Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদ: পুতুলনাচের ইতিকথা
জিষ্ণু বসু

নাচায় পুতুল যথা দক্ষ বাজিকরে/ নাচাও তেমনি তুমি অর্বাচীন নরে। —কবি নবীনচন্দ্র সেনের এই বিখ্যাত পঙ্‌ক্তি আজ ভীষণ প্রাসঙ্গিক মনে হয়। গত মাসাধিক কাল সামান্য কিছু অতি বুদ্ধিমান আমাদের মতো অর্বাচীনদের পুতুলের মতো নাচাচ্ছেন। জাতীয় ও আঞ্চলিক প্রচার মাধ্যমও অতি যত্নসহকারে তা পরিবেশন করছে।
রাষ্ট্রসংঘ ভারতকে পৃথিবীর সর্ববৃহৎ গণতন্ত্রের স্বীকৃতি দিয়েছে। স্বাধীনতার পরবর্তী সাত দশকে ভারতের সাধারণ মানুষ এই শিরোপা অর্জন করেছেন। এক রাজনৈতিক শক্তি থেকে অন্য রাজনৈতিক শক্তিতে ক্ষমতা বদল হয়েছে। কিন্তু দেশ নিজের গতিতেই চলেছে। গত মাত্র দু’বছরে আধ ডজনেরও বেশি রাজ্যে রাজনৈতিক দল বদলে গেল। বহু দশকের রাজনৈতিক জোট পাল্টে গেল, রাজনৈতিক সমীকরণ উল্টে গেল, জাতীয় দল ও আঞ্চলিক দলের উত্থান-পুনরুত্থান হল। কিন্তু গণতন্ত্রই জিতে গিয়েছে। জরুরি অবস্থার সামান্য কিছু সময়ের দুঃস্বপ্নের দিনগুলি বাদ দিলে গণতন্ত্রের পতাকা কখনও ভূলুণ্ঠিত হয়নি।
এর সবটুকু কৃতিত্ব ভারতের সাধারণ মানুষের। বুকের পাঁজর যেমন ছোট্ট হৃদপিণ্ডকে ঘিরে রাখে তেমন আপাতদৃষ্টিতে সরল, দেহাতি, বোকাসোকা মানুষেরা গণতন্ত্রকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। এই সংখ্যাটাই বেশি। এটিই গণতান্ত্রিক ভারত। যাঁরা ভোট দেন, বন্দুকের নলকে ক্ষমতার উৎস মনে করেন না। রাজনৈতিক নেতানেত্রীদের একাংশের এত প্রতারণার পরেও গণতন্ত্রের উপরেই ভরসা রাখেন। এই ভারতের চেহারায় জৌলুস নেই, বিলিতি উচ্চারণে অনর্গল ইংরেজি বলতে পারে না, তবে বংশপরম্পরায় দেশটাকে ভালোবাসে।
খুব সামান্য সংখ্যক মানুষ এই গণতান্ত্রিক ভারতের বিপক্ষে। কারণ, তাঁরা যে মতাদর্শে বিশ্বাস করেন তাতে বহুদলীয় গণতন্ত্রের স্থান নেই। এই মুষ্টিমেয় মানুষের একমাত্র উদ্দেশ্য ভারতকে ‘টুকরো টুকরো’ করা। একটু লক্ষ করলেই বোঝা যায় যে অসহিষ্ণুতার নামে বিশ্ববাসীর কাছে গণতান্ত্রিক ভারতকে ছোট করাই হোক, কাশ্মীরের ভয়ানক নরসংহারকারীর জন্য মধ্য রাত্রে সুপ্রিম কোর্ট খোলার ব্যবস্থাই হোক কিংবা আজ শত শত ছাত্রের ভবিষ্যৎ বাজি রেখে নিজেদের অগণতান্ত্রিক বক্তব্য চাপানোর নিষ্ঠুর প্রয়াস, সবকিছুর পিছনে সেই হাতেগোনা কয়েকজন বাজিকর।
মজার ব্যাপার হল, আমাদের দেশের প্রচারমাধ্যমের একটা বড় অংশ এঁদের ফেলো ট্রাভেলার। কারণটা আদর্শগত নস্ট্যালজিয়া না পেশাগত ঋণশোধ, না কি নিছকই সস্তায় ‘নু্ইসেন্স ভ্যালু’ কাজে লাগানো? এই নিয়ে বৃহত্তর বিতর্ক হতেই পারে। কিন্তু বাস্তব হল—কলকাতার রাস্তায় গণতন্ত্রপ্রেমী হাজার হাজার মানুষের কণ্ঠস্বর চেপে দেওয়া হয়। কিন্তু মাত্র ছয়-সাতজনের গণতন্ত্র-বিরোধীর বেয়াদপি প্রবল গুরুত্ব দিয়ে প্রথম পাতায় ছবিসহ দেখানো হয়।
