Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সুযোগের সদ্ব্যবহারে
কতটা প্রস্তুত ভারত
হারাধন চৌধুরী

জলে কুমির ডাঙায় বাঘের এমন জলজ্যান্ত দৃষ্টান্ত স্মরণকালের মধ্যে আমরা দেখিনি। শুধু বাংলা বা ভারত নয়, সারা পৃথিবীর জন্যই এ এক অনন্য অভিজ্ঞতা। রোগ সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে সবাই ঘরের নিরাপদ কোণ বেছে নিলাম। কিন্তু বন্ধ ঘরের আশ্রয় এত দীর্ঘ হয়ে গেল যে তার ধাক্কায় স্তব্ধ অর্থনীতির চাকা। অতএব অনিবার্য হয়ে উঠেছে অর্থনীতির চাকায় ফের গতিসঞ্চারের মরিয়া চেষ্টা। ধীর পদক্ষেপেও সেটা করতে গিয়ে আতঙ্ক গ্রাস করছে—লকডাউনের এত কৃচ্ছ্রসাধন পুরো জলে চলে যাবে না তো! উহান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর প্রভৃতি জায়গার অভিজ্ঞতা তো তেমনই। দিন যত এগচ্ছে ততই পরিষ্কার হচ্ছে যে করোনা নামক মায়া-হস্তির সামনে আমরা সকলে রকমারি অন্ধ-দর্শক। একের সঙ্গে অন্যের পর্যবেক্ষণ বিশেষ মিলছে না। আজকের ‘দৃঢ়’ উপলব্ধি কালই নস্যাৎ হয়ে যাচ্ছে। ক্রমে যেন কুয়াশার মতো হারিয়ে যাচ্ছে প্রতিষেধক উদ্ভাবনের উচ্চাশা। বিশেষজ্ঞদের একটি বড় অংশের আপাতত অভিমত হল, করোনা নিয়েই আমাদের চলতে হবে, বাঁচতে হবে—জীবনের আর পাঁচটি স্বাভাবিক সমস্যাকে সঙ্গী করে নিয়ে যেমন দিব্য চলেছি আমরা! এমনটা শোনার জন্য কেউই প্রস্তুত ছিলাম না। এ কোনও সামান্য দুঃসংবাদ নয়, বিরাট এক ধাক্কা, যেন বিনা মেঘে বজ্রাঘাত! তবে মানুষের অন্বেষণ প্রবৃত্তি ও প্রবণতায় পূর্ণচ্ছেদ বলে কিছু হয় না। প্রতিষেধক আবিষ্কারে মানুষ এখনও মরিয়া—আন্তরিকভাবে লড়ে যাচ্ছে আমেরিকা, ইউরোপের পাশাপাশি চীন এবং ভারতও। জীবিকায় ফিরতে ক্ষেত্রবিশেষে লকডাউন শিথিল করা নিয়েও একাধিক মত বেরিয়ে আসছে। সোজা কথায়, তীব্র আজ জীবনের সঙ্গে জীবিকার অভূতপূর্ব এক লড়াই। যদিও এই লড়াই প্রতিনিয়ত জয়ের সঙ্কেতই দিচ্ছে—মানুষকে জীবিকায় ফিরিয়ে আনার প্রেরণা জুগিয়ে। জীবনের ধ্বজা ঊর্ধ্বে তুলে ধরার সূত্র-সন্ধানে গতি আসছে। আরও সহজ করে বলা যায়, জীবন ও জীবিকা নামক দু’কূল রক্ষার এক কুশলী খেলায় জিততে চলেছি আমরা।
ভাবছি বটে, কিন্তু মোটেই সহজ নয়। তার জন্য বিশেষ পরিকল্পনা দরকার। কারণ ১ ফেব্রুয়ারি নির্মলা সীতারামন যে বাজেট ২০২০-২১ পেশ করেছিলেন, করোনা পরিস্থিতিতে তার প্রাসঙ্গিকতা অনেকখানি নষ্ট হয়ে গিয়েছে। অনুমিত রাজস্ব সংগ্রহের পরিমাণ বাস্তবে সামান্য এক ভগ্নাংশে নেমে আসবে। বিরাট ধাক্কা খাবে আর্থিক বৃদ্ধি বা অভ্যন্তরীণ মোট উৎপাদন (জিডিপি)। অন্যদিকে, চিকিৎসা, জনস্বাস্থ্য, সামাজিক সুরক্ষা এবং নয়া আর্থ-সামাজিক পরিকাঠামো নির্মাণের প্রয়োজনে আকাশ ছোঁবে সরকারি ব্যয়ের বহর। রাজকোষ ঘাটতির পরিমাণ হবে পূর্বানুমানের দ্বিগুণের বেশি। সুতরাং আয়-ব্যয়ের হিসেব-নিকেশ মাঝপথে নতুন করে রচনা করার অবকাশ তৈরি হয়েছে বলা যায়, যাকে ‘চলতি বছরের বিশেষ করোনা বাজেট’ হিসেবেই গণ্য করা যায়। