Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

নেপাল: কলকাত্তা কালীর শরণাপন্ন রাজনাথ
কুমারেশ চক্রবর্তী

ছোটবেলায় আমরা ‘ম্যাপ-ম্যাপ খেলা’ খেলতাম। দাদাদের  বাতিল ম্যাপের ওপর লাল পেন্সিল দিয়ে একটা ক্রসহচিহ্ন এঁকে জায়গাটা দখল করতাম, শর্ত একটাই, জায়গাটার নাম বলতে হবে। এইভাবে আমরা কত নগর, রাজ্য, দেশের মালিক হয়েছি!
অনেকটা যেন সেই খেলার ছলেই নেপালের ওলি সরকার হঠাৎ নতুন মানচিত্র করে ভারতের লিম্পিয়াধুরা, কালাপানি ও লিপুলেখকে নিজেদের সীমান্তভুক্ত করে নেপালের অঞ্চল বলে ঘোষণা করে। সেইমতো গত ১৩ জুন, ২০২০ নেপাল পার্লামেন্ট নতুন মানচিত্রে সম্মতি দেয়। সর্বসম্মতিক্রমে সংবিধান সংশোধন বিলটি পাস করে। যদিও গত ৩১ মে এই মানচিত্র বদলের খসড়া পেশের সময় পার্লামেন্টের এক সদস্য সরিতা গিরি একটি সংশোধনী প্রস্তাবে এ ব্যাপারে ভারতের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দেন। কিন্তু স্পিকার অগ্নিপ্রসাদ সাপকোটা নিজ ক্ষমতাবলে প্রস্তাবটি বাতিল করে দেন। চীনের প্ররোচনায় ও পরামর্শে নেপাল সরকার চরম পথ গ্রহণ করতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করে না।
ভারত-নেপাল সম্পর্ক যুগ যুগ ধরে প্রতিষ্ঠিত। ছোট্ট দেশটির সামরিক এবং আর্থিক ক্ষমতা অত্যন্ত সীমিত। কিন্তু আধুনিক ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নেপালের গুরুত্ব ও মর্যাদা অপরিসীম। তাই চীন দীর্ঘদিন ধরে নেপালকে গ্রাস করার চেষ্টা করছে। এতদিন তা সফল হয়নি। কারণ, ভারত ও নেপালের সম্পর্ক অত্যন্ত আন্তরিক এবং গভীর বিশ্বাসের ওপর প্রতিষ্ঠিত ছিল। তাই দেশ-বিদেশে এবং আন্তর্জাতিক-রাজনৈতিক মঞ্চে নেপাল সর্বদাই ভারতের পক্ষে থেকেছে, ভারতের পক্ষে সোচ্চার হয়েছে। অপরদিকে ভারতও নেপালের স্বার্থরক্ষায় ও উন্নয়নে সার্বিক সাহায্য সহযোগিতা করেছে। নেপালের রাস্তাঘাট, পরিবহণ, পরিকাঠামো নিজ দায়িত্বে আধুনিক ও বৈজ্ঞানিকভাবে গড়ে দিয়েছে। তাছাড়া শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খাদ্য, জ্বালানির তেল প্রয়োজন মতো সরবরাহ করেছে। এই বন্ধুত্ব আরও গাঢ় হয়েছে উভয় দেশের সংস্কৃতিগত মিলের জন্য।
উভয় দেশের ঐতিহ্য উন্নত। উভয়েরই আদর্শ শান্তি ও সহযোগিতার ওপর প্রতিষ্ঠিত। উভয় দেশের আধ্যাত্মিক চর্চা, পূজা-অর্চনা, ধর্ম প্রায় একই। তাই উভয় দেশের আসা-যাওয়া, মুদ্রা এবং ভাষা পারস্পরিক ঘনিষ্ঠতার প্রতীক। পারস্পরিক সম্পর্কের এই বন্ধনে কিছু অদ্ভুত নিয়ম প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। যেমন ভারত ও নেপাল সরকার দু’দেশের সেনাপ্রধানকেই নিজ নিজ দেশের ‘সাম্মানিক সেনাপ্রধান’ হিসেবে নিয়োগ করে। গত বছরেই নেপালের নবনিযুক্ত সেনাপ্রধানকে ভারতের সাম্মানিক জেনারেল পদ প্রদান করা দেওয়া হয়। আন্তরিক সম্পর্ক ও বিশ্বাসকে ভেঙেচুরে নেপাল এমন একটা বালখিল্যেরর মতো সিদ্ধান্ত নিল, যা বেদনার। তার মানে চীনের নির্দেশ নীরবে, বিনাপ্রতিবাদে পালন করাই এখন ওলি সরকারের নিয়তি।
