Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

একে একে শুখাইছে ফুল, নিবিছে দেউটি
সন্দীপন বিশ্বাস

কয়েকদিন আগে মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘মেঘনাদ বধ কাব্য’ আবার পড়ছিলাম। আমাদের আধুনিক মহাকাব্য। রেনেসাঁসের আলোয় নতুন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে মাইকেল রামায়ণকে দেখেছিলেন। পড়তে পড়তে আমার দিব্যচক্ষু যেন খুলে গেল। মনে হল, আরে ভাই এতো একেবারে বর্তমানের সঙ্গে অনেকটাই মিলে যাচ্ছে। গোড়ায় মাইকেলের বিখ্যাত পংক্তি, ‘গাইব মা বীররসে ভাসি।’ এই বীররস আমরা কতই না দেখলাম! তার তালিকা করতে গেলে কয়েক রিম কাগজ লাগবে। একেবারে ছাপ্পান্ন ইঞ্চির ছাতি থেকে পাকিস্তানকে নাক খত দেওয়ানোর হুঙ্কার পর্যন্ত। এর পাশাপাশি জাতীয়তাবাদের আলোকে মনোপলি দেশপ্রেম, আলটপকা দেশদ্রোহী বাছাই, ধর্মভিত্তিক শাসানি বা পিটুনি, এমনকী খুন পর্যন্ত! এই সবকিছুই দেখা হয়ে গিয়েছে। এর মধ্যে যা আছে, তা হল, ভোটারদের মধ্যে আবেগের রসসিঞ্চন করে ভোটের ফায়দা লোটা। এইসবের মধ্যে নির্বাচনী লড়াই বা ভোটবাক্সে জোরদার সার্জিকাল স্ট্রাইকের প্রচেষ্টাই দেখা গিয়েছিল। কিন্তু নিট ফল আমরা কী দেখেছি? লোকসভা ভোটে মোদিজি ছক্কার পর ছক্কা মারলেও বিধানসভা ভোটে তাঁর জেতার মতো তাকত নেই। নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহের নৌকা একের পর এক রাজ্যে ডুবেছে। অনেকটা ভারতীয় ক্রিকেট দলের মতো। দেশের মাটিতে আমরা অন্যদের নাকানি চোবানি খাওয়াই। কিন্তু বিদেশের মাটিতে সবুজ পিচে ভারতীয় ক্রিকেট দলের ভরাডুবির গল্প যেন মিথ হয়ে যায়। এখানে বিধানসভা ভোটেও মোদিজির সেই অবস্থা! পরপর হোয়াইট ওয়াশ। কিন্তু হার মানেই পরাজয় নয়। এটাই এখন রাজনীতির নতুন শপথবাক্য। তাই পরাজয়ের পরের ক্ষণ থেকেই জয়ের রাস্তায় কীভাবে হাঁটা যায়, তার ছোঁকছোঁকানি শুরু হয়ে যায়। পথ যদি কেউ চেনেন, তাহলে রাস্তার অভাব হয় না। রাস্তা তো কম নেই। সামনের দরজা না থাকলে, খিড়কি দরজা তো আছেই। সেখান দিয়ে সিঁদ কেটে ক্ষমতা দখলের ইতিহাস আমাদের মুখস্থ হয়ে গিয়েছে। অতীতেও এইসব খেলা আমরা দেখেছি, এখন আরও ঘনঘন দেখছি। আগে বলা হতো, আয়ারাম গয়ারাম। এখন বলা হয়, ঘোড়া কেনাবেচা।
