Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

নেতাজি—আঁধারপথে অনন্ত আলোর দীপ্তি
সন্দীপন বিশ্বাস

স্বাধীনতার পর অতিক্রান্ত বাহাত্তর বছর। কিন্তু আজও যেন তার নাবালকত্ব ঘুচল না। আসলে দেশের যাঁরা হাল ধরেন, তাঁরাই যদি নাবালকের মতো আচরণ করেন, তাহলে দেশও নাবালকই থেকে যায়। এই নাবালকত্ব আসলে এক ধরনের অযোগ্যতা। সেই অযোগ্যতার পথ ধরেই দেশ ডুবে আছে অসংখ্য সঙ্কটে। দুর্নীতিই হল সেই সঙ্কটের মধ্যমণি। তাই দেশটা স্বাধীনতার পর থেকে পঙ্গু হয়েই রইল। দেশের উন্নতির থেকেও বড় চিন্তা, রাজনৈতিক নেতাদের কেউ কেউ কে কতটা আখের গুছিয়ে নেবেন। তাঁদের বেশিরভাগেরই কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি। পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকার পর কারও কারও সম্পত্তি দশ গুণ, কুড়ি গুণও বেড়ে যায়। অথচ সাধারণ মানুষের ঘরে খাবার নেই। আমাদের দেশের বহু বিধায়ক, সাংসদের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে অসংখ্য প্রশ্ন থেকে যায়। তাঁদের অনেকেই ক্রিমিনাল কেসে অভিযুক্ত। এখন তো দেখা যায়, যাঁর নামে যত ক্রিমিনাল কেস, তিনি যেন তত বড় নেতা। অনেকসময় রাষ্ট্রশক্তির তাঁরাই নিয়ন্ত্রক। তাই আইন তাঁদের ছুঁতে পারে না। অনেকেই সেই শক্তির জোরে ক্লিনচিটও পেয়ে যান।
স্বাধীনতার এতদিন পরে আজ আবার নতুন করে দেশভক্তি নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। প্রশ্ন উঠছে, কে বড় দেশপ্রেমিক ছিলেন, মহাত্মা গান্ধী না নাথুরাম গডসে? কে বড় দেশপ্রেমিক ছিলেন, শ্যামাপ্রসাদ না সূর্য সেন? কে বড় দেশপ্রেমিক ছিলেন, সাভারকর না ভগৎ সিং? সব ঘুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। এসব প্রশ্নের মধ্যে আমাদের হৃদয়ে অনন্ত আলোর উৎস হিসেবে জেগে থাকেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। তিনি হলেন অন্য এক গ্রহ। অন্য এক মানুষ। অন্য এক মহামানব। সকলের থেকেই অনেক আলোকবর্ষ দূরে তাঁর অবস্থান। এমনকী তাঁর কাছে স্বাধীনতার ভাবনাটাই ছিল অন্যরকমের।
যাঁদের হাত ধরে আমাদের দেশে স্বাধীনতা এসেছে, তাঁদের কাছে স্বাধীন ভারত নিয়ে কোনও ভিশন ছিল না। স্বাধীনতার পর দেশকে কীভাবে গড়ে তোলা যায়, সে ব্যাপারে কোনও নির্দিষ্ট দৃষ্টিভঙ্গী না থাকার কারণেই দেশ গড়ার কাজ একেবারে সূচনা লগ্ন থেকেই ব্যাহত হয়েছে। দেশভাগের কাঁটায় আজও আমরা বিদ্ধ হয়ে চলেছি। স্বাধীনতার লক্ষ্য ছিল মানুষের মুক্তিসাধনা এবং সাধারণতন্ত্রের লক্ষ্য ছিল মানুষের হাতে ক্ষমতা। ভোট দেওয়ার ক্ষমতাটুকু ছাড়া আমাদের দেশে সেই গণতন্ত্রের মূল্য আর কতটুকু! স্বাস্থ্যে, শিক্ষায়, ক্ষুধানিবৃত্তিতে সাধারণ মানুষ দুর্বল থেকে দুর্বলতর হয়ে উঠছে। সরকারি বিজ্ঞাপনের ঢক্কানিনাদে গণতন্ত্র আজ মুখ টিপে হাসে।
কিন্তু নেতাজির ছিল একটা নিজস্ব ভিশন। তিনি জানতেন, কীভাবে দেশগঠন করতে হয়। চারিদিকে ধূসর অন্ধকার আর রাজনৈতিক দূষণের মধ্যে তিনি আজও এক অকম্পিত প্রদীপ। নেতাজি বুঝেছিলেন, পৃথিবীর ইতিহাস বদলাচ্ছে। সেই পরিবর্তিত ইতিহাসের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে না পারলে স্বাধীনতা সহজলভ্য হবে না। ১৯৩৯ সালে সেপ্টেম্বরে ইউরোপে শুরু হল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। সেই স্বাধীনতা যুদ্ধকে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের কাজে লাগানোর পরিকল্পনা নেন তিনি।