বৈদ্যুতিন মাধ্যমে ওই হাতেগোনা মানুষের মুখই উঠে আসে। কোন অজ্ঞাত কারণে কাশ্মীর প্রসঙ্গে রাহুল পণ্ডিতিয়া বা অনুপম খেরের মতো ভুক্তভোগী লেখক বা অভিনেতার বক্তব্য গুরুত্বপূর্ণ পায় না জানি না। কিন্তু, লেখিকা অরুন্ধতী রায়ের কথা অমৃত সমান! এই বাজিকরদের কথায় মনে হয় যে—দেশের সব দুঃখের কারণ হল ভারতীয় গণতন্ত্র! দেশটা আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে রসাতলে যাবে! তাই ছাত্রদের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময়টুকু ব্যয় করে, শিল্পী সাহিত্যিকদের সব পুরস্কার ফেরত দিয়ে, কোটি কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করে, গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের বর্বরোচিত ভাবে হেনস্তা করে এর প্রতিবাদ করা উচিত! আজও ছাত্রদের ভবিষ্যৎ নিয়ে বাজি রাখছেন ওই ‘পরিণত বুদ্ধি’র কয়েকজন। জেএনইউ স্টুডেন্টস ইউনিয়নের বক্তব্যের সঙ্গে সঙ্গে ওই গরিব ছাত্রদের কথাও তো প্রচারে আসা উচিত, যাঁরা পরিবারের সবটুকু সামর্থ্য দিয়ে দিল্লিতে কেবল লেখাপড়া শিখতে এসেছিলেন। তাঁরা নতুন বছরে অনলাইন ফর্ম ভরেছিলেন। রুষ্ট জেএনইউএসইউ প্রতিবাদীদের দাপটে সার্ভার রুম ভেঙে চুরমার হয়ে গেল, বহু টাকার অপটিকাল কেবল কেটে টুকরো টুকরো হল, সেইসঙ্গে এঁদের ভবিষ্যৎটাও। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ২০১৯ এমনই একটা বিষয় ছিল। ভারতের মুসলমান সম্প্রদায়ের এতে ক্ষতির কোনও সম্ভাবনা নেই। এই আইন একটি সার্বভৌম দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রচিত হয়েছে। এতে কোনও মানুষের নাগরিকত্ব বা কোনও অধিকার কেড়ে নেওয়ার কথা বলা নেই। বাংলাদেশ, পাকিস্তান বা আফগানিস্তানে যাঁরা ধর্মীয় সংখ্যালঘু হওয়ার কারণে দেশভাগের পর থেকেই অত্যাচার সহ্য করেছেন, বর্তমান সরকার তাঁদের নাগরিকত্ব দিতে চান। এই তিনটি দেশেই ইসলাম ‘রাষ্ট্রধর্ম’। তাই সেখান থেকে ধর্মীয় কারণে অত্যাচারিত হয়ে কোনও মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষ ভারতে আসেননি। তাই অত্যন্ত স্বাভাবিক কারণে সিএএ-তে মুসলমান সম্প্রদায়ের নাম নেই।
ওই অত্যাচারিত মানুষগুলির অবস্থা তথাকথিত মহাপণ্ডিতরা জানেন না? সারা পৃথিবীর মানবাধিকারের জন্য যাঁদের ঘুম হয় না, তাঁরা পূর্ববঙ্গের হিন্দুদের উপর পাশবিক অত্যাচারের কথা শোনেননি! কিন্তু ওই মহামানবেরা ওই মানবিক কাজে কেবল বাধাই দিলেন না, অনেক মাথা খাটিয়ে গভীর সাম্প্রদায়িকতার বিষ ছড়িয়ে দিলেন। যখন স্টেশনের পর স্টেশন জ্বলছে, কাতারে কাতারে বাস পোড়ানো হচ্ছে, গ্রামের পর গ্রাম থেকে হিন্দুদের বিতাড়ন করা চলছে, তখন অনেক সাংবাদিক বিক্ষোভকারীদের প্রশ্ন করেছেন, এসব করছেন কেন? প্রায় কেউই বিক্ষোভের কারণটা বলতে পারেননি।
ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে, কেউ অত্যন্ত যত্ন করে সাম্প্রদায়িকতার বীজ স্থানে স্থানে বপন করেছে। যে স্লোগানটি এই ক’দিন সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়েছে তা কোনও মাদ্রাসায় তৈরি হয়নি—‘সে ইট অন দ্য ব্যারিকেড লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ্‌’। শেষ অংশটি কোনও মাদ্রাসা বা জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়াতে যোগ করা হতে পারে। একদম সোজা অর্থ—লা (নেই) ইলাহা (ঈশ্বর) ইল্লাল্লাহ (আল্লাহ ছাড়া)—‘আল্লাহ ছাড়া অন্যকোনও ঈশ্বর নেই।’ কিন্তু ‘সে ইট অন দ্য ব্যারিকেড’ এই অংশটি এল কোথা থেকে?
এই প্রসঙ্গে মনে পড়ছে ফার্দিনান্দ ডে লা ক্রোয়ার আঁকা ফরাসি বিপ্লবের বিখ্যাত প্রতীকী ছবিটির কথা—‘লিবার্টি অন দ্য ব্যারিকেডস’—যেখানে রাইফেল হাতের সেই মহিলা, যাঁর ঊর্ধ্বাঙ্গে কোনও বস্ত্র নেই। এই ছবির সঙ্গে মাদ্রাসার কোনও দূরগামী যোগও নেই। এই উদ্ভাবন ওই কতিপয় বাজিকরের ঊর্বর মস্তিষ্কপ্রসূত। কিন্তু, যে-পথে জেহাদি উগ্রপন্থার কোনও নির্দেশ ভারতের প্রতি প্রান্তে পৌঁছে যায়, এক্ষেত্রেও সেই একই পথ ব্যবহৃত হয়েছে।
কিন্তু দেশের মধ্যে এই বিশৃঙ্খলা তৈরি করে গরিব দেশটার কোটি কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি পরিকল্পনামাফিক নষ্ট করে এঁদের কী লাভ? সঠিক উত্তর একটাই—‘ভারত তেরে টুকড়ে হোঙ্গে’। কিন্তু সুবিধাটা হল, এই পণ্ডিতদের কেউ প্রশ্ন করেন না, তাঁরাই কেবল গণতন্ত্রকে প্রশ্ন করেন। ভারত অসহিষ্ণু, কাশ্মীরে মানবাধিকার নেই, তিন তালাকের বিলোপে সংখ্যালঘুদের প্রাণান্তকর অবস্থা! আচ্ছা, সোভিয়েত রাশিয়ার অসহিষ্ণুতা তো আজ শিশুপাঠ্য কাহিনীতেও এসে গেছে। কবি ভারভারা রাও তো কয়েকটা কবিতা লিখতে পারেন তার উপরে। চীনে উইঘুর গোষ্ঠীর মুসলমান সম্প্রদায়ের মানবাধিকারের একটা সাম্প্রতিক ইতিহাসের প্রবন্ধ তো লিখতেই পারেন রামচন্দ্র গুহ। প্রগতিবাদী ঔপন্যাসিক জানেন, বাংলাদেশের গণধর্ষিতা কোনও নমঃশূদ্র মেয়ের হৃদবিদারক কাহিনী তাঁকে লিখতে হবে না।
২০১০ সালের ডিসেম্বরে কলকাতার সেন্ট্রাল ফরেন্সিক ল্যাবরেটরির অধিকর্তা সি এন ভট্টাচার্য এক চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করেছিলেন। মাওবাদীরা কীভাবে কাশ্মীরের মুজাহিদিনদের মাধ্যমে আফগানিস্তানের তালিবানদের কাছ থেকে ‘রেডিও কন্ট্রোল্ড এক্সপ্লোসিভ’ এবং ‘আল্ট্রা হাই ফ্রিকোয়েন্সি’ রিমোট কন্ট্রোল প্রযুক্তি এদেশে প্রথম এনেছিল। এরাজ্যে এত শিক্ষিত চকচকে ব্যক্তিত্ব মাওবাদীদের সমর্থনে টিভিতে আসেন, কাগজের সম্পাদনা করেন, উত্তর সম্পাদকীয় লেখেন কিন্তু ২০১৪ সালে খাগড়াগড় বিস্ফোরণের পরে কেউ তাঁদের প্রশ্ন করেনি, যে এত ভয়ানক প্রযুক্তি ভারতে আনা হল কেন? ভারতের কোন গরিব মানুষটি এতে উপকৃত হয়েছেন?
