Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

আত্মনির্ভরতার স্টিকার
মারা ‘খুড়োর কল’
সন্দীপন বিশ্বাস

 আত্মনির্ভরতার স্টিকার মারা ‘খুড়োর কল’
সুকুমার রায়ের ‘খুড়োর কল’ কবিতার সঙ্গে বাঙালির দীর্ঘদিনের পরিচয়। চণ্ডীদাসের খুড়োর সেই আজব কল ছিল একটা ভাঁওতা। ভালো ভালো খাবারের লোভ দেখিয়ে মানুষকে তা ছুটিয়ে মারত। মরীচিকার মতো অবাস্তব এবং বিরাট একটা ধাপ্পা ছিল ওই খুড়োর কল। কোনওদিনই তাকে ছোঁয়া যাবে না। তাই চণ্ডীদাসের খুড়োর মতো কেউ যখনই আমাদের সামনে আজব একটা কল ঝুলিয়ে দেন, তা চিনতে কিন্তু আমাদের ভুল হয় না। করোনায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বাড়তে বাড়তে একলক্ষ ছাড়িয়ে গেল। চতুর্থ লকডাউনে আমরা কি এখন সত্যিই ভরসা রাখতে পারছি? দেশের মানুষ যখন কেন্দ্রের নিষ্ক্রিয়তায় ক্ষুব্ধ, যখন সারা দেশে আওয়াজ উঠেছে, কেন্দ্রে কি কোনও সরকার আছে? তখনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিজি আত্মনির্ভরতার স্টিকার মারা একটা বিশাল খুড়োর কল আমাদের সামনে ঝুলিয়ে দিলেন। সে কল আবার এতবড় যে, চণ্ডীদাসের খুড়ো দেখেও লজ্জা পাবেন। করোনা পর্বের শুরু থেকেই মাঝেমাঝে তিনি দেখা দিয়ে নানা উদ্ভট পরিকল্পনার কথা জানিয়ে চলে যাচ্ছিলেন। এবারও তিনি এলেন এবং ২০ লক্ষ কোটি টাকা প্যাকেজের কথা ঘোষণা করে চলে গেলেন।
দুইয়ের পরে ক’টা শূন্য বসালে ২০ লক্ষ কোটি টাকা হয়? টাকার যে পরিমাণ, তাতে এমনিতেই মাথা ঘুরে যাবে। মনে হবে দেশের মানুষের স্বার্থে কী বিরাট পদক্ষেপ! আসলে সবটাই ভঙ্গি দিয়ে চোখ ভোলানোর একটা প্রক্রিয়া। এবার সেই কাজটি করতে দেশের অর্থমন্ত্রীকে পাঁচদিনের টেস্ট ম্যাচ খেলতে নামতে হল। পাঁচদিন ধরে সাংবাদিক সম্মেলনে বিস্তর উদ্যোগের কথা জানাতে হয়েছে তাঁকে। অনেক ঘাম ঝরিয়ে, অনেক হিসেবের ফিরিস্তি দিয়েও কিন্তু মানুষের মন জয় করা গেল না। আসলে ভঙ্গি দিয়ে চোখ ভোলানোর অভ্যাসটা এই সরকারের কাছে নতুন কিছু নয়। এই প্রক্রিয়া মোদি সরকার তাঁর প্রথম অভিষেকের পর থেকেই করে আসছে। বারবার দেখা গিয়েছে, কাজের থেকে লোকদেখানো ব্যাপারটাই বড় হয়ে দাঁড়ায়। প্রথম প্রথম সাধারণ মানুষের চমক লাগে বটে, কিন্তু