নেতাজি জানতেন, বিশ্বযুদ্ধের আঁচে বিশ্বের প্রায় সব দেশই কমবেশি বিধ্বস্ত। যুদ্ধ শেষ হলেই প্রত্যেকেই নতুন করে শুরু করবে নিজেদের দেশগড়ার কাজ। যুদ্ধের জন্য ভেঙে পড়েছে আন্তর্জাতিক অর্থনীতি। যুদ্ধের শেষে সব দেশই চাইবে নিজেদের দেশের অভ্যন্তরীণ অর্থনীতিকে মজবুত করতে। নেতাজিও চেয়েছিলেন ভারত অর্থনীতির দিক থেকে কিছুটা শক্তিশালী হয়ে উঠলেই অন্যান্য ক্ষেত্রে তাকে বিশ্বের অন্য দেশের সঙ্গে অগ্রগতির পরীক্ষায় নামাবেন। সারা বিশ্ব তখন এক আধুনিক বিশ্বের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে। সেখানে বিজ্ঞান এসে দাঁড়িয়েছে একেবারে সামনের সারিতে। তাই নতুন এবং স্বাধীন ভারত গড়ার ক্ষেত্রে তিনি প্রাধান্য দিতে চেয়েছিলেন বিজ্ঞানকে।
নেতাজি স্বপ্ন দেখেছিলেন স্বাধীন ভারতে গড়ে উঠবে তার নিজস্ব অস্ত্র কারখানা। সামরিক শক্তিতে ভারতকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে। এমন পরিকল্পনা করে নেতাজি দেখতে গেলেন চেকোস্লোভাকিয়ার দুটি অস্ত্রের কারখানা। সে দু’টি হল স্কোদা এবং ব্রেন। নেতাজির সঙ্গে তাঁদের মউ স্বাক্ষর হল। স্বাধীনতার পর নেতাজির উদ্যোগে অস্ত্র কারখানা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তারা সাহায্য করবে। তিনি দেখতে গেলেন সিন্থেটিক বেঞ্জিনের কারখানা। তার নাম স্তালিন ওয়ার্কস। খনিজ তেলের দিক থেকে ভারত তেমন উন্নত নয়। তাই এ ব্যাপারেও নেতাজি উৎসাহ দেখালেন। এরপর তিনি জার্মানির কয়েকটি কলকারখানা পরিদর্শন করেন। স্বাধীন ভারতে শিল্পপ্রসার ঘটানোর স্বপ্ন ছিল তাঁর দু’চোখে।
স্বাধীন ভারতে সেনাদের মেডেল কেমন হবে, তার পরিকল্পনাও করেছিলেন নেতাজি। শুধু পরিকল্পনাই নয়, ভিয়েনা থেকে তা তিনি তৈরিও করেছিলেন। মোট দশ রকমের মেডেল তৈরি করেছিলেন তিনি। এতেই বোঝা যায়, তখনকার নেতাদের থেকে ভাবনায় বা পরিকল্পনায় তিনি কত এগিয়ে ছিলেন। তিনি ভেবেছিলেন, পোস্টাল স্ট্যাম্প কেমন হবে, পাসপোর্ট কেমন হবে। সেসবের নমুনাও তিনি তৈরি করে ফেলেছিলেন। এছাড়াও কেমন হবে ভারতের মুদ্রা, সে ব্যাপারেও তিনি ভেবেছিলেন।
জার্মানিতে থাকার সময় তাঁর হাতে আসে ভারতীয় অর্থনীতি ও কৃষি সংক্রান্ত কয়েকটি বই। এগুলি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে প্রকাশিত। ভারতীয় কৃষি, অরণ্য, পশুপালন, বিভিন্ন ধরনের শিল্প ও খনিজ সম্পদ
এবং শিল্প ও কৃষিতে ব্যবহৃত সম্পদ নিয়ে বইগুলি লেখা। এগুলি তাঁকে নতুনভাবে চিন্তা করতে
সাহায্য করেছিল। তিনি চেয়েছিলেন কৃষিক্ষেত্র,
অরণ্য সম্পদের ব্যবহার, পশুপালন ইত্যাদির উপর জোর দিতে।
এইসব রূপরেখা অঙ্কনের সময় তিনি জার্মানি, হল্যান্ড, ডেনমার্ক, রুমানিয়া, চেকোস্লোভাকিয়া প্রভৃতি দেশের অনুসৃত নীতির ভালো দিকগুলিকে গ্রহণ করেছিলেন। ইউরোপের অর্থনীতি, সমাজনীতি, কৃষি এবং সামগ্রিক জীবনকে তিনি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে দেখেছিলেন। প্রত্যেকের ভালো দিকগুলিকে একত্রিত করে গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন স্বাধীন ভারতবর্ষকে।
তিনি শুধু অপেক্ষা করেছিলেন ভারতের স্বাধীনতার জন্য। ব্রিটিশ শাসনতন্ত্রের নাগপাশ থেকে ভারত মুক্ত হলেই সেগুলি তিনি চালু করে দেবেন বলে ভেবে রেখেছিলেন। কারণ তিনি জানতেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইংরেজরা ভারতকে স্বাধীনতা দিতে বাধ্য।
