঝুলছে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা। তাই বিধানসভা নির্বাচনে তাঁর পক্ষে পাহাড়ে দাঁড়িয়ে ভোট করানো সম্ভব হতো না। তার উপর বিজেপির হয়ে ভোট চাইতে গেলে গোর্খাল্যান্ড ইস্যুতে নানা প্রশ্নের মুখে পড়তে হতো। কিন্তু সন্তোষজনক উত্তর নেই। উল্টোদিকে বিনয় তামাং ক্ষমতার সুবাদে প্রভাব বিস্তার করেছেন। এই পরিস্থিতিতে গুরুং তৃণমূলের ঝান্ডা নিয়ে পাহাড়ে উঠলে বিনয়-বিমল সংঘাত অনিবার্য। সেই সুযোগে জিএনএলএফকে সামনে রেখে ফায়দা তুলবে বিজেপি। কারণ জিএনএলএফের সঙ্গে গেরুয়া শিবিরের এখনও সুসম্পর্ক আছে। তবে গুরুংকে তৃণমূল কীভাবে কাজে লাগাবে, তার উপরেই নির্ভর করবে বিজেপি আদৌ বেনিফিট পাবে কি না! 
বিমল গুরুংয়ের বিজেপি সঙ্গ ছাড়ার সিদ্ধান্তকে তৃণমূল সমর্থন করেছে। বিধানসভা ভোটে তৃণমূলের পাশে থাকার ঘোষণাকেও স্বাগত জানিয়েছে শাসক দল। কিন্তু প্রতিক্রিয়ায় সংযমের ছাপ স্পষ্ট। বিমল বিজেপির হাত ছাড়ায় উত্তরবঙ্গের ১০/১২টি আসনে শাসক দলের সুবিধা হতে পারে। তা সত্ত্বেও তৃণমূল নেতৃত্ব উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেনি। সবচেয়ে বড় কথা, তৃণমূল সুপ্রিমো একেবারে ‘স্পিকটি নট’। অনেকেই মনে করছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্ভবত ‘ধীরে চলো’ নীতি নিয়ে জল মাপতে চাইছেন। তবে কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলাই যে তাঁর লক্ষ্য, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। 
রাজনীতিতে উপরে ওঠার সিঁড়িটির নাম হল কৌশল। আর তা নির্ধারিত হয় অনুমান এবং অঙ্কের ভিত্তিতে। কৌশল ঠিকঠাক কাজ করলে সেটাই হয়ে যায় রাজনীতির মাস্টার স্ট্রোক। আর ভুল হলেই ব্যুমেরাং। তখন সেই অস্ত্রে সে নিজেই ঘায়েল হয়।
লোকসভা ভোটে নরেন্দ্র মোদি শিলিগুড়ির জনসভায় গোর্খাদের দাবি বিবেচনার আশ্বাস দিয়ে বিমল গুরুং সহ নেপালি ভোটের বৃহৎ অংশ কব্জা করেছিলেন। তখন সেটা ছিল বিজেপির মাস্টার স্ট্রোক। এখন সেই বিমল গুরুংই গেরুয়া শিবিরের কাছে ব্যুমেরাং। কারণ গুরুং শুধু মমতায় আস্থা রাখেননি। তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ‘বিজেপির সঙ্গে তাঁর আর কোনও সম্পর্ক নেই। পাহাড়ের উন্নতির জন্য নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহরা যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তা পালন করেননি। একমাত্র মমতাই কথা রেখেছেন।’ এখানে বিশেষভাবে তাৎপর্যপূর্ণ শব্দটি হল, ‘পাহাড়ের উন্নতির জন্য’। পাহাড়ের খবর যাঁরা রাখেন তাঁরা জানেন, গোর্খাদের জাত্যভিমান প্রবল। তাকে কাজে লাগিয়েই সুবাস ঘিসিং আশির দশকের গোড়ায় দার্জিলিং পাহাড়ে হিংসাত্মক আন্দোলন শুরু করেছিলেন। প্রথমে তাঁর দাবি ছিল পৃথক দেশের। তারপর পৃথক রাজ্য। তিনি পাহাড়বাসীকে বুঝিয়েছিলেন, তাঁরা বঞ্চিত ও উপেক্ষিত। একমাত্র পৃথক রাজ্যই পাহাড়ের মানুষের দুঃখ, দুর্দশা দূর করতে পারে। পবরর্তীকালে সেই দাবি থেকে সরে তিনি গোর্খা পার্বত্য পরিষদ নিয়েই সন্তুষ্ট হয়েছিলেন। পাহাড়ের নিরঙ্কুশ ক্ষমতা ভোগের সেটাই শুরু। তারপর যখনই রাজ্য সরকার হিসেব চেয়েছে তখনই ঘিসিং পৃথক রাজ্যের দাবিতে হুঙ্কার ছেড়েছেন। আর বাম সরকার কঠোর পদক্ষেপের বদলে তাঁর দেওয়া শর্ত মেনে সমঝোতা করেছে। সেটা ছিল বামেদের কৌশল। পাহাড় তোমার, সমতল আমার। সেই কৌশলেই ঘিসিং দু’দশকেরও বেশি সময় পাহাড় কব্জায় রেখেছিলেন।