এই কেনাবেচার খেলায় মহারাষ্ট্র রাজ্যটাকে এখনও তেমনভাবে অবশ্য কব্জা করতে পারেননি মো-শা জুটি। তবে কোনওদিন পারবেন না, এটা ভাবা ভুল। টোপ মারার প্রক্রিয়া অবিরত চলছে। আমরা জানি, বীরেরা কখনো দমে যান না। স্কটল্যান্ডের রাজা রবার্ট ব্রুসের মতো চেষ্টার পর চেষ্টা করে যাওয়ার অন্য নামই তো হল বীরত্ব! সুতরাং কেউ যদি ভাবেন, বীরত্ব আধ ছটাক কম পড়ল, তাহলে তিনি নিতান্তই আহাম্মক। কয়েকদিন আগেই মহারাষ্ট্র বিধানসভায় দাঁড়িয়ে বিজেপির প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী তথা বর্তমান বিধায়ক সুধীর মুঙ্গানিতোয়ার বলেছেন, একদিন না একদিন মহারাষ্ট্রের মাটিতেও জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার মতো নেতার সন্ধান আমরা পাব। সেদিন বিজেপি-শিবসেনা আবার ভাই ভাই হয়ে উঠবে। সেই সঙ্গে অবশ্য তিনি এটাও স্বীকার করে নিয়েছেন যে, বিজেপি শিবসেনার সঙ্গে প্রতারণা করেছে। একেই বুঝি বলে বীরত্ব।
সেই বীরত্বেরই সাম্প্রতিকতম নিদর্শন হল মধ্যপ্রদেশ। আবার অন্যের ঘর ভেঙে সরকার গড়ার খেলা শুরু হয়েছে সেখানে। সেই একই চিত্রনাট্য। বিরোধী দলের বিধায়কদের তুলে নিয়ে গিয়ে দামি রিসর্টে রেখে রফা পর্ব চলা। দরদাম ঠিক করা। ঘোড়া কেনাবেচা কাজ, ভোটে হারি নাহি লাজ। জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে তুলে নিয়ে একটা বড় দাঁও মেরেছে বিজেপি। কত বড় দাঁও, সেটা অবশ্য ভবিষ্যতেই বোঝা যাবে। সত্যিই কি জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া কংগ্রেসের একটা বড় শক্তিকে ভেঙে নিয়ে বেরিয়ে আসতে পারবেন? সবটাই নির্ভর করছে দরদামের উপর।
কিন্তু জ্যোতিরাদিত্যর বিজেপি শিবিরে তড়িঘড়ি লাফিয়ে পড়ার পিছনে ঘুরছে অন্য একটি কাহিনিও। সেটি হল ইয়েস ব্যাঙ্কের প্রতিষ্ঠাতা রানা কাপুরের সঙ্গে জ্যোতিরাদিত্যর যোগাযোগ। মুম্বইয়ের বিখ্যাত আকাশচুম্বী ভবন ‘সমুদ্র মহল’। এখানকার ফ্ল্যাটের দাম পঞ্চাশ কোটি টাকার ওপর। এখানে বিখ্যাত সব মানুষের বাস। এক সময় এখানকার ফ্লাটে থাকতেন নীরব মোদি এবং বিজয় মালিয়া। থাকেন ইনফোসিসের নন্দন নিলেকানি, বেদান্ত গ্রুপের প্রতীক আগরওয়াল সহ সমাজের বড় বড় ব্যক্তিত্ব। এখানেই আগে ছিল গোয়ালিয়রের রাজাদের নিজস্ব প্রাসাদ। সেটি ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে তৈরি করেছিলেন মাধবরাও সিন্ধিয়ার দাদু। একসময় এখানেই বছরের অনেকটা সময় কাটাতেন সিন্ধিয়া পরিবারের সদস্যরা। এই প্রাসাদেই বিজয়রাজের সিন্ধিয়ার কোল আলো করে জন্ম নিয়েছিলেন মাধবরাও সিন্ধিয়া। পরবর্তীকালে সেটি বিক্রি করে দেওয়া হয়। সেটি ভেঙে সেখানে বেশ কয়েকটি হাইরাইজ বিল্ডিং তৈরি হয়। এখানে জ্যোতিরাদিত্যর দুটি ফ্ল্যাট আছে। তার মধ্যে একটি ডুপ্লেক্স। সেটিতে ভাড়া থাকতেন ইয়েস ব্যাঙ্কের রানা কাপুর। ইডির পক্ষ থেকে এই ফ্ল্যাটটিতে রেইড করা হয়। তারপরেই গ্রেপ্তার করা হয় রানা কাপুরকে। রানা গ্রেপ্তার হওয়ার একদিন পরই হঠাৎ করে বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া বিজেপিতে যোগ দেন। বিরাট একটা রহস্য কিন্তু পুরো গল্পটার মধ্যেই লুকিয়ে আছে। রানার গ্রেপ্তারের পরই হঠাৎ পটভূমিকার বদল হয়েছে। সেই রহস্য খুঁজে আনতে গেলে আজ আর একবার ডাকতে হবে ব্যোমকেশ বক্সিকে।