কিন্তু ইংরেজরা তখন খেলছিলেন অন্য খেলা। তাঁদের মধ্যে তখন ভারত ভাগের কৌশল মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে। জার্মানিতে বসে রেডিও এবং খবরের কাগজের মাধ্যমে তিনি সব খবরই পাচ্ছিলেন। দেশের মানুষকে পঙ্গু করে দিতে বিভাজন নিয়ে ভারতে উচ্চ পর্যায়ের সব আলোচনা চলছে। দেশের মধ্যেই একদল লোক এতে মদত দিচ্ছে। নেতাজি ছিলেন ভারতভাগের বিরোধী। তিনি মনে করতেন, জাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে তার ভৌগোলিক, সাংস্কৃতিক এবং অর্থনৈতিক বিভাজন এক অপরাধমূলক কাজ। তিনি মনে করতেন, ভারত ভাগ মানে এক মায়ের দুই দুর্বল শিশু। তিনি মনে করতেন, ইংরেজরা যদি ভারত ভাগ করতে সক্ষম হয়, তবে সেটা হবে তাদের বড় রাজনৈতিক জয়। শুধু তাই নয়, ভেঙে যাবে জাতিগত, সাংস্কৃতিক, ভৌগোলিক এবং অর্থনৈতিক সংহতি। অথচ হাজার হাজার বছর ধরে সহস্র প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও ভারত তার অখণ্ডতা রক্ষা করতে পেরেছে। অখণ্ড ভারত প্রাচ্যের মধ্যে সবথেকে শক্তিশালী রাষ্ট্র।
১৯৪০ সালের অক্টোবর মাসে জার্মানির বার্লিনে তিনি শুরু করেছিলেন ফ্রি ইন্ডিয়া সেন্টার বা ইন্ডিয়ান ইন্ডিপেন্ডেন্স লিগের কাজ। এর প্রথম বৈঠক বসে ১৯৪১ সালের ২ নভেম্বর। সেই বৈঠকে অনেকগুলি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। তার মধ্যে একটি ছিল জাতীয় সঙ্গীত কী হবে। নেতাজি বললেন, আমাদের জাতীয় সঙ্গীত হবে ‘জনগণমন অধিনায়ক’। তার আগে পর্যন্ত সর্বজনস্বীকৃত কোনও জাতীয় সঙ্গীত ছিল না। কিছু দেশাত্মবোধক গান গাওয়া হতো। বঙ্গভঙ্গের সময় থেকে বিদ্রোহ যখন সশস্ত্র আন্দোলনের পথে গেল, তখন থেকে কংগ্রেস এবং অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সভা-অনুষ্ঠানে গাওয়া হতো মূলত ‘বন্দেমাতরম’।
‘জনগণমন’ নিয়ে বার্লিনের সভায় জোরদার বিতর্ক হয়। কয়েকজন এনিয়ে প্রশ্নও তোলেন। নেতাজি গানটির পক্ষে ক্ষুরধার সব যুক্তি উপস্থাপন করেন। এরপরই সকলে তা মেনে নেন।
১৯৪২ সালে হামবুর্গে ইন্দো-জার্মান কালচারাল সোসাইটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ‘জনগণমন’ গানটি পূর্ণ অর্কেস্ট্রা যোগে গাওয়া হল। সেই গানের গ্রামোফোন রেকর্ডও হয়েছিল। সেই প্রথম ভারতের জাতীয় পতাকা বিদেশের মাটিতে উড়ল। অন্য রাষ্ট্রের পতাকার পাশে সেদিন উজ্জ্বল দেখাচ্ছিল ভারতের পতাকাকে। ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন রাষ্ট্রের রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক নেতারা। তাঁদের উপস্থিতিতে হামবুর্গের মেয়র নেতাজিকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের কূটনৈতিক নেতা হিসেবে অভ্যর্থনা জানান। নেতাজিকে অভ্যর্থনা জানিয়ে হামবুর্গের মেয়র বলেন, ভারতকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে তাঁরা স্বীকৃতি দিচ্ছেন। ভবিষ্যতে ভারতের সঙ্গে হার্দিক ও মৈত্রীর সম্পর্ক তাঁরা বজায় রাখবেন। সরকারিভাবে সেদিনই নেতাজিকে দেওয়া হয়েছিল রাষ্ট্রনেতার সম্মান। ১৯৪২ সালের ২৯ মে জার্মানি ভারতকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিয়েছিল, আর সেটাই সত্যে পরিণত হল ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট।
কিন্তু দুর্ভাগ্য! সেদিন দেশ নেতাজিকে রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে পেল না। ইতিহাস চলে গেল অন্য পথে। নানারকম ভাগ-বাঁটোয়ারা আর আপসের মধ্য দিয়ে যে স্বাধীনতা এল, তা ছিল পঙ্গু স্বাধীনতা। আজ এতদিন পরেও সেই পঙ্গুত্বের লক্ষণগুলি ফুটে উঠেছে সমাজের সর্বাঙ্গে। তাঁর স্বপ্নকে আমরা কাজে লাগাতে পারিনি। আমরা ‘যোদ্ধা’ নেতাজিকে চিনি, কিন্তু ‘স্বাধীন ভারতের স্বপ্নদ্রষ্টা’ নেতাজিকে চিনি না। এটা আমাদের দুর্ভাগ্য।
আজ দেশ আবার নতুন সঙ্কটের সামনে এসে দাঁড়িয়েছে। আবার কি মানুষে মানুষে বিভেদের বিষফণা মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে? কীভাবে হবে তার মোকাবিলা? সেকথা বলবে সময়। আজ শুধু এই আঁধারপথে সেই সূর্যের দিকে তাকিয়ে বলি, জয়তু নেতাজি, তোমাকে প্রণাম।
20th  January, 2020
টুকরে টুকরে গ্যাং-ই জিতল
পি চিদম্বরম