আখেরে সেই অন্তঃসারশূন্য খেলা ধরা পড়ে যায়। প্রথমত, এই যে এত টাকার প্যাকেজ বলে ঘোষণা হল, তার পুরোটা মোটেই নতুন ঘোষণা নয়। বাজেটের ঘোষণার অনেক বরাদ্দ এখানে ঢুকে গিয়ে পরিমাণে গৌরব বৃদ্ধি করেছে। অর্থাৎ টাকার পরিমাণ দেখিয়ে প্রথমেই মানুষের মাথা ঘুরিয়ে দেওয়ার একটা সহজ ফিকির। একে করোনায় মানুষ আতঙ্কিত, তার খাবার নেই, পকেটে টাকা নেই। তাই তাকে ছেঁড়া কাঁথায় কোটি কোটি টাকার স্বপ্নে বুঁদ করে দাও। ডিমানিটাইজেশনের স্বপ্ন, জিএসটির স্বপ্ন, এনআরসির স্বপ্ন দেখতে দেখতেই বাস্তবে আমরা দেখেছি টাকার পতন, অর্থনীতির ধস, দেশের অশান্তির বাতাবরণ সৃষ্টি ইত্যাদি। ততদিনে বুক ফোলানো সরকার চুপসে গিয়েছে। একের পর এক ধাক্কায় টলোমলো গেরুয়া শিবির।
তখনই এল করোনা পর্ব। দেখা গেল লকডাউন ঘোষণা করা ছাড়া সরকারের আর কোনও কাজই রইল না। রাজ্যগুলি ঝাঁপিয়ে পড়ে যে ভূমিকা পালন করেছে, সেখানে কেন্দ্র সরকার দর্শক মাত্র। রাজ্যগুলি মাস্ক, পিপিই, স্যানিটাইজার চেয়ে চেয়ে হন্যে। কেন্দ্র সময়মতো সেসব সরবরাহ করতে ব্যর্থ হয়েছে। এখন ক্রমেই করোনার হানাদারি বাড়ছে। এই সঙ্কটকালে দাঁড়িয়ে কেন্দ্র যে প্যাকেজ ঘোষণা করল, তার সঙ্গে সরাসরি করোনার লড়াইয়ের যোগ নেই। সাধারণ মানুষের দুর্দশা ঘোচানোর দিশা নেই। কোটি কোটি সাধারণ মানুষ, যাঁরা শতশত মাইল হেঁটে বাড়ি ফিরছে, তাঁদের দিকে সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দেওয়ার কোনও অভিপ্রায়ই এই প্যাকেজে নেই। মমত্ব নেই, সহমর্মিতা নেই। কেনই বা ওইসব মজদুরদের প্রতি সহানুভূতি থাকবে? ওরা তো কেন্দ্রীয় সরকারের মুখে কালি ছিটিয়ে দিয়েছে। সমস্ত মিডিয়াজুড়ে এখন ওদের কান্না আর হাহাকারের গল্প। ওদের সেই সব গল্প খুলে দিয়েছে সরকারের মিথ্যে জনদরদী সাজার মুখোশটা। দেশের মানুষ দেখেছে, কী অসহায় অবস্থা ওদের। পেটে খাবার নেই। কিন্তু পুলিসের লাঠি খেতে হচ্ছে। কেউ ট্রেনে কাটা পড়ছে, কাউকে গাড়ি ধাক্কা মেরে চলে যাচ্ছে। কারও শিশু, বাবা, মা পথের উপরই মারা যাচ্ছে। রাস্তার উপরেই কোনও মা সন্তানের জন্ম দিয়ে আবার হাঁটতে শুরু করছে। অসহায় একটা দেশ হাঁটছে। ওদের পাশে মোদিজি নেই। যে মোদিজি, অমিতজি বাড়ি বাড়ি দলের লোক