Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

‘শোলে’ ছবির পুনর্নির্মাণ
সন্দীপন বিশ্বাস

দৃশ্য ১
রামগড়ের পাহাড়ের কোলে নিজের ডেরায় রাগে ফুঁসছেন গব্বর সিং। হাতের লোহার বেল্টটা পাথুরে মাটিতে ঘষতে ঘষতে এদিক ওদিক করছেন। চোখ মুখ দিয়ে তাঁর রাগ উথলে পড়ছে। চারপাশে গব্বর সিংয়ের চ্যালা কালিয়া, সাম্ভারা মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে আছে। একটু পরে গব্বর সিং বললেন, ‘হুম, সীমান্তে ওরা কতজন ছিল?’ কালিয়া ভয়ে মুখ কাঁচুমাচু করে বলল, ‘ওরা অনেকেই ছিল সর্দার। হাতে ওদের অনেক অস্ত্রশস্ত্রও ছিল।’
গব্বর সিং আবার জিজ্ঞাসা করলেন, ‘আমাদের কতজন ছিল?’
সাম্ভা বলল, ‘আমাদেরও অনেকে ছিল সর্দার।’
‘তাহলে এমন হল কেন?’ গব্বরের হুঙ্কারে পাহাড় প্রকম্পিত হল। সবাই কেঁপে উঠল। পাখিরা ডানা ঝাপটিয়ে উড়ে গেল। সবাই চুপ। গব্বর তাঁর ঘনিষ্ঠতম সাঙাতের দিকে তাকিয়ে বললেন, ‘ওরে অ মিত্র, একবার সবাইকে আমার ছাপ্পান্ন ইঞ্চি ছাতির গল্পটা বলে দে তো! সারা বিশ্বে আমার মান্যতা কেমন, সেটা সবাইকে বলে দে ভালো করে! সারা বিশ্ব আমার সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। এখান থেকে হাজার হাজার মাইল দূরেও বাচ্চারা ঘুমনোর সময় মায়ের কাছে আবদার করে বলে, মাগো, গব্বর সিংয়ের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের গল্প বল না। আর তোরা কিনা, আমার নাম কলঙ্কিত করে এলি। রামগড়ের লোকেরা কতসব নিন্দামন্দ করছে, শুনতে পাচ্ছিস না?’
হাতের বেল্টটা তুলে গব্বর পাথরের উপর আছাড় মারলেন। সেই ধাতব ঝনঝন শব্দে সবাই কেঁপে উঠল। এবার তিনি হাতের পিস্তলটা নিয়ে মাথার উপর ঘোরাতে লাগলেন। একটা ব্ল্যাঙ্ক ফায়ারও করলেন, ঢিচক্যাঁও! সীমান্তকর্তারা বললেন, ‘আপনি নির্দেশ দিন সর্দার, আমরা সবাই ঝাঁপিয়ে পড়ি।’ একথা শুনে হা হা হা করে হেসে উঠলেন গব্বর। অনেকক্ষণ ধরে শরীর কাঁপিয়ে হাসতে হাসতে বললেন, ‘ঝাঁপিয়ে পড়ার দরকার নেই। কৌশলগত অবস্থান আমাদের নিতে হবে। আমরা সবাই সীমান্ত দেশকে ইতিমধ্যেই যোগ্য জবাব দিয়েছি। এখন শুধু হুঙ্কারে খেলতে হবে।’
