Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

‘যে আপনকে পর করে...’
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মহাত্মা গান্ধী একটা কথা বলতেন, মনপ্রাণ দিয়ে দেশের সেবা যিনি করেন, তিনিই সত্যিকারের নাগরিক।
নাগরিক কাহারে কয়? বা নাগরিক কয় প্রকার ও কী কী? এই জাতীয় প্রশ্ন এখন দেশে সবচেয়ে বেশি চর্চিত। সবাই নিজেকে প্রমাণে ব্যস্ত। ভালো নাগরিক হওয়ার চেষ্টাচরিত্র নয়, নাগরিক হতে পারলেই হল। তার জন্য কাগজ লাগবে। এক টুকরো কাগজ প্রমাণ করবে, আপনি আমি ভারতের বাসিন্দা। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে অসমে এনআরসি প্রক্রিয়ার আগে অন্তত একটা ধর্মভিত্তিক আশ্বাস-আশঙ্কা ছিল। ওই পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর সবই গুবলেট হয়ে গিয়েছে। কাগজ জোগাড়ের আশায় ছুটছেন সবাই। এই প্রেক্ষাপটে গান্ধীজির ‘নাগরিক-সংজ্ঞা’ ফিরে দেখার লোভ সামাল দেওয়া গেল না। কারণ, গান্ধীজির কাছে ধর্ম কখনও নাগরিকত্বের পরিচায়ক ছিল না। স্বামী বিবেকানন্দের কাছেও না। যা আজ হতে চলেছে। সৌজন্যে, নরেন্দ্র মোদি সরকারের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন। যাকে হাতিয়ার করে নাগরিকত্ব ‘দেওয়ার’ ভিত শক্ত করেছে কেন্দ্র। এবং এনপিআর বা জাতীয় জনসংখ্যা পঞ্জি। ইউপিএ আমলে শুরু হয়েছিল এই প্রক্রিয়া। উদ্দেশ্য ছিল হাউসলিস্টিং। অর্থাৎ একটি বাড়িতে পরিবারের কে কে থাকেন, সেখানে বাইরের রাজ্য থেকে এসে কেউ থাকছেন কি না, তার হিসেব নেওয়া। এবং এই হিসেবটা করা হয় গত ছ’মাস কেউ এক ঠিকানায় আছেন কি না, বা পরবর্তী ছ’মাস ওই ঠিকানায় থাকার ব্যাপারে নিশ্চিত কি না, তার উপর ভিত্তি করে। আসলে নাগরিকত্ব আইন, ১৯৫৫ এবং নাগরিকত্ব বিধি, ২০০৩-কে সামনে খাড়া করে ভারতের একজন নাগরিকের যাবতীয় তথ্য জোগাড় করার নামই হল এনপিআর। সোজা কথায় ডেটাবেস তৈরি করা। এর জন্য বাড়ি বাড়ি সমীক্ষা হবে ঠিকই, কিন্তু সরকার নিযুক্ত কর্মীরা কোনও নাগরিকের বায়োমেট্রিক বা পরিচয়ের প্রমাণপত্র চাইতে পারবেন না। এটাই জাতীয় জনসংখ্যাপঞ্জি। এই সামান্য ব্যাপার নিয়ে তাহলে এত হইচই কেন? তার দু’টো কারণ। প্রথমত কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ... তিনি বলে ফেলেছিলেন, এনপিআর হল এনআরসির প্রথম ধাপ। সঙ্গে তাঁর মন্ত্রকের ওয়েবসাইট। যেখানে এই কথাটাই লেখা আছে ২০১৮-১৯ সালের বার্ষিক রিপোর্টের ২৬২ নম্বর পৃষ্ঠায়। দ্বিতীয়ত, শোনা যাচ্ছে এনপিআরে নতুন কিছু প্রশ্ন যোগ হয়েছে... যেমন বাবা মায়ের জন্মস্থান, আধার নম্বর, ধর্ম ইত্যাদি। যদি বাসস্থান সংক্রান্ত তথ্যই নেওয়ার থাকে, তাহলে এই অতিরিক্ত প্রশ্নের খোঁচার প্রয়োজন কী? এনআরসি ভারতীয় জনমানসে একেই আতঙ্ক ভরে দিয়েছে, তার উপর এই বাড়তি ইন্ধন। গোটা দেশে অসন্তোষের আগুন ছড়িয়ে পড়াটা অস্বাভাবিক কি? আর সেটাই হয়েছে। দিকে দিকে বিক্ষোভ, আন্দোলন, একটা শাহিনবাগ, একটা পার্ক সার্কাস শাসক দলকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে, রাজনীতি নয়, ধর্ম নয়, আমরা নাগরিক। ভারতের। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছিলেন, ‘কোনো বিশেষ ধর্মমত ও কোনো বিশেষ আচার কোনো জাতির নিত্য লক্ষণ হইতেই পারে না। হাঁসের পক্ষে জলে সাঁতার যেমন, মানুষের পক্ষে বিশেষ ধর্মমত কখনোই সেরূপ নহে। ধর্মমত জড় পদার্থ নহে—মানুষের বিদ্যাবুদ্ধি অবস্থার সঙ্গে সঙ্গেই তাহার বিকাশ আছে—এই জন্য ধর্ম কোনো জাতির অবিচলিত নিত্য পরিচয় হইতেই পারে না।’
এটাই চিরন্তন সত্য। অথচ, ধর্মের মেরুকরণ চলছে। খুল্লামখুল্লা। গোটা দেশে এনআরসি বা জাতীয় নাগরিকপঞ্জি তারই একটা শাখা মাত্র। প্রবল চাপের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যতই বলুন না কেন, গোটা দেশে এনআরসির এখনই কোনও পরিকল্পনা কেন্দ্রের নেই। বা এই সংক্রান্ত কোনও বৈঠক হয়নি। তা সত্ত্বেও আতঙ্ক কাটছে না। কারণ, এনপিআর জুজু। সেটাই আপাতত সামনে খাড়া করে এগচ্ছে কেন্দ্র। বিজেপি ঢাক পেটাচ্ছে এতে কোনও গণ্ডগোল নেই। তথ্য দিলে অসুবিধা কী? বিরোধীরা মানছে না। মানুষও না। তাদের এক মত, আগে যে তথ্য নেওয়া হতো, তা দিতে তো অসুবিধা নেই! নতুন প্রশ্ন কেন? মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে দিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গে এনপিআর হবে না। তাঁর সুরে সুর মিলিয়েছে কংগ্রেস, বামফ্রন্ট সহ অন্য বিরোধীরাও। কিন্তু সেই তাল খানিক কেটেও গিয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, দিল্লির ডাকা এনপিআর বৈঠকে রাজ্যের কোনও প্রতিনিধি যাবে না। প্রাথমিকভাবে একই গর্জন শোনা গিয়েছিল কংগ্রেস এবং বামেদের তরফ থেকেও। আদপে যা হয়নি। শেষমেশ দেখা গিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া বাকি সব রাজ্যের প্রতিনিধিই বৈঠকে উপস্থিত। এমনকী কেরলও। পরে অবশ্য সিপিএমের তরফ থেকে সাফাই দেওয়া হয়, ‘আমরা যে এনপিআর করছি না, সেটা জানানোর জন্যই তো বৈঠকে গিয়েছিলাম!’ তার জন্য কি এই হাঁকডাক করে দিল্লি যাওয়ার দরকার ছিল? মমতা সরকার কিন্তু বিজ্ঞপ্তি জারি করে এনপিআর সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। সেটাই যথেষ্ট নয় কি? বিজেপি উল্লসিত, বিরোধীরা ক্ষমতায় এমন সব রাজ্য সরকার(পশ্চিমবঙ্গ বাদে) বৈঠকে এসেছে মানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একলা হয়ে গিয়েছেন। আর আক্রমণের ঝাঁঝ থাকবে না। বিজেপি এখানেই ভুল করছে। কোনও