মধ্যপ্রদেশ সরকার ফেলে দিয়ে সেখানে বিজেপি সরকার গঠন করতে পারবে কিনা, এটা একটা প্রশ্ন। সেটা রাজনৈতিক সক্ষমতার প্রশ্ন। কিন্তু তারপরেও একটা পাল্টা প্রশ্ন থেকে যায়, সেটা আদর্শগত নৈতিকতার প্রশ্ন। জনগণের দ্বারা নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতার স্বার্থে ভেঙে দিয়ে নিজেরা সরকার গঠন করে বিজেপি কার্যত জনগণেশের ম্যান্ডেটটাকেই অপমানিত করছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে বারবার প্রশ্ন উঠছে, কেন্দ্রে ক্ষমতায় থাকার জোরে, অর্থের জোরে এভাবে সরকার ভেঙে দিলে, ভোটের দরকার কি সত্যিই আর থাকে? গণতন্ত্রের মর্যাদা কি আর থাকে? মানুষের কাছে রাজনীতিকদের শ্রদ্ধা পাওয়ার মতো কিছু কি আর থাকে? মুখে বারবার নৈতিকতার কথা বলাটা তখন মিথ্যা প্রহসনের মতো শোনায়। সম্ভ্রম বলে আর কিছু থাকে না। সম্ভ্রমকে জুতোর সুখতলা বানিয়ে ক্ষমতার দিকে এগিয়ে যাওয়ার নামই কি
তবে রাজনীতি? অসহায় মানুষ তাঁর গণতান্ত্রিক অধিকারের অমর্যাদা দেখে আজ এই কথাই ভাবছেন!
এখানেই শেষ নয়, আরও আছে বাকি! এর মধ্যেই বিশ্বজুড়ে মহামারীর মতো ছড়িয়ে পড়েছে এক নতুন রোগ, করোনা। এই মারণ ভাইরাস যেভাবে ছড়িয়ে পড়ছে, তাতে অনায়সেই একে বলা যেতে পারে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ। বায়োলজিক্যাল ওয়্যারফেয়ার। আমরা জানি না, কে বা কারা এই জৈব অস্ত্র তৈরি করেছেন! কাদের বিরুদ্ধেই বা ব্যবহারের পরিকল্পনা ছিল! কিন্তু আমরা জানি ফ্রাঙ্কেনস্টাইনের গল্প। ১০২ বছর আগে লেখা মেরি শেলির সেই ভয়ঙ্কর উপন্যাস আজ যেন অন্যরূপে মানবসমাজে অভিশাপ হয়ে নেমে এসেছে। মানুষই আজ মানুষের একমাত্র শত্রু। এখনই বড় প্রতিরোধ গড়ে তুলতে না পারলে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। শুধু গোমূত্র দিয়ে যাঁরা একে ঠেকানোর পরিকল্পনা করছেন, তাঁরা মানবিকতার বড় শত্রু। তাই যদি হতো, তবে মোদিজি তাঁর বিদেশ সফর বাতিল করতেন না। এক বোতল গোমূত্র নিয়েই তিনি বিদেশ সফরে বেরিয়ে পড়তেন। সুতরাং এইসব অবৈজ্ঞানিক এবং অস্বাস্থ্যকর প্রয়াস বন্ধ করতে অবিলম্বে উদ্যোগ নিক মোদি সরকার।