কয়েক দশক ধরে চীন নেপালে অনুপ্রবেশে সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের রূপরেখা তৈরি করেছিল। প্রথম দিকে চীন নেপালের মাওবাদী-জঙ্গি আন্দোলনকে অর্থ, অস্ত্র, আশ্রয় দিয়েছিল। তারপর অতি জঙ্গিনেতা প্রচণ্ডের উত্থানে চীন হাতে চাঁদ পায়। তখন থেকেই সরাসরি নেপালের শাসনভার দখল করে একটি পুতুল সরকার গঠনে তৎপর হয়। মাওবাদী নেতা প্রচণ্ড প্রধানমন্ত্রী হওয়ায় চীনের ষড়যন্ত্র দ্রুত সফল হয়। কিন্তু চৈনিক পুতুল প্রচণ্ডের অযোগ্যতায় সরকার বেশিদিন টেকেনি। তখন চীন তার পরিকল্পনায় কিছু বদল ঘটায়। নয়া উপনিবেশবাদী তত্ত্ব অনুসারে চীন সাহায্যের ঝুলি নিয়ে নেপালের অন্দরে প্রবেশ করে। ক্রমশ ভারতকে সরিয়ে তার স্থান দখল করে। তার এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গী ছিল পাকিস্তান। সেইসঙ্গে চীন নেপালের রাজনৈতিক দলগুলির ওপর তার প্রভাব প্রতিষ্ঠা করে।
ইতিমধ্যেই রাজতন্ত্রের বিলোপ, রাষ্ট্রের ‘হিন্দুত্ব’ ঘুচিয়ে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র নীতি গ্রহণ, সংবিধান সংশোধন, মদেশীয় আন্দোলন প্রভৃতি ঘটনাকে কেন্দ্র করে নেপাল উত্তাল হয়ে ওঠে। রাজতন্ত্র উচ্ছেদের ব্যাপারে প্রায় সব দল একমত হলেও ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র গঠনের ব্যাপারে মতানক্যৈ ছিল। সরকার গণভোট নিতে চায়। কিন্তু চীন ও পাকিস্তান মত বদলাতে বাধ্য করে। কারণ, নেপালের ৯৪ শতাংশ মানুষ হিন্দু। মজার কথা হল, যে পাকিস্তান ও চীন কাশ্মীরে গণভোটের জন্য গলা ফাটাচ্ছে, তারাই নেপালে গণভোট করতে বাধা দিচ্ছে। তাই নেপাল সরকার রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে পরামর্শ করে সংবিধান সংশোধন করে। কিন্তু নতুন সংবিধানে মদেশীয়দের প্রতি অন্যায় হয়েছে। তারা প্রবল প্রতিবাদ আন্দোলন গড়ে তোলে। সরকার মদেশীয়দের উপেক্ষা করায় মদেশীয়রা নেপাল-ভারত সীমান্তে পথ অবরোধ করে। নতুন সংবিধানে কয়েকটি ধারার বিরুদ্ধে নেপালের নারীসমাজ প্রবল বিরোধিতা করে। কারণ, নতুন সংবিধানে নারীসমাজের প্রতি বৈষম্যমূলক ব্যবস্থা রয়েছে।
যাই হোক, মদেশীয়দের দীর্ঘ পথ অবরোধের ফলে নেপাল ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। খাদ্য, শস্য, তেল, নির্মাণসামগ্রী ও পর্যটক আসা সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে নেপালে এক গভীর সঙ্কট সৃষ্টি হয়। চীন তার সুযোগ নেয়। ভারত নিরুপায়। নেপালের চাহিদামতো ভারত সবকিছু পাঠাতে তৈরি ছিল, কিন্তু অবরোধের জন্য পারেনি। নেপালকে বোঝাল চীন: ভারত ইচ্ছে বিপদে ফেলেছে, তার স্বাধীনতা খর্ব করার জন্য। এই অবস্থায় চীন তেল ও খাদ্যসহ বহু দ্রব্যাদি নেপালে পাঠাল। ফলে, নেপালের ভারতনির্ভরতা কমল। বলতেই হয় যে, এটা ভারতের কৌশলগত ব্যর্থতা। কারণ, মদেশীয়দের ওপর ভারতের গভীর প্রভাব ছিল। তাই ভারত চেষ্টা করলে অবরোধ উঠতে পারত এবং চীনের প্রবেশ তাতে রুখে দেওয়া যেত। ভারতের বক্তব্য ছিল, আমরা চেষ্টা করেও পারিনি। কারণ, মদেশীয়দের অস্তিত্ব যুক্ত ছিল।
