Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মন্বন্তরে মরিনি আমরা, মারী নিয়ে ঘর করি
 সন্দীপন বিশ্বাস

পৃথিবীর গভীর গভীরতর অসুখ এখন। আর এই ‘অসুখ’ থেকে বারবার মানুষ লড়াই করে ফিরে এসেছে। প্রতিবার অস্তিত্বের সঙ্কটের মুখে দাঁড়িয়ে একযোগে লড়াই করে মানুষ এগিয়ে গিয়েছে উত্তরণের পথে। প্রকৃতির কোনও মারণ আক্রমণেই সে পিছিয়ে পড়েনি। তাই মানুষ বারবার ঋণী মানুষেরই কাছে। আজ সারা বিশ্বেই মানুষের জীবনে আরও এক ক্রান্তিকাল সমুপস্থিত। এক ভয়াবহ ভাইরাস তাকে আক্রমণ করছে। সেই আক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে ঝড়ের বেগে। মানুষের সুস্থ জীবনে হঠাৎই মৃত্যুর নিকষ কালো হাতছানি। সচেতনতা দিয়ে এর বিরুদ্ধে লড়াই করে আবার সুস্থ হয়ে উঠতে পারে মানবসমাজ। এর থেকে অনেক বড়বড় মহামারীর বিরুদ্ধে আমরা সঙ্ঘবদ্ধভাবে লড়াই করেছি। সেই ইতিহাস আজ আমাদের নতুন করে প্রেরণা জোগাতে পারে।
আজ থেকে ১০২ বছর আগের কথা। সারা বিশ্বে তখন মরণথাবা বসিয়েছে স্প্যানিস ফ্লু। ১৯১৮ সালের এমনই এক বসন্তের দিনে ধরা পড়ল নতুন এক ভাইরাস। নাম তার এইচ ওয়ান এন ওয়ান। প্রায় দেড় বছর সেই রোগ মানবজাতির উপর দুরমুশ করেছিল। সারা বিশ্বে পাঁচ কোটি মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। ভারতেও এই মারণ ভাইরাসের প্রকোপ দেখা গিয়েছিল। গান্ধীজি তখন বছর চারেক হল দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ভারতে ফিরেছেন। তিনি তখন সবরমতী আশ্রমে থাকেন। তিনিও আক্রান্ত হলেন এই রোগে। আজ যেভাবে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে কোয়ারেন্টাইন এবং আইসোলেশনের মধ্য দিয়ে এই রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা চেষ্টা হচ্ছে, সেদিনও তাই হয়েছিল। স্প্যানিশ ফ্লু’র কোনও ওষুধ ছিল না। এভাবেই সেদিন মানুষ লড়াই করেছিল। সেই লড়াই আজ আমাদের কাছে এক দৃষ্টান্ত হয়ে উঠতে পারে। সেদিন আমাদের দেশে এক কোটি সত্তর লক্ষেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। সেদিন ছিল শিক্ষার অভাব। ছিল পরিকাঠামোর অভাব। পাশাপাশি ব্রিটিশ রাজের অবহেলাতেই মানুষ পথেঘাটে কুকুর বিড়ালের মতো মরেছিল। বলা হয়, সেদিন ব্রিটিশদের ওই অবহেলাই মানুষের মনে স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষাকে অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছিল। দেশ জুড়ে ক্রমেই আন্দোলন সংগঠিত হয়ে উঠেছিল। ভয় পেয়ে গিয়েছিল ব্রিটিশ রাজ। তাই ভারতীয়দের ‘উপযুক্ত শিক্ষা’ দিতে ১৯১৯ সালে তারা জালিয়ানওয়াবাগ হত্যাকাণ্ড করে বসল। সে অন্য ইতিহাস।
