Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

আইন ও বাস্তব
পি চিদম্বরম

গত বছরের ৪ আগস্ট সন্ধ্যায় জম্মু ও কাশ্মীরে লালবাতি জ্বালিয়ে দেওয়া হল। ওই রাতেই শুরু হল মানবাধিকার হরণ। রাজ্যপাল, উপদেষ্টাগণ, মুখ্যসচিব, পুলিসের ডিরেক্টর জেনারেল প্রভৃতিকে নিয়ে যে নতুন কর্তাব্যক্তির দল সেখানকার দায়িত্বে এলেন, ভারতের সংবিধানের প্রতি তাঁদের শ্রদ্ধা যৎকিঞ্চিৎ।
গত ৪ আগস্ট কাশ্মীর উপত্যকায় মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক, ইন্টারনেট পরিষেবা, ল্যান্ডলাইন সংযোগ প্রভৃতি বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছিল। নিয়ন্ত্রণ জারি করা হয়েছিল মানুষের চলাফেরার উপরেও। গত ৫ আগস্ট রাষ্ট্রপতি জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিয়ে ২৭২ নম্বর সাংবিধানিক আদেশ জারি করলেন এবং ভারতের সংবিধানের যাবতীয় ব্যবস্থা প্রস্তাবিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের উপর বলবৎ করলেন। ওই একই দিনে জেলাশাসকরা ১৪৪ ধারা জারি করে আন্দোলন এবং জনসমাবেশের উপর বিধিনিষেধ আরোপ করলেন। শয়ে শয়ে রাজনৈতিক নেতা এবং কর্মীকে আটক করা হল। এমনকী আটক করা হল তিনজন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকেও। সরকার তাঁদের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট ‘চার্জ’ কিছু আনতে পারেনি। পরিতাপের বিষয় এই, তবুও এখনও তাঁদের হেপাজতে রাখা হয়েছে।
কাশ্মীর টাইমস-এর কার্যনির্বাহী সম্পাদক অনুরাধা ভাসিন, কংগ্রেস এমপি গোলাম নবি আজাদ এবং অন্যরা সরকারের এই অন্যায় নিয়ন্ত্রণের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে নালিশ জানিয়েছেন। আবেদনকারীদের মৌলিক অধিকার খর্ব করা হয়েছে—এই বক্তব্য ছাড়াও, অনুরাধা ভাসিনের প্রতিবাদ এই কারণে যে, তিনি তাঁর সংবাদপত্র প্রকাশ করতে পারেননি এবং তাতে করে সংবাদপত্রের স্বাধীনতা লঙ্ঘিত হয়েছে।
গত ১৬ সেপ্টেম্বর সুপ্রিম কোর্ট এক আদেশে রাজ্য সরকারকে বলেছে যে, ‘‘জাতীয় স্বার্থ এবং অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার কথা মনে রেখে কাশ্মীরে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা বজায় রাখার জন্য যাবতীয় উদ্যোগ নিতে হবে।’’ আশঙ্কামতোই, স্বাভাবিক জীবনযাত্রা সেখানে ফেরেনি। এরপর ১০ অক্টোবর কেন্দ্রের পেশ করা দাবি আদালতে এই মর্মে নথিভুক্ত হল যে—কিছু নিয়ন্ত্রণ ‘প্রত্যাহার’ করে নেওয়া হয়েছে। যাই হোক, কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারের পক্ষে অবশ্যপালনীয় কোনও অন্তর্বর্তী আদেশ না-থাকায় জম্মু ও কাশ্মীরে, বিশেষভাবে কাশ্মীর উপত্যকার পরিস্থিতি যথাপূর্বই রয়ে গেল।
সওয়াল-জবাব
মামলাগুলি দিন কয়েক শোনা হল, ২৭ নভেম্বর রায়দান সংরক্ষিত রাখা হল এবং সেটা ঘোষণা করা হল গত ১০ জানুয়ারি।
সমস্যাটিকে আদালত মোট পাঁচটি বিষয়ে ভাগ করে দিল। তার সঙ্গে আদালতের দেওয়া উত্তরের উল্লেখযোগ্য অংশগুলি এখানে তুলে দিচ্ছি:
১. সরকার কি ১৪৪ ধারা জারি করার অর্ডার পেশ করা থেকে কোনও ছাড় দাবি করতে পারে? উত্তর: না।
২. বাকস্বাধীনতা এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবসা চালানোর স্বাধীনতা কি মৌলিক অধিকার হিসেবে গণ্য হবে? উত্তর: হ্যাঁ, যথাক্রমে অনুচ্ছেদ ১৯(১)(এ) এবং (জি) অনুসারে, এবং ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করার প্রতিটি নির্দেশ সাতদিনের ভিতরে পর্যালোচনা করতে হবে (এবং প্রত্যেক পর্যালোচনার সাতদিনের ভিতরে তা পুনরায় পর্যালোচনা করতে হবে)।
৩. ইন্টারনেট পরিষেবা পাওয়াটা কি একটি মৌলিক অধিকার? কোনও উত্তর দেওয়া হয়নি।
