Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

নেপাল: কলকাত্তা কালীর শরণাপন্ন রাজনাথ
কুমারেশ চক্রবর্তী

ছোটবেলায় আমরা ‘ম্যাপ-ম্যাপ খেলা’ খেলতাম। দাদাদের  বাতিল ম্যাপের ওপর লাল পেন্সিল দিয়ে একটা ক্রসহচিহ্ন এঁকে জায়গাটা দখল করতাম, শর্ত একটাই, জায়গাটার নাম বলতে হবে। এইভাবে আমরা কত নগর, রাজ্য, দেশের মালিক হয়েছি!
অনেকটা যেন সেই খেলার ছলেই নেপালের ওলি সরকার হঠাৎ নতুন মানচিত্র করে ভারতের লিম্পিয়াধুরা, কালাপানি ও লিপুলেখকে নিজেদের সীমান্তভুক্ত করে নেপালের অঞ্চল বলে ঘোষণা করে। সেইমতো গত ১৩ জুন, ২০২০ নেপাল পার্লামেন্ট নতুন মানচিত্রে সম্মতি দেয়। সর্বসম্মতিক্রমে সংবিধান সংশোধন বিলটি পাস করে। যদিও গত ৩১ মে এই মানচিত্র বদলের খসড়া পেশের সময় পার্লামেন্টের এক সদস্য সরিতা গিরি একটি সংশোধনী প্রস্তাবে এ ব্যাপারে ভারতের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দেন। কিন্তু স্পিকার অগ্নিপ্রসাদ সাপকোটা নিজ ক্ষমতাবলে প্রস্তাবটি বাতিল করে দেন। চীনের প্ররোচনায় ও পরামর্শে নেপাল সরকার চরম পথ গ্রহণ করতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করে না।
ভারত-নেপাল সম্পর্ক যুগ যুগ ধরে প্রতিষ্ঠিত। ছোট্ট দেশটির সামরিক এবং আর্থিক ক্ষমতা অত্যন্ত সীমিত। কিন্তু আধুনিক ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নেপালের গুরুত্ব ও মর্যাদা অপরিসীম। তাই চীন দীর্ঘদিন ধরে নেপালকে গ্রাস করার চেষ্টা করছে। এতদিন তা সফল হয়নি। কারণ, ভারত ও নেপালের সম্পর্ক অত্যন্ত আন্তরিক এবং গভীর বিশ্বাসের ওপর প্রতিষ্ঠিত ছিল। তাই দেশ-বিদেশে এবং আন্তর্জাতিক-রাজনৈতিক মঞ্চে নেপাল সর্বদাই ভারতের পক্ষে থেকেছে, ভারতের পক্ষে সোচ্চার হয়েছে। অপরদিকে ভারতও নেপালের স্বার্থরক্ষায় ও উন্নয়নে সার্বিক সাহায্য সহযোগিতা করেছে। নেপালের রাস্তাঘাট, পরিবহণ, পরিকাঠামো নিজ দায়িত্বে আধুনিক ও বৈজ্ঞানিকভাবে গড়ে দিয়েছে। তাছাড়া শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খাদ্য, জ্বালানির তেল প্রয়োজন মতো সরবরাহ করেছে। এই বন্ধুত্ব আরও গাঢ় হয়েছে উভয় দেশের সংস্কৃতিগত মিলের জন্য।
উভয় দেশের ঐতিহ্য উন্নত। উভয়েরই আদর্শ শান্তি ও সহযোগিতার ওপর প্রতিষ্ঠিত। উভয় দেশের আধ্যাত্মিক চর্চা, পূজা-অর্চনা, ধর্ম প্রায় একই। তাই উভয় দেশের আসা-যাওয়া, মুদ্রা এবং ভাষা পারস্পরিক ঘনিষ্ঠতার প্রতীক। পারস্পরিক সম্পর্কের এই বন্ধনে কিছু অদ্ভুত নিয়ম প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। যেমন ভারত ও নেপাল সরকার দু’দেশের সেনাপ্রধানকেই নিজ নিজ দেশের ‘সাম্মানিক সেনাপ্রধান’ হিসেবে নিয়োগ করে। গত বছরেই নেপালের নবনিযুক্ত সেনাপ্রধানকে ভারতের সাম্মানিক জেনারেল পদ প্রদান করা দেওয়া হয়। আন্তরিক সম্পর্ক ও বিশ্বাসকে ভেঙেচুরে নেপাল এমন একটা বালখিল্যেরর মতো সিদ্ধান্ত নিল, যা বেদনার। তার মানে চীনের নির্দেশ নীরবে, বিনাপ্রতিবাদে পালন করাই এখন ওলি সরকারের নিয়তি।