পৃথক রাজ্যের দাবি থেকে সরে গিয়েছিলেন ঘিসিং। উল্টে দার্জিলিংকে তিনি ষষ্ঠ তফসিলির অন্তর্ভুক্ত করে আরও বেশি ক্ষমতা ও আর্থিক সুযোগ সুবিধা লাভের চেষ্টা করেছিলেন। পাহাড়বাসী বুঝেছিল, গোর্খাল্যান্ডের ‘গাজর’ ঝুলিয়ে ক্ষমতা ভোগই ঘিসিংয়ের উদ্দেশ্য। তা নিয়ে পাহাড়ের মানুষের দিন দিন ক্ষোভ বাড়ছিল। আর তারই সুযোগ নিয়েছিলেন বিমল গুরুং। 
ইন্ডিয়ান আইডল গানের প্রতিযোগিতায় প্রশান্ত তামাংয়ের হয়ে ভোট করিয়ে তাঁকে চ্যাম্পিয়ন বানানোর নেপথ্য কারিগর ছিলেন এই বিমলই। প্রশান্ত চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন। কিন্তু গোর্খাদের কাছে হিরোর মর্যাদা পেয়েছিলেন বিমল। তাকে হাতিয়ার করেই ধুরন্ধর বিমল ‘পাহাড়ো কা রাজা’ সুবাস ঘিসিংকে পাহাড় ছাড়া করেছিলেন। দিল্লি থেকে ফেরার পথেই তাঁকে আটকে দিয়েছিলেন গুরুং।
২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত পাহাড়ের অধীশ্বর ছিলেন বিমল গুরুং। জিটিএ-র প্রধানের কুর্সি দখল করে তিনিও ভুলেছিলেন পাহাড়বাসীকে দেওয়া পৃথক রাজ্য আদায়ের প্রতিশ্রুতি। ক্ষমতা ভোগই হয়ে উঠেছিল তাঁর লক্ষ্য। তাঁর বিরুদ্ধেও উন্নয়নের টাকা নয়ছয়, স্বজনপোষণের গুচ্ছ গুচ্ছ অভিযোগ নবান্নে জমা পড়তে থাকে। তা নিয়ে সরকার নাড়াচাড়া করতেই বিমল প্রমাদ গোনেন। তিনিও ঘিসিংয়ের জুতোয় পা গলিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে শুরু করেন। কিন্তু পাহাড়বাসীকে খেপানোর মতো জুতসই ইস্যু পাচ্ছিলেন না। সমস্ত স্কুলে বাংলা ভাষা শিক্ষার নির্দেশিকাকে হাতিয়ার করেই গুরুং ‘বঙ্গাল সরকারে’র বিরুদ্ধে ঘোষণা করেছিলেন জেহাদ।
দিনটা ছিল ২০১৭ সালের ৮ জুন। দার্জিলিংয়ের গোর্খা রঙ্গমঞ্চ ভবনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে বসেছিল ক্যাবিনেট মিটিং। গুরুং মিছিল নিয়ে সেদিকে এগতেই পুলিসের সঙ্গে সংঘর্ষ। অগ্নিগর্ভ হয়েছিল পাহাড়। প্রতিবাদে ৭২ ঘণ্টা পাহাড় বন্‌঩ধের ডাক। একেবারে ঘিসিংয়ের স্ট্র্যাটেজি। কিন্তু কৌশল কাজ করেনি। কারণ প্রতিপক্ষের নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শেষ পর্যন্ত তাঁর প্রশাসনিক দক্ষতা ও ইস্পাত কঠিন মানসিকতার সামনে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হলেন বিমল গুরুং।
‘বঙ্গাল হামরো চিয়ান হো’। এর অর্থ, বাংলা আমাদের বদ্ধভূমি। এটাই ছিল বিমল গুরুংয়ের প্রিয়তম স্লোগান। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার সেই প্রাক্তন সুপ্রিমোর আস্থা এখন মোদিতে নয়, মমতায়। এর ফায়দা ভোটে তৃণমূল কতটা পাবে, তা বলবে সময়। তবে একথা নিশ্চিত, ডাকাবুকো গুরুংয়ের নিঃশর্ত আত্মসমর্পণে পাহাড়ের রাজনীতিতে নতুন অধ্যায়ের সূচনা হল। ইতিহাস বলছে, চার দশক ধরে পাহাড় হুঙ্কার ছেড়েছে, আর সমতল সমঝোতার রাস্তার খুঁজেছে। কিন্তু, মমতার স্ট্র্যাটেজি ও প্রশাসনিক দৃঢ়তার ঘটল ঠিক উল্টোটা। সমতলের সামনে মাথা ঝোঁকাল পাহাড়ের ‘ব্ল্যাকমেলিং পলিটিক্স’। আর সেটা এই প্রথমবার।
31st  October, 2020
লাভ জেহাদ: বিজেপির
একটি রাজনৈতিক অস্ত্র
সন্দীপন বিশ্বাস