৪. ধারা ১৪৪ প্রয়োগের নিয়ন্ত্রণগুলি কি বৈধ ছিল? উত্তর: ক্ষমতা হল প্রতিষেধক এবং নিবারক (প্রিভেন্টিভ অ্যান্ড রেমিডিয়াল)—এটা মনে রেখে এবং সুসংগতির নীতি মেনে, অবশ্যই অধিকার ও নিয়ন্ত্রণের মধ্যে সামঞ্জস্য থাকে এমনভাবে নির্দেশ দিতে হবে। একই বয়ানের নির্দেশের পুনরাবৃত্তি করা চলবে না। রাজ্য বা কর্তৃপক্ষের উদ্দেশে আদালতের আদেশ—‘‘নির্দেশগুলির কনটিন্যুয়েন্স বা স্থায়িত্বের কী প্রয়োজন, সেটা অবিলম্বে পর্যালোচনা করতে হবে।’’
৫. সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা সত্যিই কি লঙ্ঘিত হয়েছিল? উত্তর: ‘চিলিং এফেক্ট’ নীতি পরীক্ষার পর, এবং সংবাদপত্রের প্রকাশ পুনরায় শুরু হয়েছে বিবেচনা করে আদালত বলেছে, ‘‘এই বিষয়ে আর প্রশ্রয় দেওয়া নয়, বরং বলব যে দায়িত্বশীল সরকারের কর্তব্য সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতাকে সবসময় মর্যাদা দেওয়া।’’
একটা সামঞ্জস্যের সন্ধান
আদালতের পর্যবেক্ষণ—এবং কিছু বিষয়ে পর্যবেক্ষণ পেশে অনাগ্রহ—বিস্ময়কর ছিল না। রায়দানের একেবারে গোড়ার দিকে, আদালত তার মনোভাব পরিষ্কার করে দিয়েছিল যে, ‘‘স্বাধীনতা এবং নিরাপত্তার প্রশ্নে ব্যালান্স বা সামঞ্জস্য আমাদের পক্ষে খুঁজে পাওয়ার সুযোগটা সীমিত ... এখানে আমাদের ভূমিকা শুধু এটা নিশ্চিত করতে যে, তখনকার পরিস্থিতিতে সমস্ত ধরনের অধিকার ও স্বাধীনতা যতদূর সম্ভব নাগরিকদের দেওয়া হচ্ছে এবং সেইসঙ্গে নিরাপত্তার দিকটিও সুনিশ্চিত করা হয়েছে।’’
২০১৯-এর ৪ আগস্ট থেকে ২০২০-র ১৩ জানুয়ারির ভিতরে সরকার যখন তথাকথিত ‘স্বাভাবিক পরিস্থিতি’ রক্ষা করছিল, তখনই কিন্তু ২০ জন সাধারণ মানুষ এবং ৩৬ জন জঙ্গি ও আটজন নিরাপত্তা কর্মী প্রাণ হারিয়েছেন।
আপনি যখন এই লেখা পড়ছেন তখন ইন্টারনেট, আন্দোলন, জনসমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, ভাষণ ও লেখালেখি এবং কাশ্মীর উপত্যকার পর্যটকদের উপর নিয়ন্ত্রণ জারি রয়েছে। কোনোরকম ‘চার্জ’ ছাড়াই রাজনৈতিক নেতাদের হেপাজতবাসও চলছে যথারীতি। সুতরাং প্রশ্ন উঠছে—আদালতের রায়ের পরেও বাস্তবে কিছু পরিবর্তন হয়েছে কি?
বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন বলেছেন, ‘‘সাময়িক নিরাপত্তা অর্জনের আশায় যাঁরা অপরিহার্য স্বাধীনতা ত্যাগ করেন, তাঁরা স্বাধীনতা ও নিরাপত্তার কোনোটাই পাওয়ার যোগ্য নন।’’ প্রসঙ্গটি পৃথক; তা সত্ত্বেও, স্বাধীনতা ও নিরাপত্তার মধ্যে দ্বন্দ্বের সময়ের জন্য উদ্ধৃতিটি ‘ক্লাসিক’ হয়ে ওঠে। আদালত যদি বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিনের প্রবচনটিকে ‘গাইডিং প্রিন্সিপল’ হিসেবে মনে রাখত, তবে চূড়ান্ত রায়টা কি অন্যরকম হতো?
কিছু কি পাল্টাবে?
আদালতের রায় কাশ্মীর প্রশ্নে সরকারকে স্বৈরাচারী ও সেনানির্ভরতার নীতি থেকে সরে আসার একটা সুযোগ করে দিয়েছে। কিন্তু, সরকার এই সুযোগ নেবে কি না আমার সংশয় রয়েছে। আদালতের রায়টি কাশ্মীর উপত্যকার ৭০ লক্ষ মানুষের মনে এই আশাও জাগিয়েছে যে তাদের স্বাধীনতার পুনরুদ্ধার হবে—যদিও আদালত রায়দানের সাতদিন পরেও সেসবের লক্ষণমাত্র নেই।
বিবাদি পক্ষ (রেসপনডেন্ট, এখানে কেন্দ্রীয় সরকার এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল কর্তৃপক্ষ) অখুশি এই কারণে যে তাদের পদক্ষেপগুলির উপর সবসময় বিচারবিভাগের পর্যক্ষেণ চলবে। অন্যদিকে, বাদি পক্ষও (পিটিশনার) অখুশি—এই কারণে যে, বিচারের বাণী ছাড়া তাঁরা কোনও সুরাহা পাননি।
প্রাইভেসি মামলার (জাস্টিস পুত্তাস্বামী) মতো, আদালতের মাধ্যমে আরও কিছুটা করা যেত। একটা সুযোগ নষ্ট হয়ে গিয়েছে। হতে পারে আরও কিছু করা হবে, এই মামলার পরবর্তী শুনানিতে (আপনি বাজি ধরতে পারেন যে আদালত অবমাননার একটি পদক্ষেপ করা হবে) অথবা পরবর্তী মামলার শুনানিতে। কিছু সময় আইন হতাশ করে।  
20th  January, 2020
বিশ্বাসের অভাব
সমৃদ্ধ দত্ত