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী ২০২০ সালের জন্য সর্বমোট ২০ লক্ষ কোটি টাকার যে আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন—তার ভিতরে কতটা আত্মনির্ভরতা অর্জনের মন্ত্র রয়েছে অথবা সেটি কতটা পরিসংখ্যানের মারপ্যাঁচ তা নিয়ে তরজা অব্যাহত। করোনা বাগে আসার পরেও হয়তো তা থামবে না। কিন্তু তাতে আম জনতার কিছু যায় আসে না। মানুষের জিজ্ঞাসার বিষয় একটাই—এটাই কি আমাদের কাঙ্ক্ষিত করোনা বাজেট? এই প্যাকেজ বা বলা ভালো মহামারী বাজেট কি আমাদের মোটামুটিভাবে বাঁচিয়ে রাখতে সক্ষম? অর্থনীতির চাকা সামনে গড়িয়ে নিয়ে যেতে এই ঘোষণা কি যথেষ্ট?
কতকগুলি সংখ্যা, পরিসংখ্যান, তথ্য সপ্তাহ কয়েক যাবৎ শিল্প-অর্থনীতি মহলে ঘুরছে।
গত ১৭ মে দেশে বেকারত্বের হার (৩০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ) ছিল ২৩.৮৮ শতাংশ। সংখ্যাটিকে দু’ভাগে ভাগ করা যায়: শহরাঞ্চলে ২৬.৩ শতাংশ এবং গ্রামাঞ্চলে ২২.৮ শতাংশ। [সূত্র: সিএমআইই] এর থেকে এই ধারণা হয় যে, করোনা পরিস্থিতিতে শহরাঞ্চলের মানুষ বেশি খারাপ আছেন। সিএমআইই সম্প্রতি আরও খারাপ খবর দিয়েছে যে, ২০+ বয়সি ২ কোটি ৭০ লক্ষ যুবক-যুবতী কাজ হারিয়েছেন। দীর্ঘ মেয়াদে এর ফল যে মারাত্মক হতে চলেছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। সামান্য কিছু শূন্যপদের জন্য তাঁদেরকে এবার নতুনদের সঙ্গে তীব্র প্রতিযোগিতায় নামতে হবে। সিআইআইয়ের অভিমত হল: ৫২ শতাংশ শিল্প-বাণিজ্য সংস্থার ১৫-৩০ শতাংশ কর্মীকে চাকরি খোয়াতে হতে পারে। অন্যদিকে, আন্তর্জাতিক পরামর্শদাতা সংস্থা আর্থার ডি লিটলের আশঙ্কা, এই দফায় ভারতের সাড়ে ১৩ কোটি মানুষের চাকরিতে কোপ পড়তে পারে। মাথাপিছু আয় কমে যাওয়ার কারণে নতুন করে দারিদ্র্যের কবলে পড়তে পারেন ১২ কোটি নরনারী। তাঁদের মধ্যে চরম দারিদ্র্যের মুখে পড়তে পারেন শহর-গ্রাম মিলিয়ে ৪ কোটি মানুষ।
অন্য কিছু তথ্য হল: কোভিড-১৯ বিশ্বব্যাপী মহামারী হয়ে ওঠার জন্য প্রায় সারা পৃথিবী চীনকে ভয়ানক সন্দেহের চোখে দেখছে। বলা বাহুল্য, চীন এই মুহূর্তে এশিয়ার সবচেয়ে দ্রুত গতির অর্থনীতি। ক্রমোন্নত আর্থিক ও সামরিক শক্তিতে বলীয়ান চীন অহরহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বা ট্রাম্প সাহেবের দাদাগিরি অস্বীকার করার স্পর্ধা দেখায়। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্য-যুদ্ধে নেমেও ট্রাম্প প্রশাসনের বিরাগভাজন হয়েছেন জি জিনপিং। কোভিড-১৯-কে হাতিয়ার করে চীনকে শায়েস্তা করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিধ্বস্ত আমেরিকা। চীনের সঙ্গে বাণিজ্য-সম্পর্ক ছিন্ন করার চিন্তাও ঘুরছে তাদের মাথায়। মনে রাখা দরকার, যুক্তরাষ্ট্র সবচেয়ে বেশি পণ্য আমদানি (মোট আমদানির ২১ শতাংশের বেশি) করে যে দেশ থেকে তার নাম চীন। তেমনি যুক্তরাষ্ট্রের রপ্তানি বাণিজ্যেও চীনের গুরুত্ব বিরাট: আমেরিকার তৃতীয় বৃহৎ রপ্তানি বাজার। ২০১৮-র হিসেবে, চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের পণ্য ও পরিষেবা বাণিজ্যের মোট পরিমাণ ৭৩৭ বিলিয়ন ডলারের অধিক। সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ৩৭৯ বিলিয়ন ডলার! প্রভাবশালী মার্কিন সেনেটরদের একাংশ এখানেই ক্ষান্ত হতে চান না। তাঁরা চান, ২০২২ সালের শীতকালীন ওলিম্পিকস সংগঠনের দায়িত্ব বেজিংয়ের হাত থেকে কেড়ে নেওয়ার বন্দোবস্তটি পাকা করতে। আর এই পুরো ব্যাপারটিকে কেন্দ্র করে দুই বৃহৎ শক্তির মিডিয়া-যুদ্ধও ‘রণং দেহি’ রূপ নিয়েছে। ইউএস-ইন্ডিয়া স্ট্র্যাটেজিক অ্যান্ড পার্টনারশিপ ফোরাম সূত্রে আগেই খবর ছিল, শ’দুয়েক মার্কিন বাণিজ্য সংস্থা (কর্পোরেশন) তাদের উৎপাদন কেন্দ্র চীন থেকে ভারতে স্থানান্তরিত করা যায় কি না ভাবছে। দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানেরও কিছু কোম্পানি মুখিয়ে আছে ভারত, ভিয়েতনাম ও থাইল্যান্ডে সরে যেতে। কম্পিউটার, মোবাইল ফোন প্রভৃতি উৎপাদনে বিশ্বখ্যাত এক সংস্থা (যার সদর দপ্তর তাইওয়ানে) তাদের সাপ্লাই চেন অব্যাহত রাখার প্রয়াসে ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পরিমাণ পুঁজি চীন থেকে সরিয়ে ভারত, ভিয়েতনাম ও মেক্সিকোতে বিনিয়োগ করেছে। যেসমস্ত কোম্পানি চীন ছাড়তে চাইবে তাদের উৎসাহদানের জন্য জাপান ইতিমধ্যেই ২.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের তহবিল গড়তে উদ্যোগী হয়েছে। জাপানের লক্ষ্য ওষুধ, চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত সংস্থাগুলিকে আকর্ষণ করা।
টানা লকডাউনের কারণে বিশ্বজুড়ে খনিজ তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের চাহিদা কমে গিয়েছে। ভারতের খনিজ তেল ও গ্যাসের বাজার বিশেষভাবে আমদানি-নির্ভর। ২০১৯-এ মোট তেলের চাহিদার ৮৪ শতাংশ এবং মোট গ্যাসের চাহিদার ৫৩ শতাংশ আমদানি করা হয়। লকডাউনকালে চাহিদা বিপুলভাবে ধাক্কা খেয়েছে, আবার দামেও ঘটেছে রেকর্ড পতন। তার ফলে ভারতের তেল আমদানির খরচ ইতিমধ্যেই ৯ শতাংশ কমে গিয়েছে। এটা একদিক থেকে কোনও অর্থনীতির জন্যই সুখবর নয়, ভারতের জন্যও নয়। কারণ ভারতেরও নিজস্ব অয়েল মার্কেট রয়েছে। তার উল্লেখযোগ্য প্রভাব ভারতের অর্থনীতিতেও থাকে। তবুও আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম যতদিন তলানিতে থাকে ভারতের লাভ অবশ্যই। সংশ্লিষ্ট মহলের আশা, তেল বাণিজ্য ইতিমধ্যেই ভিতরে ভিতরে ভারসাম্যের দিকে পা বাড়াতে শুরু করেছে, যদিও স্বভাবিক অবস্থায় ফিরতে ২০২২ হয়ে যেতে পারে।