মদেশীয়রা ভারতীয় বংশোদ্ভব। নেপালে একটি বৃহত্ সম্প্রদায়। অথচ নতুন সংবিধানে মদেশীয়দের জন্য মাত্র ৫৬টি আসন রেখে ‘পাহাড়ি’ কাঠমান্ডুর জন্য ১০০টি আসন রাখা হয়। তাছাড়া, এমনভাবে মদেশীয় অঞ্চলে নির্বাচনী কেন্দ্র বিন্যাস করা হয়, যাতে মদেশীয়রা কিছুতেই সংখ্যা গরিষ্ঠতা লাভ করতে না-পারে। তাদের উন্নয়নের নানা দাবিকে সরকার নস্যাৎ করেছে। তাই পথ অবরোধ তুলতে তারা রাজি হয়নি। অবশেষে, ভারতের হস্তক্ষেপে নেপাল সরকার সংবিধানের কিছু সংশোধন করতে এবং মদেশীয়দের কিছু দাবি মেনে নিতে রাজি হয়। ১৩৫ দিনের অবরোধ ওঠে। কিন্তু তত দিনে ভারতের ভুলে উভয় দেশের সম্পর্কে ক্ষতি যা হওয়ার হয়ে গিয়েছে।
আলোচ্য তিনটি এলাকার আয়তন চারশো বর্গ কিমি। সামরিক দিক থেকে এর গুরুত্ব অপরিসীম। তাছাড়া কৈলাশ ও মানস তীর্থযাত্রীরা যুগ যুগ ধরে লিপুলেখ ব্যবহার করেন। চীন অধিকৃত তিব্বত লাগোয়া পিথোরগড় জেলার এই অঞ্চলটি নেপাল মারফত চীন নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে চায়। চীন ইতিমধ্যেই নেপালে রাস্তা নির্মাণের নামে ভারত সীমান্ত পর্যন্ত এমন সংযোগ তৈরি করেছে যে, প্রয়োজনে নেপালের ভেতর দিয়ে উত্তরবঙ্গের বাগডোগরায় সহজে পৌঁছনো যাবে। অথচ ভারতের বিদেশমন্ত্রক এবং গোয়েন্দা বিভাগ নাকে সরষের তেল দিয়ে ঘুমিয়েছে। নেপাল চাইলেও ভারত আলোচনার সময় পায়নি। নেপালের নতুন মানচিত্র পার্লামেন্টে পাস হওয়ার ২৪ ঘণ্টা পরে বিজেপি নেতাদের সভায় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ বললেন, ‘এটা সামান্য ভুল বোঝাবুঝি। দুই দেশই মাকালীর ভক্ত, বিশেষ করে কলকাত্তা কালী, কামাখ্যা কালী ও বিন্ধ্যাচল কালীর। মাকালীই আমাদের রক্ষা করবেন।’ ঘটনার চল্লিশ ঘণ্টা পরে প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘আমরা এটা মানব না।’ কী করবেন তিনি?
নেপালে ভারত-বিরোধী প্রচার তুঙ্গে। তাই করোনা পরিস্থিতিতে প্রচুর ওষুধ, কিট ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম পাঠানোর পর নেপাল সরকারের একজন বললেন, ‘আমাদের সাহায্যের নামে করোনা ভাইরাস পাঠিয়েছে ভারত!’ বোবা এবং বোকা ভারত সরকার। নির্লিপ্ত। তাই নেপালের জের না কাটতেই চীন আবার এক থাপ্পড় কষাল মোদি সরকারের গালে। সরকারের ভ্রান্ত-নীতি ও নির্দেশের (সেনা বাহিনীকে) জন্য বিশজন ভারতীয় বীর সেনা লাদাখে শহিদ হলেন। প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘আমরা ঘটনার প্রতি নজর রাখছি, চুপ করে থাকবো না।’ ভারতের বিশাল এলাকা গত দু’মাস চীন দখল করে রেখেছে। বিরোধীরা সরব হলেও সরকার তা চাপা দিতেই ব্যস্ত। আসলে, এখন সরকারের তৎপরতা বিরোধী সরকার ভাঙতে এবং রাম মন্দির গড়তে।
লেখক কলকাতায় সুরেন্দ্রনাথ কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রাক্তন অধ্যাপক  
24th  June, 2020
গুরু কে, কেনই বা গুরুপূর্ণিমা?
জয়ন্ত কুশারী