আসলে এদেশে হিন্দু, মুসলিম, শিখ, খ্রিস্টান কেউই খতরে মে নেই। যখন নেতাদের কুর্সি খতরে মে থাকে, তখনই ধর্মীয় বিভেদকে অস্ত্র করে, সীমান্ত সমস্যা খুঁচিয়ে তার মধ্য থেকে গদি বাঁচানোর অপকৌশল চাগাড় দিয়ে ওঠে। বিশদ

ওবামার ‘প্রতিশ্রুতি’ এবং
বিতর্কের রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

২০১৬ সালে ভারত সফরে এসে বারাক ওবামা সরব হয়েছিলেন ধর্মান্তরকরণ, ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে...। মোদির সামনেই। কাজেই এরপরের অধ্যায় নিয়ে তিনি যদি কলম ধরেন, বিজেপিকে স্বস্তিতে রাখার মতো পরিস্থিতি হয়তো তৈরি হবে না। বিশদ

24th  November, 2020
বিকাশ না গরিমা,
সংস্কার কী জন্য?
পি চিদম্বরম

কিছু কারণে ড. পানাগড়িয়া জোড়াতাপ্পির জিএসটি-টাকে প্রাপ্য গুরুত্ব দেননি এবং বিপর্যয় ঘটাল যে ডিমানিটাইজেশন বা নোট বাতিল কাণ্ড সেটাকেও তিনি চেপে গেলেন। বিশদ