লগ্নি আকর্ষণের প্রশ্নে চীন যে সুবিধাগুলি ভোগ করে তার বেশিরভাগ ভারতেরও রয়েছে: পরিশ্রমী, মেধাবী ও দক্ষ মানবসম্পদ, বিপুল প্রাকৃতিক সম্পদ, অনুকূল প্রকৃতি, বিরাট অভ্যন্তরীণ বাজার। ভারতের বাড়তি রয়েছে—কাজ চালিয়ে নেওয়ার মতো ইংরেজি জানা বিরাট কর্মিদল। তার পরেও কি ভারত এই সামগ্রিক পরিস্থিতির সুযোগ নিতে প্রস্তুত? চীনকে বাদ দিলে মাথায় রাখতে হবে ভারতের একাধিক নিকট প্রতিদ্বন্দ্বীর নাম—ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড প্রভৃতি। শিল্প-বান্ধব প্রশাসন এবং যুগোপযোগী কর্মসংস্কৃতির সৌজন্যে তারা ইতিমধ্যেই নিজেদেরকে প্রমাণ করেছে। তবে, তাদের শিল্প-বাণিজ্য মূলত রপ্তানি-বাজার-নির্ভর, যেখানে ভারত অভ্যন্তরীণ চাহিদায় দশ গোল এগিয়ে থেকে খেলাটা শুরু করতে পারে। তবুও ভারতে লগ্নি করার আগে বিদেশিরা এখানকার গণতন্ত্রের নামে যা-খুশি করার প্রবণতা, জমি অধিগ্রহণের সীমাহীন জটিলতা, পুঁজির কাছে না-পছন্দ শ্রমনীতি এবং আমলাতান্ত্রিক দীর্ঘসূত্রতা নিয়ে পাঁচবার ভাবেন। দ্বন্দ্বদীর্ণ কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্কের কারণে এসব সমস্যা জটিলতর হয় হামেশা।
এই সব সমস্যা সমাধানে দরকার কয়েকটি ইতিবাচক মনোভাব: (এক) কেন্দ্রীয় শাসকরা ফেডারেল শাসনতন্ত্র এবং বিকেন্দ্রীকরণের নীতিতে শ্রদ্ধাশীল হবেন। কারণে অকারণে বিরোধ নয়, কেন্দ্র-রাজ্য সমন্বয়ের দৃষ্টান্ত বৃদ্ধি কাম্য। (দুই) ছোট-বড় সমস্ত রাজনৈতিক দল শুধু মানুষের স্বার্থে রাজনীতির অনুশীলনে অভ্যস্ত হবে। (তিন) তৃণমূল স্তরে খোঁজ-খবর নিয়ে দেশের শ্রমশক্তির প্রকৃত চিত্র জানা চাই। নির্ভরযোগ্য তথ্য (ডেটা) ছাড়া বিপর্যয় মোকাবিলার পরিকল্পনা করা আর হাওয়ায় ভেসে বেড়ানোর মধ্যে তফাত কিছু নেই। করোনা পরিস্থিতি থেকে শিক্ষা নিয়ে মজবুত স্ট্যাটিস্টিক্যাল ক্যাপাসিটি গড়তেই হবে। (চার) শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মানবসম্পদের ধারাবাহিক উন্নয়নে আন্তরিকতা ভীষণ ভীষণ জরুরি। মনে রাখতে হবে, অপুষ্টির হার এবার অনেক বাড়বে। তার প্রভাবে ভয়ানক চেহারা নিতে পারে অন্য একাধিক রোগ-সংক্রমণেরও বৃদ্ধি। যেন একা রামে রক্ষা নেই সুগ্রীব দোসর! (পাঁচ) তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির (আইসিটি) ব্যবহার দ্রুত বাড়াতেই হবে, পৌঁছে দিতে হবে সমস্ত পরিবারের কাছে, যাতে ডিজিটাল সমাজ ও অর্থনীতি গড়ার পথে সমস্ত প্রতিবন্ধকতা দূর হতে পারে আগামী দু’বছরে।
তাহলে অংশত অনুমাননির্ভর যাবতীয় সংখ্যা, পরিসংখ্যান, তথ্য ও তত্ত্বের ভীতিপ্রদ জাল কেটে করোনা-পরবর্তী ভারত অবশ্যই মাথা তুলে
দাঁড়াবে। এতকিছুর পরেও বলব, উল্লেখযোগ্য দেশ হিসেবে ভারত তুলনামূলকভাবে ভালো জায়গায় আছে। ভারত যেমন পরিস্থিতির শিকার, তেমন পরিস্থিতিরই সদ্ব্যবহারের মাধ্যমে ঘুরে দাঁড়াবে আমাদের প্রিয় দেশ।
21st  May, 2020
প্রতিষ্ঠানের থেকে বড় কেউ নয়
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 

