Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

শত্রুপক্ষের সব রণনীতি এবং নেতৃত্বের ভাবধারণা জানা প্রয়োজন
শুভাগত জোয়ারদার

চীনের মহান রণনীতি বিশেষজ্ঞ সান তজু তাঁর বিখ্যাত ‘দ্য আর্ট অব ওয়ার’ বইতে বলেছেন—‘যদি তুমি তোমার শত্রু এবং নিজেকে জানো, তবে শতবার যুদ্ধেও ফল নিয়ে শঙ্কিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। যদি তুমি নিজেকে জানো কিন্তু শত্রুকে নয়, তবে প্রতিটি যুদ্ধ জয়ের পাশাপাশি পরাজয়ের গ্লানিতেও তোমাকে ভুগতে হবে। যদি তুমি না শত্রু, না নিজেকে জানো তবে প্রতিটি যুদ্ধে তোমায় জখম হতে হবে।’
গত ১৫ জুন গলওয়ান ভ্যালিতে ঘটে যাওয়া বর্বর-কাণ্ড গোটা বিশ্বের সবরকম সংবাদমাধ্যমই শিরোনামে যথাসম্ভব তুলে ধরেছে। ভারত-চীন সীমান্ত নিয়ে কয়েক দশকেরও বেশি সময় ধরে চলা বিতর্ক নিয়ে বহু মতামত রয়েছে। ‘সুপার পাওয়ার’ হিসাবে চীনের প্রতিষ্ঠা পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা নিয়ে কোনও গোপনীয়তা নেই। তবে করোনা ভাইরাসের উৎপত্তিস্থল হিসাবে চিহ্নিত চীন গত কয়েকমাস ধরে গোটা বিশ্বের বহু দেশের মারাত্মক চাপের সম্মুখীন হচ্ছে। চীনের অভ্যন্তরীণ অর্থনীতি ব্যাপকভাবে নিম্নমুখী হচ্ছে। চীনের জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরো বা এনবিএসের দাবি, ১৯৯২ সালের পর চীনের জিডিপির হার চলতি আর্থিক বছরে সবচেয়ে কমে ৬.২ শতাংশ হয়েছে। কনফারেন্স বোর্ড ইকোনমিক রিসার্চ গ্রুপের মতো সংস্থার থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী এই হার কমে ৪.১ শতাংশ হয়েছে। ২০১৩ সালে ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’ (ওবিওআর) নামে চীন সরকার বিশ্বব্যাপী যে উন্নয়নমূলক নীতি চালু করে তাতে দুনিয়ার প্রায় ৭০টি দেশের পরিকাঠামোগত উন্নয়ন এবং বিনিয়োগের লক্ষ্য নেওয়া হয়েছিল। কোভিড পরবর্তী সময়ে এর সদস্য দেশগুলি এখন গম্ভীরভাবে তা পর্যালোচনা করে দেখছে। উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, ওবিওআর এর প্রধান সদস্য দুই দেশ ইরান এবং ইতালি ভৌগোলিকভাবে চীনের থেকে অনেক দূরে থাকলেও সেখানে কোভিডের অতিমারী আছড়ে পড়েছে। চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডরের (সিপিইসি) আওতায় পাকিস্তানের গাওয়াদর বন্দর পর্যন্ত পরিকাঠামো উন্নয়ন করার যে নীতিগত দৃষ্টিভঙ্গি ছিল তার উল্লেখযোগ্য কোনও বহিঃপ্রকাশ দেখা যাচ্ছে না।
চীনের স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে হংকং এবং তাইওয়ান সরকারের অসন্তোষ গোটা বিশ্বের সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনা ভাইরাসের প্রবর্তক হিসাবে চীনকে খোলাখুলি হুমকি দিয়েছেন। অস্ট্রেলিয়া সরকার উহানের ল্যাবরেটরি নিয়ে তদন্তের দাবিতে সরব হয়েছে। বহু দেশ থেকে চীনা কোম্পানিগুলিকে তাড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে। আফ্রিকা এবং এশিয়ার দেশগুলি থেকে চীনা ফার্মগুলির বহু চুক্তি বাতিল করিয়ে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছে তারা। সবশেষে ২০ মে থেকে তিনটি মার্কিন যুদ্ধবিমানবাহী রণতরীকে (ইউএসএস আমেরিকা, ইউএসএস রুজভেল্ট, ইউএসএস রেগন) দক্ষিণ চীন সাগরের মাঝামাঝি অবস্থানে রেখে দিয়ে চীনকে সম্পূর্ণ একঘরে করে দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।