এক সীমান্ত কর্তা ভয়ে ভয়ে বললেন, ‘সর্দার রামগড়ের মানুষ চাইছে, আমরা ঝাঁপিয়ে পড়ি। ওদিকের সীমান্ত দেশকে যেমন মুখতোড় জবাব দিই, দুরমুশ করি, এবার এদিকের সীমান্ত দেশকেও বুঝিয়ে দিই, আমরা কতটা শক্তিধর। ওরা ক্রমেই এই রামগড়ের ভিতরে ঢুকে পড়ছে। গব্বর সিংয়ের নাম আমরা মাটির সঙ্গে মিশিয়ে যেতে দেব না।’
গব্বর হাতের তালুতে খৈনি ঢেলে ডলতে ডলতে বললেন, ‘ওরে পাগল, দুই সীমান্ত দেশ এক নয়। এটা বুঝতে হবে। প্রতিবেশী দেশগুলো গরম হয়ে আছে। বেশি কিছু দেখাতে গেলে সেই গরমে হাত পুড়বে। এই যে আমি গর্জন করলাম, তোদের দেখতে হবে কাল মিডিয়ায় যেন আমার এই গর্জনটা ঠিকমতো বের হয়, নাহলে মানুষ ভুল বুঝবে। এর আগে তালিবাজি, থালাবাজি নিয়ে গব্বর কা নাম রওশন নেহি হুয়া। আমাদের আরও অস্ত্র কিনতে হবে। হীরাকে খবর দাও। বলো আমাদের অনেক অস্ত্র লাগবে। নতুন করে ওর সঙ্গে আর্মস ডিল করতে হবে। যাও প্রেসকে জানাও।’
একজন চ্যালা বললেন, ‘আপনি যা বললেন, সর্দার সেটাই হবে। আপনি তো পিরেস কনফারেন্স করবেন না। তাই আপনার বার্তা আমাদের মিডিয়া সেল রামগড়ের সব কাগজ আর টিভিতে পৌঁছে দিচ্ছে।’
গব্বর বললেন, ‘সব যেন ঠিকঠাক হয়।’
সেই চ্যালা বললেন, ‘সর্দার আপনার নিমক খেয়েছি।’
গব্বর বললেন, ‘উল্টোপাল্টা হলে কচুপোড়া খাওয়াব।’
আর একজন সীমান্ত কর্তা বললেন, ‘সর্দার, ওরা যে আমাদের রামগড় এলাকায় অনেকটা ঢুকে বসে আছে। সেটার কী হবে?’
গব্বর বললেন, ‘ওদের আসলে পর্যটক বলে ভাবতে শেখো। পর্যটক হল আমাদের আত্মীয়ের মতো। ওই যে, কী যেন একটা বলে....!’
ওদিক থেকে মিত্র বললেন, ‘বসুধৈব কুটুম্বকম। সারা বিশ্ব আমাদের আত্মীয়।’
গব্বর বললেন, ‘ঠিক। সবাইকে আত্মীয় বানাতে হবে।’
সীমান্ত কর্তা বললেন, ‘সর্দার ওরা সীমান্তের ভিতরে কাঠামো বানিয়ে ফেলেছে। তাহলে এখন আমাদের কী কাজ হবে সর্দার?’
গব্বর বললেন, ‘সীমান্ত ডিঙিয়ে আসা সেনার বেশধারী ওই পর্যটকদের গতিবিধির উপর লক্ষ্য রাখ। ভেবে দেখে, ওদের ওইখানে পেয়িং গেস্ট হিসাবে রাখা যায় কিনা! যদি সম্ভব হয়, তাহলে তো নৈতিকভাবে জায়গাটা আমাদেরই রইল। আমি পরে দেশ সফরে বেরিয়ে রাষ্ট্রনায়কদের সঙ্গে দোলায় দুলে দুলে একটা কিছু সমাধান বের করব। আর ওসব নিয়ে না ভেবে তোমরা দেশের উন্নয়ন ও প্রগতির দিকে নজর দাও।’