প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বে কেউ নয়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেকে একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছেন। যার নেপথ্যে রয়েছে সংগ্রামী অতীত। তাকে কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। বিশদ

ধীর পায়ে পিছনে সরে আসা
পি চিদম্বরম

রাজতন্ত্রের যুগে ভারত মুক্ত বাণিজ্যকে গ্রহণ করেছিল, নতুন নতুন বাজার দখল করেছিল এবং ভারতের ভিতরেই অনেক জাতির সম্পদের বৃদ্ধি ঘটিয়েছিল। আমরা সেই সমৃদ্ধ উত্তরাধিকারের যুগে ফিরে যেতে পারি। কিন্তু ভয় পাচ্ছি এই ভেবে যে, গৃহীত নীতি নিম্ন বৃদ্ধির দিনগুলিতে আমাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাবে।  বিশদ

30th  November, 2020
আবার ঐতিহাসিক
ভুলের পথে বামপন্থীরা
হিমাংশু সিংহ

দীর্ঘ চারদশক সিপিএমের মিছিলে হেঁটে খগেন মুর্মু আজ বিজেপির এমপি। কী বলবেন, বিচ্যুতি না সংশোধন! ২০১৪’র লোকসভা ভোটে মথুরাপুরের বাম প্রার্থী রিঙ্কু নস্কর সম্প্রতি গেরুয়া দলে যোগ দিয়েছেন। নেতৃত্বের উপর আস্থা হারিয়ে নাকি স্রেফ আখের গোছাতে, আমরা জানি না! সম্ভবত আসন্ন নির্বাচনে বিজেপির প্রার্থীও হবেন। বিশদ

29th  November, 2020
দলবদলেই শুদ্ধিকরণ
তন্ময় মল্লিক

অনেকেই ঠাট্টা করে বলছেন, যার সঙ্গে চটে তার সঙ্গেই পটে, কথাটা বোধহয় বিজেপির জন্যই খাটে। যাঁদের সঙ্গে খটাখটি হয়েছে তাঁদেরই বিজেপি দলে টেনে নিয়েছে। বিশদ

28th  November, 2020
দেশের একমাত্র মহিলা
মুখ্যমন্ত্রী হয়ে থাকার লড়াই
সমৃদ্ধ দত্ত

৩৪টি রাজ্যে মাত্র একটি রাজ্যে ক্ষমতায় আসীন নারী মুখ্যমন্ত্রী, সেটা যথেষ্ট কৌতূহলোদ্দীপক। সুতরাং সমাজতাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গিতেও আগ্রহটি তীব্র হয় যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কি এই নারী ক্ষমতায়নের একমাত্র কেল্লাটি ধরে রাখতে সমর্থ হবেন?  বিশদ

27th  November, 2020
এই ধর্মঘটের লক্ষ্য
মমতা, মোদি নয়
হারাধন চৌধুরী

আজ বাংলাজুড়ে বিজেপির এই যে শ্রীবৃদ্ধি, এর পিছনে নিজেদের অবদানের কথা বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্ররা অস্বীকার করবেন কী করে? অস্বীকার তাঁরা করতেই পারেন। রাজনীতির কারবারিরা কত কথাই তো বলেন। বিশদ

26th  November, 2020
লাভ জেহাদ: বিজেপির
একটি রাজনৈতিক অস্ত্র
সন্দীপন বিশ্বাস

আসলে এদেশে হিন্দু, মুসলিম, শিখ, খ্রিস্টান কেউই খতরে মে নেই। যখন নেতাদের কুর্সি খতরে মে থাকে, তখনই ধর্মীয় বিভেদকে অস্ত্র করে, সীমান্ত সমস্যা খুঁচিয়ে তার মধ্য থেকে গদি বাঁচানোর অপকৌশল চাগাড় দিয়ে ওঠে। বিশদ