একটি ইস্যুতে যদি বিরোধিতাকে সপ্তমে নিয়ে যেতে হয়, তার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাই যথেষ্ট। তাঁর কোনও সাঙ্গোপাঙ্গো লাগে না। এর প্রমাণ তিনি আগেও দিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গে সিপিএম নেতৃত্বাধীন বামফ্রন্ট সরকারের ৩৪ বছরের শাসনকালে কোথায় ছিল বিরোধী? একা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে তৃণমূল গঠন করেছেন... তারপরও তিনিই হয়েছেন প্রধান বিরোধী মুখ। নির্বাচনে তিনি জিতেছেন, তৃণমূলের বাকি কেউ নয়... এমন দিনও দেখেছে বাংলা। তারপরও ফিরে এসেছেন মমতা। বিরোধিতার সেই ঝাঁঝকেই সম্বল করে। তা সে সিঙ্গুর হোক, নন্দীগ্রাম বা নেতাই। আক্রমণের সেই তীব্রতা আজ কিন্তু আরও একবার ফিরে এসেছে। নাগরিকত্বের প্রশ্নে। মানুষের পরিচিতি, তাঁর রাষ্ট্র, অধিকার কেড়ে নেওয়ার উদ্দেশ্য বানচাল করতে। যাঁরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চেনেন, তাঁরা জানেন, একা হলেও তিনি লড়াই চালিয়ে যাবেন। সত্যের জন্য। রবি ঠাকুরকে ধার করেই বলা যায়, ‘সত্য ওজনদরে বা গজের মাপে বিক্রয় হয় না—তাহা ছোটো হইলেও তাহা বড়ো। পর্বতপরিমাণ খড়বিচালি স্ফুলিঙ্গপরিমাণ আগুনের চেয়ে দেখিতেই বড়ো কিন্তু আসলে বড়ো নহে। সমস্ত শেজের মধ্যে যেখানে সলিতার সূচ্যগ্র পরিমাণ মুখটিতে আলো জ্বলিতেছে সেইখানেই সমস্ত শেজটার সার্থকতা। তেলের নিম্নভাগে অনেকখানি জল আছে তাহার পরিমাণ যতই হউক সেইটেকে আসল জিনিস বলিবার কোনো হেতু নাই। সকল সমাজেই সমস্ত সমাজপ্রদীপের আলোটুকু যাঁহারা জ্বালাইয়া আছেন তাঁহারা সংখ্যাহিসাবে নহে সত্যহিসাবে সে সমাজে অগ্রগণ্য। তাঁহারা দগ্ধ হইতেছেন, আপনাকে তাঁহারা নিমেষে নিমেষে ত্যাগই করিতেছেন তবু তাঁহাদের শিখা সমাজে সকলের চেয়ে উচ্চে—সমাজে তাঁহারাই সজীব, তাঁহারাই দীপ্যমান।’
আর একটা অগ্নিস্ফুলিঙ্গ, একটি শিখা কিন্তু গোটা লঙ্কাপুরীকে ছারখার করে দিতে পারে। কাজেই সতর্ক হওয়া সবার আগে দরকার। যাঁরা নাগরিকের অধিকার ছিনিয়ে নিতে চাইছেন। নিজের দেশ থাকা সত্ত্বেও তাঁদের পরবাসী করতে চাইছেন, তাঁরা এখনই সতর্ক না হলে রাবণের লঙ্কার দশা হবেই। আজ না হয় কাল। ধর্ম মানুষকে একজোট করে। বিভাজিত নয়।
আর বিভাজনের ফল একটাই... বিশ্বাসভঙ্গের অভিশাপ। নরেন্দ্র মোদিকে মানুষ মাথায় তুলে শিখরে বসিয়েছে। পরপর দু’বার। তাঁর প্রতি বিস্ময়,
ক্ষোভ যদি অবিশ্বাসে বদলে যায়? দেশবাসীকে রাষ্ট্রহীন করতে গিয়ে তিনিই না তখন পর হয়ে যান। বিশ্বকবি কিন্তু বলে গিয়েছিলেন, ‘যে আপনাকে পর করে সে পরকে আপনার করে না, যে আপন ঘরকে অস্বীকার করে কখনোই বিশ্ব তাহার ঘরে আতিথ্য গ্রহণ করিতে আসে না।’ 
21st  January, 2020
বিশ্বাসের অভাব
সমৃদ্ধ দত্ত