23rd  November, 2020
ভোটের আগে দিল্লির
এই খেলাটা বড় চেনা
হিমাংশু সিংহ

 দিলীপবাবুরা জানেন, সোজা পথে এখনও পশ্চিমবঙ্গ দখল কোনওভাবেই সম্ভব নয়। আর তা বুঝেই একদিকে পুরোদমে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপব্যবহার শুরু হয়ে গিয়েছে। পাশাপাশি কাজ করছে তৃণমূলকেই ছলে বলে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়িয়ে দেওয়ার কৌশল। বিশদ

22nd  November, 2020
মমতা বিরোধিতাই
যখন রাজনীতির লক্ষ্য
তন্ময় মল্লিক

বামেদের ধারণা, মমতা তৃণমূল না গড়লে তারা আরও অনেকদিন রাজ্যপাট চালিয়ে যেত। তাদের চোখে মমতা ‘জাতশত্রু’। সেই কারণেই বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক, ফ্যাসিস্ট সহ নানা চোখা চোখা বিশেষণে ভূষিত করলেও মমতা বিন্দুমাত্র সুবিধা পান, এমন কাজ তাঁরা কিছুতেই করেন না। বিশদ

21st  November, 2020
বাইডেন জমানা, ইমরানের অস্বস্তি
মৃণালকান্তি দাস

পাকিস্তান জন্মের পর তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনকারী দেশটির নাম আমেরিকা। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে স্নায়ুযুদ্ধে পাকিস্তানকে পাশে পেতেই ঝাঁপিয়ে পড়েছিল ওয়াশিংটন। ভারতকে বাদ দিয়ে পাকিস্তানকে কেন কাছে টেনেছিল আমেরিকা? 
বিশদ

20th  November, 2020
বিজেপির হয়েই কি ব্যাট ধরছে কং-সিপিএম?
হারাধন চৌধুরী

বছর তিরিশ আগের কিছু কথা মনে পড়ছে। জ্যোতি বসুর মুখ্যমন্ত্রিত্বের তখন থার্ড টার্ম। সিদ্ধার্থ-জমানার সন্ত্রাসের বাস্তব অনেকটাই অতীত ততদিনে। সিপিএমের সন্ত্রাসটাই তখন হাতেগরম। সাতাত্তরে সিপিএম এবং জ্যোতি বসুর নামে যে মোহ জেগেছিল, অনেক সাচ্চা বামপন্থীদেরও ঘুচে গিয়েছে। সাংবাদিকতায় হাতেখড়ির সেই গোড়ার দিনগুলোতে আমাদের ব্যতিব্যস্ত রাখত সিপিএম পার্টি ক্যাডাররা।  
বিশদ

19th  November, 2020
কংগ্রেস কি দিনে দিনে অপ্রাসঙ্গিক হয়ে যাবে
সন্দীপন বিশ্বাস

 কংগ্রেসের বিগত কয়েক বছরের ব্যর্থতা বারবার নিঃশব্দে বলে গিয়েছে নেতৃত্বে গলদ রয়েছে। আজ বুঝি তাই ভিতর থেকে একটা ভূকম্পনের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। নতুন করে পার্টিটাকে বাঁধতে না পারলে মোদির সঙ্গে তার টক্কর দেওয়া সম্ভব নয়।
বিশদ

18th  November, 2020
ছুঁচ হয়ে ঢুকে ফাল হয়ে বেরনোর খেলা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

পরীক্ষায় পাশ নরেন্দ্র মোদি। তবে উতরানোটা মোটেই খুব সহজ ছিল না! একদিকে মহামারীর আতঙ্ক, আর তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ... প্রশ্ন একটাই, বিজেপির বিকল্প কি খোঁজার সময় এসে গিয়েছে? বিহার বলল, না আসেনি। কারণ, বিকল্প কেউ নেই। আপাতত...। তাই নরেন্দ্র মোদি জনপ্রিয়তার ফাঁকা ময়দানে গোল দিয়েই চলেছেন।   বিশদ