এই মুহূর্তে কোনও দেশকে চীনের বন্ধু বলে সম্বোধন করা কঠিন। পাকিস্তান, নেপাল এবং অন্যান্য যে অল্প কয়েকটা দেশ চীনের চাটুকার হয়ে রয়েছে তাদের বন্ধু বলে ডাকা যায় না। এত কিছুর মধ্যেও কোভিডের পাশাপাশি অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ নিয়েও চীনের প্রধানমন্ত্রী লাই শিয়াং এবং প্রেসিডেন্ট জি জিনপিংয়ের মধ্যে মারাত্মক মতপার্থক্য রয়েছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে। লাই শিয়াং বাণিজ্যের দিক থেকে একজন অর্থনীতিবিদ এবং চীনা অর্থনীতিতে আর্থিক সংস্কার তাঁরই মস্তিষ্কপ্রসূত ভাবনা। তিনিই এর প্রধান নেপথ্য কারিগর বলে মনে করা হয়। সরকারের প্রশাসনে তিনি সর্বাধিক ক্ষমতা ধরে রেখেছেন। প্রেসিডেন্ট জি জিনপিং দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ব্যক্তি। চীনা সশস্ত্র বাহিনীতে তিনিই সর্বাধিনায়ক। কিছু মানুষ মনে করেন মাও জেডংয়ের পর জি জিনপিংই দেশের দ্বিতীয় নেতা।
তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে উচ্চাকাঙ্ক্ষী ড্রাগন এক কানা সরু গলিতে আঘাত করেছে বলে মনে হচ্ছে। অতিমারী এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্কের বিষয়টি দুর্বলভাবে পরিচালনা করায় চীন সরকারের অভ্যন্তরে মারাত্মক চাপ রয়েছে। গোটা বিশ্ব যদি তাদের একঘরে করে দেয় তবে চীনা জনসাধারণের বিরাট অর্থনৈতিক মন্দায় পড়ার শঙ্কা রয়েছে। এখন সব ক্ষেত্রে কার্যত রপ্তানি ভিত্তিক যে অর্থনৈতিক পরিকাঠামো চীন গড়ে তুলেছে বর্তমান বিশ্বের মনোভাব তাতে প্রভাব ফেলবে। গোটা বিশ্বে নিজের ইচ্ছাকে প্রয়োগ করতে গেলে সামরিক দিক থেকে চীনকে আমেরিকা অথবা ন্যাটো বাহিনীর ক্ষমতার স্তর পর্যন্ত উঠে আসতে হবে। সুতরাং জনসাধারণের দৃষ্টি ঘুরিয়ে দিতে অথবা কিছু মানুষের সমর্থন পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি করতে গেলে জিনপিং প্রশাসনের কিছু একটা করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এরকম পরিস্থিতিতে কোন দেশকে বিরোধী পক্ষ হিসেবে বেছে নেওয়া যায়, তা একদমই স্পষ্ট।
১৩টি দেশের সঙ্গে সীমান্তের অংশীদারি রয়েছে চীনের। তবে ভারতের সঙ্গে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা ইচ্ছে করে চিহ্নিত করেনি চীন। সর্বোপরি, ২০২০-র
আর ১৯৬২ সালের ভারত এক নয়। ভারতের
জাতীয় নীতির আমূল পরিবর্তন এবং অর্থনীতির উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন হয়েছে। হাতাহাতি এবং একটি গুলিও না চালিয়ে পাথর ছোঁড়াছুঁড়ি করে যুদ্ধের পরিণতি কী হতে পারে এবং অর্থনীতি তাতে কতটা প্রভাবিত হবে সে ব্যাপারে দু’দেশই ওয়াকিবহাল। তবে হঠাৎ কি এমন পরিবর্তন ঘটল? কাঁটা লাগানো লাঠি এল কোথা থেকে? এটা নির্ঘাত ঘটনাচক্র নয়, বরং সুপরিকল্পিত। সান তজু-র আরও একটি রণকৌশল হল-বিস্ময়ের উপাদান তৈরি করা।