 বিগত তিন বছর ধরে ভারতের সিংহভাগ সাধারণ মানুষ নিজেদের সঞ্চয়ের টাকা জমা রাখছে বেসরকারি ব্যাঙ্কে। সরকারি তথা রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কে নয়। দেশের আটটি সরকারি এবং আটটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট বিশ্লেষণ করে এই তথ্য জানা গিয়েছে। যার ফলশ্রুতি হল সরকারি ব্যাঙ্কে যে টাকা জমা রয়েছে তার সিংহভাগই আগে থেকে জমা হয়ে থাকা ফিক্সড ডিপোজিট।
বিশদ

মুখ চাই মুখ
মেরুনীল দাশগুপ্ত

মুখ হয়তো অনেক আছে। কিন্তু, ঠিক সেই মুখটির দেখা এখনও মেলেনি। কোন মুখটি? যে মুখটি সৌজন্যে পরাক্রমে রাজনৈতিক কূটকৌশলে এবং অবশ্যই জনপ্রীতিতে পাল্লা দিতে পারে বাংলার একচ্ছত্র নেত্রীকে, ২০২১ বিধানসভার রণাঙ্গনে ছুঁড়ে দিতে পারে চ্যালেঞ্জ, জাগাতে পারে আর এক মহাবিজয়ের সম্ভাবনা। সেই মুখ কোথায় পদ্মশিবিরে? 
বিশদ