কয়েক দশক ধরে চীন নেপালে অনুপ্রবেশে সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের রূপরেখা তৈরি করেছিল। প্রথম দিকে চীন নেপালের মাওবাদী-জঙ্গি আন্দোলনকে অর্থ, অস্ত্র, আশ্রয় দিয়েছিল। তারপর অতি জঙ্গিনেতা প্রচণ্ডের উত্থানে চীন হাতে চাঁদ পায়। তখন থেকেই সরাসরি নেপালের শাসনভার দখল করে একটি পুতুল সরকার গঠনে তৎপর হয়। মাওবাদী নেতা প্রচণ্ড প্রধানমন্ত্রী হওয়ায় চীনের ষড়যন্ত্র দ্রুত সফল হয়। কিন্তু চৈনিক পুতুল প্রচণ্ডের অযোগ্যতায় সরকার বেশিদিন টেকেনি। তখন চীন তার পরিকল্পনায় কিছু বদল ঘটায়। নয়া উপনিবেশবাদী তত্ত্ব অনুসারে চীন সাহায্যের ঝুলি নিয়ে নেপালের অন্দরে প্রবেশ করে। ক্রমশ ভারতকে সরিয়ে তার স্থান দখল করে। তার এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গী ছিল পাকিস্তান। সেইসঙ্গে চীন নেপালের রাজনৈতিক দলগুলির ওপর তার প্রভাব প্রতিষ্ঠা করে।
ইতিমধ্যেই রাজতন্ত্রের বিলোপ, রাষ্ট্রের ‘হিন্দুত্ব’ ঘুচিয়ে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র নীতি গ্রহণ, সংবিধান সংশোধন, মদেশীয় আন্দোলন প্রভৃতি ঘটনাকে কেন্দ্র করে নেপাল উত্তাল হয়ে ওঠে। রাজতন্ত্র উচ্ছেদের ব্যাপারে প্রায় সব দল একমত হলেও ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র গঠনের ব্যাপারে মতানক্যৈ ছিল। সরকার গণভোট নিতে চায়। কিন্তু চীন ও পাকিস্তান মত বদলাতে বাধ্য করে। কারণ, নেপালের ৯৪ শতাংশ মানুষ হিন্দু। মজার কথা হল, যে পাকিস্তান ও চীন কাশ্মীরে গণভোটের জন্য গলা ফাটাচ্ছে, তারাই নেপালে গণভোট করতে বাধা দিচ্ছে। তাই নেপাল সরকার রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে পরামর্শ করে সংবিধান সংশোধন করে। কিন্তু নতুন সংবিধানে মদেশীয়দের প্রতি অন্যায় হয়েছে। তারা প্রবল প্রতিবাদ আন্দোলন গড়ে তোলে। সরকার মদেশীয়দের উপেক্ষা করায় মদেশীয়রা নেপাল-ভারত সীমান্তে পথ অবরোধ করে। নতুন সংবিধানে কয়েকটি ধারার বিরুদ্ধে নেপালের নারীসমাজ প্রবল বিরোধিতা করে। কারণ, নতুন সংবিধানে নারীসমাজের প্রতি বৈষম্যমূলক ব্যবস্থা রয়েছে।
যাই হোক, মদেশীয়দের দীর্ঘ পথ অবরোধের ফলে নেপাল ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। খাদ্য, শস্য, তেল, নির্মাণসামগ্রী ও পর্যটক আসা সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে নেপালে এক গভীর সঙ্কট সৃষ্টি হয়। চীন তার সুযোগ নেয়। ভারত নিরুপায়। নেপালের চাহিদামতো ভারত সবকিছু পাঠাতে তৈরি ছিল, কিন্তু অবরোধের জন্য পারেনি। নেপালকে বোঝাল চীন: ভারত ইচ্ছে বিপদে ফেলেছে, তার স্বাধীনতা খর্ব করার জন্য। এই অবস্থায় চীন তেল ও খাদ্যসহ বহু দ্রব্যাদি নেপালে পাঠাল। ফলে, নেপালের ভারতনির্ভরতা কমল। বলতেই হয় যে, এটা ভারতের কৌশলগত ব্যর্থতা। কারণ, মদেশীয়দের ওপর ভারতের গভীর প্রভাব ছিল। তাই ভারত চেষ্টা করলে অবরোধ উঠতে পারত এবং চীনের প্রবেশ তাতে রুখে দেওয়া যেত। ভারতের বক্তব্য ছিল, আমরা চেষ্টা করেও পারিনি। কারণ, মদেশীয়দের অস্তিত্ব যুক্ত ছিল।