কে দেখাবেন আলোর পথ? পথ অন্ধকারাচ্ছন্নই বা কেন? এই অন্ধকার, মনের। মানসিকতারও। চিন্তার। আবার চেতনারও। এই অন্ধকার কুসংস্কারের। আবার অশিক্ষারও। অথচ আমরা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত এক একজন।   বিশদ

জাতির উদ্দেশে ভাষণের চরম অবমূল্যায়ন
হিমাংশু সিংহ

অনেক প্রত্যাশা জাগিয়েও মাত্র ১৬ মিনিট ৯ সেকেন্ডেই শেষ। দেশবাসীর প্রাপ্তি বলতে আরও পাঁচ মাস বিনামূল্যে রেশন। শুধু ওইটুকুই। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি বুক ফুলিয়ে চীনকে কোনও রণহুঙ্কার নয়, নিহত বীর জওয়ানদের মৃত্যুর বদলা নয় কিম্বা শূন্যে নেমে যাওয়া অর্থনীতিকে টেনে তোলার সামান্যতম অঙ্গীকারও নয়। ১৬ মিনিটের মধ্যে ১৩ মিনিটই উচ্চকিত আত্মপ্রচার।   বিশদ

মধ্যবিত্তের লড়াই শুরু হল
শুভময় মৈত্র 

কোভিড পরিস্থিতি চীনে শুরু হয়েছে গত বছরের শেষে। মার্চ থেকেই আমাদের দেশে হইচই। শুরুতেই ভীষণ বিপদে পড়েছেন নিম্নবিত্ত মানুষ। পরিযায়ী শ্রমিকদের অবর্ণনীয় দুর্দশার কথা এখন সকলেই জানেন।  বিশদ

04th  July, 2020
রাজধর্ম
তন্ময় মল্লিক 

যেমন কথা তেমন কাজ। উম-পুন সুপার সাইক্লোনে ক্ষতিপূরণ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠতেই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছিলেন, টাঙিয়ে দেওয়া হবে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা। ফেরানো হবে অবাঞ্ছিতদের হাতে যাওয়া ক্ষতিপূরণ।   বিশদ

04th  July, 2020
উন্নয়ন  ও  চীনা  আগ্রাসনের  উত্তর  একসুতোয় গাঁথা
নীলাশিস  ঘোষদস্তিদার 

আমরা ভারতীয়রা চীনা পণ্য বয়কট করব কি না, এই প্রশ্নে অনেকেই বেশ দ্বিধায়। এই কারণে যে এত সস্তায় কেনা সাধের চীনা অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি ছেড়ে কি দামি আই-ফোন বা অকাজের দেশি ফোন কিনতে হবে?   বিশদ

03rd  July, 2020
ভার্চুয়াল স্ট্রাইক নাকি ড্যামেজ কন্ট্রোল!
মৃণালকান্তি দাস

ভারতের কোনও রাষ্ট্রনেতা তাঁর মতো বিদেশ সফর করেননি। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগেও বিনিয়োগ টানতে চীনে গিয়েছেন অনেকবার। তখন তিনি গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী। দশ বছরে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং চীনে গিয়েছেন ২ বার।  বিশদ