পাঠিয়ে প্রত্যেক নাগরিকের কাগজ দেখতে চেয়েছিলেন, আমরা ভেবেছিলাম গেরুয়া বাহিনীর সেই কট্টর ক্যাডাররা এই দুঃসময়ে বেরিয়ে আসবেন মানুষের সামনে। সরকারের সহমর্মিতার স্পর্শ পৌঁছে দেবে ওদের কাছে। কিন্তু কেউ আসেননি। আসলে শ্রীরামচন্দ্রের বিশাল মূর্তি তৈরির আগ্রহটুকুর গণ্ডিতেই ওঁরা আটকে রয়েছেন, শ্রীরামচন্দ্রের ক্ষমাসহিষ্ণু মানসিকতা বা প্রজাপালনের আদর্শটুকু ওঁদের নেই। তাই ওঁদের নাইট কার্ফু ঘোষণা করতে হয়। কেন নাইট কার্ফু? তার কোনও যথার্থ ও যুক্তিগ্রাহ্য জবাব না থাকলেও বোঝা যায়, রাতে ওদের পথ হাঁটা বন্ধ করতে চায় সরকার। রৌদ্রদগ্ধ দিন এড়িয়ে ওরা চেষ্টা করত রাতের শীতলতাটুকুর স্বস্তিস্পর্শ নিয়ে পথ হাঁটতে। তাই ওদের রাতে হাঁটা বন্ধ করা হোক। এখন কেউ রাতে হাঁটলে তাকে থামাতেই হবে। প্রয়োজনে বলপ্রয়োগও করা হবে। রাতে ওদের ওপর বলপ্রয়োগ হলে, যেন তার কোনও সাক্ষী না থাকে। অদ্ভুত এই নাইট কার্ফু। অর্থাৎ এই নাইট কার্ফু যেন মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা। হায়রে, কী নির্মম মানসিকতা!
আবার ঋণ হিসেবে যেটা দেওয়া হচ্ছে, সেটা কতটা কাজে লাগবে, সে বিষয়েও প্রশ্ন উঠতে পারে। মানুষের হাতে যদি পয়সা না থাকে, তাহলে তার ক্রয়ক্ষমতা কমবে। ক্রয়ক্ষমতা কমলে উৎপাদনও কমতে বাধ্য। সেখানে ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করে কতটা সাফল্য আসবে, তা নিয়ে বিশেষজ্ঞরা ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন। সামনে আরও সঙ্কটময় দিন। তার সামনে দাঁড়িয়ে সরকারের কাছ থেকে আরও একটু দূরদৃষ্টি মানুষ আশা করেছিল।
এই প্যাকেজ হল বহুমুখী এক খেলা। আমরা দেখতে পেলাম, করোনা সঙ্কটের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কেন্দ্র দেশের সব বেচে দেওয়ার খেলায় মেতে উঠেছে। কুড়ি লক্ষ কোটি টাকা বরাদ্দ করার আড়ালে সরকারের যে অভিপ্রায়টা লুকিয়ে ছিল, তা বেরিয়ে এসেছে। সব দরজা খুলে দেশকে এই সরকার ঠেলে দিল বেসরকারিকরণের পথে। এমন একটা সময়ে সেটা করল যখন সংসদ চালু নেই। কোনও আলোচনার দরকার নেই। অর্থাৎ সরকার একতরফাভাবে যে ঘোষণাটুকু করল, তার মধ্যে জড়িয়ে আছে একনায়কতন্ত্রের ছায়া। দেশের