২০১৯ সালে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতায় আবার সেই দুই ভীষণ ভারত-বিরোধী শক্তি এক হয়েছে। কিন্তু ঝকঝকে চেহারার উচ্চশিক্ষিত তুখোড় ইংরেজি বলা পরিকল্পনকারীরা জানেন যে, ‘সে ইট অন দ্য ব্যারিকেড লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ্‌’ ঩তৈরি করে সাম্প্রদায়িক বিষ ছড়ানোর পরেও কেউ তাঁদের প্রশ্ন করবে না। সংসদীয় গণতন্ত্রে যাঁদের বিশ্বাস, তাঁরাও নাচলেন সুতোর টানে। পূর্ববঙ্গ থেকে আসা সব হারানো অত্যাচারিত হিন্দু উদ্বাস্তুরা সিপিএম তথা বামফ্রন্টকে দু’হাত ভরে দিয়েছেন। নিজে উদ্বাস্তু কলোনিতে বড় হওয়ার সুবাদে আমাদের পরিবারগুলির উপর পার্টির প্রভাব খুব কাছ থেকে দেখেছি। ব্রিগেডে বা কোনও বড় মিটিং হলে বাড়িতে বাড়িতে কমরেডরা বলে যেতেন, ‘‘মাসিমা, চাইরখান কইর‌্যা রুটি।’’ মা, জেঠিমারা ওই দারিদ্র্যের মধ্যেও অতি যত্নে নিজেদের হাতেগড়া কাগজের ঠোঙায় চারটি রুটি, একটু তরকারি আর এক টুকরো ভেলি গুড় দিয়ে পাঠাতেন অচেনা কোনও কমরেডের জন্য। সম্ভবত, সেই কৃতজ্ঞতাবোধ থেকেই সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাত ২০১২ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে চিঠি লিখে বাংলাদেশ থেকে অত্যাচারিত হয়ে আসা উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করেন। এই অত্যাচারিতদের সাধারণভাবে অর্থনৈতিক কারণে এদেশে আসা মানুষদের থেকে আলাদা করে বিবেচনার কথাও তিনি তাঁর চিঠিতে স্পষ্ট করে লিখেছিলেন। কিন্তু আজ পার্টি তাদের পুরনো অবস্থান থেকে সরে এসেছে। তাদের আন্দোলন, ভারত বন্‌ধ এইসবকিছুতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে পূর্ববঙ্গের হিন্দু উদ্বাস্তুরা। উদ্বাস্তুদের নির্বোধ মনে করে থাকলে তাঁরা খুব ভুল করেছেন। চিরদিনের মতো ছিন্ন হয়ে গেল—‘‘মাসিমা, চাইরখান রুটির সম্পর্ক।’’
এই ব্যাপারে আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে ধরনের রাজনীতি করছেন সেটা আমি ব্যক্তিগতভাবে সমর্থন করতে পারছি না। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার ভিতর দিয়ে উঠে আসা তাঁর মতো অত্যন্ত সফল একজন জননেত্রীর পক্ষে এটা বেমানান। আর ইতিহাস এসব মনে রেখে দেয়। আন্দোলনের নামে গত একমাসে রাজ্যে যে বিপুল পরিমাণ সরকারি সম্পত্তি ধংস করা হয়েছে, সে ব্যাপারেও সরকারের ভূমিকায় নিরপেক্ষতার অভাব স্পষ্ট। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতা দেবী নিশ্চয় এটা চাননি, তবু ঘটে গিয়েছে। পুতুলনাচের বাজিকরদের সাফল্য এখানেই।
 লেখক কলকাতায় সাহা ইনস্টিটিউট অফ নিউক্লিয়ার ফিজিক্স-এ কর্মরত। মতামত ব্যক্তিগত  
18th  January, 2020
এবার মহালয়ার ৩৫ দিন পর
দুর্গাপুজো কেন, কী বলছে শাস্ত্র?
জয়ন্ত কুশারী
 