একজন বললেন, ‘আপনি হলেন প্রগতির রামচন্দ্র, উন্নয়নের জগন্নাথ।’
গব্বর একটু গম্ভীর হয়ে বললেন, ‘জগন্নাথ বলে তুমি কি আমাকে রামগড়ের মানুষের মতো ঠুঁটো বলে ঠেস মারলে?’
সেই চ্যালা নিজের কান মুলে বলল, ‘কীযে বলেন সর্দার! জগন্নাথ যেমন রথ নিয়ে মাসির বাড়ি যায়, আপনি তেমন রথ ছুটিয়ে রামগড়কে নিয়ে যাচ্ছেন উন্নয়নের পথে। সেই মন্ত্রটা জানেন তো সর্দার? জগন্নাথ স্বামী, উন্নয়নপথগামী।’
চারিদিকে সাধু সাধু রব উঠল। গব্বর বললেন, ‘আমি একটা প্ল্যান করেছি। সবাই শুনে রাখ। শত্রুদেশ থেকে আমরা আর মাটির হাঁড়ি, ভুট্টা, খেজুর রস, ঝিঙে, চিচিঙ্গে, চাউমিন ইত্যাদি রামগড়ে ঢুকতে দেব না। ওদের দেশের জিনিস ব্যান করলাম। ওদের এভাবেই জবাব দেব। ওদের আর কী কী জিনিস আমরা ঢুকতে দেব না, মিত্র তার একটা তালিকা তৈরি করে দেবে।’
সর্দারের কথা শুনে সকলে হাতাতলি দিয়ে উঠল। গব্বর বললেন, ‘আর একটা কথা সবাইকে মাথায় রাখতে হবে। এই দেশটাকে আমি এক নম্বর করে তুলব। সেটাই আমার টার্গেট। তোমরা সবাই রামগড়ে প্রত্যেকের ঘরে ঘরে যাও। ওদের মধ্যে দূরত্ব গড়ে তোল। সামাজিক দূরত্ব, আন্তরিক দূরত্ব। ধর্মের ভিত্তিতে জনসংখ্যা বানাও, বড় বড় মূর্তি বানাও। রামগড়ের আদর্শ হলেন রাম। যাও সবাই। ওদের বুঝিয়ে দাও, গব্বর সিংয়ের বিকল্প কেউ নেই। যদি থাকে, সে হল খুদ গব্বর। মনে রেখো যো ডর গয়া, উও মর গয়া। ভোট কব হ্যায়, কব হ্যায় ভোট?’
দৃশ্য ২
কালিয়া, সাম্ভা সহ গব্বর চ্যালারা রামগড়ের গ্রামে গ্রামে গিয়ে জনসংখ্যাপঞ্জির কাজ শুরু করে দিল। এতে দেশে অশান্তির বাতাবরণ তৈরি হল। বাধা দিতে এগিয়ে এলেন জয়, বীরু, বাসন্তী ও ঠাকুর বলদেব সিং সহ রামগড়ের বাসিন্দারা। জয় আর বীরু একসঙ্গে লড়াই করতে লাগলেন। ধর্নায় বসে অনশনও করলেন। একদিন রাতের অন্ধকারে গব্বর চ্যালাদের হানায় জয়ের মৃত্যু হল। কান্নায় ভেঙে পড়লেন বীরু। ঠাকুর সাব বললেন, ‘জয় ছিল দেশের বিজয় বা উন্নতির প্রতীক। জয়ের মৃত্যু মানে উন্নয়ন থমকে যাওয়া। গব্বর সিং সরকার এদেশের কিছু করতে পারবে না। ওরা দেশটাকে