এতবড় ঘোষণায় কারও সঙ্গে আলোচনাটুকু পর্যন্ত করা হল না। সব বিক্রি হয়ে গেলে কিন্তু আমাদের দেশের গোপনীয়তা বলে আর কিছু থাকবে না। সমস্ত দেশটাই হয়ে উঠবে দেওয়াল ছাড়া একটা ঘর। সবাই দেখবে, আমরা কী করছি। অর্থাৎ কোথায় আমাদের কী আছে, কী নিয়ে গবেষণা করছি, সবটাই অন্যেরা নিমেষে জেনে যাবে। মানুষের ভোটের বিনিময়ে ক্ষমতায় আসা এই সরকার এখন নেহাতই বেচারাম ছাড়া আর কিছুই নয়।
তবে একটা উল্লেখযোগ্য দিক অবশ্যই আছে। একশো দিনের কাজে বরাদ্দ বাড়ানো। বৃদ্ধির পরিমাণ ৪০ হাজার কোটি টাকা। সেটা কতটা কীভাবে কাজে লাগবে, দেখা যাক। দেশের ১২ কোটি মানুষের মধ্যে এই বরাদ্দ বাড়িয়ে দিলে মাথাপিছু বার্ষিক আয় বাড়বে সাড়ে তিন হাজার টাকার মতো। অর্থাৎ মাসিক আয় বৃদ্ধি তিনশো টাকার মতো। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে, এই ঘোষণা আসলে শূন্য গর্ভ কলসির ঢক্কানিনাদ। বোঝাই যাচ্ছে, সরকারের এই ঘোষণা শুধুমাত্র রাজনৈতিক অভিসন্ধি পূরণ করার একটা পদক্ষেপ মাত্র।
সেদিনের আবির্ভাবে মোদিজি বারবার ‘আত্মনির্ভর’ কথাটা উচ্চারণ করেছেন। ৩২ মিনিটের মধ্যে তিনি ২৯ বার ‘আত্মনির্ভর’ শব্দটি ব্যবহার করেছেন। তার মানে কি সরকারের উপর বেশি নির্ভরশীল হতে নিষেধ করছেন? মানুষকে আত্মনির্ভর হওয়ার শিক্ষা দেওয়ার প্রয়োজন নেই। বারবার দেশের মানুষ প্রমাণ করেছে, তারা যথেষ্ট আত্মনির্ভর। মাসে দু’হাজার টাকাতেই পরিবার নিয়ে আত্মনির্ভরতার সঙ্গে এবং আত্মসম্মানের সঙ্গে বেঁচে থাকার চেষ্টা করে দেশের বহু মানুষ। ডিমানিটাইজেশনের সময় মানুষ লক্ষ্মীর ভাঁড়ের জমানো টাকা বের করে কষ্টের সঙ্গে সংসার চালিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছে, তারা কতটা আত্মনির্ভরশীল। বরং সাধারণ মানুষের থেকেই শিক্ষা নিন রাজনীতিকরা, মন্ত্রীরা। এই যে মোদিজির এত বিদেশ যাত্রা, সে কিন্তু দেশের মানুষের পয়সাতেই। পরজীবী কেউ যখন আত্মনির্ভরতার কথা বলেন, তখন মনে হয় পুরো সিরিয়াস একটা নাটক কুশীলবদের ভ্রান্তিতে কমেডিতে পরিণত হয়ে গেল। দেশের ট্রাজিক স্রোতের মধ্যে সরকারের ভূমিকা যেন কমেডিয়ানের মতোই। শুধুই হাসির খোরাক।
20th  May, 2020
নবান্ন দখলের ভোট
ও প্রেশার পলিটিক্স
হারাধন চৌধুরী