03rd  July, 2020
চীনের নতুন পুতুলের নাম পাকিস্তান
হারাধন চৌধুরী 

পাকিস্তান ছিল আমেরিকার পুতুল। এবার সেটা হাত বদলে চীনের হয়েছে। চীনের কোনও কিছুর গ্যারান্টি নেই। যেমন তাদের কথা আর বিশ্বাসের মূল্য, তেমনি চীনা প্রোডাক্টের আয়ু। এ নিয়ে চালু রসিকতাও কম নয়।  বিশদ

02nd  July, 2020
‘শোলে’ ছবির পুনর্নির্মাণ
সন্দীপন বিশ্বাস

দৃশ্য ১
রামগড়ের পাহাড়ের কোলে নিজের ডেরায় রাগে ফুঁসছেন গব্বর সিং। হাতের লোহার বেল্টটা পাথুরে মাটিতে ঘষতে ঘষতে এদিক ওদিক করছেন। চোখ মুখ দিয়ে তাঁর রাগ উথলে পড়ছে। চারপাশে গব্বর সিংয়ের চ্যালা কালিয়া, সাম্ভারা মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে আছে। একটু পরে গব্বর সিং বললেন, ‘হুম, সীমান্তে ওরা কতজন ছিল?’ কালিয়া ভয়ে মুখ কাঁচুমাচু করে বলল, ‘ওরা অনেকেই ছিল সর্দার। হাতে ওদের অনেক অস্ত্রশস্ত্রও ছিল।’
বিশদ

01st  July, 2020
সুদিনের আশায়
গ্রামীণ পর্যটন
দেবাশিস ভট্টাচার্য

 ক’দিন আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আমাদের গ্লোবাল হওয়ার কথা বললেন। বললেন দেশীয় উৎপাদন ও সম্পদকে আন্তর্জাতিক রূপ দিতে হবে। মেড ইন ইন্ডিয়া, মেড ফর ওয়ার্ল্ড। ব্যাপারটাকে আমরা লোকাল টু গ্লোবাল হিসেবে দেখতে পারি। বিশদ

01st  July, 2020
‘সাম্রাজ্যবাদী’ জিনপিং...
শেষের এটাই শুরু নয় তো?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

তরুণ বয়সে মাও সে তুং লিখেছিলেন... চীনকে ধ্বংস করতে হবে, আর সেই ধ্বংসস্তূপের উপর গড়ে তুলতে হবে নতুন দেশ। বিপ্লব—এটাই ছিল তাঁর লক্ষ্য... এবং স্বপ্নও। ভেবেছিলেন, কমিউনিজমই পারবে এই বিপ্লব আনতে। শত শত আইডিয়া ঘোরাফেরা করত তাঁর মাথায়। কিন্তু গা করেনি কেউ। বিশদ

30th  June, 2020
আপনি কি আর্থিক পুনরুজ্জীবনের লক্ষণ দেখছেন?
পি চিদম্বরম

 কিছু মানুষের দূরদৃষ্টি নিখুঁত। কিছু মানুষ অন্যদের চেয়ে ভালো দেখেন। তাঁরা দ্রষ্টা। সাধারণ মরণশীল মানুষ দেখতে পায় না এমন জিনিসও তাঁরা দেখতে পান। কিছু মানুষের দৃষ্টিশক্তি আমাদের ভাবনার চেয়েও উন্নত। তাঁরা মহাজ্ঞানী। তাঁরা ভবিষ্যৎ বলে দিতে পারেন। গড়পড়তা মানুষের যা অসাধ্য।
বিশদ

29th  June, 2020
মোদির তেল রাজনীতি ও
মমতার মানবিক প্যাকেজ
হিমাংশু সিংহ

 ডাক নাম মধু। বেসরকারি বাসের কন্ডাকটর। রোজ চুঁচুড়া থেকে ধর্মতলা পর্যন্ত বাসের পাদানিতে দাঁড়িয়ে লোক নিয়ে যাওয়া নিয়ে আসাই তাঁর পেশা। গত এপ্রিল-মে মাসে বাস চলেনি বলে মালিকও বেতনের পুরো টাকা দেননি। অনুনয় বিনয়ের পর সামান্য কিছু ঠেকিয়েছেন।
বিশদ