এই সবের ফাঁকেই চলছে ব্যাঙ্কের পতন। মুম্বইয়ের পিএমসি ব্যাঙ্কের হাল আমরা দেখেছি। ভেঙে পড়েছে। পিএমসির পর ইয়েস ব্যাঙ্ক। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে, এরপর কোন ব্যাঙ্ক? তালিকায় আছে অনেকগুলি ব্যাঙ্ক। ধীরে ধীরে আরও কয়েকটি ব্যাঙ্কই অচিরে ভেঙে পড়তে পারে। মানুষ তাহলে টাকা রাখবেন কোথায়? ব্যাঙ্ক তাহলে তাঁকে কতটুকু গ্যারান্টি দিতে পারে? সরকারকে এই পরিস্থিতিতে অসহায় দেখাচ্ছে। দিল্লির অশান্তির সময় যেমন সরকার লুকিয়ে পড়েছিল, এখনও চুপ করে পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে আর রামনাম জপছে। রামনামে উদ্ধার পাওয়া যে যায় না, তা আমরা জানি। কিন্তু রাজনীতি সেটা জানে না। এই অসহায়তার মধ্যে আর যাই দেখি সরকারকে খুব একটা সাহসী দেখাচ্ছে না। এনআরসি, সিএএ, শাহিনবাগ নিয়ে দিল্লির সংঘর্ষ, ব্যাঙ্কিং সিস্টেমের একটু একটু করে ভেঙে পড়া, অর্থনীতির ক্রমেই ঘুমিয়ে পড়া, এই সবকটা দুর্বিপাক একের পর এক আমাদের জীবনকে বিপর্যস্ত করে তুলছে। এর পিছনে বারবার সরকারের ব্যর্থতাই উঠে এসেছে।
এখানেই আমার মনে হল ’‘মেঘনাদ বধ কাব্যে’র সঙ্গে একটা প্রাসঙ্গিক তুলনা। যুদ্ধের সময় যেমনভাবে রাবণের কাছে একের পর এক খারাপ সংবাদ পৌছে দিতেন ভগ্নদূত। আজ প্রতিদিন যেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে কোনও এক ভগ্নদূত একের পর এক খারাপ খবর পৌঁছে দিচ্ছেন। পরের পর খারাপ খবর, ব্যর্থতার খবর, রাজকার্যে পরাজয়ের খবর। আর তিনি যেন নীরবে নিজের মনেই বলে চলেছেন, ‘একে একে শুখাইছে ফুল এবে, নিবিছে দেউটি’। এই প্রলাপ-বিলাপ অবশ্য কতটা সত্য আমরা সঠিকভাবে জানি না।
কবিচন্দ্রের রামায়ণে বলা হয়েছে, ‘রাজার পাপে রাজ্য নষ্ট, প্রজা কষ্ট পায়’ এবং ‘তোর পাপে মজিল রাজা লঙ্কার বসতি’। এই রকম পংক্তি অবশ্য মাইকেলের লেখাতেও আছে। মন্দোদরি সমস্ত পরিস্থিতির জন্য রাবণকে অভিযুক্ত করে বলছেন, ‘হায় নাথ, নিজ কর্ম-ফলে, মজালে রাক্ষসকুলে, মজিলা আপনি।’ পাপপুণ্যের বিচার অবশ্য এক একজনের কাছে এক একরকম। বিজেপি খুব ধার্মিক দল, শাস্ত্র মানে, পুরাণ মানে, গীতা, রামায়ণ, মহাভারত মানে। এতে অবশ্যই অন্যায়ের কিছু নেই। কিন্তু রাজার পাপে রাজ্যের এবং প্রজার ক্ষতি হয়, এই আপ্তবাক্যটি তারা কি মানে? নাকি, শুধু নিজেদের সুবিধাটুকু বা স্বার্থরক্ষার অংশটুকু মানে। স্বীকার না করলেও হয়তো মানে। কেননা তারা তো দেখছে, একটা একটা করে ফুল শুকিয়ে যাচ্ছে। নিভে যাচ্ছে প্রত্যাশার দীপ।
কার্টুন: সুব্রত মাজী 
16th  March, 2020
করোনাকালেও অব্যাহত পাকিস্তানের নষ্টামি
হারাধন চৌধুরী