 গত ১১ ফেব্রুয়ারি লোকসভার কার্যবিবরণীতে নথিভুক্ত নিম্নলিখিত প্রশ্নোত্তরগুলি আনন্দের কারণ হতে পারত যদি না বিষয়টি বিজেপি নেতাদের (এই পঙ্‌ক্তিতে আছেন প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং অন্য মন্ত্রীরাও) দুঃখের ধারাবিবরণীতে পরিণত হতো: বিশদ

স্বর্গলোকে মহাত্মা ও
গুরুদেবের সাক্ষাৎকার
সন্দীপন বিশ্বাস

 অনেকদিন পর আবার দেখা হল মহাত্মা এবং গুরুদেবের। মর্ত্যে দু’জনের প্রথম সাক্ষাৎ ঘটেছিল শান্তিনিকেতনে ১৯১৫ সালে আজকের দিনে অর্থাৎ ১৭ ফেব্রুয়ারি। তারপর বেশ কয়েকবার তাঁদের দেখা হয়েছিল। কবিগুরু সবরমতী আশ্রমে গিয়েছিলেন ১৯২০ সালে। বিশদ

এবার হ্যাটট্রিকের দোরগোড়ায় অগ্নিকন্যা
হিমাংশু সিংহ

তবে কি দিল্লিতে হেরে বোধোদয় হল অমিত শাহদের? নাকি ভোট জেতার নামে ঘৃণা ছড়ানো ঠিক হয়নি বলাটা আরও বড় কোনও নাটকের মহড়ারই অংশ? বোঝা কঠিন, তুখোড় রাজনীতিকরা কোন উদ্দেশ্যে কখন কোন খেলাটা খেলেন! আর সেই তালে অসহায় জনগণকে তুর্কি নাচন নাচানো চলে অবলীলায়। 
বিশদ