এবার মহালয়ার ৩৫ দিন পর দুর্গাপুজো কেন, কী বলছে শাস্ত্র?
‘মা বুঝি চইলাছে কোয়ারেন্টিনে...’ বরেণ্য লোকগীতি শিল্পী অমর পাল জীবিত থাকলে বুঝি এমনটাই গাইতেন। যদিও তিনি গেয়েছিলেন, ‘মা বুঝি কৈলাসে চইলাছে...’ 
মহালয়া থেকে সপ্তমী, দিন পঁয়ত্রিশের এই ব্যবধান পাল্টে দিল এমন একটি গানের লাইন। আসলে মানুষের মুখে মুখে এখন যে ফিরছে এই কথাটি। 
বিশদ

কেন্দ্রের কথার খেলাপ, রাজ্যগুলোর অর্থাভাব
পি চিদম্বরম

কর ব্যবস্থার ক্ষেত্রে পণ্য ও পরিষেবা কর (জিএসটি) একটা ভয়ানক লড়াই হয়ে উঠেছে। যে অর্থনীতিতে পূর্বাহ্নেই দ্রুত পতনের সূচনা হয়েছিল, সেটা যখন মহামারীতে আরও বিধ্বস্ত হল তখন কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে বিরাট বিচক্ষণতার পরিচয় দেওয়া উচিত ছিল। 
বিশদ

অর্থনীতিই নয়, ভয়াবহ বিপর্যয় বিদেশনীতিরও
হিমাংশু সিংহ

২০১৪ থেকে ২০২০। মাঝে মাত্র ৬ বছর। দুর্বল না হয়ে দেশের প্রধানমন্ত্রী শক্তিশালী একনায়ক হলে রাষ্ট্রের বিপদ কী কী? এই ক’বছরেই তার মোক্ষম উত্তর পেয়ে গিয়েছে দেশ। এমনকী পরিস্থিতি আজ এমন জায়গায় দাঁড়িয়েছে যে, এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সরকারি অনুষ্ঠানে দাঁড়িয়ে নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদির সঙ্গে নরেন্দ্রনাথ দত্তের তুলনা টানছেন বুক ফুলিয়ে।  
বিশদ

20th  September, 2020
কুকথায় হাততালি জুটলেও
দূরে সরে যায় মানুষ 
তন্ময় মল্লিক

রুটি সেঁকার জন্য তাওয়া গরম করতে হয়। আবার সেই তাওয়া বেশি তেতে গেলে রুটি যায় পুড়ে। তখন খাবারের থালার বদলে রুটির জায়গা হয় ডাস্টবিনে। রাজনীতিতেও তেমনটাই। কর্মীদের চাঙ্গা করার জন্য নেতারা গরম গরম ভাষণ দেন। কিন্তু তা মাত্রা ছাড়ালে মানুষ মুখ ফিরিয়ে নেয়।  
বিশদ