17th  November, 2020
করোনাকালে বায়ুদূষণ এক অশনিসঙ্কেত
অনির্বাণ মিত্র

ইতালির দু’টি অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি রোগীর মৃত্যু হয়। ওই দুই অঞ্চলে দূষণ প্রচণ্ড। একই ধরনের রিপোর্ট আসে চীন থেকেও। যুক্তরাষ্ট্রেও যেখানে বায়ুদূষণের মাত্রা বেশি, সেখানেই তত বেশি করোনা রোগী মারা যাচ্ছেন।  বিশদ

16th  November, 2020
বিভাজন করেই আমাদের পতন হয়
পি চিদম্বরম

বিভাজনের প্রক্রিয়া চলতেই থাকবে এবং এটা গভীরতরও হতে পারে—মার্কিন মুলুকে, ওইসঙ্গে ভারতেও। ... ভারতের আঘাতটা হবে ভীষণ খারাপ। সমাজ বিভাজিত হয়ে যাবে। অর্থনীতি উদ্যম হারিয়ে বসবে।  বিশদ

16th  November, 2020
বাংলায় লড়াইয়ের
মঞ্চটা কার তৈরি?
হিমাংশু সিংহ

বাংলার রাজনীতি এই মুহূর্তে এক সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে। বিহার ভোটের ফল এরাজ্যের আসন্ন নির্বাচনের মাহাত্ম্যকে দ্বিগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। মাত্র একবছর আগে বিহারে লোকসভা ভোটে ৪০টির মধ্যে ৩৯টি আসন জিতেছিল মোদি-নীতীশ কুমারের এনডিএ। একবছরের মধ্যে সেই চিত্র কিন্তু আমূল বদলে গিয়েছে। সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা ভোটে বিজেপি ও এনডিএর সেই একচেটিয়া কর্তৃত্ব অনেকটাই খর্ব হয়েছে। বিশদ

15th  November, 2020
একনজরে
বন্ধুদের সঙ্গে বেরিয়ে রহস্যজনকভাবে মৃত্যু হল এক ব্যবসায়ীর। মৃতের নাম রবি পিয়াদা (৩৬)। ঘটনাটি ঘটেছে বারুইপুর থানার দক্ষিণ গোবিন্দপুর এলাকায়। নিহত ব্যবসায়ীর বাড়ি বারুইপুরের মল্লিকপুর এলাকায় বলে জানা গিয়েছে। ...

করোনার টিকা নিয়ে সাফল্যের কথা শোনাচ্ছে একের পর এক সংস্থা। আর এই ঘোষণার ইতিবাচক প্রভাব পড়ল শেয়ার বাজারে। মঙ্গলবার জাতীয় শেয়ার সূচক নিফটি রেকর্ড ১৩ হাজারের নতুন অঙ্ক স্পর্শ করল। ...

করোনার জেরে ঘরের মাঠে প্রিমিয়ার লিগে লেস্টার সিটির বিরুদ্ধে খেলতে পারেননি মহম্মদ সালাহ। তবে সুস্থ হয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে লিভারপুল দলে ফিরছেন মিশরের তারকা ফুটবলারটি। ...