 গত ১৬ মার্চ কুখ্যাত জঙ্গি সংগঠন আইসিস তার সদস্য ও অনুগামীদের ইউরোপ সম্পর্কে হুঁশিয়ার করে বলেছিল—‘‘দি ল্যান্ড অফ দি এপিডেমিক!’’ লন্ডন থেকে তাদের ‘অ্যাডভাইজারি’ ছিল যে: বিশ্ব মহামারীর এই নতুন কেন্দ্রে তাদের কেউ যেন আপাতত পা না-রাখে এবং ইউরোপে অবস্থানকালে কেউ যদি ইতিমধ্যেই করোনা সংক্রামিত হয়ে গিয়ে থাকে তবে সে/তারা যেন কোনওভাবেই সংগঠনে এসে ভিড়ে না-যায়।
বিশদ

ড্রেনের জল পরীক্ষা করেই গোষ্ঠী সংক্রমণের আগাম হদিশ মিলতে পারে
মৃন্ময় চন্দ

 নোভেল করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে সারা বিশ্ব প্রকম্পিত। রোগটির চালচলন বিজ্ঞানী বা চিকিৎসক মহলে মোটেই পরিচিত নয়। শুধু চীন কেন, আমেরিকা, ইতালি, স্পেন, ইরান—সর্বত্রই বয়স্কদের উপর বেশি আঘাত হানতে শুরু করেছিল এই মারণ ভাইরাস।
বিশদ

করোনার পরেও আছে এক অন্ধকার সময়
সন্দীপন বিশ্বাস

 কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য তখন যক্ষ্মারোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসারত। তাঁর ওই অবস্থা নিয়ে সাহিত্যিক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় একটি অসাধারণ কবিতা লিখেছিলেন। ‘আমরা চাঁদা তুলে মারব কীট/... বসন্তে কোকিল কেশে কেশে রক্ত তুলবে সে কীসের বসন্ত!’
বিশদ

08th  April, 2020
জরুরি দ্রুত এবং ব্যাপক জনমুখী পদক্ষেপ
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

করোনা ভাইরাস ভারতীয় অর্থনীতির সামনে একই সঙ্গে একটা বড় ধাক্কা এবং কিছুটা সুযোগ দিয়ে গেল। এমনিতেই বৃদ্ধির হার কমতে কমতে ৪ থেকে সাড়ে ৪ শতাংশের মধ্যে ঘোরাফেরা করছিল। আশা করা যাচ্ছিল এবার হয়তো সেটা ৫ শতাংশের কাছে পৌঁছবে।
বিশদ

08th  April, 2020
গ্যালারি শো কতদিন?
খাবার জুটবে তো?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 ব্যবসার কাজে হংকং গিয়েছিলেন বেথ এমহফ। কাজ সেরে পার্টি... তারপর দেশে ফেরা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। শিকাগো হয়ে যখন মিনিয়াপোলিস ফিরলেন, ততক্ষণে উপসর্গ দেখা দিয়েছে। দুই, চার, ১৬, ২৫৬... বাড়তে শুরু করল সংখ্যা। সর্দি, কাশি, জ্বর... মৃত্যু। এটাই ছিল চক্র। বিশদ

07th  April, 2020
যাও সুখের সন্ধানে যাও
অতনু বিশ্বাস

 সাম্প্রতিক ভারত সফরের দ্বিতীয় দিনে মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প তখন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠকে ব্যস্ত। মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প গিয়েছিলেন দিল্লির একটি সরকারি স্কুলে। পূর্বনির্ধারিত ‘হ্যাপিনেস ক্লাস’-এ যোগ দিয়ে ছাত্রছাত্রীদের সুখের ক্লাস দেখতে। বিশদ

07th  April, 2020
এখন সবাই জেলবন্দি
পি চিদম্বরম

 বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেবে, করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) ২০৫টি দেশ আক্রান্ত হয়েছে। ভাইরাস হল সংক্রমণ ঘটাতে পটু এক ধরনের সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম বস্তু, যা কেবলমাত্র প্রাণীদেহের জীবিত কোষের ভিতরে প্রবেশ করে নিজের প্রতিলিপি ক্রমান্বয়ে বাড়িয়ে চলে। বিশদ

06th  April, 2020
ধর্মীয় গোঁড়ামির কাছে কি শেষে
হার মানবে করোনা বিরোধী লড়াই?
হিমাংশু সিংহ