20th  February, 2020
বিপুল অভ্যর্থনা পেয়ে বিশ্বজয়ী বিবেকানন্দ
কলকাতায় বলেন, এ ঠাকুরেরই ‌জয়জয়কার
হারাধন চৌধুরী

ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ বলেছিলেন, ‘‘নরেন শিক্ষে দেবে।’’ ঠাকুরের কথা ফলিয়ে দেওয়ার জন্য তাঁর মানসপুত্রটি বেছে নিয়েছিলেন পাশ্চাত্যের মাটি। কারণ, যে-কোনও জিনিস পাশ্চাত্যের মানুষ গ্রহণ করার পরেই যে ভারতের মানুষ তা গ্রহণে অভ্যস্ত! স্বামী বিবেকানন্দের সামনে সেই সুযোগ এনে দিয়েছিল শিকাগো বিশ্ব ধর্ম মহাসভা।
বিশদ

19th  February, 2020
ট্রাম্পের ভারত সফর এবং প্রাপ্তিযোগের অঙ্ক 

শান্তনু দত্তগুপ্ত: সফর মাত্র দু’ঘণ্টার। আর তাতে আয়োজন পাহাড়প্রমাণ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলে কথা! তাই এতটুকু ফাঁক রাখতে নারাজ গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি (বা বেসরকারিভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি)।  বিশদ

18th  February, 2020
টুকরে টুকরে গ্যাং-ই জিতল
পি চিদম্বরম

 গত ১১ ফেব্রুয়ারি লোকসভার কার্যবিবরণীতে নথিভুক্ত নিম্নলিখিত প্রশ্নোত্তরগুলি আনন্দের কারণ হতে পারত যদি না বিষয়টি বিজেপি নেতাদের (এই পঙ্‌ক্তিতে আছেন প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং অন্য মন্ত্রীরাও) দুঃখের ধারাবিবরণীতে পরিণত হতো: বিশদ

17th  February, 2020
স্বর্গলোকে মহাত্মা ও
গুরুদেবের সাক্ষাৎকার
সন্দীপন বিশ্বাস

 অনেকদিন পর আবার দেখা হল মহাত্মা এবং গুরুদেবের। মর্ত্যে দু’জনের প্রথম সাক্ষাৎ ঘটেছিল শান্তিনিকেতনে ১৯১৫ সালে আজকের দিনে অর্থাৎ ১৭ ফেব্রুয়ারি। তারপর বেশ কয়েকবার তাঁদের দেখা হয়েছিল। কবিগুরু সবরমতী আশ্রমে গিয়েছিলেন ১৯২০ সালে। বিশদ

17th  February, 2020
এবার হ্যাটট্রিকের দোরগোড়ায় অগ্নিকন্যা
হিমাংশু সিংহ

তবে কি দিল্লিতে হেরে বোধোদয় হল অমিত শাহদের? নাকি ভোট জেতার নামে ঘৃণা ছড়ানো ঠিক হয়নি বলাটা আরও বড় কোনও নাটকের মহড়ারই অংশ? বোঝা কঠিন, তুখোড় রাজনীতিকরা কোন উদ্দেশ্যে কখন কোন খেলাটা খেলেন! আর সেই তালে অসহায় জনগণকে তুর্কি নাচন নাচানো চলে অবলীলায়। 
বিশদ

16th  February, 2020
শাহিনবাগে যেসব কথা জানানো হয়নি

 ‘যত্র নার্যস্তু পূজ্যন্তে রমন্তে তত্র দেবতাঃ’, যেখানে মহিলারা পূজিতা হন সেখানেই ভগবান অবস্থান করেন। ভারতবর্ষের মানুষ হাজার বছর ধরে এই শ্লোক আবৃত্তি করে এসেছে। গত একমাসের বেশি সময় ধরে দিল্লির শাহিনবাগে শিশু থেকে বৃদ্ধা বিভিন্ন বয়সের মহিলাদের কষ্ট দেওয়া হয়েছে। বিশদ

15th  February, 2020
মাফলার ম্যানের দিল্লি জয়
মৃণালকান্তি দাস 

ঠেকে শিখেছেন তিনি। ‌‌‌‌পদস্থ আমলা থেকে রাজনীতিক এবং প্রশাসক হিসেবে পরিণত হয়েছেন। বুঝেছেন, এ দেশের আমআদমি বাড়ির কাছে ভালো স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল চান। বাড়ির মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়েই তাঁদের উদ্বেগ। 
বিশদ