মদেশীয়রা ভারতীয় বংশোদ্ভব। নেপালে একটি বৃহত্ সম্প্রদায়। অথচ নতুন সংবিধানে মদেশীয়দের জন্য মাত্র ৫৬টি আসন রেখে ‘পাহাড়ি’ কাঠমান্ডুর জন্য ১০০টি আসন রাখা হয়। তাছাড়া, এমনভাবে মদেশীয় অঞ্চলে নির্বাচনী কেন্দ্র বিন্যাস করা হয়, যাতে মদেশীয়রা কিছুতেই সংখ্যা গরিষ্ঠতা লাভ করতে না-পারে। তাদের উন্নয়নের নানা দাবিকে সরকার নস্যাৎ করেছে। তাই পথ অবরোধ তুলতে তারা রাজি হয়নি। অবশেষে, ভারতের হস্তক্ষেপে নেপাল সরকার সংবিধানের কিছু সংশোধন করতে এবং মদেশীয়দের কিছু দাবি মেনে নিতে রাজি হয়। ১৩৫ দিনের অবরোধ ওঠে। কিন্তু তত দিনে ভারতের ভুলে উভয় দেশের সম্পর্কে ক্ষতি যা হওয়ার হয়ে গিয়েছে।
আলোচ্য তিনটি এলাকার আয়তন চারশো বর্গ কিমি। সামরিক দিক থেকে এর গুরুত্ব অপরিসীম। তাছাড়া কৈলাশ ও মানস তীর্থযাত্রীরা যুগ যুগ ধরে লিপুলেখ ব্যবহার করেন। চীন অধিকৃত তিব্বত লাগোয়া পিথোরগড় জেলার এই অঞ্চলটি নেপাল মারফত চীন নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে চায়। চীন ইতিমধ্যেই নেপালে রাস্তা নির্মাণের নামে ভারত সীমান্ত পর্যন্ত এমন সংযোগ তৈরি করেছে যে, প্রয়োজনে নেপালের ভেতর দিয়ে উত্তরবঙ্গের বাগডোগরায় সহজে পৌঁছনো যাবে। অথচ ভারতের বিদেশমন্ত্রক এবং গোয়েন্দা বিভাগ নাকে সরষের তেল দিয়ে ঘুমিয়েছে। নেপাল চাইলেও ভারত আলোচনার সময় পায়নি। নেপালের নতুন মানচিত্র পার্লামেন্টে পাস হওয়ার ২৪ ঘণ্টা পরে বিজেপি নেতাদের সভায় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ বললেন, ‘এটা সামান্য ভুল বোঝাবুঝি। দুই দেশই মাকালীর ভক্ত, বিশেষ করে কলকাত্তা কালী, কামাখ্যা কালী ও বিন্ধ্যাচল কালীর। মাকালীই আমাদের রক্ষা করবেন।’ ঘটনার চল্লিশ ঘণ্টা পরে প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘আমরা এটা মানব না।’ কী করবেন তিনি?
নেপালে ভারত-বিরোধী প্রচার তুঙ্গে। তাই করোনা পরিস্থিতিতে প্রচুর ওষুধ, কিট ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম পাঠানোর পর নেপাল সরকারের একজন বললেন, ‘আমাদের সাহায্যের নামে করোনা ভাইরাস পাঠিয়েছে ভারত!’ বোবা এবং বোকা ভারত সরকার। নির্লিপ্ত। তাই নেপালের জের না কাটতেই চীন আবার এক থাপ্পড় কষাল মোদি সরকারের গালে। সরকারের ভ্রান্ত-নীতি ও নির্দেশের (সেনা বাহিনীকে) জন্য বিশজন ভারতীয় বীর সেনা লাদাখে শহিদ হলেন। প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘আমরা ঘটনার প্রতি নজর রাখছি, চুপ করে থাকবো না।’ ভারতের বিশাল এলাকা গত দু’মাস চীন দখল করে রেখেছে। বিরোধীরা সরব হলেও সরকার তা চাপা দিতেই ব্যস্ত। আসলে, এখন সরকারের তৎপরতা বিরোধী সরকার ভাঙতে এবং রাম মন্দির গড়তে।
লেখক কলকাতায় সুরেন্দ্রনাথ কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রাক্তন অধ্যাপক  
24th  June, 2020
মূল্যবৃদ্ধির যন্ত্রণা: আত্মনির্ভরতার নতুন থিম সং
শান্তনু দত্তগুপ্ত