বিজেপি নেতৃত্ব ভাবছে, নাটক আর প্রেশার পলিটিক্স দিয়েই হাঁড়ির হাল মেরামত করে ফেলবে। কিন্তু মাস্টার স্ট্রোকের পলিটিক্সে আজও যিনি অদ্বিতীয় সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বুঝিয়ে দিয়েছেন, নন্দীগ্রাম ভাঙিয়ে একটি পরিবারের রাজনীতিকে আর একপাও এগতে দেবেন না তিনি। বিশদ

তৃণমূল বনাম তৃণমূল (বি)
শান্তনু দত্তগুপ্ত

হতে পারে বাংলার ভোট প্রধানমন্ত্রীর কর্তৃত্ব কায়েমের অ্যাসিড টেস্ট। কিন্তু একুশ যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরও প্রেস্টিজ ফাইট! দাঁড়িপাল্লার একদিকে কেন্দ্র, আর অন্যদিকে মমতার সরকারকে রাখলে উন্নয়ন এবং বেনিফিশিয়ারির নিরিখেই বিজেপি অনেক নীচে নেমে যাবে। বিশদ

19th  January, 2021
বাজেটের আগে অর্থমন্ত্রী
আরও বিভ্রান্ত করলেন
পি চিদম্বরম

যে-দেশে আমরা আজ বাস করছি সেটা দিনে দিনে অচেনা এবং বিস্ময়কর হয়ে যাচ্ছে। এটা খুব অবাক ব্যাপার নয় কি গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত একটা সরকার তার পুরনো গোঁ ধরেই বসে থাকবে, বিশেষ করে দিল্লির ভয়ানক শীতের মধ্যেও কৃষকদের প্রতিবাদ আন্দোলন যখন ৫৬ দিনে পা দিয়েছে? বিশদ

18th  January, 2021
ভোটকে কলুষিত করলে
উচিত শিক্ষা দিতে হবে
হিমাংশু সিংহ

তৃণমূল ভাঙতে দশ মণ তেল পুড়িয়ে বিজেপি এখন বুঝতে পারছে শুধু অবিশ্বাসের উপর দাঁড়িয়ে বাংলা দখল প্রায় অসম্ভব! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দুর্বল করা যাচ্ছে না। বিশদ

17th  January, 2021
ভোটের আগে ‘গাজর’ ঝোলানো
বিজেপির ট্র্যাডিশন
তন্ময় মল্লিক

ভোটের মুখে ‘গাজর’ ঝোলানোটা বিজেপির ট্র্যাডিশন। ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটের আগে সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের জমা ‘বেআইনি অর্থ’ ফিরিয়ে এনে প্রত্যেককে ১৫ লক্ষ টাকা দেওয়ার কথা বলেছিল বিজেপি। ‘গাজর’ ঝোলানোর সেই শুরু। এবার সোনার বাংলা ও কৃষি সম্মান নিধির ‘গাজর’। বিশদ

16th  January, 2021
ক’দিনের জন্য বাঙালি হওয়া যায় না
মৃণালকান্তি দাস

মাস কয়েকের জন্য রবীন্দ্রনাথ, রামমোহন, শ্রীচৈতন্য... বাংলার মনীষীরাই হয়ে উঠছেন গেরুয়া বাহিনীর প্রচারের অনুঘটক। এটা স্পষ্ট, ‘বহিরাগত’ তকমা ঘোচাতে বিজেপিকে নিরুপায় হয়েই বাংলার মনীষীদের আশ্রয় খুঁজতে হচ্ছে। বাংলার মনীষীরা কোন দলে, ভোট-হাওয়ায় সেই ধন্দ উস্কে দিতে চাইছে বিজেপি। বিশদ

15th  January, 2021
বাঙালির অস্তিত্ব রক্ষা দেশের
জন্যও ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ
জিষ্ণু বসু

বাঙালি ভারতের নবজাগরণের কাণ্ডারীর ভূমিকা পালন করেছে। জীবন্ত জাগ্রত ভারতাত্মার পূজাবেদি ছিল বাংলা। ১৮৮২ সালে ঋষি বঙ্কিমচন্দ্র লিখলেন আনন্দমঠ উপন্যাস। বাঁধা হল ‘বন্দেমাতরম’ গান। দেশমাতৃকাকে দশপ্রহরণধারিণী দেবী দুর্গার সঙ্গে তুলনা করলেন সাহিত্যসম্রাট। বিশদ

14th  January, 2021
এই রাজ্যে মেয়েদের
ভোট ভাগ করা যাবে না
সন্দীপন বিশ্বাস

বিজেপি জানে, পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতা দখল করতে না পারলে তাদের সিএএ-এনআরসি সব ব্যর্থ হয়ে যাবে। সারা দেশে একজন ব্যক্তিত্বই তাঁদের সব ভুলভাল কাজকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে লড়াই জারি রাখতে পারেন। তাঁর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির কাছে মমতা নামটাই জুজুর মতো। বিশদ

13th  January, 2021
বিজেপির প্রচারে স্বামীজি
আছেন, কিন্তু অনুসরণে...?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