 এই ভয়ঙ্কর মহামারীর দিনে দিল্লির নিজামুদ্দিনে লকডাউন ভেঙে প্রায় সাড়ে তিন হাজার মানুষের জমায়েত থেকে মানবসভ্যতার কী লাভ হল? কিংবা গত বৃহস্পতিবার বালুরঘাটে রামনবমীর ভিড়ে ঠাসা মেলায়? সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের রামমন্দিরের সামনে মানুষের লম্বা লাইনে?
বিশদ

05th  April, 2020
আত্মঘাতী খেলা
তন্ময় মল্লিক

লড়াইটা আমরা কি ক্রমশই কঠিন করে ফেলছি। লকডাউন ঘোষণার পর সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই লড়াইকে হাল্কা চালে নেওয়ার প্রবণতা স্পষ্ট। আর সেটা এই মুহূর্তে রুখে দিতে না পারলে সর্বনাশ অনিবার্য। ইতালি, আমেরিকা, স্পেনের রিপ্লে দেখতে হবে ভারতেও। প্রথমদিকে লকডাউন মানার যে মানসিক দৃঢ়তা আমরা দেখাতে পেরেছিলাম, দিন দিন তা শিথিল হচ্ছে।
বিশদ

04th  April, 2020
হাঁটার গল্প
সমৃদ্ধ দত্ত 

অনেকবার আবেদন করেও আধার কার্ড পায়নি রতু লাল। রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড যুক্ত না করা হলে রেশনও পাওয়া যায় না। সুতরাং সে রেশন পায় না। তার খুব দুঃখ ছিল, সরকারের কোনও কাগজ তার কাছে নেই বলে। সেই কষ্ট ঘুচল। অবশেষে করোনা ভাইরাসের দৌলতে এই প্রথম সরকারিভাবে একটি স্বীকৃতি পেল রতু লাল। কোনও কাগজ, সার্টিফিকেট নয়। আরও স্পষ্ট, আরও সোজাসুজি।   বিশদ

03rd  April, 2020
তাল কেটে দিল দিল্লি একাই
হারাধন চৌধুরী

একটি মাত্র শব্দ। করোনা। সারা পৃথিবীর শিরোনাম দখল করেছে। খবরের কাগজের প্রথম পাতা। বিনোদনের পাতা। খেলার পাতা। টেলিভিশনের নিউজ চ্যানেল। সব রকম সোশ্যাল মিডিয়া। এমনকী সরকারি, বেসরকারি বিজ্ঞাপনগুলিও আজ করোনাময়! সকাল থেকে ঘুমোতে যাওয়ার আগে পর্যন্ত আমাদের কুশলাদি বিনিময়ের বিস্তৃত সংস্কৃতিতেও করোনা ভাগ বসিয়েছে পুরোমাত্রায়।  বিশদ

02nd  April, 2020
লকডাউনেই থামবে করোনার অশ্বমেধের ঘোড়া
সন্দীপন বিশ্বাস

 এ এক অন্য পৃথিবী। এই পৃথিবী দেখার জন্য আমরা কেউই প্রস্তুত ছিলাম না। কিন্তু হঠাৎই বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো অতি দ্রুত আমরা মুখোমুখি হলাম এই অন্য পৃথিবীর। যেখানে গাছের পাতা ঝরার মতোই ঝরে পড়ছে মানুষের প্রাণ। বিশদ

01st  April, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনের জেরে অন্যান্য শিল্পের পাশাপাশি নাভিশ্বাস উঠেছে আবাসন শিল্পেও। প্রবল আর্থিক চাপের মধ্যে পড়েছে তারা। এই অবস্থায় সুরাহা পেতে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আর্থিক ত্রাণের আর্জি জানাল আবাসন নির্মাতাদের সংগঠন ক্রেডাই।   ...

  বিএনএ, বারাকপুর: লকডাউনে বাড়ির বাইরে গিয়ে মোবাইল গেম খেলার সময় কংক্রিটের শেড ভেঙে এক তরুণের মৃত্যু হল। মঙ্গলবার রাতে চাকদহ থানার মদনপুরের মারফোডাঙায় ঘটনাটি ঘটে। পুলিস জানিয়েছে, মৃতের নাম শীতল পাসোয়ান (১৮)। ...