19th  September, 2020
বাংলার সমাজ ও
রাজনৈতিক সন্ধিক্ষণ
সমৃদ্ধ দত্ত

সেদিন বিকেলে তাঁকে ভেন্টিলেটরে নিয়ে যাওয়া হবে। কারণ, প্রবল শ্বাসকষ্ট। অক্সিজেন দিলেও কাজ হচ্ছে না তেমন। এইমস ডাক্তাররা বুঝলেন পরিস্থিতি ভালো নয়। অনেকদিন হয়ে গেল কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন।   বিশদ

18th  September, 2020
‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’-এর
রূপকার নরেন্দ্র মোদি
যোগী আদিত্যনাথ

রাজা কালস্য কারণম্‌। মহাভারতের ‘শান্তিপর্ব’-এ যুধিষ্ঠিরকে উপদেশ দিতে গিয়ে পিতামহ ভীষ্ম এই কালজয়ী কথাটি বলেছিলেন। কথাটি পিতামহ নিজের লোকদের বলেছিলেন বলে মনে হতে পারে। কিন্তু এর ভিতরে এই ভারতের সবার জন্যই একটি জোরালো বার্তা তিনি রেখে গিয়েছেন।  বিশদ

17th  September, 2020
কাজ দাও, মুলতুবি রাখো
গ্রেট গেরুয়া সার্কাস
হারাধন চৌধুরী

দু’দশক যাবৎ ভারতীয় মিডিয়ায় সার্কাসের এলিজি বা শোকগাথা লেখা হচ্ছে। বেশিরভাগ লেখা ভারী হয়ে উঠছে জোকারদের জন্য সহমর্মিতায়। জোকারের জীবন কঠিন। কেউ শখ করে জোকার হয় না। কারও কারও জীবনখাতায় এই ভবিতব্যই লেখা থাকে।  বিশদ

17th  September, 2020
 কোনও প্রশ্ন নয়, নো কোয়েশ্চেনস!
সন্দীপন বিশ্বাস

 মোদি, অমিত শাহ তথা বিজেপি নেমে পড়েছে বিহার জয়ে। সেখানে অবশ্য নীতীশের হাত ধরে বিজেপিকে ভোট বৈতরণী পার হতে হবে। সেখানে রাজপুত ভোট আর ক্ষত্রিয় ভোট নিজেদের বাক্সে আনতে বিজেপিকে খেলতে হল দু’টি খেলা। একজনকে ডাইনি বানানো হল, অন্যজনকে দেবী বানানো হল।
বিশদ

16th  September, 2020
 সত্যিটা দেখলাম না... দেখানো হল না
শান্তনু দত্তগুপ্ত

এতকিছুর পরও আমেরিকার অর্থনীতি ধাক্কা খেল না। ট্রাম্প বুঝেছিলেন, ব্যবসাটা তিনি জানেন। করোনা ভাইরাসকে নয়। কাজেই শক্তিশালী অর্থনীতিকে বসিয়ে দেওয়ার মানে হয় না। করোনা আজ না হয় কাল কমবে। অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে বছর লেগে যাবে। বিশদ

15th  September, 2020
ফেসবুক দিয়ে ঘৃণা-বিদ্বেষ
ছড়ালে কার লাভ হয়?