16th  February, 2020
শাহিনবাগে যেসব কথা জানানো হয়নি

 ‘যত্র নার্যস্তু পূজ্যন্তে রমন্তে তত্র দেবতাঃ’, যেখানে মহিলারা পূজিতা হন সেখানেই ভগবান অবস্থান করেন। ভারতবর্ষের মানুষ হাজার বছর ধরে এই শ্লোক আবৃত্তি করে এসেছে। গত একমাসের বেশি সময় ধরে দিল্লির শাহিনবাগে শিশু থেকে বৃদ্ধা বিভিন্ন বয়সের মহিলাদের কষ্ট দেওয়া হয়েছে। বিশদ

15th  February, 2020
মাফলার ম্যানের দিল্লি জয়
মৃণালকান্তি দাস 

ঠেকে শিখেছেন তিনি। ‌‌‌‌পদস্থ আমলা থেকে রাজনীতিক এবং প্রশাসক হিসেবে পরিণত হয়েছেন। বুঝেছেন, এ দেশের আমআদমি বাড়ির কাছে ভালো স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল চান। বাড়ির মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়েই তাঁদের উদ্বেগ। 
বিশদ

14th  February, 2020
রাজনীতির কাছে মানুষের চাহিদাটাই
বদলে দিল দিল্লির এই ভোট-সংস্কৃতি
হারাধন চৌধুরী

 প্রতিমা গড়ে পুজো করা আর ভগবানকে লাভ করা এক নয়। প্রতিমা সাজিয়ে পুজো যে-কেউ করতে পারে। কিন্তু, ভগবান লাভ? মানুষ চিরদিন মনে করে এসেছে, সে শুধু সাচ্চা সাধকের পক্ষেই সম্ভব। কিন্তু, ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ এসে একেবারে অন্যকথা বললেন।
বিশদ

13th  February, 2020
সেনাবাহিনীও যখন রাজনীতির অস্ত্র
শান্তনু দত্তগুপ্ত

লঞ্চপ্যাড মাত্র ৫০ মিটার দূরে... অন্ধকারের মধ্যেই তাঁর চোখ দু’টো খুঁজে চলেছে... নজরে এসেও গেল দুই জঙ্গি... ছায়ার মতো সেঁটে আছে লঞ্চপ্যাডের অন্ধকারে। নাইট ভিশন গ্লাস চোখে লাগিয়ে নিশ্চিত হলেন মেজর মাইক ট্যাঙ্গো। আগেভাগে নিশ্চিত হয়ে নেওয়ার কারণ আরও ছিল তাঁর কাছে।
বিশদ

11th  February, 2020
রাজস্ব-শৃঙ্খলা অক্ষুণ্ণ রেখেই জনমুখী বাজেট
দেবনারায়ণ সরকার

২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এটাই অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট। এই বাজেট নিঃসন্দেহে জনমুখী, তবে রাজস্ব-শৃঙ্খলা (ফিসকাল ডিসিপ্লিন) যথেষ্ট বজায় রেখে জনমুখী বাজেট পেশ করলেন অমিতবাবু। প্রথমে রাজস্ব-শৃঙ্খলার প্রসঙ্গে আসা যাক। বিশদ

11th  February, 2020
মানুষ কী চায়, বুঝিয়ে দেবে দিল্লির ভোটের ফল
সন্দীপন বিশ্বাস

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় তাঁর ‘বাহুবল ও বাক্যবল’ নিবন্ধে দুই প্রকার বলের প্রভূত ব্যাখ্যা করেছেন। যদিও তিনি বলেছেন, বাহুবল পশুর বল এবং বাক্যবল মানুষের বল, তা সত্ত্বেও মনুষ্য সমাজে বাহুবলের প্রয়োগ অনবরত দেখা যায়। মানুষের বল সমাজ গঠনে কখনও কখনও নিশ্চয়ই কাজে লাগে। কিন্তু দেখা যায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মানুষ আপন স্বার্থে এই বাহুবলকে ব্যবহার করে। 
বিশদ