সেটাই পিএলএ-র (পিপলস লিবারেশন আর্মি) ওয়েস্টার্ন কমান্ডের নয়া সেনা কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল জু কুইলিং নিয়ে এসেছে।
গত ৫ জুন চীন-ভারত সীমান্তে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে জি জিনপিং নিজের বাছাই করা নতুন সেনা কমান্ডার নিয়োগের কথা ঘোষণা করেন। জেন জু চীনা সেনাবাহিনী পিএলএ-র এক উদীয়মান তারকা। ২০১২ সালে অন্যান্যদের সঙ্গে সবচেয়ে তরুণ এই সেনা অফিসারকেও জেনারেল পদে উন্নীত করেন জি জিনপিং। আগের কমান্ডারকে সরিয়ে বয়সে ৫ বছরের ছোট ৫৭ বছর বয়সি এই লেফটেন্যান্ট জেনারেলকে এই পদে উত্তরাধিকারী করা হয়। সেনা ছাড়াও বিমানবাহিনীর কাজেও তিনি বিশেষজ্ঞ। এর আগে তিনি চারটি অন্য অভিযানে নেতৃত্ব দিয়েছেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল জু চীনের ভূতপূর্ব ৫৪ পিএলএ বাহিনীর চিফ অব স্টাফ বা প্রধান ছিলেন। পিএলএ-র এই ৫৪তম সেনাদলটি তিব্বতীয় অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে দমন অভিযানে মুখ্য ভূমিকা নিয়েছিল। তিয়েনানমেন স্কয়্যারে বিক্ষোভ দমনেও এই বাহিনীর ভূমিকা ছিল। চীন-ভারত সীমান্ত বিতর্ক নিয়ন্ত্রণ করে জেনারেল জু যদি তাঁর প্রেসিডেন্টকে সন্তুষ্ট করতে পারেন তবে তাঁর সামনে নিশ্চিত উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রয়েছে। ওই দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার অন্তত দিন দশেক আগে ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কমান্ডে চীন সবচেয়ে অভিজ্ঞ এবং ‘হিংস্র’ জেনারেলকে মোতায়েন করেছিল। ১৫ জুন, ২০২০-র ঘটনা ইতিহাসে খোদাই করা থাকবে। এতে বিজয় না পরাজয় হল তা সময়ই বলবে। কিন্তু চীনা সেনাবাহিনীর নেতৃত্ব বদলের সঙ্গে সঙ্গে তাদের সীমান্তে রণনীতি পরিবর্তন হতে পারে, তা আমাদের দেশের সেনা কর্তৃপক্ষ নেতৃত্ব আঁচ করতে পারেনি। সেনাবাহিনী এবং জাতীয় নিরাপত্তার সর্বোচ্চ স্তরে এটা বিচার করাই নীতিনির্ধারকদের এটি এখন গুরুত্বপূর্ণ কাজ।
সান তজুর ‘দ্য আর্ট অব ওয়ার’ বইয়ের উল্লিখিত রণনীতি অনুযায়ী চীনা সেনারা প্রশিক্ষিত। সেই ড্রাগনকে যদি আমাদের বাগে আনতে হয় এবং তাদের বিরুদ্ধে জয়ী হতে হয়, তাহলে সান তজু-র নীতি মেনেই তাদেরকে প্রত্যাঘাতই করতে হবে। এই কারণেই নিজেকে জানার পাশাপাশি শত্রুপক্ষের সব রণনীতি এবং নেতৃত্বের ভাবধারণাকে খুঁটিয়ে জানা উচিত। আশা করি, গলওয়ানে আমাদের বীর সেনাদের উৎসর্গীকৃত ত্যাগ থেকে সঠিক শিক্ষালাভ হবে এবং তা সঠিক দিশা দেখাবে।
ভারতীয় বায়ুসেনার অবসরপ্রাপ্ত গ্রুপ ক্যাপ্টেন
তথা জয়েন্ট ডিরেক্টর এয়ার ডিফেন্স অপারেশনস (সুখোই-৩০)
25th  June, 2020
মূল্যবৃদ্ধির যন্ত্রণা: আত্মনির্ভরতার নতুন থিম সং
শান্তনু দত্তগুপ্ত

