Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সীমান্ত বিতর্ক অছিলা, বাণিজ্য যুদ্ধ
জিততেই চীনের গলওয়ান কাণ্ড
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

সীমান্ত উত্তেজনা কমাতে ভারতের নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত  ডোভালের সঙ্গে চীনের বিদেশ মন্ত্রীর বৈঠক আপাতত স্বস্তি  দিয়েছে। কিন্তু, স্থায়ী সমাধান সূত্র মেলেনি। বরং বৈঠকের পর চীনের সরকারের বক্তব্য, দুই দেশের সম্পর্ক এক জটিল পরিস্থিতির মুখোমুখি। কী সেই  পরিস্থিতি? কেন কীভাবে তা তৈরি হল? চীন কেন পূর্ব লাদাখের গলোওয়ান নিয়ে আগ্রাসী হয়ে উঠল? এখনো পর্যন্ত ভারতের ৪৩ হাজার ১৮০ বর্গমাইল এলাকা দখল করে রেখেছে।  ভারত তো চীনের কাছে সেই বিপুল অধিকৃত এলাকা ফেরত চায়নি। তাহলে গলওয়ান নিয়ে  যুদ্ধ বাঁধার উপক্রম কেন? দুই দেশের সম্পর্কই বা কেন জটিল আবর্তে? কেন চীন এমনটা ভাবছে?
সামরিক বাহিনীকে ব্যবহার করা হয় অন্য দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ লুণ্ঠন এবং অর্থনৈতিক বাজার দখলের উদ্দেশ্যে। তাই সীমান্ত বিতর্কটা  চীনের  অছিলা মাত্র। প্রতিবারই দু’পক্ষের আলোচনার শুরুতেই  ভারতের প্রতিশ্রুতি আদায়ের পর  চীন সৈন্য সরিয়ে নিয়ে গেছে। এবারও সেটা তারা করল গলওয়ান থেকে। কারণ, লড়াইয়ের আসল উদ্দেশ্য লাদাখের রুক্ষ জমি নয়,  দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের দেশগুলোর বাজার দখল করা। সেই জন্যেই প্রয়োজন মার্কিন আধিপত্য  প্রতিরোধ করে চীনের প্রতিপত্তি প্রতিষ্ঠা করা। তার জন্য  চীন চায় ভারতকে  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের থেকে দূরে রাখতে। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও কূটনৈতিক সম্পর্কে ভারত  গত দু’দশকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের  অনেক  স্বাভাবিক বন্ধু হয়ে উঠেছে। চীন এটা মেনে নিতে পারে না। তারা ভারতকে বাণিজ্যিক বোঝাপড়ায় পাশে পেতে চায়। সেটা সম্ভব না-হলে  সীমান্তের  বিতর্কিত ইস্যুগুলি তুলে চীন চায় ভারতের উপর চাপ দিতে। বার্তাটা এই রকম: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে আঁকড়ে থাকলে সুবিধার কিছু নেই। বরং  চীনের কথা শোনো, নইলে চীন ছেড়ে দেবে না!
সমস্যার গোড়া
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বহুদিন আগে থেকেই দক্ষিণ এশিয় অঞ্চলে  চীনকে টক্কর দিতে ভারতকে সঙ্গী করেছে। এতদঞ্চলের বাজার ধরতে আফগানিস্তান থেকে মায়নামার পর্যন্ত একটি রাস্তা তৈরি করার পরিকল্পনা করে এক দশক আগে।  পাল্টা শক্তি হিসেবে দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে চীন নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবার জন্যই পাকিস্তান, রাশিয়া, ইরানকে সঙ্গী করে  সাংহাই থেকে তেহরান পর্যন্ত রাস্তা ও অর্থনৈতিক করিডর  তৈরির কর্মসূচি গ্রহণ করে। আজকের গলওয়ান এই দুই শক্তির বাণিজ্য যুদ্ধের এক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জিও স্ট্র্যাটেজিক পয়েন্ট। এই স্থানে, প্যানগং হ্রদ এলাকাসহ  পূর্ব লাদাখ অঞ্চলে নিরঙ্কুশ নিয়ন্ত্রণ কায়েম করার সঙ্গে জড়িয়ে আছে চীনের দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের অর্থনৈতিক এবং সামরিক প্রভুত্ব স্থাপনের গভীর অভিসন্ধি। কেবলমাত্র সীমান্তে জমি দখল করতে  ভারতের সঙ্গে যুদ্ধ করতে চীন আগ্রাসী হয়নি।