২০১৯। সাধারণ নির্বাচনের আগে একটি কাগজের হেডলাইন ছিল ‘গুগল কি ভারতীয় নির্বাচনকে প্রভাবিত করছে?’ খবরটা বেরনোমাত্রই ‘গুগল’ অস্বীকার করেছিল। কিন্তু অন্যকিছু সংস্থা টের পায়, গুগলে যেভাবে প্রার্থীদের সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়েছে সেই তথ্য একটু সংশ্লেষণ করলে দ্বিধান্বিত ভোটারদের সহজেই প্রভাবিত করা সম্ভব।
বিশদ

15th  September, 2020
দমনমূলক ফেডারালিজম চলছে
পি চিদম্বরম

এটা পরিষ্কার যে মোদি সরকার এবার তার বিপুল গরিষ্ঠতাকে ব্যবহার করবে। রাজ্যগুলির মতামতের কোনও তোয়াক্কা করবে না। ইচ্ছেমতো সংশোধনী পাশ করিয়ে নেবে। ফেডারালজিমকে আরেকটি ধাক্কা দেবে। ‘এক জাতি, এক সবকিছু’ পরিণামে ‘এক জাতি’কে ধ্বংস করে ছাড়বে।
বিশদ

14th  September, 2020
নতুন জাতীয় শিক্ষানীতিতে
স্কুলশিক্ষার সর্বনাশ হবে
প্রদীপকুমার দত্ত

 সরকারি স্কুলগুলির পরিকাঠামো উন্নত করে শিক্ষাকে সব মানুষের নাগালের মধ্যে নিয়ে আসার জন্য যে অর্থের প্রয়োজন তা বরাদ্দের কোনও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা এই শিক্ষানীতিতে নেই। বরং এই শিক্ষানীতি শিক্ষার বেসরকারিকরণের পথকেই প্রশস্ত করবে। শিক্ষা ক্ষেত্রে ধনী-দরিদ্র বৈষম্য আরও বাড়বে।
বিশদ

14th  September, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সিইএসসির অফিসার বলে পরিচয় দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করল জোড়াসাঁকো থানার পুলিস। ধৃতের নাম মোহাম্মদ সুলেমান। বাড়ি তিলজলা এলাকায়। তার কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে সিইএসসির জাল রসিদ।   ...

লন্ডন: করোনা রুখতে কঠোর জরিমানার পথে হাঁটতে চলেছে ব্রিটেন। সেল্ফ আইসোলেশনে না থাকলে করোনা আক্রান্তকে ১০ হাজার পাউন্ড জরিমানা করা হবে বলে শনিবার ঘোষণা করেছে বরিস জনসন সরকার।  ...

সংবাদদাতা, বালুরঘাট: দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় দলীয় সংগঠনকে শক্তিশালী করতে সঙ্গে নিতে হবে বিপ্লব মিত্রকে। কলকাতায় বৈঠকে রাজ্য নেতৃত্বের তরফ থেকে জেলা নেতৃত্বকে এমন নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।  ...

নয়াদিল্লি: রবিবার ডিজেলের দাম ফের কমল দেশজুড়ে। এই নিয়ে গত চার দিনে ডিজেলের দাম লিটার প্রতি প্রায় ১ টাকা হ্রাস পেল। এদিন দিল্লিতে ডিজেলের দাম ২৪ পয়সা কমে হয়েছে ৭১ টাকা ৫৮ পয়সা।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সম্পত্তিজনিত মামলা-মোকদ্দমায় জটিলতা বৃদ্ধি। শরীর-স্বাস্থ্য দুর্বল হতে পারে। বিদ্যাশিক্ষায় বাধাবিঘ্ন। হঠাকারী সিদ্ধান্তের জন্য আপশোস বাড়তে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস
১৮৬৬: ব্রিটিশ সাংবাদিক, ঐতিহাসিক ও লেখক এইচ জি ওয়েলসের জন্ম
১৯৩৪: জাপানের হনসুতে টাইফুনের তাণ্ডব, মৃত ৩ হাজার ৩৬ জন
১৯৪৭: মার্কিন লেখক স্টিফেন কিংয়ের জন্ম
১৯৭৯: ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার ক্রিস গেইলের জন্ম
১৯৮০: অভিনেত্রী করিনা কাপুর খানের জন্ম
১৯৮১: অভিনেত্রী রিমি সেনের জন্ম
১৯৯৩: সংবিধানকে অস্বীকার করে রাশিয়ায় সাংবিধানিক সংকট তৈরি করলেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলৎসিন
২০০৭: রিজওয়ানুর রহমানের মৃত্যু
২০১৩: কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে ওয়েস্ট গেট শপিং মলে জঙ্গি হামলা, নিহত কমপক্ষে ৬৭