10th  February, 2020
সরকার দিশেহারা এবং ভীত
পি চিদম্বরম

অর্থমন্ত্রী বাধ্য হয়েছেন সরকারি ব্যয় নামক একমাত্র ‘ইঞ্জিন’-এর উপর আস্থা রাখতে। কিন্তু এই ইঞ্জিনটাও যে জ্বালানি সঙ্কটে ভুগছে এবং নড়বড়ে রাজকোষের ভূতের ছায়াটিও পড়ছে সরকারের উপর! তীব্র বেকারত্ব এবং ব্যাপক হারে ছোট ও মাঝারি শিল্প-ব্যবসা চৌপাট হয়ে যাওয়ার মতো দুটি ভয়ঙ্কর ইস্যুও অস্বীকার করেছেন অর্থমন্ত্রী। সাম্প্রতিককালে ভারতের অর্থনীতিকে সবচেয়ে কঠিন যে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়েছে সেটা হল—স্বঘোষিত শক্তিমান এবং নির্ণায়ক (ডিসিসিভ) সরকার—যে সরকার নিজেকে দিশেহারা এবং ভীত বলেই প্রতিপন্ন করেছে।
বিশদ

10th  February, 2020
প্রবীণ নাগরিকদের জ্বলন্ত সমস্যাগুলির
দিকে সরকার এবার একটু নজর দিক
হিমাংশু সিংহ

 অধিকাংশ পরিবারেই এখন শিক্ষান্তে ছেলেমেয়েরা চাকরির জন্য বাইরে চলে যাচ্ছে, তাই বৃদ্ধাবাসের প্রয়োজনীয়তাও বাড়ছে। একাকীত্ব বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের সবচেয়ে বড় অসুখ। এই একাকীত্ব থেকেই হাজারো মানসিক রোগেরও জন্ম হয়। নিকট আত্মীয় এবং ছেলেমেয়েও বাইরে, আবার অন্যদিকে, সঞ্চয়ের উপর ক্রমাগত সুদ কমে যাওয়ায় আয়ও নিম্নমুখী। এই সাঁড়াশি আক্রমণ বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের পক্ষে সামলে ওঠা দুষ্কর হয়ে পড়ছে। তার উপর যদি কোনও কঠিন রোগ দেহে বাসা বাঁধে তাহলে তো রক্ষে নেই!
বিশদ

09th  February, 2020
বিখ্যাত ফুলব্রাইট বৃত্তির সাত দশক 
অ্যাডাম জে গ্রোৎস্কি

জে উইলিয়াম ফুলব্রাইট। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্তন সিনেটর। বিখ্যাত ফুলব্রাইট বৃত্তিটা চালু হয় তাঁরই নামে। এটি একটি শিক্ষামূলক এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম। সাত দশক আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত যৌথ উদ্যোগে এই ফেলোশিপ চালু করে। দ্য প্রাইস অফ এমপায়ার। জে ডব্লু ফুলব্রাইটের প্রবন্ধসংগ্রহের শিরোনাম।  
বিশদ

08th  February, 2020
একনজরে
নিউ ইয়র্ক, ১৬ ফেব্রুয়ারি (এএফপি): কানেক্টিকাটের একটি নাইটক্লাবে গুলিচালনার ঘটনায় প্রাণ হারালেন একজন। আহতের সংখ্যা চার। রবিবার ভোরে ‘ম্যাজেস্টিক লাউঞ্জ’-এর ক্লাবে এক অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতী এই হামলা চালায় বলে পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে।   ...

হ্যামিলটন, ১৬ ফেব্রুয়ারি: নিউজিল্যান্ডের কাছে একদিনের সিরিজে হোয়াইটওয়াশের ধাক্কা ভারতীয় দল যে ধীরে ধীরে কাটিয়ে উঠছে, তা বিরাট কোহলিদের দেখলেই বোঝা সম্ভব। ২১ ফেব্রুয়ারি শুরু ...

হায়দরাবাদ, ১৬ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): ‘ফিসকাল রেসপনসিবিলিটি অ্যান্ড বাজেট ম্যানেজমেন্ট’ (এফআরবিএম) মেনে বাজেট পেশ করা হয়েছে। তাই রাজস্ব ঘাটতির লক্ষ্যমাত্রা স্থির করতে সেই আইন লঙ্ঘন করা হয়নি। যাবতীয় জল্পনা, বিতর্কে জল ঢেলে রবিবার এমনটাই জানালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।  ...