28th  June, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা আতঙ্ক এবার সিএবি’তে। সংস্থার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের এক অস্থায়ী কর্মীর কোভিড-১৯ টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তাই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আপাতত এক সপ্তাহ বন্ধ থাকবে সিএবি।   ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারাসত: যত দিন গড়াচ্ছে অশোকনগর শহরে ততই দাপট বাড়াচ্ছে করোনা। শুক্রবার রাতে করোনা-আক্রান্ত এক শিক্ষিকার মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া নতুন করে আরও ৬ জন ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্যের স্বাস্থ্য বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ জুলাই থেকে শুরু হতে চলা ‘প্রফেশনাল আয়ুর্বেদাচার্য’ বা বিএএমএস পরীক্ষা ৩১ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত ঘোষণা করল কলকাতা হাইকোর্ট।   ...

নিউ ইয়র্ক: হাতে ‘বয়কট চীন’ প্ল্যাকার্ড। মুখে চীনের সঙ্গে বাণিজ্য বয়কটের ডাক। শনিবার নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কোয়ারে জমায়েত হয়ে চীনা আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলেন ভারতীয় ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শারীরিক কারণে কর্মে বাধা দেখা দেবে। সন্তানরা আপনার কথা মেনে না চলায় মন ভারাক্রান্ত হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৪: অভিনেতা দীপঙ্কর দের জন্ম
১৯৪৬: রাজনীতিক রামবিলাস পাসোয়ানের জন্ম
২০০৫: ক্রিকেটার বালু গুপ্তের মূত্যু
২০০৭: অভিনেতা শুভেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৮৯ টাকা ৭৫.৬১ টাকা
পাউন্ড ৯১.৭০ টাকা ৯৪.৯৭ টাকা
ইউরো ৮২.৫৭ টাকা ৮৫.৬৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮, ৯৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬, ৪৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭, ১৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৯, ২৭০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৯, ৩৭০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৯ আষাঢ় ১৪২৭, ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ত্রয়োদশী ২০/৪২ দিবা ১/১৭। জ্যেষ্ঠা ৪৭/৫০ রাত্রি ১২/৮। সূর্যোদয় ৫/০/৬, সূর্যাস্ত ৬/২১/২২। অমৃতযোগ দিবা ১২/২৭ গতে ২/৪৭ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৪ গতে ২/৫২ মধ্যে পুনঃ ৩/৩/৩৫ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/২০ গতে ১১/৪১ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/১ গতে ১০/২১ মধ্যে। 
১৮ আষাঢ় ১৪২৭, ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ত্রয়োদশী দিবা ১২/৫০। জ্যেষ্ঠা নক্ষত্র রাত্রি ১২/২৭। সূযোদয় ৫/০, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ১২/৯ গতে ২/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৩০ মধ্যে ও ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/০ মধ্যে। বারবেলা ৮/২১ গতে ১১/৪২ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/২ গতে ১০/২২ মধ্যে। 
১১ জেল্কদ 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
এটিকে-এমবির বোর্ডে সৌরভ 
জল্পনা ছিলই। শেষ পর্যন্ত বিস্তর আলোচনার পর এটিকে-এমবি প্রাইভেট লিমিটেডের ...বিশদ

10:33:05 AM

আগামীকাল কুলতলিতে বনধ ডাকল এসইউসিআই 
দলের জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সুধাংশু জানাকে খুন ও মৈপীঠ অঞ্চলে ...বিশদ

10:26:59 AM

বড়বাজারে একটি বাড়িতে আগুন, ঘটনাস্থলে দমকলের ২টি ইঞ্জিন 

10:15:04 AM

দেশে একদিনে করোনা আক্রান্ত প্রায় ২৫ হাজার 
প্রতিদিনই সংক্রমণের নিরিখে রেকর্ড গড়ছে দেশ। এবার প্রায় ২৫ হাজার ...বিশদ

10:12:55 AM

কলকাতা হাইকোর্ট: কাল থেকে নিজের ঝুঁকিতে সশরীরে শুনানি করা যাবে 
মামলাকারী বা তাঁর আইনজীবী নিজের ঝুঁকিতে আগামী ৬ জুলাই থেকে ...বিশদ

09:05:28 AM

করোনায় আক্রান্ত সিএবি কর্মী 
করোনা আতঙ্ক এবার সিএবি’তে। সংস্থার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের এক অস্থায়ী কর্মীর ...বিশদ

08:45:00 AM