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৮৯ টাকা ৭৪.৬০ টাকা
পাউন্ড ৯৩.৫৫ টাকা ৯৬.৯১ টাকা
ইউরো ৮৫.১০ টাকা ৮৮.২১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
19th  September, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৫২,৩৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৯,৭০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৫০,৪৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৬,৭৪০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৬,৮৪০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
20th  September, 2020

দিন পঞ্জিকা

৫ আশ্বিন ১৪২৭, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, পঞ্চমী ৪৫/৩৬ রাত্রি ১১/৪৩। বিশাখানক্ষত্র ৩৮/২১ রাত্রি ৮/৪৯। সূর্যোদয় ৫/২৮/৩৬, সূর্যাস্ত ৫/৩০/৫৪। অমৃতযোগ দিবা
৭/৪ মধ্যে পুনঃ ৮/৪১ গতে ১১/৬ মধ্যে। রাত্রি ৭/৫৫ গতে ১১/৬ মধ্যে পুনঃ ২/১৭ গতে ৩/৫ মধ্যে। বারবেলা ৬/৫৯ গতে ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ২/৩০ গতে ৪/০ মধ্যে। কালরাত্রি ১০/০ গতে ১১/৩০ মধ্যে।  
৪ আশ্বিন ১৪২৭, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, চতুর্থী দিবা ৭/৩৭ পরে পঞ্চমী শেষরাত্রি ৫/১৭। বিশাখানক্ষত্র রাত্রি ৩/১। সূর্যোদয় ৫/২৮, সূর্যাস্ত ৫/৩৩। অমৃতযোগ দিবা ৭/৭ মধ্যে ও ৮/৪১ গতে ১১/১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪২ গতে ১০/৫৯ মধ্যে ও ২/১৭ গতে ৩/৬ মধ্যে। কালবেলা ৬/৫৯ গতে ৮/২৯ মধ্যে ও ২/৩২ গতে ৪/২ মধ্যে। কালরাত্রি ১০/১ গতে ১১/৩১ মধ্যে।  
মোসলেম: ৩ শফর। 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
এনআইএ-র জালে আরও ২ জঙ্গি
এনআইএ-র জালে ধরা পড়ল আরও ২ সন্দেহভাজন জঙ্গি। ধৃত আল-কায়দা ...বিশদ

09:34:00 AM

হাতি সাফারি আপাতত বন্ধ থাকবে 
কোভিড-১৯ আবহে জঙ্গল খোলার ১৫ দিন পর রিভিউ মিটিংয়ে পরিস্থিতি ...বিশদ

09:33:21 AM

নজরুল তীর্থের ওপেন এয়ার থিয়েটার খুলছে 
স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্য সুখবর দিচ্ছে নিউটাউন কলকাতা ডেভেলপমেন্ট অথরিটি। লকডাউন ...বিশদ

09:33:05 AM

বোধোদয়! স্কুটি চুরি করেও ফেরত দিয়ে গেল চোর 
এ যেন উলটপুরাণ। চুরি করে নিয়ে গিয়েও শেষমেশ তা ফেরত ...বিশদ

09:30:00 AM

ফেসবুক ইন্ডিয়াকে ফের সমন 
নয়াদিল্লি: বিদ্বেষমূলক পোষ্ট ইস্যুতে ফেসবুককে চূড়ান্ত সমন পাঠাল দিল্লি বিধানসভার ...বিশদ

09:30:00 AM

মহারাষ্ট্রে বহুতল ভেঙে মৃত ১০ 
মহারাষ্ট্রের থানেতে বহুতল ভেঙে কমপক্ষে ১০ জনের মৃত্যু হল। এখনও ...বিশদ

09:15:34 AM