ভারত পূর্ব লাদাখে  হেলিপ্যাড ও রাস্তা  বানানোর পর থেকেই তাই চীনের গাত্রদাহ শুরু। ওই হেলিপ্যাড থেকে আকাশপথে মাত্র ১০ মিনিটের দূরত্বে কারাকোরাম। আর আকসাই চীন থেকে জিনজিয়াং প্রদেশের মধ্যে যে রাস্তা সাংহাই থেকে পণ্য পৌঁছে দেবে পাকিস্তানে এবং ইরান হয়ে মধ্য প্রাচ্যে, তা ভারতের হেলিপ্যাডে থাকা সীমান্ত প্রহরীর নাকের ডগায় এসে যাচ্ছে। সেই কারণেই ২০১৩ সালে পূর্ব লাদাখে ৬৫০ বর্গ মাইল জায়গা দখল করেছে, এখন গলওয়ান থেকেও  ভারতকে সরাতে চায় চীন। চীনের আশঙ্কা, কোনওদিন ভারতের সঙ্গে সামরিক সংঘর্ষ হলে, ভারতের দ্বারা গলওয়ান থেকে হানা শুরু হলে,  সাংহাই থেকে ইরান পর্যন্ত বাণিজ্য সরণি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। তখন চীনা সৈন্য, রসদ বা বাণিজ্য পরিবহণ কোনওটাই জিংজিয়াং থেকে কারাকোরাম হয়ে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বুক চিরে পৌঁছতে পারবে না পাকিস্তানের বন্দর শহরে এবং ইরান হয়ে ইউরোপে। রাশিয়া নিজেও চায় না ভারত-মাকিন  সখ্যে রাশিয়ার গুরুত্ব কমে যায়। তাই তারা চায় ভারতের পাশে থেকেও  চীনের সঙ্গে থাকতে। প্রকাশ্যে কোনও স্পষ্ট অবস্থান রাশিয়া জানাবে না। সেই আশ্বাস আছে বলেই গলওয়ান ও গোটা প্যানগং এলাকা অধিকার করার জন্য চীন এতটাই আগ্রাসী।
বর্তমান পরিস্থিতি
কোভিড পরবর্তী বিশ্বে মার্কিন-চীন সম্পর্কটা, বাণিজ্যিক দ্বন্দ্ব ছাড়িয়ে তীব্র রাজনৈতিক বিদ্বেষের চেহারা নেওয়ার ইঙ্গিত রাখছে। জবাব দিতে চীনও  উদগ্রীব হয়ে উঠেছে। মার্কিন আধিপত্য ধ্বংস করে চীন মহাশক্তি হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চায় এশিয়া ভূখণ্ডে। শুধু গলওয়ান নয়, চীন তাই একইসঙ্গে আগ্রাসী সাউথ চায়না সমুদ্র অঞ্চলে। তাতে  প্রয়োজনে ফিলিপিন্স-ভিয়েতনাম-জাপানের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়তে চীনের আপত্তি নেই। সেখানেও আসল উদ্দেশ্য মার্কিন প্রভাব খর্ব করা। এদিকে অস্ট্রেলিয়া-জাপান-দক্ষিণ কোরিয়াকে এক অক্ষে নিয়ে চলছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ভারত মহাসাগরে এই অক্ষের প্রভাব বৃদ্ধি মেনে নিতে পারছে না চীন। অন্যদিকে, চীনকে চাপে রাখতে মিত্রশক্তি ব্রিটেনকে সামনে রেখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপকে চীন বিরোধী শিবিরে টেনে আনতে চায়। তাইওয়ান ও হংকং নিয়ে তাই চীনের বিরুদ্ধে খুঁচিয়ে তোলার চেষ্টা  হচ্ছে পুরনো ঘা।