গান্ধীজি তাঁর অসুস্থতার মধ্যে তরল জাতীয় খাবার খেয়ে এবং ঘরে একা একা থেকে দিন কাটাতেন। ভারতের ভাগ্যবিধাতা সেদিন বাঁচিয়ে দিয়েছিলেন তাঁকে। সেদিন এই স্প্যানিশ ফ্লুতেই আক্রান্ত হয়েছিলেন সাহিত্যিক প্রেমচন্দও। তিনিও পরে সুস্থ হয়ে ওঠেন।
শরৎচন্দ্রের ‘শ্রীকান্ত’ উপন্যাসের মধ্যেই আমরা পেয়েছি ‘কোয়ারেন্টাইন’ শব্দটি। উপন্যাসটি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯১৮ সালে। ‘পরদিন বেলা এগার-বারটার মধ্যে জাহাজ রেঙ্গুন পৌঁছিবে; কিন্তু ভোর না হইতেই সমস্ত লোকের মুখচোখে একটা ভয় ও চাঞ্চল্যের চিহ্ন দেখা দিল। চারিদিক হইতে একটা অস্ফুট শব্দ কানে আসতে লাগিল, কেরেন্টিন। খবর লইয়া জানিলাম, কথাটা qarantine; তখন প্লেগের ভয়ে বর্মা গভর্নমেন্ট অত্যন্ত সাবধান। শহর হইতে আট-দশ মাইল দূরে একটা চড়ায় কাঁটাতারের বেড়া দিয়া খানিকটা স্থান ঘিরিয়া লইয়া অনেকগুলি কুঁড়েঘর তৈয়ারি করিয়াছে। ইহারই মধ্যে সমস্ত ডেকের যাত্রীদের নির্বিচারে নামাইয়া দেওয়া হয়। দশদিন বাস করার পর, তবে ইহারা শহরে প্রবেশ করিতে পায়।’
আজ কিন্তু আমরা অনেকেই কোয়ারেন্টাইন মানছি না। একটা জিনিস আমরা দেখতে পাচ্ছি। সেটা হল বিদেশ থেকে যাঁরা এসেছেন, তাঁদের অনেকেরই শিক্ষাগত যোগ্যতা অনেক, উচ্চবিত্ত শ্রেণীর, সেলেব্রিটি, আবার প্রভাবশালীও বটে। কিন্তু তাঁদের অনেকেরই নির্বুদ্ধিতা দেখে মনে হয়েছে, যত প্রভাবশালীই হোন না কেন, এঁরা অত্যন্ত অভাবশালী। অভাবটা বুদ্ধির, সচেতনতার, মানসিকতার। শুধু আত্মম্ভরিতা আর অবিবেচক হওয়ার কারণে এই কয়েকজন কলকাতায় করোনার বীজাণুটা ছড়িয়ে দিলেন। এই ছবিটা শুধু এই রাজ্যের নয়, সারা দেশের। প্রভাবশালী, আর কিছু আহাম্মক সেলেব্রিটি মনে করেন, এসব বুঝি তাঁদের জন্য নয়। ইসস, আমি কিনা বেলেঘাটা আইডিতে যাব! আমার মতো বড় মাপের মানুষ ওইসব গরিবগুর্বোদের চিকিৎসার জন্য তৈরি হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা করব? এই অহংকারই আজ দেশের অসংখ্য সাধারণ মানুষকে সংকটের মুখে ফেলে দিয়েছে। এদের ধিক্কার জানানোর ভাষাও যেন আমরা হারিয়ে ফেলেছি। একটা জিনিস এঁরা প্রমাণ করে দিয়েছেন। সেটা হল, আমাদের দেশের প্রধান অভিশাপ অশিক্ষা নয়। অভিশাপ হল, এদেশের শিক্ষিত কিছু মানুষের দায়িত্বজ্ঞানহীন নির্বুদ্ধিতা। সারাদেশের উৎকণ্ঠিত মানুষ আজ এই আত্মম্ভরিতার শাস্তি দাবি করছে।
১৯১৮ সালে আমাদের দেশে যে স্প্যানিশ ফ্লু ছড়িয়ে পড়েছিল, সেদিনও তা এসেছিল বিদেশ থেকেই। ১৯১৮ সালে মধ্যরাতে বোম্বাই (বর্তমানে মুম্বই) বন্দরে এসে নোঙর করল একটি জাহাজ। সেই জাহাজ থেকে নামলেন প্রথম বিশ্বযুদ্ধ থেকে ফিরে আসা সেনারা। সেই সেনা কর্মীদের মধ্য দিয়েই সেদিন ভারতে ঢুকেছিল স্প্যানিশ ফ্লুয়ের বীজাণু। এই রোগ ছড়িয়ে পড়তে বেশি দেরি হয়নি। সেদিন হেল্থ ইন্সপেক্টর জে এস টার্নার বলেছিলেন, ‘রাতের অন্ধকারে ভারতে যেন চোরের মতো ঢুকে পড়েছিল এক গুপ্ত ঘাতক।’ তারপর সেই রোগ ঝড়ের বেগে ছড়িয়ে পড়েছিল দক্ষিণ ভারতের উপকূল বরাবর। ভারতের অন্য অংশেও তা মৃত্যুর এক ভয়াবহ চিহ্ন এঁকে দিয়েছিল। হিন্দি সাহিত্যের বিশিষ্ট লেখক ছিলেন সূর্যকান্ত ত্রিপাঠি। তিনি ‘নিরালা’ নামেই পরিচিত। তিনি হারিয়েছিলেন তাঁর স্ত্রী সহ পরিবারের অনেককেই। তিনি লিখেছিলেন, ‘চোখের পলকে আমার পরিবারের সদস্যরা যেন অদৃশ্য হয়ে গেল।’ তখন এত মৃত্যু হয়েছিল যে সৎকার্য করার উপায় ছিল না। মানুষ নদীতে দেহ ভাসিয়ে দিত। গঙ্গায় ভেসে যেত পচাগলা মানুষের দেহ। এর ফলে সংক্রমণ যে আরও বেড়েছিল, এ বিষয়ে কোনও সন্দেহই নেই। পাশাপাশি দেশের অধিকাংশ ডাক্তারকেই তখন পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল ওয়ার ফ্রন্টে। তাই যেটুকু চিকিৎসার সুযোগ ছিল, তাও জোটেনি। তখন দেশের মানুষের শুশ্রুষার দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন একদল লড়াকু তরুণ। তাঁরা চাঁদা তুলে পাড়ায় পাড়ায় ক্যাম্প তৈরি করে মানুষকে সচেতন করার প্রয়াস চালাতেন। খাদ্য, জল সরবরাহ করতেন তাঁরা। কেউ মারা গেলে তাঁরাই অন্ত্যেষ্টির দায়িত্ব নিতেন।
সেদিন ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম আজকের মতোই জনগণের মধ্যে সচেতনতার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছিল। সংবাদপত্রে লেখা হতো, ‘কেউ বাইরে বেরবেন না। ঘরে থাকুন। অন্যজনের থেকে বিচ্ছিন্ন থাকুন।’ সেদিন কিন্তু মানুষ দুর্বলতর হয়েও সচেতনতা দিয়ে লড়াই করেছিল। সেদিন আমাদের দেশের মানুষ সেই লড়াইয়ে সরকারকে পাশে পায়নি। আজ কিন্তু সমস্ত দুর্বিপাকের মধ্যে সমস্ত সরকার একজোট হয়ে লড়াই শুরু করে দিয়েছে। আজ এটা দেখে খুবই ভালো লাগছে যে, সমস্ত রাজনৈতিক মতাদর্শগত ভেদাভেদ, লাভ লোকসান, ভোটের অঙ্ক ভুলে কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার একসঙ্গে হাত মিলিয়ে মানুষকে রক্ষা করার কাজে নেমেছে। এই মুহূর্তে এই রোগের একমাত্র ওষুধ হল জনবিচ্ছিন্নতা। সংস্পর্শে এলেই ছড়াবে এই রোগ। ছড়ানোর সুযোগ না পেলে ভাইরাস ধীরে ধীরে শক্তিহীন হয়ে পড়বে। প্রকোপ কমবে। এর মধ্যেও বাজারে, হাটে, সোশ্যাল নেটওয়ার্কে দেখা যাচ্ছে একদল অতি দিগ্‌গজ নানা ধরনের কথা বলে মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন। এখন সকলের কাছে একটাই অনুরোধ, এইসব অতি দিগ্‌গজদের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন। ওনারা করোনা ভাইরাসের থেকেও ভয়ংকর। সরকার, প্রশাসন, ডাক্তারদের নির্দেশ মেনে চলুন। প্রত্যেকের নিজস্ব নিরাপত্তা নিজের কাছে এবং নিজের নিরাপত্তাটুকু বজায় রাখলে অন্যদের নিরাপত্তাও রক্ষিত হবে। ‘ভ্রান্তিবিলাস সাজে না দুর্বিপাকে।’ ১৯১৮-র সেই লড়াই কিন্তু আজকের থেকে আরও ভয়ংকর ছিল। সেদিন অনেক প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও আমরা লড়াই করে বেঁচে উঠেছিলাম। সে তুলনায় করোনা ভাইরাসের মৃত্যুর হার কিন্তু অনেক কম। যদিও এই রোগ দ্রুত ছড়ায়। তাই আতঙ্কিত হওয়ার কোনও কারণই নেই। কেন্দ্র বা রাজ্য সরকার তার রাজধর্ম পালন করছে। আজ এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই এই লড়াইয়ের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। রাজ্যের মানুষকে সাহায্য করছেন, ভরসা জোগাচ্ছেন। তাঁর লড়াই উজ্জীবিত করেছে প্রত্যেককে। গেরুয়া শিবিরের কেউ কেউ এই লড়াইয়ের প্রশংসাও করছেন। পাশাপাশি বলা যায়, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যে জনতা কার্ফুর পদক্ষেপ নিয়েছেন, তাও সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে যথার্থ সিদ্ধান্ত। এভাবেই আমরা সবাই নিয়মশৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারি। সরকার এবং প্রশাসনের সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে এখন আমাদের উচিত মানুষের ধর্ম পালন করা। কোনও কোনও দেশে আইনের মধ্য দিয়ে মানুষকে বাধ্য করা হচ্ছে নিয়ম মেনে চলার। কোথাও কোথাও বলা হয়েছে, ‘হয় বাড়িতে থাকো নাহয় পাঁচ বছর জেলে থাকো।’ হয়তো এখনই আমাদের দেশে এই আইন বলবৎ করার সময় আসেনি। কিন্তু এমন যেন না হয়, যেদিন আমাদের দেশও এরকম একটা আইন এনে মানুষকে নিয়ম মানাতে বাধ্য করবে। এটুক সচেতন আমরা হতেই পারি। এই সচেতনতাই আজ মানুষের প্রকৃত ধর্ম। আজ এই বিপদকালে আমরা সত্যিই উপলব্ধি করতে পারছি, ধর্ম কাকে বলে। এতদিন আমরা দেখেছি রাজনৈতিক ধর্ম কিংবা ভক্তিমার্গগামী ধর্মের এক স্বরূপ। আজ এই বিপন্নতার মধ্যে দাঁড়িয়ে উপলব্ধি করছি বিরাজমান মানুষের ধর্মকে। মানুষকে রক্ষা করতে বন্ধ হয়েছে মন্দির, মসজিদ, গির্জা এবং অন্যান্য ধর্মস্থল। আজ ধর্মগুরুরাও বিজ্ঞানের সঙ্গে হাত মিলিয়ে লড়াইয়ে নেমেছেন। আজ সকলেই হয়তো উপলব্ধি করতে পারছেন, এই ধর্মই মহত্তর ধর্ম। মানব কল্যাণের ধর্ম।
অ্যালবেয়ার ক্যামু, জ্যাক লন্ডন, মার্কেস প্রমুখ সাহিত্যিকের লেখায় মহামারীর বিরুদ্ধে মানুষের লড়াইয়ের ছবি আঁকা হয়েছে। আমাদের কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত লিখেছেন, ‘মন্বন্তরে মরিনি আমরা, মারী নিয়ে ঘর করি/ বাঁচিয়া গিয়েছি বিধির আশীষে অমৃতের টিকা পরি।’ মানুষের কপালে আছে অমৃতের টিকা। তার ‘নাই নাই ভয়, হবে হবে জয়।’ 
23rd  March, 2020
অন্ধকারের অন্তরেতে
অশ্রুবাদল ঝরে
সন্দীপন বিশ্বাস