ইডির অভিযোগের ভিত্তিতে ফের গ্রেপ্তার সুদীপ্ত রায়চৌধুরী। ইডির তথ্য নকল করে টাকা তোলার অভিযোগে মঙ্গলবার সকালে তাকে গ্রেপ্তার করে বিধাননগর উত্তর থানার পুলিস। এর আগে ২০১৮ সালেও একবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল চিটফান্ড কাণ্ডে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর-স্বাস্থ্যের হঠাৎ অবনতি। উচ্চশিক্ষায় বাধা। সৃষ্টিশীল কাজে উন্নতি। পারিবারিক কলহ এড়িয়ে চলুন। জ্ঞাতি বিরোধ সম্পত্তি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৫৯: ভয়াবহ ভূমিকম্পে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় বেইরুট ও দামাস্কাসে, প্রাণ হারন ৩০-৪০ হাজার মানুষ
১৮৯৮: পরিচালক দেবকী কুমার বসুর জন্ম
১৯৩৩: কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৩৬: বার্লিনে জার্মানি ও জাপানের মধ্যে অ্যান্টি কমিন্টার্ন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সোভিয়েত ইউনিয়ন সংশ্লিষ্ট কোনও দেশকে অতর্কিতে আক্রমণ করলে, তার মোকাবিলার জন্যই এই চুক্তি করা হয়েছিল
১৯৪৩: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বসনিয়া ও হার্জিগোবিনিয়া ফের রাষ্ট্র বলে ঘোষিত হল
১৯৭৫: হল্যান্ডের হাত থেকে স্বাধীনতা পেল সুরিনাম
১৯৮১: সুরকার রাইচাঁদ বড়ালের মৃত্যু  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.১৪ টাকা ৭৪.৮৫ টাকা
পাউন্ড ৯৬.৯৮ টাকা ১০০.৩৭ টাকা
ইউরো ৮৬.১২ টাকা ৮৯.৩০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫০, ০৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭, ৫০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮, ২১০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬০, ৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬১, ০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, একাদশী ৫৭/৫৭ শেষ রাত্রি ৫/১১। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র ৩০/৫১ সন্ধ্যা ৬/২০। সূর্যোদয় ৫/৫৯/৫৫, সূর্যাস্ত ৪/৪৭/২২। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪২ মধ্যে পুনঃ ৭/২৬ গতে ৮/৯ মধ্যে পুনঃ ১০/১৯ গতে ১২/২৯ মধ্যে। রাত্রি ৫/৪০ গতে ৬/৩৩ মধ্যে পুনঃ ৮/১৯ গতে ৩/২২ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৪২ গতে ৭/২৬ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ৩/২১ মধ্যে। বারবেলা ৮/২১ গতে ১০/২ মধ্যে পুনঃ ১১/২৩ গতে ১২/৪৪ মধ্যে। কালরাত্রি ২/৪০ গতে ৪/২০ মধ্যে।  
৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, একাদশী অহোরাত্র। উত্তরভাদ্রপদ নক্ষত্র রাত্রি ৮/২৮। সূর্যোদয় ৬/২, সূর্যাস্ত ৪/৪৭। অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৬ মধ্যে ও ৭/৩৮ গতে ৮/২০ মধ্যে ও ১০/২৮ গতে ১২/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৩ গতে ৬/৩৬ মধ্যে ও ৮/২৪ গতে ৩/৩২ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৫৬ গতে ৭/৩৮ মধ্যে ও ১/১৭ গতে ৩/২৪ মধ্যে। কালবেলা ৮/৪৩ গতে ১০/৪ মধ্যে ও ১১/২৫ গতে ১২/৪৫ মধ্যে। কালরাত্রি ২/৪৩ গতে ৪/২৩ মধ্যে। 
৯ রবিয়ল সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
জামশেদপুরকে ২-১ গোলে হারাল চেন্নাইয়ান এফসি 

24-11-2020 - 09:31:04 PM

জামশেদপুর ১ চেন্নাইয়ান এফসি ২ (হাফটাইম) 

24-11-2020 - 08:31:00 PM

দেশের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে ৪৩টি অ্যাপস ব্লক করল কেন্দ্র 
দেশের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে আজ, মঙ্গলবার ৪৩টি অ্যাপস ব্লক ...বিশদ

24-11-2020 - 05:51:24 PM

করোনা: নাগাল্যান্ডে নতুন করে আক্রান্ত ৭৯ 
নাগাল্যান্ডে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হলেন ৭৯ জন। মোট আক্রান্তের ...বিশদ

24-11-2020 - 05:20:31 PM

সফল উৎক্ষেপণ ব্রহ্মস সুপারসোনিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের

আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ থেকে সফল উৎক্ষেপণ ব্রহ্মস সুপারসোনিক ক্রুজ ...বিশদ

24-11-2020 - 04:46:12 PM

করোনা মোকাবিলায় ৯৫ শতাংশ কার্যকরী স্পুটনিক-৫ টিকা, দাবি রাশিয়ার 

24-11-2020 - 04:38:11 PM