মার্কিন এই গেম প্ল্যানে যাতে কোনওভাবেই ভারত, চীন-বিরোধী অবস্থান নিয়ে মার্কিন শিবির ভুক্ত না-হয় তার জন্যেই  চীনের মনে হচ্ছে, ‘দু’দেশের সম্পর্কটা খুব কঠিন জটিলতার মধ্যে দিয়ে চলেছে!’
ভারতের পরিস্থিতি
এই পরিস্থিতিতে  মার্কিন অক্ষ থেকে ভারতকে দূরে রাখতে চীনকে চাপ সৃষ্টি করতে হচ্ছে পুরনো  সীমান্ত বিতর্কগুলি খুঁচিয়ে তুলে। ভারতকেও ভাবতে হচ্ছে অন্য কারণে। চীন অতি মাত্রায় বৃহৎ একটি অর্থনৈতিক শক্তি। সামরিক দিক থেকে চীনের সঙ্গে ছোটখাটো যুদ্ধ, মানে দু’-চারদিন চোখে চোখ রেখে বুঝিয়ে দেওয়া যেতেই পারে যে ‘হাম কিসিসে কম নেহি’! কিন্তু, লম্বা যুদ্ধের রসদ ভারতের নেই। অন্যদিকে,  বিশ্ব অর্থনীতিতে আড়াই ট্রিলিয়ন রপ্তানির বাজার চীনের দখলে। গোলাগুলি ছুঁড়তে হবে না, চীন শুধু রপ্তানি বন্ধ করে দিলেই ভারতসহ বহু বিরোধী দেশ শুকিয়ে যাবে। বিকল্প কি নেই? আছে। কিন্তু, সে বিকল্প আর্থিক দিক থেকে প্রচুর ক্ষতির মুখে ঠেলে দেবে আমাদের। এই মুহূর্তে ভারতের চাইতে প্রায় সাড়ে চার গুণের বেশি জিডিপি চীনের। মাথাপিছু হিসেবে সেটা আড়াইগুণের কাছাকাছি। এসব পরিসংখ্যানের বাইরে যেটা বাস্তব সমস্যা সেটা হল, কাঁচামালের অভাব। চীন কাঁচামাল না পাঠালে দেশের ওষুধ,  সার এবং রাসায়নিক শিল্প প্রায় মুখ থুবড়ে পড়বে। বড় বড় নির্মাণকার্য থমকে যাবে তাদের প্রযুক্তি এবং সস্তার শ্রমিক না পেলে। অনেক ক্ষেত্রেই প্রবল একটা সঙ্কট আসবে। চীনের বিকল্প তাই রাতারাতি তৈরি করা সম্ভব নয়। এটা চীন বেশ ভালো জানে। তাই ভারতের বিরুদ্ধে তাদের এত রোয়াবি।
চীনের সঙ্গে মোকাবিলা করতে চীনের কাছ থেকে পণ্য বা কাঁচামাল কেনা বন্ধ করা দরকার, শিল্পে আত্মনির্ভর হয়ে ওঠা দরকার। নরেন্দ্র মোদি সেটা বুঝেছেন বলেই ‘আত্মনির্ভর ভারত’ গড়ার আহ্বান জানিয়েছেন। সীমান্তে যুদ্ধ করার চাইতে সত্যিই এখন অনেক বেশি প্রয়োজন শিল্প ও বাণিজ্যে আত্মনির্ভরশীলতা। 
অন্যদিকে, চীন এটাও জানে যে ভারত এক বিশাল বাজার। সীমান্ত সমস্যা নিয়ে সেটা যুদ্ধ পর্যন্ত গড়ালে ভারতের বাজার হাতছাড়া হবে চীনের। সেটা চায় না বলেই আলোচনার টেবিলে তারা বসছে, আবার জারি রাখছে প্রচ্ছন্ন অসন্তোষ আর হুমকি। দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে মার্কিন-বন্ধু হিসেবে তারা ভারতকে দেখতে চায় না। সেটা হলে বৈরিতা অনিবার্য! কোনও আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক  চাপেই চীন পিছপা হবে না। সেটা তারা বুঝিয়ে দিয়েছে।
মার্কিন ও চীন উভয়কে নিয়েই ভারতকে চলতে হবে। ভারতের কাছে এটাই বর্তমান পরিস্থিতির দাবি। এখনকার দুনিয়ায় ভারতকে থাকতেই হবে অর্থনৈতিক প্রভুত্বের লড়াইয়ে। ভারত যদি চীনকে সেই লড়াইয়ে ‘বুঝ’ করে দিতে পারে (অর্থাৎ পড়তায় পুষিয়ে দিতে পারে), তাহলে আবার হিন্দি-চিনি ভাই ভাই হয়ে যাবে। দু’পক্ষই সেটাই চাইছে পারস্পরিক সম্মান বজায় রেখেই। নরমে-গরমে। হিসেবটা না মিললে ফের যুদ্ধ পরিস্থিতি অনিবার্য হয়ে পড়বে দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে  সামরিক প্রভাব ও বাজার  দখলের লক্ষ্যে।