 আবার একটা স্বাধীনতা দিবসের সামনে দাঁড়িয়ে আছি আমরা। কয়েক দিন পরই সারাদেশ এই করোনার মধ্যেও মেতে উঠবে উন্মাদনায়। পতাকা তোলা, বীর সেনানীদের স্মরণের মধ্য দিয়ে আমরা দিনটি পালন করব। জাতীয়তাবোধের আবেগে রোমাঞ্চিত হব। বিশদ

মোদি সরকারের জাতীয় শিক্ষানীতি
২০২০ কেন বিপজ্জনক

তরুণকান্তি নস্কর

জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০ নিয়ে বিজেপি পরিচালিত কেন্দ্রীয় সরকার যে ভূমিকা পালন করছে তা নজিরবিহীন। ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর তাঁদের মাথায় যে নতুন একটি জাতীয় শিক্ষানীতি প্রবর্তন করার চিন্তা কাজ করছে তা বোঝা যায়। ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকেই নানা কথাবার্তা শোনা যাচ্ছিল।
বিশদ

পরিষেবা আর ব্যবসায়
কিছু ফারাক তো আছে!
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মুখ্যমন্ত্রী বারবার বলে এসেছেন, বাস বা ট্যাক্সিভাড়া হোক ফ্লেক্সিবল। মানে, তেলের দামের সঙ্গে ভাড়াও ওঠানামা করবে। তখন অবশ্য কেউ তাতে সাড়া দেননি। আর এখন চলছে ভাড়া বৃদ্ধির জন্য কান্নাকাটি। তাঁরা ভাবছেন না... লক্ষ লক্ষ মানুষ আজ কর্মহারা।
বিশদ

11th  August, 2020
 ভারতের সাধনা, শাস্ত্র, সংস্কৃতি সবই
শ্রীকৃষ্ণ মহিমায় পুষ্ট, বিকশিত
চৈতন্যময় নন্দ

দেবকীর প্রার্থনায় ভগবান তাঁর ঐশ্বরিকতা সংবরণ করে প্রকৃত শিশুর রূপ ধারণ করলেন এবং বসুদেবকে নির্দেশ দিলেন তাঁকে নিয়ে নন্দগোপের ঘরে রেখে আসতে। এরূপ আদেশ পেয়ে বসুদেব শিশুসন্তানকে স্কন্ধে নিতেই আপনা আপনিই লৌহশৃঙ্খলে আবদ্ধ কপাটের দরজা খুলে গেল।
বিশদ

11th  August, 2020
মনমোহন সিংয়ের পরামর্শও
উপেক্ষা করছে সরকার
পি চিদম্বরম

 ৩ আগস্ট, ২০২০। দ্য হিন্দু। প্রবীণ চক্রবর্তীর সঙ্গে যৌথভাবে ড. মনমোহন সিং একটি নিবন্ধ লিখেছেন। বিষয়: ভারতীয় অর্থনীতির পুনরুজ্জীবন। তাতে তিনটি অভিমুখ ছিল: সাধারণ মানুষের মধ্যে আত্মবিশ্বাস ফেরানো।
বিশদ

10th  August, 2020
নতুন জাতীয় শিক্ষানীতির হাত ধরে
সমগ্র স্কুলশিক্ষা কোন দিকে যাচ্ছে
অরিন্দম গুপ্ত

এই প্রথম জাতীয় আয়ের ৬ শতাংশ শিক্ষা খাতে ব্যয় করা হবে বলে জানানো হয়েছে। এটি শিক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দীর্ঘদিনের দাবি। এটি হতে চলেছে। এর চেয়ে স্বস্তি ও আনন্দের খবর আর কী হতে পারে?
বিশদ

10th  August, 2020
রাম রাজনীতির উত্তরাধিকার
হিমাংশু সিংহ

রামমন্দির নির্মাণ শেষ হলে এদেশের গেরুয়া রাজনীতির সবচেয়ে মোক্ষম অস্ত্রটাও কিন্তু রাতারাতি ভোঁতা হতে বাধ্য। যে স্বপ্নকে লালন করে তিন দশক দিনরাত পথচলা, তার প্রাপ্তি যেমন মধুর, তেমনই সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন, এর পর কী? বিশদ