স্বামীজি বলতেন, ‘এমন ধর্ম চাই, যার মূল মন্ত্র হবে মানবপ্রেম। এমন ধর্ম চাই, যা মানুষকে, বিশেষ করে অবহেলিত, পদদলিত মানুষকে প্রত্যক্ষ মানুষ বলে প্রচার করবে। খালি পেটে ধর্ম হয় না। ক্ষুধার্ত মানুষের কাছে ধর্ম বা ঈশ্বর অর্থহীন।’ নাঃ... যে পরিব্রাজক এমন কথা বলতে পারেন, তাঁকে বিজেপি অন্তত অনুসরণ করে না। বিশদ

12th  January, 2021
বিবেকানন্দের স্বপ্নের
বাংলা আবার গঠিত হবে
জগৎপ্রকাশ নাড্ডা

এক নতুন ভারতবর্ষের স্বপ্ন দেখেছিলেন স্বামীজি, যেখানে দারিদ্র্যের মোচন এবং চেতনার উন্মেষ ঘটবে। এই কাজে প্রয়োজন বিপুল পরিমাণ যুবশক্তি। বিশদ

12th  January, 2021
মহামারী, ভ্যাকসিন
এবং বিতর্ক
পি চিদম্বরম

মহামারী বিদায় নিচ্ছে বলে মনে হয়, তবে এখনও বিদায় হয়নি। ভ্যাকসিন আসছে বলে মনে হয়, তবে বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছয়নি। কিন্তু একটা জিনিস বরাবর একজায়গায় রয়ে গিয়েছে, সেটা হল বিতর্ক! বিশদ

11th  January, 2021
আদি বনাম নব্য, বিজেপিতে
নরকগুলজার সপ্তমে
হিমাংশু সিংহ

শেষে হাটে হাঁড়িটা ভাঙলেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষই। দলে স্বার্থপর দলবদলুদের দাপাদাপি দেখে আর স্থির থাকতে পারলেন না। বলেই বসলেন, একদিন যাঁরা নন্দীগ্রামে বিজেপিকে ঢুকতে বাধা দিয়েছিলেন, তাঁরাই আজ নতমস্তকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। আলিঙ্গন করছেন। একেবারে হক কথা। বিশদ

10th  January, 2021
একনজরে
সংসদ ভবনের ক্যান্টিনে ভর্তুকিতে খাওয়ার দিন ফুরতে চলেছে। দামি হচ্ছে ওই ক্যান্টিনের খাবার। মোটামুটি বাজার দরেই তা কিনে খেতে হবে সাংসদদের। মঙ্গলবার এমনটাই জানিয়েছেন লোকসভার ...

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে দ্বিতীয়বার টেস্ট সিরিজ জয়ের পর ভারতীয় দলকে কুর্নিশ জানালেন প্রাক্তন ও বর্তমান ক্রিকেটাররা। ...

জয়েন্ট এন্ট্রান্স এগজাম বা জেইই (মেইন) পরীক্ষার মাধ্যমে কেন্দ্রীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য আবশ্যিক নয় উচ্চ মাধ্যমিকে ৭৫ শতাংশ নম্বর পাওয়া। মঙ্গলবার খোদ কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল নিশাঙ্ক ট্যুইট করে একথা জানিয়েছেন। ...