25th  November, 2020
ওবামার ‘প্রতিশ্রুতি’ এবং
বিতর্কের রাজনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

২০১৬ সালে ভারত সফরে এসে বারাক ওবামা সরব হয়েছিলেন ধর্মান্তরকরণ, ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে...। মোদির সামনেই। কাজেই এরপরের অধ্যায় নিয়ে তিনি যদি কলম ধরেন, বিজেপিকে স্বস্তিতে রাখার মতো পরিস্থিতি হয়তো তৈরি হবে না। বিশদ

24th  November, 2020
বিকাশ না গরিমা,
সংস্কার কী জন্য?
পি চিদম্বরম

কিছু কারণে ড. পানাগড়িয়া জোড়াতাপ্পির জিএসটি-টাকে প্রাপ্য গুরুত্ব দেননি এবং বিপর্যয় ঘটাল যে ডিমানিটাইজেশন বা নোট বাতিল কাণ্ড সেটাকেও তিনি চেপে গেলেন। বিশদ

23rd  November, 2020
ভোটের আগে দিল্লির
এই খেলাটা বড় চেনা
হিমাংশু সিংহ

 দিলীপবাবুরা জানেন, সোজা পথে এখনও পশ্চিমবঙ্গ দখল কোনওভাবেই সম্ভব নয়। আর তা বুঝেই একদিকে পুরোদমে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপব্যবহার শুরু হয়ে গিয়েছে। পাশাপাশি কাজ করছে তৃণমূলকেই ছলে বলে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়িয়ে দেওয়ার কৌশল। বিশদ

22nd  November, 2020
মমতা বিরোধিতাই
যখন রাজনীতির লক্ষ্য
তন্ময় মল্লিক

বামেদের ধারণা, মমতা তৃণমূল না গড়লে তারা আরও অনেকদিন রাজ্যপাট চালিয়ে যেত। তাদের চোখে মমতা ‘জাতশত্রু’। সেই কারণেই বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক, ফ্যাসিস্ট সহ নানা চোখা চোখা বিশেষণে ভূষিত করলেও মমতা বিন্দুমাত্র সুবিধা পান, এমন কাজ তাঁরা কিছুতেই করেন না। বিশদ

21st  November, 2020
বাইডেন জমানা, ইমরানের অস্বস্তি
মৃণালকান্তি দাস

পাকিস্তান জন্মের পর তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনকারী দেশটির নাম আমেরিকা। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে স্নায়ুযুদ্ধে পাকিস্তানকে পাশে পেতেই ঝাঁপিয়ে পড়েছিল ওয়াশিংটন। ভারতকে বাদ দিয়ে পাকিস্তানকে কেন কাছে টেনেছিল আমেরিকা? 
বিশদ

20th  November, 2020
একনজরে
পোষ্য মেজরের সঙ্গে খেলতে গিয়ে পড়ে গিয়ে পায়ের হাড়ে চিড় ধরল জো বাইডেনের। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ক্ষত সারাতে বেশ কয়েক সপ্তাহ বিশেষ জুতো পরতে হবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ইলেক্ট বাইডনেকে। ...

নবম শিখ গুরু তেগবাহাদুরের ৪০০তম জন্মবার্ষিকী ধুমধাম সহকারে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদি সরকার। বিভিন্ন কর্মসূচি শুরু হবে ৩১ জানুয়ারি। এগুলির সফল রূপায়ণের জন্য জাতীয় স্তরে ...

লক্ষ্মীবিলাস ব্যাঙ্কের (এলভিবি) গ্রাহকরা সম্পূর্ণ ব্যাঙ্কিং পরিষেবাই পাবেন। সোমবার ডিবিএস ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে একথা জানানো হয়েছে। সম্প্রতি ডিবিএস ব্যাঙ্কের সঙ্গে লক্ষ্মীবিলাস ব্যাঙ্কের সংযুক্তিকরণ ঘটানো হয়। এরপরেই আমানত নিয়ে এলভিবির গ্রাহকদের মধ্যে নানা সংশয় দেখা দেয়। ...