সেপ্টেম্বর ১, সাল ২০১৩। দিল্লিতে বিজেপির বাইক র‌্যালি। প্রতিবাদ চলছে পেট্রল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে... ঠুঁটো কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে। সেই বাইক মিছিল সেদিন রওনা দিয়েছিল দিল্লির তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিতের বাসভবনের উদ্দেশে।
বিশদ

দায়িত্ব নিন, আলোচনা
করুন, প্ল্যান বানান
পি চিদম্বরম

টিকাকরণ নিয়ে যে বিশৃঙ্খলা হল, তা ইতিহাসে লেখা থাকবে। ৭ জুন, টেলিভিশন ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দু’টো ভুল শুধরে নিয়েছেন। আমি মনে করি, এটাই তাঁর ভুল স্বীকার করে নেওয়ার কায়দা।
বিশদ

14th  June, 2021
মমতার নির্দেশে
অভিষেকের মাস্টারস্ট্রোক
হিমাংশু সিংহ

এতদিন বাংলার রাজনীতিতে মাস্টারস্ট্রোক কথাটা শুধু জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই সমার্থক ছিল ষোলোআনা। কিন্তু এখন তার আর এক দাবিদার উপস্থিত। পুত্রসম অভিষেক।
বিশদ

13th  June, 2021
সেলিব্রেটি থেকে সংগঠক,
রাজনীতির নতুন ধারা
তন্ময় মল্লিক

অনেকেই বলে থাকেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যতদিন, তৃণমূল ততদিন। তারপর পার্টিটাই আর থাকবে না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার জবাবও দিয়েছেন। তিনি বহুবার বলেছেন, ‘যাঁরা ভাবছেন, আমি চলে গেলে দলটা উঠে যাবে, তাঁরা ভুল ভাবছেন। তৃণমূলের পরবর্তী প্রজন্ম তৈরি।’ এতদিন তিনি যে কথা মুখে বলতেন, এবার সেটা করে দেখাচ্ছেন।
বিশদ

12th  June, 2021
পুরুষ আধিপত্যের ভিড়ে
সফল শাসক দুই বাঙালি নারী
সমৃদ্ধ দত্ত

রাজনীতির হিসেব-নিকেশ বাদ দিয়ে নিছকই জাতিগত আকাঙক্ষার তাগিদে ২০২৪ সালের দিকে আমরা বাঙালিরা অত্যন্ত আগ্রহ নিয়ে লক্ষ করব এই জাতিটির জার্নিতে সত্যিই কি একটি নতুন ইতিহাস রচিত হবে? একদা একসঙ্গে থাকা দু’টি পাশাপাশি দেশের দুই প্রধানমন্ত্রীই কি বাঙালি নারী হবেন? বিশদ

11th  June, 2021
অবলুপ্তির আত্মঘাতী
পথে সিপিএম
মৃণালকান্তি দাস

গোটা দেশের লোক যখন মোদি-মমতার মরণপণ দ্বৈরথ দেখছে, সিপিএম তখন চোখ বন্ধ রেখে বলেছে, ও-সব ‘সেটিং’। আসলে দল তো একটাই, তার নাম বিজেমূল। ছায়ার সঙ্গে এই পুরো যুদ্ধটাই করা হয়েছে বিজেপি-তৃণমূল বাইনারি ভাঙার নাম করে। ফল যা হওয়ার তাই হয়েছে। বিজেমূল নামক এই বকচ্ছপ ধারণাটাকে জনতা স্রেফ ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলে দিয়েছে।
বিশদ

10th  June, 2021
দেশ নিয়ে মোদির ভাবার
এত সময়ই নেই
সন্দীপন বিশ্বাস

মোদির জনপ্রিয়তার পাড় ভাঙছে। অন্য পাড়ে ক্রমেই জেগে উঠছে মমতা নামের এক নতুন সবুজ, স্বপ্নের ভূমি। সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে চোখে চোখ রেখে পাঙ্গা লড়ার শক্তি তিনি আপন ক্ষমতাবলে অর্জন করেছেন। বিশদ