 বিগত তিন বছর ধরে ভারতের সিংহভাগ সাধারণ মানুষ নিজেদের সঞ্চয়ের টাকা জমা রাখছে বেসরকারি ব্যাঙ্কে। সরকারি তথা রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কে নয়। দেশের আটটি সরকারি এবং আটটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট বিশ্লেষণ করে এই তথ্য জানা গিয়েছে। যার ফলশ্রুতি হল সরকারি ব্যাঙ্কে যে টাকা জমা রয়েছে তার সিংহভাগই আগে থেকে জমা হয়ে থাকা ফিক্সড ডিপোজিট।
বিশদ

মুখ চাই মুখ
মেরুনীল দাশগুপ্ত

মুখ হয়তো অনেক আছে। কিন্তু, ঠিক সেই মুখটির দেখা এখনও মেলেনি। কোন মুখটি? যে মুখটি সৌজন্যে পরাক্রমে রাজনৈতিক কূটকৌশলে এবং অবশ্যই জনপ্রীতিতে পাল্লা দিতে পারে বাংলার একচ্ছত্র নেত্রীকে, ২০২১ বিধানসভার রণাঙ্গনে ছুঁড়ে দিতে পারে চ্যালেঞ্জ, জাগাতে পারে আর এক মহাবিজয়ের সম্ভাবনা। সেই মুখ কোথায় পদ্মশিবিরে? 
বিশদ

20th  February, 2020
বিপুল অভ্যর্থনা পেয়ে বিশ্বজয়ী বিবেকানন্দ
কলকাতায় বলেন, এ ঠাকুরেরই ‌জয়জয়কার
হারাধন চৌধুরী

ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ বলেছিলেন, ‘‘নরেন শিক্ষে দেবে।’’ ঠাকুরের কথা ফলিয়ে দেওয়ার জন্য তাঁর মানসপুত্রটি বেছে নিয়েছিলেন পাশ্চাত্যের মাটি। কারণ, যে-কোনও জিনিস পাশ্চাত্যের মানুষ গ্রহণ করার পরেই যে ভারতের মানুষ তা গ্রহণে অভ্যস্ত! স্বামী বিবেকানন্দের সামনে সেই সুযোগ এনে দিয়েছিল শিকাগো বিশ্ব ধর্ম মহাসভা।
বিশদ

19th  February, 2020
ট্রাম্পের ভারত সফর এবং প্রাপ্তিযোগের অঙ্ক 

শান্তনু দত্তগুপ্ত: সফর মাত্র দু’ঘণ্টার। আর তাতে আয়োজন পাহাড়প্রমাণ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলে কথা! তাই এতটুকু ফাঁক রাখতে নারাজ গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি (বা বেসরকারিভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি)।  বিশদ

18th  February, 2020
টুকরে টুকরে গ্যাং-ই জিতল
পি চিদম্বরম

 গত ১১ ফেব্রুয়ারি লোকসভার কার্যবিবরণীতে নথিভুক্ত নিম্নলিখিত প্রশ্নোত্তরগুলি আনন্দের কারণ হতে পারত যদি না বিষয়টি বিজেপি নেতাদের (এই পঙ্‌ক্তিতে আছেন প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং অন্য মন্ত্রীরাও) দুঃখের ধারাবিবরণীতে পরিণত হতো: বিশদ

17th  February, 2020
স্বর্গলোকে মহাত্মা ও
গুরুদেবের সাক্ষাৎকার
সন্দীপন বিশ্বাস

 অনেকদিন পর আবার দেখা হল মহাত্মা এবং গুরুদেবের। মর্ত্যে দু’জনের প্রথম সাক্ষাৎ ঘটেছিল শান্তিনিকেতনে ১৯১৫ সালে আজকের দিনে অর্থাৎ ১৭ ফেব্রুয়ারি। তারপর বেশ কয়েকবার তাঁদের দেখা হয়েছিল। কবিগুরু সবরমতী আশ্রমে গিয়েছিলেন ১৯২০ সালে। বিশদ

17th  February, 2020
এবার হ্যাটট্রিকের দোরগোড়ায় অগ্নিকন্যা
হিমাংশু সিংহ

তবে কি দিল্লিতে হেরে বোধোদয় হল অমিত শাহদের? নাকি ভোট জেতার নামে ঘৃণা ছড়ানো ঠিক হয়নি বলাটা আরও বড় কোনও নাটকের মহড়ারই অংশ? বোঝা কঠিন, তুখোড় রাজনীতিকরা কোন উদ্দেশ্যে কখন কোন খেলাটা খেলেন! আর সেই তালে অসহায় জনগণকে তুর্কি নাচন নাচানো চলে অবলীলায়। 
বিশদ

16th  February, 2020
শাহিনবাগে যেসব কথা জানানো হয়নি

 ‘যত্র নার্যস্তু পূজ্যন্তে রমন্তে তত্র দেবতাঃ’, যেখানে মহিলারা পূজিতা হন সেখানেই ভগবান অবস্থান করেন। ভারতবর্ষের মানুষ হাজার বছর ধরে এই শ্লোক আবৃত্তি করে এসেছে। গত একমাসের বেশি সময় ধরে দিল্লির শাহিনবাগে শিশু থেকে বৃদ্ধা বিভিন্ন বয়সের মহিলাদের কষ্ট দেওয়া হয়েছে। বিশদ