দিনেদুপুরে তৃণমূলের পার্টি অফিসের সামনে গুলি করে খুন করা হল এক ব্যক্তিকে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত সঞ্জিত সরকার (৩৫) এলাকায় তৃণমূল কর্মী বলে পরিচিত। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের বিভিন্ন দিক থেকে শুভ যোগাযোগ ঘটবে। হঠাৎ প্রেমে পড়তে পারেন। কর্মে উন্নতির যোগ। মাঝেমধ্যে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮১৭: হিন্দু কলেজের (বর্তমান প্রেসিডেন্সি কলেজ) যাত্রা শুরু
১৮৯২ - আমেরিকার স্প্রিং ফিল্ডে প্রথম বাস্কেটবল খেলা হয়
১৯৩৪ - আলোকচিত্র এবং ইলেকট্রনিকস্ কোম্পানী হিসেবে ফুজিফিল্ম কোম্পানীর যাত্রা শুরু
১৯৭২: নতুন রাজ্য হল অরুণাচল প্রদেশ ও মেঘালয়
১৯৮৪ - বিশ্বের সেরা সাঁতারু ও টারজান চরিত্রাভিনেতা জনি ওয়েসমুলারের মৃত্যু
১৯৯৩: মার্কিন অভিনেত্রী অড্রে হেপবার্নের মৃত্যু
১৯৯৫ - তাজমহলকে পরিবেশ দূষণের হাত থেকে রক্ষাকল্পে ৮৪ টি শিল্প কারখানা বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৩৬ টাকা ৭৪.০৭ টাকা
পাউন্ড ৯৭.৯০ টাকা ১০১.৩৩ টাকা
ইউরো ৮৬.৯৮ টাকা ৯০.১৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯,৮২০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,২৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৮,০০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৬ মাঘ ১৪২৭, বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, সপ্তমী ১৭/১২ দিবা ১/১৬। রেবতী নক্ষত্র ১৫/৩৪ দিবা ১২/৩৬। সূর্যোদয় ৬/২২/৫১, সূর্যাস্ত ৫/১২/৩০। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৯ মধ্যে পুনঃ ১০/০ গতে ১১/২৬ মধ্যে পুনঃ ৩/২ গতে ৪/২৮ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫ গতে ৮/৪৩ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৩৬ গতে ৩/২ মধ্যে। রাত্রি ৮/৪৩ গতে ১০/২৯ মধ্যে। বারবেলা ৯/৫ গতে ১০/২৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৭ গতে ১/৮ মধ্যে। কালরাত্রি ৩/৬ গতে ৪/৪৪ মধ্যে। 
৬ মাঘ ১৪২৭, বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, সপ্তমী দিবা ১/৪০। রেবতী নক্ষত্র দিবা ১/৩০। সূর্যোদয় ৬/২৬, সূর্যাস্ত ৫/১১। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৭ মধ্যে ও ১০/০ গতে ১১/২৯ মধ্যে ও ৩/১০ গতে ৪/৩৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/১৫ গতে ৮/৫০ মধ্যে ও ২/০ গতে ৬/২৬ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪২ গতে ৩/১০ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৫০ গতে ১০/৩৩ মধ্যে। কালবেলা ৯/৭ গতে ১০/২৮ মধ্যে ও ১১/৪৯ গতে ১/৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৩/৭ গতে ৪/৪৭ মধ্যে। 
৬ জমাদিয়স সানি।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ফের বাস-মিনি ধর্মঘটের ডাক রাজ্যে
ফের রাজ্যে বাস-মিনিবাস ধর্মঘটের ডাক দিল বেসরকারি বাস মালিকদের কয়েকটি ...বিশদ

19-01-2021 - 06:03:06 PM

টিম ইন্ডিয়াকে ৫ কোটি টাকা বোনাস ঘোষণা বিসিসিআইয়ের
অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ২-১ টেস্ট সিরিজ জয়ের পুরস্কার পেল ভারতীয় ক্রিকেট ...বিশদ

19-01-2021 - 05:57:06 PM

ফের বাস-মিনি ধর্মঘটের ডাক রাজ্যে
ফের রাজ্যে বেসরকারি বাস-মিনিবাস ধর্মঘটের ডাক দিল বেসরকারি বাস মালিকদের ...বিশদ

19-01-2021 - 05:55:00 PM

করোনায় আক্রান্ত লিলি চক্রবর্তী
ফের করোনার থাবা টলিউডে। এবার করোনায় আক্রান্ত হলেন প্রবীণ অভিনেত্রী ...বিশদ

19-01-2021 - 05:15:26 PM

আর্জেন্তিনায় ভূমিকম্প, মাত্রা ৬.৪ 

19-01-2021 - 04:10:13 PM

খেজুরিতে তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষের অভিযোগ 
খেজুরির বারাতলায় তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষের অভিযোগ। পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে নিগৃহীত ...বিশদ

19-01-2021 - 03:58:00 PM