গোল্লায় নিয়ে যাচ্ছে। গব্বর বলেছে, দেশটাকে এক নম্বরে নিয়ে যাবে। এই দেশ এক নম্বর হবে হিংসায়, বিদ্বেষে, শিল্প-অর্থনীতির ভরাডুবিতে, শাসকের ব্যর্থতায় আর অমানবিকতায়। এই কষ্ট আর মানুষের অভাবের দিনে গব্বর দেশের কোনও কাজেই লাগবে না। বীরু, তুমি জেগে ওঠো। বীরু মানে হল বীরত্ব। আর বাসন্তী মানে হল সৌন্দর্য। বীরত্ব আর সৌন্দর্য, পুরুষ আর প্রকৃতি একসঙ্গে হাত ধরে সংগ্রমের পথে গেলে জয় আবার ফিরে আসবে।’
বীরু উঠে দাঁড়িয়ে চোখ মুছে বাসন্তীর হাত ধরে বললেন, ‘ঠিক বলেছেন ঠাকুরসাব। আপনি হলেন মানুষের মনের বিশ্বাস, শপথ। মানুষ কখনও ভেঙে পড়ে না। ভাঙার মধ্য থেকেই সে গড়ার স্বপ্ন দেখে। আপনি হলেন সেই স্বপ্ন। ওরা আপনার হাত দুটো কেটে নিয়ে ভেবেছিল মানুষের স্বপ্ন ভেঙে চুরমার করে দেবে। মানুষকে ভেড়া বানিয়ে তুলবে। তা ওরা পারেনি।’
ঠাকুরসাব বললেন, ‘সবকিছু মরে যায়, স্বপ্নটা মরে না।’
বাসন্তী বললেন, ‘চল বীরু, অনেক কাজ বাকি আছে আমাদের। ঠাকুরসাবের স্বপ্নই হল রামগড়ের প্রতিটা মানুষের স্বপ্ন।’
বীরু বাসন্তীর হাত ধরে গর্জন করে উঠলেন, ‘গব্বর, আমি এই লড়াইয়ে নামলাম। আমরা সবাই মিলে চুন চুন করে তোমার সব ব্যর্থতা চুরমার করে আবার দেশকে জয়ের পথে নিয়ে যাব। রামগড় আবার জগৎসভায় শ্রেষ্ঠ আসন লবে।’
ঠাকুরসাব বললেন, কাশীরাম, অনেক হয়েছে। আর ওদের জন্য কোনও সমবেদনা নেই। ওদের ফাঁদে আমরা আর পা দেব না। গব্বর‌ চ্যালারা এবার তোমরা যাও, গিয়ে তোমার সর্দারকে বলে দিও, রামগড়কে উচ্ছন্নে নিয়ে যাওয়া কোনও নেতাকে সাধারণ মানুষ আর পরোয়া করবে না। তোমাদের অনেক আশায় ভোট দিয়েছিলাম। কিন্তু তোমরা ব্যর্থ। মানুষের জীবন বেহাল করে দিয়েছো। আর কোনওদিন রামগড়ের মানুষ গব্বরকে একটি ভোটও দেবে না।’
গব্বর চ্যালারা বললেন, ভালো করে ভেবে দেখুন ঠাকুর। এসব কথা সর্দারের কানে গেলে তার ফল ভালো হবে না।’
ঠাকুরসাব বললেন, ‘চলে যাও তোমরা।’
গব্বর চ্যালারা মাথা নিচু করে ঘোড়ায় চড়ে সেখান থেকে চলে যায়। ব্যাকগ্রাউন্ডে গান বাজে, ‘সব কিছু মরে যায়, স্বপ্নটা মরে না।’
01st  July, 2020
দলভাঙানো রাজনীতি:
এ রাজ্যে নবতর সংযোজন