15th  February, 2020
মাফলার ম্যানের দিল্লি জয়
মৃণালকান্তি দাস 

ঠেকে শিখেছেন তিনি। ‌‌‌‌পদস্থ আমলা থেকে রাজনীতিক এবং প্রশাসক হিসেবে পরিণত হয়েছেন। বুঝেছেন, এ দেশের আমআদমি বাড়ির কাছে ভালো স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল চান। বাড়ির মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়েই তাঁদের উদ্বেগ। 
বিশদ

14th  February, 2020
রাজনীতির কাছে মানুষের চাহিদাটাই
বদলে দিল দিল্লির এই ভোট-সংস্কৃতি
হারাধন চৌধুরী

 প্রতিমা গড়ে পুজো করা আর ভগবানকে লাভ করা এক নয়। প্রতিমা সাজিয়ে পুজো যে-কেউ করতে পারে। কিন্তু, ভগবান লাভ? মানুষ চিরদিন মনে করে এসেছে, সে শুধু সাচ্চা সাধকের পক্ষেই সম্ভব। কিন্তু, ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ এসে একেবারে অন্যকথা বললেন।
বিশদ

13th  February, 2020
সেনাবাহিনীও যখন রাজনীতির অস্ত্র
শান্তনু দত্তগুপ্ত

লঞ্চপ্যাড মাত্র ৫০ মিটার দূরে... অন্ধকারের মধ্যেই তাঁর চোখ দু’টো খুঁজে চলেছে... নজরে এসেও গেল দুই জঙ্গি... ছায়ার মতো সেঁটে আছে লঞ্চপ্যাডের অন্ধকারে। নাইট ভিশন গ্লাস চোখে লাগিয়ে নিশ্চিত হলেন মেজর মাইক ট্যাঙ্গো। আগেভাগে নিশ্চিত হয়ে নেওয়ার কারণ আরও ছিল তাঁর কাছে।
বিশদ

11th  February, 2020
রাজস্ব-শৃঙ্খলা অক্ষুণ্ণ রেখেই জনমুখী বাজেট
দেবনারায়ণ সরকার

২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এটাই অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট। এই বাজেট নিঃসন্দেহে জনমুখী, তবে রাজস্ব-শৃঙ্খলা (ফিসকাল ডিসিপ্লিন) যথেষ্ট বজায় রেখে জনমুখী বাজেট পেশ করলেন অমিতবাবু। প্রথমে রাজস্ব-শৃঙ্খলার প্রসঙ্গে আসা যাক। বিশদ

11th  February, 2020
একনজরে
বিএনএ, বারাসত: বারাসতের নবপল্লি সাব পোস্ট অফিসে গত এক সপ্তাহ ধরে লিঙ্ক না থাকায় সাধারণ মানুষের ভোগান্তি চরমে পৌঁছেছে। এমনিতেই ডাকঘরে বিভিন্ন পরিষেবা মূল্য বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তার উপর লিঙ্ক না থাকার কারণে গ্রাহকদের মধ্যে ক্ষোভ চরম আকার নিয়েছে।  ...

সৌম্যজিৎ সাহা, কলকাতা: বয়স মাত্র পাঁচ। আর তাতেই বিশ্বের দরবারে স্বীকৃতি পেতে চলেছে রাজ্যের একমাত্র শিক্ষক শিক্ষণ বিশ্ববিদ্যালয়। শুধু তাই নয়, বিএড বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে দেশের মধ্যে একমাত্র এই প্রতিষ্ঠানকেই বেছে নেওয়া হয়েছে।   ...

বিএনএ, পুড়শুড়া: পঞ্চায়েত অফিস থেকে পাঠানো বার্ধক্য ও বিধবা ভাতার তালিকা বদল হয়ে গিয়েছে বিডিও অফিস থেকে। এই অভিযোগ তুলে বৃহস্পতিবার দুপুরে পুরশুড়া ব্লক অফিসে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন চিলাডাঙি গ্রামপঞ্চায়েত এলাকার ভাতা না পাওয়া মানুষজন। বিক্ষোভের জেরে এদিন ব্লক অফিসে ...