09th  June, 2021
হোক প্রোপাগান্ডা!
শান্তনু দত্তগুপ্ত

হোক প্রোপাগান্ডা! মন্ত্র লিখতে হবে, কৃষকের জন্য এক। শ্রমিকের জন্য এক। শিক্ষকের জন্য আর এক। কমোন মন্ত্র অবশ্য একটাই—আচ্ছে দিন। ভ্যাকসিন নীতির ঠিকঠিকানা নেই, রাজ্য সরকার প্রাপ্য টাকা পাচ্ছে না, হাসপাতালে বেড নেই, পেট্রল-ডিজেল রোজ ঊর্ধ্বমুখী, জিনিসপত্রের দাম আকাশছোঁয়া... আচ্ছে দিনের ভালো নমুনা বটে।
বিশদ

08th  June, 2021
হাঁড়ির হাল নিয়ে বৃহৎ,
ক্ষুদ্র দু’পক্ষই একমত
পি চিদম্বরম

সার্বিকভাবে পুরো জাতি এবং গড়পড়তা ভারতবাসী, ২০১৭-১৮ সালের যে পজিশন ছিল তারও পিছনে পড়ে গিয়েছে। অর্থনীতিটা ঘেঁটে গিয়েছে এবং তাতে ক্ষতেরও সৃষ্টি হয়েছে। এর প্রথম কারণ—বিপর্যয় সৃষ্টিকারী নীতিগুলো (যেমন বিমুদ্রাকরণ, বিশৃঙ্খল জিএসটি)। দ্বিতীয় কারণ—কোভিড-১৯। আর তৃতীয় কারণ—অর্থনীতি সামলাতে সরকারের লেজেগোবরে অবস্থা। 
বিশদ

07th  June, 2021
এক আমলা যখন বাঙালির
আত্মমর্যাদার প্রতীক!
হিমাংশু সিংহ

মুখ্যসচিব হিসেবে তিনি কার নির্দেশ মানতে বাধ্য? আলাপনবাবুর দোষটা কোথায়? তিনি তো কেন্দ্রের ক্যাবিনেট সচিব নন, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব। আসলে কেন্দ্র ও রাজ্যের ক্ষমতা ও এক্তিয়ারের এই সীমাহীন টানাপোড়েনের মধ্যে দাঁড়িয়ে একজন মুখ্যসচিবের করণীয় কী, সেটাই কোটি টাকার প্রশ্ন। বিশদ

06th  June, 2021
আলাপনেই শেষ নয়, ফের
আসবে নতুন কোনও ইস্যু
তন্ময় মল্লিক

লোকসভার ভোটের দেরি থাকলেও মোদি-বিরোধী সলতে পাকানো শুরু হয়েছে। এই মুহূর্তে সেই লড়াইয়ের মুখ মমতা। তাই মোদি-অমিত শাহ জুটি তাঁকে চাপে ফেলতে মরিয়া। অস্ত্র একটাই, বিতর্ক তৈরি। তারজন্য শিষ্টাচার, প্রোটোকল, বিপর্যয় মোকাবিলা আইন, সিবিআই- যা হোক একটা পেলেই হল। বিশদ

05th  June, 2021
কেন আজ ধ্বংসের
মুখোমুখি দীঘা উপকূল
মৃন্ময় চন্দ

দীঘার পূর্ব পরিচিতি ছিল ‘বীরকুল’ নামে। ১৭৮০ সালে দীঘার সৌন্দর্যে মুগ্ধ ওয়ারেন হেস্টিংস তাঁর স্ত্রীকে লেখা চিঠিতে পুবের ‘ব্রাইটন’ বলে দীঘাকে উল্লেখ করেছিলেন। ব্রিটিশ পর্যটক ‘জন ফ্রাঙ্ক স্মিথ’ ১৯২৩ সালে দীঘার সৌন্দর্যে মোহিত হয়ে প্রথম বিশ্ববাসীর কাছে মেলে ধরলেন তার ভুবনমোহিনী ঐশ্বর্যকে। বিশদ

05th  June, 2021
একনজরে
দু’মাস আগের কথা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তুফান তুলে দেওয়াই বিজেপি’র একনিষ্ঠ নেতা-কর্মী হওয়ার অন্যতম মাপকাঠি ছিল। সময়ের ফেরে সেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন নেতাদের পোস্ট করাই কার্যত ‘ব্যান’ করে দিল বিজেপি নেতৃত্ব। ...

করোনা আতঙ্কের মধ্যে দেশে কোপা আমেরিকা আয়োজনের বিপক্ষে সুর চড়িয়েছিল ব্রাজিল দল। টুর্নামেন্ট থেকে সরে দাঁড়ানোরও ইঙ্গিতও ছিল নেইমার-কাসেমিরোদের বক্তব্যে। ...