মানুষের তৈরি করা রাজনৈতিক সীমান্ত কী, জানে না পাখিরা। তাই শীতের শুরুতেই দুই বাংলা থেকে পরিযায়ী পাখিরা ভিড় জমিয়েছে সুন্দরবনের পাখিরালয় জঙ্গলে। হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকের শেষ সীমান্ত কালীতলা পঞ্চায়েতের পাখিরালয় গ্রাম। এই সীমান্তে ভারতের শেষ জঙ্গল ঝিঙেখালি। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব সমাগমে আনন্দ বৃদ্ধি। চারুকলা শিল্পে উপার্জনের শুভ সূচনা। উচ্চশিক্ষায় সুযোগ। কর্মক্ষেত্রে অযথা হয়রানি। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব এইডস দিবস
১৭৬১: মাদাম তুসো জাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা ম্যারি তুসোর জন্ম
১৯৩২:  ঔপন্যাসিক, কল্পবিজ্ঞান লেখক ও সম্পাদক অদ্রীশ বর্ধনের জন্ম
১৯৪১: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আক্রমণে চূড়ান্ত অনুমোদন দিলেন জাপানের সম্রাট হিরোহিতো
১৯৫৪: সমাজকর্মী মেধা পাটেকরের জন্ম
১৯৬৩: ভারতের ১৬তম রাজ্য হিসাবে ঘোষিত হল নাগাল্যাণ্ড
১৯৬৫: প্রতিষ্ঠিত হল বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ)
১৯৭৪: স্বাধীনতা সংগ্রামী সুচেতা কৃপালিনীর মৃত্যু
১৯৮০: ক্রিকেটার মহম্মদ কাইফের জন্ম
১৯৯৭: বিহারের লক্ষ্মণপুর-বাথে অঞ্চলে ৬৩জন নিম্নবর্গীয়কে খুন করল রণবীর সেনা
১৯৯৯: গায়ক শান্তিদেব ঘোষের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.০০ টাকা ৭৪.৭১ টাকা
পাউন্ড ৯৭.০৯ টাকা ১০০.৪৮ টাকা
ইউরো ৮৬.৫১ টাকা ৮৯.৬৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
28th  November, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮,৯৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৬,৪৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭,১৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫৯,৭০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫৯,৮০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর ২০২০, প্রতিপদ ২৭/১ অপঃ ৪/৫২। রোহিণী নক্ষত্র ৬/৩১ দিবা ৮/৩১। সূর্যোদয় ৬/৪/২, সূর্যাস্ত ৪/৪৭/২০। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৫ মধ্যে পুনঃ ৭/২৮ গতে ১১/৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/২৬ গতে ৮/১৯ মধ্যে পুনঃ ৯/১২ গতে ১১/৫১ মধ্যে পুনঃ ১/৩৭ গতে ৩/২৪ মধ্যে পুনঃ ৫/৯ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/২৬ মধ্যে। বারবেলা ৭/২৪ গতে ৮/৪৪ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৬ গতে ২/৬ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৬ মধ্যে। 
১৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর ২০২০, প্রতিপদ দিবা ৩/৫৭। রোহিণী নক্ষত্র দিবা ৮/৩৯। সূর্যোদয় ৬/৫, সূর্যাস্ত ৪/৪৮। অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে ও ৭/৪২ গতে ১১/১৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩২ গতে ৮/২৬ মধ্যে ও ৯/২০ গতে ১২/১ মধ্যে ও ১/৪৯ গতে ৩/৩৬ মধ্যে ও ৫/২৪ গতে ৬/৬ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ রাত্রি ৭/৩২ মধ্যে। বারবেলা ৭/২৬ গতে ৮/৪৬ মধ্যে ও ১২/৪৭ গতে ২/৭ মধ্যে। কালরাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৭ মধ্যে। 
১৫ রবিয়ল সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
যত এজেন্সি, ফোর্স আছে নিয়ে আসুন, তাও আমাদের সঙ্গে লড়তে পারবেন না: মমতা

04:16:11 PM

আগামী দিনে মানুষ ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে বুঝে নেবে: মমতা

04:13:33 PM

বাংলা গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ নয়: মমতা

04:08:34 PM

ভোটের আগে অনেককে ধমকাবে, জেলে ভরবে: মমতা

04:04:00 PM

মাঝেরহাট ব্রিজের নাম হবে জয়হিন্দ সেতু: মমতা

04:03:38 PM

বাংলা দিল্লির কাছে বঞ্চিত: মমতা

04:01:29 PM