ওয়াশিংটন, ২০ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): পরিবেশে কার্বন নিঃসরণের ক্ষেত্রে চীনের থেকেও এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল ভারত। জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে এই মন্তব্য করেছেন নিউ ইয়র্কের প্রাক্তন মেয়র মাইকেল ব্লুমবার্গ। প্রসঙ্গত, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দৌড়ে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী ব্লুমবার্গ।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শারীরিক দিক থেকে খুব ভালো যাবে না। মনে একটা অজানা আশঙ্কার ভাব থাকবে। আর্থিক দিকটি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস
১৮৪৮: কার্ল মার্ক্স প্রকাশ করেন কমিউনিস্ট ম্যানিফেস্টো
১৮৭৮ - মিরা আলফাসা ভারতের পণ্ডিচেরি অরবিন্দ আশ্রমের শ্রীমার জন্ম
১৮৯৪: ডাঃ শান্তিস্বরূপ ভাটনগরের জন্ম
১৯৩৭: অভিনেত্রী সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫২: পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমান বাংলাদেশ) ভাষা আন্দোলনে প্রাণ দিলেন চারজন
১৯৬১: নোবেলজয়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৭০ - অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার মাইকেল স্লেটারের জন্ম
১৯৯১: অভিনেত্রী নূতনের মৃত্যু
১৯৯৩ - বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক ও কবি অখিল নিয়োগীর (যিনি স্বপনবুড়ো ছদ্মনামে পরিচিত) মৃত্যু
২০১৩: হায়দরাবাদে জোড়া বোমা বিস্ফোরণে ১৭জনের মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৯৪ টাকা ৭২.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯০.৯৮ টাকা ৯৪.৩০ টাকা
ইউরো ৭৬.০৫ টাকা ৭৯.০১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪২,২২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,০৬০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৬৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৮ ফাল্গুন ১৪২৬, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, (মাঘ কৃষ্ণপক্ষ) ত্রয়োদশী ২৮/২ অপঃ ৫/২২। উত্তরাষাঢ়া ৭/৪৯ দিবা ৯/১৩। সূ উ ৬/৮/৫১, অ ৫/৩২/৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে পুনঃ ৮/২৫ গতে ১০/৪২ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ২/২৯ মধ্যে পুনঃ ৪/০ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/১২ গতে ৮/৫৪ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৮ গতে ৪/২৮ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/৫৯ গতে গতে ১১/৫০ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৪১ গতে ১০/১৫ মধ্যে।
৮ ফাল্গুন ১৪২৬, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, ত্রয়োদশী ২৮/৪২/৫৬ সন্ধ্যা ৫/৪১/২০। উত্তরাষাঢ়া ৯/৩৭/৩২ দিবা ১০/৩/১১। সূ উ ৬/১২/১০, অ ৫/৩০/৫০। অমৃতযোগ দিবা ৭/২৯ মধ্যে ও ৮/১৬ গতে ১০/৩৭ মধ্যে ও ১২/৫৮ গতে ২/৩১ মধ্যে ও ৪/৫ গতে ৫/৩১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/১৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ৩/২৮ গতে ৪/১৭ মধ্যে। কালবেলা ১০/২৬/৪০ গতে ১১/৫১/৩০ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৪১/১০ গতে ১০/১৬/২০ মধ্যে।
২৬ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
  শিবরাত্রিতে জল ঢালতে আসার পথে তারকেশ্বরে দুর্ঘটনায় মৃত ৩
শিবরাত্রি উপলক্ষে তারকেশ্বর মন্দিরে শিবের মাথায় জল ঢালতে আসার পথে ...বিশদ

12:34:05 PM

শ্যামনগরে জুটমিল বন্ধ করাকে ঘিরে উত্তেজনা
শ্যামনগর ঘোষপাড়া রোডে ওয়েভারলী জুটমিল বন্ধ করে দেওয়া হয়। আজ ...বিশদ

12:32:07 PM

 প্রেমে আঘাত, দুর্গাপুরে আত্মহত্যার চেষ্টা যুবকের
প্রেমে আঘাত পেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন প্রেমিক। ঘটনাটি দুর্গাপুর বেনাচিতি ...বিশদ

12:27:13 PM

অবসর নিলেন প্রজ্ঞান ওঝা
অবসর ঘোষণা করলেন ভারতীয় লেফট আর্ম স্পিনার প্রজ্ঞান ওঝা। ...বিশদ

11:38:31 AM

কুলটিতে কুয়োয় পড়ে মৃত্যু মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর
কুয়োয় পড়ে অস্বাভাবিক মৃত্যু মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর। ঘটনাটি পশ্চিম বর্ধমানের আসানসোলের ...বিশদ

11:27:00 AM

আজ মুক্তি 
শুভ মঙ্গল জাদা সাবধান- হিতেশ কেবল্য পরিচালিত ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে ...বিশদ

11:14:53 AM