 লেখক অর্থনীতির বিশ্লেষক। মতামত ব্যক্তিগত
08th  July, 2020
অন্ধকারের অন্তরেতে
অশ্রুবাদল ঝরে
সন্দীপন বিশ্বাস

 আবার একটা স্বাধীনতা দিবসের সামনে দাঁড়িয়ে আছি আমরা। কয়েক দিন পরই সারাদেশ এই করোনার মধ্যেও মেতে উঠবে উন্মাদনায়। পতাকা তোলা, বীর সেনানীদের স্মরণের মধ্য দিয়ে আমরা দিনটি পালন করব। জাতীয়তাবোধের আবেগে রোমাঞ্চিত হব। বিশদ

মোদি সরকারের জাতীয় শিক্ষানীতি
২০২০ কেন বিপজ্জনক

তরুণকান্তি নস্কর

জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০ নিয়ে বিজেপি পরিচালিত কেন্দ্রীয় সরকার যে ভূমিকা পালন করছে তা নজিরবিহীন। ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর তাঁদের মাথায় যে নতুন একটি জাতীয় শিক্ষানীতি প্রবর্তন করার চিন্তা কাজ করছে তা বোঝা যায়। ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকেই নানা কথাবার্তা শোনা যাচ্ছিল।
বিশদ

পরিষেবা আর ব্যবসায়
কিছু ফারাক তো আছে!
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মুখ্যমন্ত্রী বারবার বলে এসেছেন, বাস বা ট্যাক্সিভাড়া হোক ফ্লেক্সিবল। মানে, তেলের দামের সঙ্গে ভাড়াও ওঠানামা করবে। তখন অবশ্য কেউ তাতে সাড়া দেননি। আর এখন চলছে ভাড়া বৃদ্ধির জন্য কান্নাকাটি। তাঁরা ভাবছেন না... লক্ষ লক্ষ মানুষ আজ কর্মহারা।
বিশদ

11th  August, 2020
 ভারতের সাধনা, শাস্ত্র, সংস্কৃতি সবই
শ্রীকৃষ্ণ মহিমায় পুষ্ট, বিকশিত
চৈতন্যময় নন্দ

দেবকীর প্রার্থনায় ভগবান তাঁর ঐশ্বরিকতা সংবরণ করে প্রকৃত শিশুর রূপ ধারণ করলেন এবং বসুদেবকে নির্দেশ দিলেন তাঁকে নিয়ে নন্দগোপের ঘরে রেখে আসতে। এরূপ আদেশ পেয়ে বসুদেব শিশুসন্তানকে স্কন্ধে নিতেই আপনা আপনিই লৌহশৃঙ্খলে আবদ্ধ কপাটের দরজা খুলে গেল।
বিশদ

11th  August, 2020
মনমোহন সিংয়ের পরামর্শও
উপেক্ষা করছে সরকার
পি চিদম্বরম

 ৩ আগস্ট, ২০২০। দ্য হিন্দু। প্রবীণ চক্রবর্তীর সঙ্গে যৌথভাবে ড. মনমোহন সিং একটি নিবন্ধ লিখেছেন। বিষয়: ভারতীয় অর্থনীতির পুনরুজ্জীবন। তাতে তিনটি অভিমুখ ছিল: সাধারণ মানুষের মধ্যে আত্মবিশ্বাস ফেরানো।
বিশদ

10th  August, 2020
নতুন জাতীয় শিক্ষানীতির হাত ধরে
সমগ্র স্কুলশিক্ষা কোন দিকে যাচ্ছে
অরিন্দম গুপ্ত

এই প্রথম জাতীয় আয়ের ৬ শতাংশ শিক্ষা খাতে ব্যয় করা হবে বলে জানানো হয়েছে। এটি শিক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দীর্ঘদিনের দাবি। এটি হতে চলেছে। এর চেয়ে স্বস্তি ও আনন্দের খবর আর কী হতে পারে?
বিশদ

10th  August, 2020
রাম রাজনীতির উত্তরাধিকার
হিমাংশু সিংহ

রামমন্দির নির্মাণ শেষ হলে এদেশের গেরুয়া রাজনীতির সবচেয়ে মোক্ষম অস্ত্রটাও কিন্তু রাতারাতি ভোঁতা হতে বাধ্য। যে স্বপ্নকে লালন করে তিন দশক দিনরাত পথচলা, তার প্রাপ্তি যেমন মধুর, তেমনই সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন, এর পর কী? বিশদ