এই রাজ্যে দল ভাঙানোর অনৈতিক রাজনীতির যাঁরা প্রবর্তক, তাঁরা এখন হঠাৎ চিৎকার শুরু করলেন কেন? পাঁচিল ভেঙে পথ করেছে তৃণমূল। সেই পথ ধরেই বিজেপি আজ তৃণমূলের ঘর ভাঙছে।
বিশদ

নবান্ন দখলের ভোট
ও প্রেশার পলিটিক্স
হারাধন চৌধুরী

বিজেপি নেতৃত্ব ভাবছে, নাটক আর প্রেশার পলিটিক্স দিয়েই হাঁড়ির হাল মেরামত করে ফেলবে। কিন্তু মাস্টার স্ট্রোকের পলিটিক্সে আজও যিনি অদ্বিতীয় সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বুঝিয়ে দিয়েছেন, নন্দীগ্রাম ভাঙিয়ে একটি পরিবারের রাজনীতিকে আর একপাও এগতে দেবেন না তিনি। বিশদ

20th  January, 2021
তৃণমূল বনাম তৃণমূল (বি)
শান্তনু দত্তগুপ্ত

হতে পারে বাংলার ভোট প্রধানমন্ত্রীর কর্তৃত্ব কায়েমের অ্যাসিড টেস্ট। কিন্তু একুশ যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরও প্রেস্টিজ ফাইট! দাঁড়িপাল্লার একদিকে কেন্দ্র, আর অন্যদিকে মমতার সরকারকে রাখলে উন্নয়ন এবং বেনিফিশিয়ারির নিরিখেই বিজেপি অনেক নীচে নেমে যাবে। বিশদ

19th  January, 2021
বাজেটের আগে অর্থমন্ত্রী
আরও বিভ্রান্ত করলেন
পি চিদম্বরম

যে-দেশে আমরা আজ বাস করছি সেটা দিনে দিনে অচেনা এবং বিস্ময়কর হয়ে যাচ্ছে। এটা খুব অবাক ব্যাপার নয় কি গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত একটা সরকার তার পুরনো গোঁ ধরেই বসে থাকবে, বিশেষ করে দিল্লির ভয়ানক শীতের মধ্যেও কৃষকদের প্রতিবাদ আন্দোলন যখন ৫৬ দিনে পা দিয়েছে? বিশদ

18th  January, 2021
ভোটকে কলুষিত করলে
উচিত শিক্ষা দিতে হবে
হিমাংশু সিংহ

তৃণমূল ভাঙতে দশ মণ তেল পুড়িয়ে বিজেপি এখন বুঝতে পারছে শুধু অবিশ্বাসের উপর দাঁড়িয়ে বাংলা দখল প্রায় অসম্ভব! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দুর্বল করা যাচ্ছে না। বিশদ

17th  January, 2021
ভোটের আগে ‘গাজর’ ঝোলানো
বিজেপির ট্র্যাডিশন
তন্ময় মল্লিক

ভোটের মুখে ‘গাজর’ ঝোলানোটা বিজেপির ট্র্যাডিশন। ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটের আগে সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের জমা ‘বেআইনি অর্থ’ ফিরিয়ে এনে প্রত্যেককে ১৫ লক্ষ টাকা দেওয়ার কথা বলেছিল বিজেপি। ‘গাজর’ ঝোলানোর সেই শুরু। এবার সোনার বাংলা ও কৃষি সম্মান নিধির ‘গাজর’। বিশদ

16th  January, 2021
ক’দিনের জন্য বাঙালি হওয়া যায় না
মৃণালকান্তি দাস

মাস কয়েকের জন্য রবীন্দ্রনাথ, রামমোহন, শ্রীচৈতন্য... বাংলার মনীষীরাই হয়ে উঠছেন গেরুয়া বাহিনীর প্রচারের অনুঘটক। এটা স্পষ্ট, ‘বহিরাগত’ তকমা ঘোচাতে বিজেপিকে নিরুপায় হয়েই বাংলার মনীষীদের আশ্রয় খুঁজতে হচ্ছে। বাংলার মনীষীরা কোন দলে, ভোট-হাওয়ায় সেই ধন্দ উস্কে দিতে চাইছে বিজেপি। বিশদ

15th  January, 2021
বাঙালির অস্তিত্ব রক্ষা দেশের
জন্যও ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ
জিষ্ণু বসু

বাঙালি ভারতের নবজাগরণের কাণ্ডারীর ভূমিকা পালন করেছে। জীবন্ত জাগ্রত ভারতাত্মার পূজাবেদি ছিল বাংলা। ১৮৮২ সালে ঋষি বঙ্কিমচন্দ্র লিখলেন আনন্দমঠ উপন্যাস। বাঁধা হল ‘বন্দেমাতরম’ গান। দেশমাতৃকাকে দশপ্রহরণধারিণী দেবী দুর্গার সঙ্গে তুলনা করলেন সাহিত্যসম্রাট। বিশদ