09th  August, 2020
দল বদলের জেরে কুশীলবরাই হয়ে যান পুতুল
তন্ময় মল্লিক

রাজনীতিতে দল বদল খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। তবে, যাঁরা দল বদলান, তাঁরা ‘ঘরের ছেলে’র মর্যাদা হারান। গায়ে লেগে যায় ‘সুবিধাবাদী’ তকমা। পরিস্থিতি বলছে, তাতে রাজনীতির কুশীলবরা‌ই হয়ে যান হাতের পুতুল। বিশদ

08th  August, 2020
রামমন্দিরের পর হিন্দুত্ববাদী
রাজনীতি কোন পথে?
সমৃদ্ধ দত্ত

নরেন্দ্র মোদি কি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবেই উচ্চারণ করেছেন একাধিকবার ‘জয় সিয়ারাম’ ধ্বনি? উগ্র হিন্দুত্ব থেকে এবার কি অন্য নতুন এক সমন্বয়ের হিন্দুত্বে ফিরতে চান তিনি? সনাতন ভারতবর্ষ আশা করবে, হিন্দুত্ববাদী রাজনীতিকে তিনি আগামীদিনে চালিত করবেন সহিষ্ণুতা, বহুত্ববাদ আর ঐক্যের পথে।
বিশদ

07th  August, 2020
ক্রীড়া ও বিনোদন অর্থনীতি:
কী ভাবছে সরকার?
হারাধন চৌধুরী

 ১০০ বছর ধরে মাঠ কাঁপাচ্ছে যে দল, সেই লাল-হলুদ ঝড়ের নাম ইস্টবেঙ্গল। এই স্লোগানের সঙ্গে বাঙালি বহু পরিচিত। গত ১ আগস্ট, ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষ পূর্ণ হল। যে-কোনও ক্ষেত্রে সেঞ্চুরির গরিমা কতটা সবাই জানেন। ক্রীড়ামোদী বাঙালি মূলত দুই শিবিরে বিভক্ত—ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান।
বিশদ

06th  August, 2020
সবুজ হচ্ছে জঙ্গলমহলের প্রকৃতি ও মানুষ
সন্দীপন বিশ্বাস

জঙ্গলমহল হাসছে। এই কথাটা একসময় বহু ব্যবহৃত শব্দবন্ধের মতো হয়ে গিয়েছিল। তারপর সেটা নিয়ে বিরোধীদের বিদ্রুপ করা শুরু হল। কিন্তু এটা ঠিক, ২০১১ সালের আগে যে জঙ্গলমহলের চোখে জল ছিল, তা আর ফিরে আসেনি।
বিশদ

05th  August, 2020
 সমাজ ব্যর্থ হলে অসহায় মানুষের
পাশে দাঁড়াবার রাজনীতিই কাম্য
শুভময় মৈত্র

কোভিডাক্রান্ত ফুসফুসে সাহস জোগাতে সরকারের সহযোগিতায় দলমত নির্বিশেষে আরও কিছুটা উদ্যোগ জরুরি। দ্রুততার সঙ্গে সে কাজ না-হলে আম জনতা বিপদে পড়বে। সমাজ অকৃতকার্য হলে অ্যাম্বুলেন্সে উঠতে না-পেরে অসুস্থের মৃত্যু রুখতে হবে নিঃসহায়ের রাজনীতিকেই।
বিশদ

05th  August, 2020
একনজরে
 হাসপাতাল চত্বরে চলাচলের রাস্তার ধারেই করোনা পরীক্ষার যাবতীয় বর্জ্য সহ পিপিই কিট পড়ে থাকতে দেখা গেল। যে ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার চাঞ্চল্য ছড়াল দেগঙ্গার বিশ্বনাথপুর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। ...

 সোয়াব বা লালারসের নমুনা দেওয়ার সময় মালদহে অনেকেই ভুল ঠিকানা দিচ্ছে বলে অভিযোগ। ইচ্ছাকৃতভাবে মোবাইল নম্বরও ভুল দেওয়া হচ্ছে। ...

ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

 গ্রাম বাংলায় বিভিন্ন সামাজিক প্রকল্পের কাজে সহায়ক হিসেবে নিযুক্ত ২৫ হাজার গ্রামীণ সম্পদ কর্মী বা ভিলেজ রিসোর্স পার্সন (ভিআরপি) ফের দ্বারস্থ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

হঠাৎ মাথা গরমের প্রবণতার ফলে মানসিক অস্থিরতা দেখা দেবে। বিদ্যায় প্রতিকূলতার মধ্যেও সাফল্য আসবে। ব্যবসায়ীদের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস
১৭৬৫—ইস্ট ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে রবার্ট ক্লাইভ দ্বিতীয় শাহ আলমের কাছ থেকে বাংলা, বিহার ও ওড়িশায় দেওয়ানি স্বত্ত্ব লাভ করেন।
১৮৭৭: বহুভাষাবিদ তথা কলকাতার ইম্পেরিয়াল লাইব্রেরির (জাতীয় গ্রন্থাগারের) প্রথম গ্রন্থাগারিক হরিনাথ দের জন্ম।
১৮৯৫: অভিনেতা অহীন্দ্র চৌধুরীর জন্ম।
• ১৯১৯: পদার্থবিজ্ঞানী বিক্রম আম্বালাল সারাভাইয়ের জন্ম
১৯৬০ - সঙ্গীতশিল্পী, লেখক, অনুবাদক ও ঠাকুরবাডীর প্রগতিশীল বিদুষী মহিলা ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণীর মৃত্যু  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.০৫ টাকা ৭৫.৭৬ টাকা
পাউন্ড ৯৬.৩৮ টাকা ৯৯.৭৪ টাকা
ইউরো ৮৬.৪৫ টাকা ৮৯.৫৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫৬,১৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৫৩,২৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫৪,০৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭৪,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭৪,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
11th  August, 2020

দিন পঞ্জিকা

২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০, অষ্টমী ১৫/২ দিবা ১১/১৭। কৃত্তিকানক্ষত্র ৫৫/২৬ রাত্রি ৩/২৬। সূর্যোদয় ৫/১৬/৫, সূর্যাস্ত ৬/৭/৯। অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ৯/৩৩ গতে ১১/১৫ ম঩ধ্যে পুনঃ ৩/৩২ গতে ৫/১৫ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫২ গতে ৯/৬ মধ্যে পুনঃ ১/৩৩ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪৯ গতে ৩/৩২ মধ্যে পুনঃ রাত্রি ৯/৬ গতে ১০/৩৫ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৯ গতে ১০/৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ১/১৯ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৯ গতে ৩/৫১ মধ্যে।
২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০, অষ্টমী দিবা ৮/১৯। কৃত্তিকানক্ষত্র রাত্রি ১/৩৮। সূর্যোদয় ৫/১৫, সূর্যাস্ত ৬/১০। অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১৪ মধ্যে ও ৩/২৮ গতে ৫/১০ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৪৬ গতে ৯/১ মধ্যে এবং ১/৩২ গতে ৫/১৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪৬ গতে ৩/২৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/১ গতে ১০/৩১ মধ্যে। কালবেলা ৮/২৯ গতে ১০/৬ মধ্যে ও ১১/৪৩ গতে ১/১৯ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৯ গতে ৩/৫২ মধ্যে।
২১ জেলহজ্জ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ১ লক্ষ ছাড়াল
রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ছাড়াল। এ পর্যন্ত মোট ...বিশদ

11-08-2020 - 08:48:00 PM

করোনা আক্রান্ত রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ 

11-08-2020 - 08:05:09 PM

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা সঙ্কটজনকই
প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের অবস্থা শারীরিক অবস্থা সঙ্কটজনকই। হাসপাতালের ভেন্টিলেশনেই ...বিশদ

11-08-2020 - 07:11:07 PM

রাশিয়ায় একদিনে করোনা আক্রান্ত ৪,৯৪৫ 
রাশিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪,৯৪৫ জন। মৃত্যু ...বিশদ

11-08-2020 - 06:49:29 PM

রবীন্দ্রসদনের কাছে বহুতলে আগুন

 রবীন্দ্রসদনের কাছে একটি বহুতলে আগুন লাগল। স্থানীয় সূত্রে খবর, মঙ্গলবার ...বিশদ

11-08-2020 - 06:40:00 PM

তামিলনাড়ুতে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৫,৮৩৪ 
তামিলনাড়ুতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫,৮৩৪ জন। মৃত্যু ...বিশদ

11-08-2020 - 06:30:20 PM