মসজিদে নামাজ পরতে যাওয়ার সময় দুষ্কৃতীদের হাতে প্রহৃত হলেন এক প্রবীণ ব্যক্তি। কেটে দেওয়া হল দাড়ি। প্রহৃত ব্যক্তির নাম আব্দুল সামাদ। প্রথমে তাঁকে অটো থেকে নামিয়ে জঙ্গলের মধ্যে অবস্থিত একটি কুঁড়ে ঘরে নিয়ে যাওয়া হয়। ...

আগামী পয়লা জুলাই পর্যন্ত রাজ্য সরকারি অফিসে ২৫ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ চালানো হবে। সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, অফিস কর্তৃপক্ষ কর্মীদের রোস্টার তৈরি করে তাঁদের আসার জন্য পরিবহণের ব্যবস্থা করবে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর ভালো যাবে না। সাংসারিক কলহ বৃদ্ধি। প্রেমে সফলতা। শত্রুর সঙ্গে সন্তোষজনক সমঝোতা। সন্তানের সাফল্যে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৬: জাপানে সুনামিতে ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু
১৯৫০: শিল্পপতি লক্ষ্মী মিত্তালের জন্ম
১৯৫৩: চীনের প্রেসিডেন্ট জি জিনপিংয়ের জন্ম
১৯৬০: বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হয়
১৯৬৯: জার্মানির গোলকিপার অলিভার কানের জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৪৩ টাকা ৭৪.১৪ টাকা
পাউন্ড ১০১.৬৬ টাকা ১০৫.১৭ টাকা
ইউরো ৮৭.০৬ টাকা ৯০.২৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
14th  June, 2021
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯, ১০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬, ৬০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭, ৩০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭২, ০০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭২, ১০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
14th  June, 2021

দিন পঞ্জিকা

৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১। পঞ্চমী ৪৫/৪ রাত্রি ১০/৫৭। অশ্লেষা নক্ষত্র ৪১/৫৬ রাত্রি ৯/৪২। সূর্যোদয় ৪/৫৫/৩৮, সূর্যাস্ত ৬/১৮/১২। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৬ মধ্যে পুনঃ ৯/২৩ গতে ১২/৩ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৭ গতে ৪/৩১ মধ্যে। রাত্রি ৭/০ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৭ গতে ২/৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ২/৪৪ গতে ৩/৩৭ মধ্যে পুনঃ ৪/৩১ গতে ৫/২৪ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৫ গতে ৯/৫০ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৬ মধ্যে পুনঃ ১/১৭ গতে ২/৫৭ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৩৮ গতে ৮/৫৮ মধ্যে। 
৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১। পঞ্চমী রাত্রি ৭/৩৬। অশ্লেষা নক্ষত্র রাত্রি ৭/৭। সূর্যোদয় ৪/৫৫, সূর্যাস্ত ৬/২০।  অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে ও ৯/২৭ গতে ১২/৮ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৪/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৫ মধ্যে ও ১২/২ গতে ২/৯ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ২/৪৮ গতে ৩/৪২ মধ্যে ও ৪/৩৫ গতে ৫/২৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৩০ গতে ৯/৫৫ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৭ মধ্যে ও ১/১৮ গতে ২/৫৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৭/৪০ গতে ৮/৫৯ মধ্যে। 
৪ জেল্কদ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
পশ্চিম মেদিনীপুরের ডেবরাতে ৫০ কেজি গাঁজা উদ্ধার
পশ্চিম মেদিনীপুরের ডেবরায় ১৬ নম্বর জাতীয় সড়কে মঙ্গলবার ভোরে অভিযান ...বিশদ

12:34:53 PM

মায়াবতী পার্টির ৯ জন বিধায়ক দেখা করলেন অখিলেশ যাদবের সঙ্গে: সূত্র 

12:23:39 PM

আজ সন্ধ্যায় দিল্লি যাচ্ছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার 

11:45:00 AM

এই বছরেও স্থগিত মাহেশের রথযাত্রা
 

গতবারের মতো এই বছরেও করোনা পরিস্থিতির জেরে বাতিল হয়ে গেল ...বিশদ

11:33:24 AM

২৬৪ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

10:49:32 AM

মন্ত্রীদের সঙ্গে  বৈঠকে মোদি
প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণমন্ত্রী নীতিন গাদকারি সহ বেশ ...বিশদ

10:30:00 AM