09th  August, 2020
দল বদলের জেরে কুশীলবরাই হয়ে যান পুতুল
তন্ময় মল্লিক

রাজনীতিতে দল বদল খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। তবে, যাঁরা দল বদলান, তাঁরা ‘ঘরের ছেলে’র মর্যাদা হারান। গায়ে লেগে যায় ‘সুবিধাবাদী’ তকমা। পরিস্থিতি বলছে, তাতে রাজনীতির কুশীলবরা‌ই হয়ে যান হাতের পুতুল। বিশদ

08th  August, 2020
রামমন্দিরের পর হিন্দুত্ববাদী
রাজনীতি কোন পথে?
সমৃদ্ধ দত্ত

নরেন্দ্র মোদি কি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবেই উচ্চারণ করেছেন একাধিকবার ‘জয় সিয়ারাম’ ধ্বনি? উগ্র হিন্দুত্ব থেকে এবার কি অন্য নতুন এক সমন্বয়ের হিন্দুত্বে ফিরতে চান তিনি? সনাতন ভারতবর্ষ আশা করবে, হিন্দুত্ববাদী রাজনীতিকে তিনি আগামীদিনে চালিত করবেন সহিষ্ণুতা, বহুত্ববাদ আর ঐক্যের পথে।
বিশদ

07th  August, 2020
ক্রীড়া ও বিনোদন অর্থনীতি:
কী ভাবছে সরকার?
হারাধন চৌধুরী

 ১০০ বছর ধরে মাঠ কাঁপাচ্ছে যে দল, সেই লাল-হলুদ ঝড়ের নাম ইস্টবেঙ্গল। এই স্লোগানের সঙ্গে বাঙালি বহু পরিচিত। গত ১ আগস্ট, ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষ পূর্ণ হল। যে-কোনও ক্ষেত্রে সেঞ্চুরির গরিমা কতটা সবাই জানেন। ক্রীড়ামোদী বাঙালি মূলত দুই শিবিরে বিভক্ত—ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান।
বিশদ

06th  August, 2020
সবুজ হচ্ছে জঙ্গলমহলের প্রকৃতি ও মানুষ
সন্দীপন বিশ্বাস

জঙ্গলমহল হাসছে। এই কথাটা একসময় বহু ব্যবহৃত শব্দবন্ধের মতো হয়ে গিয়েছিল। তারপর সেটা নিয়ে বিরোধীদের বিদ্রুপ করা শুরু হল। কিন্তু এটা ঠিক, ২০১১ সালের আগে যে জঙ্গলমহলের চোখে জল ছিল, তা আর ফিরে আসেনি।
বিশদ

05th  August, 2020
 সমাজ ব্যর্থ হলে অসহায় মানুষের
পাশে দাঁড়াবার রাজনীতিই কাম্য
শুভময় মৈত্র

কোভিডাক্রান্ত ফুসফুসে সাহস জোগাতে সরকারের সহযোগিতায় দলমত নির্বিশেষে আরও কিছুটা উদ্যোগ জরুরি। দ্রুততার সঙ্গে সে কাজ না-হলে আম জনতা বিপদে পড়বে। সমাজ অকৃতকার্য হলে অ্যাম্বুলেন্সে উঠতে না-পেরে অসুস্থের মৃত্যু রুখতে হবে নিঃসহায়ের রাজনীতিকেই।
বিশদ

05th  August, 2020
একনজরে
দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধারকাজ, তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত, প্রয়োজনীয় নির্দেশ—সবটা নিয়ন্ত্রিত হবে এক জায়গা থেকে। তার জন্য অত্যাধুনিক মোবাইল ভ্যান আনল কলকাতা বিমানবন্দর। ...

 সোয়াব বা লালারসের নমুনা দেওয়ার সময় মালদহে অনেকেই ভুল ঠিকানা দিচ্ছে বলে অভিযোগ। ইচ্ছাকৃতভাবে মোবাইল নম্বরও ভুল দেওয়া হচ্ছে। ...

  দশ দলেরই ইন্ডিয়ান সুপার লিগ (আইএসএল) হতে চলেছে। মঙ্গলবার নিজেদের ফেসবুক পেজ ও ওয়েবসাইটের কভার ফটো বদল করেছে আইএসএল কর্তৃপক্ষ। ...