 রূপাঞ্জনা দত্ত, লন্ডন, ৮ এপ্রিল: প্রতিদ্বন্দ্বী রেবেক্কা লং-বেইলি এবং বাঙালি বংশোদ্ভূত লিসা নন্দীকে হারিয়ে লেবার পার্টির নেতা নির্বাচিত হয়েছেন স্যার কিয়ের স্টারমার। দলের অভ্যন্তরীণ নির্বাচনে ৫৬.২ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। ...

  নিজস্ব, প্রতিনিধি কলকাতা: আগামীকাল শুক্রবার থেকে কুপনের মাধ্যমেও রেশন দোকান থেকে খাদ্য সামগ্রী দেওয়া হবে। খাদ্য দপ্তর সিদ্ধান্ত নিয়েছে, রেশন কার্ডের মতো ফুড কুপনের নম্বরও ইলেকট্রনিক পয়েন্ট অব সেলস (ই-পস) যন্ত্রে যাচাই করা হবে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের পঠন পাঠনে আগ্রহ বাড়বে। কর্মপ্রার্থীদের কর্মপ্রাপ্তিদের যোগ। বিশেষত সরকারি বা আধা সরকারি ক্ষেত্রে যোগ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৫৬: বাংলার নবাব হলেন সিরাজউদ্দৌলা
১৮৯৩: লেখক রাহুল সাংকৃত্যায়নের জন্ম
১৮৯৮: গায়ক পল রবসনের জন্ম
১৯৪৮: অভিনেত্রী ও রাজনীতিক জয়া বচ্চনের জন্ম
২০০৯: পরিচালক শক্তি সামন্তের মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৫.২৯ টাকা ৭৭.০১ টাকা
পাউন্ড ৯২.০৮ টাকা ৯৫.৩৪ টাকা
ইউরো ৮১.১২ টাকা ৮৪.১৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

২৫ চৈত্র ১৪২৬, ৯ এপ্রিল ২০২০, বৃহস্পতিবার, (চৈত্র কৃষ্ণপক্ষ) দ্বিতীয়া ৪৮/৪ রাত্রি ১২/৩৯। স্বাতী ৪৭/৩ রাত্রি ১২/১৫। সূ উ ৫/২৫/৩৫, অ ৫/৫০/৫৯, অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৬ গতে ৩/৬ মধ্যে। বারবেলা ২/৪৬ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৩৮ গতে ১/৫ মধ্যে।
২৬ চৈত্র ১৪২৬, ৯ এপ্রিল ২০২০, বৃহস্পতিবার, প্রতিপদ ১/৫৮/২৮ প্রাতঃ ৬/১৪/১৮ পরে দ্বিতীয়া ৫৬/২১/৪০ রাত্রি ৩/৫৯/৩৫। স্বাতী ৫৫/৯/৩৯ রাত্রি ৩/৩০/৪৭। সূ উ ৫/২৬/৫৫, অ ৫/৫১/৪৩। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৬ গতে ৩/৫ মধ্যে। বারবেলা ৪/১৮/৩৭ গতে ৫/৫১/৪৩ মধ্যে, কালবেলা ১১/৩৯/১৯ গতে ১/৬/১৩ মধ্যে।
১৫ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
সোনারপুরের বেলতলায় ছোটা হাতি-বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, মৃত ১ 

12:24:00 PM

করোনা: অস্ট্রেলিয়ায় নতুন করে আক্রান্ত হলেন ৫২ জন 

12:23:50 PM

হেনস্তার অভিযোগে দঃ দিনাজপুরের হরিরামপুর ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে স্বাস্থ্য কর্মীদের কর্মরিতি 

12:23:00 PM

করোনা: আমেরিকায় নতুন করে আক্রান্ত হলেন ২৩৩ জন 

12:11:09 PM

১০০৮ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

12:05:44 PM

করোনা: বিহারে নতুন করে আক্রান্ত হলেন ১২ জন 

12:05:05 PM