14th  January, 2021
এই রাজ্যে মেয়েদের
ভোট ভাগ করা যাবে না
সন্দীপন বিশ্বাস

বিজেপি জানে, পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতা দখল করতে না পারলে তাদের সিএএ-এনআরসি সব ব্যর্থ হয়ে যাবে। সারা দেশে একজন ব্যক্তিত্বই তাঁদের সব ভুলভাল কাজকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে লড়াই জারি রাখতে পারেন। তাঁর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির কাছে মমতা নামটাই জুজুর মতো। বিশদ

13th  January, 2021
বিজেপির প্রচারে স্বামীজি
আছেন, কিন্তু অনুসরণে...?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

স্বামীজি বলতেন, ‘এমন ধর্ম চাই, যার মূল মন্ত্র হবে মানবপ্রেম। এমন ধর্ম চাই, যা মানুষকে, বিশেষ করে অবহেলিত, পদদলিত মানুষকে প্রত্যক্ষ মানুষ বলে প্রচার করবে। খালি পেটে ধর্ম হয় না। ক্ষুধার্ত মানুষের কাছে ধর্ম বা ঈশ্বর অর্থহীন।’ নাঃ... যে পরিব্রাজক এমন কথা বলতে পারেন, তাঁকে বিজেপি অন্তত অনুসরণ করে না। বিশদ

12th  January, 2021
বিবেকানন্দের স্বপ্নের
বাংলা আবার গঠিত হবে
জগৎপ্রকাশ নাড্ডা

এক নতুন ভারতবর্ষের স্বপ্ন দেখেছিলেন স্বামীজি, যেখানে দারিদ্র্যের মোচন এবং চেতনার উন্মেষ ঘটবে। এই কাজে প্রয়োজন বিপুল পরিমাণ যুবশক্তি। বিশদ

12th  January, 2021
মহামারী, ভ্যাকসিন
এবং বিতর্ক
পি চিদম্বরম

মহামারী বিদায় নিচ্ছে বলে মনে হয়, তবে এখনও বিদায় হয়নি। ভ্যাকসিন আসছে বলে মনে হয়, তবে বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছয়নি। কিন্তু একটা জিনিস বরাবর একজায়গায় রয়ে গিয়েছে, সেটা হল বিতর্ক! বিশদ

11th  January, 2021
একনজরে
নিজেদের দাবি আদায়ে আরও বড় আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বিক্ষোভরত কৃষকরা। আগামী ২৬ জানুয়ারি, সাধারণতন্ত্র দিবসের আগেই একপ্রকার নজিরবিহীনভাবে দিল্লি-হরিয়ানা সীমানায় আয়োজন করা হতে পারে ‘কিষান সংসদ’। ...

দুর্গাপুজো থেকে রামনবমী, গত কয়েক বছরে বাঙালির বিভিন্ন উৎসবেও লেগেছে রাজনৈতিক রং। পুজো অথবা উৎসবে কোন দল কতটা আন্তরিক, তা নিয়ে দড়ি টানাটানি আকছার চোখে পড়ছে।   ...

৪০টি শ্রম আইনকে একত্রিত করে চারটি লেবার কোডে পরিণত করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। ১ এপ্রিলের আগেই সারা দেশে কার্যকর করা হতে পারে সেই চার লেবার কোড। এমনটাই খবর শ্রমমন্ত্রকের শীর্ষ সূত্রে। ...