সেপ্টেম্বর ১, সাল ২০১৩। দিল্লিতে বিজেপির বাইক র‌্যালি। প্রতিবাদ চলছে পেট্রল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে... ঠুঁটো কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে। সেই বাইক মিছিল সেদিন রওনা দিয়েছিল দিল্লির তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিতের বাসভবনের উদ্দেশে।
বিশদ

দায়িত্ব নিন, আলোচনা
করুন, প্ল্যান বানান
পি চিদম্বরম

টিকাকরণ নিয়ে যে বিশৃঙ্খলা হল, তা ইতিহাসে লেখা থাকবে। ৭ জুন, টেলিভিশন ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দু’টো ভুল শুধরে নিয়েছেন। আমি মনে করি, এটাই তাঁর ভুল স্বীকার করে নেওয়ার কায়দা।
বিশদ

14th  June, 2021
মমতার নির্দেশে
অভিষেকের মাস্টারস্ট্রোক
হিমাংশু সিংহ

এতদিন বাংলার রাজনীতিতে মাস্টারস্ট্রোক কথাটা শুধু জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই সমার্থক ছিল ষোলোআনা। কিন্তু এখন তার আর এক দাবিদার উপস্থিত। পুত্রসম অভিষেক।
বিশদ

13th  June, 2021
সেলিব্রেটি থেকে সংগঠক,
রাজনীতির নতুন ধারা
তন্ময় মল্লিক

অনেকেই বলে থাকেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যতদিন, তৃণমূল ততদিন। তারপর পার্টিটাই আর থাকবে না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার জবাবও দিয়েছেন। তিনি বহুবার বলেছেন, ‘যাঁরা ভাবছেন, আমি চলে গেলে দলটা উঠে যাবে, তাঁরা ভুল ভাবছেন। তৃণমূলের পরবর্তী প্রজন্ম তৈরি।’ এতদিন তিনি যে কথা মুখে বলতেন, এবার সেটা করে দেখাচ্ছেন।
বিশদ

12th  June, 2021
পুরুষ আধিপত্যের ভিড়ে
সফল শাসক দুই বাঙালি নারী
সমৃদ্ধ দত্ত

রাজনীতির হিসেব-নিকেশ বাদ দিয়ে নিছকই জাতিগত আকাঙক্ষার তাগিদে ২০২৪ সালের দিকে আমরা বাঙালিরা অত্যন্ত আগ্রহ নিয়ে লক্ষ করব এই জাতিটির জার্নিতে সত্যিই কি একটি নতুন ইতিহাস রচিত হবে? একদা একসঙ্গে থাকা দু’টি পাশাপাশি দেশের দুই প্রধানমন্ত্রীই কি বাঙালি নারী হবেন? বিশদ

11th  June, 2021
অবলুপ্তির আত্মঘাতী
পথে সিপিএম
মৃণালকান্তি দাস

গোটা দেশের লোক যখন মোদি-মমতার মরণপণ দ্বৈরথ দেখছে, সিপিএম তখন চোখ বন্ধ রেখে বলেছে, ও-সব ‘সেটিং’। আসলে দল তো একটাই, তার নাম বিজেমূল। ছায়ার সঙ্গে এই পুরো যুদ্ধটাই করা হয়েছে বিজেপি-তৃণমূল বাইনারি ভাঙার নাম করে। ফল যা হওয়ার তাই হয়েছে। বিজেমূল নামক এই বকচ্ছপ ধারণাটাকে জনতা স্রেফ ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলে দিয়েছে।
বিশদ

10th  June, 2021
দেশ নিয়ে মোদির ভাবার
এত সময়ই নেই
সন্দীপন বিশ্বাস

মোদির জনপ্রিয়তার পাড় ভাঙছে। অন্য পাড়ে ক্রমেই জেগে উঠছে মমতা নামের এক নতুন সবুজ, স্বপ্নের ভূমি। সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে চোখে চোখ রেখে পাঙ্গা লড়ার শক্তি তিনি আপন ক্ষমতাবলে অর্জন করেছেন। বিশদ