সংবাদদাতা, লালবাগ: শনিবার রাতে নবগ্রাম থানার পলসণ্ডায় ৩৪নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাকে আগুন লাগায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। প্রথমে স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। পরে খবর পেয়ে বহরমপুর থেকে দমকলের দু’টি ইঞ্জিন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনলেও ট্রাকে থাকা সমস্ত ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

মাঝেমধ্যে মানসিক উদ্বেগের জন্য শিক্ষায় অমনোযোগী হয়ে পড়বে। গবেষণায় আগ্রহ বাড়বে। কর্মপ্রার্থীদের নানা সুযোগ আসবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৯: কবি জীবনানন্দ দাশের জন্ম
১৯৬৩: আমেরিকান বাস্কেটবল খেলোয়াড় ও অভিনেতা মাইকেল জর্ডনের জন্ম
১৯৮৭ - ভারতীয় কার্টুনিস্ট অসীম ত্রিবেদীর জন্ম।
২০০৯: সঙ্গীত শিল্পী মালবিকা কাননের মৃত্যু 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৪৯ টাকা ৭২.১৯ টাকা
পাউন্ড ৯১.৪৩ টাকা ৯৪.৭১ টাকা
ইউরো ৭৫.৮৫ টাকা ৭৮.৮০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
15th  February, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৬০৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৪৭৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,০৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
16th  February, 2020

দিন পঞ্জিকা

৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, সোমবার, (মাঘ কৃষ্ণপক্ষ) নবমী ২১/১ দিবা ২/৩৬। জ্যেষ্ঠা ৫৭/৩৩ শেষরাত্রি ৫/১৪। সূ উ ৬/১১/৩৯, অ ৫/২৯/৩৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪২ মধ্যে পুনঃ ১০/৪৩ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। রাত্রি ৬/২০ গতে ৮/৫৮ মধ্যে পুনঃ ১১/২৫ গতে ২/৪৯ মধ্যে। বারবেলা ৭/৩৬ গতে ৯/১ মধ্যে পুনঃ ২/৪০ গতে ৪/৫ মধ্যে। কালরাত্রি ১০/১৫ গতে ১১/৫১ মধ্যে।
৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, সোমবার, নবমী ৩১/৪০/৩৫ রাত্রি ৬/৫৪/৫৬। অনুরাধা ৮/১/৪০ দিবা ৯/২৭/২২। সূ উ ৬/১৪/৪২, অ ৫/২৮/৫৮। অমৃতযোগ দিবা ৭/৩২ মধ্যে ও ১০/৩৮ গতে ১২/৫৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ১১/২৩ গতে ২/৪১ মধ্যে। কালবেলা ৭/৩৮/৫৯ গতে ৯/৩/১৬ মধ্যে। কালরাত্রি ১০/১৬/৭ গতে ১১/৫১/৫০ মধ্যে।
 ২২ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজ্যপাল-মুখ্যমন্ত্রী বৈঠক শুরু

 রাজ্যপাল-মুখ্যমন্ত্রী বৈঠক শুরু হল রাজভবনে। আজ কিছুক্ষণ আগেই এই বৈঠকের ...বিশদ

12:08:00 PM

  দরজার তালা ভেঙে চুরি সোনারপুরের একটি স্কুলে
দরজার তালা ভেঙে চুরি হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুর এলাকার ...বিশদ

11:40:00 AM

 সেনা শীর্ষে মহিলাদের নিয়োগে ছাড়পত্র সুপ্রিম কোর্টের
মহিলাদের নিয়ে পুরানো ধারনা বদলান। আজ সেনাশীর্ষে মহিলাদের নিয়োগে ছাড়পত্র ...বিশদ

11:34:36 AM

সেতু দুর্ঘটনা: গাফিলতির কথা মেনে নিলেন বিজেপি সংসদ সদস্য
গতকাল রাতে মালদার নির্মিয়মান ফারাক্কা সেতু দুর্ঘটনার পর আজ সোমবার ...বিশদ

11:06:00 AM

সেনসেক্স নামল ৪৪.১৭ পয়েন্ট
সপ্তাহের প্রথম দিনে ৪৪.১৭ পয়েন্ট নেমে বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জের (বিএসই) ...বিশদ

10:35:07 AM

দুর্গাপুরে লক্ষাধিক টাকার মোবাইল চুরি
লক্ষাধিক টাকার মোবাইল চুরি হল দুর্গাপুর বেনাচিতি বাজারের একটি মোবাইলের ...বিশদ

10:34:00 AM