গয়নার দোকানের উদ্বোধনে প্রয়াত ফুটবল তারকা মারাদোনাকে এনে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন কেরলের রত্ন ব্যবসায়ী ববি চেম্মায়ুর। আবারও তিনি খবরের শিরোনামে। এবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যবহৃত রোলস রয়েস ফ্যান্টম গাড়িটির নিলামে অংশ নেওয়ার জন্য। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

 বিদ্যার্থীরা পড়াশুনার ক্ষেত্রে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পাবে। নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস বাড়বে। অতিরিক্ত চিন্তার জন্য উচ্চ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯০১ - টেলিফোনের উদ্ভাবক ইলিশা গ্রে-র মৃত্যু
১৯৪৫- স্বাধীনতা সংগ্রামী রাসবিহারী বসুর মৃত্যু
১৯৫০- ইংরেজ সাহিত্যিক জর্জ অরওয়েলের মৃত্যু
১৯৬৮- চারটি হাইড্রোজেন বোমা সহ গ্রিনল্যান্ডে ভেঙে পড়ল আমেরিকার বি-৫২ যুদ্ধবিমান
১৯৭২ - মনিপুর, মেঘালয় ও ত্রিপুরা ভারতের পূর্ণ রাজ্যে পরিণত হয়।
১৯৮৬- অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের জন্ম 
২০০৮ - কালো সোমবার হিসেবে বিশ্বব্যাপী শেয়ার বাজারে প্রতিষ্ঠিত। এফটিএসই ১০০-এর সূচক একদিনে সবচেয়ে বড় পতন ঘটে। ইউরোপীয় স্টক এক্সচেঞ্জগুলো ১১ সেপ্টেম্বর, ২০০১ - এর পর সবচেয়ে খারাপ করে শেষ হয়। এশিয়ার শেয়ার মার্কেটগুলোর সূচক ১৪% কমে যায়।



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.২৯ টাকা ৭৪.০০ টাকা
পাউন্ড ৯৮.১৩ টাকা ১০১.৫৭ টাকা
ইউরো ৮৭.২৫ টাকা ৯০.৪৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫০,০০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,৪৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮,১৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ মাঘ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, অষ্টমী ২৩/২০ দিবা ৩/৫১। অশ্বিনী নক্ষত্র ২৩/৪ দিবা ৩/৩৬। সূর্যোদয় ৬/২২/৪২, সূর্যাস্ত ৫/১৩/১০। অমৃতযোগ রাত্রি ১/৭ গতে ৩/৪৪ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৭/৪৯ মধ্যে পুনঃ ১০/৪৩ গতে ১২/৫২ মধ্যে। বারবেলা ২/২৯ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪৮ গতে ১/২৭ মধ্যে। 
৭ মাঘ ১৪২৭, বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, অষ্টমী দিবা ৩/৪৪। অশ্বিনী নক্ষত্র অপরাহ্ন ৪/২। সূর্যোদয় ৬/২৬, সূর্যাস্ত ৫/১২। অমৃতযোগ রাত্রি ১/৭ গতে ৩/৪২ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৭/৪৬ মধ্যে ও ১০/৪৩ গতে ১২/৫৬ মধ্যে। কালবেলা ২/৩০ গতে ৫/১২ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৪৯ গতে ১/২৮ মধ্যে।
৭ জমাদিয়স সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আইএসএল-এ আজ মোহন বাগান ১ : ০ গোলে হারাল চেন্নাইয়ানকে 

09:30:58 PM

আইএসএল: মোহন বাগান ১ চেন্নাইয়ান ০ (৯০ মিনিট) 

09:24:48 PM

আইএসএল: মোহন বাগান ০ চেন্নাইয়ান ০ (প্রথমার্ধ)

08:24:23 PM

পুনের অগ্নিকাণ্ডে পাঁচজনের দেহ উদ্ধার
পুনের সিরাম ইনস্টিটিউটের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় পাঁচজনের দেহ উদ্ধার হয়েছে বলে ...বিশদ

06:12:59 PM

বর্ধমান ও আসানসোলে বিজেপি-র গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে
বর্ধমান শহর ও আসানসোলে একসঙ্গে দু’জায়গায় প্রকাশ্যে এল বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। ...বিশদ

05:12:00 PM

পুনের সিরাম ইনস্টিটিউটে আগুন
অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটল দেশের বৃহত্তম ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক সংস্থা  পুনের সিরাম ...বিশদ

03:20:00 PM