14th  February, 2020
রাজনীতির কাছে মানুষের চাহিদাটাই
বদলে দিল দিল্লির এই ভোট-সংস্কৃতি
হারাধন চৌধুরী

 প্রতিমা গড়ে পুজো করা আর ভগবানকে লাভ করা এক নয়। প্রতিমা সাজিয়ে পুজো যে-কেউ করতে পারে। কিন্তু, ভগবান লাভ? মানুষ চিরদিন মনে করে এসেছে, সে শুধু সাচ্চা সাধকের পক্ষেই সম্ভব। কিন্তু, ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ এসে একেবারে অন্যকথা বললেন।
বিশদ

13th  February, 2020
সেনাবাহিনীও যখন রাজনীতির অস্ত্র
শান্তনু দত্তগুপ্ত

লঞ্চপ্যাড মাত্র ৫০ মিটার দূরে... অন্ধকারের মধ্যেই তাঁর চোখ দু’টো খুঁজে চলেছে... নজরে এসেও গেল দুই জঙ্গি... ছায়ার মতো সেঁটে আছে লঞ্চপ্যাডের অন্ধকারে। নাইট ভিশন গ্লাস চোখে লাগিয়ে নিশ্চিত হলেন মেজর মাইক ট্যাঙ্গো। আগেভাগে নিশ্চিত হয়ে নেওয়ার কারণ আরও ছিল তাঁর কাছে।
বিশদ

11th  February, 2020
রাজস্ব-শৃঙ্খলা অক্ষুণ্ণ রেখেই জনমুখী বাজেট
দেবনারায়ণ সরকার

২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এটাই অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট। এই বাজেট নিঃসন্দেহে জনমুখী, তবে রাজস্ব-শৃঙ্খলা (ফিসকাল ডিসিপ্লিন) যথেষ্ট বজায় রেখে জনমুখী বাজেট পেশ করলেন অমিতবাবু। প্রথমে রাজস্ব-শৃঙ্খলার প্রসঙ্গে আসা যাক। বিশদ

11th  February, 2020
একনজরে
সৌম্যজিৎ সাহা, কলকাতা: বয়স মাত্র পাঁচ। আর তাতেই বিশ্বের দরবারে স্বীকৃতি পেতে চলেছে রাজ্যের একমাত্র শিক্ষক শিক্ষণ বিশ্ববিদ্যালয়। শুধু তাই নয়, বিএড বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে দেশের মধ্যে একমাত্র এই প্রতিষ্ঠানকেই বেছে নেওয়া হয়েছে।   ...

নয়াদিল্লি, ২০ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): লাফিয়ে বাড়ছে সোনার দাম। বৃহস্পতিবার প্রতি ১০ গ্রামে সোনার দাম বাড়ল ১১১ টাকা। ফলে রাজধানী দিল্লিতে ১০ গ্রাম এই হলুদ ধাতুর দাম হয়েছে ৪২ হাজার ৪৯২ টাকা। তবে পড়েছে রুপোর দাম। ৬৭ টাকা কমে কেজি প্রতি ...