09th  June, 2021
হোক প্রোপাগান্ডা!
শান্তনু দত্তগুপ্ত

হোক প্রোপাগান্ডা! মন্ত্র লিখতে হবে, কৃষকের জন্য এক। শ্রমিকের জন্য এক। শিক্ষকের জন্য আর এক। কমোন মন্ত্র অবশ্য একটাই—আচ্ছে দিন। ভ্যাকসিন নীতির ঠিকঠিকানা নেই, রাজ্য সরকার প্রাপ্য টাকা পাচ্ছে না, হাসপাতালে বেড নেই, পেট্রল-ডিজেল রোজ ঊর্ধ্বমুখী, জিনিসপত্রের দাম আকাশছোঁয়া... আচ্ছে দিনের ভালো নমুনা বটে।
বিশদ

08th  June, 2021
হাঁড়ির হাল নিয়ে বৃহৎ,
ক্ষুদ্র দু’পক্ষই একমত
পি চিদম্বরম

সার্বিকভাবে পুরো জাতি এবং গড়পড়তা ভারতবাসী, ২০১৭-১৮ সালের যে পজিশন ছিল তারও পিছনে পড়ে গিয়েছে। অর্থনীতিটা ঘেঁটে গিয়েছে এবং তাতে ক্ষতেরও সৃষ্টি হয়েছে। এর প্রথম কারণ—বিপর্যয় সৃষ্টিকারী নীতিগুলো (যেমন বিমুদ্রাকরণ, বিশৃঙ্খল জিএসটি)। দ্বিতীয় কারণ—কোভিড-১৯। আর তৃতীয় কারণ—অর্থনীতি সামলাতে সরকারের লেজেগোবরে অবস্থা। 
বিশদ

07th  June, 2021
এক আমলা যখন বাঙালির
আত্মমর্যাদার প্রতীক!
হিমাংশু সিংহ

মুখ্যসচিব হিসেবে তিনি কার নির্দেশ মানতে বাধ্য? আলাপনবাবুর দোষটা কোথায়? তিনি তো কেন্দ্রের ক্যাবিনেট সচিব নন, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব। আসলে কেন্দ্র ও রাজ্যের ক্ষমতা ও এক্তিয়ারের এই সীমাহীন টানাপোড়েনের মধ্যে দাঁড়িয়ে একজন মুখ্যসচিবের করণীয় কী, সেটাই কোটি টাকার প্রশ্ন। বিশদ

06th  June, 2021
আলাপনেই শেষ নয়, ফের
আসবে নতুন কোনও ইস্যু
তন্ময় মল্লিক

লোকসভার ভোটের দেরি থাকলেও মোদি-বিরোধী সলতে পাকানো শুরু হয়েছে। এই মুহূর্তে সেই লড়াইয়ের মুখ মমতা। তাই মোদি-অমিত শাহ জুটি তাঁকে চাপে ফেলতে মরিয়া। অস্ত্র একটাই, বিতর্ক তৈরি। তারজন্য শিষ্টাচার, প্রোটোকল, বিপর্যয় মোকাবিলা আইন, সিবিআই- যা হোক একটা পেলেই হল। বিশদ

05th  June, 2021
কেন আজ ধ্বংসের
মুখোমুখি দীঘা উপকূল
মৃন্ময় চন্দ

দীঘার পূর্ব পরিচিতি ছিল ‘বীরকুল’ নামে। ১৭৮০ সালে দীঘার সৌন্দর্যে মুগ্ধ ওয়ারেন হেস্টিংস তাঁর স্ত্রীকে লেখা চিঠিতে পুবের ‘ব্রাইটন’ বলে দীঘাকে উল্লেখ করেছিলেন। ব্রিটিশ পর্যটক ‘জন ফ্রাঙ্ক স্মিথ’ ১৯২৩ সালে দীঘার সৌন্দর্যে মোহিত হয়ে প্রথম বিশ্ববাসীর কাছে মেলে ধরলেন তার ভুবনমোহিনী ঐশ্বর্যকে। বিশদ

05th  June, 2021
একনজরে
নন্দীগ্রামের গঙ্গামেলার মাঠে হলদি নদীতে ট্রলারডুবির ঘটনায় নিখোঁজ তিনজনের দেহ উদ্ধার হল সোমবার। এদিন ঘটনাস্থল থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে কাঁটাখালি ও ১০কিলোমিটার দূরে জেলিংহাম এলাকায় ...

আগামী পয়লা জুলাই পর্যন্ত রাজ্য সরকারি অফিসে ২৫ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ চালানো হবে। সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, অফিস কর্তৃপক্ষ কর্মীদের রোস্টার তৈরি করে তাঁদের আসার জন্য পরিবহণের ব্যবস্থা করবে। ...

বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী সামসুন্নাহার স্মৃতি ওরফে পরীমণিকে ধর্ষণ ও খুনের চেষ্টার অভিযোগে এক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করল পুলিস। ধৃতের নাম নাসির মেহমুদ। ...

দু’মাস আগের কথা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তুফান তুলে দেওয়াই বিজেপি’র একনিষ্ঠ নেতা-কর্মী হওয়ার অন্যতম মাপকাঠি ছিল। সময়ের ফেরে সেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন নেতাদের পোস্ট করাই কার্যত ‘ব্যান’ করে দিল বিজেপি নেতৃত্ব। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর ভালো যাবে না। সাংসারিক কলহ বৃদ্ধি। প্রেমে সফলতা। শত্রুর সঙ্গে সন্তোষজনক সমঝোতা। সন্তানের সাফল্যে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৬: জাপানে সুনামিতে ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু
১৯৫০: শিল্পপতি লক্ষ্মী মিত্তালের জন্ম
১৯৫৩: চীনের প্রেসিডেন্ট জি জিনপিংয়ের জন্ম
১৯৬০: বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হয়
১৯৬৯: জার্মানির গোলকিপার অলিভার কানের জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৪৩ টাকা ৭৪.১৪ টাকা
পাউন্ড ১০১.৬৬ টাকা ১০৫.১৭ টাকা
ইউরো ৮৭.০৬ টাকা ৯০.২৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
14th  June, 2021
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯, ১০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬, ৬০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭, ৩০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭২, ০০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭২, ১০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
14th  June, 2021

দিন পঞ্জিকা

৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১। পঞ্চমী ৪৫/৪ রাত্রি ১০/৫৭। অশ্লেষা নক্ষত্র ৪১/৫৬ রাত্রি ৯/৪২। সূর্যোদয় ৪/৫৫/৩৮, সূর্যাস্ত ৬/১৮/১২। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৬ মধ্যে পুনঃ ৯/২৩ গতে ১২/৩ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৭ গতে ৪/৩১ মধ্যে। রাত্রি ৭/০ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৭ গতে ২/৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ২/৪৪ গতে ৩/৩৭ মধ্যে পুনঃ ৪/৩১ গতে ৫/২৪ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৫ গতে ৯/৫০ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৬ মধ্যে পুনঃ ১/১৭ গতে ২/৫৭ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৩৮ গতে ৮/৫৮ মধ্যে। 
৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১। পঞ্চমী রাত্রি ৭/৩৬। অশ্লেষা নক্ষত্র রাত্রি ৭/৭। সূর্যোদয় ৪/৫৫, সূর্যাস্ত ৬/২০।  অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে ও ৯/২৭ গতে ১২/৮ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৪/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৫ মধ্যে ও ১২/২ গতে ২/৯ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ২/৪৮ গতে ৩/৪২ মধ্যে ও ৪/৩৫ গতে ৫/২৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৩০ গতে ৯/৫৫ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৭ মধ্যে ও ১/১৮ গতে ২/৫৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪০ গতে ৮/৫৯ মধ্যে। 
৪ জেল্কদ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজ সন্ধ্যায় দিল্লি যাচ্ছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার 

11:45:00 AM

এই বছরেও স্থগিত মাহেশের রথযাত্রা
 

গতবারের মতো এই বছরেও করোনা পরিস্থিতির জেরে বাতিল হয়ে গেল ...বিশদ

11:33:24 AM

২৬৪ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

10:49:32 AM

মন্ত্রীদের সঙ্গে  বৈঠকে মোদি
প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণমন্ত্রী নীতিন গাদকারি সহ বেশ ...বিশদ

10:30:00 AM

৯০ শতাংশ কার্যকরী নোভাভ্যাক্স: রিপোর্ট
করোনার বিভিন্ন স্ট্রেইনের বিরুদ্ধে নোভাভ্যাক্স ভ্যাকসিন অত্যন্ত কার্যকরী। সংস্থার তরফে ...বিশদ

10:15:08 AM

সীমান্ত বন্ধের সময়সীমা বাড়াল বাংলাদেশ
করোনা পরিস্থিতির ক্রমশ অবনতির জেরে ভারতের সঙ্গে থাকা সীমান্তগুলি বন্ধ ...বিশদ

10:14:20 AM