 গ্রাম বাংলায় বিভিন্ন সামাজিক প্রকল্পের কাজে সহায়ক হিসেবে নিযুক্ত ২৫ হাজার গ্রামীণ সম্পদ কর্মী বা ভিলেজ রিসোর্স পার্সন (ভিআরপি) ফের দ্বারস্থ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

হঠাৎ মাথা গরমের প্রবণতার ফলে মানসিক অস্থিরতা দেখা দেবে। বিদ্যায় প্রতিকূলতার মধ্যেও সাফল্য আসবে। ব্যবসায়ীদের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস
১৭৬৫—ইস্ট ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে রবার্ট ক্লাইভ দ্বিতীয় শাহ আলমের কাছ থেকে বাংলা, বিহার ও ওড়িশায় দেওয়ানি স্বত্ত্ব লাভ করেন।
১৮৭৭: বহুভাষাবিদ তথা কলকাতার ইম্পেরিয়াল লাইব্রেরির (জাতীয় গ্রন্থাগারের) প্রথম গ্রন্থাগারিক হরিনাথ দের জন্ম।
১৮৯৫: অভিনেতা অহীন্দ্র চৌধুরীর জন্ম।
• ১৯১৯: পদার্থবিজ্ঞানী বিক্রম আম্বালাল সারাভাইয়ের জন্ম
১৯৬০ - সঙ্গীতশিল্পী, লেখক, অনুবাদক ও ঠাকুরবাডীর প্রগতিশীল বিদুষী মহিলা ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণীর মৃত্যু  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.০৫ টাকা ৭৫.৭৬ টাকা
পাউন্ড ৯৬.৩৮ টাকা ৯৯.৭৪ টাকা
ইউরো ৮৬.৪৫ টাকা ৮৯.৫৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৬,১৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫৩,২৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫৪,০৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭৪,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭৪,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
11th  August, 2020

দিন পঞ্জিকা

২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০, অষ্টমী ১৫/২ দিবা ১১/১৭। কৃত্তিকানক্ষত্র ৫৫/২৬ রাত্রি ৩/২৬। সূর্যোদয় ৫/১৬/৫, সূর্যাস্ত ৬/৭/৯। অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ৯/৩৩ গতে ১১/১৫ ম঩ধ্যে পুনঃ ৩/৩২ গতে ৫/১৫ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫২ গতে ৯/৬ মধ্যে পুনঃ ১/৩৩ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪৯ গতে ৩/৩২ মধ্যে পুনঃ রাত্রি ৯/৬ গতে ১০/৩৫ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৯ গতে ১০/৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ১/১৯ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৯ গতে ৩/৫১ মধ্যে।
২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০, অষ্টমী দিবা ৮/১৯। কৃত্তিকানক্ষত্র রাত্রি ১/৩৮। সূর্যোদয় ৫/১৫, সূর্যাস্ত ৬/১০। অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১৪ মধ্যে ও ৩/২৮ গতে ৫/১০ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৪৬ গতে ৯/১ মধ্যে এবং ১/৩২ গতে ৫/১৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪৬ গতে ৩/২৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/১ গতে ১০/৩১ মধ্যে। কালবেলা ৮/২৯ গতে ১০/৬ মধ্যে ও ১১/৪৩ গতে ১/১৯ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৯ গতে ৩/৫২ মধ্যে।
২১ জেলহজ্জ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ১ লক্ষ ছাড়াল
রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ছাড়াল। এ পর্যন্ত মোট ...বিশদ

11-08-2020 - 08:48:00 PM

করোনা আক্রান্ত রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ 

11-08-2020 - 08:05:09 PM

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা সঙ্কটজনকই
প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের অবস্থা শারীরিক অবস্থা সঙ্কটজনকই। হাসপাতালের ভেন্টিলেশনেই ...বিশদ

11-08-2020 - 07:11:07 PM

রাশিয়ায় একদিনে করোনা আক্রান্ত ৪,৯৪৫ 
রাশিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪,৯৪৫ জন। মৃত্যু ...বিশদ

11-08-2020 - 06:49:29 PM

রবীন্দ্রসদনের কাছে বহুতলে আগুন

 রবীন্দ্রসদনের কাছে একটি বহুতলে আগুন লাগল। স্থানীয় সূত্রে খবর, মঙ্গলবার ...বিশদ

11-08-2020 - 06:40:00 PM

তামিলনাড়ুতে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৫,৮৩৪ 
তামিলনাড়ুতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫,৮৩৪ জন। মৃত্যু ...বিশদ

11-08-2020 - 06:30:20 PM