বিএনএ, পুড়শুড়া: পঞ্চায়েত অফিস থেকে পাঠানো বার্ধক্য ও বিধবা ভাতার তালিকা বদল হয়ে গিয়েছে বিডিও অফিস থেকে। এই অভিযোগ তুলে বৃহস্পতিবার দুপুরে পুরশুড়া ব্লক অফিসে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন চিলাডাঙি গ্রামপঞ্চায়েত এলাকার ভাতা না পাওয়া মানুষজন। বিক্ষোভের জেরে এদিন ব্লক অফিসে ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বৃহস্পতিবার মারগাওয়ে পৌঁছেই অনুশীলন করল মোহন বাগান। কলকাতার থেকে গোয়ায় এখন গরম কিছুটা বেশি। তবে সন্ধ্যা ছ’টার পর আবহাওয়া অনেকটাই স্বস্তিদায়ক। তার ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শারীরিক দিক থেকে খুব ভালো যাবে না। মনে একটা অজানা আশঙ্কার ভাব থাকবে। আর্থিক দিকটি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস
১৮৪৮: কার্ল মার্ক্স প্রকাশ করেন কমিউনিস্ট ম্যানিফেস্টো
১৮৭৮ - মিরা আলফাসা ভারতের পণ্ডিচেরি অরবিন্দ আশ্রমের শ্রীমার জন্ম
১৮৯৪: ডাঃ শান্তিস্বরূপ ভাটনগরের জন্ম
১৯৩৭: অভিনেত্রী সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫২: পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমান বাংলাদেশ) ভাষা আন্দোলনে প্রাণ দিলেন চারজন
১৯৬১: নোবেলজয়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকান বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৭০ - অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার মাইকেল স্লেটারের জন্ম
১৯৯১: অভিনেত্রী নূতনের মৃত্যু
১৯৯৩ - বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক ও কবি অখিল নিয়োগীর (যিনি স্বপনবুড়ো ছদ্মনামে পরিচিত) মৃত্যু
২০১৩: হায়দরাবাদে জোড়া বোমা বিস্ফোরণে ১৭জনের মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৯৪ টাকা ৭২.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯০.৯৮ টাকা ৯৪.৩০ টাকা
ইউরো ৭৬.০৫ টাকা ৭৯.০১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪২,২২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪০,০৬০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৬৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৮ ফাল্গুন ১৪২৬, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, (মাঘ কৃষ্ণপক্ষ) ত্রয়োদশী ২৮/২ অপঃ ৫/২২। উত্তরাষাঢ়া ৭/৪৯ দিবা ৯/১৩। সূ উ ৬/৮/৫১, অ ৫/৩২/৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে পুনঃ ৮/২৫ গতে ১০/৪২ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ২/২৯ মধ্যে পুনঃ ৪/০ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/১২ গতে ৮/৫৪ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৮ গতে ৪/২৮ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/৫৯ গতে গতে ১১/৫০ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৪১ গতে ১০/১৫ মধ্যে।
৮ ফাল্গুন ১৪২৬, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, ত্রয়োদশী ২৮/৪২/৫৬ সন্ধ্যা ৫/৪১/২০। উত্তরাষাঢ়া ৯/৩৭/৩২ দিবা ১০/৩/১১। সূ উ ৬/১২/১০, অ ৫/৩০/৫০। অমৃতযোগ দিবা ৭/২৯ মধ্যে ও ৮/১৬ গতে ১০/৩৭ মধ্যে ও ১২/৫৮ গতে ২/৩১ মধ্যে ও ৪/৫ গতে ৫/৩১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/১৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ৩/২৮ গতে ৪/১৭ মধ্যে। কালবেলা ১০/২৬/৪০ গতে ১১/৫১/৩০ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৪১/১০ গতে ১০/১৬/২০ মধ্যে।
২৬ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
অবসর নিলেন প্রজ্ঞান ওঝা
অবসর ঘোষণা করলেন ভারতীয় লেফট আর্ম স্পিনার প্রজ্ঞান ওঝা। ...বিশদ

11:38:31 AM

কুলটিতে কুয়োয় পড়ে মৃত্যু মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী
কুয়োয় পড়ে অস্বাভাবিক মৃত্যু মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর। ঘটনাটি পশ্চিম বর্ধমানের আসানসোলের ...বিশদ

11:27:00 AM

আজ মুক্তি 
শুভ মঙ্গল জাদা সাবধান- হিতেশ কেবল্য পরিচালিত ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে ...বিশদ

11:14:53 AM

 ওয়েলিংটন টেস্ট: বৃষ্টিতে পণ্ড প্রথম দিনের খেলা

10:48:56 AM

খড়গপুরে বালিবোঝাই গাড়ির ধাক্কায় মৃত্যু বৃদ্ধ দম্পতির
একটি বালি বোঝাই গাড়ির ধাক্কায় বৃদ্ধ দম্পতির মৃত্যু। ঘটনাটি পশ্চিম ...বিশদ

10:45:40 AM

ভয়াবহ গাড়ি দুর্ঘটনায় আলিপুরদুয়ারে মৃত ৫
ভয়াবহ গাড়ি দুর্ঘটনা কেড়ে নিল তরতাজা ৫টি প্রাণ। ঘটনাটি ঘটে ...বিশদ

10:40:20 AM